অল্প একটু মিষ্টিমুখ: আঙ্গুরি রসমালাই

 


মিষ্টি খেতে পছন্দ করেন সবাই, বিশেষ করে তা যদি হয় রসগোল্লা বা রসমালাই তবে তো আর কথাই নেই! বেশিরভাগ মানুষ মাতৃভান্ডারের রসমালাই বলতে অস্থির। তবে এই খাবারটি আপনি নিজেও ঘরে তৈরি করতে পারেন। সাধারণ রসমালাইয়ের সাথে আঙ্গুরি রসমালাইয়ের পার্থক্য হলো এর আঙ্গুরের মত গোল ছোট্ট আকৃতি। অল্প করে মিষ্টি খেতে চাইলে এই রেসিপি অনুসরণ করতে পারেন। দেখে নিন প্রণালীটি।


উপকরণ
মিষ্টি তৈরির জন্য
- ১ লিটার দুধ
- একটি বড় লেবুর রস, ২ চা চামচ পানির সাথে মেশানো
- আধা টেবিল চামচ ময়দা
- আধা চা চামচ সুজি
- সিকি চা চামচ এলাচ গুঁড়ো
শিরা তৈরির জন্য
- ৫ কাপ পানি
- সোয়া দুই কাপ চিনি এবং গুড়ের মিশ্রণ
- আধা চা চামচ এলাচ গুঁড়ো
মালাই তৈরির জন্য
- ১ লিটার দুধ
- ৫/৬ টেবিল চামচ গুঁড়
- আপনার পছন্দের কিছু বাদাম কুচি

প্রণালী
১) মিষ্টি তৈরির দুধ ফুটিয়ে নিন একটি প্যানে। দুধ ফুটে এলে আঁচ কমিয়ে নিন। এতে লেবুর রস দিয়ে দুধটা নেড়ে দিন। দুধ কেটে যাওয়া শুরু করলে আঁচ থেকে নামিয়ে নিন প্যানটি। এভাবে ৫-৭ মিনিটে রেখে দিন। ছানাটা পানিতে একটু ধুয়ে নিন। এরপর ছানাটুকু কাপড়ে বেঁধে ঝুলিয়ে রাখুন পানি ঝরার জন্য। ৪৫ মিনিট থেকে এক ঘন্টা পর এটা বের করে নিন।

২) ছানার সাথে আধা চা চামচ সুজি, আধা চা চামচ ময়দা, ১ চা চামচ চিনি ও এলাচ গুঁড়ো দিয়ে মাখিয়ে নিন। হাতের তালু দিয়ে চেপে চেপে মাখান। হাতে তেল উঠে আসা পর্যন্ত মাখিয়ে নিন। এরপর এই ডো থেকে ৩০-৩৫টি ছোট ছোট আঙ্গুর আকৃতির বল তৈরি করে নিন।

৩) বড় একটি ঢাকনাওয়ালা পাত্রে শিরা তৈরির পানি ও চিনি ফুটতে দিন পাঁচ মিনিট। এরপর এতে মিষ্টিগুলো দিয়ে দিন। ঢাকনা চাপা দিয়ে রাখুন। মাঝারি আঁচে রাখুন ২৫ মিনিট। এরপর ঢাকনা খুলে চেক করুন। মিষ্টি আগের চাইতে আকারে বড় এবং নরম দেখা যাবে। আঁচ বন্ধ করে দিন। মিষ্টিগুলোকে শিরা থেকে নামিয়ে একটু চিপে রাখুন।

৪) আরেকটি পাত্রে মালাই তৈরির দুধ গরম করে নিন কম আঁচে। নেড়ে নিন যাতে নিচে পুড়ে না যায়। ঘন হয়ে অর্ধেক হয়ে এলে এতে গুড় দিয়ে দিন। গুড় গলে গেলে এতে দিন এলাচ গুঁড়ো এবং মিষ্টিগুলো। কয়েক মিনিট এই মালাইতে গরম হতে দিন মিষ্টিগুলোকে। চিনি চেখে দেখুন। এরপর আঁচ বন্ধ করে দিন।

আপনার আঙ্গুরি রসমালাই প্রস্তুত। এতে বাদামকুচি দিয়ে পরিবেশন করুন।

ইচ্ছে হলে এই একই রেসিপিতে সাধারণ আকার-আকৃতির রসমালাই তৈরি করতে পারেন।

মিষ্টি খেতে পছন্দ করেন সবাই, বিশেষ করে তা যদি হয় রসগোল্লা বা রসমালাই তবে তো আর কথাই নেই! বেশিরভাগ মানুষ মাতৃভান্ডারের রসমালাই বলতে অস্থির। তবে এই খাবারটি আপনি নিজেও ঘরে তৈরি করতে পারেন। সাধারণ রসমালাইয়ের সাথে আঙ্গুরি রসমালাইয়ের পার্থক্য হলো এর আঙ্গুরের মত গোল ছোট্ট আকৃতি। অল্প করে মিষ্টি খেতে চাইলে এই রেসিপি অনুসরণ করতে পারেন। দেখে নিন প্রণালীটি।