উন্নত ক্যারিয়ার গড়তে এসইও ( SEO - Search Engine Optimization )

বাংলাদেশে যারা আউটসোর্সিংয়ের মাধ্যমে ইনকাম করে তাদের বেশিরভাগ এসইও এর মাধ্যমে আয় করে। কারন বাংলাদেশে দক্ষ জনশক্তি কম। সাধারণত যাদের কম্পিউটার সম্পর্কে সাধারন ধারনা আছে, ইংরেজীতে মোটামুটি পারদর্শী, ওয়েবসাইট ভিজিট করতে স্বাচ্ছন্দ বোধ করেন তারা অতি সহজে এসইও এর কাজে পারদর্শী হতে পারেন। কোন প্রোগ্রামিং ভাষা জানার তেমন দরকার নাই বিধায় এই কাজ অতি সহজে রপ্ত করে দ্রুত কাজ শুরু করা যায় বলে বিশ্বব্যাপী এই কাজে নিয়োজিত আছেন লক্ষ লক্ষ মানুষ।

উন্নত ক্যারিয়ার গড়তে এসইও

কেন শিখবেন এসইও?

সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন [এসইও] সময়ের আলোচিত একটি পেশা। যারা ওয়েব উদ্যোক্তা বা ওয়েবমাস্টার হতে চান তাদের সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন শেখা অবশ্যই জরুরি। এছাড়া যারা সফল ফ্রিল্যান্সার হতে চান তারাও এসইও শিখে ফ্রিল্যান্সিং করে প্রতি মাসে শত শত ডলার আয় করতে পারেন। বিশেষ করে যাদের কম্পিউটারের সাধারণ জ্ঞান আছে এবং ইংরেজিতে লেখালেখি করতে পারেন তারা এই পেশাকে বেছে নিতে পারেন অনায়াশেই। অনলাইন মার্কেটপ্লেস ওডেস্ক.কম বা ফ্রিল্যান্সার.কমসহ জনপ্রিয় অনলাইন মার্কেটপ্লেসে প্রতি মুহূর্তে সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন বিষয়ক শত শত প্রজেক্ট জমা হয়। বাংলাদেশি শত শত ফ্রিল্যান্সার এসব কাজ করে শত থেকে হাজার হাজার ডলার আয় করে থাকেন। অল্প সময়ে কাজ করে প্রচুর টাকা আয়ের অন্যতম উপায় সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন। আপনি যদি নিজের সাইটের জন্য সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন করেন তাহলে এর মাধ্যমে অধিক পরিমানে ভিজিটর পাবেন। যেহেতু ভিজিটর = টাকা হিসেবে বিবেচনা করা হয় সেহেতু যতো ভিজিটর আসবে আপনার ব্যবাসয়িক লাভ হওয়ার সম্ভাবনা অনেক বেশি। অধিক ভিজিটরের মাধ্যমে পণ্য বিক্রি, অ্যাফিলিয়েট বা অ্যাডসেন্স থেকে আয়ের সুযোগ থাকে। এছাড়া ঘরে বসে রিলাক্স মোডে কাজ করা ও তার মাধ্যমে আয় করার এটাই সুযোগ। শুধু মার্কেটপ্লেস নয় লোকাল মার্কেট থেকে প্রতিনিয়ত কাজ পাওয়ার বহু সম্ভাবনা রয়েছে এসইও এর ক্ষেত্রে।


ক্যারিয়ার হিসাবে SEO :

√ বিভিন্ন মার্কেটপ্লেসগুলোতে (odesk.com, freelancer.com ইত্যাদি)ভিজিট করলে দেখা যায়, এসইওর কাজ সবচাইতে বেশি।

√ নিজের একটি ব্লগ সাইটখুলে সেটিকে এসইও করে গুগলের প্রথমদিকে আনতে পারলে যদি ভিজিটর বৃদ্ধি পায় তাহলে অ্যাডসেন্স কিংবা এ ধরনের আরও অনেক বিজ্ঞাপনী সার্ভিসের মাধ্যমে ভাল আয় করা যায়। এপদ্ধতিতে সাধারণত মাসে ১০০ ডলার থেকে ১০০০ডলারের মত আয় করা যায়।

√ অ্যাফিলিয়েশন্সের আয়ের জন্য প্রধান শর্ত হচ্ছে আপনার ওয়েবসাইটের প্রচুর পরিমানে টার্গেটেড ভিজিটর। আর ভিজিটর আনতে হলে এসইও করতেই হবে। আউটসোর্সিংয়ের এ কাজের মাধ্যমে মাসে আয় করা যায় সাধারণত ৩০০ -২০০০ ডলার।

√ এসইওর মাধ্যমে আপনার ওয়েবসাইট গুগলের প্রথমে আনতে পারলে এবং ভিজিটর প্রচুর পরিমানে ওয়েবসাইটে আসলে বিভিন্ন লোকাল কোম্পানীর বিজ্ঞাপন আপনার ওয়েভসাইটে ব্যবহার করে মাসে ৩০০০০ টাকা থেকে ৫লাখ টাকাও আয় করতে পারবেন। যেমন টেকটিউনসে কোন প্রকার এ্যাডসেন্স ব্যবহার করা হয়না। এখানের আয় সম্পূর্ণ লোকাল বিজ্ঞাপন।

√ এসইও শিখার আরও গুরুত্বপূর্ণ দিক হচ্ছে, এসইও কোর্স একটি কিন্তু আয় করা সেক্টর অনেকগুলো। যেমনঃ ফোরাম পোস্টিং কিংবা ব্লগ কমেন্টিং কিংবা কিংবা সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং কেংবা পুরো এসইও করে আয় করা যায়।

√ প্রতিদিন মাত্র ২-৩ ঘন্টা সময় দিয়ে এসইও করা যায়। সেজন্য অন্য চাকুরী পাশাপাশি এটি শিখে আয় করা সম্ভব।

ফ্রিল্যান্সিং

দিনে দিনে বেড়েই চলছে আমাদের ফ্রিল্যান্সিং মার্কেট। এখন বাংলাদেশ পৃথিবীর প্রথম সারির ৫ টি দেশের একটি দেশ এই ফ্রিল্যান্সিং এ । যেখানে রয়েছে সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন এর অনেক অনেক কাজ। আপনি যদি সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন এ দক্ষ হন তাহলে আপনি হতে পারেন একজন সফল ফ্রিল্যান্সার। এখন বাংলাদেশের অনেক তরুণের স্বপ্নের ক্যারিয়ার হলো এই ফ্রিল্যান্সিং। যেখান থেকে দক্ষরা হাজার হাজার ডলার আয় করে নিজের জীবন পাল্টে ফেলেছে।  আর সেই মার্কেটে এসইও একটি অনেক বড় অংশ। কেবল আপনি যদি একজন দক্ষ এসইও এক্সপার্ট হতে পারেন তাহলে আপনি ও প্রতিমাসে আয় করতে পারবেন ভালো অংকের টাকা। ফ্রিল্যান্সার মার্কেটপ্লেস এর মধ্যে জনপ্রিয় হচ্ছে ওডেক্স, ফ্রিল্যান্সার, ইল্যান্স, ফাইভার, পিপল পার আওয়ার ইত্যাদি।

স্মার্ট জবের জন্য এসইও

আপনি জানেন কি আন্তর্জাতিক বাজারে একজন এসইও স্পেশালিষ্ট এর প্রতিমাসে সেলারি কত? মাসে মাত্র ২ লক্ষ টাকা থেকে ৫ লক্ষ টাকা পর্যন্ত। আর একজন সার্চ ইঞ্জিন মার্কেটের বা এসইও কনসাল্টেন্ট এর আয় এর দেড়গুণ !! ৫-৬ বছরের অভিজ্ঞতা থাকলে আর বাহিরের দেশে যাবার সুযোগ থাকলে আপনি ও পেতে পারেন এমন একটি ক্যারিয়ার। তবে বাংলাদেশ এ এখন ও এমন অবস্থা আসছে। কারণ বাংলাদেশের লোকাল মার্কেট এখন অনলাইন ভিত্তিক হতে যাচ্ছে। তাই সেক্ষেত্রে বাংলাদেশে এইধরনের কর্মক্ষেত্র বারছে হু হু করে । তবে আগামী বছরের মধ্যে বাংলাদেশেও এর ব্যাপক চাহিদা হবে একজন সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজারের।তবে আপনি কিন্তু এখন একজন ভার্চুয়াল ওয়েবমাস্টার বা এসইও কনসালটেন্ট হিসাবে বিদেশী কোম্পানিতে জব করতে পারেন তাও আবার নিজের ঘরে বসেই ! যা থেকে আপনি ও আয় করতে পারেন মাস শেষে একটি বড় অংশ।


এসইও টু ব্লগিং, অ্যাফিলিয়েশন মার্কেটিং, এড মার্কেটিং

শুধুমাত্র ব্লগিং করে বা অ্যাফিলিয়েশন মার্কেটিং করে বাংলাদেশ থেকে প্রতিমাসে  ৫০,০০০-৫,০০,০০০ টাকা আয় করেন এমন অনেকেই আছেন। যারা সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশনকে কাজে লাগিয়ে অনলাইন থেকে আয় করে থাকেন। অ্যাফিলিয়েশন মার্কেটিং বলেন বা গুগল এডসেন্স বলেন আপনি যদি এসইওতে পারদর্শী হন তাহলে আপনার জন্য থাকবে একটি অপার সম্ভাবনা নিজের ক্যারিয়ারকে একটি উচুস্থানে নিয়ে যাওয়ার। তাই আপনি যদি এই অ্যাফিলিয়েশন মার্কেটিং, এড মার্কেটিং বা ব্লগিং এ ক্যারিয়ার গড়তে চান তাহলে এসইও (সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন) এর কোন বিকল্প নেই।


অনলাইন মার্কেটিং এ এসইও

অনলাইন মার্কেটিং এখন একটি অনেক বড়ক্ষেত্র । কারণ পৃথিবী খুব দ্রুতই অনলাইন ভিত্তিক হয়ে পড়ছে। সবাই এখন ধীরে ধীরে অনলাইনের উপর নির্ভরশীল হয়ে পরছে। কেনা কাটা থেকে শুরু করে অলাইনে লেখাপড়া সবই করা হচ্ছে। তাই অনলাইনের বাজারে কম্পিটিশন ও বেড়ে চলেছে। সবাই উঠেপড়ে লেগেছে তাদের টার্গেটেড ভিজিটর বা কাস্টমারদেরকে নিয়ে আসার জন্য। আর এই কারনে দিন দিন বেড়ে চলেছে সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজারদের প্রয়োজনীয়তা। নির্দিষ্ট কী ওয়ার্ড এর উপর ভিজিটর নিয়ে আসার জন্য যে এসইও এর কোন বিকল্প নেই ! তাই অনলাইন মার্কেটিং এর সব বড় এবং প্রধান হাতিয়ার হিসাবে আপনি বেছে নিতে পারেন সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন কে। অনলাইন মার্কেটিং এ অন্যের হয়ে কাজ করে বা নিজের পন্যের জন্য কাজ করে আপনি আপনার উজ্জ্বল ভবিষ্যৎ খুব সুন্দর ভাবে গড়ে তুলতে পারেন।


উদ্যোগতা হিসাবে এসইও

ধরুন আপনি ছোট একটি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান চালাচ্ছেন। যেখানে আপনি ওয়েবসাইট ডিজাইন বা গ্রাফিক্স ডিজাইনের সার্ভিস গুলো দিয়ে থাকেন। কিন্তু আপনি জানেন না কিভাবে আপনি আপনার টার্গেটকৃত কাস্টমারদের নিয়ে আসবেন আপনার ব্যবসায়। কিন্তু আপনি যদি সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন জানেন তাহলে সেই কাজ আপনি দ্রুতই করতে পারেন। যার ফলে আপনি আপনার ব্যাবসার উন্নতি আরো কয়েকগুন বাড়িয়ে নিতে পারবেন। এক সময় আপনার সেই ছোট কোম্পানি ই হয়ে যেতে পারে বড় কোন সার্ভিস প্রোভাইডার। তাই আপনি চাইলেই অনলাইন বা অফলাইন ২ দিকেই এসইও করার মাধ্যমে আপনি একজন সফল উদ্যোগতা হিসাবে ক্যারিয়ার গড়ে তুলতে পারেন।


কোথায় শিখবেন এসইও

বর্তমানে বাংলাদেশে অনেক আইটি ইনস্টিটিউট আছে যারা এসইও কোর্সটি করিয়ে থাকেন। কিন্তু ভালো এবং নির্দিস্ট গাইড লাইন বা পথ না পাওয়ার কারণে আমাদের দেশের অনেকেই এসইও কোর্সটি করতে পারছেননা, সেই সাথে আইটি সম্পর্কে ভুল ধারণার সৃষ্টি হচ্ছে। এই সমস্যার কথা মাথায় রেখেই আমাদের রিসার্চ টিম ভালো কিছু আইটি ইনস্টিটিউট গুলোর মধ্য থেকে একটি আপনাদের মাঝে উপস্থাপন করেছেন, আর তা হলো "BLACK iz IT Institute"। এই ইনস্টিটিউটটি বিগত ৫বছর ধরে তাদের ইনস্টিটিউটের সকল কার্যক্রম সফলভাবে চালিয়ে আসছেন। ইনস্টিটিউটটির স্টুডেন্টদের তথ্য অনুযায়ী এসইও-এর কোর্সটির জন্য "BLACK iz IT Institute" একটি সেরা প্রতিষ্ঠান। সেই সাথে সুখবরটি হচ্ছে বর্তমানে এসইও কোর্সটি তাদের স্কলারশিপ প্রগ্রামের আওতায় থাকার কারণে 40% ছাড়ে এসইও কোর্সটি রেজিস্ট্রেশন ফি সহ মাত্র ৭০০০/= টাকায় করানো হচ্ছে! 

"BLACK iz IT Institute" -এ এসইও কোর্সটি করতে চাইলে অনলাইনে রেজিস্ট্রেশন করতে পারেন, অনলাইনে রেজিস্ট্রেশন ফরম পূরণ করতে চাইলে এই লিংকে ক্লিক করুণঃ অনলাইনে রেজিস্ট্রেশন করতে এখানে ক্লিক করুণ!

তাছাড়াও তাদের কাছে যেকোন বিষয়ে তথ্য জানতে নিচের ঠিকানা বা মোবাইল নাম্বারগুলোতে যোগাযোগ করতে পারেনঃ 

• BLACK iz IT institute যোগাযোগের ঠিকানাঃ

১নং বিল্ডিং, লেক সার্কাস (২য় তলা ম্যাবস কোচিং সেন্টার) কলাবাগান, বাস স্টান্ড, ধানমন্ডি, ঢাকা ১২০৭।
০১৬৭১৫০২৩৯৬, ০১৬১১৭৭২৩৯৮, ০১৯১১৭৭২৩৯৮, ০১৭১৭৬৯৫৬৩১।