হুররাম সুলতান’ পোশাকের রমরমা ব্যবসা

 

ঝিলিক, খুশি, কিরণমালা- স্টার জলসা বা স্টার প্লাস কিংবা জি বাংলার এসব সিরিয়ালের নায়িকাদের নামের উপর চলা পোশাকের ব্যবসা আমাদের দেশে নতুন কিছু নয়। এসব সিরিয়ালের নায়িকারা বাজারে প্রচলিত পোশাকের মতো পোশাক না পরলেও তাদের নাম জড়ে দিয়েই পোশাকের রমরমা বাণিজ্য করেছে দেশীয় পোশাক বিক্রেতারা।

এবার সেই ধারাবাহিকতায় বাজারে এসেছে হুররাম সুলতান পোশাক। এর আগে দেশের বিনোদন জগতে হিন্দি চ্যানেলের যেই সিরিয়াল জনপ্রিয়তা পেত, সেই সিরিয়ালের নাম বা নায়িকার নামকেই পোশাক ডিজাইনাররা বেছে নিতেন তাদের পোশাকগুলোকে আকর্ষণীয় করার জন্য।

এবার দেশীয় বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেল দীপ্ত টিভিতে প্রচারিত সুলতান সুলেমান বিদেশি চ্যানেলে প্রচারিত বিভিন্ন সিরিয়ালের জনপ্রিয়তাকে ছাড়িয়ে গেছে। সুলতান সুলেমানের নায়িকা চরিত্র হুররাম সুলতানের জনপ্রিয়তাকে কেন্দ্র করেই এখন হুররাম সুলতান পোশাকের রমরমা ব্যবসা চলছে দেশীয় পোশাকের বাজারে।
রাজধানী ঢাকা গাউছিয়া, মৌচাক, বসুন্ধরাসহ বিভিন্ন মার্কেটে পাওয়া যাচ্ছে হুররাম সুলতান পোশাক। শীতের জন্য এক রকম ডিজাইন আর সব সময় ব্যবহারের জন্য অন্য রকম ডিজাইনের পোশাক পাওয়া যাচ্ছে।

ডিজাইনের ক্ষেত্রে প্রাধান্য পেয়েছে হুররাম পরিহিত লম্বা গাউন।



রাজধানীর মৌচাক মার্কেটের এক্সক্লুসিভ ফ্যাশন হাউজের বিক্রেতা পান্না সরকার পরিবর্তন ডট কমকে বলেন, শীতের হুররাম সুলতান পোশাক ৯০০ থেকে ১০০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। চাহিদা ও বেশ ভালো বলে জানান তিনি।

ঐ দামের পোশাকগুলো নিম্নমানের কাপড়ের তৈরি তাই দাম কম। বসুন্ধরাসহ বিলাসবহুল মার্কেটগুলো উন্নত কাপড়ের হুররাম সুলতান পোশাক দুই থেকে আড়াই হাজার টাকায় পাওয়া যাচ্ছে বলে জানান পান্না সরকার।

গাউছিয়া মার্কেটে দেখা গেল লম্বা হাতাওয়ালা গাউন। যা বিক্রি হচ্ছে  ১০০০ থেকে ১৫০০ টাকায়। দোকানিরা জানান এই গাউন গুলোর চাহিদা ভালো। এম্পিরিয়াল ওয়ার হাউজের বিক্রেতা নুর আল বাসেত বলেন, দিনে প্রায় একশ হুররাম সুলতান গাউন বিক্রি করতে পারছেন।

পোশাক কিনতে আসা ঢাকা সিটি কলেজের এক ছাত্রী তাসলিমা আক্তার বলেন, সুলতান সুলেমান দেখতে অনেক ভালো লাগে, দেখতে কখনো মিস করি না। হুররামের স্টাইল অনেক ভালো লাগে। তাই হুররাম সুলতান গাউন কিনতে এসেছি।
শুধু পোশাক নয়, সুলতান সুলেমান সিরিয়ালে নারীদের ফ্যাশন হিসাবে ব্যবহৃত বিভিন্ন ডিজাইনের চুলের কাটগুলো অনেক জনপ্রিয়তা পেয়েছে। মার্কেট গুলোতে দেখা গেলো অনেক মেয়েই কিনছে এধরনের হেয়ার ব্যান্ড। ২০০ থেকে ৩০০ টাকার মধ্যেই পাওয়া যাচ্ছে এসব হেয়ার ব্যান্ড।


তবে হিন্দি সিরিয়ালের বিপক্ষে যেমন জনমত আছে তেমনি সেসব সিরিয়াল অনুসরণ করে পোষাকের নাম দেয়ার বিপক্ষেও অনেকের মত আছে। গাউছিয়া মার্কেটে মেয়েকে নিয়ে কেনাকাটা করতে আসা আফরোজা বেগম বলেন, নতুন নতুন পোশাক বাজারে তো আসবেই কিন্তু এগুলোর নাম সিরিয়ালের নায়িকার নামে দেয়ার দরকার কি? এগুলোর কারণেই তো সিরিয়াল পাগলরা এসব পোশাক কেনার জন্য জান প্রাণ দিয়ে দেয়। এর জন্য যেন আবার কারো আত্মহত্যার খবর শুনতে চাই না বলেন আফরোজা বেগম। 
          
দেশীয় বাজারে সিরিয়াল নির্ভর পোশাকের নাম নিয়ে নানা সময়ে অনেক অঘটন ঘটেছে। মেয়েকে তার চাহিদা মতো কিরণমালা পোশাক কিনে দিতে না পারায় আত্নহত্যার ঘটনাও ঘটেছে। ঘটেছে স্বামী স্ত্রীর বিচ্ছেদও। এসব বিষয় বিবেচনায় শুধু ব্যবসায়িক লাভের জন্য সিরিয়াল নির্ভর পোশাকের নাম দেয়া ও কোন ব্যক্তির অনুকরণ নিয়ে আপত্তি মনোবিজ্ঞানীদের।

মনোরোগ বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক মোহিত কামাল পরিবর্তন ডট  কমকে বলেন, ব্যবসায়ীরা তো লাভের জন্য করবেই। কিন্তু ঘটনা যেটা ঘটছে যে, লারনিং বাই আইডেন্টিফিকেশন ও লারনিং বাই এমিটেশন। মানে হলো কেউ কোন ব্যক্তিকে অনুকরণ করে তার মতো হতে চাইছে।

এসব ঘটনা তাদের আবেগকে দখল করে, তাদের উচ্চাকাঙ্ক্ষাকে তাড়িত করে, যখন তাদের আবেগ চূড়ান্ত জায়গায় পৌঁছে যায় সেই সময় তার নিজের চাহিদা ছাড়া অন্য সব তুচ্ছ মনে হয় তখন হতাশা থেকে অস্বাভাবিক আচরণ করে, বলেন মোহিত কামাল।



পোশাক নিয়ে আত্মহত্যা করা বা সহিংস আচরণ করার পেছনে এই মনোবিজ্ঞানী দায়ি করেন সন্তানদের বাবা মাকে। তিনি বলেন, ব্যবসায়ীরা ব্যবসার জন্য ক্রেজ তৈরি করার চেষ্টা করবে কিন্তু আমাদের সন্তান কেন এসব ফাঁদে পা দেবে।

ফান্দে পড়িয়া যেমন বগা কান্দে তেমন আমাদের সন্তানরা ক্রেজের ফান্দে পড়িয়া কান্দে, বলেন মোহিত কামাল।

তিনি বলেন, সন্তানকে এমন ভাবে মানুষ করা উচিত যেন সে তার চাহিদাকে সীমার মধ্যে রাখতে পারে। ছোটবেলা যে সব সন্তান তার মা বাবার কাছে কিছু চেয়ে সহজেই পেয়ে যায়, তারাই অপ্রয়োজনীয় দাবি করে আর দাবি পূরণ না হলে সহিংস আচরণ করে।

মোহিত কামালের মতে, ছোটবেলা থেকেই মা বাবার খেয়াল রাখা উচিত শুধু যেটুকু সন্তানের প্রয়োজন যেন তাই তাকে দেয়া হয়, এর বেশি নয়। তাহলেই সে নিজের চাহিদাকে সীমার মধ্যে রাখতে শিখবে এবং কিছু না পেলে সহিংস হয়ে উঠবে না।

হুররাম সুলতান’ পোশাকের রমরমা ব্যবসা ঝিলিক, খুশি, কিরণমালা- স্টার জলসা বা স্টার প্লাস কিংবা জি বাংলার এসব সিরিয়ালের নায়িকাদের নামের উপর চলা পোশাকের ব্যবসা আমাদের দেশে নতুন কিছু নয়। এসব সিরিয়ালের নায়িকারা বাজারে প্রচলিত পোশাকের মতো পোশাক না পরলেও তাদের নাম জড়ে দিয়েই পোশাকের রমরমা বাণিজ্য করেছে দেশীয় পোশাক বিক্রেতারা।