বিদায় নিচ্ছে এয়ারটেল বাজার ধরছে রবি

 
দেশে মোবাইল ফোন অপারেটর রবি ও এয়ারটেলের একীভূতিকরণে আনুষ্ঠানিক চুক্তি করেছে দুই কোম্পানি।
রবির মালিকানায় রয়েছে মালয়েশিয়াভিত্তিক আজিয়াটা গ্রুপ অন্যদিকে এয়ারটেলের মালিক ভারতের ভারতী এয়ারটেল। চুক্তি অনুযায়ী একীভূতিকরণের পর নতুন নাম হবে রবি।
একীভুতিকরণে আজিয়াটার শেয়ার থাকছে ৬৮.৩ শতাংশ। অন্যদিকে ভারতী এয়ারটেলের থাকছে ২৫ শতাংশ এবং বাকি ৬.৭ শতাংশ অপর শেয়ারহোল্ডার জাপানের এনটিটি ডকোমোর কাছে ।
বৃহস্পতিবার এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে রবি জানায়, ২০১৫ সালের ৯ সেপ্টেম্বর দুই কোম্পানি বাংলাদেশে ব্যবসায়িক কার্যক্রম একীভূত করার সম্ভাবনার বিষয়ে আলোচনা শুরুর পর এটি আনুষ্ঠানিক চুক্তি।

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, ‘এই চুক্তির কার্যকারিতা টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণকারী কর্তৃপক্ষ (রেগুলেটরি), সরকার এবং আদালতের অনুমোদন পাওয়ার ওপর নির্ভরশীল। এই প্রক্রিয়া আগামী দুই মাসের মধ্যে সম্পন্ন হবে বলে আশা করা হচ্ছে।’
বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, একীভূতকরণের মাধ্যমে ব্যবসা কাঠামো উন্নততর হলে ব্যবসায়িক লাভ এবং শেয়ার হোল্ডারদের বিনিয়োগ সুরক্ষিত হবে।
আজিয়াটার প্রেসিডেন্ট এবং গ্রুপের প্রধান নির্বাহী দাতোশ্রী জামালুদ্দিন ইব্রাহিম বলেন, আজিয়াটার একীভূতকরণ এবং আত্মীকরণ কৌশলের সঙ্গে সমন্বয় রেখে বিভিন্ন দেশে আমরা নিজেদের অবস্থান জোরদার এবং দীর্ঘমেয়াদী প্রবৃদ্ধি নিশ্চিত করতে এ ধরণের একীভূতকরণে সর্বোচ্চ মনোযোগ দিয়েছি।
ভারতী এয়াটেলের ম্যানেজিং ডিরেক্টর এবং সিইও (ভারত ও দক্ষিণ এশিয়া) গোপাল ভিত্তাল বলেন, দুটি কোম্পানির শক্তিকে একত্রিত করার পেছনে অত্যন্ত যৌক্তিক কারণ রয়েছে। একীভূত এই সত্তা তার কার্যক্রমের সমন্বয় ঘটিয়ে গ্রাহকদের বিশ্বমানের আরও দারুণ সেবা দিতে সক্ষম হবে এবং বাংলাদেশের টেলিযোগাযোগ খাতের উন্নয়নে অবদান রাখতে পারবে।
রবির সিইও সুপুন বীরাসিংহে বলেন, বাংলাদেশের বর্তমান অসম প্রতিদ্বন্দ্বিতা এবং প্রতিযোগিতার টেলিকমিউনিকেশন খাতে একীভূতকরণ অত্যন্ত প্রয়োজনীয়। এই একীভূতকরণের মাধ্যমে আজিয়াটা এবং ভারতী এয়ারটেল উভয়েই বর্ধিত আকার এবং দক্ষতার ফলশ্রুতিতে ব্যয় সংকোচনের সুবিধা পাবে।
উল্লেখ্য, ২০১০ সালে মোবাইল ফোন অপারেটর ওয়ারিদের ৭০ শতাংশ শেয়ার কিনে নিয়ে বাংলাদেশে যাত্রা করে এয়ারটেল। তখন অপারেটরটির ৭০ শতাংশ শেয়ার ভারতীয় এ কোম্পানি কিনেছিল মাত্র ১ লাখ ডলার মূল্য দেখিয়ে। এরপর ২০১৩ সালে বাকি ৩০ শতাংশ কিনে নেয় ৮৫ মিলিয়ন ডলারে।
অন্যদিকে ১৯৯৭ সালে টেলিকম মালয়েশিয়া (টিএম) ইন্টারন্যাশনাল ও বাংলাদেশের এ কে খান অ্যান্ড কোম্পানির যৌথ উদ্যোগে একটেল নামে কোম্পানির যাত্রা শুরু হয়। ২০০৮ সালের শেষের দিকে জাপানের ডোকোমো ইনকরপোরেটেড টিএম গ্রুপের সঙ্গে যোগ দেয়। এ কে খান অ্যান্ড কোম্পানির মালিকানায় থাকা একটেলের ৩০ শতাংশ শেয়ার ৩৫ কোটি মার্কিন ডলারে কিনে নেয় ডোকোমো।
২০১০ সালের ২৮ মার্চ একটেল রবি আজিয়াটা লিমিটেড হিসেবে যাত্রা শুরু করে। এরপর ২০১৩ সালে ডোকোমো তাদের অংশীদারিত্ব কমিয়ে ৮ শতাংশে নিয়ে আসে। অন্যদিকে আজিয়াটা নিজেদের অংশীদারিত্ব বাড়িয়ে ৯২ শতাংশ করে।