অবশেষে ‘২০৪১’ ও ‘১৬৬৬৬’ শর্টকোড পেল তথ্যপ্রযুক্তি বিভাগ

 অবশেষে ‘২০৪১’ ও ‘১৬৬৬৬’ শর্টকোড বরাদ্দ পেয়েছে তথ্যপ্রযুক্তি বিভাগ। তবে চাওয়া অনুয়ায়ী মিলেছে একটি।
কয়েক মাস আগে প্রথমবার পছন্দের ‘১৯৭১’ এবং ‘২০২১’ শটকোর্ডের জন্য আবেদন করে বিভাগটি। কিন্তু ওই শর্টকোড মেলেনি।
দ্বিতীয়বার ২০২১ ও ২০৪১ শার্টকোডের জন্য টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনের(বিটিআরসি) কাছে আবেদন করে তথপ্রযুক্তি বিভাগ। কিন্তু দ্বিতীয়বারেও চাওয়া অনুয়ায়ী ২০২১ দেয়া হয়নি।
তবে এবার পছন্দের ‘২০৪১’ পেয়েছে তারা। সঙ্গে দেয়া হয়েছে ‘১৬৬৬৬’ শর্টকোডটি। মোবাইল ফোনের মাধ্যমে সরকারের উন্নয়ন কাজের প্রচারের অংশ হিসেবে এই শর্টকোড চাওয়া হয়।
shortcode
গত বছরের ডিসেম্বরে টেলিযোগাযোগ বিভাগের মাধ্যমে তথপ্রযুক্তি বিভাগের প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক বিটিআরসির কাছে ‘১৯৭১’ এবং ‘২০২১’ নম্বর দুটির বরাদ্দ চেয়েছিলেন।
কিন্তু আগে থেকেই আওয়ামী লীগের গবেষণা প্রতিষ্ঠান সেন্টার ফর রিসার্চ অ্যান্ড ইনফরমেশনকে (সিআরআই) ‘১৯৭১’ শর্টকোড বরাদ্দ দিয়েছে কমিশন। ফলে এই নম্বরটি তথ্যপ্রযুক্তি বিভাগকে দেওয়ার কোনো সুযোগ ছিল না।
অন্যদিকে ‘২০২১’ নম্বরটি বিটিআরসি এখনই বরাদ্দ দিতে চায় না। এই নম্বরটিকে বরং সরকারের বড় কোনো কাজের জন্যে রেখে দেওয়ার পরিকল্পনা রয়েছে বলে জানান বিটিআরসির সিস্টেম অ্যান্ড সার্ভিস বিভাগের এক কর্মকর্তা।
বিটিআরসির নীতিমালা ‍অনুসারে চার ডিজিটের শর্টকোড বরাদ্দের কোনো সুযোগ নেই। কিন্তু চার অংকের শর্টকোড বরাদ্দ দেওয়ায় আগেই বিটিআরসি নিজেদের নীতিমালা ভঙ্গ করে।
সম্প্রতি কমিশন মোবাইল সংক্রান্ত বিষয়ে গ্রাহকদের কাছ থেকে অভিযোগ নিতে ২৮৭২ নম্বরের একটি শর্টকোড চালু করতে যাচ্ছে। যেখানে বিটিআরসির নিজের নীতিমালার ব্যতয় ঘটেছে।