যে মেয়েটি প্রমাণ করেছে 'মোটা' হওয়া কোন লজ্জার ব্যাপার নয়!

যে মেয়েটি প্রমাণ করেছে 'মোটা' হওয়া কোন লজ্জার ব্যাপার নয়!  


 আপনাদের মধ্যে এমন কেউ কি আছেন যাকে উচ্চতা এবং স্থূল স্বাস্থ্যের জন্য প্রতিনিয়ত মানুষের খোঁচা শুনতে হয়? উত্তর নিশ্চয়ই হ্যাঁ, কারণ অনেকেই আছেন এমন। সমাজে কিছু মানুষ থাকেন এমনই যারা অন্য মানুষের নিন্দা করেই শান্তি পান। তারা মনোঃকষ্টে ভুগছেন কী না সেদিকে লক্ষ্য না করেই।


চলুন আজকে এমন একজন মানুষের গল্প শোনা যাক। তিনি হলেন, ভারতীয় রম্যশিল্পী ভারতী সিং। তার জন্ম ১৯৮৪ সালে পাঞ্জাবে। ভারতীর শৈশবের কাহিনীই খুব বেদনাদায়ক। বাবা-মায়ের প্রথম দুই সন্তানের পর তিনি হলেন তৃতীয় সন্তান। তার বাবা-মায়ের ইচ্ছা ছিলনা তাকে পৃথিবীতে আনার। এ নিয়ে তিনি খুব ছোট বেলা থেকেই বিমর্ষতায় ভুগতেন।
 


কষ্টের পাল্লা আরো ভারী হলো যখন মাত্র দুই বছর বয়সে তার বাবা মারা যান। মা খুবই যাতনা নিয়ে তিন সন্তানের লালন-পালন করতে লাগলেন। ভারতী তার প্রাথমিক শিক্ষা শুরু করলেন। কিন্তু অর্থাভাবে তার মা তাকে প্রাথমিক শিক্ষার পর আর পড়াতে পারলেন না। কিন্তু ভারতী ছোট বেলা থেকেই বন্দুক চালনা এবং তীর ছোঁড়ায় খুব পারদর্শী ছিলেন। এটুকু জ্ঞান তাকে কলেজে ভর্তি হওয়ায় বেশ সাহায্য করলো।

কিন্তু বাদ সাধলো তার ভাগ্য! ভারতী ছোটবেলা থেকেই একটু ভারী গড়নের এবং খর্বাকৃতির ছিলেন। এজন্য অনেক অল্প বয়স থেকেই তাকে মানুষের খোঁচা শুনতে হতো। এভাবে তিনি বড় হতে লাগলেন। কিন্তু নিন্দার হার কমলো না। দারিদ্রতা ও দুর্ভাগ্য ভারতীকে যেন কুড়ে কুড়ে খাচ্ছিলো।

এবার তিনি উঠে দাঁড়ানোর স্বপ্ন দেখলেন। নামকরা কিছু কমেডি শো-তে অংশ নেওয়ার জন্য অডিশন দিলেন। ভাগ্যের চাকা যেন এবার ঘুরতে শুরু করলো। ভারতী চান্স পেয়ে গেলেন এবং মুম্বাইয়ে যাওয়ার সুযোগ পেলেন। এ প্রসঙ্গে কিছু সমালোচকের কথা বলে রাখা ভালো যারা সুযোগ পেলেই কথা শোনান। ভারতীকে শুনতে হলো, 'তুমি যদি মুম্বাইয়ে যাও তাহলে তোমার গায়ে সেই শহরের বাতাস লাগবে ও তোমার কখনো বিয়ে হবেনা!' কিন্তু মায়ের সাহচর্য পেলেন তিনি। মুম্বাইয়ে এসে তিনি কাজ শুরু করলেন এবং খুব দ্রুত 'লাল্লি' নামে পরিচিতি লাভ করলেন। 
 


প্রকৃতপক্ষে, আগে ভারতে কমেডিয়ান বা রম্যশিল্পীদের খুব একটা চাহিদা ছিলনা। তাদেরকে খুব একটা মূল্য দেওয়া হতো না। এসবের বিরুদ্ধে সোচ্চার হলেন ভারতী। যেখানে দক্ষিণ এশিয়ায় মোটা মেয়েদের সর্বদা 'কদাকার' বলেই তিরস্কার করা হতো, সেখানে তিনি বিউটি প্রোডাক্টের প্রচারণায় অংশ নিলেন। শুধু তাই নয়, তিনি বিভিন্ন রকম নাচের অনুষ্ঠানে অংশ নিয়েছেন। নিজের প্রতিভা দিয়ে অভিভূত করেছেন সবাইকে। পৃথিবীকে দেখিয়ে দিয়েছেন, মোটা হওয়াটা কোন নারীর জন্য মোটেও লজ্জার বিষয় নয়!

এখন কেমন আছেন ভারতী? বর্তমানে ভারতী সর্বাধিক ক্ষমতাসম্পন্ন ও জনপ্রিয় ভারতীয় রম্যশিল্পীদের একজন। সুতরাং,কী বুঝতে পারছেন? আপনি আপনার স্বপ্নের মতন বিশাল এবং চিন্তার মতন ব্যাপ্ত। শুভকামনা সকল পাঠকদের জন্য।

আপনাদের মধ্যে এমন কেউ কি আছেন যাকে উচ্চতা এবং স্থূল স্বাস্থ্যের জন্য প্রতিনিয়ত মানুষের খোঁচা শুনতে হয়? উত্তর নিশ্চয়ই হ্যাঁ, কারণ অনেকেই আছেন এমন। সমাজে কিছু মানুষ থাকেন এমনই যারা অন্য মানুষের নিন্দা করেই শান্তি পান। তারা মনোঃকষ্টে ভুগছেন কী না সেদিকে লক্ষ্য না করেই।