এবার বাংলাদেশ ব্যাংকের ই-মেইল আকাউন্ট হ্যাকড

 

হ্যাকিংয়ের মাধ্যমে রিজার্ভের অর্থ চুরির ১৩ মাসের মাথায় এবার বাংলাদেশ ব্যাংকের বৈদেশিক মুদ্রানীতি বিভাগের ই-মেইল অ্যাকাউন্ট হ্যাকড হয়েছে। গত ১৪ মার্চ রাত ৮টা থেকে শুরু করে ওই রাতের বিভিন্ন সময়ে ওই ই-মেইল আইডি ব্যবহার করে দেশের বিভিন্ন বাণিজ্যিক ব্যাংক, আর্থিক প্রতিষ্ঠান, এমনকি বাংলাদেশ ব্যাংকের অন্যান্য ই-মেইলেও ভুয়া বার্তা পাঠানো হয়েছে।

২০ মার্চ সোমবার ‘এবার বাংলাদেশ ব্যাংকের ই-মেইল আকাউন্ট হ্যাকড’ শিরোনামে দৈনিক কালের কণ্ঠে প্রকাশিত এক সংবাদে এই তথ্য উঠে এসেছে।

ওই ই-মেইলের সঙ্গে বাংলাদেশ ব্যাংকের বেশ কিছু নথিও সংযোজন করা ছিল, যেগুলো ওই বিভাগ সংশ্লিষ্ট নয়। তবে ওই সব ই-মেইল বার্তার কোনোটিতেই অর্থ লেনদেন করার কোনো নির্দেশনা ছিল না। ফলে এর মধ্য দিয়ে বাংলাদেশ ব্যাংক বা অন্য কোনো ব্যাংকের অর্থ বেহাত হয়নি বলে জানিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক।

নিরাপত্তা দুর্বলতার সুযোগ নিয়ে গত বছর ফেব্রুয়ারি মাসে যে হ্যাকাররা রিজার্ভের অর্থ হাতিয়ে নিয়েছে, তারাই এই ই-মেইল হ্যাক করে থাকতে পারে বলে বাংলাদেশ ব্যাংকের কর্মকর্তাদের ধারণা।

ব্যাংকের আইটি কর্মকর্তারা ই-মেইল হ্যাক হওয়ার ঘটনা অত্যন্ত গোপনীয়তার সঙ্গে খতিয়ে দেখার চেষ্টা করছেন বলে অর্থ মন্ত্রণালয়কে জানিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। তবে অধিকতর তদন্তের স্বার্থে ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্য-প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের কারিগরি সহায়তা চেয়েছে তারা। সহযোগিতা চেয়ে গত ১৫ মার্চ তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের ভারপ্রাপ্ত সচিব সুবীর কিশোর চৌধুরীকে চিঠি পাঠিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক।

এসব বিষয়ে জানতে চাইলে বাংলাদেশ ব্যাংকের মুখপাত্র ও নির্বাহী পরিচালক শুভঙ্কর সাহা বলেন, ‘বাংলাদেশ ব্যাংকের একটি বিভাগের একটি ই-মেইল আইডি থেকে বিভিন্ন ব্যাংকে ভুয়া ই-মেইল বার্তা পাঠানোর একটি ঘটনা ঘটেছে বলে শুনেছি। এ ধরনের ভুয়া বার্তাযুক্ত ই-মেইল পেলে বাংলাদেশ ব্যাংকের কর্মকর্তারা যাতে তাতে ক্লিক না করেন, সে জন্য সতর্কবার্তা দেওয়া হয়েছে।’ ই-মেইল হ্যাকিং বা ভুয়া বার্তা পাঠানো নিয়ে তদন্ত সম্পর্কে কিছু বলতে পারেননি তিনি।

হ্যাকিংয়ের মাধ্যমে রিজার্ভের অর্থ চুরির ১৩ মাসের মাথায় এবার বাংলাদেশ ব্যাংকের বৈদেশিক মুদ্রানীতি বিভাগের ই-মেইল অ্যাকাউন্ট হ্যাকড হয়েছে। গত ১৪ মার্চ রাত ৮টা থেকে শুরু করে ওই রাতের বিভিন্ন সময়ে ওই ই-মেইল আইডি ব্যবহার করে দেশের বিভিন্ন বাণিজ্যিক ব্যাংক, আর্থিক প্রতিষ্ঠান, এমনকি বাংলাদেশ ব্যাংকের অন্যান্য ই-মেইলেও ভুয়া বার্তা পাঠানো হয়েছে।