ঘরোয়া ৪ টি উপায়ে দূর করুন চিবুকের কালো দাগ

ঘরোয়া ৪ টি উপায়ে দূর করুন চিবুকের কালো দাগ
ত্বকে কালো ছোপ পড়লে বা ত্বকের রঙ নষ্ট হয়ে গেলে তা সৌন্দর্যের জন্য হানিকর হয়। হরমোনের ওঠানামা বা পরিবর্তনের কারণে, অনেক বেশি ওয়াক্সিং করালে, ধূমপান করলে,  মাত্রাতিরিক্ত থ্রেডিং করলে এবং মুখের ত্বকে মরা চামড়া জমে থাকলেও হাইপারপিগমেন্টেশন সৃষ্টি হয়। এর ফলে ঠোঁট ও চিবুকের চারপাশের ত্বক কালো দেখায়। চিবুকের এই কালো দাগ দূর করার কার্যকরী কিছু উপায় জেনে নিই চলুন।

পেঁপে

পেঁপেতে প্যাপেইন নামক ত্বক পরিষ্কারক এনজাইম থাকে এবং ভিটামিন এ ও ভিটামিন সি থাকে যা ঠোঁট এবং চিবুকের চারপাশের ত্বকের কালো দাগ দূর করতে সাহায্য করে। কাঁচা পেঁপে চটকে নিয়ে এর সাথে মুলতানি মাটি এবং কয়েকফোঁটা গোলাপজল মিশিয়ে পেস্ট তৈরি করুন। এবার এই পেস্ট আক্রান্ত ত্বকে প্রয়োগ করুন। নিয়মিত ব্যবহারের ফলে আক্রান্ত স্থানের ত্বকের বর্ণ হালকা হতে সাহায্য করবে। পেঁপের উপাদান এবং মুলতানি মাটি ত্বককে ফর্সা ও সুন্দর করবে। 

কাঁচা দুধ


দুধ ব্লিচিং এজেন্ট হিসেবে এবং ময়েশ্চারাইজার হিসেবেও কাজ করে। দুধ দিয়ে ত্বক পরিষ্কার করলে ত্বকের গভীর থেকে ময়লা বের করে আনতে সাহায্য করে। প্রথমে ভালো করে পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে নিন, তারপর কাঁচা দুধে কটন বল চুবিয়ে নিয়ে তা দিয়ে ত্বক পরিষ্কার করে নিন। বৃত্তাকারে চিবুকে ম্যাসাজ করতে থাকুন, এতে চিবুকের সব ময়লা দূর হবে।

তেল

অলিভ অয়েল, নারিকেল তেল, কাঠবাদামের তেলে ভিটামিন ই থাকে যা শুষ্ক ও রুক্ষ ত্বককে নরম কোমল হতে সাহায্য করে। অলিভ অয়েল এ অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট থাকে যা কালচে এবং ক্ষতিগ্রস্থ ত্বকের মেরামতে সাহায্য করে। এই তেলগুলোর যেকোনটি আপনার চিবুকে ব্যবহার করুন ঘুমাতে যাওয়ার আগে।

লেবু

আধা চামচ কেওলিন মাটি (kaolin) এবং চন্দনের গুঁড়ার সাথে শশার রস যোগ করুন, এর সাথে  কয়েকফোঁটা লেবুর রস এবং মধু মিশিয়ে পেস্ট তৈরি করেন। ত্বকের কালো ছোপের স্থানে এই পেস্ট মাখিয়ে নিন। কিছুক্ষণ পরে কুসুমগরম পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। লেবুতে ভিটামিন সি এবং সাইট্রিক এসিড থাকে যা ত্বকের রঙ হালকা করার সবচেয়ে ভালো প্রাকৃতিক উপাদান, আর শশার রস ত্বককে হাইড্রেটেড রাখতে এবং ত্বকের বর্ণ হালকা করতে সাহায্য করে।