এয়ারটেলকে বাংলাদেশে আরও একযুগ থাকতে হবে!


তৃতীয় প্রজন্মের (থ্রিজি) লাইসেন্সের মেয়াদ শেষ না হওয়া পর্যন্ত এয়ারটেল একীভূত কোম্পানিতে তাদের ২৫ শতাংশ মালিকানা বিক্রি করতে পারবে না। এয়ারটেলের থ্রিজি লাইসেন্সের মেয়াদ শেষ হবে ২০২৮ সালে। ফলে আরও একযুগ অর্থাৎ আগামী ১২ বছর এয়ারটেলকে বাংলাদেশে থাকতে হবে।

 দেশের দুই শীর্ষ মোবাইল ফোন অপারেটর রবি ও এয়ারটেল একীভূত হওয়ার বিষয়ে বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন (বিটিআরসি) ইতিবাচক সম্মতি দিয়েছে। তবে তৃতীয় প্রজন্মের (থ্রিজি) লাইসেন্সের মেয়াদ শেষ না হওয়া পর্যন্ত এয়ারটেল একীভূত কোম্পানিতে তাদের ২৫ শতাংশ মালিকানা বিক্রি করতে পারবে না। এয়ারটেলের থ্রিজি লাইসেন্সের মেয়াদ শেষ হবে ২০২৮ সালে। ফলে আরও একযুগ অর্থাৎ আগামী ১২ বছর এয়ারটেলকে বাংলাদেশে থাকতে হবে। সোমবার বিটিআরসি থেকে এ বিষয়ে একটি মূল্যায়ন টেলিযোগাযোগ মন্ত্রনালয়ে পাঠানো হয়েছে।
বিটিআরসি তাদের মূল্যায়নে জানিয়েছে, রবি-এয়ারটেল একীভূত হলে এয়ারটেলের মালিকানা থাকার শর্তেই একীভূত কোম্পানি রবি তাদের তরঙ্গ ব্যবহার করতে পারবে, যা হবে সব অপারেটরের মধ্যে সর্বোচ্চ। এয়ারটেল যদি তাদের মালিকানা বিক্রি করে দেয়, তাহলে আইন অনুযায়ী সেই তরঙ্গ আর একীভূত কোম্পানি ব্যবহার করতে পারবে না। এয়ারটেল যাতে সেটি না করতে পারে, সে জন্য এমন সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। বর্তমানে এয়ারটেলের ২০ মেগাহার্টজ আর রবির কাছে আছে ১৯ দশমিক ৮০ মেগাহার্টজ তরঙ্গ। দুটি প্রতিষ্ঠানের তরঙ্গ এক হয়ে দাঁড়াবে ৩৯ দশমিক ৮০ মেগাহার্টজ। গ্রামীণফোনের কাছে বর্তমানে সর্বোচ্চ ৩২ মেগাহার্টজ তরঙ্গ আছে।
নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিটিআরসির মূল্যায়ন প্রতিবেদনে আরও বলা হয়েছে, বর্তমানে এয়ারটেলে স্থায়ীভাবে কর্মরত আছেন ৪৭০ জন। রবি-এয়ারটেল একীভূত হওয়ার সময় কোন কর্মীকে কোনভাবেই ছাঁটাই করা যাবে না। তবে কোন কর্মী স্বেচ্ছায় অবসর নিতে চাইলে তাঁকে স্বেচ্ছা অবসর স্কিম (ভিআরএস) গ্রহণের সুযোগ দিতে হবে। একই সঙ্গে এয়ারটেলের সঙ্গে থাকা বিক্রেতা, পরিবেশকের চুক্তিও বাতিল করা যাবে না। একীভূত হওয়ার আগে এসব বিষয়ে নিশ্চয়তা চেয়েছে বিটিআরসি।
টেলিযোগাযোগ মন্ত্রণালয়ে পাঠানো মূল্যায়ন প্রতিবেদনে রবির ০১৮ এবং এয়ারটেলের ০১৬ কোড আপাতত পরিবর্তন না করার জন্য মতামত দেওয়া হয়েছে। মূলত শিগগির দেশে মোবাইল নাম্বার পোর্টেবিলিটি (এমএনপি) সেবা চালু করার সিদ্ধান্ত নেওয়ার ফলে এই কোর্ড অপরিবর্তিত রাখার জন্য বলা হয়েছে। যদি রবি-এয়ারটেল এই কোর্ড আগামী তিন বছর পর্যন্ত রাখার সিদ্ধান্তের কথা জানিয়েছিল। তবে বিটিআরসি মূল্যায়ন প্রতিবেদনে লিখেছে, যদি দুটি প্রতিষ্ঠান কোর্ডও একীভূত করতে চায় সে ক্ষেত্রে আদালতের দ্বারস্থ হয়ে সেখান থেকে এ ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নিতে হবে।