বছরের সব জনপ্রিয় অ্যাপ

দেখতে দেখতে আরও একটি বছর শেষের পথে। প্রযুক্তি বিশ্বও ঘটনাবহুল সময় পার করেছে। বছরজুড়ে চোখ ধাঁধানো সব প্রযুক্তিতে মেতে ছিলেন প্রযুক্তিপ্রেমীরা। সঙ্গে ছিল নজর কাড়া কিছু অ্যাপ্লিকেশনও। নতুন কিছু অ্যাপ যেমন দৃষ্টি কেড়েছে সবার, তেমনি পুরনোগুলাের জনপ্রিয়তা বেড়েছে আরও।
ডিভাইসে যেমন প্রযুক্তির বিপ্লব হয়েছে, তেমনি নতুন এসব উদ্ভাবনে ভিন্ন মাত্রা যোগ করেছে অ্যাপ। শিক্ষা থেকে শুরু করে সব ধরনের সেবায় অ্যাপের ব্যবহার স্মার্টফোন থেকে শুরু করে ট্যাব, ল্যাপটপ এমনকি ডেস্কটপ ব্যবহারেও ভিন্ন মাত্রা যোগ করেছে। এগুলোর ব্যবহার অনলাইন কার্যক্রমের ধারাই বদলে দিয়েছে।
পেছন ফিরে তাকালে দেখা যাবে, অ্যাপ নির্ভর হয়ে পড়েছে ডিভাইসের ব্যবহার। বহুল ব্যবহৃত অ্যাপের জনপ্রিয়তা যেমন আরও বেড়েছে, তেমনি নতুন কিছু অ্যাপও চমক তৈরি করেছে। জীবন বদলে প্রযুক্তির ব্যবহারকে এক ভিন্ন উচ্চতায় নিয়ে গেছে অ্যাপস।
বছরজুড়ে অ্যাপ ব্যবহারে জনপ্রিয়তার তালিকার শীর্ষে ছিল সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম এবং ম্যাসেজিং অ্যাপগুলো। বিশ্বজুড়ে বিভিন্ন সামাজিক মাধ্যমের জনপ্রিয়তা ও ব্যবহার বৃদ্ধিই এটি প্রমাণ করে। বিভিন্ন প্রযুক্তি সাইট ঘেটে ২০১৫ সালে অ্যান্ড্রয়েডের সেরা ১০ ফ্রি অ্যাপের টুকিটাকি ও ডাউনলোড লিংক তুলে ধরা হলো এ প্রতিবেদনে।




best-android-apps-TechShohor

হোয়াটসঅ্যাপ ম্যাসেঞ্জার
বিনামূল্যে বার্তা আদান প্রদানে হোয়াটসঅ্যাপের জুড়ি নেই। দ্রুত টেক্সট, ছবি বা ভয়েস সেবার জন্য এটিরও জনপ্রিয়তা বাড়ছে প্রতিনিয়ত।
এটিও ফেইসবুকের মত প্রায়  ১০০ কোটি ব্যবহারকারীর ডিভাইসে ইন্সটল করা আছে। এটির গড় রেটিং হলো ৪.৪৩।
 
ফেইসবুক
সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম হিসেবে ফেইসবুক তুমুল জনপ্রিয়। সেই সঙ্গে পাল্লা দিয়ে স্মার্টফোনে ফেইসবুকের অ্যাপ্লিকেশনটিও জনপ্রিয়তার শীর্ষে রয়েছে।
এ অ্যাপ ব্যবহার করে সহজেই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমটি ব্যবহার করা যায়। সর্বশেষ হিসেবে, এটি প্রায় ১০০ কোটি অ্যান্ড্রয়েড ব্যবহারকারীর স্মার্টফোনে ইন্সটল করা আছে। এটির গড় রেটিং ৩.৯৮ ।
জনপ্রিয়তার কারণে নতুন ভার্সনের প্রায় সব স্মার্টফোনে মোবাইল ফোন প্রস্তুতকারক কোম্পানিগুলো এখন এ অ্যাপ শুরু থেকে প্রি-ইন্সটল করে রাখে।

ম্যাসেঞ্জার
ফেইসবুক ব্যবহার করে গ্রাহকরা যাতে সহজে বার্তা আদান প্রদান করতে পারেন সেই লক্ষে ম্যাসেঞ্জার অ্যাপ্লিকেশনটি তৈরি করা হয়েছে।
এটিও প্রায়  একশত কোটি ব্যবহারকারীর ডিভাইসে ইন্সটল করা হয়েছে। প্লেস্টোরে অ্যাপটির রেটিং ৩.৮৯।

ইন্সটাগ্রাম
ছবি শেয়ারিংয়ের জগতে ইন্সটাগ্রামের জনপ্রিয়তা তুমুলে। সহজে ছবি শেয়ারিং, ইফেক্ট যুক্ত করা ইত্যাদির কাজের জন্য এটি গ্রাহকপ্রিয়তা পেয়েছে।
সাধারণত ব্যবহারকারীর পাশাপাশি সেলিব্রেটি বা তারকাদের অনেকেই ইন্সটাগ্রাম ব্যবহার করছেন।
এটি প্রায় ৫০ কোটি ডাউনলোড হয়েছে। এটির রেটিং ৫.৫২।

maxresdefault

ক্লিন মাষ্টার
সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোর বাইরে ক্লিন মাষ্টার নামের এ অ্যাপের জনপ্রিয়তা আকাশচুম্বী। এটি এক ধরনের ক্লিনার অ্যাপ্লিকেশন। এটির সাহায্যে অব্যবহৃত ফাইল, রিসিডিউল ফাইল, সার্চ হিস্টোরি ডিলিট এবং অ্যাপ আন-ইনস্টলিং সুবিধা পাওয়া যায়।
এ অ্যাপটির মাধ্যমে চলন্ত অ্যাপগুলো বন্ধ করা যাবে। স্মার্টফোনের গতি বাড়ানোর পাশাপাশি চার্জ সংরক্ষণে সহায়তা করে এটি।
অ্যাপ্লিকেশন ৫০ কোটি স্মার্টফোনে ইন্সটল করা হয়েছে। গুগল প্লে’তে অ্যাপটি রেটিং ৪.৬৬।

ডিইউ স্পিড বুস্টার
স্মার্টফোনের গতি বাড়ানোর জন্য এ অ্যাপ বেশ কাজের। চালু থাকা অ্যাপ বন্ধ করা বা অব্যবহৃত র‍্যামকে কাজে লাগিয়ে এটি স্মার্টফোনের গতি বৃদ্ধিতে সাহায্য করে।
অ্যাপ্লিকেশনটি  প্রায় ১০ কোটি বার ডাউনলোড  হয়েছে। এটির রেটিং ৪.৫৪।

মাই টকিং টম
বাচ্চাদের জন্য চমৎকার একটি অ্যাপ্লিকেশন হলো টকিং টম। এটির সাথে পরিচয়  করিয়ে দেয়ার কিছু নেই। অ্যান্ড্রয়েড বা আইওএস ব্যবহারকারীদের কাছে জনপ্রিয় এটি।
অ্যাপটিতে একটি বিড়ালের থাকে যে কিনা ব্যবহারকারী কথা রিপিট করে শোনায়। নতুন নতুন ভার্সনে এটির নানান ফিচার বাচ্চাদের এমনকি বড়দেরও আনন্দ দিয়ে থাকে।
এটি ১০ কোটি ব্যবহারকারীর ডিভাইসে ইন্সটল করা আছে এবং রেটিং ৪.৪২।

ইউটিউব
ভিডিও শেয়ারিংয়ের জন্য চমৎকার একটি প্লার্টফর্ম হলো ইউটিউব। গুগলের অধিগ্রহণকৃত এই  মাধ্যমটি ভিডিও শেয়ারিংয়ের জন্য প্রতিনিয়ত জনপ্রিয়তা পাচ্ছে। অ্যান্ড্রয়েড স্মার্টফোনের জগতে ইউটিউব অ্যাপটি বেশ জনপ্রিয়। এটি প্রায় একশত কোটি ডাউনলোড হয়েছে। গুগল প্লে রেটিং ৪.০৯।

ব্যাটারি ডক্টর
অ্যান্ড্রয়েড স্মার্টফোনের চার্জ নিয়ে ব্যবহারকারীদের প্রায়ই বিপাকে পড়তে হয়। এ সমস্যার সমাধান করে ব্যাটারিতে বেশি সময় ব্যাকআপ দিতে রয়েছে ব্যাটারি ডক্টর নামের বহুল ব্যবহৃত এ অ্যাপ।
অ্যাপটি প্রায় ১০ কোটির বেশি ইন্সটল করা হয়েছে।

ভাইবার
ফ্রি ভয়েস বা ভিডিও কলের জন্য এটি বেশ জনপ্রিয়। এ অ্যাপ ব্যবহার করে দ্রুত বার্তা আদান-প্রদান, ভয়েস কল ও ভিডিও কল করা যায় বলে সবার পছন্দের তালিকার প্রথম দিকেই রয়েছে এটি।
ভাইবারের প্রায় ১০ কোটি ব্যবহারকারীর স্মার্টফোনে ইন্সটল করা আছে। এটির রেটিং ৪.৩২।