ছয় দিনে গরম বেড়েছে ৬ ডিগ্রি


সূর্যের চোখ রাঙানিতে গরম বাড়ছে লাফিয়ে লাফিয়ে। মাত্র ছয় দিনের ব্যবধানে দেশের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা বেড়েছে ছয় ডিগ্রি সেলসিয়াসেরও বেশি। 
দেশের উত্তর ও দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের ওপর বয়ে যাওয়া তাপপ্রবাহের প্রভাবেই বাড়ছে এই উত্তাপ, যা চলবে আরও কয়েক দিন। গরম কেবল বাড়বে না; আবহাওয়া অধিদপ্তরের তথ্য অনুযায়ী, দেশে তাপপ্রবাহের বিস্তারও ঘটবে। গত ৫ এপ্রিল দেশের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল ৩৪ দশমিক ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস। আর ১০ এপ্রিল রোববার সর্বোচ্চ তাপমাত্র রেকর্ড করা হয়েছে চুয়াডাঙ্গায় ৪০ দশমিক ৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস। অর্থাৎ​ ছয় দিনে তাপমাত্রা বেড়েছে ৬ দশমিক ১ ডিগ্রি। গত ৫ এপ্রিল রাজধানী ঢাকায় তাপমাত্রা ছিল ৩১ দশমিক ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস। গতকাল রোববার তাপমাত্রা বেড়ে হয়েছে ৩৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস।
আকাশে মেঘ নেই। একমাত্র সিলেট ছাড়া বৃষ্টি-শূন্য হয়ে গেছে পুরো দেশ। নয় দিন ধরে ঢাকার বুকে বৃষ্টির ছিটেফোঁটাও পড়ছে না। অথচ গত মার্চ মাসে ঢাকাসহ সারা দেশ স্বাভাবিকের চাইতে ৪৫ ভাগ বেশি বৃষ্টি হয়েছিল। আবহাওয়া অধিদপ্তরের আজকের পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, আজও সিলেট বিভাগ ছাড়া দেশের কোথাও বৃষ্টির সম্ভাবনা নেই। কুষ্টিয়া অঞ্চলের ওপর দিয়ে তীব্র তাপপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে। ঢাকা, রংপুর, দিনাজপুর, সৈয়দপুর, টাঙ্গাইল, ফরিদপুর অঞ্চল ছাড়াও রাজশাহী ও খুলনা বিভাগের ওপর মাঝারি ধরনের তাপপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে। এটি অব্যাহত থাকতে পারে এবং পার্শ্ববর্তী অঞ্চলে বিস্তার লাভ করতে পারে।
তবে তাপপ্রবাহের পাশাপাশি ঝড়-বৃষ্টি এমনকি বঙ্গোপসাগরে ঘূর্ণিঝড়ও হতে পারে। আবহাওয়া অধিদপ্তরের এপ্রিল মাসের পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, এ মাসে স্বাভাবিকের চেয়ে বেশি বৃষ্টির সম্ভাবনা আছে। এ মাসে প্রায় ১৬ দিন সিলেট বিভাগে বৃষ্টি হতে পারে। সেখানে ৩০০ থেকে ৩৭০ মিলিমিটার বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে। ঢাকা বিভাগে আট থেকে ১০ দিনে ১৪০ থেকে ১৮০ মিলিমিটার বৃষ্টি হতে পারে। এ ছাড়া বঙ্গোপসাগরে এক-দুটি নিম্নচাপ সৃষ্টি পারে। এর মধ্যে একটি ঘূর্ণিঝড়ে রূপ নিতে পারে।