Facebook-employees-are-living-in-the-car-without-spending-the-cost-of-apartment-rentals 


যুক্তরাষ্ট্রের সিলিকন ভ্যালিতে অ্যাপার্টমেন্ট ভাড়া খুবই ব্যয়বহুল। আর উচ্চমূল্যের অ্যাপার্টমেন্ট ভাড়ার খরচ যোগাতে না পেরে পিংকি পারশা নাম ফেসবুকের একজন কর্মী বাধ্য হয়েছেন নিজের গাড়িতে বসবাস করতে। ডেইলি মেইলের এক প্রতিবেদনে এই খবর প্রকাশ করা হয়।


পারশার পিংক  রঙের চুল, পিংক কার এবং পিংক রঙের কুকুরের জন্য অপ্রকাশ্যে তিনি ‘পিংকি’ নামে পরিচিতি পেয়েছেন। পিংকি জানান, তিনি এপ্রিল মাস থেকে গাড়িতে থাকছেন। কেননা সিলিকন ভ্যালিতে এক বেডরুমের অ্যপার্টমেন্টের মাসিক ভাড়া ২ হাজার ৩০০ মার্কিন ডলার। আর পিংকির মেডিকেল বিল এবং ‘স্টুডেন্ট লোন’ শোধ করতে গিয়ে তাকে এতোবড় সোশ্যাল মিডিয়ায় কাজ করেও গাড়িতে দিন কাটাতে হচ্ছে।

পারশা বলেন, আমি সবসময় মানুষকে বলি, মানুষ কী পাচ্ছে এবং বাইর থেকে কী দেখা যাচ্ছে সেগুলো দেখা বন্ধ করুন। কারণ এগুলো সঠিক নয়। তবে তিনি লোকলজ্জার কারণে এতদিন বিষয়টি প্রকাশ করেননি। পিংকির মতে, প্রতিষ্ঠানগুলোর উচিত তাদের কর্মীদের বেতনের দিকে নজর দেওয়া। এবং কর্মীরা এই বেতনে জীবন যাপন করতে পারেন কিনা সেটা তাদের জানাটা খুবই জরুরি বলেও মনে করেন তিনি।

এই অভিযোগের প্রেক্ষিতে ফেসবুক বলছে, পারশা ফেসবুকের সরাসরি কোনো কর্মী নয় আর যারা কন্ট্রিবিউটর হিসেবে কাজ করেন তাদের জন্য প্রতিষ্ঠানটি কয়েক মাসের জন্য ২ কোটি ডলার বরাদ্দ করে রেখেছে। এবং ফেসবুক সবসময় প্রত্যেক কর্মীর জন্য সমান সুযোগ সৃষ্টিতে বিশ্বাসী।

পিংকি পারশা সাবেক একজন অভিনেত্রী এবং দুই সন্তানের জননী। তিনি চুক্তিভিত্তিক কন্ট্রিবিউটর হিসেবে ফেসবুকে দুইমাস আগে যোগ দিয়েছে।


হালকা সাজে ভারী গহনা

    ভারী আর লম্বা রঙিন নেকলেস এখনকার ফ্যাশন ট্রেন্ডে বেশ জনপ্রিয়তা পেয়েছে। বিশেষ করে তরুণীদের প্রিয় টপসের সঙ্গী এখন রঙবেরঙের, আকৃতিতে বড় ও বাহারি নকশার নেকলেস। ছিমছাম পোশাকের সঙ্গে কিংবা সাদামাটা পোশাকের সঙ্গে একটি নেকলস কিংবা দুই-তিন ছড়ার চিকই আপনাকে করে তুলবে রঙিন। একসময় কানে বড় গহনা পরলে গলার গহনা হতো তার উল্টোটি। আবার পোশাকের অনুষঙ্গ হবে গহনা একসময় চলটা ছিল এমনি। এখনকার গলার গহনাগুলো বদলে দিয়েছে এই ফ্যাশন ট্রেন্ড। এখন শুধু একটি গলার গহনাই যথেষ্ট। এর সঙ্গে কানে দুল না পরলেই ভালো লাগবে। আবার গলার এই গহনা মিলিয়েও পোশাক নির্বাচন করছেন অনেকে।


গোল্ড প্লেটেড, তামা, এন্টিক, পিতল, পার্ল, ব্রাসো নানা উপাদানে তৈরি করা হচ্ছে এই সময়ের গলার গহনাগুলো। বোল্ড, চাংকি, চোকার, বিব, কলার, এথনিক, লহরি চিক, বোহিমিয়ান বা হিপ্পি ধাঁচের দু-তিন ছড়ার নেকলেস নানা নামে ও ডিজাইনে গলার গহনাগুলো এখন ফুটিয়ে তুলছে স্টাইলিশ লুক।

রঙের ক্ষেত্রে তামা, গোল্ডেন, অক্সিডাইজড, সাদা, অফহোয়াইট, বটল গ্রিন, মেরিগোল্ডসহ বিভিন্ন রঙের পাওয়া যাচ্ছে। মেটাল ও এন্টিকের লম্বা গহনাগুলোর ডিজাইনে ফুটে উঠেছে নান্দনিকতা। ফুল, পাতা, কলকা, পয়সা, জ্যামিতিকসহ নানা নকশা ব্যবহার হয়েছে। এগুলো চাইলে সোনা দিয়েও তৈরি করতে পারেন। এথনিক গহনাগুলো অক্সিডাইজড রঙের। ছড়ানো এবং ভারী এক থেকে তিন ছড়ায় তৈরি হচ্ছে এই গহনাগুলো।

এগুলো দেখতে ভারী, তবে ওজনে হালকা। ভারী গলার হার আর নেকলেসগুলোর কোনোটিতে ফুটে উঠছে ট্রাইবাল লুকও। গোল্ড প্লেটেড, পার্লের লম্বা গহনার কোনোটিতে রুবি, পান্না, প্রবাল পাথর বসিয়ে ফুটিতে তোলা হচ্ছে আভিজাত্য। ভারী আর লম্বা গলার গহনার মধ্যে কোরিয়ান নেকলেসগুলোয় পাথরের ব্যবহার বেশি। ভারতীয় নেকলেসগুলো নানা রকম ধাতুর তৈরি হয়ে থাকে।

‘যাদের গলা লম্বাটে তাদের লহরি বা ছড়ার চিক কিংবা গলার কাছে এঁটে থাকে এমন গহনায় ভালো দেখাবে। গলায় ভারী গহনা পরলে কানে ছোট দুল আর কানে ভারী গহনা পরলে গলায় কিছু না পরলেই ডিসেন্ট দেখাবে। খাটো গলায় ভারী আঁটসাঁট গহনা পরলে গলা আরও ছোট দেখায়। এ ক্ষেত্রে লম্বা নেকলেস কিংবা হার ভালো দেখাবে।

‘গহনা অবশ্যই পোশাকের সঙ্গে মানানসই হওয়া উচিত। কামিজ, টপ, গাউন ও ম্যাক্সি ড্রেসের সঙ্গে ফ্যাশনেবল ভারী নেকলেসগুলো খুব মানাবে। আবার সোনালি, তামা, এন্টিক রঙের ছড়ানো, ভারী নেকলেসগুলো মানাবে শাড়ি, সালোয়ার-কামিজের সঙ্গে। লম্বা পোশাকের গলার অংশটা লো কাট বা ছড়ানো হলে গলার নিচের ওই খালি অংশটা ভরাট করে ফ্যাশনেবল নেকলেস পরুন। পোশাকের ওপরের ভাগে নকশা থাকলে তাতে নেকলেস ও পোশাকের নকশা দুটোই চাপা পড়ে যাবে। ছড়ানো এবং উপরের অংশে সাদামাটা কাজের পোশাকের সঙ্গেই এ ধরনের গহনা বেশি মানানসই।’

মেটালের ট্র্যাডিশনাল ভারী গলার গহনা ৪০০-১ হাজার ৫০০ টাকা, মেটালের ছড়ানো লম্বা নেকলেস ৪৫০-১ হাজার ২০০, স্টোন বসানো ইমিটেশনের ২০০-৪ হাজার, গোল্ড প্লেটেড ১ হাজার ৫০০-১৫ হাজার, রুবি, পান্না পাথর বসানো লম্বা গলার গহনা ৩ হাজার-১০ হাজার, কপার ১ হাজার-৩ হাজার, এথনিক ৪০০-৮০০ টাকা।

আড়ং, বিবিআনা, অঞ্জন’স, রঙ, যাত্রা, আইডিয়াসে সোনালি রঙা ব্রাসো, মেটাল ও এন্টিকের ছড়ানো লম্বা গলার গহনা পাওয়া যাবে। জেমস, লা বেলা স্টুডিও, আরবান ট্রুথ এবং জেড গ্যালারিতেও পাবেন পাথর ও ধাতুর তৈরি ভারী নেকলেস। এ ছাড়া গাউসিয়া, চাঁদনী চক, মৌচাক মার্কেট, বসুন্ধরা সিটি, রাইফেলস স্কয়ার, বেইলি স্টার শপিংমল থেকেও কিনতে পারেন সোনা, মেটাল, ব্রাসো, এথনিকসহ বিভিন্ন ধরনের ভারী আর লম্বা গলার গহনা।

 

ইন এশিয়া প্যাসিফিক। ‍উৎসবে ২০টি দেশের ৫৪টি জমা পড়েছিল। প্রতিযোগিতা হয়েছে ১৭টি শাখায়। এরমধ্যে ইমপ্রেস টেলিফিল্মের ‘অজ্ঞাতনামা’ সেরা চলচ্চিত্রের পুরস্কার পায়।

অনুষ্ঠানে পুরস্কারটি গ্রহণ করেন ইমপ্রেস টেলিফিল্ম লিমিটেড ও চ্যানেল আইয়ের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ফরিদুর রেজা সাগর, নির্মাতা গোলাম রাব্বানী বিপ্লব।

উৎ​সবে বাংলাদেশসহ আরও অংশ নিয়েছে- ভারত, নেপাল, জাপান, ভিয়েতনাম, দক্ষিণ কোরিয়া, অস্ট্রেলিয়া, রাশিয়া, চীন, মালয়েশিয়া, থাইল্যান্ড, তাইপে, হংকং, ইন্দোনেশিয়া, ইরান, ফিলিপাইন, শ্রীলঙ্কা ও মঙ্গোলিয়া।

‘অজ্ঞাতনামা’ ছবির কাহিনি, চিত্রনাট্য ও সংলাপ লেখার পাশাপাশি পরিচালনা করেছেন তৌকীর আহমেদ।

চলচ্চিত্রটির মূল বিষয় গলাকাটা পাসপোর্টের মাধ্যমে তীব্র অভিবাসন সংকট ও মানবেতর জীবন যাপন।

ছবির কেন্দ্রীয় চরিত্রে অভিনয় করেছেন ফজলুর রহমান বাবু, মোশাররফ করিম, নিপুণ ও শহীদুজ্জান সেলিম। তাদের পাশাপাশি ছিলেন আবুল হায়াত, শাহেদ শরীফ খান, শতাব্দী ওয়াদুদ, শাহেদ আলী সুজন, মোমেনা চৌধুরী, সুজাত শিমুল, নাজমুল হুদা বাচ্চু, শিশুশিল্পী আপন, সায়েম প্রমুখ।

 গ্রামীণফোন থেকে ২৩৪ কর্মী বিদায়

দেশের শীর্ষ মোবাইল ফোন অপারেটর গ্রামীণফোনে নিয়মিত ভলান্টারি রিটায়ারমেন্ট স্কিম বা ভিআরএস নামে চলমান কর্মী ছাঁটাই প্রক্রিয়ায় আজ ৩১ জুলাই সোমবার বিদায় নিচ্ছেন ২৩৪ জন কর্মী। গত ২৯ জুন থেকে ১৮ জুন পর্যন্ত এই ভিআরএস ঘোষণা করা হলেও পরবর্তীতে ৭ দিন সময় বৃদ্ধি করে ২৫ জুন পর্যন্ত সময় বর্ধিত করা হয়। গত ১৮ জুন পর্যন্ত সব মিলে প্রায় ৭০ জন ভিআরএস-এর জন্য আবেদন করেছিল। কর্তৃপক্ষ আশা করছিল এ সংখ্যা পাঁচ শতাধিক ছাড়িয়ে যাবে। তবে এ সময়ের মধ্যে গ্রামীণফোনের এইচআর বিভাগের অনেকেই দেশের বাইরে থাকার কারণে এ বিষয়ে কাজ করতে পারেনি বলেই এই সময় বৃদ্ধি করা হয়। বাকি সাত দিনে এ সংখ্যা ২৩৪ পর্যন্ত নিতে সক্ষম হয় গ্রামীণফোন।


সর্বশেষ ভিআরএস প্রকল্পে গ্রামীণফোনে অন্তত ৩১ জুলাই পর্যন্ত টানা পাঁচ বছর কাজ করেছেন এমন কর্মীরা এই স্কিমে আবেদন করতে পেরেছেন। তবে সর্বশেষ টেলিনর ডেভেলপমেন্ট প্রসেস বা টিডিপি থেকে টপ ট্যালেন্ট গ্রামীণফোন ছাড়তে অনুমতি পাননি। এছাড়া ৩১ জুলাই এর মধ্যে যাদের বয়স ৫৮ বা তদূর্ধ্ব হবে তারা এই স্কিমের আওতাভুক্ত ছিলেন না। উল্লেখ্য, গত ২৬ মে নিয়োগপ্রাপ্ত গ্রামীণফোনের নতুন প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) মাইকেল ফোলি গত ১৩ জুন মঙ্গলবার তার প্রথম টাউন হলে নতুন ভিআরএস সম্পর্কে কর্মীদের অবগত করেন। তিনি বলেন, ‘গ্রামীণফোনে আগামী জুলাই মাসে নতুন ভিআরএস ঘোষণা করা হবে। যারা এই স্কিমের আওতায় চলে যেতে চান তারা ১ জুলাই থেকে প্রস্তুতি গ্রহণ করুন।’

অবশ্য গ্রামীণফোন এই উদ্যোগকে ‘কর্মী ছাঁটাই’ এর পরিবর্তে ‘ঐচ্ছিক অবসর’ হিসেবে দাবি করেছে। নতুন করে কর্মী ছাঁটাই প্রসঙ্গে গ্রামীণফোনের হেড অব এক্সটার্নাল কমিউনিকেশনস সৈয়দ তালাত কামাল  বলেন, ‘গ্রামীণফোনের ভিআরএস কর্মীদের জন্য সম্পূর্ণ ঐচ্ছিক বিষয়, এটি কারও উপর জোর করে চাপিয়ে দেয়া হয় না। এর আগেও গ্রামীণফোন টেলিকম শিল্পে সবচেয়ে প্রতিযোগিতামূলক ভিআরএস প্যাকেজ দিয়েছিল, যা কর্মীদের মধ্যে খুব ভালো সাড়া পেয়েছিল।

রিজুর চলচ্চিত্রে শিমুল 


সদ্য শেষ হওয়া ‘জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার ২০১৫'-তে জয়জয়কার ছিল ‘বাপজানের বায়োস্কোপ’ ছবিটির। রিয়াজুল রিজুর এ ছবিটি আসরে সেরা চলচ্চিত্রের পুরস্কারসহ সর্বাধিক ৯টি বিভাগ জয়লাভ করে।


এ নির্মাতা এবার নিয়ে আসছেন তার নতুন ছবি। নাম ‌‘প্রেমের কবিতা’। আর এতে অভিনয় করছেন ছোট পর্দার জনপ্রিয় অভিনেতা মনির খান শিমুল। তিনি ২০০৯ সালে ‘মনপুরা’ ছবিতে সর্বশেষ অভিনয় করেছিলেন। সেটি দেশের অন্যতম ব্যবসাসফল ছবি। যার ফলে ৮ বছর পর নতুন কোনও ছবিতে দেখা যাবে এ অভিনেতাকে।

নতুন ছবিটি সম্পর্কে শিমুল  বললেন, ‘পরিচালকের সঙ্গে আলোচনা হয়েছে। তার পরিকল্পনা হলো সামনে মাস থেকেই এর কাজ শুরু করা আর আগামী বছরের ভালোবাসা দিবসে মুক্তি দেওয়া। এখন সবকিছু পরিকল্পনামাফিক এগুলে একটি ভালো চলচ্চিত্র দর্শকরা পাবেন বলে আশা করি।’

এদিকে রিজু জানান, ছবিটির প্রধান চরিত্রে অভিনয় করবেন শিমুল। এছাড়া অন্যান্য শিল্পীদের নাম শিগগিরই জানা যাবে।

প্রতিদিন মধু-দারুচিনির মিশ্রণ খাচ্ছেন তো?  


আমাদের দৈনিক জীবনের গুরুত্বপূর্ণ দুটি উপাদান হলো মধু এবং দারুচিনি। রান্নার মশলা হিসেবে দারুচিনি বেশ পরিচিত। আর মধুও আপন গুণে গুণান্বিত। ওষধ হিসেবে এই দুটি প্রাচীনকাল থেকে ব্যবহার হয়ে আসছে। কোলেস্টোরল বাড়ছে নিয়ন্ত্রণহীন ভাবে? কিংবা বাতের ব্যথায় কষ্ট পাচ্ছেন? এই সব সমস্যার সমাধান পাবেন মধু-দারুচিনির মিশ্রণ থেকে। সম্পূর্ণ পার্শ্ব প্রতিক্রিয়াবিহীন এই মিশ্রণটি দূর করবে অনেকগুলো রোগ। চলুন জেনে নেওয়া যাক মধু-দারুচিনির স্বাস্থ্যগত উপকারসমূহ।


১। কোলেস্টোরল নিয়ন্ত্রণে রাখে

প্রতিদিন পৌনে ১ চা চামচ দারুচিনি এবং ৫ চা চামচ মধু দেহের খারাপ কোলেস্টোরল কমাতে বিশেষ ভাবে কার্যকরী। চাইলে এই দুটো একসাথে মিশিয়ে মিশ্রন তৈরি করে খেতে পারেন প্রতিদিন। 

২। বাত/আর্থারাইটিস

এক জরিপে দেখা গিয়েছে মধু দারুচিনির পানি পান করার ফলে খুব অল্প সময়ের মধ্যে বাতের ব্যথা কমে গেছে। এক গ্লাস গরম পানিতে দুই টেবিল চামচ মধু আর এক টেবিল চামচ দারুচিনির গুঁড়ো মিশিয়ে নিন। এই পানি প্রতিদিন নিয়ম করে সকালে ঘুম থেকে উঠে আর রাতে ঘুমাতে যাওয়ার আগে পান করুন। কয়েক সপ্তাহের মধ্যে এটি আপনার বাতের ব্যথা কমিয়ে দেবে। 

৩। নিঃশ্বাসে দুর্গন্ধ দূর করতে

কসুম গরম পানিতে মধু ও দারুচিনি মেশান। প্রতিদিন সকালে এটি পান করুন। এটি আপনার মুখের দুর্গন্ধ দূর করে দেবে।

৪। ঠাণ্ডা-সর্দি সারায়

মধু ও দারুচিনি উভয়েই রয়েছে অ্যান্টিফাঙ্গাল, অ্যান্টিভাইলার এবং অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল উপাদান যা ঠাণ্ডা-সর্দির সমস্যা দ্রুত সারায়। প্রতিদিন মাত্র ১ চা চামচ মধুতে ১/৪ চা চামচ দারুচিনি গুঁড়ো মিশিয়ে খান। দ্রুত সমস্যার সমাধান পাবেন।

৫।  চুল পড়া রোধে

অলিভ অয়েলের সাথে ১ টেবিল চামচ মধু, ১ চা চামচ দারুচিনির গুঁড়া মিশিয়ে পেষ্ট তৈরি করে নিন। এটি চুলের ফাঁকা জায়গায় লাগান (যেখান থেকে চুল পড়ে গেছে সেখানে)। ১৫ মিনিট পর কুসুম গরম পানি দিয়ে চুল শ্যাম্পু করে ফেলুন। এটি নতুন চুল গজাতে সাহায্য করবে।

৬। রোগ প্রতিরোধ বৃদ্ধি

নিয়মিত মধু আর দারুচিনির গুঁড়ো খেলে আপনার শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ে। শরীরের ভেতরে অঙ্গ প্রত্যঙ্গগুলো বিভিন্ন রকমের ব্যাকটেরিয়া ও ভাইরাসের সঙ্গে যুদ্ধ করে আপনাকে সুস্থ থাকতে সাহায্য করে।

৭। দীর্ঘায়ু লাভ

তিন কাপ পানিতে চার চামচ মধু এবং এক চামচ দারুচিনির গুঁড়ো মিশিয়ে জ্বাল দিন। এই মিশ্রণটি প্রতিদিন পান করুন। এটি রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে আয়ু বৃদ্ধি করে থাকে।

বিনামূল্যের ওয়াই-ফাই ব্যবহারে যেসব সতর্কতা অবলম্বন করা উচিত 


 বর্তমানে অনেক জায়গাতেই বিনামূল্যের ওয়াই-ফাই সংযোগ থাকে। খাবারের রেস্তোরা কিংবা বিশবিদ্যালয়ের ক্যাম্পাস এমন অনেক জায়গায় পাবলিক ওয়াই ফাই সুবিধা রয়েছে। আর বিনামূল্যের ইন্টারনেট ব্যবহারে অনেকেই স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করেন।  কিন্তু এ ধরনের নেটওয়ার্ক কিছু সময়ের জন্য ব্যবহার করাটা বিপদের কারণ হতে পারে।


আর তাই বিনামূল্যের ওয়াই-ফাই সংযোগ ব্যবহারের ক্ষেত্রে কিছু পরামর্শ দেওয়া হল এখানে-

    বিনামূল্যের ওয়াই-ফাই সংযোগ ব্যবহারের ক্ষেত্রে ডিভাইসের অপারেটিং সিস্টেমটি হালনাগাদ করুন সবসময়। কারণ অপারেটিং সিস্টেমের নিরাপত্তা ত্রুটি কাজে লাগিয়ে ডিভাইসে সংরক্ষিত তথ্য হাতিয়ে নিতে পারে হ্যাকাররা।
    পাবলিক ওয়াই-ফাই নেটওয়ার্ক ব্যবহার খুব বেশি নিরাপদ নয়। এক্ষেত্রে ডিভাইসে অ্যান্টি-ভাইরাস সফটওয়্যার থাকাটা জরুরি বলা যায়।
    পাবলিক ওয়াই-ফাই ব্যবহার করে অনলাইন কেনাকাটা বা ব্যাংকিং লেনদেন করা উচিত নয়।
    কাজ শেষ হলে মোবাইলের ওয়াই-ফাই সংযোগ থেকে বিচ্ছিন্ন করে রাখুন। কারণ ২৪ ঘণ্টা অনলাইনে থাকা মানে হ্যাকিংয়ের শিকার হওয়ার সম্ভাবনা বাড়িয়ে দেয়।
    ভার্চুয়াল পাবলিক নেটওয়ার্ক বা ভিপিএন সফটওয়্যার ছাড়া বিনামূল্যের ওয়াই-ফাই সংযোগ ব্যবহার পরিহার করুন। পাবলিক ওয়াই-ফাই সেবার নিরাপত্তা ব্যবস্থা সাধারণত দুর্বল হয়।

সেলফি স্পেশাল স্লিম ফোন আনল ওয়ালটন 

আকর্ষণীয় সেলফি তোলার সুবিধাযুক্ত নতুন স্মার্টফোন আনল ওয়ালটন। ফোনটির মডেল ‘প্রিমো এইচ৬ লাইট’। এই স্মার্টফোনের ফ্রন্টে রয়েছে এলইডি ফ্ল্যাশযুক্ত ৮ মেগাপিক্সেল ক্যামেরা এই ফোনটি অন্ধকার বা অল্প আলোতেও পাওয়া যাবে নিখুত ও স্পষ্ট সেলফি বা ভিডিও।


আকর্ষণীয় ডিজাইনের সেটটি বেশ পাতলা। এর পুরুত্ব মাত্র ৭.৯ মিলিমিটার। কালো, রূপালি ও সোনালি-এই তিনটি ভিন্ন রঙে সারা দেশে বিস্তৃত ওয়ালটন প্লাজা ও ব্রান্ড আউটলেটে পাওয়া যাচ্ছে নতুন এই ফোন। দাম মাত্র ৯ হাজার ২৯০ টাকা। ফোনটিতে থাকছে ১ বছরের বিক্রয়োত্তর সেবা।

এই ফোনের পেছনে আছে এলইডি ফ্ল্যাশসহ বিএসআই সেন্সরযুক্ত ১৩ মেগাপিক্সেলের অটোফোকাস ক্যামেরা। যাতে নরমাল মোড ছাড়াও ফেস বিউটি, ফেস ডিটেকশন, ডিজিটাল জুম, সেলফ-টাইমার, এইচডিআর, প্যানোরমা, সিন মোডে ছবি তোলা যাবে। উভয় ক্যামেরার ফেস বিউটি ফিচার গ্রাহককে দেবে দাগমুক্ত মসৃণ ও উজ্জ্বল মুখম-লের ছবি। ছবির স্বাভাবিক রঙ ঠিক থাকবে। ছবি হবে স্পষ্ট ও নিখুঁত।

ওয়ালটনের সেল্যুলার ফোন গবেষণা ও উন্নয়ন বিভাগের ডেপুটি ডিরেক্টর আরিফুল হক রায়হান জানান, প্রিমো এইচ৬ লাইট হ্যান্ডসেটে ব্যবহৃত হয়েছে ৫.৫ ইঞ্চির আইপিএস এইচডি প্রযু্িক্তর ডিসপ্লে। এতে আছে ১৬.৭ মিলিয়ন কালার সাপোর্টেড ১২৮০ বাই ৭২০ রেজুলেশনের পর্দা।

নতুন এই ফোনের উচ্চগতি নিশ্চিত করবে ১.৩ গিগাহার্জের কোয়াড কোর প্রসেসর। উন্নত পারফরমেন্সের জন্য ব্যবহৃত হয়েছে ২ গিগাবাইট র্যা ম। গ্রাফিক্স হিসেবে আছে মালি-৪০০। ফলে পছন্দের সব গেম খেলা যাবে অনায়াসেই।

প্রয়োজনীয় ফাইল সংরক্ষণে এই ফোনে রয়েছে ১৬ গিগাবাইট অভ্যন্তরীণ মেমোরি। যা মাইক্রো এসডি কার্ডের মাধ্যমে ১২৮ জিবি পর্যন্ত বর্ধিত করা যাবে। ফলে গ্রাহকের স্মরণীয় মূহূর্তের সব ছবি, ভিডিও, ডকুমেন্টস ইত্যাদি সংরক্ষণ করা যাবে।

ডুয়াল সিম সুবিধার ফোনটি থ্রিজি সমর্থন করে। অ্যান্ড্রয়েডের সবচেয়ে আকর্ষণীয় ও উন্নত সংস্করণ নূগাট ৭.০ অপারেটিং সিস্টেমে পরিচালিত হওয়ায় এই ফোনের কার্যক্ষমতা ও গতি বেশি। একই সঙ্গে মিলবে দারুণ কিছু অতিরিক্ত ফিচার। মাল্টি-উইন্ডো প্রযুক্তি থাকায় একই সঙ্গে ডিসপ্লেতে একাধিক অ্যাপস ব্যবহার করা যাবে।
প্রয়োজনীয় পাওয়ার-ব্যাকআপের জন্য আছে ২৭০০ মিলিঅ্যাম্পিয়ারের লিথিয়াম আয়ন ব্যাটারি। রয়েছে ইন্টিগ্রেটেড ব্যাটারি সেভার ফিচার। যা ব্যাটারিকে ভালো রাখবে। চাজর্ সাশ্রয় করবে।

কানেক্টিভিটির জন্য রয়েছে ওয়াই-ফাই, ব্লুটুথ ভার্সন ৪, মাইক্রো ইউএসবি ২, হটস্পট ও ওটিএ। মাল্টিমিডিয়া ফিচার হিসেবে আছে ফুল এইচডি ভিডিও প্লে-ব্যাক ও রেকর্ডিংসহ এফএম রেডিওর সুবিধা। পজিশনিং সেন্সর হিসেবে রয়েছে জিপিএস এবং এ-জিপিএস নেভিগেশন। অন্যান্য সেন্সরের মধ্যে উল্লেখযোগ্য এক্সিলারোমিটার (থ্রিডি), গ্রাভিটি (থ্রিডি), লাইট (ব্রাইটনেস), প্রক্সিমিটি ইত্যাদি।

উল্লেখ্য, গ্রাহকদের জন্য ওয়ালটন প্রতিনিয়ত বাজারে ছাড়ছে উচ্চ গুণগতমান ও অত্যাধুনিক ফিচারসমৃদ্ধ নতুন নতুন মডেলের স্মার্টফোন। দেশের সকল ওয়ালটন প্লাজা ও ব্র্যান্ড আউটলেটে ০% ইন্টারেস্টে ৬ মাসের ইএমআই সুবিধায় কেনা যায় যেকোনো মডেলের ওয়ালটন স্মার্টফোন। রয়েছে ১২ মাসের কিস্তি সুবিধাও।
আরও জানতে যোগাযোগ করুন ওয়ালটনের কাস্টমার কেয়ারে। যেকোনো মোবাইল এবং ল্যান্ডফোন থেকে ০৯৬১২৩১৬২৬৭ নম্বরে অথবা মোবাইল থেকে ১৬২৬৭ নম্বরে কল করে। ভিজিট করতে পারেন ওয়ালটনের ওয়েবসাইট www.waltonbd.com ঠিকানায়।

রবি’কে একীভূত কোম্পানির লাইসেন্স হস্তান্তর বিটিআরসি’র 


মোবাইল ফোন কোম্পানি রবি আজিয়াটা লিমিটেডের কাছে ‘রবি আজিয়াটা লিমিটেড ও এয়ারটেল বাংলাদেশ লিমিটেড’এর একীভূত কোম্পানির লাইসেন্স তুলে দেওয়া হয়েছে। শনিবার (১৯ জুলাই) রবি’র ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান নির্বাহী (সিইও) মাহতাব উদ্দিন আহমদের হাতে লাইসেন্স হস্তান্তর করেন বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন (বিটিআরসি) এর চেয়ারম্যান ড. শাহজাহান মাহমুদ। রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে এ আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন করা হয় বলে রবি আজিয়াটার পক্ষ থেকে শনিবার এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়।  এসময় ডাক ও টেলিযোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম উপস্থিত ছিলেন।


উল্লেখ্য, উচ্চ আদালতের অনুমোদন নিয়ে ২০১৬ সালের ১৬ নভেম্বর থেকে রবি আজিয়াটা লিমিটেড ও এয়ারটেল বাংলাদেশ লিমিটেড একীভূত হয়ে যায়। এরপর থেকে রবির একটি স্বাধীন ব্রান্ড হিসেবে কাজ করছে এয়ারটেল।

প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম এ ঘটনাকে একটি মাইলফলক হিসেবে অভিহিত করে বলেন, কোম্পানি একীভূত হওয়ার ইতিহাসে বাংলাদেশে এটি ঐতিহাসিক ঘটনা। এর আগে কখনও এতো বড় দুটো কোম্পানি একীভূত হওয়ার মতো ঘটনা ঘটেনি এদেশে। এর ফলে বিনিয়ৈাগ আরও বাড়বে বলেও আশা প্রকাশ করেন তিনি।

এ ব্যাপারে বিটিআরসি-এর চেয়ারম্যান ড. শাহজাহান মাহমুদ বলেন,  একীভূত হওয়ার কোম্পানিটির সেবার মান আরও বৃদ্ধি পাবে বলে আশা করি। জনস্বার্থে যেকোন সহযোগিতা করতে বিটিআরসি সবসময় প্রস্তুত বলেও জানান তিনি।

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে আরও জানানো হয়, বিশ্বের তৃতীয় বৃহত্তম মোবাইল কোম্পানি এয়ারটেল। ভারতের ভারতীয় এন্টারপ্রাইজের একটি কোম্পানি এটি। ২০১৬ সালে মালয়েশিয়ার আজিয়াটা গ্রুপের সাথে একীভূত হওয়ার বিষয়ে সম্মত হয় কোম্পানিটি। এরপর উচ্চআদালতের অনুমতিক্রমে তা বাস্তবায়িত হয়।

মজাদার ইলিশ পোলাও 

চলছে বর্ষাকাল। প্রতিদিনই হচ্ছে বৃষ্টি। এই বৃষ্টির দিনে কী শুধু ভাতে মন ভরে? মাঝে মাঝে মন অন্য কিছুও চায়। এই যেমন খিচুড়ি বেগুনভাজি! তবে বৃষ্টি হলেই যে হারে আমরা খিচুড়ি খাই তাতে অনেক দিনই ইচ্ছে করে আরেকটু নতুন কিছু খেতে। আর সেখান থেকেই আমার ইলিশ পোলাও রান্না করা। সত্যি বলছি, এইসব বৃষ্টির মাঝে ইলিশ পোলাও আপনাকে নিয়ে যাবে অন্য এক স্বাদের দুনিয়ায়! আসুন তবে জেনে নিই ইলিশ পোলাও রান্নার রেসিপি


উপকরণ 


পোলাও এর চাল-১ কেজি 

ইলিশ মাছ-১টি

পেঁয়াজ বাটা-১/৪ কাপ

পেয়াজ কুচি- ২ টেবিল চামচ

দই-১/২ কাপ

কাঁচা মরিচ বাটা-১ টেবিল চামচ

কাঁচা মরিচ-১৫ টি -

ঘি-১ কাপ

কেওড়া জল-২ চামচ

সরিষার তৈল

জিরা গুঁড়া – ১ চামচ

আদা বাটা – ২ টেবিল চামচ

রসুন বাটা-২ টেবিল চামচ

তেজপাতা-১ টি

লবঙ্গ-২/৩ টি

এলাচ-৩/৪ টি

দারুচিনি- ২/৩ টি

লবণস্বাদ মত


প্রণালি


-প্রথমেই চাল ধুয়ে ভালো মত পানি ঝড়িয়ে ঝরঝরে করে নিন। আর মাছ কেটে টুকরো করে ধুয়ে নিন আগেই।

-মাছে দই, লবণ, কাঁচা মরিচ বাটা দিয়ে প্রায় ঘন্টাখানেক ম্যারিনেট করে রাখুন।

-কড়াইয়ে সরিষার তেল গরম করে পেঁয়াজ বাটা, আদা বাটা, রসুন বাটা, লবণ দিয়ে কষিয়ে নিন। এবার ম্যারিনেট করা মাছ কষিয়ে পানি দিয়ে ১৫ মিনিট রান্না করুন। তেল উপর উঠে এলে অল্প একটু চিনি( না দিলেও চলবে) ও জিরা গুঁড়া দিয়ে নামিয়ে নিন।

-এখন রান্না করা মাছগুলো তুলে রাখুন। অন্য পাত্রে ঘি গরম করে এলাচ, দারচিনি, লবঙ্গ, তেজপাতা, পেয়াজ কুচি ভেজে বেরেস্তা করে চাল ভেজে নিন। কাঁচামরিচ, ১ টেবিল চামচ আদা বাটা, ১ টেবিল চামচ রসুন বাটা ও মাছের মসলা দিয়ে কিছুক্ষণ কষিয়ে নিন। আলাদা করে ২ লিটারের মত পানি আগেই ফুটিয়ে নিন।

-মসলা দিয়ে কষানো হলে লবণ, কেওড়া জল, জিরা গুঁড়া দিয়ে নাড়ুন। পানি ফুটে উঠলে ঢেকে দিয়ে ২০-২৫ মিনিট। তারপর মাঝারি আঁচে রাখুন। পোলাও এর উপর মাছ সাজিয়ে ১৫ মিনিট দমে দিন।

ব্যস, হয়ে গেলো মজাদার ইলিশ পোলাও! তবে আর দেরি কেন এই বর্ষায় ইলিশ পোলাও দিয়ে হোক বর্ষা পালন।

আইপড ন্যানো ও আইপড শাফলকে বিদায় জানাল অ্যাপল, দাম কমলো আইপড টাচের 

বাজারে নতুন করে আইপড ন্যানো ও আইপড শাফল বের হচ্ছে না। তবে আইপডের টাচ সংস্করণটি থাকছে। ২৭ জুলাই বৃহস্পতিবার এমনটিই ঘোষণা দিয়েছে আইপড নির্মাতা প্রতিষ্ঠান অ্যাপল।


জানা গেছে, বর্তমানে স্মার্টফোনে গান শোনার ব্যবস্থা জনপ্রিয় হওয়ায় জনপ্রিয়তা কমে গেছে আইপডের। এজন্য এ ধরনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে অ্যাপল।

তবে আইপডের ইন্টারনেট সংযুক্ত আইপড টাচ থাকবে বাজারে।

এদিকে এ ঘোষণার পরপরই ওয়েবসাইট থেকে এই দুই পণ্য সরিয়ে নিয়েছে অ্যাপল। এ ছাড়া আইপড টাচেরও মূল্য কমানো হয়েছে। ৩২ জিবি স্টোরজের আইপড টাচের বর্তমান মূল্য ধরা হয়েছে ১৯৯ ডলার এবং ১২৮ জিবি স্টোরজের আইপড টাচের মূল্য ২৯৯ ডলার।

উল্লেখ্য, ২০০৫ সালে প্রথম বাজারে আসে আইপড ন্যানো ও আইপড শাফল সংস্করণটি। এর পর ২০১২ সালে আইপড ন্যানোর সর্বশেষ হালনাগাদ করা হয় এবং ২০১০ সালে আইপড শাফলের সর্বশেষ হালনাগাদ করা হয়।

 


২০১৬ সালে বাংলাদেশে মোট ৩ কোটি ১০ লাখ মোবাইল ফোন আমদানি করা হয়েছে। আর এতে ব্যয় হয়েছে প্রায় ৮ হাজার কোটি টাকা। মোবাইল আমদানিকারকদের সংগঠন বাংলাদেশ মোবাইল ফোন ইম্পোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশনের প্রতিবেদনে এ তথ্য বেরিয়ে এসেছে।


সংগঠনের তথ্য অনুযায়ী, উত্তরোত্তর সম্প্রসারিত এই বাজারে প্রতিনিয়ত নতুন নতুন ব্র্যান্ড এসে প্রতিযোগিতা করছে। বাংলাদেশ ইতোমধ্যেই বড় বড় বাজার তৈরি করেছে। এখন এই বাজারের একটি বড় অংশ হয়েছে স্মার্টফোনের বাজার। যা মোট হ্যান্ডসেটের ৩০ শতাংশ।

প্রযুক্তিবিদরা বলছেন, তথ্য ও প্রযুক্তির প্রতি মানুষের অতিরিক্ত আগ্রহের কারণে মোবাইল ফোন আমদানি বেড়েছে।  চলতি অর্থবছরে বাজেটে সরকার কম্পিউটার, ল্যাপটপ ও ট্যাব উৎপাদনে ব্যবহার হয় এমন প্রায় ৫০টি পণ্যে আমদানি শুল্ক কমিয়ে অভিন্ন ১ শতাংশ করেছে।

অন্যদিকে, বিদেশ থেকে আমদানি করার ক্ষেত্রে শুল্ক ৫ শতাংশ থেকে বাড়িয়ে ১০ করা হয়েছে। সুতরাং, হ্যান্ডসেট আমদানি বেশি না বাড়লেও দেশিয়ভাবে এ বাজার আরও দ্রুত সম্প্রসারিত হবে বলেও।

Citycell-coming-back 


দেশের প্রথম বেসরকারি মোবাইল ফোন অপারেটর সিটিসেল চালু করতে নির্দেশ দিয়েছে আপিল বিভাগ। নির্দেশের ২৪ ঘণ্টার মধ্যে তা চালু করার জন্য আদালত সময় বেধে দেয়। গত ২৫ জুলাই মঙ্গলবার প্রধান বিচারপতি এসকে সিনহার নেতৃত্বাধীন তিন সদস্যের আপিল বেঞ্চ এই নির্দেশ দেন। আপিল বেঞ্চের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, ২৪ ঘণ্টার মধ্যে সিটিসেল চালুর নির্দেশ ছাড়াও বিটিআরসিকে তরঙ্গ বরাদ্দের লাইসেন্স বাতিল করার সিদ্ধান্তও প্রত্যাহার করতে বলা হয়েছে।


জানা যায়, গত ৩ নভেম্বর আপিল বিভাগ দুটি শর্তের মাধ্যমে সিটিসেলের তরঙ্গ বরাদ্দের সংযোগ দিতে বলেছিল। যার মধ্যে একটি ছিল, উদ্ভূত বিরোধ নিরসনে একটি কমিটি গঠন করে দেওয়া। এছাড়া ১০০ কোটি টাকা ১৯ নভেম্বরের মধ্যে বিটিআরসিকে পরিশোধ করতে বলা হয়েছিল। সিটিসেল গত বছরের ১৭ নভেম্বর ওই অর্থ পরিশোধ করে। অথচ চলতি বছরের ২৬ এপ্রিল বিটিআরসি সিটিসেলের তরঙ্গ বরাদ্দের লাইসেন্স বাতিলের জন্য নোটিশ দেয়। পরে ১১ জুন তরঙ্গ বরাদ্দ লাইসেন্স বাতিল ও তরঙ্গ বরাদ্দ বন্ধ করে দেয়। এ অবস্থায় আদালত অবমাননার অভিযোগে আবেদনটি করা হলে আদালত আজ ওই আদেশ দেন।

আদালতে সিটিসেলের পক্ষে শুনানিতে ছিলেন, আইনজীবী রোকনউদ্দিন মাহমুদ ও আহসানুল করিম। বিটিআরসির পক্ষে শুনানিতে ছিলেন, অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম, কামরুল হক সিদ্দিক ও রেজা-ই রাব্বী খন্দকার।

এর আগে ২৪ এপ্রিল সোমবার টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ সংস্থা বিটিআরসির কমিশন বৈঠকে অপারেটরটির লাইসেন্স বাতিলের সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত হয়। এর আগে গত সপ্তাহে অপারেটরটির লাইসেন্স বাতিলে প্রধানমন্ত্রীর অনুমোদন সংক্রান্ত ফাইল বিটিআরসিতে এসে পৌঁছে।

প্রসঙ্গত, বাংলাদেশের প্রথম মোবাইল ফোন অপারেটর সিটিসেলের কাছে সরকারের পৌনে পাঁচশ কোটি টাকা পাওনা। এই পাওনা না পেয়ে গত জুলাই মাসে সিটিসেলের কার্যক্রম বন্ধ করার ঘোষণা দিয়েছিল বিটিআরসি কর্তৃপক্ষ। পরের মাসে তাদের নোটিশ দেওয়া হয়েছিল। ওই নোটিসের পর সিটিসেল আদালতে গেলে আপিল বিভাগ টাকা পরিশোধ সাপেক্ষে কার্যক্রম চালিয়ে যেতে সিটিসেলকে দুই মাস সময় দিয়েছিল। গত ২৯ আগস্ট আদালতের ওই আদেশ হয়। বিটিআরসির আইনজীবী খন্দকার রেজা-ই-রাকিব সে সময় সাংবাদিকদের বলেছিলেন, ১৭ অগাস্টের আগ পর্যন্ত সিটিসেলের কাছে বিটিআরসির পাওনা রয়েছে ৪৭৭ কোটি টাকা। এর দুই তৃতীয়াংশ এখন থেকে এক মাসের মধ্যে, আর এক তৃতীয়াংশ পরবর্তী এক মাসে পরিশোধ করতে হবে। তাছাড়া ১৭ আগস্টের পর থেকে প্রতিদিন বিটিআরসি আরও ১৮ লাখ টাকা করে পাওনা রয়েছে।

Inder-Kumars-premature-death 


মাত্র ৪৩ বছর বয়সেই না ফেরার দেশে চলে গেলেন বলিউড অভিনেতা ইনদর কুমার। বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত (২৮ জুলাই) ২টার দিকে নিজ বাসাতেই হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে না ফেরার দেশে চলে যান ‘ওয়ানটেড’ ছবির এই তারকা।


তার সাবেক শ্বশুর রাজু কারিয়ার বরাতে এই তথ্য নিশ্চিত করেছে ভারতীয় সংবাদমাধ্যমগুলো।

অভিনয় জীবনে ২০টিরও বেশি ছবিতে অভিনয় করেছেন ইনদর কুমার। এর মধ্য উল্লেখযোগ্য ছিলো ‘তিরচি টপওয়ালে’, ‘কাহি পেয়ার না হো যায়ে’, ‘পেয়িং গেস্ট’, ‘ওয়ানটেড’ ইত্যাদি। সর্বশেষ ২০১১ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত ‘ইয়ে দুরিয়া’ ছবিতে দেখা যায় এই অভিনেতাকে।

এছাড়া জনপ্রিয় টিভি সিরিয়াল ‘কিউকি সাস কি কাভি বাহু থি’তেও অভিনয় করেছেন তিনি।

বলিউড তারকা সালমান খানের সঙ্গে তার সখ্যতা ছিলো এবং একসঙ্গে বেশ কয়েকটি ছবিতে অভিনয় করেছেন তারা।

২০১৪ সালে ধর্ষণের অভিযোগে তাকে একবার গ্রেফতার করা হয়। তিনি দাবি করেন, ওই নারীকে ধর্ষণ করেননি বরং এক ধরনের সম্পর্ক ছিলো তাদের মধ্যে। সেবছর জুনেই জামিনে মুক্তি পান তিনি।

 Inverted-the-worlds-richest-in-a-days-time-changed

শুক্রাণুর সংখ্যা বা স্পার্ম রেট কমে আসছে সারা বিশ্বের পুরুষদের শরীরে। শুক্রাণু কমে যাবার এই হার যদি বজায় থাকে তাহলে মানব সভ্যতা বিলুপ্ত হয়ে যাবে, হুঁশিয়ার করেছেন এক ডাক্তার।


প্রায় ২০০টি গবেষণা থেকে সংগৃহীত তথ্য থেকে জানা গেছে ৪০ বছরেরও কম সময়ের মাঝে অর্ধেকে নেমে এসেছে পুরুষের স্পার্ম কাউন্ট। উত্তর আমেরিকা, ইউরোপ, অস্ট্রেলিয়া এবং নিউজিল্যান্ডের পুরুষদের ওপর করা হয়েছিল এসব গবেষণা।  তথ্য সংগ্রহের এই গবেষণার নেতৃত্বে থাকা ডঃ লেভিন জানান, এর ভবিষ্যৎ নিয়ে তিনি খুবই চিন্তিত।

এই তুলনামূলক গবেষণাটি করা হয় ১৯৭৩ থেকে ২০১১ সাল পর্যন্ত করা ১৮৫টি গবেষণা থেকে নেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে। ডঃ লেভিন একজন এপিডেমিওলজিস্ট। বিবিসিকে তিনি জানান, এভাবে স্পার্ম কাউন্ট কমতে থাকলে মানুষ বিলুপ্ত হয়ে যেতে পারে।

“আমরা যদি নিজেদের জীবনযাপনের ধরণ, পরিবেশ এবং রাসায়নিক ব্যবহারে পরিবর্তন না আনি, তাহলে ভবিষ্যতে কী হবে তা ভেবে আমি উদ্বিগ্ন,” তিনি বলেন। “একটা সময়ে এটা সমস্যা হয়ে দাঁড়াবে, আর তাতে মানব প্রজাতির বিলুপ্তিও দেখা যেতে পারে।“

এই গবেষণার কথা জানতে পেরে অন্যান্য গবেষকেরা জানান, তাদের কাজ খুবই ভালো কিন্তু এখনই বলে দেওয়া যায় না যে মানবজাতি বিলুপ্ত হয়ে যাবে।

জেরুজালেমের হিব্রু ইউনিভার্সিটির ডঃ লেভিন দেখেন, শুক্রাণুর ঘনত্ব কমে এসেছে ৫২.৪ শতাংশ এবং স্পার্ম কাউন্ট কমে এসেছে ৫৯.৩ শতাংশ। উত্তর আমেরিকা, ইউরোপ, অস্ট্রেলিয়া এবং নিউজিল্যান্ডে বসবাসরত এসব পুরুষের মাঝে স্পার্ম কাউন্ট কমে যাবার এই ধারা অব্যাহত রয়েছে এমনকি তা কমে যাবার হার আরো বেড়ে চলেছে। 

দক্ষিণ আমেরিকা, এশিয়া এবং আফ্রিকার পুরুষের মাঝে স্পার্ম কাউন্ট কমতে দেখা যায়নি। তবে গবেষকেরা ধারণা করছেন এসব জায়গায় যথেষ্ট গবেষণা হয়নি এবং একটা সময়ে এখানেও স্পার্ম কাউন্ট কমে আসতে পারে।

এসব গবেষণার তথ্য নিয়ে বিতর্ক আছে অনেক কারণে। কিছু গবেষণা করা হয় কম সংখ্যক পুরুষ নিয়ে। আবার ফার্টিলিটি ক্লিনিক থেকে তথ্য নিয়ে যেসব গবেষণা করা হয় সেখানে স্পার্ম কাউন্ট কম আসা স্বাভাবিক, কারণ মানুষ সমস্যা নিয়েই সেখানে যায়। আরেকটি বড় চিন্তার ব্যাপার হলো, স্পার্ম কাউন্ট কমে আসছে এমন ফলাফল দেখতে পেলে তা জার্নালে প্রকাশিত হবার সম্ভাবনা থাকে বেশি। এই কারণে হয়তো স্পার্ম কাউন্ট কমে আসছে এমন একটা ভুল ধারণা তৈরি হতে পারে। কিন্তু এই গবেষকেরা দাবি করছেন এ সব সমস্যার ব্যাপারেই তারা চিন্তা করেছেন এবং তাদের বের করা ফলাফল সত্য।

স্পার্ম কাউন্ট কমে যাবার সঠিক কারণটা জানা যায় না। তবে কীটনাশক এবং প্লাস্টিকে থাকা রাসায়নিকের সংস্পর্শে আসা, ওবেসিটি, ধূমপান, স্ট্রেস, খাদ্যভ্যাস, এমনকি অতিরিক্ত টিভি দেখা এক্ষেত্রে ক্ষতিকর, জানা যায় এসব গবেষণা থেকে।

 Inverted-the-worlds-richest-in-a-days-time-changed

মাত্র একদিনের জন্য বিশ্বের শীর্ষ ধনী হয়েছিলেন অ্যামাজনের প্রতিষ্ঠাতা জেফ বেজোস। বিল গেটসকে হারিয়ে শীর্ষ ধনী হলেও বোজেস সে জায়গা একদিনের বেশি ধরে রাখতে পারেননি।


২৭ জুলাই বৃহস্পতিবার পুঁজিবাজারে অ্যামাজনের শেয়ারের দাম ২.৫ শতাংশ বাড়ার প্রভাবে বেজোসের মোট সম্পদমূল্য বিল গেটসকে ছাড়িয়ে যায়। কিন্তু একদিনের মাথায়ই অ্যামাজনের দরপতনের পর আগের অবস্থানে ফিরে যান বিল গেটস ও জেফ বেজোস উভয়ই। 
 


ফোর্বস সাময়িকীর হিসেব মতে, বৃহস্পতিবার শেয়ার বাজারে অ্যামাজনের দাম বাড়ার পর বেজোসের মোট সম্পদমূল্য দাঁড়ায় ৯১ দশমিক ৪ বিলিয়ন মার্কিন ডলার, যা বিল গেটসের চেয়ে ১ দশমিক ৪ বিলিয়ন ডলার বেশি।

তবে এখনো বেজোসের যে সম্পদ, তাতে বিল গেটসের ঘাড়েই নিশ্বাস ফেলছেন তিনি। ধারণা করা হচ্ছে, বিল গেটসকে হটিয়ে তিনিই হতে যাচ্ছেন পরবর্তী শীর্ষ ধনী।

৫৩ বছর বয়সী বেজোসের মালিকানায় রয়েছে অ্যামাজনের ১৭ শতাংশ শেয়ার। অনলাইন কেনাকাটার প্লাটফর্ম এই কোম্পানিটির বর্তমান বাজারমূল্য ৫০০ বিলিয়ন ডলার ছাড়িয়েছে। 

১৯৯৪ সালে বই বিক্রি দিয়ে ব্যাবসা শুরু করেন ওয়াল স্ট্রিটের চাকরি ছেড়ে আসা বেজোস। এরপর বহু বছর ধরে ধারাবাহিক আগ্রাসী ব্যাবসায়ী কর্মকাণ্ডের মাধ্যমে অ্যামাজনকে অনন্য উচ্চতায় পৌঁছে দিয়েছেন তিনি।

Darajs-grocery-products-up-to-35-discount 


দেশের বৃহত্তম ই-কমার্স প্ল্যাটফর্ম, daraz.com.bd প্রথমবারের মতো দেশের ২০টি জেলায় একসাথে নিয়ে এলো বাজারের সেরা দামে গ্রোসারি সামগ্রী। ২৭ জুলাই, বৃহস্পতিবার দারাজের “মাসের বাজার” ক্যাম্পেইনের প্রথম দিন শুরু হবে “গ্রোসারি মহোৎসব” দিয়ে। ঢাকা, চট্টগ্রাম, খুলনা, সিলেট, রংপুর, রাজশাহী, বরিশাল, যশোর, ময়মনসিংহ, কুষ্টিয়া, দিনাজপুর, ফেনীসহ মোট ২০ টি জেলায় থাকবে দারাজের নিজস্ব হাব।


সেদিন daraz.com.bd-তে পাওয়া যাবে মাত্র ৯০ টাকায় পুষ্টির ১ লিটার সয়াবিন তেল। ৫০ টাকায় এক কেজি মিনিকেট চাল, ১৬০ টাকায় ১ কেজি বাসমতি চাল। ৯০ টাকায় দেশি মশুর ডাল, ৯৯ টাকায় এক কেজি রসুন। এখানেই শেষ নয়! আরো থাকবে মাত্র ২৮ টাকায় ১ কেজি ইফাদ লবণ, ১০৫ টাকায় ৮ প্যাকেট ইফাদ ইনস্ট্যান্ট নুডলস। মাত্র ২৫ টাকায় রয়েছে পুষ্টির এক কেজি আটা। এছাড়াও চা, দুধ, চিনি, ময়দা, মসলাসহ আরো অনেক নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য থাকছে এই গ্রোসারি মহোৎসবে। বিকাশের মাধ্যমে পেমেন্ট করলে থাকবে ১০% পর্যন্ত ইনস্ট্যান্ট ক্যাশব্যাক।

দারাজ বাংলাদেশ লিমিটেডের ম্যানেজিং ডিরেক্টর, সৈয়দ মোস্তাহিদাল হক বলেন- “বাংলাদেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলগুলোতে ই-কমার্সকে ছড়িয়ে দেয়ার প্রথম ধাপ আমাদের এই গ্রোসারি মহোৎসব। আমরা আগামী ৩ মাস প্রতি ২৭ তারিখে আয়োজন করব গ্রোসারি মহোৎসব। ই-কমার্সের ক্ষেত্রে এটিই হতে যাচ্ছে দেশব্যাপী সবচেয়ে বড় ক্যাম্পেইন”।

তিনি সকল গ্রাহককে স্টক ফুরিয়ে যাওয়ার আগেই ২৭ তারিখ daraz.com.bd থেকে গ্রোসারি পণ্য অর্ডার করার অনুরোধ করেন।

 জিও ফোনে যা পাবেন আর যা পাবেন না!

 গত সপ্তাহেই 'দ্য জিও ফোন' লঞ্চ করার কথা আনুষ্ঠানিক ভাবে ঘোষণা করেছেন রিলায়েন্স ইন্ডাস্ট্রির কর্ণধার মুকেশ আম্বানি। ফোনের মূল্য 'জিরো টাকা'। অর্থাৎ এই ফোন কিনতে উপভোক্তাকে কোনও টাকাই দিতে হবে না। শুধু বুকিং করলেই হাতের মুঠোয় আসবে জিও ফোর জি ফোন।


আগামী ১৫ অগাস্ট থেকে এই অত্যাধুনিক ফোর জি ফোনের ট্রায়াল স্টার্ট করবে রিলায়েন্স। তবে গ্রাহকদের অপেক্ষা করতে হবে আরও একটু বেশি সময় পর্যন্ত। কারণ, রিলায়েন্স কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে এ বছর সেপ্টেম্বর মাসেই জিও ফোর জি ফোন হাতে পাবেন আগ্রহী উপভোক্তারা। উল্লেখ্য, অফলাইন এবং অনলাইন দুই ক্ষেত্রেই ২৪ অগাস্ট থেকেই ফোন বুকিং করতে পারবেন গ্রাহকরা।

মাইক্রোফোন, স্পিকার, এসডি কার্ড স্লট এসব তো রয়েছেই, এই ফোনে আছে 'প্যানিক বটন'ও। এই ফোনে কেবল ফোর জি ভোলটে নেটওয়ার্কই সাপোর্ট করবে এবং সেটা অবশ্যই হতে হবে রিলায়েন্স জিও। এয়ারটেল, ভোডাফোন, আইডিয়া কিংবা অন্য কোনও সিমই জিও ফোনে ব্যবহার করা যাবে না। এর সঙ্গে এটাও জেনে রাখুন, এই জিও ফোনে ওয়েব ব্রাউজার, ফেসবুক থাকলেও ব্যবহার করা যাবে না হোয়াটসঅ্যাপ। আর এই ফোনে জিও ৪ জি সিম ছাড়া আর কোনও নেটওয়ার্কের সিমও ব্যবহার করা যাবে না।
উল্লেখ্য, এই ফোনে কিন্তু কেবল একটি মাত্র সিমই ব্যবহার করা যাবে।

চিকুনগুনিয়া প্রতিরোধে অনলাইনে পরামর্শ লাইভ অনুষ্ঠান 

সময় যাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে চিকনগুনিয়ার প্রকোপ বেড়ে চলছে। সরকার এটাকে মহামারি হিসেবে চিহ্নিত করতে না চাইলেও রোগটি ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে পড়েছে রাজধানীসহ আশেপাশের এলাকায়। অবশ্য ঢাকার বাইরে দেশের অন্যান্য প্রান্তে চিকুনগুনিয়া তেমন বিস্তার লাভ করেনি। তারপরও রোগটির ভয়ে জনমনে আতঙ্ক বিরাজ করছে।



চিকুনগুনিয়া প্রতিরোধে ইতিমধ্যে কিছু সচেতনতামূলক কার্যক্রম হাতে নিয়েছে সরকার। এছাড়া স্বাস্থ্য অধিদপ্তর সার্বক্ষণিক হটলাইন চালু করেছে। এগুলোর বাইরে চিকুনগুনিয়া প্রতিরোধে জনসচেতনতা তৈরিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে আমাদের দেশে প্রচলিত সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলো। অনলাইনে প্রচার হওয়ার সচেতনতামূলক বার্তা মুহূর্তেই ছড়িয়ে পড়ছে সর্বত্র।

ব্যক্তি পর্যায় থেকে শুরু করে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানও চিকনগুনিয়া প্রতিরোধে সচেতনতা কার্যক্রমের সঙ্গে যুক্ত হয়েছেন। ফেসবুক ঘুরে দেখা যায়, বেশ কয়েকজন চিকিৎসক সামাজিক দায়বদ্ধতার তাগিদ থেকেই নিজের ফেসবুক অ্যাকাউন্টে পোস্ট করেছেন রোগটি সম্পর্কিত বিস্তারিত তথ্য। এমনকি রোগটিতে আক্রান্ত হলে কিভাবে পরিত্রাণ পাওয়া যাবে সেটাও উল্লেখ করেছেন তাদের লেখায়।

স্বাস্থ্য অধিদফতরের স্বাস্থ্য বাতায়ন নামের একটি ফেসবুক পেজে দেখা যায় চিকুনগুনিয়া বিষয়ে সচেতনতা তৈরিতে বেশ কিছু আয়োজন রয়েছে। কয়েকদিন পর পরই রোগটি নিয়ে দেওয়া হচ্ছে বিভিন্ন ধরনের পোস্ট। এছাড়া গ্রাফিকসের মাধ্যমে ছবি এঁকে বুঝিয়ে দেওয়া হয়েছে রোগ প্রতিরোধ এবং আক্রান্ত হওয়ার পর করণীয়গুলো।

জাতীয় প্রতিষেধক ও সামাজিক চিকিৎসা প্রতিষ্ঠানও (নিপসম) তাদের একটি পেজে বর্তমান সময়ে আতংকের কারণ হয়ে ওঠা রোগটি নিয়ে নানা ধরনের পোস্ট রয়েছে। এছাড়া চিকুনগুনিয়া নিয়ে আয়োজিত বিভিন্ন সেমিনার সম্পর্কিত পোস্টের পাশাপাশি সাধারণ মানুষকে সচেতন করার জন্য রোগটি সম্পর্কিত প্রয়োজনীয় তথ্যও সন্নিবেশ করা হয়েছে।

দেশের অনলাইনভিত্তিক ডাক্তার অ্যাপয়েনমেন্ট সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠান ডক্টরোলা ডট কম ইতিমধ্যে বেশ কয়েকটি সচেতনতামূলক কার্যক্রম সম্পন্ন করেছে। চিকুনগুনিয়া বিষয়ে অভিজ্ঞ ডাক্তারদের মাধ্যমে ফেসবুক লাইভ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে প্রতিষ্ঠানটি। এতে বেশ সাড়াও মিলেছে বলে জানান প্রতিষ্ঠানটির প্রধান নির্বাহী মোহাম্মদ আব্দুল মতিন ইমন।

এছাড়া অন্যান্য বিভিন্ন ফেসবুক পেজ এবং গ্রুপ ব্যাপকভাবে চিকুনগুনিয়ার সচেতনতামূলক কার্যক্রমের সঙ্গে জড়িত হয়েছে। তারা বিভিন্ন পোস্টের মাধ্যমে মানুষকে রোগটি সম্পর্কে সতর্ক করার চেষ্টা করছে। শুধু চিকিৎসা সম্পর্কিত ফেসবুক পেজ বা গ্রুপ নয়, সব ধরনের গ্রুপ এবং পেজগুলোতে এ ধরনের কার্যক্রম দেখা গেছে। ফলে বিশাল সংখ্যক মানুষ চিকুনগুনিয়া রোগ সম্পর্কে প্রয়োজনীয় তথ্য লাভে সমর্থ হচ্ছে, যা তাদের আতঙ্ক কিছুটা হলেও দূর করেছে।

বিয়ে বাড়ির জালি কাবাব তৈরি করুন মাত্র ৩০ মিনিটে! 

দোকানের জালি কাবাব ভর্তি থাকে কেবল ফাঁকিবাজিতে। পাউরুটি, পেঁয়াজ ইত্যাদি আরও কত্ত কি দেয়া থাকে আর মাংসের চেহারাটাও দেখা মেলে না। তবে বিয়ে বাড়ির জালি কাবাব গুলি ভিন্ন। নরম নরম মাংসের সাথে হরেক রকমের মশলা আর ডিমে চুবিয়ে সোনালি করে ভাজা... ভাবলেই জিবে পানি চলে আসে, তাই না? চলুন, আজ আপনাদের জানাবো জালি কাবাব তৈরির একটি দারুণ সহজ রেসিপি যা তৈরি করা সম্ভব মাত্র ৩০ মিনিটে!


উপকরণ যা লাগবে, সবই কিনতে পারবেন বাজারেই। কি ভীষণ সহজ এই দারুণ সুস্বাদু কাবাব তৈরি, সেটা এই রেসিপিটি চেষ্টা না করলে কখনো বুঝতে পারবেন না। হাতে ৩০মিনিট সময় আছে, চলুন তাহলে সায়মা সুলতানার রেসিপিতে হয়ে যাক জালি কাবাবের ভোজ!
 

উপকরণ

মাংসের কিমা আধা কেজি
পাউরুটি ২ স্লাইস
টমেটো সস ২ টেবিল চামচ
আদা বাটা ১ চা চামচ
পেঁপে বাটা ১ চা চামচ
পোস্তদানা বাটা ১ টেবিল চামচ
মরিচ গুঁড়ো ১ চা চামচ
পুদিনাপাতা বাটা আধা চা চামচ
ধনে পাতা আধা চা চামচ
পুদিনা পাতা কুচি
জয়ত্রী গুঁড়ো ১/৪ চা চামচ
গোলমরিচ গুঁড়ো আধা চা চামচ
এলাচ গুঁড়ো ৩টি
দারুচিনি গুঁড়ো ১ টুকরো
লবঙ্গ গুঁড়ো ১টি
ডিম ফেটানো ২টি
টোস্টের গুঁড়ো ১ কাপ
লবণ স্বাদমতো
তেল ভাজার জন্য
 

প্রনালি

-পাউরুটি পানিতে বা দুধে ভিজিয়ে নিংড়ে নিন।
-তেল,ডিম ও বিস্কুটের গুঁড়ো বাদে সব উপকরণ একত্রে মেখে নিন। এই মাখা মাংস ৮ ভাগ করুন।
-প্রত্যেক ভাগ মাংস দিয়ে গোলাকার চ্যাপ্টা কাবাব তৈরি করে বিস্কুটের গুঁড়োয় গড়িয়ে নিন।
-ফেটানো ডিমে ডুবিয়ে ডুবো তেলে ছাড়ুন। তেলে ছাড়ার পরে কাবাবের ওপর কিছু ফেটানো ডিম ছিটিয়ে দিন।
-দু’পিঠ ভাজা হলে তেল ছেঁকে কাবাব টিস্যুর ওপর তুলুন।
-নামিয়ে গরম গরম যে কোনো সস কিংবা চাটনির সাথে পরিবেশন করুন

Geoini-A1-Plus-at-20-Megapixel-Selfie-Cameras 

চীনা প্রতিষ্ঠান জিওনি ভারতের বাজারে তাদের ফ্ল্যাগশিপ ফোন এ১ প্লাস উন্মুক্ত করেছে। ৪ হাজার ৫৫০ এমএএইচ ব্যাটারির এই ফোনের দাম নির্ধারণ করা হয়েছে ২৯ হাজার ৯৯৯ রুপি যা বাংলাদেশি টাকায় ৩৭ হাজার ৭০০ টাকা।


জিওনি এ১ প্লাস ফোনটিতে ডুয়েল রিয়ার ক্যামেরা ব্যবহার করা হয়েছে উন্নত মানের ছবি তোলার জন্য। এজন্য ২০ মেগাপিক্সেল ফ্রন্ট ক্যামেরায় আছে কাস্টমাইজ সেলফি ফ্ল্যাশ। ৬.০ ইঞ্চি ফুল এইচডি ডিসপ্লে’র এই ফোনে ব্যবহার করা হয়েছে হেলিও পি২৫ অক্টা-কোর প্রসেসর। ৪ জিবি র‍্যাম এবং ৬৪ জিবি ইন্টারনাল মেমোরি রয়েছে এই ফোনে। হোম বাটনে ফিঙ্গারপ্রিন্ট যুক্ত করা এ১ প্লাসে রয়েছে আলট্রা ফাস্ট চার্জিং প্রযুক্তি এবং ৩০০ সেকেন্ড চার্জে ২ ঘন্টা টক টাইম।

 


ইউটিউবে চলছে সময়ের অন্যতম স্টেজ পারফর্মার আয়েশা মৌসুমীর নতুন একটি মিউজিক ভিডিও। ‘ও মৌসুমী’ শিরোনামের গানটি এর মধ্যে লাখ ভিউয়ারের সংখ্যা পেরিয়েছে। ক্রমশ বাড়ছে এর গতি।


দুইয়ে দুইয়ে লিখলাম কী ভুলে আমি পাঁচ/ দেরি করে জানলাম সে গভীর জলের মাছ... এমন মজার কথার গানটি লিখেছেন কবির বকুল আর সুর-সংগীতায়োজন করেছেন শওকত আলী ইমন। গানটি প্রকাশ পেয়েছে সংগীতার ব্যানারে।

অনেক দিন পর যে গানটি নিয়ে ভালোই আলোচনায় এসেছেন তিনি। সৈয়দ আলী হাসান লিটনের পরিচালনায় গ্ল্যামারাস এই ভিডিওতে মৌসুমী নিজেই মডেল হয়েছেন। মাত করেছেন নেচে-গেয়ে।

মৌসুমী বলেন, ‘গানটি নিয়ে আমার অনেক প্রত্যাশা। এর কথা, সুর এবং ভিডিও- সব মিলিয়ে আমার অনেক পছন্দের একটি কাজ। শ্রোতা-দর্শকরাও বেশ খুশি গানটি পেয়ে।’

এদিকে গানটির শিরোনাম নিজের নামের সঙ্গে মিলিয়ে রাখলেও এর কথায় তেমন কিছু খুঁজে পাওয়া যায়নি। কেন এমন নামকরণ? মৌসুমী বলেন, ‘এটিও এক ধরনের এক্সপেরিমেন্ট বলতে পারেন। র‌্যাপ অংশের বাইরে গানটির কথায় আমি নেই, কিন্তু গেয়েছি তো আমিই। মানে মৌসুমীর গান এটি। তাছাড়া সহজেই আমার নামটি ও গানটি শ্রোতা-ভক্তদের কাছে পৌঁছে দিতে স্বনামেই শিরোনাম রেখেছি।’

প্রসঙ্গত, সংগীত বিষয়ক রিয়েলিটি শো ‘পাওয়ার ভয়েস’ প্রতিযোগিতার মাধ্যমে প্রফেশনাল সংগীতাঙ্গনে অভিষেক হয় আয়েশা মৌসুমীর। তারও আগে গানের হাতেখড়ি হয় ক্লাস ওয়ানে পড়া অবস্থায় শিশু একাডেমিতে। তার সংগীতের গুরু লিজা, যিনি নারায়ণগঞ্জ শিশু একাডেমির শিক্ষক ছিলেন। এছাড়া শিল্পকলা একাডেমি থেকে নজরুলগীতি ও পল্লীগীতি এবং ওস্তাদ সুবীর চক্রবর্তীর কাছে উচ্চাঙ্গ সংগীতের কোর্স সম্পন্ন করেন মৌসুমী।
নিচের লিংকে মৌসুমীর ‘ও মৌসুমী’:

 

একটি সম্পর্কে থাকা অবস্থায়ও অন্য কাউকে ভালো লেগে যাওয়া দ্বিধান্বিত করে ফেলতে পারে আপনার পুরো জীবনকেই। এতে প্রথম সম্পর্ক যেমন নষ্ট হয়ে যায়, তেমনি নিজের পাশাপাশি তৃতীয়জনের ভবিষ্যতও পড়ে যায় হুমকির মুখে। এমন পরিস্থিতির কারণে স্বাভাবিকভাবেই বাড়তে থাকে মানসিক চাপ। তাই যত দ্রুত সম্ভব এই পরিস্থিতি থেকে মুক্তির বিকল্প নেই। 


আজকাল অন্য একজনকে ভালো লাগছে?

বিশেষজ্ঞদের মতে, জীবনের কিছু ধাপে এসে এমনটি হতে পারে যে নির্দিষ্ট কারোর উপর আকর্ষণ জন্মে যায়, আগের সম্পর্ক থাকা সত্ত্বেও। বেশিরভাগ সময় আগের সম্পর্কের অপ্রাপ্তিবোধ থেকেই এই ধরনের ঘটনা ঘটে। প্রথম সম্পর্কে অসুখী থাকার কারণে অন্য সম্পর্কে ঝুঁকে পড়তে পারে মানুষ। সেক্ষেত্রে ব্যাপারটা একই সঙ্গে দুইজন নয়, বরং প্রথম সম্পর্কে প্রেম থাকে না বলেই অন্য প্রেমে জড়ানো সম্ভব হয়।   
   
ভালোবাসার অর্থ কী?
জীবনসঙ্গী বা ভালোবাসার মানুষটিকে ছাড়া অপূর্ণ মনে হয় নিজেকে। পজেটিভ ইমোশন দিয়ে পরিপূর্ণ থাকে একটি সম্পর্ক। এই আবেগের কারণেই ছাড় দেওয়ার মানসিকতা চলে আসে। ভালো এবং খারাপ সময়ে একজনকেই পাশে পেতে ইচ্ছে করে। এই ধরনের অনুভূতি একই সঙ্গে দুজনের জন্য হওয়া সম্ভব নয়।

নিজেকে প্রশ্ন করুন
ভালোবাসার মানুষটিকে রেখে আরেকজনের সঙ্গে সময় কাটাচ্ছেন? এতে ধীরে ধীরে বাড়ছে সে সম্পর্কের অন্তরঙ্গতা। একবার নিজেকে প্রশ্ন করে দেখুন তো আসলে আপনি কী চাচ্ছেন? কেবলই সময় কাটানো? যদি উত্তর হ্যাঁ হয়, তবে সেটি কি 
আদৌ ভালোবাসা?
 
এটি প্রেম নয়!
আসল কথা হচ্ছে, একই সঙ্গে দুইজনের প্রেমে পড়া কখনোই সম্ভব নয়! তাই এটি ভালোবাসা নয়, ভালোলাগা হতে পারে বড় জোর।

নিজেকে নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব কি?
একটি সম্পর্ক রেখে আরেকটি সম্পর্কে ঝুঁকে যাওয়া প্রচণ্ড মানসিক চাপের কারণ হতে পারে। সেক্ষেত্রে নিজেকে নিয়ন্ত্রণ করতে হবে আপনাকেই। মনোরোগ বিশেষজ্ঞরা বলেন, নিজেকে নিয়ন্ত্রণ করা মানে নিজের আবেগ-অনুভূতি নয়, বরং নিজের কার্যকলাপের উপর নিয়ন্ত্রণ আনা। কাউকে ভালো লাগতেই পারে, সেটার উপর নিয়ন্ত্রণ হয়তো সম্ভব নয়। কিন্তু সেজন্য দৌড়ে তার কাছে চলে যাওয়াকে নিয়ন্ত্রণ করতে পারেন কেবল আপনিই।  

নিজেকে দোষারোপ করবেন না
অন্য কাউকে ভালো লেগে গেলে নিজেকে দোষারোপ করবেন না। মনে রাখবেন, মানুষের মন খুবই বিচিত্র। তবে নিজেকে ফেরানো চাই অতি দ্রুত। ভালোবাসা মানে সম্পর্কের টানাপড়েনগুলোকে দুইজন মিলে ঠিক করা, টানাপড়েনের কারণে অন্য সম্পর্কে জড়িয়ে পড়া নয়- এটি মনে রাখা চাই সবসময়।  

গরম গরম ভাতের সঙ্গে কোরমা স্টাইলের নারকেল দিয়ে ডিম রান্না পরিবেশন করতে পারেন। ঝাল-মিষ্টি এই আইটেমটি খেতে পারেব খিচুড়ির সঙ্গেও।জেনে নিন কীভাবে রান্না করবেন-

Recipe-Cooked-eggs-with-coconut 

উপকরণ


ডিম- ৬টি (সেদ্ধ)
পেঁয়াজ- ২টি (কুচি)
টমেটো- ২টি (কুচি)
দই- ৫ টেবিল চামচ
আদা-রসুন বাটা- ২ চা চামচ
নারকেল কোড়ানো- ২ টেবিল চামচ
জিরা - ১ চা চামচ
ধনে- ১ চা চামচ
মৌরি - ১ চা চামচ
শুকনা মরিচ- ১ চা চামচ
মেথি- ১/৪ চা চামচ
মরিচ গুঁড়া – স্বাদ অনুযায়ী
হলুদ- ১/৪ চামচ
কাঁচামরিচ- ২টি
সরিষার তেল- ৩ টেবিল চামচ
ছোট এলাচ - ৩টি
দারুচিন - ১ ইঞ্চি
লবঙ্গ- ৪/৫টি

প্রস্তুত প্রণালি


সেদ্ধ ডিমে লবণ ও হলুদ মাখিয়ে তেলে ভেজে তুলুন। তাওয়ায় জিরা, ধনে, মৌরি,শুকনা মরিচ, মেথি, নারকেল, এলাচ, লবঙ্গ ও দারুচিনি দিয়ে ভালো করে ভেজে তুলে রেখে দিন। ঠাণ্ডা হলে মিহি করে গুঁড়া করে নিন। এবার পেঁয়াজ, টমেটো ও দই একসঙ্গে বেটে মিহি পেস্ট তৈরি করুন। যে তেলে ডিম ভেজেছেন, সেই তেলের মধ্যেই শুকনো মরিচ ফোড়ন দিন। আদা-রসুন বাটা দিয়ে ১ মিনিট ভেজে পেঁয়াজ ও টমেটোর পেস্টটা দিয়ে দিন। এর মধ্যে হলুদ, মরিচ গুঁড়া  এবং আগে থেকে বানানো গুঁড়া মসলাটা ২ চা চামচ দিয়ে কষিয়ে নিন। মসলা তেল ছাড়তে শুরু করলে ডিম এবং আধ কাপ পানি দিয়ে দিন। পাত্র ঢেকে চুলার আঁচ কমিয়ে দিন। ১০-১২ মিনিট অপেক্ষা করুন। মাঝে মাঝে একবার নেড়ে দেবেন। তেল ছাড়তে শুরু করলে আঁচ বন্ধ করে দিন। গরম ভাতের সঙ্গে পরিবেশন করুন মজাদার নারকেল ডিম রান্না।

মিস ওয়ার্ল্ড-এ যাচ্ছে বাংলাদেশের মেয়ে 

সুন্দরীদের সবেচেয়ে কাঙ্ক্ষিত আসর ‌‘মিস ওয়ার্ল্ড’ প্রতিযোগিতায় অংশ নিচ্ছে বাংলাদেশ। আগামী ১৮ নভেম্বর চীনে অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া ৬৭তম এ আসরে থাকবে বাংলাদেশের প্রতিযোগীও। আর এটাকে লক্ষ্য রেখে দেশে শুরু হচ্ছে প্রতিযোগিতা।


দেশর প্রতিযোগিতাটি দেখভাল করছে অন্তর শোবিজ। বিষয়টি নিয়ে বৃহস্পতিবার (২৭ জুলাই) এক সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করেছে প্রতিষ্ঠানটি। এতেই জানানো হবে দেশের প্রতিযোগীরা কীভাবে সম্মানজনক এ আসরে অংশ নেবেন।

এদিকে খোঁজ নিয়ে জানা যায়, চলতি বছর ‘মিস ওয়ার্ল্ড’ আসরের জন্য নিবন্ধিত হয়েছে বাংলাদেশ। আগামী ২৭ সেপ্টেম্বর বাংলাদেশের অভ্যন্তরীণ প্রতিযোগিতা হবে। এতে সম্পৃক্ত থাকবে ‘মিস ওয়ার্ল্ড’ কর্তৃপক্ষ। আর এর পরই চীনের মূল আসরে যোগ দেবেন বাংলাদেশি প্রতিযোগী।

অন্তর শোবিজের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তারা জানান, আগামীকালের সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত থাকবেন তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু। সেখানে পুরো বিষয়টি তুলে ধরবেন তারা।

10-different-people-see-picture 


পৃথিবীতে এমন কিছু অদ্ভুত মানুষ দেখা যায় যাদের দেখে আমাদের বিশ্বাস করতে কষ্ট হয় যে, আমরা ছবি দেখছি নাকি স্বপ্ন দেখছি! হ্যাঁ, পৃথিবীর বিভিন্ন স্থানে বসবাসকারী এমন কিছু বিচিত্র কিছু মানুষের কথাই আজকের ফিচারে জানবো আমরা। 


১। আমো হাদজি (সবচেয়ে নোংরা মানুষ)
 

এই ব্যক্তি জীব জন্তুর মলের ধোঁয়া এবং মাঝে মাঝে বিভিন্ন ধরণের সিগারেট গ্রহণ করেন। তিনি চুল পুড়িয়েছেন যাতে এগুলো ছোট থাকে। তিনি ৬০ বছর যাবত গোসল করেন না।

২। সাজ্জাদ ঘারিবি (ইরানীয়ান হাল্ক)
 

এই লোকটি দেখতে ইনক্রেডিবল হাল্ক এর মত। এই পার্সিয়ান লোকটি অসম্ভব শক্তির অধিকারী।

৩। গ্রে টারনার (স্থিতিস্থাপক ত্বকের অধিকারী) 


গ্রে এহলারস-ড্যানলস সিনড্রোম নামের বিরল রোগে ভোগছেন। এই রোগের কারণে তার ত্বক সাধারণ মানুষের তুলনায় অনেক বেশি স্থিতিস্থাপক হয়ে গেছে। এর ভালো দিকটি হচ্ছে এই বৈশিষ্ট্যের জন্য তিনি ছবিতে স্টান্ট দেন। 

৪। মাইকেল লটিটো (ইনি সবকিছু খেতে পারেন)
 

কার্লোস একটি গাড়ী দুর্ঘটনার শিকার হন। এর ফলে চিকিৎসকেরা তার মাথার খুলির একটি অংশ কেটে ফেলতে বাধ্য হন। তিনি এই অবস্থায় বেঁচে আছেন।

৬। ফ্রানসিস্কো ডোমিঙ্গো জোয়াকিম (সবচেয়ে বড় মুখগহ্বরের অধিকারী)
 

ফ্রানসিস্কো এর এটি অসাধারণ একটি গুণ। গিনিস রেকর্ডে নাম ওঠানোর আগে তিনি ইউটিউবে মুখের এই অদ্ভুত স্টান্ট দেখিয়ে অবাক করে দেন।

৭। চন্দ্র বাহাদুর ডাংগি (সবচেয়ে ছোট মানুষ) 
 

চন্দ্র বাহাদুর ডাংগি সারা পৃথিবীর সবচেয়ে ছোট মানুষ। ইতিহাসের সবচেয়ে ছোট ব্যক্তি এই লোকটি, তিনি মাত্র ৫৪.৬ সেন্টিমিটার লম্বা।

৮। সুলতান কোসেন (এই গ্রহের সবচেয়ে লম্বা পুরুষ)


সুলতান কোসেন গাছের মত লম্বা একজন মানুষ। তার উচ্চতা ৮ ফুট ৩ ইঞ্চি। এই উচ্চতার জন্য তাকে অনেকটা দৈত্যের মতোই মনে হয়।

৯। টম স্টেইনফোরড (পায়ের পাতাহীন মানুষ)
 

ব্রিটিশ এই লোকটি এমডিপি সিনড্রোম নামের অস্বাভাবিক অসুস্থতায় ভুগছেন। এটি খুবই বিরল একটি রোগ। মাত্র ৮ জন এই ধরণের সিনড্রোমে আক্রান্ত বলে রিপোর্ট পাওয়া যায়। টম একজন প্যারা সাইক্লিস্ট এবং সে প্রতিযোগিতার বিজয়ী।

১০। ইয়ো জেনহুয়ান (সবচেয়ে বেশি লোমযুক্ত মানুষ)


শিপাঞ্জি বা বানরের মতোই তার সারা শরীর লোমে আবৃত। তিনি চীনের অধিবাসী এবং তার শরীরের ৯৬ শতাংশ অংশই চুলে আবৃত। 


বাহুবলিকে এতো দ্রুত পরাস্ত করা সহজ হবে তা কেউ ভাবে না। কিন্তু বুধবার 'তানাজি' ছবির পোস্টার নিয়ে টুইটারে উচ্ছ্বাস ও উদ্দীপনা এমনই ইঙ্গিত দিচ্ছে।

বুধবার প্রথম তানাজির পোস্টার প্রকাশ করা হয়। পোস্টার প্রকাশের পর থেকেই টুইটারে চলছে হুলুস্থুল কাণ্ড।

মারাঠি ইতিহাসের উজ্জ্বল নাম তানাজি মালুসারে। প্রায় সাড়ে ৩'শ বছর আগে সিনহাগাদের যুদ্ধে তার প্রবল বিক্রম আজও কিংবদন্তি হয়ে আছে। সেই বীর যোদ্ধাকে এবার রুপালি পর্দায় নিয়ে আসছেন বলিউডের সিংঘামখ্যাত অভিনেতা অজয় দেবগান।

ছবির পোস্টারে দেখা যাচ্ছে একটি ঢালের সাহায্যে আত্মরক্ষা করছেন ‘তানাজি’। তার ঢালে এসে ঠিকরে যাচ্ছে অসংখ্য তীর।

এক দিকে কিংবদন্তি তানাজি, অন্যদিকে অজয়ের মতো জনপ্রিয় অভিনেতা। দুই মিলে তৈরি হয়েছে তুমুল উচ্চাশা।

টুইটারে ‘সুপার্’, ‘ইনটেন্স’ ইত্যাদি প্রতিক্রিয়া দেখিয়েছে হাজার হাজার মানুষ। তবে সেরা কমেন্টটি নিঃসন্দেহে করেছেন একজন। যিনি বলেছেন, ‘‘বাহুবলী কে? আমি কেবল তানাজিকে চিনি।’’

‘তানাজি’ বাহুবলিকে টেক্কা দিতে পরবে কি না, সেটা জানতে অবশ্য লম্বা সময় অপেক্ষা করতে হবে। ওম রাউতের পরিচালনায় এই ছবি ২০১৯ সালে মুক্তি পাবে।


প্রযুক্তির অন্যতম অনুষঙ্গ মোবাইল। এ মোবাইলের কল্যাণে আমরা এগোচ্ছি প্রতিনিয়ত। এর কল্যাণে আমাদের জীবনযাপনও অনেক সহজ হয়েছে। তবে মোবাইলের কিছু ক্ষতির দিকও ইদানীং উন্মোচিত হচ্ছে বড় আকারে। আর তার অন্যতম একটি- শিশুদের মোবাইলের প্রতি আসক্তি। অবশ্য এর একাধিক কারণও আছে। এর মধ্যে অন্যতম সন্তানদের প্রতি বাবা-মায়ের সময় না দেয়া। বাবা-মা ব্যস্ত থাকেন চাকরি বা ব্যবসার কাজে। অন্যদিকে সন্তান লেখাপড়ার বাইরে বাড়িতে সময় কাটায় একা একা। সে জন্য সন্তানকে দেয়া হয় মোবাইল কিংবা কম্পিউটার, যাতে নানা ফাংশন, গেমস নিয়ে ব্যস্ত থাকে। আর এ ব্যস্ত থাকা থেকেই শুরু হয় আসক্তি। এ ছাড়া ইন্টারনেটের কল্যাণে মোবাইলে শিশুরা হাতের মুঠোয় পেয়ে যায় নানা বিষয়। যার মধ্যে অনেক নিষিদ্ধ বিষয়ও লুকিয়ে থাকে।


মোবাইলে শিশুরা আসক্তির আরও অনেক কারণ আছে। কিছু বাবা-মা তার চঞ্চল শিশুকে নিয়ন্ত্রণ করতে মোবাইল দিয়ে বসিয়ে দেন। ফলে সেই শিশু পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে গল্পগুজব করা, প্রয়োজনে এগিয়ে যাওয়া, সবার সঙ্গে মিশতে পারার দক্ষতা ধীরে ধীরে হারিয়ে ফেলে। ঢাকা মেডিকেল কলেজের শিশুরোগ বিভাগের প্রধান অধ্যাপক ডা. সাঈদা আনোয়ার পপি বলেন, মোবাইলে প্রতি আসক্তি শিশুদের সামাজিক দক্ষতা নষ্ট করছে। ফলে তৈরি হয় শিশুদের নানা ধরনের শারীরিক ও মানসিক সমস্যা। এ ছাড়া প্রযুক্তির এ আসক্তি শিশুদের জীবনে বড় ধরনের দীর্ঘমেয়াদি নেতিবাচক প্রভাবও ফেলছে। অন্যদিকে দীর্ঘসময় মোবাইলের স্ক্রিনে চোখ রাখার ফলে শিশুর চোখের সমস্যাও তৈরি হচ্ছে। আবার দীর্ঘসময় বসে থাকতে শিশুর স্থূলতাও বেড়ে যাচ্ছে, কমে যাচ্ছে শিশুর চিন্তা বা কল্পনাশক্তিও। এ ছাড়া সব ধরনের গ্যাজেটের ওপরই শিশুদের অতিরিক্ত নির্ভরশীলতা খারাপ। তাই শিশুকে খুব বেশি সময় কোনো গ্যাজেট ব্যবহার করতে দেয়াও ঠিক নয়।

ধানমণ্ডির বাসিন্দা মোহাম্মদ আলী বলেন, নগরের সব এলাকায় খেলাধুলার মাঠ নেই, অনেক বিদ্যালয়েও খেলার মাঠ নেই। নাগরিক ব্যস্ততায় আমরাও শিশুদের ঠিকমতো সময় দিতে পারছি না। তাই অনেকটা বাধ্য হয়েই ঘরের মধ্যে বন্দি শিশুরা কম্পিউটারের প্রতি আসক্তি হয়ে পড়ছে। প্রাথমিক শিক্ষক প্রশিক্ষণ ইন্সটিটিউটের ইন্সট্রাক্টর (সাধারণ) ইলিয়াস আহমেদ বলেন, সব বাবা-মায়ের উচিত বিদ্যালয়ের পাশাপাশি সন্তানকে নানা ধরনের সৃজনশীল কর্মকাণ্ডে ব্যস্ত রাখা। তবেই শিশুর সুকুমার বৃদ্ধি পাবে আপন গতিতে।

কবি আসাদ চৌধুরী বলেন, মোবাইল এখন অনেকটা আমাদের প্রয়োজনীয় বস্তুর মতো। তাই বড়দের মতো শিশুরাও মোবাইল ব্যবহার করবে এবং এর ভালো দিকগুলো জানবে, এটা আমাদের কাম্য। তাই বলে মোবাইলে কেবল গেম খেলে শিশু সময় নষ্ট করবে এটা মোটেও ভালো দিক নয়। আর চিকিৎসকদের মতে ঘণ্টার পর ঘণ্টা মোবাইলে গেম খেলা বা কম্পিউটার নিয়ে ব্যস্ত থাকা শিশুর মানসিক ও শারীরিক ক্ষতির কারণ। আর এ জন্য বাবা-মাকেই এগিয়ে আসতে হবে। ব্যস্ততা বা কাজের দোহাই দিয়ে সন্তানকে সময় না দেয়াটা বন্ধ করতে হবে। সন্তানকে সৃজনশীল বই পড়াতে হবে, তাদের নিয়ে বেড়াতে যেতে হবে, তাদের খেলাধুলায় আগ্রহী করতে হবে, তাদের প্রকৃতি দেখাতে হবে- মূল কথা তাদের স্বপ্ন দেখাতে হবে। ফলে শিশু বড় হবে কোনো ধরনের খারাপ আসক্তি ছাড়াই।


রাজধানীর কোলাহল ছেড়ে একদিনের জন্য কোথাও বেড়াতে যেতে চাইলে মৈনট ঘাটকে বেছে নিতে পারেন। সেখানে গেলে পদ্মার সৌন্দর্য যেমন আপনাকে মোহিত করবে, তেমনি খেতে পাবেন পদ্মার তাজা ইলিশ। আমরা সাধারণত পরিচিত জায়গা ছাড়া ঘুরতে যাওয়ার কথা চিন্তা করতে পারি না। নিরাপত্তার কারণেও আমরা অনেক জায়গায় যেতে চাই না। যান্ত্রিক নগরী ঢাকার আশপাশে ঘুরার জায়গার সীমাবদ্ধতার কারণেও ছুটির দিনগুলো অনেকেই ঘুমিয়ে কাটায়। অনেকেই ঘুরতে বেরিয়ে পড়ার আগে অনেক কিছু চিন্তা করে! সময়, পযাপ্ত অর্থ এবং ভালো ভ্রমণসঙ্গী নিয়ে একটা চিন্তা থেকেই যায়। হাতে পর্যাপ্ত অর্থ ও সময় নেই দূরে কোথাও ঘুরতে যাওয়ার, অথচ নিজেকে প্রাণবন্ত করার জন্য একটু নান্দনিক এবং মনোরম পরিবেশের প্রয়োজন। তাই হন্যে হয়ে খুঁজছেন ঢাকার আশপাশেই কোনো মনোরম পরিবেশ। এমন সব কিছুর সমাধান দিতে মৈনট ঘাটকে বেছে নিতে পারেন।

আমি খুব ঘুমপ্রিয় মানুষ তাই শুক্রবার এলেই দেরি করে ঘুম থেকে উঠি। গত কয়েক দিন ধরে চিন্টু কানের কাছে ঘ্যান ঘ্যান করছিল ওকে কোথাও ঘুরতে নিয়ে যাওয়ার জন্য। গত শুক্রবারও ঘুম থেকে উঠতে দেরি হওয়ায় কোথাও যেতে পারিনি আর সেই ধারাবাহিকতায় আজও দেরি করে উঠেছি ঘুম থেকে। এদিকে চিন্টুর মন খুব খারাপ আজও যেতে পারল না কোথাও। আমি মনে মনে ভাবলাম ছোট মানুষ। বেশ কিছু দিন ধরে বায়না ধরেছে ঘুরতে যাবে। তাকে কোথাও নিয়ে যাওয়া উচিত। এদিকে বেশ কিছু দিন ধরে ফেসবুকের কল্যাণে মৈনট ঘাটের নাম শুনছিলাম। ভাবলাম দূরত্ব কম যেহেতু তাই বিকাল বেলাতেই চিন্টুকে নিয়ে বের হব। আর এখন আর কিছু না বলি। চিন্টুকে সারপ্রাইজ দেব। সকাল বেলা ব্যাংকের কিছু কাজ ছিল তা শেষ করলাম দুপুর হতেই চিন্টুকে বললাম। দুপুর তিনটার মধ্যে রেডি থাকিস। ঠিক তিনটা হতেই আমরা বেরিয়ে পড়লাম গুলিস্তানের গোলাপ শাহর মাজারের সামনে থেকে সরাসরি মৈনট ঘাটের উদ্দেশে বাসে উঠলাম। শুক্রবার তাই যান্ত্রিক শহরের কোলাহল কিছুটা হলেও কম। আমাদের ফিটনেসবিহীন বাস এগিয়ে চলছে গন্তব্য পথে। দেখতে দেখতে আমরা এসে পৌঁছলাম মৈনট ঘাটে।

চিন্টু তো মৈনট ঘাটে এসে খুব খুশি। দোহারের কার্তিকপুরের যে জায়গাটি পদ্মাপাড়ে গিয়ে মিশেছে তার নাম মৈনট ঘাট। এখানে ডানে-বাঁয়ে বালু চিকচিক করা স্থলভূমি থাকলেও সামনে শুধু রুপোর মতো চকচকে পানি। মৈনট পদ্মাপাড়ের একটি খেয়াঘাট। এখান থেকে প্রতিদিন ফরিদপুরের চরভদ্রাসনে ট্রুলার ও স্পিডবোট চলাচল করে। খেয়া পারাপারের জন্য জায়গাটির পরিচিতি আগে থেকেই ছিল। তবে এখন সেটা জনপ্রিয় বেড়ানোর জায়গা হিসেবেও। এত দিন অনেকটা আড়ালে থাকলেও ঢাকার কাছে বেড়ানোর ‘হটস্পট’ এখন এই মৈনট ঘাট। মুখে মুখে ছড়িয়ে পড়া মৈনট ঘাটের নতুন নাম হল মিনি কক্সবাজার!

বিস্তীর্ণ জলরাশির উথাল-পাতাল ঢেউ আর সঙ্গে শরতের নির্মল আকাশ এ এক অনবদ্য কাব্য। বন্ধ বার তাই অনেক মানুষের পদচারণায় মুখর মৈনট ঘাট। জনমানবের পদচারণা দেখে মনে হল নগরবাসীর কাছে নতুন এক নির্মল বিনোদনের স্থান। মিনি কক্সবাজারের তীরে আমরা হেঁটে বেড়াচ্ছি। খানিক পরপর মাছ ধরার ট্রুলার ছুটে চলে যাচ্ছে। কেউ কেউ মাছ ধরার নৌকা দেখে মাছ কেনার জন্য এগোচ্ছেন। দরদাম ঠিক থাকলে অনেক ভ্রমণপিপাসু মাছ কিনে নিচ্ছেন। পুরো নদীর তীর ও তার আশপাশের এলাকা সমুদ্রসৈকতের মতো করে সাজানো। হঠাৎ চোখে পড়ল চিপসের প্যাকেট। পড়ে আছে দেখে খুব খারাপ লাগল। আমরাই আমাদের পরিবেশকে দূষিত করছি। পদ্মা এত বিশাল যে ওপারের কিছুই দেখা যায় না, দেখা যায় না ডান-বাঁয়ের কোনো বসতি। নদীর পারে ট্রুলার ও স্পিডবোট এর মহাজনদের মেলা। আপনি চাইলে ট্রুলারে চেপে ওপারের চরভদ্রাসন থেকেও ঘুরে আসতে পারেন। আবার ঘণ্টা চুক্তিতে ট্রুলার বা স্পিডবোট ভাড়া করে পদ্মার বুকে ভেসে বেড়াতে পারেন। যা-ই করেন এখানে সময়টা কিন্তু বেশ কাটবে। আমরা ট্রুলারে চেপে বসলাম ঘুরে বেড়ালাম প্রমত্ত পদ্মায়। আমাদের ট্রুলারের মাঝি রহিম মিয়া বললেন এখানে সকালবেলাটা খুব ভালো কাটে, দুপুর কিছুটা মন্থর, তবে বিকালবেলা অনেক বেশি জমজমাট। সোনা রোদের গোধূলিবেলার তো কোনো তুলনাই চলে না। নদীতে পাল তোলা নৌকায় ঘুরে বেড়ানো আবার কখন উথাল-পাতাল ঢেউ এ এক অন্যরকম অনুভূতি। দেখতে দেখতে সূর্য ডুবার বিদায় বেলা চলে এলো। সূর্য ডুবার বিদায় বেলায় প্রকৃতি অসাধারণ রূপ ধারণ করেছে। নদীতে ভ্রমণ শেষে চিন্টু বায়না ধরল ও ইলিশ মাছ ভাজা খাবে তাই ওকে নিয়ে গেলাম ঘাটে অবস্থিত হোটেলে। সেখানে ইলিশ মাছ ভাজা খেলাম। অসাধারণ স্বাদ। এখানে ইলিশ ৬০ থেকে ৯০ টাকা। বড় সাইজের ইলিশ খেতে চাইলে আগেই অর্ডার দিতে হবে আপনাকে।

কীভাবে আসবেন

ঢাকা থেকে মৈনট ঘাটে আসার সবচেয়ে সুবিধাজনক উপায়টি হচ্ছে গুলিস্তানের গোলাপ শাহের মাজারের সামনে থেকে সরাসরি মৈনট ঘাটের উদ্দেশে ছেড়ে আসা বাস। ৯০ টাকা ভাড়া আর দেড় থেকে আড়াই ঘণ্টার মধ্যে আপনি পৌঁছে যাবেন মৈনট ঘাট। মৈনট থেকে ঢাকার উদ্দেশে শেষ বাসটি ছেড়ে যায় সন্ধ্যা ৬টায়। যারা প্রাইভেট কার অথবা বাইক নিয়ে আসতে চাচ্ছেন, তারা এই বাসের রুটটাকে ব্যবহার করতে পারেন। আসতে সুবিধা হবে।

সচেতনতা

মৈনট ঘাটে সৌন্দর্য উপভোগ করতে গিয়ে যদি আশপাশে ময়লা দেখতে পান তাহলে নিশ্চয় আপনার ভালো লাগবে না। তাই পরিবেশ পরিচ্ছন্ন রাখতে সচেষ্ট থাকতে হবে। যেখানে-সেখানে পানির বোতল, চিপস-বিস্কুটের প্যাকেটসহ কোনো ময়লা ফেলা যাবে না। আপনি নিজে যেমন ফেলবেন না, তেমনি কাউকে ফেলতে দেখলে তাকে নিরুৎসাহিত করাটাও আপনার দায়িত্ব। ও আরেকটি কথা, সাঁতার না জানলে গোসল করার সময় পদ্মার বেশি গভীরে না যাওয়াই ভালো।



সম্প্রতি রাজস্থান গিয়েছিলেন শাহরুখ খান। সেখানে একটি হোটেলের আতিথেয়তায় মুগ্ধ হয়েছেন। জয়পুরের নামি সেই রাজস্থানি রেস্তোরাঁয় পেট পুরে খেয়েছেনও। সেখানে শাহরুখের জন্য স্পেশাল রাজস্থানি থালির ব্যবস্থা করা হয়। একেবারে খাঁটি রাজস্থানি স্টাইলে তাকে স্বাগত জানায় রেস্তোরাঁ কর্তৃপক্ষ। কপালে টিকা, মাথায় পাগড়ি, গলায় মালা পরিয়ে আপ্যায়ন করা হয়। তাকে উপহার দেয়া হয় রাজস্থানি তলোয়ারও। এরপর খাবার দেয়া হয় প্রসাদ বিতরণের সোনার থালায়। এ সময় স্থানীয় গায়করাও ছিলেন। শাহরুখের কিছু ছবির গান তারা রাজস্থানি স্টাইলে পরিবেশন করে বলিউড বাদশাহকে বিনোদিত করেন। সূত্র: ইনফো টেইন



স্টাইলিশ তারকা টেইলর সুইফট

ক’দিন আগে বিশ্বের সর্বোচ্চ পারিশ্রমিক পাওয়া সঙ্গীতশিল্পীদের তালিকায় প্রকাশিত হয়। সেখানে জানা যায় শীর্ষে অবস্থান করছেন টেইলর সুইফট। এবার ‘ফোর্বস’ ম্যাগাজিন প্রকাশ করেছে অনূর্ধ্ব ৩০ তারকার সর্বোচ্চ পারিশ্রমিক প্রাপ্তদের তালিকা। এখানেও নিজের নাম উজ্জ্বল করলেন মার্কিন পপ তারকা। সে সঙ্গে তিনি কম বয়সী সেরা স্টাইলিশ তারকার খাতাতেও নাম লেখান। সূত্র : ডেইলি মেইল



কালো শিশুটি এখন সুপারমডেল!

এখন তিনি সুপারমডেল। তবে অতীতের সেই সব ভুলে যাননি। তাই তার মতো শিশুদের কল্যাণে কাজ করে যাচ্ছেন। সম্প্রতি বিবিসির সঙ্গে এক ভিডিও সাক্ষাৎকারে উঠে এসেছে মারি মালেক নামে শরণার্থী থেকে সুপারমডেল হওয়া এক তরুণীর কথা। মারি মালেক এক শিশু শরণার্থী হিসেবে সুদান থেকে এসেছিলেন যুক্তরাষ্ট্রে। দক্ষিণ সুদানের যুদ্ধ তাকে শিশু অবস্থায় দেশ ছাড়তে বাধ্য করেছিল। চার বছর শরণার্থী শিবিরে থাকার পর তিনি যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশের অনুমতি পান। এখন তিনি নিউইয়র্কভিত্তিক সুপারমডেল, অভিনেত্রী ও ডিজে। অনেক বাধা-বিপত্তি থাকা সত্ত্বেও তিনি ধীরে ধীরে সুপারমডেল হিসেবে সফল হন। এখন তার সুপারমডেল মর্যাদা ব্যবহার করছেন দক্ষিণ সুদানের যুদ্ধকবলিত শিশুদের কল্যাণে। সূত্র : বিবিসি



জনপ্রিয়তায় লম্বা হাতা ট্রেন্ড

লন্ডন ফ্যাশন উইকের রেশ যেন ফ্যাশনপ্রেমীদের মাঝে এখনও রয়ে গেছে। সেখানে অংশ নেয়া সেরা ডিজাইনারদের পোশাকগুলো এখনও যেন চোখের সামনেই ভাসছে। ফ্যাশন উইক থেকে জনপ্রিয়তায় আসা একটি ট্রেন্ড অতিকায় লম্বা হাতা। গত কয়েক সিজন ধরেই ফ্যাশনে বিভিন্ন রকমের হাতা দেখা যাচ্ছে। যেমন কেপ বা চিরা হাতা, ফুলানো হাতা, ঘটির মতো কিংবা বেঢপ লম্বা হাতা। আর এই স্টাইলকে আরও এক ধাপ এগিয়ে নিয়ে গেছে লন্ডন এবং প্যারিস ফ্যাশন উইক। এই ট্রেন্ডটি বিভিন্ন রকম পোশাকের সঙ্গেই মানিয়ে পরতে পারবেন। যেমন ব্লেপ লম্বা হাতা, হাতা বেশি নিচে নামিয়ে রাখা এবং কাঁধ কিছুটা বের করে রাখা, কখনও বা স্বচ্ছ হাতা ব্যবহার করা-নানাভাবে এই ট্রেন্ড অনুসরণ করতে পারেন। সূত্র : ফ্যাশন ট্রেন্ড



কসমোপলিটন ম্যাগাজিন কভারে বাণী কাপুর

প্লাস্টিক সার্জারি করার পর চেহারায় এসেছে বিশাল পরিবর্তন। সেই বাণী কাপুরকে দেখা গেল ম্যাগাজিনের ফটোশুটে। শুদ্ধ দেশি রোমান্স’ ছবিতে সুশান্তের সঙ্গে ‘শাম গুলাবি, শহের গুলাবি’ গানে রোমান্স করতে দেখা গিয়েছিল বাণী কাপুরকে। তারপর তিনি প্লাস্টিক সার্জারি করে চেহারায় আনেন আমূল পরিবর্তন। এবার তাকে দেখা গেল কসমোপলিটন ম্যাগাজিনের কভার পেজে। বাণী কাপুর নিজেকে নতুনভাবে উপস্থাপন করতে যথেষ্ট পরিশ্রম করে যাচ্ছেন। আর তারই প্রমাণ মিলল ম্যাগাজিনের এই কভারে। সূত্র : ইন্ডিয়ান টাইমস

The-first-company-to-set-up-microchips-in-the-hands-of-the-employees-will-be-Three-Square-Market 


 দুই বছর আগের ঘটনা। এক হ্যাকার তার বাম হাতে ছোট একটি ‘এনএফসি চিপ’ বসান। এর মাধ্যমে তিনি হ্যাক করতে থাকেন বিভিন্ন অ্যান্ড্রয়েড স্মার্টফোন। ভাঙতে থাকেন বিভিন্ন ইন্টারনেট ডিভাইসের নানা নিরাপত্তা ব্যবস্থা।


এর এক বছরের মাথায় অারেকজন হ্যাকার তার হাতের চামড়ার ভেতরে বিটকয়েন ওয়ালেটের প্রাইভেট কি এর সঙ্গে ছোট ‘এনএফসি চিপ’ ব্যবহার করেন। যাতে হাতের ইশারার মাধ্যমে তিনি যেকোনো সময় যেকোনো কিছু কিনতে পারেন এবং ব্যাংক অ্যাকাউন্টে টাকা পাঠাতে পারেন।

এগুলোই ছিল শুরু। এখন বিষয়টি বাস্তবে রূপ নিতে যাচ্ছে। আর এই প্রযুক্তিকে কাজে লাগিয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের উইসকনসিনের মার্কেটিং সল্যুশন প্রভাইডার ‘থ্রি স্কয়ার মার্কেট’ বা ‘৩২এম’ নামে প্রযুক্তি বিষয়ক একটি কোম্পানি।

সম্প্রতি কোম্পানিটি জানিয়েছে, তারা তাদের সকল কর্মীদের হাতে এই মাইক্রোচিপটি বসাতে যাচ্ছে। আর এটিই হবে প্রথম কোম্পানি যেটি তার কর্মীদের হাতে মাইক্রোচিপ প্রযুক্তি ব্যবহার করতে যাচ্ছে।

জানা গেছে, এই মাইক্রোচিপটির মাধ্যমে প্রতিষ্ঠানটির কর্মীরা খাবার কিনতে পারবেন, দরজা খুলতে পারবেন, কম্পিউটার চালুসহ ফটোকপি মেশিন ব্যবহার করতে পারবেন। এছাড়া প্রতিষ্ঠানের বিভিন্ন কাজেও কর্মীরা এটি ব্যবহার করতে পারবেন।

প্রতিষ্ঠানটির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা টোড ওয়েস্টবাই বলেন, এই প্রযুক্তি ব্যবহার করে অনেক কিছুই করা সম্ভব। আগামী ১ আগষ্ট ৩২এম এর সদরদপ্তরে ‘চিপ পার্টির’ আয়োজন করা হয়েছে। সেদিন আগ্রহী কর্মীদের হাতে এ চিপটি বসানো হবে।


একবার স্ট্রোকের পর যারা বেঁচে যান তাদের মৃত্যুর ঝুঁকি অন্যদের চেয়ে দ্বিগুণ। তারা পরবর্তী এক বছরের মধ্যে আরও একবার স্ট্রোক বা হার্ট অ্যাটাকে আক্রান্ত হতে পারেন। কানাডার চিকিৎসকদের গবেষণায় এমনটি উঠে এসেছে। খবর বিবিসির।

গবেষণা প্রতিবেদনটি কানাডার মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশন জার্নালে প্রকাশিত হয়েছে।
এতে বলা হয়েছে, স্ট্রোক বা মিনি স্ট্রোকের কারণে যে ধরনের ঝুঁকির কথা আগে ধারণা করা হতো দীর্ঘস্থায়ী ঝুঁকি তার চেয়ে আরও ভয়াবহ। স্ট্রোকের ঝুঁকি বয়স্কদের বেশি- আগে এমন ধারণা করা হলেও সেটিও ভুল প্রমাণিত হয়েছে গবেষণায়।

২৬ হাজার মানুষের ওপর জরিপ করে গবেষণাটি করেছেন কানাডার বিজ্ঞানীরা।

গবেষণায় দেখা গেছে, প্রথম স্ট্রোক করার পাঁচ বছরের মধ্যে একজন মানুষের এসব ঝুঁকির শঙ্কা বেশি। গবেষকরা বলছেন, স্ট্রোকের অন্যতম কারণ ডায়াবেটিস, উচ্চ রক্তচাপ ধরা হলেও তার চেয়ে বড় আরও অনেক কারণ রয়েছে। মানসিক চাপ থেকে বহু মানুষ স্ট্রোক করছেন।

Whein-Wireless-Graphics-Tab 


বাংলাদেশের বাজারে আনুষ্ঠানিক উন্মোচন হলো হুইনের তারবিহীন কিউ১১কে মডেলের ৮১৯২ পেন প্রেসার সমৃদ্ধ গ্রাফিকস ট্যাবলেট পিসি। মঙ্গলবার রাজধানীর একটি হোটেলে গ্রাফিকস ট্যাবলেটের উদ্বোধন করেন হুইনের বাংলাদেশ পরিবেশক মাল্টিমিডিয়া কিংডমের প্রধান নির্বাহী মোহাম্মদ আলী জিন্নাহ জুয়েল। এ সময় উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ কম্পিউটার সমিতির (বিসিএস) মহাসচিব সুব্রত সরকার, ঢাকা ট্রিবিউনের কার্টুনিস্ট সৈয়দ রাশাদ ইমাম তন্ময়, টেকহিলের মুস্তাফিজুর রহমান তুহিন, উন্মাদের সহকারী সম্পাদক মোরশেদ মিশু প্রমুখ।



উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে মোহাম্মদ আলী জিন্নাহ জুয়েল বলেন, ইতিমধ্যে দেশের বাজারে সব ধরনের গ্রাফিকস ট্যাবলেটের সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠান হিসেবে আস্থা অর্জন করেছে মাল্টিমিডিয়া কিংডম। গ্রাহকদের কথা বিবেচনা করে সরাসরি প্রস্তুতকারক প্রতিষ্ঠান থেকে আমরা ট্যাবলেট আমদানি করছি।

হুইন ট্যাবে ক্রেতারা আকর্ষণীয় উপহার পাবেন। রয়েছে ১ বছরের রিপ্লেসমেন্ট ওয়ারেন্টি।

অ্যান্টিভাইরাস বিনামূল্যে দিচ্ছে ক্যাসপারস্কি 


ইন্টারনেট নিরাপত্তার জন্য সফটওয়্যার নির্মাতা প্রতিষ্ঠান ক্যাসপারস্কি তাদের অ্যান্টিভাইরাস সফটওয়্যারের একটি নতুন ভার্সন বিনামূল্যে বিশ্বব্যাপী অবমুক্ত করতে যাচ্ছে। ইতিমধ্যে যুক্তরাষ্ট্র, কানাডাসহ অনেক দেশে এটা অবমুক্ত করা হয়েছে। এছাড়া পৃথিবীর অন্যান্য দেশে দ্রুতই চালু হবে ক্যাসপারস্কির বিনামূল্যের সেবা। মঙ্গলবার এক ব্লগ পোস্টে ক্যাসপারস্কির প্রতিষ্ঠাতা ইউজিন ক্যাসপারস্কি এমনটিই জানিয়েছেন।


প্রতিষ্ঠানটির পক্ষ থেকে বলা হয়, লাইসেন্সকৃত (কিনে নেওয়া) সফটওয়্যারের সঙ্গে বিনামূল্যের সফটওয়্যারটির কিছু পার্থক্য রয়েছে। গ্রাহকরা অর্থ ব্যয় করে যেটা নেবেন, সেটা স্বাভাবিকভাবেই অনেক ভালো মানের সেবা দেবে। অন্যদিকে বিনামূল্যের সফটওয়্যারটি সব ধরনের নিরাপত্তা না দিলেও প্রাথমিক ধাপের নিরাপত্তা দেবে ভালোভাবেই।

বিনামূল্যের এই অ্যান্টিভাইরাস অবমুক্ত করতে ১৮ মাস ধরে কাজ করছে ক্যাসপারস্কি ল্যাব। প্রকল্পটির পরীক্ষামূলক কার্যক্রম চালানো হয় রাশিয়া, ইউক্রেন, চীনসহ বিভিন্ন অঞ্চলে। সেখানে ইতিবাচক ফল পাওয়ায় অবশেষে সবার জন্য অবমুক্ত করা হচ্ছে অ্যান্টিভাইরাসের নতুন ভার্সন।

এই বৃষ্টির দিনে ভুনা খিচুড়ির সঙ্গে পরিবেশন করতে পারেন ঝাল ঝাল ধাবা মাটন। সাদা ভাতের সঙ্গেও খেতে সুস্বাদু এটি।

Recipe-Solder-Jhol-Dhaba-Mtana


জেনে নিন কীভাবে রান্না করবেন ধাবা মাটন-

উপকরণ


খাসির মাংস- ৫০০ গ্রাম
রসুন- ৫টি কোয়া (কুচি)
পেঁয়াজ- ২টি (কুচি)
দই- কাপ কাপের ৩ ভাগ
জিরা গুঁড়া- ১ চা চামচ
ধনে গুঁড়া- ১ চা চামচ
লবঙ্গ- ৪টি
তেল- পরিমাণ মতো
কাঁচামরিচ- ৩/৪টি
আদা বাটা- ১ চা চামচ
ধনেপাতা- পরিমাণ মতো
টমেটো- ২টি (কুচি)
তেজপাতা- ২টি
এলাচ- ৩টি
মরিচ গুঁড়া- ১ চা চামচ
হলুদ গুঁড়া- ১ চা চামচ
লবণ- স্বাদ মতো

প্রস্তুত প্রণালি

একটি পাত্রে দই, মরিচ গুঁড়া, হলুদ গুঁড়া, জিরা গুঁড়া এবং ধনে গুঁড়া দিয়ে মাংস মিশিয়ে রেখে দিন ২ ঘন্টা। 
কড়াইয়ে পরিমাণ মতো তেল নিয়ে গরম করে লবঙ্গ, এলাচ, তেজপাতা, রসুন এবং আদা দিয়ে ভালো করে নাড়ুন। কিছুক্ষণ পর তাতে পেঁয়াজ এবং কাঁচামরিচ মিশিয়ে নাড়তে থাকুন। পেঁয়াজ খয়েরি হয়ে গেলে মাংসের টুকরাগুলো দিয়ে দিন। কিছুক্ষণ নেড়ে টমেটো এবং কাঁচামরিচ মেশান। এরপর ১৫-২০ মিনিট রান্না করুন। পানি মিশিয়ে আরও ৫ মিনিট রান্না করুন। গরম মসলা দিন। মাংস সেদ্ধ হয়ে গেলে ধনেপাতা কুচি ছিটিয়ে গরম গরম পরিবেশন করুন।


ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেন্সরসহ ৯৯ মার্কিন ডলার মূল্যের ব্লেড স্পার্ক নামে নতুন অ্যান্ড্রয়েড স্মার্টফোন বাজারে ছেড়েছে জেডটিই। 
ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেন্সরযুক্ত ১০০ মার্কিন ডলারের নিচের হ্যান্ডসেটগুলো মানের দিক থেকে উৎকৃষ্ট নয়। সেক্ষেত্রে মাত্র ৯৯ মার্কিন ডলারে মানসম্মত ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেন্সরসহ নতুন এই স্মার্টফোনটি বাজারে নিয়ে আসল চীনা স্মার্টফোন নির্মাতা প্রতিষ্ঠানটি। 
স্মার্টফোনটিতে আছে, 
  • ৫.৫ ইঞ্চি ৭২০ পিক্সেল এইচডি ডিসপ্লে 
  • স্ন্যাপড্রাগন ৪২৫ কোয়াড-কোর প্রসেসর 
  • ১৬ জিবি স্টোরেজ, ২জিবি র‌্যাম 
  • ১৩ মেগাপিক্সেল রিয়ার ক্যামেরা, ৫ মেগাপিক্সেল ফ্রন্ট ক্যামেরা 
  • ৩,১৪০ মিলিঅ্যাম্পিয়ার ব্যাটারি, অ্যান্ড্রয়েড ৭ ন্যুগাট অপারেটিং সিস্টেম 
জেডটিই ব্লেড স্পার্ক ৯৯ মার্কিন ডলারে অনলাইন এবং স্টোর থেকে কেনা যাবে।

ত্বক উজ্জ্বল রাখতে জেনে নিন প্রাকৃতিক কিছু উপায়

    ত্বকের গঠনের কারণেই অনেকের ত্বকের রঙ ফর্সা আবার অনেকের শ্যামলা হয়ে থাকে। ত্বক ফর্সা না শ্যামলা সেটা বড় কথা নয়। আপনার ত্বকের নমনীয়, উজ্জ্বলাতাই আসল। তবে অনেক সময় নিজের স্বভাবের কারণেই অনেক সময় ফর্সা বা শ্যামলা যেকোনো প্রকারের ত্বক হোক না কেন তা অনুজ্জ্বল হয়ে যায়। আজ আমরা আপনাদের জানাব কিভাবে প্রাকৃতিক উপায়ে আপনি আপনার ত্বক উজ্জ্বল রাখতে পারবেন।


এছাড়া সুন্দর হতে কিংবা নিজের একটু সুন্দর মসৃণ ত্বক ও পরিপাটি হয়ে থাকবে, এটা সবাই চায়। সুন্দর ত্বক অনেকেই বংশগতভাবে পেয়ে থাকেন, তবে যাদের সুন্দর ত্বক আছে এবং যাদের নেই, সবারই প্রয়োজন ত্বকের সঠিক পরিচর্যা।

ত্বক পরিষ্কারে সাবান বিহীন পণ্য ব্যবহার : আপনি ত্বক পরিষ্কারক হিসেবে অবশ্যই সাবান বিহীন অর্থাৎ সোপ ফ্রি ফেস ওয়াশ ব্যবহার করবেন। সাবান আপনার ত্বকের স্বাভাবিক দীপ্তি অনেকটাই কমিয়ে দেয়।

নখ দিয়ে ত্বকের শুষ্কতা পরিমাপ করুন : সব সময় হাতে কিংবা পায়ের ত্বকে নখ দিয়ে হালকা আচর কেটে দেখুন সেখানে কি সাদা ভাব ফুটে উঠছে কিনা? যদি সাদা দাগ দেখা যায় তবে বুঝতে হবে আপনার ত্বক শুষ্ক। শুষ্ক ত্বকের সাথে যায় এমন সব জিনিস ত্বকে প্রয়োগ করতে হবে। আর যদি ত্বক হয় তৈলাক্ত তবে তৈলাক্ত জিনিস পরিহার করতে হবে।

মুখের ত্বকের মতোই গলা এবং পিঠের যত্ন নিন : অনেকেই মনে করেন কেবল মুখের যত্ন মানেই ত্বকের যত্ন। বাস্তবিক আপনার সম্পূর্ণ শরীর জুড়েই ত্বকের অবস্থান আপনাকে শরীরের সব জায়গায় সমান যত্ন নিতে হবে। বিশেষ করে আপনি যখন বাইরে যান, তখন আপনার ঘাড় কিংবা গলায় সূর্যের আলোর প্রভাব অনেক বেশি পড়ে, একই সাথে এই জায়গায় ময়লাও অনেক বেশি হয়। সুতরাং এসব যায়গায় ঠিকভাবে যত্ন নিতে হবে। গরমের দিনে বাইরে থেকে এসেই ঘাড়ে একটি টাওয়েল ঠাণ্ডা পানিতে ভিজিয়ে লাগান এতে আপনার ঘাড় এবং মাথা উভয়ই শীতল থাকবে।

ত্বকে কৃত্রিম ক্রিম ব্যবহার না করে প্রাকৃতিক জিনিস ব্যবহার করার চেষ্টা করুন : আমাদের প্রকৃতিতেই অনেক পণ্য পাওয়া যায় যা দিয়ে আমরা খুব সহজেই প্রাকৃতিক উপায়ে আমাদের ত্বকের যত্ন নিতে পারি। মূলত এসব প্রাকৃতিক উপাদানে কোনোরূপ পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া হয় না।

তৈলাক্ত ত্বকের ক্ষেত্রে নানান সমস্যা তৈরি হয় বিশেষ করে গরম কালে। এসময় তৈলাক্ত ত্বক নিয়ে বাইরে বের হলেই বিরক্তিকর এক অবস্থার সম্মুখীন হতে হয়। যাদের ত্বক তৈলাক্ত তারা বেশি বেশি মুখ ধুবেন। আপনি পানি দিয়ে ত্বক ধুলে আপনার ত্বক অনেকটাই শীতল থাকবে। এছাড়া আপনি মেথির গুঁড়ো, শসার রস এবং চালের গুঁড়ো দিয়ে খুব সহজেই একটি প্যাক তৈরি করে আপনার তৈলাক্ত ত্বকে প্রয়োগ করতে পারবেন। এতে আপনার ত্বকের তৈলাক্তভাব অনেকটাই হ্রাস পাবে। দিনে দুইবার এই প্যাক লাগালে আপনার ত্বকের ব্রণ হবার প্রবণতাও অনেকটাই কমে যাবে কারণ ব্রণ তৈলাক্ত ত্বকের একটি প্রধান সমস্যা।

পুরনো আসবাবপএের খোঁজ-খবর

    আভিজাত্য ও রুচিশীলতার কথা আসলেও সাথে সাথে চলে আসে সাধ্যের ব্যাপারটিও। কারণ সবার পক্ষে দামী কিংবা নতুন রুচিশীল আসবাব কেনার সাধ্য হয়ে উঠে না ফলে সাধ ও সাধ্যের মধ্যে সামঞ্জস্যতা বজায় রেখে ঝুকতে হয় পুরাতন আসবাব বা ফার্নিচারের দোকানের দিকে। সম্ভবত এ কারণেই পুরাতন ফার্নিচারের দোকানগুলো দিন দিন সরব হয়ে উঠছে ক্রেতাদের ভিড়ে। পুরাতন ফার্নিচারের দোকানগুলোতে সকল ধরনের ফার্নিচার অতি সুলব মূল্যে পাওয়া যায় যা ক্রেতার সাধ্যের মধ্যেই থাকে। তাছাড়া বাসা বাড়িতে মানুষ বসবাস করবে কিন্তু সেখানে আসবাবপএ থাকবে না তাতো কল্পনাও করা যায় না। সেজন্যই বসতবাড়িতে আসবাবপএের প্রয়োজনীয়তার প্রশ্ন আসে। কিন্তু শুধুমাএ প্রয়োজনীয়তার কথা ভাবলেই তো আর চলে না, সাথে সাথে সৌন্দর্য ও নান্দনিকতার প্রশ্নও চলে আসে সামনে। যা ফুটে উঠে রুচিশীলতার মাধ্যমে।


ফার্নিচার সমূহ :

আসবাবের দোকানগুলোতে পুরাতন ফারর্নিচারের মধ্যে যে সকল ফার্নিচার পাওয়া যায় সেগুলোর মধ্যে অন্যতন : খাট, পড়ার টেবিল, চেয়ার, সোফা সেট, আলমারী, ডাইনিং টেবিল, ওয়্যারড্রব, বুকসেলফ, ড্রেসিং টেবিল, কম্পিউটার টেবিল ও শোকেইস ইত্যাদি।

ক্রয়-বিক্রির স্থান সমূহ :

যে সকল স্থানে পুরাতন ফার্নিচার ক্রয়-বিক্রয় করা হয়ে থাকে সে সকল স্থানের মধ্যে অন্যতম হল : টিচার্স ট্রেনিং কলেজের সামনে, মোহাম্মদপুর টাউন হল, আজিমপুর, মিরপুর স্টেডিয়ামের পাশে, আরামবাগ, ভিকারুননিসা নূন স্কুল এন্ড কলেজের পাশে, আজমপুর, যাএাবাড়ী বাস স্ট্যান্ডের পাশে, বাড্ডা, নতুন বাজার, পান্থপাথ বসুন্ধরার পাশে, মিরপুর ১২ নম্বর, কচুক্ষেত বাজার ইত্যাদি।

মূল্য :

প্রতি পিস চেয়ার : প্রতি পিস ডাবল খাট : ১০০০ থেকে ২৫০০ টাকা, প্রতি পিস বক্স খাট (খোদাইয়ের কাজ করা) : ৩০০০ থেকে ৫০০০ টাকা, প্রতি পিস আলমারি : ১০০০ থেকে ৩০০০ টাকা, প্রতি পিস ওয়ারড্রব : ১০০০ থেকে ৩০০০ টাকা। ১০০ থেকে ২৫০ টাকা, প্রতি পিস ডাইনিং টেবিলের চেয়ার : ৩০০ থেকে ৫০০ টাকা, প্রতি পিস ডাইনিং টেবিল : ৮০০ থেকে ১৫০০ টাকা, প্রতি পিস ডাইনিং টেবিল সেট : ১২০০ থেকে ২৫০০ টাকা, নরমাল প্রতি পিস ডাইনিং টেবিল : ৩০০ থেকে ৫০০ টাকা, প্রতি পিস বক্স ও রেকসহ টেবিল : ৪০০ থেকে ৬০০ টাকা, প্রতি পিস সিঙ্গেল খাট : ৪০০ থেকে ৭০০ টাকা, প্রতি পিস সেমি ডাবল খাট : ৮০০ থেকে ১৫০০ টাকা, বিক্রির পাশাপাশি এ সকল ফার্নিচারের দোকানে পুরাতন আসবাব ক্রয়ও করা হয়ে থাকে।

কিছু টিপস :

কেনার পূর্বে অবশ্যই ফার্নিচারটি ভালোভাবে দেখে নিতে হবে।
বিভিন্ন দোকান ঘুরে দর-দাম যাচাই বাছাই করে নিলে কিছুটা কম মূল্যে আসবাব ক্রয় সম্ভব হবে,
দর কষাকষি করতে হবে কারণ বেশিরভাগ ক্ষেএেই বিক্রেতারা কয়েকগুণ বেশি দাম চেয়ে বসেন,
ফানিচারগুলো পরিবহনের ক্ষেএে অবশ্যই সাবধানতা অবলম্ভন করতে হবে।
Blogger দ্বারা পরিচালিত.