এইচপি এনভি ১৩ : কম দামে এত ভালো ল্যাপটপ এর আগে আসেনি

 
উইন্ডোজ ল্যাপটপের ক্ষেত্রে বড় ধরনের পরিবর্তন ঘটেছে। গুণগতমানসম্পন্ন পণ্য ক্রয়ক্ষমতার মধ্যে চলে এসেছে। এইচপি এনভি ১৩ এ জাতীয় পণ্যের প্রথম সংস্করণ। দাম মাত্র ৮০০ ডলার!
তাই বলে স্পেসিফিকেশনে কমতি নেই। ১৫-ওয়াটের ২.৩ গিগাহার্জ ইন্টেল কোর আই৫ প্রসেসর, ৮ জিবি মেমোরি, ১২৮ জিবি সলিড-স্টেট স্টোরেজ আর ১০৮০পি পর্দা নিয়ে এর ওজন ২.৮ পাউন্ড। ল্যাপটপটির দেহ মাত্র ১২.৯ মিলিমিটার পাতলা।
এ ল্যাপটপটি নিয়ে পরীক্ষা চালিয়েছেন সি নেটের বিশেষজ্ঞরা। তাদের মতে, ভালো মানের একটি ল্যাপটপ এত কম দামে এর আগে বাজারে আসেনি। তাই বলে উচ্চমানসম্পন্ন অন্যান্য দামী ল্যাপটপের সঙ্গে এর তুলনা করা যাবে না। তবে এটি ঘরে আনলে যে কারো মনঃপুত হবে। এতে আছে ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেন্সর। পাসওয়ার্ড ছাড়াই লক করে রাখতে পারবেন। এখন পর্যন্ত বিশেষজ্ঞরা এটি ব্যবহারেু কোনো অসুবিধার সম্মুখীন হননি। এর টাচ প্যাডের ক্ষেত্রেও একই বিষয় প্রযোজ্য।
এনভি ১৩-তে ব্যাং অ্যান্ড ওলুফসেন ব্র্যান্ডের স্পিকার দেওয়া হয়েছে। এর শব্দ দারুণ। এ ছাড়া এর ডিজাইনটি অনেকটা অ্যাপলের ল্যাপটপের মতোই মনে হয়। যদি ছোটখাটো যথেষ্ট পরিবর্তন চোখে পড়বে।
ইন্টেলের সর্বসাম্প্রতিক ১৫-ওয়াট কোর আই৫ প্রসেসর এতে রয়েছে। প্রতিদিনের গতানুগতিক কাজের জন্যে যে গতি দরকার, তার চেয়ে অনেক বেশি গতিসম্পন্ন এটি। তবে চার্জ দেওয়া অবস্থায় এর গতি কিছুটা ধীর হয়ে যায়।
এতে আছে ফুল সাইজ এইচডিএমআই পোর্ট, ফুল সাইজ এসডি কার্ড রিডার এবং ফুল সাইজ ইউএসবি ৩.০ পোর্টে। আরো আছে ৩.৫ এমএম হেডসেট জ্যাক।
এই ল্যাপটপটির প্রাথমিক সমস্যা হলো দুর্বল ব্যাটারি। পরীক্ষায় ব্যাটারিটি ৭ ঘণ্টার বেশি টেকেনি। তবে বেশ কয়েকদিন সারাদিনের ব্যবহারে ৪ ঘণ্টাতেই ব্যাটারি শেষ হয়ে গেছে।
সব মিলিয়ে এর পারফরমেন্স দারুণ। একবার ব্যাটারি চার্জ দিলেই পুরোটা চার্জ হয়ে যাবে। সকালে ফুল চার্জ নিয়ে বেরোলে হয়তো বিকার বা সন্ধ্যায় আবারো চার্জ দেওয়ার প্রয়োজন হতে পারে।