সাধারণ খাবারকেই অসাধারণ করে তুলবে এই তিনটি চাটনি

ভাজাভুজি, ভাত বা পোলাওয়ের সাথে আচার বা চাটনি হলে খেতে দারুন লাগে। টক, ঝাল, মিষ্টি চাটনি যেকোনো খাবারের স্বাদ বাড়িয়ে দেয় বহুগুণ। 

তিনটি ভিন্ন রকমের চাটনির রেসিপি নিয়ে আজকের আয়োজন। আসুন তাহলে জেনে নেওয়া যাক চাটনির রেসিপিগুলো।
উপকরণ:
সিচুয়ান চাটনি:
৩০টি লাল শুকনো মরিচ
৩ টেবিল চামচ তিলের তেল
১ টেবিল চামচ তেল
১/২ কাপ রসুন কুচি
১/২ ইঞ্চি আদা
১টি ছোট পেঁয়াজ
লবণ
১/৪ চা চামচ সয়াসস
১ চা চামচ ভিনেগার
১/২ চা চামচ চিনি
১ চা চামচ ত্রিফলা
তিলের চাটনি
১ টেবিল চামচ তেল
৪ কোয়া রসুন
১/২ ইঞ্চি আদা
১ টেবিল চামচ লাল শুকনো মরচি
২ টেবিল চামচ তিল
১টি ছোট পেঁয়াজ
১টি বড় টমেটো
২ টেবিল চামচ টমেটো পিউরি
লবণ
১/২ চা চামচ লেবুর রস
মিল্ক মেয়োনিজ
১/৪ কাপ ঠান্ডা দুধ
১/২ চা চামচ লবণ
১/৪ চা চামচ ভিনেগার
১/২ কাপ তেল
১/২ চা চামচ রসুন কুচি
১ টেবিল চামচ ধনেপাতা কুচি
প্রণালী:
সিচুয়ান চাটনি তৈরির প্রণালী:
১। একটি প্যানে তিলের তেল এবং রান্নার তেল একসাথে মিশিয়ে গরম করতে দিন। এতে আদা এবং রসুন কুচি দিয়ে দিন। আদা রসুন নরম হয়ে আসলে এতে ত্রিফল এবং পেঁয়াজ কুচি দিয়ে রান্না করুন।
২। এরপর এতে লাল মরিচের পেস্ট এবং লবণ দিয়ে দিন।
৩। সয়াসস, ভিনেগার এবং চিনি দিয়ে কয়েক মিনিট রান্না করুন। ঘন  হয়ে আসলে নামিয় ফেলুন।
৪। পানি না মেশালে এই চাটনিটি ১২ মাস পর্যন্ত ফ্রিজে সংরক্ষণ করতে পারবেন। ফ্রিজে সংরক্ষণের সময় এতে ১/২ চা চামচ সাইট্রিক অ্যাসিড মিশিয়ে নিন।
তিলের চাটনি তৈরির প্রণালী:
১। প্যানে তেল গরম হয়ে আসলে এতে আদা, রসুনের কুচি দিয়ে দিন।
২। এরপর এতে তিল, মরিচ দিয়ে দিন। নরম হয়ে আসলে পেঁয়াজ কুচি দিয়ে দিন।
৩। পেঁয়াজ নরম হয়ে আসলে টমেটো, লবণ, টমেটো পিউরি এবং প্রয়োজন মতো পানি দিয়ে দিন।
৪। সবগুলো উপাদান ব্লেন্ডারে ব্লেন্ড করে পেস্ট করে নিন। ব্যস তৈরি হয়ে গেলো তিলের চাটনি।
মিল্ক মেয়োনিজ তৈরির প্রণালী:
১। একটি পাত্রে বরফ ঠান্ডা দুধ, লবণ, চিনি এবং ভিনেগার একসাথে ভালো করে মিশিয়ে নিন।
২। প্রয়োজনে ব্লেন্ডার দিয়ে ব্লেন্ড করুন। যতক্ষণ পর্যন্ত ফোমের মতো না হয় ততক্ষণ  ব্লেন্ড করুন। ব্লেন্ডের সময় এতে তেল মেশান। তেলসহ এটি আবার ব্লেন্ডারে ব্লেন্ড করুন। এটি ফ্রিজে ১৫ মিনিট রেখে দিন,
৩। রসুন কুচি বা ধনেপাতা দিয়ে পরিবেশন মেয়নিজ চাটনি।

ভাজাভুজি, ভাত বা পোলাওয়ের সাথে আচার বা চাটনি হলে খেতে দারুন লাগে। টক, ঝাল, মিষ্টি চাটনি যেকোনো খাবারের স্বাদ বাড়িয়ে দেয় বহুগুণ।