চামড়াবিহীন জুতায় বড় স্বপ্ন


চট্টগ্রামের চান্দগাঁও শিল্প এলাকার ম্যাফ সুজ কারখানার চারটি ভবনে প্রায় চার লাখ বর্গফুট আয়তনের মেঝেতে একসঙ্গে কাজ করেন সাড়ে ৪ হাজার শ্রমিক। প্রতিদিন কারখানাটিতে তৈরি হয় প্রায় ২০ হাজার জোড়া চামড়াবিহীন কেডস ও ১৫ হাজার জোড়া স্যান্ডেল। কয়েক’শ শ্রমিক তৈরি করছে নানা নকশায় হাজারো জুতা, যা চামড়ার নয়। এতে মূল উপাদান হিসেবে কৃত্রিম চামড়া (সিনথেটিক), রাবার, প্লাস্টিক কিংবা কাপড় ব্যবহার করা হয়। আর সেগুলো রপ্তানি হচ্ছে বিশ্বের নামী ব্র্যান্ডগুলোর কাছে।
শনিবার ২৫ মার্চ দৈনিক প্রথম আলোতে প্রকাশিত  চামড়াবিহীন জুতায় বড় স্বপ্ন’ একটি প্রতিবেদন থেকে এ তথ্য নেয়া হয়েছে।
২০১৫-১৬ অর্থবছরে এই কারখানা থেকে ৫৩ লাখ জোড়া জুতা ও স্যান্ডেল রপ্তানি হয়, যা থেকে আয় হয় ২ কোটি ৫৫ লাখ ডলার। আগের বছরের চেয়ে এ কারখানার রপ্তানি বেড়েছে ১৬৮ শতাংশ।
উদ্যোক্তারা পত্রিকাটিকে জানান, কোনো জুতার ৬০ শতাংশের বেশি উপাদান চামড়ার হলে সেটিকে চামড়ার জুতা হিসেবে গণ্য করা হয়। এর কম হলে তা নন-লেদার বা চামড়াবিহীন জুতা হিসেবে স্বীকৃত। ‘বাংলাদেশ ফুটওয়্যার ইন্ডাস্ট্রি রিপোর্ট ২০১৬’ অনুযায়ী, ২০১৫ সালে বিশ্বে চামড়াবিহীন জুতার বাজারের আকার ছিল ৪ হাজার কোটি বা ৪০ বিলিয়ন ডলার। বিপরীতে চামড়া জুতার বাজারের আকার ছিল সাড়ে ৬ হাজার কোটি বা ৬৫ বিলিয়ন ডলার।
এ খাতে বাংলাদেশের রপ্তানি আয় এখনো নগণ্য। অবশ্য চামড়াবিহীন জুতার বড় উৎপাদক দেশ চীনের শ্রমের মজুরি বেড়ে যাওয়ায় বাংলাদেশের বড় সম্ভাবনা তৈরি হয়েছে বলে দাবি উদ্যোক্তাদের।
ম্যাফ সুজের নির্বাহী পরিচালক মো. জসীম আহমেদ পত্রিকাটিকে বলেন, চামড়ার জুতা রপ্তানি করে ২০ বছরে যে আয় হয়েছে, চামড়াবিহীন জুতায় তা ১০ বছরে করা সম্ভব। তবে এ জন্য চামড়াবিহীন জুতাকেও নীতি সহায়তা দিতে হবে।
তিনি এ খাতে চামড়ার জুতার মতো নগদ সহায়তা দাবি করে বলেন, শ্রমঘন শিল্প হওয়ায় এ খাতে কর্মসংস্থানের সুযোগ বেশি। স্থানীয় উৎস থেকে কাঁচামাল ব্যবহার করা হলে মূল্য সংযোজনও ৬৫ শতাংশের বেশি হবে।