চিকুনগুনিয়া প্রতিরোধে অনলাইনে পরামর্শ লাইভ অনুষ্ঠান

চিকুনগুনিয়া প্রতিরোধে অনলাইনে পরামর্শ লাইভ অনুষ্ঠান 

সময় যাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে চিকনগুনিয়ার প্রকোপ বেড়ে চলছে। সরকার এটাকে মহামারি হিসেবে চিহ্নিত করতে না চাইলেও রোগটি ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে পড়েছে রাজধানীসহ আশেপাশের এলাকায়। অবশ্য ঢাকার বাইরে দেশের অন্যান্য প্রান্তে চিকুনগুনিয়া তেমন বিস্তার লাভ করেনি। তারপরও রোগটির ভয়ে জনমনে আতঙ্ক বিরাজ করছে।



চিকুনগুনিয়া প্রতিরোধে ইতিমধ্যে কিছু সচেতনতামূলক কার্যক্রম হাতে নিয়েছে সরকার। এছাড়া স্বাস্থ্য অধিদপ্তর সার্বক্ষণিক হটলাইন চালু করেছে। এগুলোর বাইরে চিকুনগুনিয়া প্রতিরোধে জনসচেতনতা তৈরিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে আমাদের দেশে প্রচলিত সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলো। অনলাইনে প্রচার হওয়ার সচেতনতামূলক বার্তা মুহূর্তেই ছড়িয়ে পড়ছে সর্বত্র।

ব্যক্তি পর্যায় থেকে শুরু করে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানও চিকনগুনিয়া প্রতিরোধে সচেতনতা কার্যক্রমের সঙ্গে যুক্ত হয়েছেন। ফেসবুক ঘুরে দেখা যায়, বেশ কয়েকজন চিকিৎসক সামাজিক দায়বদ্ধতার তাগিদ থেকেই নিজের ফেসবুক অ্যাকাউন্টে পোস্ট করেছেন রোগটি সম্পর্কিত বিস্তারিত তথ্য। এমনকি রোগটিতে আক্রান্ত হলে কিভাবে পরিত্রাণ পাওয়া যাবে সেটাও উল্লেখ করেছেন তাদের লেখায়।

স্বাস্থ্য অধিদফতরের স্বাস্থ্য বাতায়ন নামের একটি ফেসবুক পেজে দেখা যায় চিকুনগুনিয়া বিষয়ে সচেতনতা তৈরিতে বেশ কিছু আয়োজন রয়েছে। কয়েকদিন পর পরই রোগটি নিয়ে দেওয়া হচ্ছে বিভিন্ন ধরনের পোস্ট। এছাড়া গ্রাফিকসের মাধ্যমে ছবি এঁকে বুঝিয়ে দেওয়া হয়েছে রোগ প্রতিরোধ এবং আক্রান্ত হওয়ার পর করণীয়গুলো।

জাতীয় প্রতিষেধক ও সামাজিক চিকিৎসা প্রতিষ্ঠানও (নিপসম) তাদের একটি পেজে বর্তমান সময়ে আতংকের কারণ হয়ে ওঠা রোগটি নিয়ে নানা ধরনের পোস্ট রয়েছে। এছাড়া চিকুনগুনিয়া নিয়ে আয়োজিত বিভিন্ন সেমিনার সম্পর্কিত পোস্টের পাশাপাশি সাধারণ মানুষকে সচেতন করার জন্য রোগটি সম্পর্কিত প্রয়োজনীয় তথ্যও সন্নিবেশ করা হয়েছে।

দেশের অনলাইনভিত্তিক ডাক্তার অ্যাপয়েনমেন্ট সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠান ডক্টরোলা ডট কম ইতিমধ্যে বেশ কয়েকটি সচেতনতামূলক কার্যক্রম সম্পন্ন করেছে। চিকুনগুনিয়া বিষয়ে অভিজ্ঞ ডাক্তারদের মাধ্যমে ফেসবুক লাইভ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে প্রতিষ্ঠানটি। এতে বেশ সাড়াও মিলেছে বলে জানান প্রতিষ্ঠানটির প্রধান নির্বাহী মোহাম্মদ আব্দুল মতিন ইমন।

এছাড়া অন্যান্য বিভিন্ন ফেসবুক পেজ এবং গ্রুপ ব্যাপকভাবে চিকুনগুনিয়ার সচেতনতামূলক কার্যক্রমের সঙ্গে জড়িত হয়েছে। তারা বিভিন্ন পোস্টের মাধ্যমে মানুষকে রোগটি সম্পর্কে সতর্ক করার চেষ্টা করছে। শুধু চিকিৎসা সম্পর্কিত ফেসবুক পেজ বা গ্রুপ নয়, সব ধরনের গ্রুপ এবং পেজগুলোতে এ ধরনের কার্যক্রম দেখা গেছে। ফলে বিশাল সংখ্যক মানুষ চিকুনগুনিয়া রোগ সম্পর্কে প্রয়োজনীয় তথ্য লাভে সমর্থ হচ্ছে, যা তাদের আতঙ্ক কিছুটা হলেও দূর করেছে।

সময় যাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে চিকনগুনিয়ার প্রকোপ বেড়ে চলছে। সরকার এটাকে মহামারি হিসেবে চিহ্নিত করতে না চাইলেও রোগটি ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে পড়েছে রাজধানীসহ আশেপাশের এলাকায়। অবশ্য ঢাকার বাইরে দেশের অন্যান্য প্রান্তে চিকুনগুনিয়া তেমন বিস্তার লাভ করেনি। তারপরও রোগটির ভয়ে জনমনে আতঙ্ক বিরাজ করছে।