ছেলেদের ট্রেন্ডি হেয়ার ফ্যাশন



চুলের প্রতি ভালোবাসা সবার আছে। মেয়েরাই যে কেবল চুল নানাভাবে সাজায় তা নয়। ছেলেরাও তাদের হেয়ারস্টাইল ও হেয়ার ফ্যাশন নিয়ে সমান সচেতন। নানাভাবে তারা তাদের চুলের প্রতি যত্নবান এবং চুলের সাজে নিজেকে নানাভাবে উপস্থাপন করতে ভালোবাসে। তবে এই নানা হেয়ার স্টাইলের মাঝে আছে ট্রেন্ডি হেয়ার স্টাইল। চলুন তা সম্পর্কে জেনে নেই।  


সেমি বান কিংবা টপ
‘সেমি বান’ বা ‘টপ নট’ নামে পরিচিত এই বান করা হয় মাথার উপরের দিকের চুলগুলো দিয়ে। অর্থাৎ মাথার উপরের সব চুল মিলিয়ে একটি বান করা হয় মাথার মাঝখানে। এটি করতে হলে চুলের কাট এমন হওয়া দরকার যে কেবল উপরের অংশেই চুল থাকবে, আর পুরো মাথা চুলহীন।



হাফ বান 
এটি ‘সেমি বান’ গোছের কিছু মনে হলেও আদতে তা নয়। ম্যান বান অথবা সেমি বানের মতো করেই একটি বান বাঁধা হয় কিন্তু সেটিকে চুলের ব্যান্ডের অর্ধেক পর্যন্ত বেঁধে ছেড়ে দিলে এটি তৈরি হয়ে যায়। এতে বেশ অনেকখানি চুল হেয়ার ব্যান্ডের বাইরে থাকবে। তার মানে, বানের বাইরেও আরেকটা বানের মতো হতে পারে।



কার্লি ম্যান বান
কোঁকড়া চুলের জন্য। এর বিশেষত্ব হচ্ছে, বানটি বাঁধার আগে চাইলে চুল কার্লার দিয়ে আরেকটু কোঁকড়া করে নেয়া যায়। এমন চুলে বান বাঁধার মজা হচ্ছে, এটি দেখতে বেশ ‘মজবুত’ লাগে! 



হেয়ার বানের জন্য দরকারি পণ্য
ইলাস্টিক ব্যান্ড বান দরকার শক্তভাবে বাঁধার জন্য। হেড ব্যান্ড দরকার বানের ভেতর থেকে যে চুল অনিচ্ছাকৃতভাবে বেরিয়ে গেছে, সেগুলো এক জায়গায় করে রাখতে। কন্ডিশনার দরকার শ্যাম্পুর পর কন্ডিশনার লাগালে চুল স্বাস্থ্যোজ্জ্বল দেখায়, বান বাঁধলেও ভালো দেখায়, হেয়ারস্টাইলিং ক্রিম দরকার যেকোনো বানের স্থায়িত্ব বাড়ানোর জন্য।