সফল যারা যেমন তারা


নিজ কর্মের মাধ্যমে সফল হয়েছেন, এমন অনেক উদাহরণ রয়েছে এই পৃথিবীতে। এর মধ্যে কেউ নামকরা কোনো প্রতিষ্ঠানের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা, কেউবা আবার সফল উদ্যোক্তা, সফল নেতা, সফল লেখক কিংবা শূন্য থেকে হওয়া কোটিপতি। সফল যারা, কেমন তারা? এই প্রশ্ন অনেকের মনের মধ্যেই সময়ে অসময়ে উঁকি দিয়ে থাকে। একটি ব্যাপার সবাই ধরেই নেয় যে সফলদের সফলতার পেছনে কিছু গুরুত্বপূর্ণ ব্যাপার রয়েছে। তাদের কাজের ক্ষেত্রেও এই বিষয়গুলো লক্ষণীয়। শুধু কাজের ক্ষেত্রেই না, আচার আচরণ কিংবা চলাফেরায়ও তারা অন্যদের থেকে নিজেকে আলাদাভাবে তুলে ধরেন কীভাবে? চলুন দেখে নেওয়া যাক। লিখেছেন শাহাদাত হোসেন কাজকে ভালোবাসা
টিম কুক, মার্ক জাকারবার্গ কিংবা সত্য নাদেলার নাম তো শুনেছেন। বিশ্বসেরা তিনটি প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান পরিচালনা করেন এই তিন ব্যক্তি। আর এই দায়িত্ব কি তারা এমনিতেই পেয়েছেন? নিশ্চয়ই না। তারা সবসময় তাদের কাজকে ভালোবেসেছেন। তাদের কাজের মাধ্যমেই তুলে ধরেছেন নিজেকে এবং তৈরি করে নিয়েছেন নিজেদের অবস্থান।
কাজ করার নিজস্ব স্টাইল
অন্যের অনুকরণ করে হয়তো সাময়িক সময়ের জন্য সফল হওয়া সম্ভব। কিন্তু দীর্ঘ মেয়াদে তারাই সফল হয় এবং মানুষ তাদেরকেই মনে রাখে যারা একেবারে ব্যতিক্রমী এবং নিজস্ব ধরনে কাজ করেন। তাদের নেতৃত্বে থাকে না কোনো অনুকরণের ছাপ। হতে পারে তাদেরও কোনো পরামর্শদাতা ছিলেন। কিন্তু সবকিছু ছাপিয়ে তারা তাদের নিজস্ব রীতিতেই কাজ করেন।
কী জানেন না, তাও তাদের জানা আছে
একটি বিষয় খেয়াল করলে দেখতে পাবেন যে অধিকাংশ ক্ষেত্রেই সফল ব্যক্তিরা নম্র স্বভাবের হয়ে থাকেন। তারা খুব একটা ঔদ্ধত্য প্রদর্শন করেন না। তবে তার মানে এই না যে তাদের মধ্যে আত্মঅহংবোধ নেই। বরং তারা এটা বিশ্বাস করেন যে তাদের সবকিছু জানা নাও থাকতে পারে। এবং নিজেদের না জানার জায়গাটি সম্পর্কেও তারা কিন্তু ওয়াকিবহাল থাকেন।
আরও ভালো করার আকাঙ্ক্ষ
সফল ব্যক্তিদের ক্ষেত্রে আরও একটি লক্ষণীয় ব্যাপার হলো তারা মধ্যে সবসময় আরও ভালো করার একটি আকাঙ্ক্ষা থাকে। সফল প্রধান নির্বাহী কিংবা ভেঞ্চার ক্যাপিটালিস্ট, তাদের সবসময় মাথায় থাকে কীভাবে আরও একটি নতুন পণ্য বাজারে ছাড়া যায় কিংবা কী করলে আরও একটি দারুণ স্টার্টআপ শুরু করা যায়। তারা মনে করেন, ব্যবসা কিংবা উদ্যোগ হলো ম্যারাথন দৌড়ের মতো যার কোনো শেষ নেই।
নিজের প্রচারণা চালান না
সফলদের নিজের প্রচারণা চালাতে হয় না। তবে তারা কাজটি করেনও না। তাদের প্রতিষ্ঠান কিংবা পণ্যের সফলতাই তাদের হয়ে প্রচারণার কাজটি করে দেয়। তাছাড়া আপনি তাদের কখনও বলতে শুনবেন না যে, তারা কী করেছে কিংবা তাদের কত সম্পদ রয়েছে। তবে সবকিছুর মতো এখানেও যে ব্যতিক্রম নেই, তা কিন্তু নয়।
অন্যের কাজের প্রশংসা
এই কাজটি তাদের ক্ষেত্রে হরহামেশাই করতে দেখা যায়। যেসব কাজের জন্য সাধারণত কেউ প্রশংসা করে না, সে ক্ষেত্রেও তারা ব্যতিক্রম। আমাদের চারপাশে এমন অনেক মানুষ আছেন যাদের কাজ শেষে সাধারণত একটি ধন্যবাদ জোটে কিংবা কখনও তাও না। তবে এসকল মানুষকেও ধন্যবাদ দেওয়ার পাশাপাশি তাদের সম্পর্কে বিভিন্ন খোঁজ খবর নিয়ে থাকেন সফল ব্যক্তিত্বরা। এখানেই অন্য দশজনের সাথে তাদের পার্থক্য।

সফল যারা কেমন তারা