ধর্মীয় বিদ্বেষের বিরুদ্ধে লড়তে ফেসবুকের সহায়তা চায় পাকিস্তান

 


সোশ্যাল নেটওয়ার্কে পাকিস্তানের নাগরিকদের ধর্মীয় বিদ্বেষমূলক কনটেন্ট পোস্টের তদন্ত করতে সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম ফেসবুকের কাছে সাহায্য চেয়েছে। আর এই সমস্যা সমাধানে ফেসবুক পাকিস্তানে তাদের একটি টিম পাঠাতে রাজি হয়েছে বলে জানিয়েছে পাকিস্তানের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।


ব্লাসফেমিে পাকিস্তানে একটি অত্যন্ত সংবেদনশীল ইস্যু। সমালোচকরা বলছেন ব্লাসফেমি আইন, যা কিছু কিছু ক্ষেত্রে মৃত্যুদণ্ডের অনুমতি দেয়। প্রায়ই সংখ্যালঘুদের প্রতি এটির অপব্যবহার করা হয়ে থাকে। পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরীফ সোশ্যাল মিডিয়ায় ব্লাসফেমি কনটেন্টের বিষয়ে দলের অফিসিয়াল টুইটার অ্যাকাউন্ট থেকে এক প্রতিবেদনে জানান, ব্লাসফেমি একটি ‘অমার্জনীয় অপরাধ’।

পাকিস্তান প্রায়ই পর্নগ্রাফিক সাইট এবং ইসলামবিরোধী কনটেন্ট এক্সেস ব্লক করে থাকে। ২০১০ সালে মহানবীর ব্যঙ্গচিত্রের রেশ ধরে পাকিস্তানি আদালত ফেসবুক বন্ধ করে দিয়েছিল।

সোশ্যাল নেটওয়ার্কে পাকিস্তানের নাগরিকদের ধর্মীয় বিদ্বেষমূলক কনটেন্ট পোস্টের তদন্ত করতে সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম ফেসবুকের কাছে সাহায্য চেয়েছে। আর এই সমস্যা সমাধানে ফেসবুক পাকিস্তানে তাদের একটি টিম পাঠাতে রাজি হয়েছে বলে জানিয়েছে পাকিস্তানের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।