মোহামেডান ২২৪, বাকি খেলা রিজার্ভ ডে’তে

নাজমুল হোসেন মিলন ও হাবিবুর রহমান না থাকলে আজ যে কী হতো মোহামেডানের! মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে প্রাইম ব্যাংকের বিপক্ষে প্রথমে ব্যাট করে মোহামেডান শেষ পর্যন্ত সব কটি উইকেট হারিয়ে ২২৪ করতে পারল কেবল এই দুজনের দারুণ ব্যাটিংয়েই। সপ্তম উইকেট জুটিতে নাজমুল আর হাবিবুরের ৮৪ রানের জুটিটাই মোহামেডানের রানটাকে মোটামুটি সম্মানজনক জায়গায় নিয়ে গেল।
বৃষ্টি অবশ্য খেলাটা শেষ হতে দেয়নি। মোহামেডানের সংগ্রহ তাড়া করতে নেমে প্রাইম ব্যাংক ৬.২ ওভারে ১ উইকেটে ৪১ তুলে ফেলার পরপরই বৃষ্টি বন্ধ করে দেয় খেলা। কাল রিজার্ভ ডেতে আবার মোহামেডানের রান তাড়া করতে নামবে প্রাইম ব্যাংক।
টসে হেরে ব্যাট করতে নেমে বিপর্যয়ের মধ্যে পড়ে মোহামেডান। শূন্য রানেই সাজঘরে ফেরেন এজাজ আহমেদ। একে একে ফেরেন নাজিমউদ্দিন, নাঈম ইসলাম, মুশফিকুর রহিম ও আরিফুল হক। ৪১ রানে ৫ উইকেট হারিয়ে বসা মোহামেডানের ত্রাণকর্তা হয়ে ওঠেন মিথুন মানহাস। তাঁর ৩৫ রানেই ঘুরে কিছুটা ঘুরে দাঁড়ানোর শক্তি খুঁজে পায় তারা। নাজমুল হোসেন মিলনের সঙ্গে ষষ্ঠ উইকেটে মানহাস গড়েন ৭০ রানের জুটি। মানহাস ফিরলে নাজমুল আর হাবিব সপ্তম উইকেটে ৮৪ রান তুলে মোহামেডানকে নিয়ে যান সম্মানজনক জায়গায়। নাজমুল ৮২ বলে ৬টি চারের সাহায্যে করেন ৬৪। হাবিবুরের ৬৪ বলে ৫০ রানের ইনিংসে ছিল ৪ চার ও ২ ছয়ের মার।
প্রাইম ব্যাংকের আজিম ৪০ রানে নেন ৩ উইকেট। রুবেল হোসেন ২ উইকেট পেয়েছেন ৪০ রানের খরচায়। ২ উইকেট পেয়েছেন মনির হোসেনও। এ ছড়া নাজমুল ইসলাম, শেহান জয়াসুরিয়া ও শুভাগত হোম পেয়েছেন একটি করে উইকেট।
জবাবটা ভালোই দিচ্ছিল প্রাইম ব্যাংক। ৬.২ ওভারে স্কোরবোর্ডে উঠেছিল ৪১ রান। ১৬ রানে সাজঘরে ফিরেছেন শানাজ আহমেদ। মেহেদী মারুফ অপরাজিত আছেন ২২ রানে। শানাজের বিদায়ের পর উইকেটে এসেছেন সাব্বির রহমান। 
কাল ঠিক এই জায়গা থেকেই শুরু হবে খেলার বাকি অংশ।