সফলদের মাঝে যে দোষ কখনোই খুজে পাওয়া জায় না


যারা নিজের পরিশ্রমে সফল কিংবা ধনী হয়েছেন তারা সব সময়েই কিছু গুণের অধিকারী। এসব গুণের মধ্যে কয়েকটি তুলে ধরা হলো এ লেখায়। এক প্রতিবেদনে বিষয়টি জানিয়েছে বিজনেস ইনসাইডার।
১. তারা টিভিপ্রিয় নয়
টিভি দেখে সময় নষ্ট করার মতো মানুষ নন নিজ পরিশ্রমে ধনী হয়ে ওঠা ব্যক্তিরা। তারা টিভি দেখার বদলে বই পড়তে কিংবা নিজেই টিভি অনুষ্ঠান তৈরি করতে পছন্দ করেন। বিলিয়নেয়ার ইলন মাস্ক থেকে শুরু করে ওয়ারেন বাফেট পর্যন্ত অধিকাংশ ধনীই এ গুণের অধিকারী। তারা কোন ধরনের বই পড়েন এ প্রশ্নে ভিন্ন ভিন্ন উত্তর পাওয়া গেছে। তবে তাদের অনেকেই নন-ফিকশন ধরনের ও নিজেকে উন্নত করার উপযোগী বই পড়েন।
২. তারা নিজেদের বিচ্ছিন্ন করেন না
নিজ চেষ্টায় মিলিয়নেয়াররা অত্যন্ত সামাজিক প্রাণী। তারা সব সময় মানুষের সঙ্গে মেলামেশা করেন ও নিত্যনতুন মানুষের সঙ্গে কথা বলেন। তারা সব সময় তাদের নেটওয়ার্ক উন্নত করার কাজে সময় ব্যয় করেন। এজন্য তাদের আগ্রহেরও শেষ নেই।
৩. তারা দ্বিতীয়বার ভাবেন না
যে কোনো বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়ার সময় এ ধরনের ব্যক্তিরা আগেই সব চিন্তাভাবনা সেরে নেন। সিদ্ধান্ত নিতে হলে সব বিষয় বিবেচনা করেই তারা সিদ্ধান্ত নেন। এ কারণে কোনো একটি বিষয়ে তারা সিদ্ধান্ত নেওয়ার পর দ্বিতীয়বার তা নিয়ে ভাবেন না। আগেই যে পথ ঠিক করেছেন, সে পথেই এগিয়ে যান।
৪. যুদ্ধ ছাড়া আত্মসমর্পণ নয়
সফলরা বিপদের আঁচ পেলে তা থেকে পালিয়ে যান না। তারা সব বাধাবিপত্তি এড়িয়ে সামনে এগিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করেন। বহু উদ্যোক্তাই সমালোচনা ও পরিবার কিংবা সঙ্গীদের বিরোধীতার মুখেও প্রকল্প থেকে পিছিয়ে আসেন না। তারা যে কোনো বিষয়ে লেগে থেকে তা সফল করে তবেই ছাড়েন।
৫. স্বাস্থ্যসচেতন
বহু ধনী উদ্যোক্তাকেই নিজের স্বাস্থ্যগত বিষয়ে সচেতন দেখা যায়। অনেকেই জিমে যাতায়াত করেন এবং নিজের স্বাস্থ্য ঠিক রাখেন।
৬. দেরি নয়
সকালে অ্যালার্ম ঘড়ির স্নুজ বাটন চেপে ঘুমাতে যাননা সফল ব্যক্তিরা। তারা নিয়মিত সময় ধরে কর্মস্থলে যান এবং ভালোভাবে দিনটি শুরু করেন।
৭. কখনোই একঘেয়ে নয়
সফল ব্যক্তিরা কখনোই একঘেয়ে জীবনযাপন করেন না। তারা বিভিন্ন সুযোগ গ্রহণ করতে উদগ্রিব থাকেন এবং নানা বিষয় থেকে অভিজ্ঞতা অর্জন করেন। তারা সব সময় মানুষের সঙ্গে যোগাযোগ করেন, বই পড়েন এবং তাদের শিক্ষা ও দক্ষতা বাড়াতে সচেষ্ট থাকেন। - See more at: http://www.kalerkantho.com/online/lifestyle/2015/12/25/305938#sthash.OhnC5l1D.dpuf