লন্ডন হামলায় হোয়াটসঅ্যাপ তথ্য চাইছে যুক্তরাজ্যের গোয়েন্দা সংস্থা

 

লন্ডন হামলার পরে ‘সন্ত্রাসীদের আড়াল করার জন্য কোনো জায়গা নেই’ এবং গোয়েন্দা সংস্থার এনক্রিপটেড মেসেজ সেবায় প্রবেশাধিকার থাকা উচিত বলে বলেন যুক্তরাজ্যের হোম সেক্রেটারি অ্যাম্বার রুড।


গত সপ্তাহে খালিদ মাসুদ নামের ব্যক্তি ওয়েস্টমিনিস্টারে ৮২ সেকেন্ডে চারজন মানুষ হত্যা করেন এবং হামলা চালানোর আগ মুহূর্তে তার ফোনটি হোয়াটসঅ্যাপে সংযুক্ত ছিল বলে তদন্তে বেরিয়ে এসেছে।

অ্যাম্বার রুড বলেন, যেহেতু সন্ত্রাসিরা হামলায় এই অ্যাপ ব্যবহার করে কারো সাথে সংযুক্ত হয়েছিল তাই তাদেরকে এর এনক্রিপশন ভাঙতে হবে। তিনি আরও বলেন তিনি চলতি সপ্তাহে প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠানগুলোর সাথে এ নিয়ে বৈঠকে বসবেন।

আর হোয়াটসঅ্যাপের একজন মুখপাত্র জানান, তারা এই হামলায় আতঙ্কিত এবং তদন্তে প্রতিষ্ঠানটি সহযোগিতা করবে। হোয়াটসঅ্যাপ এন্ড-টু-এন্ড এনক্রিপশন পদ্ধতিতে মেসেজ পাঠানো হয়, অর্থাৎ এই পদ্ধতিতে পাঠানো মেসেজ আইন প্রয়োগকারী সংস্থা এবং স্বয়ং হোয়াটসঅ্যাপেরও অপাঠ্য।

লন্ডন হামলার পরে ‘সন্ত্রাসীদের আড়াল করার জন্য কোনো জায়গা নেই’ এবং গোয়েন্দা সংস্থার এনক্রিপটেড মেসেজ সেবায় প্রবেশাধিকার থাকা উচিত বলে বলেন যুক্তরাজ্যের হোম সেক্রেটারি অ্যাম্বার রুড।