স্কার্ফের যত ধরন !



খনো গলায়, কখনো হাতে আবার কখনো পাগড়ির মতো মাথায় প্যাঁচানো। এক টুকরো রঙিন কাপড়। মেয়েদের সাজপোশাকে প্রায়ই চোখে পড়ছে এর ব্যবহার। একরঙা অথবা ছাপা প্রিন্টের এই কাপড়কে বলে স্কার্ফ। বছরের এই সময়টাতে স্কার্ফ ব্যবহারটা এক ঢিলে দুই পাখি মারার মতো। একটু স্টাইল করে পরলে দেখাবে ফ্যাশনেবল। আবার ঠান্ডা বাতাসে উষ্ণতা ছড়িয়ে দেবে।

স্কার্ফের শুরু
স্কার্ফের চল শুরু হয়েছে প্রাচীন রোমে। সেই আমলে নারী-পুরুষ গরমকালে স্কার্ফ ব্যবহার করত ঘাম মোছার জন্য। পুরুষেরা শার্টের কলারে এই কাপড়ের টুকরা জড়িয়ে রাখত। তারা এই কাপড়ের টুকরার নাম দিয়েছিল সুইডারিয়াম। আবার চীনের যোদ্ধাদের মাঝে নানা রঙের স্কার্ফ ব্যবহার করা হতো সৈনিকদের র‌্যাঙ্কিং বোঝানোর জন্য। তখনো স্কার্ফ ফ্যাশনের অনুষঙ্গ হয়ে ওঠেনি।

তবে ঊনবিংশ শতকে ইউরোপের বিভিন্ন দেশে এটি প্রচলিত হয়ে ওঠে। ঊনবিংশ ও বিংশ শতাব্দীতে চলচ্চিত্রে, পপতারকাদের মাঝে স্কার্ফ বেশ জনপ্রিয় হয়ে ওঠে। 
নানান ঢঙের স্কার্ফ
সুতি, রেশম কিংবা হালকা সিনথেটিকের সুতায় বোনা পাতলা-চারকোনা স্কার্ফগুলো যেকোনো পোশাকের সঙ্গেই মানিয়ে যায়। জিনস, টপ, টি-শার্ট, হালকা কটি কিংবা সালোয়ার-কামিজের সঙ্গে ভালো লাগবে। এ ধরনের স্কার্ফগুলো সাধারণত রঙিন ফুলেল ছাপার হয়ে থাকে। তবে উজ্জ্বল এক রঙা স্কার্ফও পাওয়া যায়। আড়ংয়ের প্রধান ডিজাইনার রাজেশ খাজুরিয়া বলেন, ‘এ বছরের ফ্যাশনে স্কার্ফ নারীদের অন্যতম পছন্দের অনুষঙ্গ। হালকা, রঙিন, ফ্যাশনেবল স্কার্ফ যেকোনো পোশাকের সঙ্গেই মানিয়ে যায়।’
শীতের স্কার্ফ
শীতের স্কার্ফগুলো উলের, হাতে বোনা, হালকা অথবা ভারী গোছের হয়ে থাকে। স্টাইলের কারণে এটি প্রচলিত মাফলারের থেকে ভিন্ন। ঠান্ডা থেকে নাক-মুখকে সুরক্ষিত রাখতে অথবা একটু উষ্ণতার জন্য এ ধরনের স্কার্ফ বেশ ব্যবহৃত হচ্ছে।
স্কার্ফে স্টাইল
রাজধানীর শপিং মল ঘুরে প্রায় প্রতিটি ফ্যাশন হাউসে দেখা গেল স্কার্ফের নজরকাড়া সংগ্রহ। স্টাইলিশ এই স্কার্ফগুলো আরও সুন্দর হয়ে ওঠে, যদি বিভিন্নভাবে স্টাইল করে বাঁধা যায়।
জিনস-টপের সঙ্গে স্কার্ফ
স্কিন-টাইট ন্যারো জিনস ও টপের সঙ্গে রঙিন স্কার্ফ বেশ মানিয়ে যায়। এ ধরনের পোশাকের সঙ্গে গলায় পেঁচিয়ে স্কার্ফ বিভিন্ন স্টাইলে বাঁধা যায়। যেমন নকড্ নেকলেস, ডাবল সাইডেড টুইস্ট, ফ্রেঞ্চ নক, কজি নেক র‌্যাপ ইত্যাদি।
হালকা সোয়েটারের সঙ্গে স্কার্ফ
শীতে ফ্যাশনেবল নারীরা হালকা সোয়েটার কিংবা বিভিন্ন কটি পরতে পছন্দ করেন। কিন্তু সোয়েটার বা কটির সঙ্গে ওড়না থেকে স্কার্ফ বেশি মানায়। সোয়েটারের রঙের সঙ্গে মিলিয়ে মাল্টিকালারের ফুলেল প্রিন্ট কিংবা চেকের স্কার্ফ পোশাকে এনে দেবে ভিন্নতা। হালকা সোয়েটারের সঙ্গে ফ্রেঞ্চ নক, ডাবল লুপ, ক্ল্যাসিক লুপ, কজি নেক র‌্যাপ স্টাইলে স্কার্ফ বাঁধা যায়।
গার্লস পি কোটের সঙ্গে স্কার্ফ
বেশি শীতে ভারী পি কোট বা পি জ্যাকেটের সঙ্গে শীত থেকে নাক, কান, গলা সুরক্ষিত রাখার জন্য শীতের স্কার্ফগুলো পরা যায়। এটি আপনাকে যেমন ফ্যাশনেবল করবে তেমন শীত থেকেও বাঁচাবে। গলায় পেঁচিয়ে, মাথায় পাগড়ি করেও পরতে পারেন। নিউমার্কেটে স্কার্ফ কিনছিলেন আখিঁ আনন্দী। তিনি বললেন, জ্যাকেট কিংবা সোয়েটারের সঙ্গে স্কার্ফ পরতে বেশ ভালো লাগে। শীতে এটি বেশ আরামদায়কও হয়।
হাতে বা ব্যাগে বাঁধা স্কার্ফ
একটু ভিন্নভাবে নিজেকে উপস্থাপন করতে পছন্দ করলে হাতে বা ব্যাগের সঙ্গে স্কার্ফটি বেঁধে নিতে পারেন। সরু স্কার্ফগুলো ভাঁজ করে হাতে বা ব্যাগের হাতলের সঙ্গে বাঁধা যায় যেকোনো মৌসুমেই।
কত দামে কোথায় পাবেন
শীত উপলক্ষে স্কার্ফের সংগ্রহ বেড়েছে শপিং মলগুলোতে। রাজধানীর আড়ং, ক্যাটস আই, ট্রেন্ডজ, রঙ বাংলাদেশ, সেলিব্রেশনসহ আরও বেশ কিছু ফ্যাশন হাউসে পাওয়া যাচ্ছে। এ ছাড়া স্কার্ফ পাওয়া যাবে বসুন্ধরা সিটি, যমুনা ফিউচার পার্ক, নিউমার্কেট, চাঁদনী চক, গাউছিয়া ও বঙ্গবাজারে।

স্কার্ফের কাপড়, ধরন আর স্থান অনুযায়ী দামের পার্থক্য হয়। যেমন আড়ংয়ে ৩৫০-৫৫০ টাকার মধ্যে সিল্ক, সুতি ও মাল্টিকালারের স্কার্ফ পেয়ে যাবেন। ট্রেন্ডজ, রঙ বাংলাদেশ, সেলিব্রেশনের স্কার্ফগুলো পাবেন ৩০০-২০০০ টাকার মধ্যে। নিউমার্কেট, চাঁদনী চক, গাউছিয়া ২০০-১০০০ টাকায় সংগ্রহ করতে পারেন স্কার্ফ।