চলে গেলেন বিনোদ খান্না

 


তাকে বলা হয় বলিউড অন্যতম হার্টথ্রব। সত্তর-আশির দশকের ঝড় তোলা সেই নায়ক বিনোদ খান্না আর নেই। থেমে গেছে তার হৃদয় স্পন্দন। বৃহস্পতিবার সকালে সবাইকে ছেড়ে পরপারে পাড়ি জমিয়েছেন বিনোদ (৭০)।

 



বর্ণাঢ্য ক্যারিয়ারে তিনি অভিনয় করেছেন শতাধিক সিনেমায়। এছাড়া রাজনীতিতেও ছিল তার সরব বিচরণ। পাঞ্জাবের গুরুদাসপুর থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছিলেন তিনি। মৃত্যুর সময় তার পাশে ছিলেন স্ত্রী কবিতা খান্না, ছেলে রাহল ও অক্ষয় খান্না এবং মেয়ে শ্রদ্ধা।

১৯৭০ ও ৮০ এর দশকে সবচেয়ে বেশি উজ্জ্বল ছিলেন বিনোদ। প্রথমদিকে তাকে নেতিবাচক ও ছোট চরিত্রের জন্য প্রস্তাব করা হতো। ১৯৬৮ সালে ‘মান কা মিত’ ছবিতে অভিষেক হয় তার। মেরে আপনে, মেরা গাঁও মেরা দেশ, ইমতিহান, ইনকার, অমর আকবর অ্যানথনি ছবি দিয়ে আলো কাড়েন তিনি।

‘হাতি মেরা সাথি’ ছবির জন্য তিনি ফিল্মফেয়ার পুরস্কার জেতেন। এরপর ১৯৯৯ (ফিল্মফেয়ার), ২০০১ (কালাকার) ও ২০০৭ (জি-সিনে পুরস্কার) সালে পান আজীবন সম্মাননা পুরস্কার।

১৯৮২ সালে তিনি অভিনয় থেকে অবসরে যান। এরপর পাঁচ বছর পরে আবারও ‘ইনসাফ’ ও ‘সত্যমে জয়তে’ ছবির মাধ্যমে সদর্পে ফিরে আসেন।

রাজনীতিতে ব্যস্ত থাকলেও বলিউডে ঠিকই নিজের জাদু দেখিয়েছেন। বলিউড অন্যতম খান সালমান তাকে সৌভাগ্যের প্রতীক হিসেবে বিবেচনা করতেন। এপ্রিলের প্রথম সপ্তাহে অসুস্থ বিনোদকে দেখতেও গিয়েছিলেন সালমান।  তার সর্বশেষ জনপ্রিয় ছবিগুলোর মধ্যে আছে- ‌ দাবাং, প্লেয়ার্স ও দিলওয়ালে।

তাকে বলা হয় বলিউড অন্যতম হার্টথ্রব। সত্তর-আশির দশকের ঝড় তোলা সেই নায়ক বিনোদ খান্না আর নেই। থেমে গেছে তার হৃদয় স্পন্দন। বৃহস্পতিবার সকালে সবাইকে ছেড়ে পরপারে পাড়ি জমিয়েছেন বিনোদ (৭০)।