দু’জনেই জমাটি , কিন্তু আলিয়া এগিয়ে মুভি রিভিউ

২০১৬ -র দু’টো বলিউড ছবির কথা মনে পড়ছে৷ একটি ‘নীরজা ’৷ অন্য ধারার ছবি৷ আরেকটি ‘সুলতান ’৷ বাণিজ্যিক ছবি ...

‘বদরিনাথ কি দুলহানিয়া ’ ছবিতে হরেক মশলার শেষে আসলে একটি বার্তা আছে৷ বার্তা: ছেলে আর মেয়ে সমান৷ ২০১৭ সালে দাঁড়িয়ে একটি ছবির প্রযোজক বার্তা দিচ্ছেন , সমাজে ছেলে -মেয়ে সমান ! অবাক হব ? কিন্ত্ত ভারতের মতো দেশে যে এখনও সেই সময়টা আসেনি , তাই এমন বার্তা প্রয়োজনীয় ! সরকারও তো এখন এমন প্রচার করেন৷ তা হলে তো ‘বদরিনাথ কি দুলহানিয়া ’র প্রযোজকরা বেশ বাহবা দেওয়ার মতো কাজই করেছেন !


আসা যাক গল্পে৷ ঝাঁসির ছেলে বদরি (বরুণ ধাওয়ান )৷ তার বন্ধু চুটকি শাদি ডট কম খুলে , বিয়ে -ব্যবসা নিয়ে মেতেছে৷ এক বিয়েবাড়িতে বদরির দেখা হয় বৈদেহী (আলিয়া ভাট )-র সঙ্গে৷ বৈদেহী আগে একবার ব্যবসা করতে গিয়ে ঠকেছে৷ তারপর থেকে বাবা চায় বৈদেহী আর তার বড় বোনের বিয়ে দিয়ে নিশ্চিন্ত হতে৷ কিন্ত্ত বৈদেহী চায় এয়ারহোস্টেস হোতে৷ প্রথম দেখায় বৈদেহীর প্রেমে পড়ে একেবারে বিয়ের প্রস্তাব নিয়ে বদরি পৌঁছে যায় বৈদেহীর বাড়ি৷ পরিস্থিতি এমনই ছিল , বৈদেহী রাজি হয় বিয়েতে৷ কিন্ত্ত বিয়ের দিন বৈদেহী পালিয়ে যায়৷ ছবির বিরতি সেখানেই৷ এরপর বদরি কি তার দুলহানিয়া ফিরে পাবে , নাকি পাবে না , সেই উত্তর ক্লাইম্যাক্সে৷ ‘বদরিনাথ কি দুলহানিয়া ’ ছবিতে অল্প কমেডি , বিস্তর ড্রামা৷

ছবির গল্পটা মিষ্টি৷ কিন্ত্ত চিত্রনাট্য যেভাবে সাজানো হয়েছে , তাতে মাঝে -মাঝেই হালকা হোয়াটসঅ্যাপ , দু’ চুমুক পানীয় চলতে পারে৷ যেদিন ছবি দেখছেন , তার পরদিন সকালে উঠে এ ছবির রেশ থাকারও কথা নয়৷ কিন্ত্ত যে দু’জন মনে থেকে যাবেন , তাঁরা ছবির নায়ক -নায়িকা৷ কিছুদিন আগে শহরে এসে মহেশ ভাটের বলা একটা কথা মনে পড়ছে৷ তাঁর বক্তব্য , ‘আলিয়া তারকা৷ আমরা (ভাটক্যাম্প ) তো তারকাদের সঙ্গে কাজ করি না !’ ‘বদরিনাথ কি দুলহানিয়া ’ ছবিতে সেই ‘তারকা ’ আলিয়ার কী দাপট ! দুর্দান্ত অভিনেত্রী , আবার ‘তাম্মা তাম্মা ’র সঙ্গে ডান্সফ্লোরে -ও রানি৷ ওদিকে ছোট শহরের বড়লোক বাড়ির ছেলের চরিত্রে (যে একদম স্ট্রিটস্মার্ট নয় , বরং সহজ -সরল ) বরুণ ধাওয়ান অনবদ্য৷

এবার যদি প্রশ্ন করা হয় , বরুণ না আলিয়া কে একটু বেশি এগিয়ে ? উত্তর : আলিয়া ভাট !ছবিতে বেশ কয়েকটি গান আছে৷ তবে জমেছে ‘তাম্মা তাম্মা ’ আর ‘বদরি কি দুলহানিয়া ’৷ আর দু’টোই আগের জনপ্রিয় গান /গানের সুর ভেঙে তৈরি৷ খাচ্ছি যখন আর গিলতেও পারছি , অসুবিধে নেই !এন্টারটেইনমেন্ট , এন্টারটেইনমেন্ট , এন্টারটেইনমেন্ট৷ ব্যস , আবার কী চাই ? শুধু সিনেমাহল থেকে বেরনোর সময় মনে হয় , ছেলে আর মেয়ে সমান , এ কথাটা বোঝাতে বরুণকে কতগুলো সংলাপগুলো বলতে হল ! ‘নীরজা ’ বা ‘সুলতান ’-এ ঠিক এমন ধরনের সংলাপ ছিল না৷ কিন্ত্ত বার্তা কি একই ছিল

২০১৬ -র দু’টো বলিউড ছবির কথা মনে পড়ছে৷ একটি ‘নীরজা ’৷ অন্য ধারার ছবি৷ আরেকটি ‘সুলতান ’৷ বাণিজ্যিক ছবি ... ‘বদরিনাথ কি দুলহানিয়া ’ ছবিতে হরেক মশলার শেষে আসলে একটি বার্তা আছে৷ বার্তা: ছেলে আর মেয়ে সমান৷ ২০১৭ সালে দাঁড়িয়ে একটি ছবির প্রযোজক বার্তা দিচ্ছেন , সমাজে ছেলে -মেয়ে সমান ! অবাক হব ? কিন্ত্ত ভারতের মতো দেশে যে এখনও সেই সময়টা আসেনি , তাই এমন বার্তা প্রয়োজনীয় ! সরকারও তো এখন এমন প্রচার করেন৷ তা হলে তো ‘বদরিনাথ কি দুলহানিয়া ’র প্রযোজকরা বেশ বাহবা দেওয়ার মতো কাজই করেছেন !