৩ ফেব্রুয়ারি থেকে আইএমইআই ডেটাবেজ চালু হচ্ছে

গ্রাহকের পরিচয় ও নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হ্যান্ডসেটের নিবন্ধন শুরু হচ্ছে। আইএমইআই ডেটাবেজ চালু করতে মোবাইল ফোন আমদানীকারকদের সংগঠনের পক্ষ থেকে বহুল আলোচিত এ কার্যক্রম হাতে নেওয়া হচেছ।
আগামী ৩ ফেব্রুয়ারি দেশে মোবাইল হ্যান্ডসেটের প্রথম গ্রাহক পরিচয় সনাক্তকারী এ ডেটাবেজের উদ্বোধন করবেন টেলিযোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী তারানা  হালিম।
ইন্টারন্যাশনাল মোবাইল স্টেশন ইকুইপমেন্ট আইডেন্টিটি বা আইএমইআই নামে ১৫ ডিজিটের একটি নম্বর রয়েছে, যেটি একটি হ্যান্ডসেটের স্বতন্ত্র একটি পরিচয়।

smartphone-techshohor

দেশে আমদানি করা সব হ্যান্ডসেটের আইএমইআই নিবন্ধন করা সম্ভব হলে এর মাধ্যমে হ্যান্ডসেটটির পরিচয় নিশ্চিত হবে।
ডেটাবেজের উদ্বোধনের খবর নিশ্চিত করেছেন মোবাইল ফোন ইমপোটার্স অ্যাসোসিয়েশনের (বিএমপিএ) সাধারন সম্পাদক রেজওয়ানুল হক।
রেজওয়ানুল হক বলেন, সিমের নিবন্ধনের মাধ্যমে নিরাপত্তার অর্ধেকটা নিশ্চিত হবে। এরপর হ্যান্ডসেটের নিবন্ধন করা গলে নিরাপত্তার শতভাগ নিশ্চিত হবে।
ইতিমধ্যে সরকার সিমের বায়োমেট্রিক নিবন্ধন শুরু করেছে, যেটি এপ্রিলের মধ্যে শেষ হবে।
এর আগে তারানা হালিমও হ্যান্ডসেটের নিবন্ধনের বিষয়টির ওপর জোর দেন। তবে তার আগে থেকেই ডেটাবেজ তৈরির জন্য কাজ শুরু করেছে আমদানিকারকরা।
বিএমপিএ সাধারন সম্পাদক জানান, বর্তমানে প্রতি বছর আড়াই কোটির কিছু বেশি হ্যান্ডসেট আমাদনি হয়। বৈধ পথে আমদানি হওয়া সব সেটের নিবন্ধন হলে তখন অবৈধ পথে আমদানি হওয়া সেটের নিয়ন্ত্রণও সম্ভব হবে।
সংশ্লিষ্টরা বলেন, এ ডেটাবেজ নিবন্ধনের সঙ্গে মোবাইল ফোন অপারেটরগুলোকেও যুক্ত করতে হবে। আইএমইআই ডেটাবেজে কোনো সেট নিবন্ধিত না হলে সেটি কোনো মোবাইল ফোন অপারেটরের নেটওয়ার্কে কাজ করবে না। এমন সিদ্ধান্ত নেওয়ার কথা বলেন তারা।
এতে হ্যান্ডসেটে থেকে সরকারের যে রাজস্ব আয় হয় তাও অনেকটা বাড়বে বলে ধারণা আমদানিকারকদের।
রেজওয়ানুল হক বলেন, তাদের ধারণা বর্তমানে ২০ শতাংশ হ্যান্ডসেট আসে অবৈধ পথে। ফলে প্রতিটি হ্যান্ডসেট আমদানিতে ২৫ শতাংশ শুল্ক থেকে বঞ্চিত হয় সরকার।