ফিরে আসলেই সারপ্রাইজ!
  • এই ক্যাম্পেইনটি ১৮ নভেম্বর’১৫ থেকে পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত চলবে
  •  গ্রামীণফোন এর সকল প্রিপেইড গ্রাহকগণ (ERS এবং BPO সিম বাদে) যারা ৯ অক্টোবর ২০১৫ বা এর আগে থেকে তাদের সংযোগটি ব্যবহার করছেন না তারা এই অফারটি উপভোগ করতে পারবেন
  • আপনি অফারটির যোগ্য কিনা চেক করতে “Nov 017XXXXXXX” লিখে পাঠিয়ে দিন 9999 নম্বরে
  • রেজিস্ট্রেশনবিহীন গ্রাহকগণ যারা ৮ নভেম্বর’১৩ থেকে তাদের সংযোগটি ব্যবহার করছেন না তারা এই অফারের অযোগ্য বিবেচিত হবেন
  • আধা পয়সা/সেকেন্ড কল রেট যেকোনো জিপি নম্বরে রাত ১২টা থেকে বিকাল ৫টা পর্যন্ত প্রযোজ্য
  • ১পয়সা/সেকেন্ড কল রেট অন্য যেকোনো লোকাল নম্বরে ২৪ ঘণ্টা প্রযোজ্য
  • বিকাল ৫টার পর (রাত ১১:৫৯ পর্যন্ত) জিপি-জিপি কলে ১পয়সা/সেকেন্ড চার্জ করা হবে
  • এছাড়াও আছে ২টি GP-GP MMS ৩ দিনের মেয়াদে (পাওয়ার দিন সহ), MMS ব্যালেন্স দেখতে ডায়াল *566*14#
  • সকল উপযুক্ত গ্রাহকগণ কোন অপ্ট-ইন ছাড়াই অফারটি পাবেন (শুধু ২৯ টাকা রিচার্জ করতে হবে)
  • রিচার্জের দিন সহ লোয়ার ট্যারিফের মেয়াদ ৩০ দিন, ক্যাম্পেইন চলাকালীন অফারটি একাধিকবার নেয়া যাবে। একাধিক রিচার্জের ক্ষেত্রে অধিকতর মেয়াদ প্রযোজ্য হবে
  • এই অফার চলাকালীন স্পেশাল ট্যারিফ আধা পয়সা/সেকেন্ড এবং ১পয়সা/সেকেন্ড (২৪ ঘণ্টা) কল রেট যেকোনো লোকাল নম্বরে রেগুলার প্যাকেজ ট্যারিফ, সুপার FnF, FnF এবং রিচার্জ বেজ্ড লোয়ার ট্যারিফ যেমন (১পয়সা অফার, ৭পয়সা অফার) এর ক্ষেত্রে প্রযোজ্য হবে। মাই জোন ডিসকাউন্ট প্রযোজ্য হবে না
  • স্পেশাল ট্যারিফে বান্ডেল মিনিট, বোনাস মিনিট, বোনাস অ্যামাউন্ট এবং ইমার্জেন্সি ব্যালেন্স প্রযোজ্য নয়। বান্ডেল মিনিট, বোনাস মিনিট, বোনাস অ্যামাউন্ট এবং ইমার্জেন্সি ব্যালেন্স প্রথমে খরচ হবে
  • সকল চার্জে ৩% সম্পূরক শুল্ক + সম্পূরক শুল্কসহ মূল্যের উপর ১৫% ভ্যাট প্রযোজ্য

মোবাইল ফোনের সিমের নিবন্ধনে পরীক্ষামূলকভাবে আঙ্গুল ছাপ (বায়োমেট্রিক) পদ্ধতির ব্যবহার শুরু করেছে বাংলালিংক।
দ্বিতীয় গ্রাহক সেরা অপারেটর গত বুধবার থেকে সবার আগে এ পদ্ধতি চালু করেছে। তবে রোববার থেকে সব অপারেটরকে পরীক্ষামূলকভাবে এটি চালু করতে হবে।
নতুন এ নিয়ম অনুয়ায়ী, এখন থেকে কোনো গ্রাহক সিম কিনতে গেলে তাকে আঙ্গুলের ছাপ দিতে হবে। সেটি জাতীয় পরিচয়পত্রের ডেটাবেজের সঙ্গে মিলে গেলেই কেবল সিমটি তিনি কিনতে পারবেন।
sim-techshohor
সিম নিবন্ধনে জাতীয় পরিচয়পত্রের নম্বরের ব্যবহারের পাশাপাশি নির্বাচন কমিশনের ডেটাবেজের সঙ্গে সংযুক্ত বায়োমেট্রিক পদ্ধতির প্রচলন করা বাধ্যতামূলক করেছে টেলিযোগাযোগ মন্ত্রণালয়।
এক মাস পরীক্ষামূলকভাবে চলার পর ১৬ ডিসেম্বর আনুষ্ঠানিকভাবে পদ্ধতিটি চালু করা হবে। জানা গেছে, সব অপারেটর ইতিমধ্যে এ বিষয়ে প্রস্তুতি প্রায় শেষ করেছে।
এদিকে নতুন সিম বিক্রির ক্ষেত্রে মোবাইল ফোন অপারেটরগুলো আঙ্গুলের ছাপ নেওয়ার পদ্ধতির ব্যবহার কিভাবে করছে সেটি দেখতে রোববার রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় যাবেন টেলিযোগাযোগ বিভাগের প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম।
এদিকে গত ৩ নভেম্বর জাতীয় পরিচয়পত্রের ডেটাবেজ ব্যবহার করতে নির্বাচন কমিশনের সঙ্গে চুক্তি করেছে মোবাইল ফোন অপারেটরগুলো।
এর ফলে প্রতিটি সিম নিবন্ধনের সময় অপারেটরগুলো গ্রাহকের পরিচয় নিশ্চিত হওয়ার পরীক্ষা করতে নির্বাচন কমিশনকে দুই টাকা করে দেবে।
এর আগে ২১ অক্টোবর প্রধানমন্ত্রীর তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয় টেলিটকের একটি সিম নিবন্ধনের মাধ্যমে এ পদ্ধতির উদ্বোধন করেন।
অপারেটর সূত্র জানিয়েছে, ১৬ ডিসেম্বর থেকে একই সঙ্গে পুন:নিবন্ধন এবং যাচাই-বাছাইয়ের কাজও করবে তারা। পুননিবন্ধ:নের জন্য তাদেরকে সময় বেঁধে দেওয়া হয়েছে ৩১ মার্চ পর্যন্ত।
এর আগে প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম জানিয়েছেন বর্তমানে কার্যকর দেশের ১৩ কোটি সিমের সবগুলোরই আবার পুন:নিবন্ধন করতে হবে। নিবন্ধনবিহীন ও ভুয়া পরিচয়ে সিমকার্ড ব্যবহার করে অপরাধ বন্ধে মূলত এ সিদ্ধান্ত হয়েছে বলেও জানান তিনি।
সিম বিক্রির সঙ্গে যুক্ত ডিলার ও বিক্রেতাদেরও তালিকাও প্রথমবারের মতো করার সিদ্ধান্ত হয়েছে।
এর আগে ২০০৮ সালেও একবার সব সিমের পুন:নিবন্ধন হয়েছিল। তবে তখন জাতীয় পরিচয়পত্রের মতো গ্রহণযোগ্য কোনো পরিচয়পত্র নাথাকায় ওই প্রক্রিয়া তেমন কাজে লাগেনি।
তবে সাম্প্রতিক সময়ে মোবাইল ফোনকেন্দ্রিক বিভিন্ন অপরাধ বেড়ে যাওয়ায় সরকারের নীতিনির্ধারকরা বেশ কিছু দিন থেকেই নতুন করে নিবন্ধনের কথা ভাবতে শুরু করেন। এরই ধারাবাহিকতায় এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা

দেশে সবার আগে থ্রিথি চালুর সুযোগ পেয়েও লোকসানে ধুকছে রাষ্ট্রায়ত্ত্ মোবাইল ফোন অপারেটর টেলিটক। এ অবস্থা থেকে অপারেটরটির উত্তরণ ঘটাতে রি-ব্র্যান্ডিং করার উদ্যোগের কথা জানিয়েছেন ডাক ও টেলিযোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম।
বৃহস্পতিবার সংসদ অধিবেশনে এক সম্পূরক প্রশ্নের জবাবে প্রতিমন্ত্রী এ পরিকল্পনার কথা জানিয়ে বলেন, আগামী ডিসেম্বরের মধ্যে দেশের সব উপজেলা সদরকে টেলিটকের থ্রিজি নেটওয়ার্কের আওতায় আনা হবে।
প্রতিমন্ত্রী জানান, প্রায় ৪০ কোটি টাকার লোকসান কাটিয়ে নিজের পায়ে দাঁড়াতে রি-ব্র্যান্ডিংয়ের জন্য একটি প্রকল্প হাতে নেওয়া হচ্ছে। এর অংশ হিসেবে দেশের প্রতিটি ডাকঘরে টেলিটক পাবে একটি করে কক্ষ।
tarana halim-techshohor
সংসদে প্রশ্নোত্তর পর্বে এক সম্পূরক প্রশ্নে জাতীয় পার্টির সদস্য ফিরোজ রশীদ চৌধুরী বলেন, টেলিটকের নেটওয়ার্ক সমস্যার সমাধান করা হবে কি না? সরকারি প্রতিষ্ঠান হিসেবে এটি দিন দিন দুর্বল হয়ে যাচ্ছে।
রাষ্ট্রায়ত্ত এ কোম্পানির বর্তমান অবস্থায় হতাশ তারানা হালিম বলেন, টেলিটক যা লাভ করবে, তা দেশেই থাকবে। অথচ কিছুই হয়নি। আমরা সত্যি হতাশ। এত বছরেও কেন টেলিটক নিজের পায়ে দাঁড়াতে পারেনি! আমরা প্রতিষ্ঠানটিকে লাভজনক করতে কাজ করে যাচ্ছি।
এ সময় প্রতিমন্ত্রী রি-ব্র্যান্ডিং করা জানিয়ে বলেন, দক্ষিণ কোরিয়া সফরকালে দেশটিকে এ জন্য সহজ শর্তে ঋণ ও বিনিয়োগের আহবান জানিয়েছি।
তারানা হালিম আরও বলেন, ‘মন্ত্রণালয় শুধু সিম নিবন্ধনই করছে না। টেলিটককে নিজের পায়ে দাঁড় করাতেও কাজ করছে।’
২০০৪ সালে যাত্রা শুরু করা টেলিটক সরকারি বিভিন্ন সুযোগ সুবিধা নিয়েও জিএসএম অপারেটরগুলোর মধ্যে সবচেয়ে কম গ্রাহককে সেবা দিচ্ছে। সেপ্টেম্বরের তথ্য অনুযায়ী, দেশে গ্রাহকদের হাতে থাকা ১৩ কোটি ১৪ লাখ মোবাইল সিমের মধ্যে মাত্র ৪১ লাখ টেলিটকের।
প্রতিমন্ত্রী নম্বর ঠিক রেখে অপারেটর পরিবর্তনের সুযোগ-এমএনপি কার্যকর হলে টেলিটকের ব্যবহার আরও বাড়বে বলে উল্লেখ করেন। তিনি বলেন, টেলিটক শুধু প্রতিষ্ঠানই নয়, সেবা প্রতিষ্ঠানও বটে। যে কারণে লাভ না হলেও অনেক জায়গায় কাজ করতে হয়, যাতে ব্যয় বেড়ে যায়। টাওয়ার শেয়ার করতে পারলে টেলিটককে তৃণমূলে নিয়ে যেতে পারব। গ্রামাঞ্চলেও টু জি নেটওয়ার্ক বিস্তৃত করা হবে।
গাজী ম ম আমজাদ হোসেনের প্রশ্নের জবাবে তারানা হালিম বলেন, বর্তমানে দুটি মোবাইল ফোন অপারেটর প্যাসিফিক বাংলাদেশ টেলিকম (সিটিসেল) ও টেলিটকের কাছে সরকারের টাকা পাওনা রয়েছে। টাকার পরিমাণ এক হাজার ৮৬৫ কোটি টাকা। এর মধ্যে টেলিটকের কাছে পাওনার পরিমাণ এক হাজার ৫৮৫ কোটি টাকা।

স্যামসাংয়ের গ্যালাক্সি সিরিজের ডিভাইসগুলোতে আসছে গুগলের অপারেটিং সিস্টেম অ্যান্ড্রয়েডের সর্বশেষ সংস্করণ মার্শমালো। প্রাথমিকভাবে চলতি বছরের ডিসেম্বরে গ্যালাক্সি নোট ৫ ও গ্যালাক্সি এস ৬ এজ প্লাসে অ্যান্ড্রয়েডের নতুন সংস্করণ পাওয়া যাবে।
টাইমস নিউজের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ডিসেম্বরে গ্যালাক্সি নোট ৫ ও গ্যালাক্সি এস ৬ এজ প্লাসে মার্শমালো হালনাগাদ করা যাবে। তবে গ্যালাক্সি এস ৬ এবং এস ৬ এজে ২০১৬ সালের জানুয়ারি মাসে মার্শমালো হালনাগাদ করার সুবিধা মিলবে।
এ বিষয়ে এখনো পর্যন্ত দক্ষিণ কোরিয়ান হ্যান্ডসেট জায়ান্টটির পক্ষ থেকে কোনো ঘোষণা দেয়া হয়নি।
Samsung's Android 6.0 Marshmallow Update Roadmap Leaked
বেশ কিছুদিন ধরে প্রযুক্তি বিশ্বে গুঞ্জন চলছে, স্যামসাংয়ের গ্যালাক্সি সিরিজের স্মার্টফোনগুলোতে শিগগিরই মার্শমালো হালনাগাদের সুবিধা পাওয়া যাবে। শুধু তাই নয়, আগামী দিনগুলোতে স্যামসাংয়ের যত নতুন ডিভাইস আসবে সেগুলোতে থাকবে মার্শম্যালো।
টাইমস নিউজের প্রতিবেদনে আরও বলা হয়েছে, গ্যালাক্সি নোট ৪ ও গ্যালাক্সি নোট এজে আগামী বছরের ফেব্রুয়ারিতে মার্শমালো হালনাগাদ করা যাবে।

প্রযুক্তিতে চলছে বাঁক বদলের খেলা। সময়ের সঙ্গে তাল মিলিয়ে নতুন ফিচার যুক্ত হচ্ছে স্মার্টফোনে। কনফিগারেশন উন্নত থেকে উন্নততর হচ্ছে।
এরই ধারাবাহিকতায় র‍্যামের গতিও বাড়ছে। মেগাবাইট থেকে এখন গিগাবাইট গতিতে চলছে র‍্যাম। এক বা দুই গিগাবাইট নয়, এখন পাওয়া যাচ্ছে ৪ গিগাবাইট র‍্যামের ফোন, কয়েকদিন আগেও যা ছিল কল্পনাতীত।
ফোনের র‍্যাম যত বাড়বে স্মার্টফোন ততো বেশি গতিময় হবে। বিশেষ করে গেইমিং ভক্তদের জন্য স্মার্টফোনের অধিক র‍্যাম বেশ গুরুত্বপূর্ণ। বর্তমানে বাজারে থাকা ৪ গিগাবাইট র‍্যামের জনপ্রিয় পাঁচ স্মার্টফোনের কথা জানাতে এ প্রতিবেদন।
oneplus-2
ওয়ানপ্লাস টু
চীনের স্মার্টফোন নিমার্তা ওয়ানপ্লান ইতোমধ্যে স্মার্টফোনের বাজারে বেশ ভালো অবস্থান তৈরি করেছে। উন্নত কনফিগারেশনের ফোন সাশ্রয়ী দামে এনে জনপ্রিয়তা পেয়েছে বেশ।
সেই ধারাবাহিকতায় সর্বশেষ ডিভাইস ওয়ানপ্লাস টুতে ব্যবহার করা হয়েছে ৪ গিগাবাইট র‍্যাম। এতে আরও রয়েছে ফিঙ্গারপ্রিন্ট প্রযুক্তি এবং ইউএসবি টাইপ সি।
৫.৫ ইঞ্চি ডিসপ্লের এ ফোনে রয়েছে গরিলা গ্লাস প্রযুক্তি। প্রসেসর হিসেবে রয়েছে অক্টাকোর স্ন্যাপ্নড্রাগন ৮১০।
ছবি তোলার জন্য এর পিছনে রয়েছে ১৩ মেগাপিক্সেল ক্যামেরা এবং সেলফি তোলার জন্য সামনে রয়েছে ৫ মেগাপিক্সেল ক্যামেরা। এতে রয়েছে ৩ হাজার ৩০০ মিলিঅ্যাম্পিয়ার ব্যাটারি।
দেশের বাজারে ওয়ানপ্লাস টু এর ১৬ গিগাবাইট ইন্টারনাল মেমোরি সংস্করণের মূল্য ৩৪ হাজার টাকা এবং ৬৪ গিগাবাইটের মূল্য ৩৮ হাজার টাকা।
আসুস জেনফোন টু
ল্যাপটপের বাজারে সুনাম অর্জনকারী প্রতিষ্ঠান আসুসের তৈরি জেনফোন ২ স্মার্টফোনে রয়েছে ৪ গিগাবাইট র‍্যাম। এতে রয়েছে ২.৩ গিগাহার্টজ ইন্টেল এটম প্রসেসর।
ছবি তোলার জন্য ৫.৫ ইঞ্চি ডিসপ্লের ফোনটির পেছনে রয়েছে ১৩ মেগাপিক্সেল ক্যামেরা এবং সেলফির জন্য সামনে রয়েছে ৫ মেগাপিক্সেল ক্যামেরা।
উন্নত ব্যাকআপ সুবিধা দিতে এতে রয়েছে ৩ হাজার মিলিঅ্যাম্পিয়ার ব্যাটারি। এতে রয়েছে ৬৪ গিগাবাইট সমর্থিক মাইক্রো এসডি কার্ড স্লট।
স্মার্টফোনটির মূল্য ২৪৯ মার্কিন ডলার। দেশের বাজারে বিক্রি হচ্ছে ২১ হাজার থেকে ২৩ হাজার টাকায়।
স্যামসাং গ্যালাক্সি নোট ফাইভ
দক্ষিণ কোরিয়ার প্রযুক্তি জায়ান্ট স্যামসাংয়ের গ্যালাক্সি নোট ৫ ডিভাইসে ৪ গিগাবাইট র‍্যামের পাশাপাশি রয়েছে ৬৪ বিট ২.১ কোয়ার্ড কোর প্রসেসর।
ছবি তোলার জন্য রয়েছে ১৬ মেগাপিক্সেল ক্যামেরা এবং সামনে রয়েছে ৫ মেগাপিক্সেল ক্যামেরা।
৫.৭ ইঞ্চি ডিসপ্লের ফ্যাবলেট আকারের ডিভাইসটিতে ব্যবহার করা হয়েছে সুপার অ্যামলয়েড স্ক্রিন। এতে রয়েছে ৩ হাজার মিলিঅ্যাম্পিয়ার ব্যাটারি। দেশের বাজারে মূল্য ৬৯ হাজার টাকা।
Air Command menu-970-80
জিওমি এমআই নোট প্রো
জিওমি চীনের আরেক স্মার্টফোন নিমার্তা প্রতিষ্ঠান, যা চীনা অ্যাপল নামে খ্যাতি অর্জন করেছে।
প্রতিষ্ঠানটির এমআই নোট প্রো ডিভাইসটিতে রয়েছে ৪ গিগাবাইট র‍্যাম। ফলে দ্রুত ও গতিময়ভাবে কাজের পাশাপাশি গেইম খেলা যাবে অনায়াসে।
৫.৭ ইঞ্চি ডিসপ্লে ফোনটিতে ব্যবহার করা হয়েছে অক্টাকোর স্ন্যাপড্রাগন ৮১০ প্রসেসর। রয়েছে ৬৪ গিগাবাইট ইন্টারনাল স্টোরেজ।
ছবি তোলার জন্য পিছনে রয়েছে ১৩ মেগাপিক্সেল ক্যামেরা এবং সামনে রয়েছে ৪ মেগাপিক্সেল ক্যামেরা।
উন্নত ব্যাকআপ সুবিধা দিতে এতে রয়েছে ৩ হাজার মিলিঅ্যাম্পিয়ার ব্যাটারি। দেশের বাজারে মূল্য ৪০ হাজার টাকা।
Xiaomi-Mi-Note-Pro
লেনেভো কে৮০
লেনভো কে৮০ স্মার্টফোনটি চলতি বছর এপ্রিলে বাজারে আনে প্রতিষ্ঠানটি। ৪ গিগাবাইট র‍্যামের স্মার্টফোনটিতে রয়েছে ৫.৫ ইঞ্চি ডিসপ্লে ১.৮৩ গিগাহার্টজ প্রসেসর।
ছবি তোলার জন্য পিছনে রয়েছে ১৩ মেগাপিক্সেল ক্যামেরা এবং সামনে রয়েছে ৫ মেগাপিক্সেল ক্যামেরা।
ইন্টারনাল স্টোরেজ সুবিধা দিতে এতে রয়েছে ৬৪ গিগাবাইট মেমোরি। তবে ডিভাইসটিতে মাইক্রো এসডি কার্ড ব্যবহারের সুযোগ মিলবে না। কালো, সিলভার, লাল রংয়ের ডিভাইসটির বিক্রি হচ্ছে ২৫ হাজার টাকায়।

২৪ মেগাপিক্সেল রিয়ার ক্যামেরার একটি স্মার্টফোন বাজারে আনতে যাচ্ছে দেশীয় ব্র্যান্ড ওয়ালটন। ‘ওয়ালটন প্রিমো জেডএক্স২’ নামের এই ডিভাইসে ব্যবহার করা হয়েছে উন্নত মানের কনফিগারেশন। এটি ওয়ালটনের ফ্ল্যাগশিপ এবং উচ্চ বাজেটের ফোন।
৬ ইঞ্চি কোয়াড এইচডি ডিসপ্লের ফোনটিতে রয়েছে ২ গিগাহার্টজ ৬৪ বিট অক্টোকোর কটেক্স এ৫৩ প্রসেসর। এতে থাকবে ৩ গিগাবাইট র্যা্ম এবং ৬৪ গিগাবাইট ইন্টারনাল স্টোরেজ। চাইলে মাইক্রো এসডি কার্ড ব্যবহার করে মেমোরি ১২৮ গিগাবাইট পর্যন্ত বাড়ানো যাবে। স্মার্টফোনটির ডিসপ্লে রেজ্যুলেশন হল ২৫৬০*১৪৪০, যা ৪৯২ পিপিআর সমৃদ্ধ।
স্মার্টফোনটির পিছনে ২৪ মেগাপিক্সেলের ক্যামেরায় ব্যবহার করা হয়েছে ৬ অপটিক লেন্স, যা দিয়ে ফোরকে ভিডিও করা এবং উন্নত মানের ছবি তোলা যাবে। সেলফি ও ভিডিও চ্যাটের জন্য স্মার্টফোনটির সামনে রয়েছে ১৩ মেগাপিক্সেল ক্যামেরা।

12189132_1035875666476574_2987432917499095609_n (1)
অপারেটিং সিস্টেম হিসেবে ডিভাইসটিতে রয়েছে অ্যান্ড্রয়েড ললিপপ ৫.১। ডুয়েল সিম সমর্থনযোগ্য এই ফোনটিতে আরও রয়েছে ওয়াইফাই, ব্লুটুথ সুবিধা। স্মার্টফোনটিতে আরও রয়েছে ওটিজি ক্যাবল ব্যবহার সুবিধা, ফলে মাউস ও কিবোর্ড ব্যবহার করা যাবে।
স্মার্টফোনটির ওজন মাত্র ২১০ গ্রাম। উন্নত ব্যাকআপ সুবিধা দিতে এতে রয়েছে ৩ হাজার ৫০০ মিলিঅ্যাম্পিয়ার আওয়ারের ব্যাটারি।
আগামী মাস থেকে স্মার্টফোনটি দেশের বাজার বিক্রি শুরু হবে। স্মার্টফোনটির মূল্য কত হবে এই সম্পর্কে ওয়ালটনের পক্ষ থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে কোন তথ্য প্রকাশ করা হয়নি। তবে জানানো হয়েছে, স্মার্টফোনটির মূল্য ৪০ হাজার টাকার কম হবে।

সার্চ জায়ান্ট গুগলের পর এবার স্মার্টকার আনতে যাচ্ছে আরেক মার্কিন টেক জায়ান্ট অ্যাপল।
এমন সংবাদ এর আগে গণমাধ্যমে এলেও এবার জানা গেল অ্যাপলের স্বয়ংক্রিয় ইলেকট্রিক গাড়ি বাজারে আসছে আগামী ২০১৯ সালের মধ্যে।
নিউ ইয়র্ক ভিত্তিক প্রভাবশালী মার্কিন দৈনিক ওয়াল স্ট্রিট জার্নাল এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে টাইটান নামে স্মার্টকার প্রোজেক্ট নিয়ে কাজ করছে অ্যাপল।
apple car_
এরই মধ্যে গাড়ি নির্মাণে বিখ্যাত এমন কয়েকটি প্রতিষ্ঠানের কয়েকজন বিশেষজ্ঞকে নিয়োগ দিয়েছে অ্যাপল। এর মধ্যে রয়েছেন ভক্সওয়াগনের সাবেক প্রকৌশলী ও গাড়ি বিশেষজ্ঞ মেগান ম্যাকক্লেইন।
জানা গেছে গাড়ি তৈরি শিল্পের সঙ্গে জড়িত এমন কর্মীদের টাইটান প্রোজেক্টে নিয়োগ দেওয়া শুরু হয়েছে। যদিও এরই মধ্যে এ প্রকল্পে ৬০০ জন কর্মী কর্মরত আছে। জানা গেছে এই সংখ্যা প্রায় ২০০০ করা হবে।
ওয়াল স্ট্রিট জার্নালের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে গত এক বছর ধরে স্মার্টকার প্রকল্প টাইটান নিয়ে কাজ করছে মার্কিন প্রতিষ্ঠানটি। তবে মার্কিন গণমাধ্যমে এমন খবর প্রকাশিত হলেও বিষয়টি নিয়ে কথা বলেননি অ্যাপলের কোন কর্মকর্তা।
বিশেষজ্ঞরা বলছেন পরবর্তী প্রজন্মের স্মার্টকার এনে চমক দিতে চায় প্রতিষ্ঠানটি। তাই বরাবরের মতোই এবারও তাদের কোন পণ্যের বিষয়ে আগাম বক্তব্য দিচ্ছে না অ্যাপল।

অ্যান্ড্রয়েডভিত্তিক স্মার্টফোনের জন্য বাংলা ই-বুক অ্যাপ ‘বই ঘর’ চালু করেছে মোবাইল ফোন অপারেটর বাংলালিংক।
এই অ্যাপের সাহায্যে বাংলালিংক গ্রাহকরা বিনামূল্যে বাংলায় লেখা নতুন নতুন বই ডাউনলোড করে পড়তে পারবেন।
বাংলালিংক লোগো-টেকশহর
গুগল প্লেস্টোর থেকে অথবা ৭০৫০ নম্বরে ‘START BM’ লিখে এসএমএস করে অ্যাপটি ডাউনলোড করা যাবে। এতে খরচ পড়বে ২ দশমিক ৩৭ টাকা।
বাংলালিংকের ভ্যাস অ্যান্ড ডেটা জেনারেল ম্যানেজার (মার্কেটিং) জিয়াউল হক সিকদার জানান, দেশের ইতিহাস, ঐতিহ্য এবং সভ্যতাকে সংরক্ষণ ও তরুণদের ডিজিটাল বই পড়ায় আগ্রহী করে তুলতে এটি খুব কাজে দেবে।

এমন তিক্ত অভিজ্ঞতার মুখে অনেককেই পড়তে হয়। জরুরি সময়ে ফোনের হোম বাটন অকেজো হয়ে পড়লে বেকায়দায় পড়তে হয়। হাত থেকে পড়ে কিংবা পানি ভিজে হঠাৎ করেই স্মার্টফোনের হোম বাটন কাজ কাজ করে না। অনেক সময় হোম বাটনের পাশে থাকা ব্যাক বাটনও কাজ করে না।
তবে স্মার্টফোনের অন্যান্য ফিচার যেমন টাচসহ বাকি সব কিছু ঠিক থাকে। এ সমস্যা সমাধানের জন্য সার্ভিস সেন্টারে যেতে হয়। বেশ কিছু অর্থও গচ্ছা যায়।
তবে কোনো ধরনের হার্ডওয়্যার মেরামত না করে ‘মাই হোম বাটন’ নামের একটি অ্যাপ্লিকেশনের সাহায্যে এ সমস্যা থেকে তাৎক্ষণিকভাবে মুক্তি পাওয়া সম্ভব। এতে যেমন জরুরি কাজটিও মেটানো যায়, তেমিন সার্ভিস সেন্টারে যাওয়ার ঝামেলা থেকেও বাঁচা যায়।
apps
এক নজরে অ্যাপ্লিকেশনটির ফিচারগুলো
এটির মাধ্যমে হোম, ব্যাক এবং মেন্যু অপশনের নাম অনায়াসে বদলানো যাবে।
অ্যাপটির সবচেয়ে বড় সুবিধা হলো এটি ব্যবহার করতে ডিভাইসটি রুট করতে হবে না। প্লেস্টোরে এরূপ আরও কিছু অ্যাপ রয়েছে যেগুলো ব্যবহার করতে রুট করতে হয়। তবে এটির ক্ষেত্রে তা প্রয়োজন হবে না।
এটি ব্যবহার করে স্মার্টফোনে থাকা অ্যাপ্লিকেশনগুলো শর্টকার্ট হিসেবেও ব্যবহার করা যাবে।
নোটিফিকেশন বার থেকে হোম বাটন ব্যবহার করা যাবে।
ব্যবহারকারীদের সুবিধা মতো স্মার্টফোনের স্ক্রিন ব্যাক, হোম বাটন প্রদর্শনের সুবিধা পাওয়া যাবে অ্যাপটি ব্যবহার করে।
সম্পূর্ণ অফলাইনে কাজ করবে এটি। ফলে একবার ডাউনলোডের পর আর ইন্টারনেট সংযোগ প্রয়োজন হবে না।

সস্তায় পাওয়া যায় বলে অনেকেই পুরাতন স্মার্টফোন কিনে থাকেন। তবে সব সময় যে পুরানো স্মার্টফোন ভালো হয়ে থাকে তা নয়। এ ধরনের ফোন কিনে অনেক ধরনের বিপত্তিতে পড়তে হয় গ্রাহকদের। তাই পুরনো স্মার্টফোন কেনার আগে যেসব বিষয়ের দিকে খেয়াল রাখতে হবে তা তুলে ধরা হলো এ টিউটোরিয়ালে।
Pile of smart phones
বক্স আছে কি?
পুরানো স্মার্টফোন কেনার আগে বিক্রেতার কাছ থেকে আইএমইআই নম্বরের সঙ্গে মিলিয়ে বক্সটি বুঝে নিতে হবে। আইএমইআই নম্বর ঠিক না থাকলে আসাদের মতো ঝামেলা হতে পারে।
ফোনের সঙ্গে যাবতীয় সরঞ্জাম ভালো করে যাচাই করে নিতে হবে। অনেকেই আসল চার্জার বা হেডফোন রেখে অন্যটি দিয়ে থাকেন। তাই ভালো করে যাচাই করে নিতে হবে। বিশেষ করে অনলাইনে পণ্য কেনার ক্ষেত্রে এগুলো বেশি যাচাই করতে হবে। কেননা একবার পণ্য হাতবদল হয়ে গেলে বিক্রেতার আর দেখা নাও পেতে পারেন।
কনফিগারেশন
কনফিগারেশন মূলত নির্ভর করে আপনি কোন ধরনের ও দামের স্মার্টফোন কিনছেন সেটির উপর। ফোনটি কেনার আগে কনফিগারেশনটি ভালো ভাবে যাচাই করে বুঝে নিতে হবে। মনে রাখতে হবে দেখতে একই রকম হলেই ফোনটি আসল নাও হতে পারে।
বর্তমানে বাজারে অনেক কপি ফোন পাওয়া যায়। সেগুলো দেখতে ব্র্যান্ডের মত হলেও কনফিগারেশনে ঝামেলা থাকে। তাই মডেল একই হলেও ফোনের মধ্যে বাস্তবে কনফিগারেশন কেমন তা যাচাই করে নিতে হবে।

ফোনটি চুরি করা কিনা?
চোরাই ফোন খুব দ্রুত বিক্রি করতে চান বিক্রেতারা। ফলে অনেক কম দামে বিক্রি করে দেয় চোরেরা। এমন ক্ষেত্রে তা নিশ্চিত হয়ে নিতে হবে। বিক্রেতা এটি নিজে ব্যবহার করেছেন নাকি অন্য কোথাও থেকে সংগ্রহ করেছেন। চুরির ফোন হলে আসাদের মতো পরে তা ফেরতও দিতে হবে আবার হয়রানির মুখে পড়তে হতে পারে।
তাই ফোন কেনার আগে দামের ব্যাপারটি খেয়াল করতে হবে। সস্তায় চোরাই স্মার্টফোন না কেনাই ভালো। *#06#’ ডায়াল করে ফোনের IMEI নম্বার চেক করুন।
ওয়ারেন্টি আছে কি?
পুরাতন স্মার্টফোন কেনার সময় ওয়ারেন্টি যাচাই করে নিতে হবে। কেননা ওয়ারেন্টি না থাকলে কেনার পর তা নিয়ে বিপাকে পড়তে হবে। আবার অনেক সময় পুরানো স্মার্টফোন যন্ত্রাংশ বাজারে নাও পাওয়া যেতে পারে।  তাই ওয়ারেন্টি দেখে কিনুন।
চেনাজানা মানুষের কাছ থেকে কেনা
পুরাতন স্মার্টফোন কেনার ক্ষেত্রে অপরিচিত লোকজনের কাছ থেকে না কেনাই ভালো । চেনাজানা কারও কাছ থেকে কেনাই ভালো।

superloaded-current_bangli
 
এই অফার শুধুমাত্র রবি'র সাইলেন্ট প্রিপেইড গ্রাহকদের জন্য প্রযোজ্য 
ক্যাম্পেইন মেয়াদ
২৩ অক্টোবর, ২০১৫ থেকে পরবর্তী নোটিশ না দেয়া পর্যন্ত
সেরা কলরেট
- স্পেশাল ট্যারিফ পেতে কাস্টমারকে ৯.০০টাকা অথবা ২৯.০০টাকা রিচার্জ করতে হবে (সেরা কলরেট)
     > যেকোন রবি নম্বরে ০.৫ পয়সা/সেকেন্ড (২৪ ঘন্টা)
     > অন্য অপারেটরে ১পয়সা/ সেকেন্ড (২৪ঘন্টা)
- ৯টাকা রিচার্জে মেয়াদ ১০দিন এবং ২৯টাকা রিচার্জে মেয়াদ ৩০দিন
- যদি গ্রাহক ৯টাকা কিংবা ২৯টাকা রিচার্জ না করেন তাহলে তারা অন্য অপারেটরে ১৬পয়সা/১০সেকেন্ড রবি-রবি এবং ৫০পয়সা/সেকেন্ড অন্য অপারেটরে উপভোগ করবেন
- সাবস্ক্রাইবার যদি অন্য কোন ট্যারিফ প্ল্যানে মাইগ্রেট করেন তাহলে তারা স্পেশাল ট্যারিফ সুবিধার আওতায় থাকবে না
 
বিশেষ কম্বো
- এই বিশেষ কম্বোতে কাস্টমার ৫০ এমবি ডাটা(২৪ ঘন্টা) এবং ১০০০ এসএমএস(২৪ ঘন্টা) যেকোন রবি নম্বরে পাবেন ৯টাকায়
- এই কম্বোর মেয়াদ ১০দিন
- ১০দিনের মধ্যে কাস্টমার এই কম্বো একবারই ক্রয় করতে পারবেন
- কাস্টমার কম্বো প্যাক ক্রয় করতে ডায়াল করুন *৮৬৬৬*০০৯#
- ডাটা চেক করতে *৮৪৪৪*৮৮# এবং রবি-রবি এসএমএস চেক করতে ডায়াল *২২২*১০#
- যেসকল সাবস্ক্রাইবার এই স্পেশাল কম্বো ক্রয় করবেন তাদের জন্য আছে ১ মাসের জন্য ফ্রি নামাজের সময় এলার্ট, নিউজ এলার্ট এবং স্পোর্টস এলার্ট 
১০০ এমবি এবং ২৫০ এমবি ক্রয়ে ১০০% বোনাস সহ অফুরন্ত মেয়াদ
- অফারকৃত কাস্টমারদের জন্যই ১০০এমবি এবং ২৫০এমবি নিয়মিত মাসিক ইন্টারনেট প্যাকের উপর ১০০% বোনাস প্রযোজ্য
- ১০০এমবি প্যাক (*৮৪৪৪*১০০#) ৪০টাকায় এবং ২৫০ এমবি প্যাক(*৮৪৪৪*২৫০#) ৭৫টাকায়। উভয় প্যাকের মেয়াদ ২৮দিন
- কাস্টমার উভয় প্যাকে ১০০% বোনাসে অফুরন্ত মেয়াদ পাচ্ছেন (১০০এমবি এবং ২৫০এমবি)
- ক্যাম্পেইন চলাকালে গ্রাহক যতোবার খুশী ততোবার প্যাক ক্রয় করতে পারবেন
- কাস্টমার ১০০% বোনাস প্যাক ক্রয়ের ৭২ঘন্টার ভেতরেই পাবেন
অন্যান্য শর্ত
- রবি প্রি-পেইড সাবস্ক্রাইবার (পোস্ট-পেইড, এসএমই, উদ্যোক্তা কর্পোরেট, ইজিলোড ব্যতীত) যারা তাদের নম্বর বিগত ৬০দিন বা তারও বেশি সংযোগ স্থগিত রেখেছেন তারাই সাইলেন্ট কাস্টমার হিসেবে বিবেচিত হবেন
- সাইলেন্ট কাস্টমাররা তাদের বন্ধ থাকা সিম যেকোন আউটগোইং কল, এসএমএস অথবা যেকোন রেভিনিউ তৈরি করা এক্টিভিটির মাধ্যমে তার সংযোগ রি-এক্টিভেট করতে পারবেন
- অফারের আওতা চেক করতে, কাস্টমার নিম্নোক্ত উপায়ে ফ্রি এসএমএস করতে পারবেন। A(space)018XXXXXXXX লিখে পাঠান ৮০৫০ নম্বরে
- সকল চার্জে সম্পূরক শুল্ক + সম্পূরক শুল্কসহ ট্যারিফের উপর ভ্যাট প্রযোজ্য

 
Pay for data, get talktime and SMS to all local networks
 
Now on Robi Internet+ you don’t have to activate separate bundles for internet, talk time or SMS. You activate internet+ and you will get daily 10Min talk time and 100SMS to any local number.


Why Internet+
 
- Simple internet offer without any restrictions
- You activate internet, talk time and SMS included
- You can talk or send SMS to any local number with the bundle balance.


InternetTalk TimeSMSValidityEasy Load Amount (BDT)*Price (BDT)How to activate
45 MB 10 min. 100 1 Day 13 11 Dial *140*25*1#
200 MB 70 min. 700 7 Days 88 74 Dial *140*25*2#
750 MB 280 min. 2800 28 Days 278 234 Dial *140*25*3#


Note:
 
- You can use the talk time on Robi–Robi or Robi-Other local number voice calls
- You can send SMS to Robi–Robi or Robi-Other local number
- There is no time band restriction on internet, talk time or SMS usages
- The bundles are in auto renew but you can stop auto renew any time by dialing *140*25#. Easy load packs are not in auto renew.
- In case of repurchase internet, talk time or SMS will be accumulated
- Above bundles are for prepaid customers only
- In case of bundle purchase through easyload, the amount will not be added in your main account balance
- To check Talk time balance dial *222*8#, for SMS dial *222*12#, for Internet dial *8444*88#
- Bundle *price are excluding SD & VAT on price inclusive of SD. Easy load packs are including SD & VAT

এবার নিয়ে নিন একটি রবি পোস্টপেইড সিম ফ্রি। উপরন্তু আপনি উপভোগ করবেন ১০ পয়সা/১০ সেকেন্ডের সর্বনিম্ন কলরেট যেকোনো লোকাল নম্বরে, ৩৫ পয়সা/এসএমএস যেকোনো লোকাল অপারেটরে, ডিফল্ট ভাবে ৫০ পয়সা/মেগাবাইট পিপিইউ ইন্টারনেট চার্জ (কোনো রিচার্জ বা ব্যবহারের শর্ত ব্যতীত) এবং আরও অনেক সুবিধা...

সংযোগের মূল্য, সিকিউরিটি ডিপোজিট এবং ক্রেডিট লিমিট

- সংযোগের মূল্য: ফ্রি
- লাইন রেন্ট: ফ্রি
- আপনাকে ৫০০ টাকা সিকিউরিটি ডিপোজিট হিসাবে পরিশোধ করতে হবে (সিকিউরিটি ডিপোজিটের বিপরীতে ৫০০ টাকা ব্যবহারযোগ্য)
- ক্রেডিট লিমিট: ০.০০ টাকা

সক্রিয় করার পরবর্তী বোনাস

- ৫০০ এমবি ডাটা (১ মাস মেয়াদ)
- ৫০০ এসএমএস (১ মাস মেয়াদ, যেকোনো অপারেটরে ব্যবহারযোগ্য)
- ৫০০ এমএমএস (১ মাস মেয়াদ, যেকোনো অপারেটরে ব্যবহারযোগ্য)
- ফ্রি দৈনিক নিউজ এলার্ট (৩ মাস মেয়াদ)
- ফ্রি কল ব্লক (৩ মাস মেয়াদ)

ট্যারিফ প্ল্যান

ট্যারিফ প্ল্যাননতুন প্যাকেজ
বিবরণ পয়সা /১০ সেকেন্ড
আউটন-গোইং ২৪ ঘন্টা (ফ্ল্যাট)
ভয়েস কল(লোকাল) ১০ পয়সা [৬০ পয়সা /মিনিট]
এসএমএস (লোকাল) ৩৫ পয়সা
ইন্টারনেট (পিপিইউ) ৫০ পয়সা /এমবি
পালস ১০ সেকেন্ড
লাইন রেন্ট ফ্রি
ইন্টারন্যাশনাল(আইএসডি) শুধু আইএসডি চার্য; ১৫- সেকেন্ড পালস
ইন-কামিং
বিশ্বব্যাপী যে কোনো নম্বর ফ্রি
মাইগ্রেশন (ফ্রি) ইউএসএসডি : ডায়াল *১৪০*৫২# অথবা
এসএমএস: টাইপ 10on এবং এসএমএস পাঠান ৮২৪৪ নম্বরে
প্রতিদিন সর্বোচ্চ একবার মাইগ্রেশন করা যাবে
নোট সকল চার্জের উপর সম্পূরক শুল্ক ও ভ্যাট প্রযোজ্য হবে

ব্যবহার ভিত্তিক ছাড় ট্যারিফ ও বোনাস

আপনি আরো উপভোগ করতে পারবেন অবিলম্বে নিচের ব্যবহার ভিত্তিক ছাড় ট্যারিফ ও বোনাস
মাসিক ব্যবহার [ বিল সাইকেল ]
(এসডি এবং ভ্যাট ব্যতীত)
কল রেট (অন-নেট) ও বোনাস
২০০ টাকা ২০০  মিনিট  (অন-নেট) এবং ১ জিবি ডাটা
৪০০ টাকা ৭.৫  পয়সা /১০ সেকেন্ড (অন-নেট ৪৫  পয়সা / মিনিট
৬০০ টাকা এবং তার উপরে ৫ পয়সা /১০ সেকেন্ড (অন-নেট): ৩০  পয়সা / মিনিট

অন্যান্য সুবিধা সমূহ

- সকল বিদ্যমান পোস্টপেইড গ্রাহক নতুন প্যাকে মাইগ্রেট করার মাধ্যমে সক্রিয়করণ বোনাস ছাড়া বাকি সকল ট্যারিফ/সুবিধা সমূহ উপভোগ করতে পারবেন। বিদ্যমান অন্যান্য সকল ডিসকাউন্ট মাইগ্রেট করার পরে বাতিল করা হবে (আইডিডি সুবিধা, ক্রেডিট লিমিট ও সিকিউরিটি ডিপোজিটে কোন পরিবর্তন হবে না)।
- ফ্রি ১২৩ সেবা (হটলাইন)
- ডব্লিউআইসি এর ক্ষেত্রে অগ্রাধিকার
- ফ্রি পণ্যভিত্তিক বিল
- ডিফল্ট ভাবে লয়ালিটি প্রোগ্রামের মেম্বারশিপ
- ডুপ্লিকেট ডায়াল/পছন্দসই সাফিক্স মেলানো নম্বর: রবি সেবা থেকে পর্যাপ্ততার ভিত্তিতে শেষ ৬ ডিজিট পর্যন্ত
- অন্যান্য কমার্শিয়াল প্যাকেজ সমুহেও মাইগ্রেশন আউট করা সম্ভব
- রবি সেবা থেকে ঠিকানা পরীক্ষা করার পরে আইডিডি সেবা চালু করা হবে (বর্তমান পলিসি অনুযায়ী)

অন্যান্য তথ্য

- আপনি সক্রিয়করণ বোনাস ও ব্যবহারের বোনাসের জন্য এসএমএস নোটিফিকেশান পাবেন
- সক্রিয়করণ ডাটা বোনাস চেক করতে ডায়াল করুন *৮৪৪৪*৮৮#
- ব্যবহার ভিত্তিক ডাটা বোনাস (১ জিবি) ডিফল্ট পে পার ইউজ ভিত্তিতে খরচ হবে
- মাসিক বিলে সকল বোনাস ডিসকাউন্ট হিসাবে প্রকাশ পাবে
- উপযুক্ত ক্ষেত্রে প্রো-রেট প্রযোজ্য হবে
- ডিসকাউন্ট কৃত ট্যারিফ/বোনাস: তাৎক্ষণিক (রেটিঙের সময়ে ডিসকাউন্ট প্রযোজ্য)
- মাসিক বিল হিসাবে ই-বিল ও এসএমএস পাঠানো হবে। আপনি ওয়েব-বিল সেবার মাধ্যমে বিগত ৩ মাসের বিল দেখতে/ডাউনলোড করতে পারবেন।
- ডাটা ব্যবহারের ক্ষেত্রে নিয়মিত পালস (পার কিলোবাইট) প্রযোজ্য
- সকল চার্জের উপর ৩% সম্পূরক শুল্ক + সম্পূরক শুল্কসহ ট্যারিফের উপর ১৫% ভ্যাট প্রযোজ্য হবে
- ক্যাম্পেইনের সময়কাল: পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত

half_paisa_sep15-2

অফারের বিস্তারিত

  • সকল বাংলালিংক প্রিপেইড এবং কল অ্যান্ড কন্ট্রোল গ্রাহকগণ (আই’টপ-আপ ব্যতীত) এই অফারটি উপভোগ করতে পারবেন
  • অফারটি উপভোগ করতে গ্রাহককে একবারে ৩১ টাকা রিচার্জ করতে হবে
  • রিচার্জ করার সাথে সাথে স্পেশাল রেট অ্যাক্টিভেট হয়ে যাবে
  • সকল বাংলালিংক নাম্বারে রাত ১২টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত আধা পয়সা এবং বিকাল ৪টা থেকে রাত ১২টা পর্যন্ত ১ পয়সা/সেকেন্ড রেটে কথা বলা যাবে
  • অন্য অপারেটরে ১ পয়সা/সেকেন্ড কথা বলা যাবে দিন-রাত ২৪ঘন্টা
  • স্পেশাল রেটের মেয়াদ রিচার্জের দিনসহ ৪ দিন এবং একাধিক রিচার্জের ক্ষেত্রে বর্ধিত মেয়াদ প্রযোজ্য
  • প্রতি ঘন্টায় একবারে ৩১ টাকা রিচার্জকারী সর্বপ্রথম গ্রাহককে samsung স্মার্টফোন বিজয়ী হিসাবে গণ্য করা হবে
  • একজন গ্রাহক এই ক্যাম্পেইন চলাকালীন সর্বোচ্চ একটি স্মার্টফোন জিততে পারবেন
  • রিচার্জের ৭২ঘণ্টার মধ্যে স্মার্টফোন বিজয়ী গ্রাহককে বাংলালিংক-এর পক্ষ থেকে স্মার্টফোনের মডেল এবং সংগ্রহের প্রক্রিয়া জানিয়ে দেয়া হবে
  • এই ৫ দিনে মোট ১২০টি স্মার্টফোন বিজয়ী গ্রাহকদের দেয়া হবে
  • স্মার্টফোন বিজয়ী নির্ধারণের ক্ষেত্রে বাংলালিংক কর্তৃপক্ষের সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত হিসাবে বিবেচিত হবে
  • স্মার্টফোন বিক্রয়ত্তোর সেবার জন্য বাংলালিংক দায়বদ্ধ নয়
  • এই স্পেশাল রেটের মেয়াদ থাকাকালীন সময়ে অন্যান্য স্পেশাল রেট প্রযোজ্য হবে না এবং কোন ধরনের বোনাস অফার প্রযোজ্য হবে না
  • অফারটি থেকে আনসাবস্ক্রাইব করতে ডায়াল *১৬৬*৩১৩#
  • ১ সেকেন্ড পালস প্রযোজ্য
  • অফারটি সীমিত সময়ের জন্য
  • ১৫% ভ্যাট এবং ৩% সম্পূরক চার্জ প্রযোজ্য

free_bat_999tk_recharge

৯৯৯ টাকা স্ক্র্যাচ কার্ড রিচার্জে সাকিব আল হাসান-এর অটোগ্রাফ সহ ব্যাট ফ্রি!
বাংলালিংক-এ রিচার্জ করে মেতে উঠো ক্রিকেট উন্মাদনায়! ৯৯৯ টাকা স্ক্র্যাচ কার্ড রিচার্জে থাকছে বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান-এর অটোগ্রাফ সহ ব্যাট!

অফারের বিস্তারিত

  • সকল বাংলালিংক প্রিপেইড এবং কল অ্যান্ড কন্ট্রোল গ্রাহকগণ ৯৯৯ টাকা স্ক্র্যাচ কার্ড রিচার্জ করে উপভোগ করতে পারবেন সাকিব আল হাসান-এর অটোগ্রাফ সহ একটি ফ্রি ব্যাট
  • গ্রাহক নির্দিষ্ট স্ক্র্যাচ কার্ড ক্রয় করার সময় ক্রয়কৃত স্থান থেকেই স্ক্র্যাচ কার্ডের সাথে উপহারটি বুঝে নিবেন
  • রিচার্জের পরিমাণ গ্রাহকের মূল অ্যাকাউন্টে জমা থাকবে
  • একজন গ্রাহক এই অফারটি বহুবার উপভোগ করতে পারবেন
  • ১৫% ভ্যাট এবং ৩% সম্পূরক চার্জ প্রযোজ্য
  • এই অফারটি স্টক থাকা পর্যন্ত প্রযোজ্য
 
 


স্মার্টফোনের বাজারে অন্য রকম একটি অভিজাত অবস্থান রয়েছে কানাডা ভিত্তিক প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান ব্ল্যাকবেরির। ডিভাইসে এতো দিন নিজস্ব অপারেটিং সিসটেম ব্যবহার করে আসছিল ব্ল্যাকবেরি। Black_
তবে অপারেটিং সিসটেম হিসেবে অ্যান্ড্রয়েড ব্যবহার করার পেছনে কারণ এর জনপ্রিয়তা। এটি কাজে লাগিয়ে স্মার্টফোনের বিক্রি বাড়ানোই প্রতিষ্ঠানটির কৌশল বলে মনে করছেন প্রযুক্তিবিদরা।
স্পাইডার স্মার্টফোনটির তথ্যের সঙ্গে ডিভাইসটির ছবিও মাইক্রো ব্লগিং সাইট টুইটারে প্রকাশ করা হয়েছে। বলা হয়েছে আগামী নভেম্বরের মধ্যেই এটি বাজারে আসবে।
স্লাইডার ডিভাইসটির ৫ দশমিক ৪ ইঞ্চি কোয়াড এইচডি ডিসপ্লের রেজ্যুলেশন ১৪৪০*২৫৬০ পিক্সেল। ১ দশমিক ৮ গিগাহার্টজের হেক্সা-কোর ৬৪-বিটের স্ন্যাপড্রাগন ৮০৮ প্রসেসর। এর র‌্যাম ৩ গিগাবাইট আর পেছনের ক্যামেরা রেজ্যুলেশন ১৮ পিক্সেল আর সামনের ক্যামেরার রেজ্যুলেশন ৫ মেগাপিক্সেল।
গত এক সপ্তাহে সার্চ জায়ান্ট গুগলের নেক্সাস ৫ এবং সফটওয়্যার জায়ান্ট মাইক্রোসফটের সারফেস স্মার্টফোনের তথ্য অনলাইনে ফাঁস হয়েছে।
এই ডিভাইস দুইটির তথ্য ফাঁসের বিষয়ে প্রতিষ্ঠানগুলোর পক্ষ থেকে কোন প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি। তবে প্রযুক্তিবিদরা বলছে এ ধরণের ঘটনা ওই প্রতিষ্ঠানের ব্যবসার জন্য ক্ষতিকর।
অ্যান্ড্রয়েড সেন্ট্রাল অবলম্বনে

ব্ল্যাকবেরি সবসময়ই চেষ্টা করেছে ডিজাইনে নতুনত্বের ছোঁয়া আনতে। ব্ল্যাকবেরি প্রিভেও তাই হয়েছে। পেছনে ফ্ল্যাট বডির অ্যালুমিনিয়াম কভার ও সামনে এস ৬ এজ-র মত ডুয়েল কার্ভড্‌ ডিসপ্লে রয়েছে। বাকানো ডিসপ্লে আগে দেখা গেলেও যা দেখা হয়নি তা হল অ্যান্ড্রয়েড ফোনে ফিজিকাল কিবোর্ড। ব্ল্যাকবেরি পাসপোর্টের মত এখানেও তাদের সেই ট্রেডমার্ক কিবোর্ডটি আছে, যা লুকানো রয়েছে ডিসপ্লের ভেতরে। ডিসপ্লেটি স্লাইড করে এই কিবোর্ড বের করে আনা যাবে।
blackberry priv 1
কিবোর্ড
ব্ল্যাকবেরির কিবোর্ড মানে যে শুধুই কিবোর্ড নয়, তা অনেক আগেই সবাই জেনে গেছে। বিভিন্ন রকমের ফাংশন এই কিবোর্ডে অবস্থান করছে। যেমন, টাইপ করার সময় দ্বিতীয় সারির বোতামগুলোতে উপর থেকে ডানদিকে আলতো আঙ্গুল চালালেই স্পেস চলে আসবে শব্দের পরে। একইভাবে কাজ করবে ব্যাকস্পেসও, শুধু বাম দিকে আঙ্গুল চালাতে হবে।
এ রকম বহু শর্টকাট ছাড়াও কিবোর্ডটি টাচপ্যাড হিসেবেও ব্যবহার করা যায়। টাইপিংয়ে সূক্ষ্ম কোন জায়গা অথবা টেক্সট সিলেক্ট করার সময় এই কার্সর দারুণ কাজে দেবে। এমনিতে কিবোর্ডটি ফাস্ট এবং রেস্পন্সিভ। বড় হাতের জন্য অবশ্য বোতামগুলো বেশ ছোট মনে হতে পারে। সেক্ষেত্রে একটা চাপতে আরেকটা চেপে ফেলার সমস্যাটা তৈরি হবে।
blackberry priv 2
ডিসপ্লে
৫.৪ ইঞ্চি ডিসপ্লে, যার রেজ্যুলেশন ২৫৬০*১৪৪০ পিক্সেল। বোঝাই যাচ্ছে, শার্পনেসে ও কালার রিপ্রোডাকশনে কোনো রকম ঘাটতি নেই। অ্যামোলেড ডিসপ্লে হওয়াতে ছবি অথবা ভিডিও প্রায় ফুটে উঠবে ডিসপ্লে থেকে।
বাকানো ডিসপ্লেটির জন্য মিডিয়া এক্সপেরিয়েন্স অনেক বৃদ্ধি পেলেও শেষমেশ এর খুব একটা ব্যবহার নেই। প্রডাক্টিভিটি ট্যাব নামক বিভিন্ন অ্যাপের শর্টকাট সারি বেধে বাঁকানো জায়গাটিতে রয়েছে। ছোটখাট কাজের জন্য তাই আর ফোনের ভেতরে ঢোকার প্রয়োজন পড়বে না।
এছাড়া ফোনটি চার্জ দিলে বাঁকানো ডিসপ্লেটিতে অত্যন্ত সুন্দর একটা ব্যাটারি বার ফুটে ওঠতে দেখা যাবে।
পারফরমেন্স
স্ন্যাপড্রাগন ৮০৮ হেক্সাকোর চিপসেট ব্যবহার করা হয়েছে ও র্যারম রয়েছে ৩ জিবি। দুই ধরনের প্রসেসর থাকছে এতে। বড় বড় কাজ সামাল দেওয়ার জন্য থাকছে ১.৮ গিগাহার্জ ডুয়েল কোর প্রসেসর ও ছোটখাট কাজের জন্য থাকছে ১.৪ গিগাহার্জ কোয়াড কোর প্রসেসর।
এত কিছুর ফল হল ফোনটির পারফরমেন্স মোটামুটি ভালো, কিন্তু তা বাজারের জন্য শ্রেষ্ঠ নয়। সাধারণ কাজকর্মে সমস্যা না করলেও ভারি ভারি সব গেইম খেললে সামান্য ল্যাগ পাওয়া যেতে পারে।
ডিফল্ট স্পেস রয়েছে ৩২ জিবি, মেমোরি কার্ড দিয়ে যা ২০০ জিবি পর্যন্ত বাড়ানো যাবে।
ক্যামেরা
ফোনটির পেছনে রয়েছে দারুণ একটা ১৮ মেগাপিক্সেলের ক্যামেরা। সুন্দর ও কালারফুল সব ছবি উঠবে এটা দিয়ে। তাছাড়া অনেক অপ্টিকাল ইমেইজ স্ট্যাবিলাইজেশন, ফেইজ ডিকেকশনসহ বেশ কিছু কাজের ফিচার রয়েছে ক্যামেরা অ্যাপে।
ব্যাক ক্যামেরার অত্যাধিক মেগাপিক্সেল মনে হয় ফ্রন্ট ক্যামেরা থেকেই সরানো হয়েছে, কারণ এটা মাত্র ২ মেগাপিক্সেল। কোয়ালিটি বেশ ভালো বলা যায়, কিন্তু তা সেরা নয়।
blackberry priv 3
ব্যাটারি
৩৪১০ মিলিঅ্যাম্পিয়ার ব্যাটারি টানা ব্যবহারে সাড়ে দশ ঘণ্টা চলতে পারবে। পুরো দিন চালাতে হলে তাই একটু সাবধান হতে হবে।
দাম
ডিভাইসটির দাম বাংলাদেশী মুদ্রায় ৫৫ হাজার থেকে ৬৫ হাজার টাকা হবে।
এক নজরে ভালো
– অদ্বিতীয় ডিজাইন
– শার্প ডিসপ্লে
– ফিজিকাল কিবোর্ড
এক নজরে খারাপ
– পারফরমেন্সে ঘাটতি রয়েছে
– ব্যাটারি লাইফ আরও ভালো হতে পারতো

১.৪ গিগাহার্টজ অক্টা কোর প্রসেসরের ফোনটিতে ছবি তোলার জন্য আছে এলইডি ফ্ল্যাশসহ ১৩ মেগাপিক্সেল ব্যাক ক্যামেরা। সেলফি প্রেমীদের জন্য সামনে আছে ৫ মেগাপিক্সেল ফ্রন্ট ক্যামেরা।
ললিপপ ভার্সনে আপগ্রেড সুবিধাসহ অ্যানড্রয়েড কিটক্যাট অপারেটিং সিস্টেমচালিত ফোনটিতে আছে ২০৫০ অ্যামপ্লিফায়ার ব্যাটারি, যা দীর্ঘক্ষণ চার্জ ধরে রাখবে।
Symphony ZVI
পাঁচ ইঞ্চি পর্দার স্মার্টফোনটি এইচডি ভিডিও দেখার ক্ষেত্রে উন্নত অভিজ্ঞতা দেবে। ডিভাইসটিতে দুই জিবি র্যা ম থাকায় অ্যাপসসহ অন্যান্য অ্যাপ্লিকেশন ব্যবহারে ভালো গতি পাবেন ব্যবহারকারীরা। এছাড়াও ১৬ জিবির অভ্যন্তরীণ স্টোরেজ সুবিধা পাওয়া যাবে।
বুধবার স্মার্টফোনটি বাজারে ছাড়া উপলক্ষে এক অনুষ্ঠানে কোম্পানির সিনিয়র ডিরেক্টর মো. রেজওয়ানুল হকসহ কোম্পানির ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।
সাদা, ধূসর আর হালকা সোনালী রঙের হ্যান্ডসেটটি ১৪ হাজার ৯৯৯ টাকায় বাজারে পাওয়া যাচ্ছে।

সিম্ফনি এইচটুফিফটি মডেলের নতুন একটি স্মার্টফোন হ্যান্ডসেট বাজারে ছেড়েছে এডিসন গ্রুপ। বুধবার থেকে দেশে সিম্ফনির যে কোনো আউটলেটে স্মার্টফোনটি কিনতে পাওয়া যাবে।
দশ হাজার ৯৯০ টাকায় হ্যান্ডসেটটি দেশের বাজারে বিক্রি করবে এডিসন গ্রুপ।
ভালো রেজ্যুলেশনের এইচটুফিফটি হ্যান্ডসেটটিতে পাঁচ ইঞ্চির আইপিএস এইচডি ডিসপ্লে রয়েছে। ১.৩ গিগা হার্জের কোয়াড কোর প্রসেসরের এই ফোনে থাকছে ২জিবি র‍্যাম ও ১৬ জিবি ইন্টারনাল স্টোরেজ সুবিধা। ডিভাইসটির মেমোরি মাইক্রোএসডি কার্ডের মাধ্যমে ৩২ জিবি পর্যন্ত বাড়ানো যাবে।

symphony new phone
অ্যান্ড্রয়েড ৫.১ ললিপপ অপারেটিং সিস্টেমের এই ডিভাইসের সামনে পাঁচ মেগাপিক্সেল এবং পিছনে ১৩ মেগা পিক্সেলর ক্যামেরা রয়েছে। এছাড়া হ্যান্ডসেটটিতে থাকছে পপ-আপ ভিডিও প্লেয়ার সুবিধা।
স্মার্টফোনটিতে ২৩৫০ এমএএইচ ব্যাটারি ব্যবহার করা হয়েছে, যা দীর্ঘ সময় ব্যাকআপ সুবিধা দেবে বলে এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে দাবী জানিয়েছে সিম্ফনি। সাবলীলভাবে গেইম খেলতে এতে আছে মেইল টি সেভেনটুয়েনটি জিপিইউ প্রযুক্তি।
স্মার্টফোনটির উভয় পাশে ব্যবহার করা হয়েছে আশাহী এনহ্যান্সড গ্লাস। সাথে মিরাভিশন টেকনোলজি ব্যবহার করা হয়েছে।

সিম্ফন ব্র্যান্ডের দুটি নতুন মডেলের হ্যান্ডসেট বাজারে আনছে এডিসন গ্রুপ। এইচ৬০ ও এইচ১২০ মডেলের হ্যান্ডসেট দুটি বুধবার উন্মোচন করা হবে।
বুধবার রাজধানীর বসুন্ধরা সিটিতে আনুষ্ঠানিকভাবে হ্যান্ডসেট দুটি উন্মোচন করবে এডিসন গ্রুপ।
এইচ৬০ মডেলের হ্যান্ডসেটটিতে পাঁচ ইঞ্চির এইচডি আইপিএস ডিসপ্লে আছে। ১৫১ গ্রাম ওজনের স্মার্টফোনটির সামনে পাঁচ ও পিছনে আট মেগাপিক্সেলের ক্যামেরা আছে।

Symphony H60
অ্যান্ড্রয়েড ললিপপ ভি৫.১ চালিত ১.৩ গিগাহার্জ কোয়াড-কোর প্রসেসরের এই ফোনে এক জিবি র্যা্ম ও আট জিবি রম রয়েছে। এছাড়াও হ্যান্ডসেটে ৩২ জিবি পর্যন্ত এক্সপান্ডেবল মেমোরি কার্ড ব্যবহার করা যাবে।
টুজি এবং থ্রিজি সমর্থন সুবিধা ও শক্তিশালী নেটওয়ার্ক ক্যাপাসিটি আছে দুটি মডেলেই। এতে ২৩০০ এমএএইচ ব্যাটারি রয়েছে, যা ১০ দিন পর্যন্ত স্ট্যান্ডবাই থাকবে। এছাড়াও ফুল চার্জে একটানা ১০ ঘণ্টা কথা বলা যাবে।
এইচ১২০ মডেলের স্মার্টফোনটিতে এইচ৬০ মডেলের সকল কনফিগারেশন থাকবে। তবে এর ব্যাটারি কিছুটা উন্নত। এইচ১২০ মডেলে ৩২০০ এমএএইচ ব্যাটারি রয়েছে, যা ১৪ ঘণ্টা পর্যন্ত একটানা কথা বলার সুবিধা দেবে।
আর এক জিবি র্যা ম থাকলেও এইচ১২০ -তে রয়েছে ১৬ জিবির অভ্যন্তরীণ মেমোরি সুবিধা।
মোটামুটি উন্নত কনফিগারেশনের স্মার্টফোন দুটির দামটা নাগালের মধ্যে রেখেছে এডিসন গ্রুপ। এইচ৬০ মডেলের ফোনটির মূল্য সাত হাজার ৯৯০ টাকা এবং এইচ১২০ মডেলের ফোনটির মূল্য আট হাজার ৩৯০ টাকা।

সাংবাদিকতা কিংবা গোয়েন্দা পেশার যুক্ত ব্যক্তিদের অনেক সময় গোপনে ভিডিও বা ছবি তোলার প্রয়োজন হতে পারে।  কার্যটি সম্পাদনের জন্য অনেকে হিডেন ক্যামেরা ব্যবহার করে থাকে। তবে চাইলে হাতে থাকা স্মার্টফোনটির সাহায্যে গোপনে ভিডিও করা যাবে। এরজন্য প্রয়োজন “স্পাই ক্যামেরা ওএস”  নামের একটি অ্যাপ্লিকেশন। এই অ্যাপ্লিকেশনটি ব্যবহার করে খুব সহজে সবার আগোচোরে ভিডিও করা যাবে।
অ্যাপটির ফিচার সমূহ:
১. অ্যাপ্লিকেশনটি মিনিমাইজ করে ছবি তোলা ও ভিডিও  করা যায়।
২. এইচডি মুডে ছবি তোলা এবং ভিডিও করা যায়।
apps-techshohor
৩. হাইড মুডে অটোফোকাস অপশন কাজ করে অ্যাপ্লিকেশনটিতে।
৪. ভিডিও কিংবা ছবি তোলার পর তা ইন্টানাল কিংবা এসডি কার্ডে সংরক্ষন করা যাবে।
৫. এতে রয়েছে বিশেষ অটো ইমেইল ইমেজ অপশন।
৬. স্মার্টফোনটি লক করলেই ভিডিও কার্যকর থাকবে। ফলে কেউ বুঝতেই পারবে না ভিডিও হচ্ছে।

১০ হাজার টাকার মধ্যে সাধারণত ১০ থেকে ১৬ মেগাপিক্সেলের ক্যামেরা পাওয়া যায়। নাইকন সেই রেকর্ড ভেঙ্গে মাত্র সাড়ে ৭ হাজার টাকায় মধ্যে নিয়ে এসেছে অত্যাধুনিক ২০.১ মেগাপিক্সেল ডিজিটাল ক্যামেরা।
নাইকন কুলপিক্স এস২৮০০ তেমনি একটি ক্যামেরা। সস্তায় ভালো মানের ছবির কারণে এ কারণে এটি বেশ পরিচিতি পেয়েছে।
ডিজাইন
ক্যামেরাটি আকারে বেশ পাতলা ও চিকন। খুব সহজেই কোনো অনুষ্ঠানে যাওয়ার সময় জিন্সের পকেটে ঢুকিয়ে নিতে পারবেন।
Nikon Coolpix S2800-techshohor-1
শাটার বাটন, পাওয়ার বাটন ও জুম তিনটিই ওপরে দিকে থাকায় সুবিধাও হবে ব্যবহারের সময়।
তবে ফ্ল্যাশ এমন অদ্ভূত একটা জায়গায় বসানো হয়েছে যে ছবি তোলার সময় প্রায়ই আঙ্গুল ফ্ল্যাশের সামনে এসে যেতে পারে।
ফিচার
এতে নাইকর লেন্স ব্যবহার করা হয়েছে, যেটির অপটিক্যাল জুম ৫এক্স। এফ/৩.২-৬.৫ অ্যাপাচার। টিএফটি এলসিডি মনিটরিটি ২.৭ ইঞ্চি। ভিডিও রেকর্ড করা যাবে ৭২০ পিক্সেলে।
সফটওয়্যার
যারা এর আগে নাইকন ব্যবহার করেছে, সফটওয়্যার কনফিগারেশন বুঝে নিতে তাদের কোনো সমস্যা হবে না।
সিন ও মেনু এ দুটি বাটন প্রধান। অনেক ইউজার শুধু দুটো বাটন দেখে একটু বিভ্রান্তিতে পড়তে পারেন। সিন বাটন চাপ দিয়ে শুটিং মোডে যেতে পারবেন। বাকি সব অপশন এ মেনু বাটনের ভেতরে থাকছে।
nikon_coolpix_s2800_techshohor
পাঁচ ধরনের শুটিং অপশন রয়েছে- দুই রকমের সিন অটো সিলেক্টির, স্মার্ট পোর্টেইট, অটো মোড ও ক্রিয়েটিভ ফিলটার।
স্মার্ট পোর্টেইট-এর ব্লিঙ্কপ্রুফ মোড নিশ্চিত করবে যাতে ছবিতে কোনো বন্ধ চোখের পাতা না আসে।
স্মার্টফোনে যারা ক্যামেরা ব্যবহার করেন, তারা জানেন ছবিতে ফিল্টার কতো জরুরি। ক্যামেরাটির একটা বড় ফিচার হলো এর আকর্শণীয় সব ফিল্টার। ছবি তোলার সময় ১২ রকম ও পরে ১৬ রকমের ফিল্টার প্রয়োগ করতে পারবেন।
পারফরম্যান্স
২০ মেগাপিক্সেল হলেও পারফরমেন্স বেশ স্লো পাওয়া যাবে। ম্যাক্রো শুটিং, সেলফ টাইমার, ফ্ল্যাশ অপশন সবকিছুই সম্পন্ন হতে বেশি সময় নেবে। বিশেষ করে একের পর এক ছবি তোলাটা কষ্টকর কারণ এক ছবি তোলার পর প্রসেস হতে হতেই অনেকক্ষণ লেগে যাবে।
ব্যাটারি
এর ব্যাটারি লাইফ মোটামুটি। ২৫০ থেকে ৩০০ ছবি তুলতে পারবেন, দেড় থেকে দুই ঘণ্টা টানা ভিডিও রেকর্ড করা যাবে।
এক নজরে ভালো
– অনেক রকম মোড ও ফিল্টার
– সুবিধাজনক আকার
এক নজরে খারাপ
– পারফরম্যান্স কিছুটা ধীরগতির

ক্যাননের স্টাইলিশ লুকের এক পয়েন্ট অ্যান্ড শুট ক্যামেরা হলো পাওয়ারশট এসএক্স ৪০০। ক্যামেরাটির কথা আলাদা করে বলতে হবে দুটো কারণে। এক- ডিজাইন, দুই- এটির অত্যাধিক জুম ক্ষমতা।
এ দামে সাধারণ একটি ক্যামেরায় ছয় গুণের বেশি জুম না হলেও এর ১৬ মেগাপিক্সেল লেন্স ৩০ গুণ পর্যন্ত জুম করা যায়। সাধারণ ছবি তোলার ক্ষেত্রে তা দরকার হয় না বলে ক্যামেরাটি পেশাদার বা শখের ফটোগ্রাফারদের কথা চিন্তা করেই তৈরি হয়েছে। ডিএসএলআরের মতো ডিজাইনই এর প্রমাণ।
Canon Powershot SX400-techshohor
ডিজাইন
আগেই বলেছি, ডিএসএলআরের ডিজাইনে গড়া হয়েছে এটি। ডিএসএলআর যেহেতু পকেটে ঢুকে না, তাই এটিও ঢুকবে না। খাপে অথবা গলায় ঝুলিয়ে নিয়ে বেড়াতে হবে।
এটি দিয়ে ছবি তুলতে অনেক আরাম পাবেন ফটোগ্রাফররা। টেক্সচার এমন ধাতু দিয়ে বানানো হয়েছে যাতে হাত থেকে ফসকানোর কোনো সম্ভাবনা নেই। তা ছাড়া বড় হওয়ায়, কোনো বাটনই ছোটখাট নয়। সব বাটনের ওপর আঙ্গুল সবসময় এসে থাকবে।
লাল ও কালো রঙে পাওয়া যাচ্ছে। এর মধ্যে লালই বেশি আকর্ষণীয়।
পারফরমেন্স
গতির কথা বলতে গেলে আপনি খাপ থেকে বের করে ক্যামেরাটি দিয়ে ৩ সেকেন্ডে একটা ছবি তুলতে পারবেন। ক্যাননের অন্য সব মডেল থেকে এটির গতি প্রায় দ্বিগুণ।
ছবি তোলাতে কোনো সমস্যা হবে না। কিছু ঝামেলা হলেও তা হবে মেন্যুতে। নানা কারণে বেশ স্লো হয়ে যেতে পারে মেন্যু।
স্মার্টফোনে আমরা টাচ টু ফোকাসে অভ্যস্ত হলেও এতে ম্যানুয়ালি তা করতে হবে, সেখানেও বেশি সময় লাগবে।
ভিডিও রেজুলেশনে ১০৮০ পিক্সেল ভিডিও রেকর্ড করা যাবে না, ৭২০ পিক্সেল পর্যন্ত তা সীমাবদ্ধ।
সফটওয়্যার
সফটওয়্যারের অনেক ফিচার আছে থাকলেও সেগুলো খুব গোছানো নয়। খুঁজে খুঁজে বের করতে হয় ফিচারগুলো। টাচস্ক্রিন না হওয়ায় একটু বেশি অসুবিধা হবে।
অটো মোড এ সমস্যা অনেকটা দূর করে দেয়। নামের মতো এ মোড প্রায় সবই কাজই অটো করে দেবে। বিভিন্ন শুটিং মোড সিলেক্ট করার অপশন জানিয়ে দেবে এটি। পরিবেশ বিশ্লেষণ করে ফ্ল্যাশ উপস্থিত করবে, ছোটখাট রেড-আই সমস্যা দূর করবে ইত্যাদি।
গতিশীল বস্তুর ছবি তুলতে আমাদের প্রায়ই সমস্যা হয়, লাইভ ভিউ মোড যেটা সহজে দূর করবে।
অনেক রকম ফিল্টারের অপশন রয়েছে ক্যামেরাটিতে। বিভিন্ন অবস্থা ও পরিবেশ বিবেচনায় তা প্রয়োগ করতে পারেন।
সবশেষে, একটা নেগেটিভ পয়েন্টের কথা বলি। এ ক্যামেরায় ওয়াই-ফাই নেই। স্মার্টফোনের মতো তাই সহজে ছবি আদান-প্রদান করতে পারবেন না।
দেশের বাজারে এটি পাওয়া যায় কমবেশি ১৩ হাজার ৩০০ টাকায়।
এক নজরে ভালো
– চমৎকার ডিজাইন
– ৩০ এক্স জুম
এক নজরে খারাপ
– ওয়াই-ফাই নেই
– টাচস্ক্রিন নয়
– ভিডিও রেজুলেশন ৭২০ পিক্সেল

startup_activation_bundle

স্টার্টআপ অ্যাক্টিভেশন বান্ডল

offer details

  • customers who activated their connection on or after november 02, 2015 will be eligible for this offer
    offer first recharge amount main account balance
    offer 1 tk. 14 tk. 20
    offer 2 tk. 34 tk. 46
    offer 3 tk. 54 tk. 76
  • on tk. 14 first recharge, customer will enjoy tariff of the package he/she is subscribed in
  • on tk. 34 and tk. 54 first recharge, customers will be able to enjoy existing special tariff of 25 paisa/minute call rate to any banglalink number and 60 paisa/minute to any other local numbers 24 hours for 10 days. any bonus will not be applicable for lower call rates.
  • this offer will be applicable only on first recharge.
  • this 1st recharge bonus and tariff will be applicable only once, after availing any recharge offer (tk. 14, 34, 54) customer will not able get this offer again and the mentioned recharge points will remain restricted for that particular customer during the offer period.
  • tk. 14, 34 and 54 recharge will be restricted for rest of the banglalink customer base during offer period.
  • customers can avail this offer only once after activation in his/her lifetime
  • new customers can enjoy any one of these activation bundles (14, 34, 54 recharge trigger) only once after activation

startup_reactivation_oct15

১৯ টাকা রিচার্জে নতুন এবং বন্ধ সংযোগে সারপ্রাইজিং অফার!

নতুন এবং বন্ধ প্রিপেইড সংযোগে ১৯ টাকা রিচার্জ করে পাচ্ছেন ২০০ এমবি ইন্টারনেট মাত্র ৩০ টাকায়। এছাড়াও কথা বলুন যে কোন বাংলালিংক নাম্বারে ২৫ পয়সা/মিনিট এবং অন্য নাম্বারে ৬০ পয়সা/মিনিট কলরেট, দিন-রাত ২৪ ঘণ্টা।
আপনার বন্ধ সংযোগটি এই অফারের আওতাভুক্ত কিনা জানতে যে কোন বাংলালিংক সংযোগ থেকে নাম্বারটি টাইপ করে ফ্রি এসএমএস পাঠিয়ে দিন ৪৩৪৩ নাম্বারে।

নতুন প্রিপেইড সংযোগ চালু করলে থাকছে:

  • ৫ টাকা প্রিলোডেড টক-টাইম ব্যবহার করা যাবে যে কোন প্রয়োজনে, মেয়াদ ১৫ দিন
  • মেয়াদ থাকাকালীন অবস্থায় যে কোন পরিমাণ রিচার্জ করলেই পাবেন আজীবন মেয়াদ
  • ৫০ এমবি বোনাস ইন্টারনেটের মেয়াদ বোনাস পাওয়ার দিনসহ ৩ দিন
  • বোনাস ইন্টারনেটের ব্যালেন্স জানতে ডায়াল করুন *১২৪*৫#
  • ৫০টি এসএমএস যে কোন বাংলালিংক নাম্বারে ব্যবহার করা যাবে। মেয়াদ বোনাস পাওয়ার দিনসহ ১০ দিন
  • বোনাস এসএমএস চেক করতে ডায়াল করুন *১২৪*৪#
  • ফেসবুক ৫০০ এমবি পর্যন্ত প্রযোজ্য এবং এর মেয়াদ ৩০ দিন
  • ফেসবুক বোনাসের ব্যালেন্স জানতে ডায়াল করুন *২২২*৩*৩৩#
  • গ্রাহকগণ পাচ্ছেন ৩০ দিনের জন্য ফ্রি আমার টিউন সাবস্ক্রিপশন এবং সাথে ফ্রি বাংলালিংক টিউন
  • প্রথম আউট গোয়িং কলের ৬ষ্ঠ দিন আমার টিউন সার্ভিসটি চালু হবে
  • এক মাস পর সার্ভিসটি বন্ধ হয়ে যাবে। পুনরায় সার্ভিসটি চালু করতে গ্রাহককে ‘Start’ লিখে ২২২২ নাম্বারে এসএমএস পাঠাতে হবে
  • একটি স্পেশাল এফএনএফ নাম্বারে ৫ পয়সা/১০ সেকেন্ড (রাত ১২টা থেকে বিকাল ৪টা) এবং ১০ পয়সা/১০ সেকেন্ড (বিকাল ৪টা থেকে রাত ১২টা)
  • ১৬.৫০ পয়সা/১০ সেকেন্ড যে কোন নাম্বারে দিন-রাত ২৪ ঘণ্টা

নতুন এবং বন্ধ প্রিপেইড সংযোগে ১৯ টাকা রিচার্জে স্পেশাল কলরেট:

  • ২২ অক্টোবর, ২০১৫ অথবা এরপর থেকে চালুকৃত সকল বাংলালিংক প্রিপেইড সংযোগের গ্রাহকগণ এই অফারটি উপভোগ করতে পারবেন
  • ১০ সেপ্টেম্বর থেকে চালুকৃত নতুন সংযোগের গ্রাহকগণ যারা ‘সেপ্টেম্বর নতুন সংযোগের’ অফারটি উপভোগ করেননি তারা ২২ অক্টোবর থেকে ১৯ টাকা রিচার্জে নতুন অফারটি উপভোগ করতে পারবেন
  • ১০ সেপ্টেম্বর, ২০১৫ অথবা এর আগ থেকে অব্যবহৃত সকল প্রিপেইড এবং কল অ্যান্ড কন্ট্রোল গ্রাহকগণের (আই’টপ-আপ ব্যতীত) ক্ষেত্রে এই অফারটি প্রযোজ্য
  • সকল গ্রাহকগণ নতুন এবং বন্ধ সংযোগে ১৯ টাকা রিচার্জে যে কোন বাংলালিংক নাম্বারে ২৫ পয়সা/মিনিট এবং অন্য অপারেটরে ৬০ পয়সা/মিনিট রেটে কথা বলতে পারবেন, দিন-রাত ২৪ ঘণ্টা (১ সেকেন্ড পাল্স প্রযোজ্য)
  • স্পেশাল কলরেটের মেয়াদ রিচার্জের দিনসহ ১০ দিন। মেয়াদকালীন সময়ে প্রতি ১৯ টাকা রিচার্জে বর্ধিত মেয়াদ প্রযোজ্য
  • অফারটি থেকে আন-সাবস্ক্রাইব করতে, নতুন অথবা বন্ধ সংযোগের ক্ষেত্রে *১৬৬*২৩৫# ডায়াল করতে হবে যা সেদিন রাত ১২টার পর প্রযোজ্য হবে। আন-সাবস্ক্রাইব করার পর রাত ১২টার পূর্বে যদি কোন গ্রাহক ১৯ টাকা রিচার্জ করেন তাহলে পরবর্তী ১০ দিন পর্যন্ত এই অফার উপভোগ করবেন
  • অফারটি থেকে আন-সাবস্ক্রাইব করার পর এই স্পেশাল অফারটি আর প্রযোজ্য হবে না
  • আন-সাবস্ক্রাইব করার পর গ্রাহক পুনরায় পূর্ববর্তী কলরেটে ফিরে যাবেন
  • নতুন সংযোগের ক্ষেত্রে অন্য কোন প্যাকেজে মাইগ্রেট করলে এই স্পেশাল রেট প্রযোজ্য হবে না। সেক্ষেত্রে, পুনরায় এই রেট পেতে *৯৯৯*১*১৪৬# ডায়াল করে একবারে ১৯ টাকা রিচার্জ করতে হবে

২০০ এমবি ইন্টারনেট মাত্র ৩০টাকা:

  • নতুন অথবা বন্ধ প্রিপেইড সংযোগের গ্রাহকগণ ১৯ টাকা রিচার্জ করে স্পেশাল ট্যারিফের মেয়াদ থাকাকালীন সময়ে একাধিকবার ৩০ টাকায় ২০০এমবি ইন্টারনেট ক্রয় করতে পারবেন যার মেয়াদ ৩০ দিন
  • এই প্যাকটি অ্যাক্টিভেট করতে ডায়াল *৫০০০*২০৫#
  • ইন্টারনেট ব্যালেন্স চেক করতে ডায়াল *৫০০০*৫০০#
  • প্যাকটি থেকে আনসাবস্ক্রাইব করতে ডায়াল *৫০০০*৫৩৬#

unlimited-fnf-current-bang
 
এবার ফোনবুকের সবাই এফএনএফ, কারণ রবি দিচ্ছে আনলিমিটেড এফএনএফ!
 
অফারের বিবরণ
 
১. অন্য যেকোনো রবি প্রিপেইড প্যাকেজ থেকে এই সুবিধা উপভোগ করতে ডায়াল *৮৯৯৯*৯০#
২. এই প্যাকেজের গ্রাহক আনলিমিটেড এফএনএফ উপভোগ করতে পারবেন
৩. এফএনএফ নম্বরে আজীবন মেয়াদ প্রযোজ্য
৪. এফএনএফ নম্বরের জন্য কলরেট:
          ক) রবি-রবি = ১পয়সা/ সেকেন্ড (বিকাল ৫টা থেকে রাত ১২টা)
          খ) রবি-রবি = ০.৫ পয়সা/ সেকেন্ড (রাত ১২টা থেকে বিকাল ৫টা)
          গ) রবি- অন্য অপারেটরে = ১ পয়সা/ সেকেন্ড (দিনরাত ২৪ ঘন্টা)
৫. এফএনএফ ছাড়া অন্য লোকাল নম্বরে মূল কলরেট ২ পয়সা প্রতি সেকেন্ড, দিনরাত ২৪ ঘন্টা


ট্যারিফ প্ল্যানের সংক্ষিপ্ত বিবরণ:
 
   
 উপভোগ করতে ডায়াল করুন *৮৯৯৯*৯০#
 
মূল কলরেট
  বিকাল ৫টা থেকে রাত ১২টা রাত ১২টা থেকে বিকাল ৫টা
রবি-রবি ২ পয়সা / সেকেন্ড
রবি- অন্য অপারেটরে
 
আনলিমিটেড এফএনএফ কলরেট
  বিকাল ৫টা থেকে রাত ১২টা রাত ১২টা থেকে বিকাল ৫টা
রবি-রবি ১ পয়সা/ সেকেন্ড ০.৫ পয়সা/ সেকেন্ড
রবি- অন্য অপারেটরে ১ পয়সা/ সেকেন্ড ১ পয়সা/ সেকেন্ড


অন্যান্য সাধারণ শর্তাবলী
 
- গ্রাহক অন্য প্যাকেজ ব্যবহার করতে চাইলে, সেই প্যাকেজের নির্দিষ্ট কোড ব্যবহার করে উপভোগ করতে পারবেন।
- মূল এবং এফএনএফ কলরেট:
          ক) শুধুমাত্র লোকাল নম্বরের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য
          খ) ১ সেকেন্ড পালস সুবিধা প্রযোজ্য
- এফএনএফ নম্বর জানতে
          ক) *১৪০# ডায়াল করে পরবর্তী নির্দেশনাবলী অনুসরণ করুন অথবা
          খ) ৮৩৬৩ নম্বরে এসএমএস করুন এবং নিচের নির্দেশনা অনুসরণ করুন:
 
যা করতে চানএসএমএস ফরম্যাটউদাহরণ
এফএনএফ নম্বর যোগ করুন A লিখে এফএনএফ নম্বর লিখুন A ০১৮xxxxxxxx ০১৭xxxxxxxx ০১৯xxxxxxxx
এফএনএফ মুছে ফেলুন D লিখে এফএনএফ নম্বর লিখুন D ০১৮xxxxxxxx
এফএনএফ জানুন F F
সম্পূর্ণ প্রক্রিয়া সম্পর্কে জানুন H H
 
- সর্বোচ্চ ৮০টি নম্বর এফএনএফ করা যাবে
- অন্যান্য সেবাসমূহে পূর্বের চার্জ বহাল থাকবে
- সকল ট্যারিফে ৩% সম্পূরক শুল্ক + সম্পূরক শুল্কসহ ট্যারিফের উপর ১৫% ভ্যাট প্রযোজ্য


আনলিমিটেড এসএমএস
 
আনলিমিটেড এফএনএফ প্যাকেজের সাবস্ক্রাইবারগণ এখন থেকে আনলিমিটেড এসএমএস উপভোগ করতে পারবেন মাত্র ৫ টাকায়!
 
অফারমেয়াদমূল্য (৩% সম্পূরক শুল্ক + সম্পূরক শুল্কসহ ট্যারিফের উপর ১৫% ভ্যাট ব্যাতীত)ক্রয়ের কোড
আনলিমিটেড অফার ২ দিন ৫ টাকা *৮৬৬৬*০০৫#
 
প্রয়োজনীয় তথ্যাবলী

- আনলিমিটেড এসএমএস প্যাকেজটি আনলিমিটেড এফএনএফ প্যাকেজের সাবস্ক্রাইবারদের জন্য প্রযোজ্য। যেকোন রবি কাস্টমার (উদ্যোক্তা, ইজিলোড/পিসিও, এসএমই এবং কর্পোরেট ব্যাতীত) আনলিমিটেড এফএনএফ প্যাকেজে মাইগ্রেট করতে পারবে *৮৯৯৯*৯০# ডায়াল করে।
- সর্বোচ্চ ৬০টি রবি-রবি এসএমএস এবং ৪০টি রবি-অন্য এসএমএস।
- এসএমএস লোকাল নম্বরেই আদান-প্রদান করা যাবে।
- এই আনলিমিটেড অফারটি ব্যবহার করার পর, পি২পি আদর্শ ট্যারিফ চার্জ করা হবে।
- রবি-রবি এসএমএস চেক করার জন্য ডায়াল করতে হবে *২২২*১০#
- রবি-অন্য অপারেটর এসএমএস চেক করার জন্য ডায়াল করতে হবে *২২২*২০#
- সাবস্ক্রাইবার যতবার খুশি ততবার প্যাকেজটি কিনতে পারবেন।
- ৩% সম্পূরক শুল্ক + সম্পূরক শুল্কসহ ট্যারিফের উপর ১৫% ভ্যাট প্রযোজ্য।

 
এখন মাত্র ২০০টাকায় নিয়ে নিন রবির নতুন প্রি-পেইড কানেকশন এবং উপভোগ করুন আপনার মনমতো অফার নির্ধারণের স্বাধীনতা!


এক্টিভেশন বোনাস
 
- প্রধান একাউন্টে ১০টাকা ব্যালেন্স- চেক করতে, ডায়াল *২২২#
     > মেয়াদঃ ৩০দিন
- সাধারণ ফ্ল্যাট কল-রেটঃ ১৮পয়সা/১০সেকেন্ড (২১.৩২১০পয়সা/১০ সেকেন্ড সম্পূরক শুল্ক + সম্পূরক শুল্কসহ ট্যারিফের উপর ভ্যাটসহ)
     > পালসঃ ১০সেকেন্ড

- যেকোন লোকাল নম্বরে ৫০টি ফ্রি এসএমএস- চেক করতে ডায়াল *২২২*১২#
     > বোনাস ইউসেজ ব্যবহারের সময়ঃ ২৪ঘন্টা
     > মেয়াদঃ ৩০দিন
     > ৩০দিনের মেয়াদ শেষেঃ ৫০পয়সা/এসএমএস (৫৯.২২৫০পয়সা/ এসএমএস সম্পূরক শুল্ক + সম্পূরক শুল্কসহ ট্যারিফের উপর ভ্যাটসহ)

- ৫০ এমবি ইন্টারনেট ফ্রি- চেক করতে ডায়াল *৮৪৪৪*৮৮#
     > বোনাস ইন্টারনেট ইউসেজের সময়ঃ ২৪ ঘন্টা
     > মেয়াদঃ ৩০দিন


৯টাকা রিচার্জে
 
- রবি-রবি কলরেটঃ ০.৫পয়সা/সেকেন্ড (০.৫৯২৩ পয়সা/সেকেন্ড সম্পূরক শুল্ক + সম্পূরক শুল্কসহ ট্যারিফের উপর ভ্যাটসহ)
     > মেয়াদঃ ১০দিন

- রবি-অন্য কলরেটঃ ১পয়সা/সেকেন্ড (১.১৮৪৫পয়সা/সেকেন্ডসম্পূরক শুল্ক + সম্পূরক শুল্কসহ ট্যারিফের উপর ভ্যাটসহ)
     > মেয়াদঃ ১০দিন

- রবি-রবি বোনাস মিনিটঃ ৩০০
     > ৯টাকা রিচার্জে একবারই দেয়া হবে
     > ১০০বোনাস মিনিট/মাস ৩মাস পর্যন্ত
     > বোনাস ব্যবহারের সময়ঃ রাত ১২টা থেকে বিকাল ৫টা
     > মেয়াদঃ ১০দিন
     > ব্যালেন্স জানতে কোডঃ *২২২*২#
     > ৯টাকা রিচার্জে ১০০মিনিটের প্রথম কিস্তি তৎক্ষণাৎ প্রদান করা হবে
     > ১০০ মিনিটের দ্বিতীয় কিস্তি দেয়া হবে প্রথম কিস্তি গ্রহণের তারিখের ৩০দিন পরে
     > ১০০ মিনিটের তৃতীয় কিস্তি প্রথম কিস্তি গ্রহণের ৬০দিন পরে তাৎক্ষণিকভাবে দেয়া হবে
     > রবি-রবি বোনাস মিনিট এফএনএফ অথবা প্রিয় নম্বরের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য

- ফ্রি নামাজ এলার্ট
     > ৯টাকা রিচার্জের প্রথমেই একেবারই দেয়া হবে
     > মেয়াদঃ ৯০দিন
     > সার্ভিসটি রিচার্জের ৭২ ঘন্টার ভেতরে প্রদান করা হবে। সাবস্ক্রাইবারকে একটি এসএমএস প্রদানের মাধ্যমে কনফার্ম করা হবে
     > ৯০দিন পরে, এই সার্ভিস স্ব্যংক্রিয়ভাবে ডি-এক্টিভেট হয়ে যাবে


২৯টাকা রিচার্জ
 
- রবি-রবি কল-রেটঃ ০.৫পয়সা/সেকেন্ড (০.৫৯২৩ পয়সা/সেকেন্ড সম্পূরক শুল্ক + সম্পূরক শুল্কসহ ট্যারিফের উপর ভ্যাটসহ)
     > মেয়াদঃ ৩০দিন

- রবি-অন্য কলরেটঃ ১পয়সা/সেকেন্ড (১.১৮৪৫পয়সা/সেকেন্ডসম্পূরক শুল্ক + সম্পূরক শুল্কসহ ট্যারিফের উপর ভ্যাটসহ)
     > মেয়াদঃ ৩০দিন

- একটি কিনুন, একটি ফ্রি
     > প্রথম রিচার্জের পরে একটি রবি স্ট্যান্ডার্ড ইন্টারনেট প্যাক কিনুন এবং পরবর্তী ৩মাস আরো একটি প্যাক ফ্রি পান
     > নিম্নোক্ত ইন্টারনেট প্যাকের জন্য প্রযোজ্য- চেক করতে ডায়াল *৮৪৪৪*৮৮#
          ১০০এমবি@ ৪০টাকা (২৮দিন মেয়াদ)
          ২৫০এমবি@ ৭৫টাকা (২৮দিন মেয়াদ)
     > ফ্রি ইন্টারনেট প্যাকের মেয়াদ ক্রয়কৃত মূল প্যাকের মেয়াদের সমান(২৮দিন)
     > ফ্রি ইন্টারনেট প্যাক ইউসেজ সময়ঃ ২৪ঘন্টা
     > ফ্রি ইন্টারনেট প্যাক ক্রয়ের ৭২ঘন্টা পরে প্রদান করা হবে

- ফ্রি নামাজ এলার্ট
     > প্রথমবার ২৯টাকা রিচার্জে একবারই প্রদান করা হবে
     > মেয়াদঃ ৯০দিন
     > রিচার্জ করার ৭২ঘন্টা পরে সার্ভিস এক্টিভেট করা হবে। সাবস্ক্রাইবার এসএমএস-এর মাধ্যমে কনফার্ম হবেন
     > ৯০দিন পরে স্বয়ংক্রিয়ভাবে এই সার্ভিস ডি-এক্টিভেট হয়ে যাবে

- ফ্রি ব্রেকিং নিউজ সার্ভিস
     > ২৯টাকা রিচার্জে একবারই পাবেন
     > মেয়াদঃ ৯০দিন
     > রিচার্জ করার ৭২ঘন্টা পরে সার্ভিস এক্টিভেট করা হবে। সাবস্ক্রাইবার এসএমএস-এর মাধ্যমে কনফার্ম হবেন
     > ৯০দিন পরে স্বয়ংক্রিয়ভাবে এই সার্ভিস ডি-এক্টিভেট হয়ে যাবে


৭৯ টাকা রিচার্জে
 
- রবি-রবি কলরেটঃ ০.৫পয়সা/সেকেন্ড (০.৫৯২৩ পয়সা/সেকেন্ড সম্পূরক শুল্ক + সম্পূরক শুল্কসহ ট্যারিফের উপর ভ্যাটসহ)
     > মেয়াদঃ ৩০দিন

- রবি-অন্য কলরেটঃ ১পয়সা/সেকেন্ড (১.১৮৪৫পয়সা/সেকেন্ড সম্পূরক শুল্ক + সম্পূরক শুল্কসহ ট্যারিফের উপর ভ্যাটসহ)
     > মেয়াদঃ ৩০দিন

- একটি কিনুন, একটি ফ্রি
     > একটি স্ট্যান্ডার্ড রবি ইন্টারনেট প্যাক কিনুন আর প্রথম রিচার্জের তারিখ থেকে পরবর্তী তিনমাস আরেকটি ফ্রি পান
     > নিম্নোক্ত ইন্টারনেট প্যাকে প্রযোজ্য – চেক করতে ডায়াল *৮৪৪৪*৮৮#
          ১০০এমবি@ ৪০টাকা(২৮দিন মেয়াদ) 
          ২৫০এমবি@ ৭৫টাকা(২৮দিন মেয়াদ)
     > ফ্রি ইন্টারনেট প্যাকের মেয়াদ অফুরন্ত
     > ফ্রি প্যাক ব্যবহার করতে পারবেনঃ ২৪ঘন্টা
     > ইন্টারনেট প্যাক ক্রয়ের ৭২ঘন্টার মধ্যে ফ্রি ইন্টারনেট প্যাক পাওয়া যাবে

- ফ্রি নামাজ এলার্ট
     > ৭৯টাকা রিচার্জে একবারই দেয়া হবে
     > মেয়াদঃ ৯০দিন
     > রিচার্জ করার ৭২ঘন্টার ভেতরে সার্ভিসটি এক্টিভেট হবে। সাবস্ক্রাইবারকে এসএমএস-এর মাধ্যমে কনফার্ম করা হবে
     > ৯০দিন পরে সার্ভিসটি স্বয়ংক্রিয়ভাবে ডি-এক্টিভেট হয়ে যাবে

- ফ্রি ব্রেকিং নিউজ সার্ভিস
     > ৭৯ টাকা রিচার্জের প্রথমে একবার প্রদান করা হবে
     > মেয়াদঃ ৯০ দিন
     > রিচার্জ করার ৭২ঘন্টা পরে সার্ভিসটি এক্টিভেট করা হবে। সাবস্ক্রাইবারকে এসএমএস-এর মাধ্যমে কনফার্ম করা হবে
     > ৯০দিন পরে স্বয়ংক্রিয়ভাবে সার্ভিসটি ডি-এক্টিভেট হবে

- ফ্রি স্পোর্টস আপডেট সার্ভিস
     > ৭৯টাকা রিচার্জে একবারই অফার দেয়া হবে
     > মেয়াদঃ ৯০দিন
     > রিচার্জ করার ৭২ঘন্টা পরে সার্ভিসটি এক্টিভেট করা হবে। সাবস্ক্রাইবারকে এসএমএস-এর মাধ্যমে কনফার্ম করা হবে
     > ৯০দিন পরে স্বয়ংক্রিয়ভাবে সার্ভিসটি ডি-এক্টিভেট হবে


সাধারণ শর্তাবলী
 
- প্রথম রিচার্জের তারিখ থেকে কোন দুটি অফার ধারাবাহিকভাবে ৩মাস গ্রহন করা যাবে না। প্রতিটি অফার স্বতন্ত্রভাবে প্রথম রিচার্জের তারিখ থেকে এক্সক্লুসিভ
- মেয়াদের মধ্যে একই অফার পুনরায় নিলে, রেট কাটারের ক্ষেত্রে নতুন মেয়াদ এক্টিভেট হবে
- নতুন প্যাকেজে মাইগ্রেশন প্রযোজ্য নয়
- নতুন প্যাকেজ থেকে অন্য প্যাকেজে মাইগ্রেট করা যাবে। অন্য প্যাকে মাইগ্রেটের ক্ষেত্রে কাস্টমার রেট কাটার অফার পাবেন না তবে অব্যবহৃত টকটাইম/ইন্টারনেট বোনাস থেকে যাবে।(যদি থাকে)নতুন প্যাকেজে রিচার্জ অফার কার্যকরী হবেনা
- মেয়াদ শেষে, ১৮পয়সা/১০সেকেন্ড সাধারণ রেট প্রযোজ্য হবে
- সকল ট্যারিফে ৩% সম্পূরক শুল্ক + সম্পূরক শুল্কসহ ট্যারিফের উপর ১৫% ভ্যাট প্রযোজ্য

যেকোন লোকাল নম্বরে ১ পয়সা/সেকেন্ড


গ্রামীণফোনের সম্মানিত সকল প্রিপেইড গ্রাহকদের (ERS এবং BPO ছাড়া) জানানো যাচ্ছে যে ২৬ অক্টোবর ২০১৫ থেকে, ২৯ টাকা রিচার্জে সকল প্রিপেইড গ্রাহক ১ পয়সা/সেকেন্ড এ (২৪ ঘন্টা) যেকোনো লোকাল নম্বর এ কথা বলতে পারবেন; রিচার্জের দিন থেকে ৪ দিনের মেয়াদে। এছাড়াও গ্রাহক ৪ দিনের মেয়াদে উপভোগ করবেন ফ্রি ২৯MB ইন্টারনেট এবং ১টি MMS (৪ দিন মেয়াদে, প্রদানের দিন সহ) ।

অফারের বিস্তারিত

  • স্পেশাল ট্যারিফ অফারটি যেকোনো লোকাল নম্বর এর জন্যে প্রযোজ্য (জিপি-জিপি, জিপি-অন্যান্য, PSTN ও মোবাইল)
  • অফার চলাকালীন সময়ে এই স্পেশাল অফারটি রেগুলার প্যাকেজ ট্যারিফ, সুপার FnF, FnF, এবং সব রিচার্জ ভিত্তিক লোয়ার ট্যারিফ (যেমন নিশ্চিন্ত লোয়ার ট্যারিফ, ৭ পয়সা অফার) এর উপর প্রযোজ্য হবে। মাই জোন ডিসকাউন্ট প্রযোজ্য হবে না।
  • স্পেশাল ট্যারিফ প্রকিউরেড মিনিট, বোনাস মিনিট, বোনাস এমাউন্ট এবং ইমার্জেন্সি ব্যালান্স এর উপর প্রযোজ্য হবে না। প্রকিউরেড মিনিট, বোনাস মিনিট, বোনাস এমাউন্ট এবং ইমার্জেন্সি ব্যালান্স আগে খরচ হবে।
  • নতুন কানেকশনে ২৯ টাকা রিচার্জে অফারটি প্রযোজ্য হবে না।
  • ক্যাম্পেইন চলাকালীন সময়ে অফারটি একাধিকবার নেয়া যাবে। একাধিক রিচার্জ এর ক্ষেত্রে দীর্ঘতর মেয়াদটি প্রযোজ্য হবে
  • রিচার্জের দিন সহ স্পেশাল ট্যারিফ অফারের মেয়াদ ৪ দিন। *566*32# ডায়াল করে গ্রাহক অফারটির মেয়াদ জানতে পারবেন
  • *566*14# ডায়াল করে গ্রাহক MMS ব্যালান্স জানতে পারবেন। মাসে একবার MMS বিতরণ করা হবে
  • গ্রাহক অন্য কোনো ১ পয়সা অফারে (২৯ টাকা, ৭৯ টাকা এবং ৩৯ টাকা) অপ্ট-ইন করলে দীর্ঘতর মেয়াদটি প্রযোজ্য হবে। স্পেশাল ট্যারিফ এর মেয়াদ শেষ হয়ে গেলে আগের অফার/প্যাকেজ টি আবার চালু হয়ে যাবে
  • ফ্রি ইন্টারনেট (শুধুমাত্র ২৯টাকা রিচার্জ এর ক্ষেত্রে) রিচার্জ করার ৭২ ঘন্টার মধ্যে পাওয়া যাবে। ফ্রি ২৯MB 3G ইন্টারনেট এর মেয়াদ ৪ দিন
  • মেয়াদ শেষে ইন্টারনেট প্যাক বন্ধ হয়ে যাবে
  • ২৯MB শেষ হয়ে গেলে গ্রাহক ০.০১টাকা/১০KB রেট-এ ডাটা ব্যবহার করতে পারবেন
  • ২৯MB ডাটা নন স্টপ ইন্টারনেট প্যাক এর সাথে যোগ হবে না (যেমন স্মার্ট প্যাক, হেভি ইউসেজ প্যাক, নাইট হেভি ইউসেজ প্যাক - নাইট টাইম)
  • ২৯MB ডাটা ভলিউম বেসড প্যাক এর সাথে যোগ হবে এবং দীর্ঘতর মেয়াদ প্রযোজ্য হবে
  • গ্রাহক *567# ডায়াল করে ইন্টারনেট ব্যালান্স এবং মেয়াদ জানতে পারবেন
  • অফারটি থেকে আনসাবস্ক্রাইব করতে "Stop RC" লিখে ৯৯৯৯ নম্বরে SMS করতে হবে
  • ৩% সম্পুরক শুল্ক এবং সম্পুরক শুল্কসহ মূল্যের উপর ১৫% ভ্যাট প্রযোজ্য হবে
  • বিস্তারিত জানতে ভিজিট www.grameenphone.com



টাকা.২০০
গ্রামীণফোনের প্রিপেইড প্যাকেজের ডিফল্ট প্রাইস প্ল্যান "নিশ্চিন্ত"। ২৪ ঘণ্টা ফ্ল্যাট রেট ১৭ পয়সা প্রতি ১০ সেকেন্ড।
জিপি থেকে জিপি: ১৭ পয়সা / ১০ সেকেন্ড
জিপি থেকে অন্যরা: ১৭ পয়সা / ১০ সেকেন্ড
এফএনএফ: প্রযোজ্য নয়
পালস: ১০ সেকেন্ড
এসএমএস: ৫০ পয়সা / এস এম এস

৫০০ এমবি ইন্টারনেট ৭৯ টাকা!

গ্রামীনফোন এখন দিচ্ছে পুরো ৫০০MB ইন্টারনেট মাত্র ৭৯ টাকায় (মেয়াদ ৭ দিন)।
  • অফারটি পেতে ডায়াল *৫০০০*১১৫#
  • অফারটি শুধুমাত্র গ্রামীণফোন-এর প্রিপেইড গ্রাহকগণের জন্য প্রযোজ্য
  • ৫০০ এমবি ইন্টারনেটের মেয়াদ দিন
  • ৫০০ এমবি ইন্টারনেটের মূল্য ৭৯ টাকা
  • ৩% সম্পূরক শুল্ক এবং সম্পূরক শুল্কসহ উল্লিখিত মূল্যের উপর ১৫% ভ্যাট প্রযোজ্য
  • *৫৬৬*১৩# ডায়াল করে গ্রাহকগণ অবশিষ্ট ভলিউম চেক করতে পারবেন
  • পরবর্তী ঘোষণা না দেয়া পর্যন্ত অফারটি চলবে
  • আর deactivate করতে  SMS করো “STOP” 5000 নম্বর এ
  • গ্রাহক সেবা সম্পর্কে জানতে ডায়াল ১২১

720x720 (1)


রবি তার সকল সাবস্ক্রাইবারদের জন্য নিয়ে এলো আকর্ষণীয় উইন্টার গিফট। প্রতিটি ৯৯৯টাকা স্ক্র্যাচ কার্ডে তাদের টেলিকম ব্যয়ের সাথেই অতিরিক্ত সুবিধা হিসেবে পাচ্ছেন “উইন্টার গিফট হ্যাম্পার।”

প্রতিটি ৯৯৯টাকার স্ক্র্যাচ কার্ডে গ্রাহক পাচ্ছেন ৪৭০টাকা সমমূল্যের নিম্নোক্ত গিফট আইটেম
     - ভ্যাসলিন ডীপ রিস্টোর ১০০ মিঃলিঃ
     - ভ্যাসলিন পেট্রোলিয়াম জেলী ৫০ গ্রাম
     - এক্স ডার্ক টেম্পটেশন
     - ক্লিয়ার শ্যাম্পু ৯০ মিঃলিঃ
সাধারণ শর্তাবলী 
- সকল রবি প্রি-পেইড এবং পোস্ট-পেইড সাবস্ক্রাইবার- কেউ বাদ যাবেনা
- অফারটি কেবলমাত্র স্ক্র্যাচ কার্ড-এর মাধ্যমে পাওয়া যাবে
- ক্যাম্পেই চলাকালীন গ্রাহক যতবার খুশী এই অফার গ্রহণ করতে পারবেন
- নির্দিষ্ট রবি আউটলেট থেকে কাস্টমার স্ক্র্যাচ কার্ড-এ গিফট হ্যাম্পার পাবেন
- কেবলমাত্র ৯৯৯টাকা স্ক্র্যাচ কার্ড ক্রয়ের মাধ্যমে কাস্টমার ইউনিলিভার-এর এই গিফট প্যাক পাবেন
- উইনিলিভার প্রোডাক্ট/গিফট স্ক্র্যাচ কার্ডের সাথে বান্ডেল হিসেবে থাকবে
- ক্যাম্পেইন স্টক ফুরোনোর আগ পর্যন্ত চলবে
- নির্দিষ্ট আউটলেট থেকে অফারটি পাওয়া যাবে
- ৯৯৯টাকার রিচার্জের মেয়াদ ৩৬৫দিন

superloaded-current_bangli
 
এই অফার শুধুমাত্র রবি'র সাইলেন্ট প্রিপেইড গ্রাহকদের জন্য প্রযোজ্য
ক্যাম্পেইন মেয়াদ
২৩ অক্টোবর, ২০১৫ থেকে পরবর্তী নোটিশ না দেয়া পর্যন্ত

সেরা কলরেট 
- স্পেশাল ট্যারিফ পেতে কাস্টমারকে ৯.০০টাকা অথবা ২৯.০০টাকা রিচার্জ করতে হবে (সেরা কলরেট)
     > যেকোন রবি নম্বরে ০.৫ পয়সা/সেকেন্ড (২৪ ঘন্টা)
     > অন্য অপারেটরে ১পয়সা/ সেকেন্ড (২৪ঘন্টা)
- ৯টাকা রিচার্জে মেয়াদ ১০দিন এবং ২৯টাকা রিচার্জে মেয়াদ ৩০দিন
- যদি গ্রাহক ৯টাকা কিংবা ২৯টাকা রিচার্জ না করেন তাহলে তারা অন্য অপারেটরে ১৬পয়সা/১০সেকেন্ড রবি-রবি এবং ৫০পয়সা/সেকেন্ড অন্য অপারেটরে উপভোগ করবেন
- সাবস্ক্রাইবার যদি অন্য কোন ট্যারিফ প্ল্যানে মাইগ্রেট করেন তাহলে তারা স্পেশাল ট্যারিফ সুবিধার আওতায় থাকবে না 
বিশেষ কম্বো
- এই বিশেষ কম্বোতে কাস্টমার ৫০ এমবি ডাটা(২৪ ঘন্টা) এবং ১০০০ এসএমএস(২৪ ঘন্টা) যেকোন রবি নম্বরে পাবেন ৯টাকায়
- এই কম্বোর মেয়াদ ১০দিন
- ১০দিনের মধ্যে কাস্টমার এই কম্বো একবারই ক্রয় করতে পারবেন
- কাস্টমার কম্বো প্যাক ক্রয় করতে ডায়াল করুন *৮৬৬৬*০০৯#
- ডাটা চেক করতে *৮৪৪৪*৮৮# এবং রবি-রবি এসএমএস চেক করতে ডায়াল *২২২*১০#
- যেসকল সাবস্ক্রাইবার এই স্পেশাল কম্বো ক্রয় করবেন তাদের জন্য আছে ১ মাসের জন্য ফ্রি নামাজের সময় এলার্ট, নিউজ এলার্ট এবং স্পোর্টস এলার্ট

 

১০০ এমবি এবং ২৫০ এমবি ক্রয়ে ১০০% বোনাস সহ অফুরন্ত মেয়াদ
 
- অফারকৃত কাস্টমারদের জন্যই ১০০এমবি এবং ২৫০এমবি নিয়মিত মাসিক ইন্টারনেট প্যাকের উপর ১০০% বোনাস প্রযোজ্য
- ১০০এমবি প্যাক (*৮৪৪৪*১০০#) ৪০টাকায় এবং ২৫০ এমবি প্যাক(*৮৪৪৪*২৫০#) ৭৫টাকায়। উভয় প্যাকের মেয়াদ ২৮দিন
- কাস্টমার উভয় প্যাকে ১০০% বোনাসে অফুরন্ত মেয়াদ পাচ্ছেন (১০০এমবি এবং ২৫০এমবি)
- ক্যাম্পেইন চলাকালে গ্রাহক যতোবার খুশী ততোবার প্যাক ক্রয় করতে পারবেন
- কাস্টমার ১০০% বোনাস প্যাক ক্রয়ের ৭২ঘন্টার ভেতরেই পাবেন
 
অন্যান্য শর্ত 
- রবি প্রি-পেইড সাবস্ক্রাইবার (পোস্ট-পেইড, এসএমই, উদ্যোক্তা কর্পোরেট, ইজিলোড ব্যতীত) যারা তাদের নম্বর বিগত ৬০দিন বা তারও বেশি সংযোগ স্থগিত রেখেছেন তারাই সাইলেন্ট কাস্টমার হিসেবে বিবেচিত হবেন
- সাইলেন্ট কাস্টমাররা তাদের বন্ধ থাকা সিম যেকোন আউটগোইং কল, এসএমএস অথবা যেকোন রেভিনিউ তৈরি করা এক্টিভিটির মাধ্যমে তার সংযোগ রি-এক্টিভেট করতে পারবেন
- অফারের আওতা চেক করতে, কাস্টমার নিম্নোক্ত উপায়ে ফ্রি এসএমএস করতে পারবেন। A(space)018XXXXXXXX লিখে পাঠান ৮০৫০ নম্বরে
- সকল চার্জে সম্পূরক শুল্ক + সম্পূরক শুল্কসহ ট্যারিফের উপর ভ্যাট প্রযোজ্য

ghechang-September15-current-eng
 
ঘ্যাচাং ষ্টোর হলো রবি গ্রাহকদের জন্য একটি ভার্চুয়াল প্রচারনা সমাহার যার মাধ্যমে গ্রহকগন তাদের চাহিদা ও পছন্দ মতন বিশেষ অফার ও প্রচারনা উপোভোগ করতে পারবেন । বাংলাদেশে এ ধরনের ভার্চুয়াল প্রদর্শন সমাহার এটিই প্রথম। গ্রাহকরা এই স্টোরে তাদের সকল রিচার্জ বান্ডেল, ভ্যালু অ্যাডেড সার্ভিস, ডাটা এবং অন্যান্য অফার পেতে পারবেন।
 
১. সেবার বিবরণ: 
ক. গ্রাহক তার জন্যে প্রদত্ত নতুন অফার সম্পর্কে জানতে পারবে।
খ. গ্রাহককে তাহার অফারের সম্বন্ধে জানতে *৯৯৯# নম্বরে ডায়াল করতে হবে।
গ. গ্রাহকরা ইউএসএসডি মেনু ব্রাউজ করে তাদের সকল অফার দেখতে পারবেন।
ঘ. অফার এবং ক্যাম্পেইন নিয়মিত ভাবে পরিবর্তন করতে হতে থাকবে
 
২. সেবার কীওয়ার্ড
আপনার সকল অফারের সম্বন্ধে জানতে *৯৯৯# ডায়াল করুন। 
 
3. সার্ভিস চার্জ:
এই সার্ভিস্টি সকল রবি গ্রাহকদের জন্য ফ্রি হবে!

কম দামে ভালো কনফিগারেশন দেয়ায় অল্প সময়ে বেশ সুনাম কামিয়েছে চীনা প্রতিষ্ঠান ওয়ানপ্লাস। প্রতিষ্ঠানটি এবার আরেকটি ফ্ল্যাগশিপ স্মার্টফোন বাজারে আনতে যাচ্ছে। ধারণা করা হচ্ছে, ওয়ানপ্লাস এক্স নামের এই ফোন আসছে ২৯ অক্টোবর।
সম্প্রতি ডিভাইসটির দামের তথ্য ফাঁস হয়েছে। অপ্পো মার্ট নামের এক অনলাইন মার্কেটপ্লেসের মতে, ডিভাইসটির মূল্য হতে পারে ২৪৯ মার্কিন ডলার, যা বাংলাদেশি মুদ্রায় ১৯ হাজার ৩৫৮ টাকা। এদিকে, সিএনওয়াই নামের এক ওয়েবসাইটের মতে, স্মার্টফোনটির দাম হতে পারে ২২০ ডলার, যা বাংলাদেশি মুদ্রায় ১৭ হাজার ১০০ টাকা।
ওয়ানপ্লাস এক্সে কর্নিং গরিলা গ্লাস ৩ প্রটেকশনের ৫ ইঞ্চির ফুল এইচডি ডিসপ্লে থাকবে। এতে প্রসেসর হিসেবে মিডিয়াটেক হ্যালিও এক্স ১০ এবং অপারেটিং সিস্টেম হিসেবে অ্যান্ড্রয়েডের পরিবর্ধিত সংস্করণ অক্সিজেন ৩.০ ওএস থাকবে।
OnePlus X aka OnePlus Mini Briefly Listed by Online Retailer With Price
২জিবি র‍্যামের এই ডিভাইসে ৩২জিবি ইন্টারনাল স্টোরেজ সুবিধা পাওয়া যাবে। জিওমি এমআই৪সি –তে যে সেন্সর ব্যবহার করা হয়েছে ওয়ানপ্লাস এক্সেও একই সেন্সর ব্যবহার করা হবে। দীর্ঘক্ষণ চার্জ সুবিধার জন্য ওয়ানপ্লাস এক্সে ২৪৫০এমএএইচ নন-রিমুভ্যাবল ব্যাটারি থাকবে।
ওয়ানপ্লাস এক্সে ১৩ মেগাপিক্সেলের ব্যাক ক্যামেরা থাকবে। এলইডি ফ্ল্যাশের এই ক্যামেরা দিয়ে ৪কে ভিডিও ধারণ করা যাবে। ভিডিও চ্যাট ও সেলফির জন্য ডিভাইসটিতে ৮ মেগাপিক্সেলের ফ্রন্ট ফেইসিং ক্যামেরা থাকবে।
কালো রঙের ডিভাইসটির সামনের দিকটা দেখতে অনেকটা ওয়ানপ্লাসের মত হবে। ডিভাইসটিতে ‘সার্কুলার ফিঙ্গার প্রিন্ট স্ক্যানার’ থাকবে। এই প্রযুক্তি অনেকটা অ্যাপলের টাচ ডিসপ্লের মত কাজ করবে।
ওয়ানপ্লাসের অন্যান্য স্মার্টফোনের তুলনায় নতুন হ্যান্ডসেটটি অনেক পাতলা এবং কিছুটা গোলাকার হবে। ডিভাইসটির উপরদিকে এক জোড়া স্পিকার এবং একটি মাইক্রোফোন থাকবে।
বিভিন্ন প্রযুক্তি বিষয়ক সংবাদ মাধ্যমের গুজবে বলা হয়েছিলো, ডিসেম্বরে ওয়ানপ্লাস মিনি নামে এক ডিভাইস আনছে ওয়ানপ্লাস। সেই ‘মিনি’ই এখন ওয়ানপ্লাস এক্স নামে আসছে বাজারে।

দুই বছর আগে ২০১১ সালের শুরুর দিকে সায়ানোজেনমড নামের কাস্টম রমটি নিয়ে ভালোই মাতামাতি হয়েছিল। এর গোছানো পরিবেশ ও স্টক এবং অ্যান্ড্রয়েডে যোগ করার মতো কিছু লোভনীয় ফিচার মুগ্ধ করেছিল সবাইকে। কিন্তু অত্যন্ত জটিল ও দীর্ঘ ইনস্টলেশন প্রক্রিয়ার কারণে এটাকে অনেক অ্যান্ড্রয়েড ব্যবহারকারীরা এড়িয়ে চলত। এ বছর আবারো সায়ানোজেনমড এর সপ্তম ভার্সন নিয়ে বাজারে আসলো অপ্পোর নতুন ফোন, অপ্পো এন ১।
চীনা কোম্পানির তৈরি স্মার্টফোনটিতে এবার  হার্ডওয়্যারে কিছু ব্যতিক্রমী পরিবর্তন যোগ করা হয়েছে। যা একে অন্যান্য স্মার্টফোন জায়ান্টদের চেয়ে ভিন্ন করে তুলেছে।
Oppo N1_techshohor
ফোনটির পেছনের প্ল্যাস্টিক বডিতে যুক্ত করা এমন একটি টাচ প্যানেল রয়েছে। যা দিয়ে আপনাকে আর কষ্ট করে হাত ডিসপ্লের সামনে এনে ব্যবহার করতে হবে না! পেছনে আঙ্গুল বুলিয়েই নিয়ন্ত্রণ করতে পারবেন ফোনটিকে।
এ টাচ প্যানেল সাপোর্ট করে স্ক্রোলিং, স্লাইডিং, সিঙ্গেল ট্যাপ, ডবল ট্যাপ সহ আরো অনেক কিছু। তবে এটি একটি চমৎকার ফিচার হলেও প্যানেলটির পজিশনের কারণে অনেক কাজ অনাকাঙ্খিতভাবে হয়ে যায় বলে আপত্তি জানিয়েছেন সমালোচকরা।
ফোনটির আরেক বিস্ময় হল এর ক্যামেরা। পেছনের ১৩ মেগাপিক্সেল ব্যতিক্রম কিছু নয়। তবে ব্যতিক্রম হলো এটি সামনে ঘুরিয়ে ব্যবহার করা যাবে ফ্রোন্ট ক্যামেরা হিসেবে। অর্থাৎ আপনি সামনে-পিছনে দু’জায়গাতেই পাচ্ছেন ১৩ মেগাপিক্সেল। কোনো স্মার্টফোন যা এখনো করতে পারেনি তাই করে বসে আছে অপ্পো এন ১!
এমনকি সাথে থাকছে ক্যামেরা দূর থেকে নিয়ন্ত্রণ করার জন্য রিমোট কন্ট্রোল। ছবির অসাধারণ কোয়ালিটি, ডুয়াল ফ্ল্যাশ ও সায়ানোজেনমড-এর যুক্ত করার কিছু ব্যতিক্রম ফিচার দিয়ে গড়া এ ক্যামেরা ফোনটির সবচেয়ে আকর্ষণীয় বস্তু হিসেবে ধরা হয়।
এসব ছাড়াও ফোনটির বিশাল ৫.৯ ইঞ্চি স্ক্রিনে ধারণ করছে পরিষ্কার-পরিছন্ন১৯২০* ১০৮০ পিক্সেল ডিসপ্লে ও৩৭৩ পি.পি.আই (পিক্সেলপারইঞ্চি)। ভিতরে রয়েছে ২ গিগাবাইট র‍্যাম ও ১.৭গিগাহার্জেরপ্রসেসর যা দিয়ে গেম খেলা, ওয়েব ব্রাউজিং ও মাল্টি-টাস্কিং করা যাবে নির্বিঘ্নে।
খানিকটা পুরোনো, জেলিবিন ৪.২ ভার্সনে অথবা সায়ানোজেনমডে চালিত ফোনটির ওজন ২১৩ গ্রাম ও পুরুত্ব ৯ মিলিমিটার। নতুন রম সায়ানোজেন্‌মড ১১ প্রশংসিত হয়েছে তুমুলভাবে।
স্টক অ্যান্ড্রয়েডের প্রত্যেকটি খাত ঢেলে সাজিয়ে যুক্ত করা হয়েছে আকর্ষণীয় ও প্রয়োজনীয় সব ফিচার। অনেকেই বলে এটি ব্যবহারের পর স্টক অ্যান্ড্রয়েডকে মনে হবে আনাড়ি ও অসম্পূর্ণ এক রম!
ফোনটি ব্যাটারি লাইফে টেক্কা দিয়েছে বাজারে আর সব স্মার্টফোনকে। এত বিশাল স্ক্রিনের জন্য ব্যাটারি শক্তিশালী হওয়া অনিবার্য। কিন্তু একটু বেশিই দেওয়া হয়েছে অপ্পো এন ১-এ! ৩৬১০ মিলিএম্পিয়ার ব্যাটারিতে অনাসায়ে ফোনটি ব্যবহার করে কাটিয়ে দিতে পারবেন পুরো দুই দিন।
এক নজরে ভালোঃ
-বৈচিত্রময় ক্যামেরা
– দ্রুতগতির ও-টাচ্‌ প্যানেল
– প্রসেসর ও র‍্যামের বদৌলতে দ্রুত পারর্ফম্যান্স
– দীর্ঘ ব্যাটারি লাইফ
– আকর্ষণীয় কাস্টম রোম
এক নজরে খারাপঃ
– অত্যন্ত বড় ডিসপ্লে
– ও-টাচ্‌ প্যানেলের বেখাপ্পা পজিশন
– ৪ জিসাপোর্টকরেনা।

অপ্পো সম্প্রতি বাজারে আনল তাদের সবচেয়ে বড় ডিসপ্লের ফোন, অপ্পো আর ৭ প্লাস। অপ্পো আর ৭ ফোনটিকে আরও বড় করে ও লোভনীয় কিছু ফিচার যুক্ত করে ছাড়া হয়েছে নতুন এই সংস্করণ। এতে অপ্পো আর ৭ প্লাস চমৎকার এক ডিভাইস হয়ে উঠেছে।
ডিসপ্লে
সবার কাছেই যে ডিভাইসটিকে যথোপযুক্ত মনে হবে, তা নয়। ডিভাইসটির ৬ ইঞ্চির বিশাল ডিসপ্লে অনেকের কাছে অস্বস্তিদায়ক হতে পারে।
১৯২০*১০৮০ পিক্সেল রেজ্যুলেশনের ডিসপ্লে সর্বোচ্চ শার্পনেস হয়তো দেবে না, কিন্তু যা মিলবে তা প্রাইস ট্যাগের হিসেবে যথেষ্ট ভালো। এর স্ক্রিনে ভিউ আঙ্গেলও চমৎকার। কড়া সূর্যের আলোতেও স্ক্রিন দেখতে কোন সমস্যা হয় না।
oppo r7 plus
ডিজাইন
প্রথমেই বলে দেওয়া যায় এই ডিভাইসের ডিজাইন আইফোন থেকে অনুপ্রাণিত হওয়া। তা সত্ত্বেও অপ্পো আর ৭ প্লাস বেশ সুন্দর একটা ফোন। হাতে সব দিক থেকেই প্রিমিয়াম অনুভব এনে দেয় এর সলিড বডি।
ডিভাইসের পেছনে ঠিক ক্যামেরার নিচেই রয়েছে ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেন্সর। এই জায়গাটায় থাকার সুবিধা হল, হাত যেহেতু সবসময় ফোনের পেছনে থাকে, তাই ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেন্সরে হাত রাখাটা অনেক অভ্যাসের পর্যায়ে চলে আসবে।
ক্যামেরা
সামনে-পেছনে দু’জায়গাতেই রয়েছে দুটি অসাধারণ ক্যামেরা, যার একটি ১৩ মেগাপিক্সেলের ও অপরটি ৮ মেগাপিক্সেলের। ক্যামেরা অ্যাপে রয়েছে আল্ট্রা এইচডি, ম্যাক্রো মোড ইত্যাদি অনেক ফিচার, যেগুলো মূলত প্রিমিয়াম ফোনেই দেখা যায়।
oppo r7 plus (2)
পারফরমেন্স
১.৫ গিগাহার্জ কোয়াড কোর প্রসেসর ও ৩ জিবি র্যালম রয়েছে ভেতরে। সাধারণ কাজগুলোতে ফোনটি থাকবে খুবই রেস্পন্সিভ।
গেইমিংয়েও এই ফোনটি অত্যন্ত ভালো। সর্বোচ্চ হাই গ্রাফিক্সের গেইমেও ল্যাগ পাওয়া যাবে না।
ডিফল্ট ৩২ জিবি ইন্টারনাল স্পেস রয়েছে, যা মেমোরি কার্ড দিয়ে ১২৮ জিবি পর্যন্ত বাড়ানো যাবে।
ব্যাটারি
অপ্পো দীর্ঘ ব্যাটারির সুনাম এই ফোনেও বজায় রেখেছে। ৪১০০ মিলিঅ্যাম্পিয়ার ব্যাটারি টানা ব্যাবহারে ১৭ ঘণ্টা পর্যন্ত ব্যাকআপ দিতে সক্ষম। শুধু তাই না, এতে ফাস্ট চার্জিং ফিচারও রয়েছে, যেখানে মাত্র আধাঘণ্টাতেই ব্যাটারি প্রায় পূর্ণ হয়ে যাবে।
oppo r7 plus (3)
দাম
দেশের বাজারে ডিভাইসটি ৪২ হাজার ৮০০ টাকায় পাওয়া যাবে।
এক নজরে ভালো
– দেখতে সুন্দর
– ভালো ডিসপ্লে
– দীর্ঘ ব্যাটারি ও ফাস্ট চার্জিং
এক নজরে খারাপ
– বড় সাইজ অনেকের কাছে অসুবিধাজনক মনে হতে পারে

এইচটিসি ফ্ল্যাগশিপ ফোন এম সিরিজের বদলে হঠাৎ চলতি বছর নিয়ে এলো ‘এ’ নামের আরেকটি ফোন। নতুন এ ফোন দেখতে প্রায় আইফোনের মতো। ফিচারেও বেশ উন্নত। এইচটিসি ওয়ান এ৯ বাজারে মূলত আইফোনের সঙ্গেই পাল্লা দেবে বলে মনে করছেন বিশ্লেষকরা।

দোকানে এইচটিসি ওয়ান এ৯ দেখে হঠাৎ যদি আইফোন ভেবে হাতে তুলে নেন, তাহলে অবাক হবেন না। কারণ ফোনটি প্রায় হুবুহু আইফোনের মত। হ্যা, এইচটিসি অ্যাপেলের সঙ্গে পাল্লা দিতে আরেকটি ফোন নিয়ে এসেছে। তবে এটির দাম সর্বশেষ আইফোনের দামের প্রায় অর্ধেক।
a9-review-1
ফোনটির কালো ফ্রন্ট প্যানেল ও পেছনের সলিড বডি খুব ভালো প্রিমিয়াম ফিল এনে দেয়।
একটি ভালো জিনিস যুক্ত করা হয়েছে এখানে, তা হল ফিঙ্গার প্রিন্ট স্ক্যানার। অন্যসব ফোনের মত এখানেও তা হোম বাটনে অবস্থান করছে।

ফোনে থাকছে অ্যামোলেড ডিসপ্লে, যার রেজুলেশন ১০৮০*১৯২০ পিক্সেল ও পিপিআই সংখ্যা ৪৪১। স্ক্রিন কোয়ালিটি বেশ ভালো, কিন্তু তা সেরাগুলোর মতো নয়।
ব্রাইটনেসেও কিছু সমস্যা আছে, তাই সূর্যের আলোতে ডিসপ্লে দেখতে কষ্ট হতে পারে।

ফোনটির একটা সুবিধা হচ্ছে, এটা অ্যান্ড্রয়েড মার্শমেলোর প্রথম ডিভাইসগুলোর মধ্যে একটি। তবে সেটা গুগলের স্টক ভার্সন নয়। এর উপরে যথারীতি এইচটিসির নিজস্ব ‘সেন্স’ ইউজার ইন্টারফেস থাকছে।
Screenshot_5

কোয়াড কোর ১.৫ গিগাহার্জ প্রসেসর ভেতরে রয়েছে। চিপসেট হিসেবে থাকছে স্ন্যাপড্রাগন ৬১৭। এটি একটু ব্যাকডেটেড মনে হতে পারে এবং এর প্রভাব একটু ভারি কাজ করতে গেলেই চোখে পড়বে।
সাধারণ কাজ কর্মে একেবারে স্মুথ থাকবে ফোনটি, কিন্তু হাই গ্রাফিক্সের গেইম ওপেন করলেই ল্যাগ করা শুরু করে। মাল্টিটাস্কিং কাজের সময়ও এমনটি ঘটা অসম্ভব নয়।
ফোনটি ২ জিবি ও ৩ জিবি র্যা মের দুটি ভার্সনে পাওয়া যাচ্ছে। পারফরমেন্স উন্নতি করতে ৩ জিবি র্যা মের ভার্সনটা নিতে পারেন।
Screenshot_6

ক্যামেরায় বেশ ভালো ফোনটি। পেছনের ১৩ মেগাপিক্সেল অসাধারণ সব ছবি তুলে দিতে সক্ষম। অন্ধকার পরিবেশেও তা ঠিক থাকবে ডুয়াল এলইডি ফ্ল্যাশ থাকার কারণে।
সামনে রয়েছে ৪ আলট্রাপিক্সেল ক্যামেরা, যেটা কিনা এইটিসি ওয়ানের রিয়ার ক্যামেরা ছিল। এ ক্যামেরা থেকেও শার্প এবং স্বচ্ছ সব সেলফি উঠবে, বিশেষ করে অন্ধকারে।

২১৫০ মিলিঅ্যাম্পিয়ার ব্যাটারি খুব একটা বেশি নয়। এক চার্জে একদিন চলবে কিনা, তা পুরোপুরি নির্ভর করবে আপনার ব্যবহারের উপরে।

বর্তমানে বাজার মূল্য নির্ধারণ করা হয়েছে ৩২,৮০০ টাকা।

– সুন্দর ডিজাইন
– জাকজমক ডিসপ্লে
– ফিঙ্গারপ্রিন্ট স্ক্যানার
– অ্যান্ড্রয়েড মার্শমেলো ইউজার ইন্টারফেস

– ভারি অ্যাপে ল্যাগ করে
– বাজে ব্যাটারি লাইফ

iphone 6s and 6s plus

 ক্রেতারা কিস্তি ও অফারসহ আইফোন দুটি দেশের রবি সেবাকেন্দ্রগুলো থেকে কিনতে পারবেন।

এক বছরের সমান কিস্তিতে আইফোন ৬এস ও ৬এস প্লাস দিচ্ছে রবি। এছাড়া  বিনামূল্যে ৪ জিবি ডেটাও দিচ্ছে মোবাইল ফোন অপারেটরটি।

এক বছরের স্ট্যান্ডার্ড ওয়ারেন্টিসহ আইফোন ৬এস, ১৬ জিবির হ্যান্ডসেটের দাম ৭১ হাজার ৪৯৯ টাকা। এর মাসিক কিস্তি হবে ৫ হাজার ১২৫ টাকা।
 
আইফোন ৬এস, ৬৪ জিবি ও ৬এস প্লাস, ১৬ জিবির দাম ৮১ হাজার ৯৯৯ টাকা। এখানে মাসিক কিস্তি ৬ হাজার টাকা। ৬এস প্লাস, ৬৪ জিবির দাম ৯২ হাজার ৯৯৯ টাকা এবং মাসিক কিস্তি ৬ হাজার ৯১৭ টাকা।
রবি জানায়, প্রতিটি হ্যান্ডসেটের ক্ষেত্রে ১২ মাসের সমান কিস্তি প্রযোজ্য। তবে হ্যান্ডসেটগুলো কেনার সময় ১০ হাজার টাকা পরিশোধ করতে হবে। ক্রেতারা সিলভার, স্পেস গ্রে, গোল্ড ও রোজ গোল্ড কালার থেকে তাদের পছন্দের হ্যান্ডসেটটি বাছাই করতে পারবেন।
বিনামূল্যে ৪ জিবি ডেটা অফারটি দু’মাসে দেয়া হবে। ফ্রি ডাটা পেতে আইফোন থেকে রবির নতুন ও বর্তমান গ্রাহকদের যেকোনো স্থানীয় নাম্বারে কল করতে হবে। সফলভাবে হ্যান্ডসেট ট্যাগ হওয়ার ৭২ ঘন্টার মধ্যে গ্রাহক ফ্রি ডাটা পাবেন।

unlimited-fnf-current-bang
 
এবার ফোনবুকের সবাই এফএনএফ, কারণ রবি দিচ্ছে আনলিমিটেড এফএনএফ!
 
অফারের বিবরণ
 
১. অন্য যেকোনো রবি প্রিপেইড প্যাকেজ থেকে এই সুবিধা উপভোগ করতে ডায়াল *৮৯৯৯*৯০#
২. এই প্যাকেজের গ্রাহক আনলিমিটেড এফএনএফ উপভোগ করতে পারবেন
৩. এফএনএফ নম্বরে আজীবন মেয়াদ প্রযোজ্য
৪. এফএনএফ নম্বরের জন্য কলরেট:
          ক) রবি-রবি = ১পয়সা/ সেকেন্ড (বিকাল ৫টা থেকে রাত ১২টা)
          খ) রবি-রবি = ০.৫ পয়সা/ সেকেন্ড (রাত ১২টা থেকে বিকাল ৫টা)
          গ) রবি- অন্য অপারেটরে = ১ পয়সা/ সেকেন্ড (দিনরাত ২৪ ঘন্টা)
৫. এফএনএফ ছাড়া অন্য লোকাল নম্বরে মূল কলরেট ২ পয়সা প্রতি সেকেন্ড, দিনরাত ২৪ ঘন্টা


ট্যারিফ প্ল্যানের সংক্ষিপ্ত বিবরণ:
 
   
 উপভোগ করতে ডায়াল করুন *৮৯৯৯*৯০#
 
মূল কলরেট
  বিকাল ৫টা থেকে রাত ১২টা রাত ১২টা থেকে বিকাল ৫টা
রবি-রবি ২ পয়সা / সেকেন্ড
রবি- অন্য অপারেটরে
 
আনলিমিটেড এফএনএফ কলরেট
  বিকাল ৫টা থেকে রাত ১২টা রাত ১২টা থেকে বিকাল ৫টা
রবি-রবি ১ পয়সা/ সেকেন্ড ০.৫ পয়সা/ সেকেন্ড
রবি- অন্য অপারেটরে ১ পয়সা/ সেকেন্ড ১ পয়সা/ সেকেন্ড


অন্যান্য সাধারণ শর্তাবলী
 
- গ্রাহক অন্য প্যাকেজ ব্যবহার করতে চাইলে, সেই প্যাকেজের নির্দিষ্ট কোড ব্যবহার করে উপভোগ করতে পারবেন।
- মূল এবং এফএনএফ কলরেট:
          ক) শুধুমাত্র লোকাল নম্বরের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য
          খ) ১ সেকেন্ড পালস সুবিধা প্রযোজ্য
- এফএনএফ নম্বর জানতে
          ক) *১৪০# ডায়াল করে পরবর্তী নির্দেশনাবলী অনুসরণ করুন অথবা
          খ) ৮৩৬৩ নম্বরে এসএমএস করুন এবং নিচের নির্দেশনা অনুসরণ করুন:
 
যা করতে চানএসএমএস ফরম্যাটউদাহরণ
এফএনএফ নম্বর যোগ করুন A লিখে এফএনএফ নম্বর লিখুন A ০১৮xxxxxxxx ০১৭xxxxxxxx ০১৯xxxxxxxx
এফএনএফ মুছে ফেলুন D লিখে এফএনএফ নম্বর লিখুন D ০১৮xxxxxxxx
এফএনএফ জানুন F F
সম্পূর্ণ প্রক্রিয়া সম্পর্কে জানুন H H
 
- সর্বোচ্চ ৮০টি নম্বর এফএনএফ করা যাবে
- অন্যান্য সেবাসমূহে পূর্বের চার্জ বহাল থাকবে
- সকল ট্যারিফে ৩% সম্পূরক শুল্ক + সম্পূরক শুল্কসহ ট্যারিফের উপর ১৫% ভ্যাট প্রযোজ্য


আনলিমিটেড এসএমএস
 
আনলিমিটেড এফএনএফ প্যাকেজের সাবস্ক্রাইবারগণ এখন থেকে আনলিমিটেড এসএমএস উপভোগ করতে পারবেন মাত্র ৫ টাকায়!
 
অফারমেয়াদমূল্য (৩% সম্পূরক শুল্ক + সম্পূরক শুল্কসহ ট্যারিফের উপর ১৫% ভ্যাট ব্যাতীত)ক্রয়ের কোড
আনলিমিটেড অফার ২ দিন ৫ টাকা *৮৬৬৬*০০৫#
 
প্রয়োজনীয় তথ্যাবলী

- আনলিমিটেড এসএমএস প্যাকেজটি আনলিমিটেড এফএনএফ প্যাকেজের সাবস্ক্রাইবারদের জন্য প্রযোজ্য। যেকোন রবি কাস্টমার (উদ্যোক্তা, ইজিলোড/পিসিও, এসএমই এবং কর্পোরেট ব্যাতীত) আনলিমিটেড এফএনএফ প্যাকেজে মাইগ্রেট করতে পারবে *৮৯৯৯*৯০# ডায়াল করে।
- সর্বোচ্চ ৬০টি রবি-রবি এসএমএস এবং ৪০টি রবি-অন্য এসএমএস।
- এসএমএস লোকাল নম্বরেই আদান-প্রদান করা যাবে।
- এই আনলিমিটেড অফারটি ব্যবহার করার পর, পি২পি আদর্শ ট্যারিফ চার্জ করা হবে।
- রবি-রবি এসএমএস চেক করার জন্য ডায়াল করতে হবে *২২২*১০#
- রবি-অন্য অপারেটর এসএমএস চেক করার জন্য ডায়াল করতে হবে *২২২*২০#
- সাবস্ক্রাইবার যতবার খুশি ততবার প্যাকেজটি কিনতে পারবেন।
- ৩% সম্পূরক শুল্ক + সম্পূরক শুল্কসহ ট্যারিফের উপর ১৫% ভ্যাট প্রযোজ্য।
Blogger দ্বারা পরিচালিত.