লোগো এবং ওয়েবসাইটে বদলে গেল রাষ্ট্রয়াত্ত্ব মোবাইল ফোন অপারেটর টেলিটক।
অনেক দিন এক জায়গায় আটকে থাকা টেলিটককে এই প্রক্রিয়ার মাধ্যমে খানিকটা হলেও এগিয়ে নিতে চান টেলিযোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম।
একই সঙ্গে অপারেটরটি তাদের শুরুর স্লোগান ‘আমাদের ফোন’ বদলে নিয়েছে ‘হাসিমুখে নতুন পথে’।
মঙ্গলবার সন্ধ্যায় ইন্টারন্যাশনাল কনভেনশন সিটি বসুন্ধরার নবরাত্রি হলে আনুষ্ঠানিকভাবে নতুন লোগো উন্মোচন ও রি-ব্র্যান্ডিংয়ের ‍অনুষ্ঠান হয়।
সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, মূলত বর্তমান টেলিযোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিমের আগ্রহের কারণে নতুন লোগো উন্মোচন এবং রি-ব্রান্ডিং-এর কার্যক্রম হাতে নেওয়া হয়েছে।
অনুষ্ঠানে তারানা হালিম বলেন, অন্য অপারেটরগুলো যেখানে ব্র্যান্ডিংয়ে কোটি কোটি টাকা খরচ করে সেখানে টেলিটক চলে কেবল ভালোবাসার জোরে।
সেখান থেকে বেরিয়ে আসতেই অপারেটরটিকে নতুন করে ঢেলে সাজানো হয়েছে বলেও বলেন তিনি।
teletalk new logo
২০০৪ সালে যাত্রা শুরু করা টেলিটক সরকারি বিভিন্ন সুযোগ সুবিধা নিয়েও জিএসএম অপারেটরগুলোর মধ্যে সবচেয়ে কম গ্রাহককে সেবা দিচ্ছে।
জানুয়ারি তথ্য অনুযায়ী, দেশে গ্রাহকদের হাতে থাকা ১৩ কোটি ১৯ লাখ মোবাইল সিমের মধ্যে মাত্র ৪২ লাখ টেলিটকের মতো।
ছয় মাস আগেও অপারেটরটির অ্যাক্টিভ গ্রাহক ছিল ৪২ লাখ ১৯ হাজার।
অনুষ্ঠানে অপারেটরটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক গিয়াসউদ্দিন আহমেদ টেলিটকের বিভিন্ন সাফল্য তুলে ধরেন। একই সঙ্গে আর্থিক সীমাবদ্ধতাসহ অন্যান্য সীমাবদ্ধতার কথাও জানান তিনি।
টেলিটক বাংলাদেশ লিমিটেড ২৯ ডিসেম্বর ২০০৪ সালে যাত্রা শুরু করে। টেলিটক জিপিআরএস, এজ এবং থ্রিজি ইন্টারনেট সংযোগ প্রদান শুরু করে ২০১২ সালের ১৪ অক্টোবর থেকে।
দেশে সবার আগে থ্রিজি সেবা চালু করলেও প্রতিষ্ঠানটিতে নানান দুর্নীতির কারণে এতদিন পিছিয়ে ছিল। তারানা হালিম টেলিযোগাযোগ মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব নেওয়ার পর থেকেই টেলিটকের উন্নয়নে বিভিন্ন পদক্ষেপের অংশ হিসেবে এবার তাদের লোগো বদলে গেল।


 চীনের হ্যান্ডসেট নির্মাতা ভিভো মার্চের শুরুতেই বাজারে আনছে ৬ জিবি র‌্যামের একটি স্মার্টফোন। ফোনটির মডেল এক্স-প্লে ৫ । এই ফোনটির বিশেষত্ব হচ্ছে এতে সোলার চার্জি টেকনোলজি থাকছে। ফোনের ব্যাকে থাকবে সোলার প্যানেল। ফলে দিনের বেলায় ফোনটির ব্যাটারি স্বয়ংক্রিয়ভাবে চার্জ হবে।  
চীনের এই প্রতিষ্ঠানটি ঘোষণা দিয়েছে পহেলা মার্চই তাদের নতুন হ্যান্ডসেট মার্কেটে চলে আসছে। আর কোনও কোম্পানির ফোনে এখন ৬জিবি র‌্যাম নেই। ফোনটিতে থাকছে ৮২০ প্রসেসর। 
ভিভো এর আগে জানিয়েছে, তাদের এক্স-প্লে স্মার্টফোনটি দু-দিকেই বাঁকানো যাবে। স্যামসাংয়ের এজ সিরিজের স্মার্টফোনগুলিও দু-দিকে এ ভাবেই বাঁকানো যায়। 
ফোনটির ডিসপ্ল হবে ৬ ইঞ্চির। এতে থাকছে ১৬ মেগা পিক্সেল ক্যামেরা। এর ফ্রন্ট ক্যামেরা হবে ৮ মেগা পিক্সেলের। থাকবে ৪,৩০০ মিলিঅ্যাম্পায়ার আওয়ারের ব্যাটারি। এটি অ্যানড্রয়েড মার্সম্যালো অপারেটিং সিস্টেমে চলবে। 


ফোনে সাধারণত এসএমএস বা মেসেজ পাঠানোর জন্য যে সমস্ত পদ্ধতিগুলি থাকে তা এখন অনেক পুরনো হয়ে গিয়েছে। ফাস্ট দুনিয়ায় আরও ফাস্ট হওয়া দরকার। এই চাহিদার কথা মাথায় রেখেই আরও সহজে এসএমএস পাঠানোর জন্য এবার এসে গেল বিভিন্ন অ্যাপ। তবে এই অ্যাপগুলি শুধুমাত্র অ্যানড্রয়েড ফোনেই একমাত্র ব্যবহার করা যাবে।
সেরা কয়েকটি এসএমএস অ্যাপের খোঁজ জানানো হলো।
১) চম্প এসএমএস:  এই অ্যাপের মাধ্যমে আপনি আরও তাড়াতাড়ি মেসেজ লিখতে পারবেন। তাছাড়া এই অ্যাপে আপনি এসএমএসের রঙ বদলাতে পারবেন। কেউ যাতে আপনার মেসেজ দেখে না ফেলে তার জন্য এই অ্যাপে পাসওয়ার্ড কোড দিতে পারবেন। এমনকি যার কাছে এই অ্যাপটি নেই, তাকেও আপনি এই চম্প অ্যাপের মাধ্যমে এসএমএস পাঠাতে পারবেন। তিনিও আপনাকে রিপ্লাই দিতে পারবেন এই অ্যাপ ছাড়াই। 
২) টেক্সট্রা এসএমএস: এই অ্যাপে আপনি পপ আপ বক্স এবং ল্যান্ডস্কেপ কি বোর্ডের মাধ্যমে খুব তাড়াতাড়ি মেসেজ লিখে পাঠাতে ও রিপ্লাই দিতে পারবেন। টেক্সট্রা অ্যাপের কাজ আরও বেশি দ্রুত অন্যান্য অ্যাপের তুলনায়।
৩) হোভার চ্যাট: এই অ্যাপের আগে নাম ছিল নিনজা এসএমএস। আপনি ফোনে অন্য কাজ করতে করতেই হোভার চ্যাটের মাধ্যমে এসএমএস পাঠাতে বা রিপ্লাই দিতে পারবেন। এর মাল্টি টাস্কিং ওয়ার্ক ফ্লো আপনাকে এই কাজে সাহায্য করবে। আমরা কম্পিউটারে যেমন একের বেশি ট্যাব খুলতে পারি, ঠিক তেমনই এখানেও আপনি একটা কাজ করতে করতে মেসেজ করতে পারবেন। আপনার আগের পেজটা তখন ব্যাকগ্রাউন্ডে চলে যাবে।
৪) হ্যান্ডসেন্ট: যে সব ফোনে কম মেমোরির সমস্যা আছে, তাদের জন্য হ্যান্ডসেন্ট অ্যাপ খুবই উপযোগী। এই অ্যাপ ব্যবহার করলে ফোনের ইন্টারনাল মেমোরি খুবই কম লাগে। মাত্র ৩ এমবি। অথচ এই কম মেমোরির মধ্যেও মেসেজের বিভিন্ন ফিচার্স রয়েছে। যেখান থেকে আপনি মেসেজ লিখতে, ব্লক করতে পারবেন। এর স্লাইডিং নেভিগেশন ড্রয়ারের মাধ্যমে অ্যান্ড্রয়েড ব্যবহারকারী সেটিংস বা নতুন মেসেজ লিখতে পারেন।
৫) হ্যালো: এই অ্যাপ খুবই স্ট্রেট ফরোয়ার্ড। হ্যালো অ্যাপ ব্যবহার করলে ব্যবহারকারী যার সঙ্গে চ্যাট করছেন শুধু তার এই অ্যাপের ছবিই নয়, সঙ্গে সঙ্গে তার ফেসবুকের ছবিও দেখতে পাবেন। ইমেলের মতো আপনি এই এসএমএস অ্যাপেও টেক্সট মেসেজের সঙ্গে রিপ্লাই, মার্ক ও রিড এই তিনটি অপশন পাবেন।



একটি গ্রহাণু পৃথিবীর দিকে ছুটে আসছে। এটি পৃথিবীকে আঘাত করলে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হওয়ার আশংকা করা হচ্ছে। এমন পূর্বাভাস দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের মহাকাশ গবেষণা সংস্থা নাসা। ওই গ্রহাণুর নাম ‘২০১৩ টিএক্স৬৮’। আগামী সপ্তাহে একটি মহাজাগতিক পাথরের সঙ্গে গ্রহাণুর সংঘর্ষ হতে পারে। তবে তা থেকে মানবজাতি রক্ষা পাবে বলে আশা করছে নাসা। তবে একেবারে বিপদের আশংকা থেকে মুক্তি মিলবে এমনটাও নিশ্চিত করে বলতে পারেনি তারা।

নাসা বলছে, ওই গ্রহাণুটি ১০০ ফুট চওড়া। এখন এটি পৃথিবীর দিকে এগিয়ে আসছে। তবে এবার যদি কোনো বিপদ না-ও ঘটে তাহলে আগামী বছর তা আরও একবার পৃথিবীর কাছ দিয়ে উড়ে যাবে। অর্থাৎ ২০১৭ সালের ২৮ সেপ্টেম্বর আরেকটি সংঘর্ষ ঘটতে পারে। তবে সে সম্ভাবনা খুব কম। যদি এমন সংঘর্ষের ফলে তা বিস্ফোরিত হয় পৃথিবীর আবহাওয়া মণ্ডলে তাহলে তা থেকে যে শক্তি পৃথিবীকে আঘাত করবে তা হবে একটি শক্তিশালী পারমাণবিক বোমার সমান। ফলে এর আওতার মধ্যে যা থাকবে তার সবকিছুকে বিনাশ করে দিতে পারবে। তবে শুক্রবার রাতে নাসা এক টুইট বার্তায় বলেছে, এমন আশংকা খুব কমই। তবে এই গ্রহাণুর আঘাত থেকে পৃথিবী আরও কমপক্ষে এক শতাব্দী নিরাপদ থাকবে। জ্যোতির্বিজ্ঞানীরা সুনির্দিষ্ট করে এ গ্রহাণুর চলাচলের বিষয়ে পূর্বাভাস দিতে পারছেন না। তারা বলতে পারছেন না যে, এ গ্রহাণুটি পৃথিবীর ১১ হাজার মাইলের মধ্যে চলে আসবে কিনা। এ সীমার মধ্যে চলে এলে তা হবে ক্ষতিকর। 

যুক্তরাজ্যের জেমস ওয়্যারকে কজন চেনেন? এমনিতে তিনি ইউটিউবে বিভিন্ন ধরনের ভিডিও পোস্ট করে পরিচিতি পেয়েছেন। তবে এবার বিশ্ব রেকর্ড গড়ে নিজেকে চেনানোর প্রচেষ্টা চালিয়েছেন তিনি। তৈরি করেছেন বিশ্বের দীর্ঘতম সেলফি স্টিক। তাঁর এই সেলফি স্টিক তৈরির প্রচেষ্টার খবর গণমাধ্যমে এলেও তিনি রেকর্ডটি গড়তে পারেননি। কারণ দীর্ঘতম এ সেলফি স্টিক দিয়ে ছবি তোলার সময় গিনেজ ওয়ার্ল্ড রেকর্ডসের কোনো ব্যক্তি সেখানে উপস্থিত ছিলেন না। এ ছাড়া এ স্টিক দিয়ে ঠিকমতো ছবিও তোলা যায় না।
বর্তমানে বিশ্বের সবচেয়ে দীর্ঘ সেলফি স্টিক তৈরির রেকর্ডটি হচ্ছে ‘জুল্যান্ডার ২’ ছবির পরিচালক বেন স্টিলারের। ছবিটির উদ্বোধনী প্রদর্শনীর সময় ৮ দশমিক ৫৬ মিটার দীর্ঘ সেলফি স্টিক প্রদর্শন করেন তিনি। বেন স্টিলারের ওই রেকর্ড ভাঙতে জেমস ওয়্যার ৬২ ডলার খরচ করে পাইপ ও টেপ ব্যবহার করে সেলফি স্টিক তৈরি করেন। তাঁর এই সেলফি স্টিকের দৈর্ঘ্য ছিল ৯ দশমিক ৫৭ মিটার।
লন্ডনের ট্রাফালগার স্কয়ারে দীর্ঘতম সেলফি স্টিক দিয়ে ছবি তোলার সময় একজন নিরাপত্তা কর্মীকে জেমস বলেন, ‘আমি প্রোফাইল পিকচার তোলার জন্য এটা তৈরি করেছি।’ কিন্তু নিরাপত্তার কথা ভেবে তাঁকে সেখান থেকে সরিয়ে দেন ওই নিরাপত্তা কর্মী।
সেলফি স্টিকের মাথায় একটি আইফোন বেঁধে ছবি তোলেন জেমস। ছবি প্রসঙ্গে প্রযুক্তি-বিষয়ক ওয়েবসাইট সিনেট জানিয়েছে, সেলফি নয়, ঝড়ে পড়ে যাওয়া কোনো ল্যাম্পপোস্টকে ঠেকানোর মরিয়া চেষ্টা করছেন বেন!
গিনেজ ওয়ার্ল্ড রেকর্ডসে নাম না উঠলেও জেমস কিন্তু ঠিকই তাঁর ইউটিউব ভক্তদের কাছে প্রচেষ্টার জন্য প্রশংসা পেয়েছেন।



অ্যান্ড্রয়েড ৬ দশমিক শূন্য বা মার্সম্যালো সংস্করণটি এখনো অধিকাংশ স্মার্টফোনে আসেনি, কিন্তু গুগলের তৈরি পরবর্তী অ্যান্ড্রয়েড অপারেটিং সিস্টেমের তথ্য প্রকাশ পেতে শুরু করেছে। অ্যান্ড্রয়েড ডেভেলপারস গ্রুপে গুগল কর্তৃপক্ষ স্ক্রিনশট পোস্ট করেছে যাতে অ্যান্ড্রয়েড এনের নতুন ফিচার সম্পর্কে জানানো হয়েছে।

স্ক্রিনশট অনুযায়ী, অ্যান্ড্রয়েডের নতুন সংস্করণের বাম দিকের কোনায় হ্যামবার্গার মেনু বাটন থাকবে। হ্যামবার্গার বাটন বিভিন্ন অ্যাপ্লিকেশনে নেভিগেশন টুল হিসেবে ব্যবহার করা হয়। এতে আরও বেশি মেনু অপশন ব্যবহারের সুযোগ হবে। 
অ্যান্ড্রয়েড মার্সম্যালো বা পুরোনো সংস্করণগুলোর সেটিংসে হ্যামবার্গার বাটনটি নেই। অ্যান্ড্রয়েড এনে এই ফিচারটি যুক্ত হলে বিভিন্ন সেটিংস ব্যবহারে সুবিধা পাবেন ব্যবহারকারী। 
এ বছরের মে মাসে গুগলের আই/ও সম্মেলনে অ্যান্ড্রয়েড এন সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য জানাবে গুগল। 
সাধারণত অ্যান্ড্রয়েড অপারেটিং সিস্টেমের নাম রাখার ক্ষেত্রে বিশেষ ঐতিহ্য অনুসরণ করে গুগল। এর আগে অ্যান্ড্রয়েডের বিভিন্ন সংস্করণের ক্ষেত্রে জিঞ্জারব্রেড, হানিকম্ব, আইসক্রিম স্যান্ডউইচ, জেলি বিন, কিটক্যাট, ললিপপ ও মার্সম্যালো নাম রেখেছে গুগল। মার্সম্যালো মূলত চিনির প্রলেপ দেওয়া ক্যান্ডি বিশেষ। ইংরেজি এ থেকে শুরু করে এম পর্যন্ত অক্ষর দিয়ে অ্যান্ড্রয়েড সংস্করণগুলোর নাম রয়েছে। এই ধারাবাহিকতায় নতুন সংস্করণটিকে এখনো অ্যান্ড্রয়েড এন বলা হচ্ছে। কিন্তু এন দিয়ে কী বোঝানো হবে? গুগলের প্রধান নির্বাহী সুন্দর পিচাই গত বছর ভারত সফরে এসে মজা করে বলেছিলেন, অ্যান্ড্রয়েডের পরবর্তী সংস্করণের নাম কী হবে তা ঠিক করতে অনলাইন জরিপ করা যেতে পারে!

ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেটের দাম কমিয়েছে বাংলাদেশ টেলিকমিউনিকেশন্স লিমিটেড (বিটিসিএল)।
রোববার হতে ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেটের বিভিন্ন প্যাকেজে প্রায় ৩৫ শতাংশ কমিয়ে নতুন মূল্য কার্যকর করছে সরকারি এই কোম্পানিটি।
বিটিসিএলের জনসংযোগ ও প্রকাশনা বিভাগের পরিচালক মীর মোহাম্মদ মোরশেদ জানান, বিটিসিএলের টেলিফোনে কথা বলা ও একইসাথে ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেট ব্যবহারের সুবিধাসহ বিকিউব (এডিএসএল) সার্ভিসের বিভিন্ন প্যাকেজে দাম কমছে। নতুন সব প্যাকেজেই থাকছে সীমাহীন ডাটা ব্যবহারের সুযোগ।
internet service providers
দাম কমানো প্যাকেজগুলোর মধ্যে রয়েছে, বিকিউব ইনফিনিটি ২৫৬ কেবিপিএসে পূর্বের মাসিক ৪৫০ টাকা হতে কমে ৩০০ টাকা, বিকিউব ইনফিনিটি ৫১২ কেবিপিএসে ৭৫০ হতে কমে ৫০০ টাকা, বিকিউব ইনফিনিটি ১ এমবিপিএসে ১১৫০ হতে কমে ৭০০ টাকা এবং বিকিউব ইনফিনিটি দেড় এমবিপিএসে ১৬০০ টাকা কমিয়ে এক হাজার টাকা।
প্যাকেজের এই মূল্যের সঙ্গে যুক্ত হবে ১৫ শতাংশ ভ্যাট।
দাম কমানোর ঘোষণায় বলা হয়, ডাটা লিমিট বা ভলিউম বেইজড পূর্বের সব প্যাকেজ বিলুপ্ত হবে। ফলে ৪ জিবি লিমিটের বিকিউব সুপারসেভার গ্রাহক বিকিউব ইনফিনিটি ২৫৬ প্যাকেজে, ১০জিবি লিমিটের বিকিউব স্ট্যান্ডার্ড গ্রাহক বিকিউব ইনফিনিটি ৫১২ প্যাকেজে এবং ২৫ জিবি লিমিটের বিকিউব প্রিমিয়াম গ্রাহক বিকিউব ইনফিনিটি এক এমবিপিএস প্যাকেজে সীমাহীন ডাটার সুবিধা পাবেন।

স্বেচ্ছা অবসরের অফারে বাংলালিংকের কর্মী ছাঁটাইয়ে বিশেষ স্কিমে ৪৬৮ জন কর্মী আবেদন করেছেন।
অপারেটরটির ‘ডিজিটাল বাংলালিংক’ হয়ে ওঠার পথে ঘোষিত ‘ভলেন্টারি সেপারেশন স্কিম’ (ভিএসএস) এ স্বেচ্ছায় চাকরি ছাড়তে হচ্ছে এসব কর্মীকে।
ইতোমধ্যে ভিএসএসের এই অফারে চাকরি ছাড়ার আবেদনের জন্য গত ২৯ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত সময় বেঁধে দিয়েছিল অপারেটরটি।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বাংলালিংক কর্মকর্তারা জানান, বেঁধে দেয়া সময়ের মধ্যে ৪৪০ জন কর্মী ভিএসএসে চাকরি ছাড়ার আবেদন করে। তবে এর পরও আরও ২৮ জন কর্মীর আবেদন জমা পড়েছে।
ফলে দেখা যাচ্ছে নির্ধারিত সময়ের পরও কেউ ভিএসএসে চাকরি ছাড়ার আবেদন করতে চাইলে তা গ্রহণ করা হচ্ছে।
যদিও কত সংখ্যক আবেদন জমা পড়েছে বা কত সংখ্যক আবেদন নেয়া হবে সে বিষয়ে কোনো তথ্য জানা নেই বলে জানিয়েছে বাংলালিংকের পিআর অ্যান্ড কমিউনিকেশন বিভাগ।
banglalink-office-TechShohor
গত ২৩ ফেব্রুয়ারি এক সংবাদ সম্মেলনে কত সংখ্যক কর্মী চাকরি হারাবেন সেই বিষয়ে জানতে চাইলে অপারেটরটির চিফ কর্মাশিয়াল অফিসার (সিসিও) শিহাব আহমাদ জানিয়েছিলেন, সংখ্যা এখনই ঠিক করা হয়নি। ডিজিটাল রূপান্তরের পরিকল্পনায় কোম্পানির প্রয়োজনই এই সংখ্যা চূড়ান্ত করে দেবে।
তখন তিনি বলেছিলেন ‘ভলেন্টারি সেপারেশন স্কিম’ নামে কর্মীদের এই স্বেচ্ছা অবসরের অফার যদি নির্ধারিত সময়ে কেউ না নেয়, সেক্ষেত্রে পরবর্তীতে চাকরি হারালে এই স্কিমের সুবিধা আর মিলবে না ।
উল্লেখিত ভিএসএস স্কিমে বলা হয়, এল ১৮ থেকে এল ২৭ এবং এল-ডিএস গ্রেডের স্থায়ী কর্মীদের ২৪ মাসের মূল বেতনের মিলবে।
এল-১৪ থেকে এল-১৭ গ্রেডের কর্মীদের মধ্যে যাদের গত ৩১ জানুয়ারি পর্যন্ত স্থায়ী চাকরি কমপক্ষে দুই বছর হয়েছে তাদের জন্য চার মাসের মূল বেতনের সঙ্গে চাকরির প্রতি বছরের হিসাবে চার মাসের মূল বেতনের অফার দেয়া হয়েছে। যা সব মিলিয়ে সর্বোচ্চ ২৮ মাসের হবে।
এছাড়া আর এল-৩ থেকে এল-১৩ পর্যন্ত গ্রেডের কর্মীদের মধ্যে যাদের গত ৩১ জানুয়ারি পর্যন্ত স্থায়ী চাকরি দুই বছর হয়েছে তাদের জন্য চার মাসের মূল বেতনের সঙ্গে চাকরির প্রতি বছরের হিসাবে তিন মাসের মূল বেতনের অফার রয়েছে। এটি সব মিলিয়ে সর্বোচ্চ ৩০ মাসের হবে।



একটি জ্যাকেটের ছবি অনলাইনে ভাইরাল হয়ে গিয়েছে। জ্যাকেটটি ঠিক কোন রংয়ের, তা নিয়েই বিভ্রান্তির সূত্রপাত। অনেকেই এ জ্যাকেটটিকে সাদা-সোনালি কিংবা কালো-নীল রংয়ের বলে দাবি করছেন। এক প্রতিবেদনে বিষয়টি জানিয়েছে ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস। বহু মানুষই সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে অনলাইনে জ্যাকেটটির রং নিয়ে বিভ্রান্ত হয়ে পড়েছেন। ক্যালিফোর্নিয়াভিত্তিক শিক্ষার্থী ম্যারিয়াম কাব্বা প্রথম মাইক্রোব্লগিং সাইট টুইটারে এ জ্যাকেটটির ছবি পোস্ট করেন। ছবিতে জ্যাকেটটির রং অনেকেই সাদা-নীল বলে শনাক্ত করেন। তবে বিষয়টি এখানেই শেষ হয়ে যায়নি। কারণ ম্যারিয়াম ছবিটি পোস্ট করার পর তা তার বন্ধু নিনা পেনজো টাম্বলারে পোস্ট করেন এবং জানান এটি তিনি কালো ও বাদামি দেখতে পাচ্ছেন। এরপর জ্যাকেটটির ছবি অনলাইনে ভাইরাল হয়ে যায় এবং সবাই এর রং বিষয়ে নিজস্ব মতামত প্রকাশ করতে থাকেন। টুইটারে ছবিটির নিচে অনেকেই তা সবুজ, বাদামি এমনকি লাল রংও আবিষ্কার করে। ফলে জ্যাকেটটির সঠিক রং ঠিক কী তা নিয়ে ব্যাপক বিভ্রান্তি শুরু হয়। তবে শেষ পর্যন্ত ম্যারিয়াম জানিয়েছেন, জ্যাকেটটির গাঢ় রংটিকে বলা হয় বেবি ব্লু। এ ছাড়া এতে সাদা শেডও রয়েছে।



নকিয়া, ব্ল্যাকবেরি ও অ্যান্ড্রয়েডের পুরোনো কিছু সংস্করণে আগামী বছর থেকে চলবে না মেসেজিং অ্যাপ্লিকেশন হোয়াটসঅ্যাপ। এই সেবাটি চালাতে হলে অ্যান্ড্রয়েড, আইওএস ও উইন্ডোজের হালনাগাদ সংস্করণযুক্ত স্মার্টফোন ব্যবহার করতে হবে।

সম্প্রতি সপ্তম বর্ষপূর্তি উপলক্ষে ১০০ কোটি ব্যবহারকারীর মাইলফলক ছোঁয়ার কথা জানায় হোয়াটসঅ্যাপ কর্তৃপক্ষ। ফেসবুকের প্রধান নির্বাহী মার্ক জাকারবার্গ হোয়াটসঅ্যাপের ১০০ কোটি ব্যবহারকারীর ঘোষণা দিয়ে বলেন, প্রতিদিন এ সেবাটি থেকে চার হাজার ২০০ কোটি বার্তা আদান-প্রদান করা হয়।

২০১৪ সালে এক হাজার ৯০০ কোটি মার্কিন ডলার ব্যয়ে হোয়াটসঅ্যাপকে কিনে নেয় ফেসবুক। যুক্তরাষ্ট্রের সিলিকন ভ্যালির ইতিহাসে এটিই ছিল সবচেয়ে বড় অধিগ্রহণের চুক্তি।

২০০৯ সালে বার্তা আদানপ্রদানের অ্যাপ হিসেবে যাত্রা শুরু করে হোয়াটসঅ্যাপ। এখন প্রতিটি মোবাইল প্ল্যাটফর্মে রয়েছে এই অ্যাপটি। স্কাইপ ও ভাইবারের সঙ্গে প্রতিযোগিতা করতে বিভিন্ন ফিচারও এনেছে হোয়াটসঅ্যাপ। তবে ২৬ ফেব্রুয়ারি হোয়াটসঅ্যাপ কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, ব্ল্যাকবেরি ও নকিয়ার মতো প্রতিষ্ঠানের তৈরি অপারেটিং সিস্টেমে হোয়াটসঅ্যাপের সেবা সরিয়ে ফেলা হবে। ব্ল্যাকবেরির সর্বশেষ অপারেটিং সিস্টেম ব্ল্যাকেবরি ১০ অপারেটিং সিস্টেমেও হোয়াটসঅ্যাপ থাকবে না। নকিয়ার সিমবিয়ান অপারেটিং সিস্টেমের এস ৪০, এস ৬০ স্মার্টফোনেও চলবে না হোয়াটসঅ্যাপ। অ্যান্ড্রয়েড ২.২ বা তার আগের সংস্করণ ও উইন্ডোজ ৭.১ অপারেটিং সিস্টেমেও হোয়াটসঅ্যাপ চালানো যাবে না।

হোয়াটসঅ্যাপ কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, তাদের সেবা পেতে হলে অ্যান্ড্রয়েড আইওএস বা উইন্ডোজ অপারেটিং সিস্টেমের হালানাগাদ সংস্করণ ব্যবহার করা লাগবে।

Rapoo

বাজারে এসেছে রাপুর ৬৬১০ মডেলের ডুয়েল মোড অপটিক্যাল মাউস।
মাউসটিতে রয়েছে ২.৪ গিগাহার্জ গতির ওয়্যারলেস সংযোগের পাশাপাশি ব্লুটুথ সংযোগ। ফলে ১০ মিটার দূর থেকেও কাজ করতে পারে এটি।
ইনভিজিবল ট্র্যাকিং ইঞ্জিন, ন্যানো রিসিভার, ১ হাজার ডিপিআই রেজ্যুলেশন ও অ্যাফিক্সড মেটাল স্ট্রিপ স্ক্রল হুইল সম্পন্ন মাউসটির রয়েছে ৯ মাস পর্যন্ত ব্যাটারি লাইফ।
২ বছর ওয়ারেন্টিসহ মাউসটির দাম ১৮৫০ টাকা।



বিশ্বের সেরা সমুদ্র সৈকত হিসেবে এক জরিপে উঠে এসেছে ক্যারিবীয় দ্বীপাঞ্চল গ্রেস বে’র নাম। বাহামা দ্বীপপুঞ্জের দক্ষিণপূর্বে আটলান্টিক মহাসাগরে অবস্থিত নিম্নভূমির ৪০টি প্রবাল দ্বীপ নিয়ে গঠিত তুর্কস ও কায়কোস দ্বীপমালার উত্তরপশ্চিমে কায়কোস দ্বীপের অংশ প্রোভিডেন্সিয়ালসের সমুদ্র সৈকত গ্রেস বে। এছাড়া একই জরিপে এশিয়ার সেরা সমুদ্র সৈকত হিসেবে উঠে এসেছে মিয়ানমারের নাপালি সৈকতের নাম, যেটি বিশ্বসেরার তালিকায় অষ্টম অবস্থানে রয়েছে।
ভ্রমণবিষয়ক মার্কিন ওয়েবসাইট সংস্থা ট্রিপঅ্যাডভাইজারের পরিচালনায় জরিপটি অনুষ্ঠিত হয়েছে। বিভিন্ন সমুদ্র সৈকত সম্পর্কে সংস্থাটির ওয়েবসাইটে পর্যটকদের নম্বর প্রদান ও পর্যালোচনার ভিত্তিতে জরিপের ফল প্রকাশ করা হয়েছে। ২০১৬ সালে ভ্রমণের জন্য বিশ্বের সেরা সমুদ্র সৈকতের সর্বশেষ এ তালিকা প্রকাশে সংস্থাটি এক বছর ধরে তথ্য সংগ্রহ করেছে।

ভারতীয় বার্তা সংস্থা পিটিআই’র খবরে বলা হয়েছে, ‘ট্রাভেলার্স চয়েজ অ্যাওয়ার্ড’- অর্থাৎ পর্যটকদের বাছাইকৃত সেরা সমুদ্র সৈকতের এ বছরের তালিকায় ঠাঁই পেয়েছে বিশ্বের ৩৪৩টি সমুদ্র সৈকত। এসব সমুদ্র সৈকতের মধ্যে বিশ্বের সেরা ১০’র তালিকা ছাড়াও এশিয়া, আফ্রিকা, অস্ট্রেলিয়া, ক্যারিবীয় অঞ্চল, মধ্য আমেরিকা, ইউরোপ, দক্ষিণ আমেরিকা, দক্ষিণ প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চল, যুক্তরাষ্ট্র এবং যুক্তরাজ্যের সেরা ১০ সমুদ্র সৈকত হিসেবেও আলাদা আলাদা তালিকা প্রকাশ করা হয়েছে।

সাত মাইল দীর্ঘ সমুদ্র সৈকত, ঝরঝরে সাদা বালু, টলটলে স্বচ্ছ পরিষ্কার পানি, আর দূর দিগন্তে যেদিকে চোখ যায়- কেবলই প্রকৃতির হাতছানিই বলে দেয় গ্রেস বে কেন সেরার সেরা নির্বাচিত হয়েছে!

এছাড়া বিশ্বের সেরা ১০ সমুদ্র সৈকতের মধ্যে পরেরগুলো হলো যথাক্রমে ব্রাজিলের বায়া দো সাঞ্চো, কিউবার প্লায়া প্যারাইজো, আফ্রিকার দেশ সেইশেলজের আঁসে লাজিও, ভানিজুয়েলার কায়ো দ্যে অ্যাগুলা, পুয়েত্রো রিকার ফ্ল্যামেঞ্চো, স্পেনের প্লায়া দ্যে সেস ইলিটেস, মিয়ানমারের নাপালি, হন্ডুরাসের ওয়েস্ট বে এবং ফিলিপাইনের নাকপান।

এশিয়ার সেরা ১০ সমুদ্র সৈকতের মধ্যে ভারত ও থাইল্যান্ডের তিনটি করে সমুদ্র সৈকত নির্বাচিত হলেও একটিও বিশ্বের সেরা ১০’র তালিকায় নেই। নাপালির পর এশিয়ার সেরা সমুদ্র সৈকতগুলো হলো যথাক্রমে ফিলিপাইনের নাকপান (দশম বিশ্বসেরা সৈকত), থাইল্যান্ডের কাটা নোই, ভারতের গোয়ার অ্যাগোন্ডা, ফিলিপাইনের ইয়াপাক, থাইল্যান্ডের নাই হার্ন ও সানরাইজ, গোয়ার পালোলেম, কম্বোডিয়ার ওট্রিজ এবং ভারতীয় আন্দামান দ্বীপপুঞ্জের হ্যাভেলক দ্বীপের রাধানগর সৈকত।

তালিকায় নেই বিশ্বের দীর্ঘতম সমুদ্র সৈকত বাংলাদেশের কক্সবাজারের নাম।



এক্সপেরিয়া এক্স সিরিজের তিনটি নতুন মডেল দেখাল টেক জায়ান্ট সনি। এ বছর বার্সেলোনায় অনুষ্ঠিত মোবাইল ওয়ার্ল্ড কংগ্রেস-এ দেখানো হয় এক্সপেরিয়া এক্স, এক্সএ এবং এক্স পারফরমেন্স। এদের মধ্যে শক্তিমত্তায় শীর্ষে রয়েছে শেষেরটি। নামেই যার পরিচয়, এক্সপেরিয়া এক্স পারফরমেন্স। এর দাম এখনো বলা হয়নি। আছে কোয়ালকমের সর্বসাম্প্রতিক স্ন্যাপড্রাগন ৮২০ প্রসেসর। এর অক্টা-কোর চিপটিকে গতিময়তা দিচ্ছে ৩ জিবি র‍্যাম। আগের দুটোর স্পেসিফিকেশনে কিছুটা পিছিয়ে। একটির ডুয়াল-কোর এবং অপরটির হেক্সা-কোর প্রসেসর। এক্স পারফরমেন্সকে পানিনিরোধী করা হয়েছে। এটা নিয়ে সহজেই সুইমিং পুলে ডুব দেওয়া যাবে। বাচ্চাদের সঙ্গে জলকেলি করা যাবে নিশ্চিন্তে। এ স্মার্টফোনের রয়েছে ৫ ইঞ্চি ফুল এইচডি ডিসপ্লে, পেছনের ক্যামেরাটি ২৩ মেগাপিক্সেল। সামনের ক্যামেরাটি ১৩ মেগাপিক্সেল। অ্যান্ড্রয়েড মার্শমেলোতে চলবে এ ফোন। ১৬ জিবি অভ্যন্তরীণ স্টোরেজ ছাড়াও বাড়তি মাইক্রোএসডি কার্ড স্লট রয়েছে। এক্স সিরিজের একটিরও দাম যেমন বলা হয়নি, তেমনি জানা যায়নি কবে নাগাদ বাজারে আসবে। যদি আগেভাগে এশিয়ার বাজারেই ছাড়া হবে। আমেরিকা বা অস্ট্রেলিয়ার বাজারে আরো পরে আসবে বলে আভাস পাওয়া গেছে।


এতদিন প্রচলিত ছিল যে কৃষ্ণ গহ্বর শুধুই অন্ধকারে ঠাসা। তবে সে ধারনাও পাল্টেছে। সম্প্রতি আবারো দূর মহাকাশে Black Hole বা কৃষ্ণ গহ্বর থেকে আলো নির্গত হওয়ার প্রমাণ মিলেছে। নাসার ওয়েবসাইটের খবর, দূরবীক্ষণ যান চন্দ্র এক্স রে অবজারভেটরি এমন বিরল দৃশ্যের সন্ধান পেয়েছে।
নাসার বিজ্ঞানীরা বলছেন ২শ’ ৭০ কোটি বছর আগে সেখানে এমন মহাবিস্ফোরণ ঘটেছে। বর্তমান মহাবিশ্বের বয়সের যা এক পঞ্চমাংশ। মহাকাশের যে অংশ থেকে এই বিস্ফোরণের আলো নির্গত হতে দেখা গেছে, তা ০৭২৭+৪০৯ নামে পরিচিত। দূরত্ব হবে অন্তত ৩ লক্ষ আলোকবর্ষ।

গবেষণা সংস্থা আইএসএএস’র বিজ্ঞানী ওরোরা সিমিওনেস্কু পর্যবেক্ষক দলটির নেতৃত্ব দিচ্ছেন। তিনি জানান, মহাবিশ্বের এই বিরল ঘটনাটিকে এক্সরে’র দূরবীক্ষণের কারণে অন্তত দেড়শ’ গুণ বড় করে দেখা গেছে। মনে হয়েছে যেন মহাকাশে খুব কাছেই এটি ঘটেছে।

পর্যবেক্ষক দল জানায়, গহ্বরটি থেকে তীব্র গতিতে ইলেকট্রন নির্গত হতে দেখা গেছে। cosmic microwave background radiation বা মহাশূন্যে তরঙ্গরূপে সঞ্চারিত বিকিরণের মধ্যে এগুলো ছড়িয়ে পরছে। প্রসারণের ফলে মহাকাশে বিদ্যমান মাইক্রোওয়েভ প্রটোনের সাথে ইলেকট্রনের সংঘর্ষ ঘটছে। এর ফলে যে শক্তির বিস্ফোরণ ঘটছে চন্দ্রের চোখে সেটিও ধরা পড়েছে।

মহাকাশের বি৩ ০৭২৭+৪০৯ অঞ্চলের এই আবিষ্কার নাসার বিজ্ঞানীদের কাছে তাৎপর্যপূর্ণ কেননা এমন ঘটনা প্রতিনিয়ত ঘটলেও রেডিও সংকেতে তা সহজে ধরা পড়ে না। যেমনটা চন্দ্র এবার সহজেই শনাক্ত করতে পেরেছে।

২ মার্চ থেকে দেশে যাত্রা শুরু করবে কৃত্রিম উপগ্রহের (স্যাটেলাইট) মাধ্যমে স্বাস্থ্যসেবা দেওয়ার ব্যবস্থা ‘স্যাটমেড’। মূলত উন্নয়নশীল দেশগুলোর জনস্বাস্থ্য, বিশেষ করে দুর্গম ও বিচ্ছিন্ন অঞ্চলের মানুষের স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করতেই তিনটি ভাসমান হাসপাতালে মেরিটাইম ভিস্যাট স্থাপন করবে ফ্রেন্ডশিপ ভাসমান হাসপাতাল। এগুলো হলো লাইফবয় ফ্রেন্ডশিপ হাসপাতাল, এমিরেটস ফ্রেন্ডশিপ হাসপাতাল এবং রংধনু ফ্রেন্ডশিপ হাসপাতাল। গতকাল শনিবার রাজধানীর ডেইলি স্টার ভবনে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন ফ্রেন্ডশিপের নির্বাহী পরিচালক রুনা খান। স্কয়ার ইনফরমেটিকস লিমিটেডের কারিগরি সহযোগিতায় স্যাটমেড চালু করছে ফ্রেন্ডশিপ ও সোসাইটি ইউরোপিয়ান ডি স্যাটেলাইট (এসইএস)।
সংবাদ সম্মেলনে আরও বক্তব্য দেন এসইএসের গভর্নমেন্ট সলিউশনস ডিপ্লয়মেন্টের জ্যেষ্ঠ বিশ্লেষক মারিয়া মাতিও ইবারা। এ সময় তিনি বলেন, বাংলাদেশের প্রত্যন্ত চর এলাকার প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর কাছে স্বাস্থ্যসেবা সহজে পৌঁছে দিতে ই-হেলথ ফ্রেন্ডশিপকে আরও কার্যকর করবে।
সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, স্যাটমেড চিকিৎসকদের সঙ্গে যোগাযোগ করার পাশাপাশি চিকিৎসা বিজ্ঞানের দক্ষতা বিনিময় করতে পারে এবং মেডিকেল ই-লার্নিং ও ই-টিচিংয়ের জন্য সরঞ্জাম সমর্থন করে। এটি উন্মুক্ত, সহজ ও সাশ্রয়ী সমাধান, যা কৃত্রিম উপগ্রহভিত্তিক এসইএসের ই-কার্যক্রমের আধুনিক উদ্ভাবন।
আগামী ১ থেকে ৫ মার্চ মেরিটাইম ভিস্যাট স্থাপন করা হবে।


ভবিষ্যতে হুয়াওয়ের স্মার্টফোনে থাকবে লেইকার তৈরি ক্যামেরা প্রযুক্তি। চীনের প্রযুক্তিপণ্য নির্মাতা হুয়াওয়ে ও জার্মানির ক্যামেরা প্রযুক্তি নির্মাতা লেইকা সম্প্রতি যৌথ অংশীদারি চুক্তি সই করেছে। চুক্তি অনুযায়ী, দীর্ঘ মেয়াদে সম্পর্ক টেনে নিতে দুপক্ষ সম্মত হয়েছে। 
হুয়াওয়ের স্মার্টফোনে থাকবে লেইকার ক্যামেরা প্রযুক্তিএক সংবাদ বিবৃতিতে দুটি প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, পরস্পরের সহযোগিতার ভিত্তিতে এই দুটি প্রতিষ্ঠান স্মার্টফোনের ফটোগ্রাফির বিষয়টি তাঁরা নতুন করে নির্ধারণ করতে পারবে। 
চুক্তির বিষয়টি বিস্তারিতভাবে প্রকাশ না করলেও তারা গবেষণা, উন্নয়ন, নকশা, প্রকৌশল ও ব্যবহারকারীর অভিজ্ঞতার বিষয়গুলো নিয়ে একসঙ্গে কাজ করার ঘোষণা দিয়েছে। 
হুয়াওয়ে কনজুমার বিজনেস গ্রুপের প্রধান নির্বাহী রিচার্ড ইয়ু লেইকার প্রশংসা করে বলেন, ফটোগ্রাফির ক্ষেত্রে কিংবদন্তি লেইকা। আমরা মনে করি অন্য কোনো প্রতিষ্ঠান এই শিল্পে এত বৈপ্লবিক পরিবর্তন আনতে পারেনি। 
এর আগে প্যানাসনিকের সঙ্গে চুক্তি ছিল লেইকার। প্যানাসনিকের প্রথম অ্যান্ড্রয়েড ফোন লুমিক্স ডিএমসি-সিএম১ ফোনটিতে ২০ মেগাপিক্সেল সেন্সর ও দুই দশমিক আট অ্যাপারচারের লেইকার তৈরি লেন্স ব্যবহার করা হয়েছিল।


​ফেসবুকের লাইভ ভিডিও নিয়ে মার্ক জাকারবার্গ খুব উচ্ছ্বসিতফেসবুকের নতুন সুবিধা ‘লাইভ ভিডিও’। নতুন এই সুবিধাটি গত কয়েক মাস ধরে অ্যাপলের আইওএস প্ল্যাটফর্মের জন্য ছাড়া হয়েছে। এবার অ্যান্ড্রয়েড অপারেটিং সিস্টেমের মোবাইল ফোনগুলোর জন্যও সুবিধাটি চালু করা হয়েছে। শুক্রবার জার্মানির বার্লিনে এক প্রশ্নোত্তর পর্বে এই তথ্য জানিয়েছেন ফেসবুকের সহপ্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মার্ক জাকারবার্গ। তিনি বলেন, ‘যে বিষয়গুলো নিয়ে আমি সবচেয়ে বেশি উচ্ছ্বসিত, লাইভ ভিডিও সেসবের একটি।’
জাকারবার্গ বলেছেন, ‘আমরা এমন এক জগতে প্রবেশ করতে চলেছি, যেখানে ভিডিও হবে আমাদের প্রচারিত মূল বিষয়বস্তু। ভিডিওর মাধ্যমেই আমরা আমাদের চিন্তাভাবনা, ভালো লাগা-মন্দ লাগার বিষয়গুলো গোটা দুনিয়াকে জানাব। অবশ্যই, এর মধ্য দিয়ে ফেসবুকের নতুন এক যুগ শুরু হতে চলেছে।’
জাকারবার্গ জানান, টেলিভিশন নেটওয়ার্কের মতো করে নিজের ভাবনাগুলো সরাসরি সম্প্রচার করার এই সুবিধা সবার হাতে হাতে পৌঁছে দেওয়ার এই মাধ্যমটি হবে ‘খুবই শক্তিশালী’। এই সুবিধাটি চালু করার মধ্য দিয়ে মূলত আরেক সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম টুইটারের পেরিস্কোপ ও মিরক্যাটকেই অনুকরণ করল ফেসবুক।
শুক্রবারের ঘণ্টাব্যাপী প্রশ্নোত্তর পর্বে জাকারবার্গ আরও কিছু বিষয় নিয়ে কথা বলেছেন। অপ্রীতিকর মন্তব্যের কোনো জায়গা ফেসবুকে নেই—এমনটা জানিয়ে জাকারবার্গ বলেন, তাঁর প্রতিষ্ঠান পুরোপুরি নিখুঁত নয়, কিন্তু অপ্রীতিকর মন্তব্য খুঁজে বের করে শনাক্ত করতে ফেসবুক বদ্ধপরিকর।
জাকারবার্গ স্বীকার করে নিয়েছেন, ব্যক্তিগত নিরাপত্তার বিষয়টি আরও গুরুত্বের সঙ্গে নেওয়া দরকার। ফেসবুক তাদের গ্রাহকদের পূর্ণ স্বাধীনতা দিতে চায় এবং সরকার ও হ্যাকারদের হাত থেকেও নিরাপদ রাখতে চায়।
ফেসবুকের না হয়ে, টুইটারের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা হলে কী হতো? এমন প্রশ্নের জবাবে মৃদু হেসে জাকারবার্গ দর্শকদের স্মরণ করিয়ে দেন, ফেসবুক ইনস্টাগ্রামের মাধ্যমে একই সঙ্গে তারকাদের এবং সাধারণের অপরিমার্জিত বস্তু শেয়ার করার বড় সুযোগ করে দিয়েছে। আর ইনস্টাগ্রাম নিজেই টুইটারের চেয়ে বড়।
আয়রন ম্যান ছবির জার্ভিসের মতো একটা কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তানির্ভর চরিত্র তৈরি করার লক্ষ্য আছে জাকারবার্গের। যদিও অনেকে এটি নিয়ে চিন্তিত, কিন্তু এটা তাঁকে ভাবাচ্ছে না মোটেও। জাকারবার্গের মতে, নিজের মনের ভাব প্রকাশের মাধ্যম হিসেবে ভিডিওর পরের ধাপটা হচ্ছে ভার্চ্যুয়াল রিয়েলিটি। তবে লাইকের স্থানে নানা ধরনের আবেগের অভিব্যক্তির প্রচলন দেখে ধারণা করা যায়, ‘ডিজলাইক’ বাটনও মনে হয় আসছে অচিরেই। বিজ্ঞাপনের মানের প্রতি গুরুত্ব দেওয়ার বিষয়টিও তাঁর মাথায় আছে।


সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে আপনি একটি বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠানে বা অন্যকোনো বিষয়ে লাইক দেওয়ার অর্থ শুধু আপনার একটি পছন্দের প্রতিফলনই নয়, একটি লাইকের মাধ্যমে আরও বহু বিষয় পরিবর্তিত হয়। বহু প্রতিষ্ঠান তাদের বাণিজ্যিক স্বার্থ হাসিল করে একটি লাইকের মাধ্যমে। এ লেখায় রয়েছে তেমন কয়েকটি বিষয়। এক প্রতিবেদনে বিষয়টি জানিয়েছে ফক্স নিউজ। 
১. লাইক-ফার্মিং ফেসবুকে লাইক বিষয়ে বাণিজ্যিক কার্যক্রমের অন্যতম হলো লাইক-ফার্মিং। আপনি আপনার বন্ধুর পোস্টে লাইক দিলেও এর মাধ্যমে তা তৃতীয় পক্ষের বাণিজ্যে পরিণত হতে পারে। এ বিষয়টি বোঝার জন্য বুঝে নিতে হবে ফেসবুক কিভাবে কাজ করে। ফেসবুকে আপনার মতো যত বেশি ব্যবহারকারী লাইক দেবে ততই তা অন্যদের নিউজ ফিডে ওপরের দিকে থাকবে। আর এসব লাইক ও শেয়ারের মাধ্যমে প্রতিষ্ঠানগুলো বুঝতে পারে আপনার প্রিয় বিষয় সম্পর্কে। এতে পরবর্তীতে তাদের বিজ্ঞাপন প্রচারের আগে আপনার পছন্দনীয় বিষয়গুলো বাছাই করে নেওয়া হয়। এ ছাড়া রয়েছে ফিশিং স্ক্যাম। নানাভাবে আপনার ব্যক্তিগত তথ্য সংগ্রহ করার চেষ্টা করে অনলাইনের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান। এ লাইক ও শেয়ার থেকে তথ্যগুলো সহজেই তারা সংগ্রহ করতে পারে। 

২. স্ক্যাম এ ছাড়া ফেসবুকের বিভিন্ন পোস্টে থাকতে পারে ক্ষতিকর সফটওয়্যার। এগুলোতে লাইক দিলে তা আপনার ব্যক্তিগত গোপনীয়তা লঙ্ঘন করতে পারে। তবে সবচেয়ে ক্ষতিকর বিষয় হতে পারে তা যখন স্ক্যামে ব্যবহৃত হয়। এ ক্ষেত্রে অনেক প্রতিষ্ঠান রয়েছে যারা কোনো একটি আপাতদৃষ্টিতে ভালো লিংক ফেসবুকে পোস্ট করে তাতে লাইক ও শেয়ারের জন্য অপেক্ষা করে। এটি সে স্ক্যামের প্রাথমিক ধাপ। যখন সে পোস্টটি কিছু মানুষের দৃষ্টি আকর্ষণ করে এবং নিউজ ফিডের ওপরের দিকে চলে আসে তখন তা পুনরায় এডিট করে প্রতিষ্ঠানটি। দ্বিতীয় ধাপে তাতে ভাইরাস বা ক্ষতিকর প্রোগ্রাম ঢুকিয়ে দেওয়া হয়। তাই পোস্টটিতে পরবর্তীতে যারা লাইক দেয় তারা ক্ষতির সম্মুখীন হওয়ার আশঙ্কা থাকে। 

৩. যে ধরনের পোস্টগুলো ক্ষতির কারণ হয় কিছু পোস্ট রয়েছে যেগুলো বহু মানুষের লাইকের জন্য আকুতি থাকে। বিপদগ্রস্ত প্রাণীকে বাঁচাতে লাইক দিন কিংবা অনুরূপ কোনো বিষয় যা বহু মানুষের দৃষ্টি আকর্ষণ করে। এ ধরনের পোস্টগুলোতে যেমন বহু মানুষের লাইক থাকে তেমন তাদের অনেকেই এ কারণে ক্ষতির সম্মুখীন হয়। তাই যেকোনো পোস্টে লাইক দেওয়ার আগে এর পেছনে কোনো বাণিজ্যিক উদ্দেশ্য রয়েছে কি না, জেনে নিন। 

৪. আরও কিছু বিপজ্জনক পোস্ট শুধু আবেগগত পোস্টই নয়, আরও কিছু পোস্ট রয়েছে, যা আপনার লাইক থেকে ব্যবসা করতে পারে। এসব পোস্টের মধ্যে রয়েছে নতুন মডেলের স্মার্টফোন, দারুণ কোনো ছবি কিংবা আধুনিক গ্যাজেট, অংকের ধাঁধা, যা লাইক আশা করছে। এসব পোস্টে লাইক দিলে তা আপনাকে একই ধরনের ফাঁদে ফেলতে পারে। 

৫. লাইক-ফার্মিং থেকে বাঁচার উপায় লাইক-ফার্মিং থেকে বাঁচার সহজ উপায় হলো আপনার লাইক ও শেয়ার বিষয়ে সতর্ক হোন। অপরিচিত লিংক থেকে লাইক দেওয়ার আগে একটু ভেবে দেখুন। আপনার কোনো বন্ধু অপরিচিত লিংকে লাইক দিলে তাকেও সতর্ক করুন। কোনো একটি পোস্ট ঠিক কোন স্থান থেকে এসেছে তা অনুসন্ধান করুন। তার মানে অবশ্য এই নয় যে, আপনি যেকোনো লাইক বা শেয়ার বাদ দেবেন। এ ক্ষেত্রে বন্ধু-বান্ধব বা পরিচিত ও প্রতিষ্ঠিত প্রতিষ্ঠান কিংবা ভালো কোনো বিষয়ের পোস্ট লাইক-শেয়ার করা যেতে পারে। তবে কোনো অনিরাপদ উৎস থেকে এটি এসেছে কি না, জেনে নিন। 


ভারতের আলোচিত ২৫১ রুপির মুঠোফোন ‘ফ্রিডম ২৫১’ বিক্রির পরিকল্পনাকে প্রতারণা বলে আখ্যায়িত করেছেন দেশটির কংগ্রেস দলীয় সাংসদ প্রমোদ তিওয়ারি। শুক্রবার রাজ্যসভায় বিজেপি নেতাদের উপস্থিতিতে ফোনটির বিষয়ে তীব্র আপত্তি জানিয়ে তিনি একে ‘শতাব্দীর সবচেয়ে বড় কেলেঙ্কারি’ বলে মন্তব্য করেন।
তিওয়ারি অভিযোগ করে বলেন, ’আমি সুনির্দিষ্ট অভিযোগ করছি। এ সরকার বড় একটি কেলেঙ্কারি করছে। বিজেপির আমলে শতাব্দীর সবচেয়ে বড় কেলেঙ্কারির ঘটনাটি ঘটবে। এ পণ্যটি উদ্বোধনের সময় বিজেপি নেতারা উপস্থিত ছিলেন। কেলেঙ্কারির সঙ্গে তারা যুক্ত। তারা মেক ইন ইন্ডিয়া কথা বলে মেক ইন ফ্রড করছে।’
২৫১ রুপিতে মানুষের হাতে স্মার্টফোন তুলে দেয়ার বিষয়ে সন্দেহ প্রকাশ করেন কংগ্রেসের এই সাংসদ। তিনি দাবি করেন, ইতিমধ্যে ছয় কোটি ফরমায়েশ পেয়েছে এই ফোন কোম্পানিটি। ২৫১ রুপি করে হলেও শত শত কোটি টাকা তারা সংগ্রহ করেছে। তিওয়ারি বলেন, এই ফোনটি তৈরির খরচ এক হাজার ৪০০ রুপি হবে বলে এর পরিচালক স্বীকার করলেও তারা কীভাবে মাত্র ২৫১ রুপিতে তা বিক্রি করবে, তা আসলেই আশ্চর্যের বিষয়।
তিনি প্রশ্ন তোলেন, ২৫১ রুপিতে যদি স্মার্টফোন পাওয়া যায়, তবে অন্য প্রতিষ্ঠানগুলো কেন ২০ থেকে ৩০ হাজার রুপিতে ফোন বিক্রি করছে। হয় এতে কোনো গলদ আছে বা ওই ফোন কোম্পানিগুলোর কোনো গলদ আছে। সরকারকে এর উত্তর দিতে হবে। 
ভারতের নয়ডাভিত্তিক উদ্যোক্তা প্রতিষ্ঠান রিংগিং বেল ফ্রিডম ২৫১ নামে ২৫১ রুপি দামের ফোন তৈরির ঘোষণা দেয়, যাতে সরকারের সমর্থন আছে বলে তারা দাবি করে।
উল্লেখ্য, ভারতের মোবাইল ফোন প্রস্তুতকারী কোম্পানি রিঙ্গিং বেলস কোম্পানি ২৫১ রুপিতে স্মার্টফোন ফ্রিডম-২৫১ তৈরি করেছে। কয়েকদিন আগেই ব্যাপক প্রচারণার মধ্য দিয়ে এটি বাজারে ছাড়া হয়। সস্তা এই ফোন কিনতে কোম্পানির ওয়েবসাইটে সেকেন্ডে ছয় লাখ আবেদন জমা পড়তে শুরু করলে নিবন্ধন সাময়িকভাবে। 


ডিজাইন টু পভারফেক্ট : গ্যালাক্সি স্যামসাং এস৭ এজ-এ রয়েছে স্যামসাংয়ের অনন্য কার্ভড এজ ডিজাইনের ডিসপ্লে যাতে রয়েছে অ্যামোলেড স্ক্রিন টেকনোলজি। এর নতুন ফিচার হচ্ছে অলওয়েজ অন ডিসপ্লে (এওডি) যা, একজন ব্যবহারকারীকে ফোন স্লিপিং মোড কিংবা কম পাওয়ার মোডেও কিছু তথ্য দেবে। এই সুবিধাটির মাধ্যমে অ্যামোলেড টেকনোলজির অনন্য সুবিধাটি ব্যবহার করা হয় যা শুধু প্রয়োজনীয় পিক্সেল ব্যবহার করে।

ক্যামেরা : এই নতুন স্যামসাং ফ্ল্যাগশিপ ডিভাইসে রয়েছে ইমেজ সেন্সর যাতে, ব্যবহার হয়েছে উচ্চ রেটের ১.৪ ইউএম পিক্সেল, এফ/১.৭ অ্যাপারচার যা কম আলোতে উজ্জ্বল ছবি তুলতে সক্ষম। এ ক্যামেরা ৫৬ শতাংশ বেশি আলো নিশ্চিত করে যার মাধ্যমে পরিচ্ছন্ন এবং উচ্চমানসম্পন্ন ছবি তোলা যায়। এস৭ এজ ব্যবহারকারী পাবে প্রফেশনাল ফটোগ্রাফির অভিজ্ঞতা।

এর ক্যামেরার ইমেজ সেন্সরের প্রতিটি পিক্সেলে আছে দুটি ফটোডায়োড যা খুব দ্রুততর গতিতে ছবি তুলতে সক্ষম। এমনকি নিজের চোখের কম আলোর গতিশীল বস্তুকে শনাক্ত করতে পারে। শুধু তাই নয়, এটির আশ্চর্যজনক ফিচার হচ্ছে এর মোশন প্যানারোমা এবং হাইপার ল্যাপস যা সেরা মোবাইল ফটোগ্রাফি নিশ্চিত করে।

কার্যক্ষতা : নতুন কাস্টম প্রসেসর, শক্তিশালী জিপিইউ এবং ৪ জিবি র‌্যামের সমন্বয়ে, রয়েছে ৩২ জিবি ইন্টারনাল মেমরি। আর ২০০ জিবি পর্যন্ত মাইক্রো এসডি কার্ড ব্যবহারের সুবিধা তো থাকছেই। এটির ৩৬০০ অ্যাম্পিয়ার ব্যাটারি সারা দিন ব্যাকআপ নিশ্চিত করবে। এরপরও এটির দ্রুত চার্জিং প্রযুক্তি আপনার ফোনকে খুব স্বল্প সময়ে পূর্ণ চাজ করার সুযোগ দেবে।

গেমিং রিডিফাইন্ড : পৃথিবীতে প্রথমবারের মতো কোনো স্মার্টফোনে ভলকান এপিআই সাপোর্ট করে যা ৮০ শতাংশ পর্যন্ত সিপিইউর ওপর চাপ কমায়, ৬৭ শতাংশ পর্যন্ত জিপিইউর কার্যক্ষমতা বাড়ায়। তাই আপনি এস৭ এজ-এ গেম খেলে কম্পিউটারের মতো অভিজ্ঞতা পাবেন।

গেমিং অভিজ্ঞতাকে আরও বাড়াতে থাকছে গেম লঞ্চার, যেখানে আপনি গেম সিটিং সমন্বয় করতে পারবেন। এ ছাড়া গেম খেলার সময় গেমপ্লে রেকর্ড, স্ক্রিনশট এমনকি প্রয়োজনে গেমকে মিনিমাইজও করতে পারবেন।

লাইভ অন এজ : এর এজ-এ ৯টি প্যানেল রাখা হয়েছে যাতে ১০টি করে অ্যাপস কিংবা ফোল্ডার রাখার সুবিধা রয়েছে। আপনি এটির স্ক্রিন এজকে কাস্টমাইজ বা পজিশন করতে পারবেন। এস৭ এজ-এর আরেকটি চমৎকার ফিচার হচ্ছে এটির টাস্ক এজ প্যানেলে আপনার প্রয়োজনীয় কাজগুলোকে অ্যাসাইন করতে পারবেন সহজেই।

বাইর ও ভেতর সুরক্ষিত : এই স্মার্টফোনে রয়েছে আইপি৬৮ সার্টিফিকেশন যা অফিসিয়ালি দাবি করা হয়েছে যে, ১.৫ মিটার পানির নিচে ৩০ মিনিট পর্যন্ত থাকতে সক্ষম। রয়েছে দ্রুততম ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেন্সর।

এ ছাড়া স্যামসাং KNOX হ্যাকার এবং ম্যালওয়ারের বিরুদ্ধে সুরক্ষা দেয় যা, নিয়মিত আপডেট হয়। স্যামসাং গ্যালাক্সি এস৭ এজ KNOX এনেবলড অ্যাপটি ব্যবহারকারীর স্পর্শকাতর তথ্য আলাদাভাবে এনক্রিপ্ট করে রাখার মাধ্যমে বাড়তি সুরক্ষা প্রদান করে।

ডিসকভার দ্যা গ্যালাক্সি : একটু ভাবুন, আপনার ৫.৫ ইঞ্চির ফোনটি হয়ে যাবে পারসোনাল থিয়েটার। স্যামসাং গিয়ার ভিআরকে ধন্যবাদ যে, সারা বিশ্ব থেকে আপনি এখন উপভোগ করতে পারবেন ৩৬০ ডিগ্রি ভিডিও। এমনকি আপনি নিতে পারবেন শ্বাসরুদ্ধকর এবং রোমাঞ্চকর সব অভিজ্ঞতার। এগুলো ছাড়াও থাকছে আলট্রা হাই কোয়ালিটি অডিও প্রযুক্তিসমৃদ্ধ লেভেল ইউ প্রো বেস্ট হ্যান্ড ফ্রি এবং ট্রু ২৪ বিট ডিজিটাল অডিও অভিজ্ঞতা।



এলইডি টিভি বিক্রিতে রেকর্ড প্রবৃদ্ধি অর্জন করছে দেশের শীর্ষস্থাণীয় ব্র্যান্ড ওয়ালটন। ২০১৪ সালের নভেম্বর থেকে ২০১৫ সালের জানুয়ারি পর্যন্ত ৩ মাসে যে পরিমাণ বিক্রি হয়েছিল তার তুলনায় গত বছরের নভেম্বর থেকে চলতি বছরের জানুয়ারি পর্যন্ত তিন মাসে প্রায় ২১৮ শতাংশ প্রবৃদ্ধি হয়েছে। চাহিদা ও বিক্রি ব্যাপক বৃদ্ধি পাওয়ায় বেড়েছে উৎপাদন। ফলে কমেছে টিভির ওভারহেড উৎপাদন খরচ। এরই প্রেক্ষিতে এলইডি টিভির দাম আবারো কমাল ওয়ালটন। ওয়ালটন সূত্রে জানা গেছে, পণ্যমান বৃদ্ধি এবং দাম কমানোর ফলে সম্প্রতি তাদের এলইডি টিভি বিক্রি ব্যাপক হারে বেড়েছে। ক্রমবর্ধমান গ্রাহক চাহিদা মেটাতে নিজস্ব কারখানায় বাড়ানো হয়েছে উৎপাদন। ফলে প্রতিটি পণ্যের ওভারহেড কস্ট অনেকাংশে কমেছে। উৎপাদন প্রক্রিয়ায় যুক্ত হয়েছে সর্বাধুনিক প্রযুক্তি। কঠোর মাননিয়ন্ত্রণের ফলে বেড়েছে গ্রাহকের আস্থা। সার্বিক বিষয়টি বিবেচনায় নিয়ে গ্রাহকদের স্বার্থে ওয়ালটন কর্তৃপক্ষ এলইডি টিভি এবং সিআরটি টিভির দাম আরেক দফা কমিয়েছে। জানা গেছে, ২০১৪ সালের তুলনায় ২০১৫ সালে এলইডি টিভি বিক্রিতে ৬৬ শতাংশ প্রবৃদ্ধি হয়েছে। কিন্তু ২০১৫ সালের শেষের দিকে ওয়ালটন কারখানায় সর্বাধুনিক প্রযুক্তি সংযোজন এবং উচ্চমান নিশ্চিত করতে ব্যাপক বিনিয়োগ করা হয়। ফলে ২০১৪ সালের শেষ ২ মাসের তুলনায় ২০১৫ সালের শেষ দুই মাসে টিভি বিক্রির আনুপাতিক হার প্রায় তিনগুণ বেড়ে যায়। গত বছরের জানুয়ারি মাসের সঙ্গে তুলনা করলে চলতি বছরের জানুয়ারিতে বিক্রি বেড়েছে প্রায় ২১০ শতাংশ। আবার ২০১৫ সালের ডিসেম্বর এবং চলতি বছরের জানুয়ারিতে মাসিক প্রবৃদ্ধি হয়েছে যথাক্রমে প্রায় ৪০.২১ ও ৩৫ শতাংশ। ওয়ালটন কর্তৃপক্ষের প্রত্যাশা আগামী দিনগুলোতে ওয়ালটন এলইডি টিভি বিক্রির এই প্রবৃদ্ধি অব্যাহত থাকবে। উল্লেখ্য, নিজস্ব কারখানায় পৃথক ম্যানুফ্যাকচারিং লাইন স্থাপনের মাধ্যমে তৈরি হচ্ছে প্লাস্টিক কেবিনেট, স্পিকার, রিমোট কন্ট্রোল ইউনিট, মাদার বোর্ড, ইলেকট্রিক পাওয়ার ক্যাবল এবং এলইডি টিভির প্যানেল। ফলে, সম্ভব হয়েছে নিজস্ব তত্ত্বাবধানে সর্বোচ্চ মান নিয়ন্ত্রণ। এলইড টিভি উৎপাদনে অত্যাধুনিক প্রযুক্তির ব্যবহার, বৈচিত্র্যময় স্মার্ট ডিজাইন, সাশ্রয়ী মূল্য, আন্তর্জাতিক মান বজায়, ছয় মাসের রিপ্লেসমেন্ট গ্যারান্টি, দুই বছরের সার্ভিস ওয়ারেন্টি এবং সর্বোপরি দেশব্যাপী বিস্তৃত সার্ভিস নেটওয়ার্ক থাকায় ওয়ালটন ব্র্যান্ডের এলইডি টিভিতে গ্রাহকদের আস্থা ও সন্তুষ্টি ব্যাপক বেড়েছে। আজ বৃহস্পতিবার (২৫ ফ্রেব্রুয়ারি) থেকে সারা দেশে বিভিন্ন মডেলের এলইডি টিভির দাম কমিয়েছে ওয়ালটন। দাম কমানোর ফলে গ্রাহকরা এখন ওয়ালটন ব্র্যান্ডের ১৯ ইঞ্চি এলইডি টিভি পাচ্ছেন মাত্র ১২,১৫০ টাকায়। ২৪ ইঞ্চি এলইডি টিভির দাম এখন ১৫,৬০০ টাকা। এ ছাড়া দেশীয় ব্র্যান্ডটির ২৮ ও ৩২ ইঞ্চি এলইডি টিভি আগের চেয়ে আরো কম দামে যথাক্রমে ২১,৫০০ ও ২৭,৭০০ টাকায় পাওয়া যাচ্ছে। গ্রাহকরা মাত্র ৮,৭০০ টাকায় পাচ্ছেন ওয়ালটনের ১৪ ইঞ্চি সিআরটি টিভি। বর্তমানে সিআরটি, এলইডি ও অ্যান্ড্রয়েড স্মার্ট টিভিসহ মোট ৭১টি মডেলের টেলিভিশন বিক্রয় করছে ওয়ালটন। এর মধ্যে রয়েছে ৩৯টি মডেলের এলইডি এবং তিনটি মডেলের (৪৩, ৪৯ ও ৫৫ ইঞ্চির) অ্যান্ড্রয়েড স্মার্ট টিভি। নতুন ও আধুনিক প্রযুক্তির সমন্বয়ে তৈরি এই টিভিগুলোতে রয়েছে ইউএসবি পোর্ট, ভিজিএ পোর্ট, এইচডিএমআই, ওয়াইপিবিআর, এভি, ইন্টারনেট ব্রাউজিং ও ডাউনলোড, ওয়াইফাই, ব্রডব্যান্ড কানেকশন, ইন্টারনেটে গেমস এবং ভিডিও ও ছবি দেখাসহ আরো অনেক সুবিধা। ওয়ালটন টেলিভিশন বিপণন বিভাগের প্রধান মো. আব্দুল বারী বলেন, বাস্তবের মতো ঝকঝকে ছবি, জোড়ারো শব্দ এবং চোখের ক্ষতি হয় না এমন প্রযুক্তি আসায় ক্রেতাদের কাছে দ্রুত জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে এলইডি (লাইট ইমটিং ডায়োড)। কিন্তু আমদানিকৃত এলইডি টেলিভিশনের দাম সাধারণ ক্রেতাদের ক্রয়ক্ষমতার বাইরে থাকায় এতদিন ইচ্ছে করলেও তারা কিনতে পারতেন না। তাই, সকল শ্রেণির মানুষের কাছে প্রযুক্তির সুফল পৌঁছে দিতে ওয়ালটন নিজস্ব কারখানায় উৎপাদিত উচ্চগুণগতমানের এলইডি টিভির দাম আরেক দফা কমাল। এর আগে গত জানুয়ারি মাসে টিভির দাম কমিয়েছিল ওয়ালটন। ওয়ালটনের সোর্সি ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের সিনিয়র সহকারি পরিচালক প্রকৌশলী মোস্তফা নাহিদ হোসেন জানান, গুণগতমান নিশ্চিত করতে ওয়ালটন এলইডি টিভিতে ব্যবহার করা হচ্ছে আইপিএস (ইন প্ল্যান সুইচিং), এডিএস (অ্যাডভান্স সুপার ডাইমেনশন সুইচ) এবং এইচএডিএস (হাই অ্যাডভান্স সুপার ডাইমেনশন সুইচ)) প্রযুক্তির প্যানেল। এর ফলে দর্শকরা ওয়াইড ভিউয়িং অ্যাঙ্গেল এবং হাই কন্ট্রাস্ট এর পিকচার দেখতে পাবেন। এ ছাড়াও, আইএসও ক্লাস সেভেন ডাস্ট ফ্রি ক্লিন রুম এর সর্বোচ্চ সতর্কতা ও গুণগতমান রক্ষা করে তৈরি করা হচ্ছে এলইডি টিভি প্যানেল। ছবি ও শব্দের উচ্চমান নিশ্চিতকরণে ডাইনামিক নয়েজ রিডাকশন, সর্বোচ্চ ফ্রেম রেট, ডলবি ডিজিটাল সাউন্ড সিস্টেম সমৃদ্ধ নিজস্ব ডিজাইনের উন্নত প্রযুক্তির মাদারবোর্ড ব্যবহার করা হচ্ছে। ওয়ালটন গ্রুপের অপারেটিভ ডিরেক্টর উদয় হাকিম জানান, ইতিমধ্যে তারা এলইডি টেলিভিশনের উৎপাদন খরচ বহুলাংশে কমাতে সক্ষম হয়েছেন। সাশ্রয়ী মূল্যে এলইডি টেলিভিশন সরবরাহ করায় অনেকে হয়তো এর মান নিয়ে সন্দেহ প্রকাশ করতে পারেন। এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, টেলিভিশনের মানের ক্ষেত্রে জিরো টলারেন্স নীতি অনুসরণ করছে ওয়ালটন।


খাওয়া ছাড়া পৃথিবীতে আর কি আছে?  আমাদের সারাদিন কোথাও না কোথাও খেতে হয়। কিন্তু খাবারকি শুধু খেতেই হয়? এর স্বাদ এর পরিবেশ এর পরিবেশন প্রতিটা বিষয় মিলেই কিন্তু খাবার করে তোলে আহারযোগ্য ও আকর্ষণীয়। খাবার আমাদের শুরু পেট ভরাবে তা কিন্তু নয়। খাবারের কিছু সৌন্দর্য্য আছে, আছে রূপচর্চা। আর তাই খাবার ও খাবার পরিবেশনের কাজটা করা চাই ঠিক মত। আর সেই প্রতিযোগীতায় ছুটছে সারা বিশ্ব।
রাস্তা-ঘাটে বেরুলেই আমরা কত রকমের কত রেস্টুরেন্ট হোটেল খাবার দোকান দেখি। কোথাও খুব চড়া দাম এবং অনন্য মনোরম পরিবেশ। আবার কোথাও কোনরকম খাবার খেতে পারলেই হয়। কিন্তু কখনো ভেবে দেখেছেন বিশ্ব জুড়ে কত হাজারো রেস্টুরেন্ট আছে? আর কেমন সেগুলির খাবার, কেমন স্বাদ, কেমন দরদাম আর কেমন তাদের পরিবেশ।
এমন অনেক রেস্টুরেন্ট আছে যাদের শুধুমাত্র পরিবেশন ও স্বজ্জার জন্যই কোটি কোটি টাকা ব্যয় হয়েছে। আর সাথে খাবারের নমুনা তো আছেই! পৃথিবী জুড়ে এমনি অনেকগুলো রেস্টুরেন্ট ছড়িয়ে ছিটিয়ে আছে যা কিনা সবার কাছে সমাদৃত ও আলোচনার শীর্ষে শুধুমাত্র তাদের মনোরম পরিবেশে খাবার পরিবেশনের জন্য। আর তাই মানুষ লক্ষ লক্ষ টাকা খরচ করে শুরুমাত্র এক বেলা খেতে যাচ্ছে সেসব রেস্টুরেন্টে।
আসুন জেনে নেই বিশ্বের সেরা ১০ টি সবথেকে ব্যয়বহুল রেস্টুরেন্টের ১ম পাঁচটির খবরাখবর –
বিশ্বসেরা ১০ সর্ব ব্যয়বহুল রেস্টুরেন্ট (১ম ধাপ)
১০ম- ‘ওয়াসার্নগ্রাট গস্তাদ’ 
তালিকার শেষে অর্থাৎ ১০ম স্থানে আছে ঈগল স্কি ক্লাব ‘ওয়াসার্নগ্রাট গস্তাদ’ যেটি কিনা সুইটজারল্যান্ডে অবস্থিত। পাহাড়ের উপরে অবস্থিত এই পাহাড়চূড়া রেস্টুরেন্ট টি বাকি্দের তুলনায় সবথেকে কম ব্যয়বহুল বলা চলে।
বিশ্বসেরা ১০ সর্ব ব্যয়বহুল রেস্টুরেন্ট (১ম ধাপ)
৯ম- ‘ইল টিট্রো’
মাকাও এ অবস্থিত ইল টিট্রো হচ্ছে দক্ষিণ পূর্ব এশিয়ার সবথেকে আলোচিত ব্যয়বহুল রেস্টুরেন্ট।  পূর্ব ইতালিয় খাবারের প্রতি এইখানে বেশি গুরুত্ব দেয়া হয়েছে। পাশের লেকের মনোরম দৃশ্য খাবারের অন্যরুম স্বাদ জুড়ে দেয়।
৮ম- ‘ ফ্রেঞ্চ লন্ড্রি’ 
নামের সার্থকতা রাখতেই এই রেস্টুরেন্ট ফ্রেঞ্চ খাবার পরিবেশন করে এর কাস্টমারদের। যগদ্বিখ্যাত সেফ থমাস কেলার  এই রেস্টুরেন্টের বাবুর্চি।   
বিশ্বসেরা ১০ সর্ব ব্যয়বহুল রেস্টুরেন্ট (১ম ধাপ)
৭ম- ‘ইথা আন্ডারসি রেস্টুরেন্ট’ 
নাম শুনেই চমকে উঠবেন অনেকেই। জ্বি, হ্যাঁ এই রেস্টুরেন্টটি মালদ্বিপের সাগরের তলে আছে। ইথা শব্দের স্থানীয় অর্থ মুক্তার মা, সেই অনুযায়ী এই রেস্টুরেন্টের নামকরণটি এমন।  এটি পৃথিবীর প্রথম পানির নিচের রেস্টুরেন্ট। সাগরের তলদেশের ৫ মিটারের নিচে এটি অবস্থিত আছে।
বিশ্বসেরা ১০ সর্ব ব্যয়বহুল রেস্টুরেন্ট (১ম ধাপ)
৬ষ্ঠ- ‘ এল বুল্লি’ 
স্পেনের কোস্টা ব্রাভাতে এই এল বুল্লি আছে। সেরা ১০ বয়্যবহুল রেস্টুরেন্টের মধ্যে ৬ষ্ট নম্বর তালিকায় আছে এটি। মাঝে কিছু সময়ের জন্য এটি রেস্টুরেন্টটি বন্ধ ছিল। ২০১৪ থেকে এটি আবার চালু করা হয়েছে।


বাজারে ল্যাপটপের অভাব নেই। কিন্তু ভালো মানের একটি ল্যাপটপ কেনার ক্ষেত্রে বেশ কয়েকটি বিষয় মাথায় রাখতে হয়। কারণ, কেনার সময় এসব বিষয় মাথায় না থাকলে পরে বিড়ম্বনায় পড়তে পারেন। গচ্চা যেতে পারে মোটা অঙ্কের টাকাও। তাই নতুন ল্যাপটপ কেনার সময় কোন কোন বিষয় মাথায় রাখতে হবে, তা আজ তুলে ধরা হলো ।
আগে জানুন কী চান
কেনার সময় সবার আগে জানতে হবে, আপনার কেমন ল্যাপটপ দরকার। যদিও মনের মতো ল্যাপটপের জন্য বাজেটের চেয়ে বেশি অর্থ লাগতে পারে। এ ক্ষেত্রে সাধ ও আর সাধ্যের সমন্বয় ঘটানো সবচেয়ে জরুরি।
আকার
বহনযোগ্য যন্ত্রের আকার কিংবা ওজন একটা বড় বিষয়। যদি ল্যাপটপ নিয়ে দৌড়-ঝাঁপ করতে হয়, তবে বড় আকারের ল্যাপটপ না কেনাই ভালো। ১১ থেকে ১৩ ইঞ্চি পর্দার নোটবুক বা ল্যাপটপ দিয়েই দিব্যি কাজ চালানো যায়।
বাজেট যখন কম
কম বাজেটেও কাজ চালানোর মতো ল্যাপটপ বাজারে অনেক আছে। এ ক্ষেত্রে বিশেষজ্ঞরা ক্রমে জনপ্রিয় হয়ে ওঠা ক্রোমবুক কেনার পরামর্শ দেন। এতে সবই আছে। শুধু উচ্চমানের ল্যাপটপের মতো ভারী কাজগুলো করা যাবে না। তবে ১০৮০ পি. রেজুলেশনের পর্দা এবং অন্যান্য স্পেসিফিকেশন যা পাবেন, তা দিয়ে মোটামুটি কাজ চালিয়ে নেওয়া যাবে।
উইন্ডোজ বা ম্যাক ওএস
দুটিই দারুণ জনপ্রিয় অপারেটিং সিস্টেম। যদি কাউকে প্রশ্ন করেন, কোনটি ভালো? তাহলে তিনি দ্বিধাগ্রস্ত হয়ে পড়বেন। এ প্রশ্ন না করে নিজের পছন্দেরটা কিনে ফেলুন।
স্পেসিফিকেশন
এটা নিয়েই বেশি চিন্তিত থাকি আমরা। অবশ্য এর দ্বারাই ল্যাপটপের গতি ও পারফরম্যান্স নির্ধারিত হয়। তাই এ ক্ষেত্রে বেশ সাবধান থাকাটা জরুরি। এ ক্ষেত্রে যে বিষয়গুলো মাথায় রাখতে হবে—
১. ডিসপ্লে রেজুলেশন
পর্দা ভালো মানের না হলে বিপদ। একে এড়িয়ে যেতে পারবেন না। যদি ১০৮০ পিক্সেল কিংবা ফুল এইচডি বেছে নিতে পারেন, তবে তো কথাই নেই। কম বাজেটের মধ্যে অন্যান্য রেজুলেশনের পর্দাও নিতে পারেন।
২. ডিসপ্লে প্যানেল
আইপিএস বা টিএন প্যানেল বেছে নিতে পারেন। কম বাজেটের মধ্যে টিএন প্যানেল পেয়ে যাবেন। এ ছাড়া আইপিএস প্যানেল বেশ জনপ্রিয়। আবার যদি টাচ ডিসপ্লে নিতে পারেন তবে বেশ উপভোগ করতে পারবেন।
৩. সিপিইউ
সেন্ট্রাল প্রসেসিং ইউনিট ল্যাপটপের মূল মস্তিষ্ক। এটা ভালো হলেই সব ভালো। সবচেয়ে ভালো পছন্দ হবে ইন্টেল কোর আই-৫ নিতে পারলে। তবে কোর আই-৩ দিয়েও দিব্যি কাজ চলবে। আর সেরাটা চাইলে কোর আই-৭ নিতে পারেন।
৪. র‌্যাম
সবচেয়ে কমের মধ্যে পাবেন ২ জিবি র‌্যাম। ৪ জিবি নিতে পারলে ভালো। যদি ৮ জিবি র‌্যামের ল্যাপটপ নিতে পারেন, তবে আপনি কাজ করে অনেক স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করবেন। যদি ভারী গেম খেলতে চান, তাহলে ১৬ জিবি নেওয়া ভালো।
৫. স্টোরেজ
এটা নির্ভর করে আপনি ল্যাপটপে কী রাখবেন এর ওপর। যদি এসএসডি বিল্ট ডিভাইস নিতে পারেন, তবে গতি ভালো পাবেন। কমপক্ষে ২৫৬ জিবির স্টোরেজ পাবেন। এটাই অনেক ক্ষেত্রে যথেষ্ট। চাইলে ১ টেরাবাইটও নিতে পারেন।
৬. পোর্ট
ল্যাপটপ ক্রমে পাতলা হচ্ছে মানেই যে পোর্ট কম হবে, তা নয়। আবার অনেক ল্যাপটপেই চাহিদা অনুযায়ী পোর্টের ঘাটতি থাকতে পারে। অন্তত ইউএসবি ‘৩.০’ এবং ইএচডিএমআই থাকাটা প্রয়োজন।



বছরের আর এগারোটা মাসের চাইতে ফেব্রুয়ারী যেন একটু আলাদা। আর এর কারণ চার বছর পরপর ঘুরে ফিরে নতুন করে আসা ছোট্ট একটা দিন। ফেব্রুয়ারীর ২৯ তম দিন! যাকে মানুষ নাম দিয়েছে অধিবর্ষ। অনেকটা আগ্রহ আর উত্তেজনা নিয়ে ফেব্রুয়ারীর ২৯ তারিখের জন্যে অপেক্ষা করলেও আমাদের বেশিরভাগের জ্ঞান কিন্তু এটুকুতেই সীমাবদ্ধ। কিন্তু আপনি কি জানেন যে খুব গড়পরতা এই কয়েকটি তথ্য ছাড়াও ফেব্রুয়ারীর এই ২৯ তারিখ, অর্থ্যাত্ লিপ ইয়ার বা অধিবর্ষকে ঘিরে রয়েছে ছোটখাটো অনেক মজার ব্যাপার? চলুন আসতে যাওয়া অধিবর্ষের দিনটিকে সামনে রেখে জেনে নিই সেগুলোকে।

১. শুভ-অশুভের দিন

ফেব্রুয়ারীর ২৯ তারিখকে অনেকেই শুভদিন বলে মনে করে থাকেন। বিশেষ করে জ্যোতিষীরা তো সবসময়েই বেশ আনন্দের সাথে স্বাগতম জানান এ দিনটিকে। এই দিনে জন্মগ্রহণকারী শিশুদের ভেতরে অন্যরকম এক শক্তি আর মেধা থাকে বলে মনে করেন তারা। তবে এটা কেবল কিছু মানুষেরই ভাবনা। পৃথিবীর বেশিরভাগ মানুষই এই দিনটিকে অশুভ দিন বলে ভাবতে ভালোবাসেন। আর তাই এ দিনে জন্মগ্রহনকারীদেরকে অপয়া তো মনে করেনই তারা, বিয়ে সংক্রান্ত যেকোন কাজেও এ দিনটিকে গোনার বাইরে রাখেন। এই যেমন গ্রীসের কথাই ধরুন না! কখনোই লিপ ইয়ারে অর্থাৎ ফেব্রুয়ারীর ২৯ তারিখে বিয়ে করতে চায় না তারা।

২. রোগভরা দিন

অধিবর্ষ সম্পর্কে অনেক কিছুই হয়তো আপনি জানেন, কিন্তু এটা কি জানেন যে, ফেব্রুয়ারীর ২৯ তারিখকে বিশ্বের যতরকম দূর্লভ রোগ-ব্যাধি আছে সেটার প্রতিকী দিবস বলে পালন করা হয়?

৩. হাতমোজা উপহার

২৯ ফেব্রুয়ারীর আরেকটি মজার ব্যাপার হচ্ছে এই দিনের সাথে জড়িত একটি প্রথা। মূলত ডাচ আর গ্রীকদের ভেতরেই বেশি চালু রয়েছে এটি। আর প্রথাটি হচ্ছে বিয়ের প্রস্তাব দেওয়া। হবে ছেলেরা নয়, বরং মেয়েরাই এ দিনে প্রস্তাব দেয়। ছেলে হ্যাঁ বললে তো হয়েই গেল, তবে উত্তরটা যদি হয় না তাহলে বেশ ঝামেলা পোহাতে হয় ছেলেকে। মোট ১২ টি স্কার্ট বা হাতমোজা দিতে হয় ক্ষমতাপ্রার্থনাস্বরূপ (টেলিগ্রাফ)। মূলত, বলা হয় যে নিজের হাতের বিয়ের আংটি পরার আঙ্গুলকে ঢাকতেই এই হাতমোজা দিতে হয় ছেলেদেরকে।

৪. অধিবর্ষের নির্মাতা

আমরা নাহয় এখন ফেব্রুয়ারীর ২৯ তারিখকে লিপ ইয়ার বলে পালন করি। কিন্তু সবসময়েই কি দিনপঞ্জিকায় একটা দিন কমই পেয়ে এসেছে ফেব্রুয়ারী? না! আদতে এর আগে ৩৫৫ দিনে এক বছর পালন করত রোমানরা। তবে এতে খানিকটা ঝামেলা হয়ে যাওয়ায় ৪৫ বিসিতে জুলিয়াস সীজার এই অদল বদল টি করেন আর বছরকে নিয়ে যান ৩৬৫ দিনে। তবে এরপরে ব্যাপারটাকে একেবারে বর্তমান সময়ের রূপ দেন অগাস্টাস। জুলিয়াস যেমন নিজের নামে জুলাইয়ের নামকরণ করেছিলেন, অগাস্টাসও নিজের নামানুসারে অগাস্ট মাসকে বেছে নেন। কিন্তু অগাস্ট মাসে তখন মাত্র ৩০ দিন ছিল। যেটা কিনা জুলাইয়ের চাইতে ১ দিন কম হয়ে যায়। নিজের মানকে জুলিয়া সীজারের বরাবর করে তুলে ধরতেই শেষ অব্দি ফেব্রুয়ারীর কাছ থেকে একটা দিন নিয়ে নেন অগাস্টাস সেসময়। তৈরী হয় লিপ ইয়ার!

৫. বংশগত জন্মদিন

কেউ একজন লিপ ইয়ারে জন্ম নিতেই পারেন, তাই বলে তার বাবা, এমনকি তারো বাবা! ঠিক এমনটাই একের পর এক পরিবারের ধারা বজায় রেখে আয়ারল্যান্ড ও ইউকের কেয়োগ পরিবার নিজেদের বংশধরদের জন্ম দিয়ে চলেছেন লিপ ইয়ারে। শুরুটা পিটার এ্যান্থনী কেয়োগের মাধ্যমে হয়েছিল। ১৯৪০ সালের ২৯ ফেব্রুয়ারী জন্মান তিনি। তার সন্তান পিটার এরিকের জন্ম হয় ১৯৬৪ আলের লিপ ইয়ারে। এমনকি তার নাতি বেথানি ওয়েলদের জন্মও হয় ১৯৯৬ সালের একই দিনে ( মিরর )!

লিখেছেন
সাদিয়া ইলাম বৃষ্টি

রাষ্ট্রায়ত্ত সোনালী ব্যাংক লিমিটেডে ৩ পদে মোট ২,২৭৬ জনকে নিয়োগ দেয়া হচ্ছে।
এতে অফিসার ক্যাশ পদে ৭৫৫ জন, অফিসার পদে ৮২০ জন ও সিনিয়র অফিসার পদে ৭০১ জন নিয়োগ করা হবে।
ইতোমধ্যেই নিয়োগের প্যানেল প্রস্তুতির জন্য বাংলাদেশ ব্যাংক তাদের ওয়েবসাইটে ভিন্ন ভিন্ন তিনটি বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে জানিয়েছে। বিজ্ঞপ্তিগুলো https://www.bb.org.bd/aboutus/career/jobopportunity.php এই লিংক থেকে ডাউনলোড করা যাবে।
বাংলাদেশ ব্যাংকের মহাব্যবস্থাপক ও ব্যাংকার্স সিলেকশন কমিটির সদস্যসচিব লাইলা বিলকিস আরা জানান, এই নিয়োগের বিজ্ঞপ্তিগুলো ধাপে ধাপে বিভিন্ন পত্রিকায় প্রকাশ করা হবে।
সিনিয়র অফিসার পদটিতে আবেদন ইতিমধ্যে অনলাইনে শুরু হয়ে গেছে। এই পদটিতে আবেদন করা যাবে আগামী ১৬ মার্চ পর্যন্ত।
অন্যদিকে অফিসার ক্যাশ পদের প্রার্থীদের আবেদন প্রক্রিয়া আগামী ১০ মার্চ থেকে শুরু হয়ে চলবে ৩০ মার্চ পর্যন্ত। আর অফিসার পদের প্রার্থীরা আগামী ৩ মার্চ থেকে ২৩ মার্চ পর্যন্ত অনলাইনে আবেদন করতে পারবেন।
আবেদনের যোগ্যতা: এই নিয়োগে সব পদের প্রার্থীদের শিক্ষাগত যোগ্যতা কোনো স্বীকৃত বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতক (সম্মান) বা স্নাতকোত্তর



সম্প্রতি প্রতিক্রিয়া জানানোর জন্য ছয়টি নতুন ‘ইমোজি’ উন্মুক্ত করেছে ফেসবুক। গত বছরের অক্টোবরে মাসে মানুষের আবেগ প্রকাশের সাতটি প্রতিক্রিয়া জানানোর বাটন পরীক্ষামূলকভাবে চালু করেছিল ফেসবুক। একটি বাটন বাদ দিয়ে ২৪ ফেব্রুয়ারি ‘রিঅ্যাকশনস’ নামের প্রতিক্রিয়া জানানোর ফিচার বিশ্বব্যাপী চালু করেছে ফেসবুক কর্তৃপক্ষ। প্রথমে সাতটি দেশে পরীক্ষামূলকভাবে এ বাটন চালু হয়েছিল। 
ফেসবুক কর্তৃপক্ষের ভাষ্য, প্রতিক্রিয়া জানানোর বাটনগুলো এলেও লাইক বাটন থাকছে। এর পাশাপাশি ফেসবুক পোস্টে ছয়টি আবেগের প্রতিক্রিয়া জানানো যাবে। সম্প্রতি একটি ভিডিও ও ব্লগ পোস্টে নতুন বাটন সম্পর্কে তথ্য প্রকাশ করেছে ফেসবুক। ফেসবুকের ভাষ্য, লাইকের মতোই প্রতিক্রিয়া জানানোর যেকোনো বাটন ব্যবহার করা যাবে।
যেভাবে ব্যবহার করবেন:
ফেসবুক কর্তৃপক্ষের ভাষ্য, এ বাটন ব্যবহার করা খুব সহজ। আইওএস, অ্যান্ড্রয়েড ও ডেস্কটপ ব্যবহারকারীরা এ বাটন ব্যবহারের সুযোগ পাবেন। যাঁরা ব্যবহার করতে পারছেন না, শিগগিরই তাঁদের ফেসবুক প্রোফাইলে এ সুবিধা যুক্ত করে দেবে ফেসবুক। ফেসবুক কর্তৃপক্ষ বলছে, বিশ্বজুড়ে সব ফেসবুক ব্যবহারকারীর কাছে এ বাটন পৌঁছাতে আরও কয়েক দিন লাগতে পারে। একটি পোস্টে একাধিক প্রতিক্রিয়া জানানোর সুযোগ থাকছে না। অর্থাৎ লাইক দিলে আর কিছু জানানোর সুযোগ নেই। তবে কোনো প্রতিক্রিয়া জানানোর পর তা ফিরিয়ে নিয়ে নতুন প্রতিক্রিয়া জানানো যাবে।
ভারত বাংলাদেশে এই অপশন এখনো তেমন জনপ্রিয় না হলেও ইতোমধ্যেই স্পেন, আয়ারল্যান্ড, চিলি, ফিলিপাইনসহ বেশকিছু দেশে ব্যাপকভাবে এটি ব্যবহার হচ্ছে। ফেসবুক কর্তৃপক্ষ জানাচ্ছে, মানুষ সবচেয়ে বেশি পছন্দ করেছে ‘লাভ’ অপশনটি।
আইওএসচালিত বা অ্যান্ড্রয়েডচালিত ডিভাইসে ফেসবুকে প্রতিক্রিয়া জানাতে পোস্টের নিচে থাকা লাইক বাটনটিতে কিছুক্ষণ চাপ দিয়ে ধরতে হবে। একটি পপআপ ড্রয়ারে ছয়টি ‘ইমোজি’ আসবে। যেকোনো একটি চেপে সে প্রতিক্রিয়াটি পোস্ট করা যাবে। ডেস্কটপের ক্ষেত্রে লাইকের ওপর মাউস নাড়ালে পপআপটি চলে আসবে।

নতুন গ্রাফিকস ট্যাবলেটশখের বশে কিংবা পেশাদারি আঁকাআঁকিতে আগ্রহীদের জন্য বাজারে এসেছে ওয়াকম ব্র্যান্ডের গ্রাফিকস ট্যাবলেট। এ ট্যাবলেট দিয়ে কম্পিউটারের সঙ্গে যুক্ত করে যেকোনো আঁকাআঁকি বা নকশার কাজ করা যাবে। বর্তমানে সিটিএল-৪৭১ /কে০-এফ ও সিটিএল-৬৭১ /কে০-এফ মডেলের গ্রাফিকস ট্যাবলেট বাজারে পাওয়া যাচ্ছে। মাল্টিমিডিয়া কিংডমের বাজারে আনা এ ট্যাবলেটের দাম যথাক্রমে ১০ হাজার ৫০০ টাকা ও ১৭ হাজার ৫০০ টাকা।


Image result for z 5170 laptop
মাল্টিমিডিয়া সিরিজের জেড ৫১৭০ মডেলের ল্যাপটপ বাজারে এনেছে গ্লোবাল ব্র্যান্ড প্রাইভেট লিমিটেড। ল্যাপটপটিতে ইন্টেল রিয়েল সেন্স থ্রিডি প্রযুক্তির ওয়েবক্যাম, পঞ্চম প্রজন্মের ইনটেল কোর আই ৭ প্রসেসর, ১ টেরাবাইট হার্ডডিস্ক, ৮ গিগাবাইট সলিড স্টেট হাইব্রিড ডিস্ক, ৮ গিগাবাইট ডিডিআর ৩ র্যা ম, ৪ গিগাবাইট এএমডি রেডিওন আর ৯ গ্রাফিকস কার্ড ও ১৫ দশমিক ৬ ইঞ্চি পর্দা আছে। দাম ৮২ হাজার ৫০০ টাকা।
Blogger দ্বারা পরিচালিত.