নারীর পর্দাই যখন ফ্যাশন


ধর্মীয় অনুশাসনের প্রতি শ্রদ্ধাবশত নারীদের হিজাবের ব্যবহার। তবে কি ফ্যাশন সচেতন কিংবা যুগের সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলা নারীরা হিজাব ব্যবহার করেন না? তা নয়। আজকাল অনেক অাধুনিক নারীদের হিজাব ব্যবহার করতে দেখা যায়। একদিকে ধর্মীয় গাম্ভীর্য এবং অন্যদিকে ত্বক ও চুলের সুরক্ষায় ব্যবহৃত হচ্ছে নানা রং ও ডিজাইনের হিজাব- যা ফ্যাশনের অনুসঙ্গ হিসেবেও অনন্য।
সময় এবং জীবন জীবীকার প্রয়োজনে ঘরের বাইরে সমানতালে এগিয়ে চলেছে নারী। তবুও পর্দার করার তাগিদে নারীদের সঙ্গী হিজাব। ধর্মীয় অনুশাসন কিংবা যুগের ফ্যাশন- যেকোন একটি বেছে নেয়ার সিদ্ধান্ত এবং দ্বিধার সমাধান দেয় ফ্যাশনেবল হিজাব। দিন দিন এমন হিজাবের জনপ্রিয়তা বেড়েই চলছে মুসলিম রাষ্ট্রগুলোতে। বিগত কয়েক বছরে বাংলাদেশের নারীদের মাঝেও দেখা গেছে অভিজাত, রং বাহারী, ভিন্ন ভিন্ন কাপড়, আরাম ও ফ্যাশনেবল হিজাবের বহুল ব্যবহার। ধর্মের প্রতি যথাযথ সম্মান রেখেই নিজেকে ফ্যাশন সচেতন হিসেবে উপস্থাপনের উদ্দেশ্যেই এমন হিজাবের ব্যবহার করেন নারীরা।

ঢাকায় হিজাবের সবচেয়ে বড় মার্কেট হচ্ছে বসুন্ধরা সিটির লেভেল ফোর। এই ফ্লোরে প্রায় দেড়শো দোকান রয়েছে হিজাব ও বোরকার। শুধুমাত্র হিজাব বিক্রি করে এমন দোকানও অনেক রয়েছে। মার্কেটের নিচতলাতেই ছড়িয়ে ছিটিয়ে রয়েছে অনেকগুলো হিজাব ও বোরকার দোকান। এছাড়াও ঢাকার প্রতিটি মার্কেট ও শপিং প্লাজায় রয়েছে হিজাব ও বোরকার দোকান।
সময়টা এখন ফ্যাশনের সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলা, তাই বোরকাও আর আগের মতো নেই। গাউন, ওভারকোট ও ভিন্ন ভিন্ন ডিজাইনের বোরকা পাওয়া যায় বাজারে। রয়েছে প্রায় ৪-৫ ধরনের হাজারো রঙের হিজাব। মাথা থেকে কোমড় পর্যন্ত ঢেকে রাখে মাদানী হিজাব। সাধারণত হজ্বের সময় এই হিজাব পরেন নারীরা। নামাযের সময়ও এই হিজাব ব্যবহার করা যায়। মাদানী হিজাবের চেয়ে একটু ছোট হিজাবকে কুচি হিজাব বলে। এই হিজাব দিয়ে গলা ও বুক ঢেকে রাখা যায় খুব সহজেই।

কিন্তু ফ্যাশনেবল তরুণীরা হিজাবকে আরো ছোট ও সহজে পরার জন্য বেছে নেন শর্ট হিজাব বা ফিক্সড হিজাব। এতে পিনের কোন ঝামেলা নেই। অবশ্য এ হিজাবের উপর ওড়নাও পরেন অনেকে। ওড়না হিজাবও বেশ জনপ্রিয়। ওড়নার মাঝখানে একটি ক্যাপ যুক্ত থাকে, সেটি মাথায় পরে নিলেই সম্পন্ন হয় হিজাব পরা। তবে ওড়নাটি পেঁচিয়ে পিন দিয়ে আটকে রাখতে হয়। এই হিজাবের প্রচলনই এখন সবচেয়ে বেশি। হিজাবের পাশাপাশি অনেক তরুণী পিন দিয়ে আটকে স্কার্ফ ব্যবহার করেন। আর পার্টি, অনুষ্ঠান কিংবা বিশেষ দিনে পোশাকের রঙের সঙ্গে রঙ মিলিয়ে হিজাব পরাও বেশ জনপ্রিয়।
হিজাব পরিহিত মাহমুদা বেগম ঈদের কেনকাটা করতে এসেছেন স্বামী এবং দুই মেয়েকে নিয়ে। মায়ের সঙ্গে হিজাব পরেই মার্কেটে ঘুরছে দুই কিশোরী। হিজবের ব্যবহার নিয়ে মাহমুদা বেগম বলেন, 'আগে এতো হিজাব কিংবা বোরকার ব্যবহার ছিল না। আমরা যখন স্কুল কলেজের জন্য বের হতাম, তখন হিজাব বা বোরকা পরতাম না। কারণ এতোটা নিরাপত্তাহীনতা ছিল না। কিন্তু এখন হিজাব ছাড়াই মেয়েদের কোথাও পাঠাবার কথা ভাবতে পারি না।'

ভাইবোন এবং বন্ধুদের নিয়ে শপিং করতে এসেছেন মতিঝিল আইডিয়াল স্কুল এন্ড কলেজের ছাত্রী ফারহীন জাহান। বেশ ফ্যাশনেবল হিজাব ব্যবহার করেন তিনি। রং এবং ডিজাইনে রয়েছে আধুনিকতার ছোঁয়া। হিজাবের প্রান্তে রয়েছে সুতার তৈরি ঝুলন্ত বুটি। ব্যবহৃত পিনটিও বেশ বাহারী পাথরের তৈরি। 'ফ্যাশন হিসেবে হিজাব এখন একটা ট্রেন্ড হয়ে গেছে। তাই আমিও হিজাব পরি। ধর্মীয় কারণ ছাড়াও রাস্তাঘাটে অযথা কথাবার্তা এড়াতে হিজাব বেশ কাজে দেয়।'- বললেন ফারহীন।
কাপড়, ডিজাইন ও প্রাপ্তির স্থানভেদে হিজাবের দামে রয়েছে তারতম্য। বসুন্ধরা সিটি শপিংমল এবং ঢাকার অন্যান্য মার্কেটগুলোতে শর্ট হিজাবগুলো ২০০টাকা থেকে ৯৫০ টাকায় পাওয়া যাবে। হিজাবের ওড়না পাওয়া যাবে ৪০০ টাকা থেকে ১২০০ টাকায়। মাদানী হিজাবের দাম ৩০০ থেকে ৭৫০ টাকা। আর ৩০০টাকার মধ্যেই কেনা যাবে খোপা হিজাব।