যাত্রা শুরু হলো উড়ুক্কু গাড়ির

যাত্রা শুরু হলো উড়ুক্কু গাড়ির 


মানুষের দীর্ঘদিনের স্বপ্ন উড়ুক্কু যান। যেটা একই সঙ্গে রাস্তায় চলবে এবং প্রয়োজন হলে উড়বে আকাশে। বিশেষ করে রাস্তায় যখন কেউ অসহনীয় জ্যামে পড়ে, তখন উড়ুক্কু যানের চিন্তা অনেক বেশি মাথায় আসে। অবশেষে মানুষের এই চিন্তার বাস্তবায়ন ঘটল। স্লোভাকিয়ান অ্যারো মোবিল নামের একটি প্রতিষ্ঠান প্রথমবারের মতো এ ধরনের গাড়ি বাজারে নিয়ে এলো। এই গাড়িটি প্রতি ঘন্টায় ২২৪ মাইল বেগে আকাশে ওড়ার ক্ষমতা রাখে।


স্লোভাকিয়ান প্রতিষ্ঠান উড়ুক্কু যানটি বাজারে নিয়ে এলেও সবাই এটা ব্যবহারের সুযোগ পাবেন না। শুধু আগে থেকে যারা অর্ডার করেছিলেন তারাই পাবেন একই সঙ্গে রাস্তায় চলা এবং আকাশে ওড়ার স্বাদ। তবে ২০২০ সাল নাগাদ এ ধরনের গাড়ি ব্যাপকভাবে বাজারজাত করা হবে বলে আশা করা হচ্ছে। ফলে ওই সময় যে কেউ চাইলে উড়ুক্কু গাড়ির মালিক হতে পারবেন। এ জন্যও অবশ্য আগে থেকে অর্ডার করে রাখলেই ভালো। কেননা, ইতিমধ্যে এ গাড়িটির ব্যাপক চাহিদা তৈরি হয়েছে। ফলে ২০২০ সালে গাড়ি পেতে এখনই অর্ডার করা নিরাপদ। মাটি এবং আকাশ দুই জায়গায়েই বিচরণকারী এ যান কিনতে গ্রাহককে খরচ করতে হবে ১ দশমিক ৩ মিলিয়ন




রাস্তায় স্বপ্নের এ গাড়িটি একবারের জ্বালানি ব্যবহার করে ঘণ্টায় সর্বোচ্চ ১০০ মাইল গতির মধ্য দিয়ে ৪৩৪ মাইল পথ পাড়ি দিতে পারবে। অন্যদিকে আকাশ পথে পাড়ি দিতে পারবে ৪৬৬ মাইল। উড়ুক্কু যান রাস্তা থেকে উড়তে সময় নেবে মাত্র তিন মিনিট। তবে এটা চালাতে হলে চালকের পাশাপাশি পাইলটের লাইসেন্সও

মানুষের দীর্ঘদিনের স্বপ্ন উড়ুক্কু যান। যেটা একই সঙ্গে রাস্তায় চলবে এবং প্রয়োজন হলে উড়বে আকাশে। বিশেষ করে রাস্তায় যখন কেউ অসহনীয় জ্যামে পড়ে, তখন উড়ুক্কু যানের চিন্তা অনেক বেশি মাথায় আসে। অবশেষে মানুষের এই চিন্তার বাস্তবায়ন ঘটল। স্লোভাকিয়ান অ্যারো মোবিল নামের একটি প্রতিষ্ঠান প্রথমবারের মতো এ ধরনের গাড়ি বাজারে নিয়ে এলো। এই গাড়িটি প্রতি ঘন্টায় ২২৪ মাইল বেগে আকাশে ওড়ার ক্ষমতা রাখে।