সর্বকালের সফল গান ‘দেসপাসিতো’!

সর্বকালের সফল গান ‘দেসপাসিতো’!


মাত্র ছয় মাসেই ইতিহাস গড়েছে ‘দেসপাসিতো’। এটাই এখন বিশ্বে সর্বকালের সবচেয়ে বেশিবার বাজানো গান। ইউনিভার্সাল মিউজিক বুধবার (১৯ জুলাই) জানিয়েছে, পৃথিবীজুড়ে অ্যাপল মিউজিক, স্পটিফাই, গুগল প্লে, আমাজন আনলিমিটেড, ডিজার, ইউটিউবসহ জনপ্রিয় প্ল্যাটফর্মগুলোতে এখন পর্যন্ত ৪৬০ কোটি বারেরও বেশি বেজেছে এটি। এই সংখ্যার সামনে নেই আর কোনও গান।


বিশ্বের ৩৫টি দেশের মিউজিক টপচার্টগুলোতে এখন শীর্ষে আছে ‘দেসপাসিতো’। ইউএস বিলবোর্ড হট হান্ড্রেড চার্টে ১০ সপ্তাহ, স্পেনে ১৭ সপ্তাহ টপচার্টের শীর্ষে এবং ব্রিটেনে ৯ সপ্তাহ এক নম্বরে আছে এই গান। দেশে দেশে এফএম রেডিওগুলোতেও এটি দেদার বাজানো হচ্ছে। এক বিবৃতিতে এসব তথ্য জানিয়েছেন ইউনিভার্সাল মিউজিক গ্রুপের প্রধান নির্বাহী লুসিয়ান গ্রেইঞ্জ।
‘দেসপাসিতো’ই এখন সর্বকালের সবচেয়ে সফল স্প্যানিশ ভাষার পপ গান। গত জানুয়ারিতে প্রকাশিত হয় পুয়ের্তোরিকান গায়ক লুই ফনসি ও র‌্যাপার ড্যাডি ইয়াঙ্কির গাওয়া গানটি। প্রকাশের পরপরই লাতিন আমেরিকায় জনপ্রিয়তা পায় এটি। তবে অন্যান্য দেশের নজরে আসে কানাডিয়ান হার্টথ্রব জাস্টিন বিবারের সুবাদে। এক নাইটক্লাবে এই গান শুনে রিমিক্সের আগ্রহ দেখান তিনি। তার অংশগ্রহণে ‘দেসপাসিতো (রিমিক্স)’ প্রকাশের পর সাড়া জাগায়। ইতোমধ্যে ইউটিউবে সর্বকালের সবচেয়ে বেশিবার দেখা ভিডিওর তালিকায় চার নম্বর স্থান দখল করেছে এটি।

মজার বিষয় হলো, ‘দেসপাসিতো’র আগে বিশ্বে সবচেয়ে বেশিবার বাজানো গানের রেকর্ড ছিল ২০১৫ সালে প্রকাশিত বিবারের ‘সরি’ গানের দখলে। এটি বেজেছে ৪৩৮ কোটি বার। তালিকায় তিন নম্বরে আছে ব্রিটিশ তারকা এড শেরানের ‘শেপ অব ইউ’ (৪০৭ কোটি বার)।

নিজের গানের সাফল্যে অবদান রাখায় বিবারকে ধন্যবাদ জানাতে ভোলেননি লুই ফনসি।
আগে পুয়ের্তোরিকোর বাইরে তার তেমন একটা পরিচিত ছিলেন না। কিন্তু এখন সারা পৃথিবীর ঘরে ঘরে ছড়িয়ে পড়েছে তার নাম। ৩৯ বছর বয়সী এই তারকা সংবাদ সংস্থা বিবিসিকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে বলেছেন, “বিশ্বে সবচেয়ে বেশিবার বাজতে থাকা গানের রেকর্ড গড়েছে ‘দেসপাসিতো’, এটা আমার জন্য সম্মান। আমি মানুষকে নাচাতে চেয়েছি। কিন্তু এই গান যে এভাবে ইতিহাস গড়বে তা ভাবিনি।’

পুয়ের্তোরিকোতে জন্ম হলেও লুই ফনসি এখন থাকেন যুক্তরাষ্ট্রের মিয়ামিতে। চলমান রাজনৈতিক সংকট প্রসঙ্গ টেনে এনে তিনি বিবিসিকে বলেন, “আমরা এমন একটা সময় যাচ্ছে যখন মানুষ আমাদের মধ্যে বিভক্তি তৈরি করতে চায়, গড়ে দিতে চায় দেয়াল। এমন পরিস্থিতিতে ‘দেসপাসিতো’ বিভিন্ন জাতি ও সংস্কৃতিকে এক সুতোয় গেঁথেছে, এজন্য আমি গর্বিত।”

গানের ভিডিও:

,

গানের দৃশ্য
মাত্র ছয় মাসেই ইতিহাস গড়েছে ‘দেসপাসিতো’। এটাই এখন বিশ্বে সর্বকালের সবচেয়ে বেশিবার বাজানো গান। ইউনিভার্সাল মিউজিক বুধবার (১৯ জুলাই) জানিয়েছে, পৃথিবীজুড়ে অ্যাপল মিউজিক, স্পটিফাই, গুগল প্লে, আমাজন আনলিমিটেড, ডিজার, ইউটিউবসহ জনপ্রিয় প্ল্যাটফর্মগুলোতে এখন পর্যন্ত ৪৬০ কোটি বারেরও বেশি বেজেছে এটি। এই সংখ্যার সামনে নেই আর কোনও গান।

বিশ্বের ৩৫টি দেশের মিউজিক টপচার্টগুলোতে এখন শীর্ষে আছে ‘দেসপাসিতো’। ইউএস বিলবোর্ড হট হান্ড্রেড চার্টে ১০ সপ্তাহ, স্পেনে ১৭ সপ্তাহ টপচার্টের শীর্ষে এবং ব্রিটেনে ৯ সপ্তাহ এক নম্বরে আছে এই গান। দেশে দেশে এফএম রেডিওগুলোতেও এটি দেদার বাজানো হচ্ছে। এক বিবৃতিতে এসব তথ্য জানিয়েছেন ইউনিভার্সাল মিউজিক গ্রুপের প্রধান নির্বাহী লুসিয়ান গ্রেইঞ্জ।
‘দেসপাসিতো’ই এখন সর্বকালের সবচেয়ে সফল স্প্যানিশ ভাষার পপ গান। গত জানুয়ারিতে প্রকাশিত হয় পুয়ের্তোরিকান গায়ক লুই ফনসি ও র‌্যাপার ড্যাডি ইয়াঙ্কির গাওয়া গানটি। প্রকাশের পরপরই লাতিন আমেরিকায় জনপ্রিয়তা পায় এটি। তবে অন্যান্য দেশের নজরে আসে কানাডিয়ান হার্টথ্রব জাস্টিন বিবারের সুবাদে। এক নাইটক্লাবে এই গান শুনে রিমিক্সের আগ্রহ দেখান তিনি। তার অংশগ্রহণে ‘দেসপাসিতো (রিমিক্স)’ প্রকাশের পর সাড়া জাগায়। ইতোমধ্যে ইউটিউবে সর্বকালের সবচেয়ে বেশিবার দেখা ভিডিওর তালিকায় চার নম্বর স্থান দখল করেছে এটি।

মজার বিষয় হলো, ‘দেসপাসিতো’র আগে বিশ্বে সবচেয়ে বেশিবার বাজানো গানের রেকর্ড ছিল ২০১৫ সালে প্রকাশিত বিবারের ‘সরি’ গানের দখলে। এটি বেজেছে ৪৩৮ কোটি বার। তালিকায় তিন নম্বরে আছে ব্রিটিশ তারকা এড শেরানের ‘শেপ অব ইউ’ (৪০৭ কোটি বার)।

নিজের গানের সাফল্যে অবদান রাখায় বিবারকে ধন্যবাদ জানাতে ভোলেননি লুই ফনসি।
আগে পুয়ের্তোরিকোর বাইরে তার তেমন একটা পরিচিত ছিলেন না। কিন্তু এখন সারা পৃথিবীর ঘরে ঘরে ছড়িয়ে পড়েছে তার নাম। ৩৯ বছর বয়সী এই তারকা সংবাদ সংস্থা বিবিসিকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে বলেছেন, “বিশ্বে সবচেয়ে বেশিবার বাজতে থাকা গানের রেকর্ড গড়েছে ‘দেসপাসিতো’, এটা আমার জন্য সম্মান। আমি মানুষকে নাচাতে চেয়েছি। কিন্তু এই গান যে এভাবে ইতিহাস গড়বে তা ভাবিনি।’

পুয়ের্তোরিকোতে জন্ম হলেও লুই ফনসি এখন থাকেন যুক্তরাষ্ট্রের মিয়ামিতে। চলমান রাজনৈতিক সংকট প্রসঙ্গ টেনে এনে তিনি বিবিসিকে বলেন, “আমরা এমন একটা সময় যাচ্ছে যখন মানুষ আমাদের মধ্যে বিভক্তি তৈরি করতে চায়, গড়ে দিতে চায় দেয়াল। এমন পরিস্থিতিতে ‘দেসপাসিতো’ বিভিন্ন জাতি ও সংস্কৃতিকে এক সুতোয় গেঁথেছে, এজন্য আমি গর্বিত।”


মাত্র ছয় মাসেই ইতিহাস গড়েছে ‘দেসপাসিতো’। এটাই এখন বিশ্বে সর্বকালের সবচেয়ে বেশিবার বাজানো গান। ইউনিভার্সাল মিউজিক বুধবার (১৯ জুলাই) জানিয়েছে, পৃথিবীজুড়ে অ্যাপল মিউজিক, স্পটিফাই, গুগল প্লে, আমাজন আনলিমিটেড, ডিজার, ইউটিউবসহ জনপ্রিয় প্ল্যাটফর্মগুলোতে এখন পর্যন্ত ৪৬০ কোটি বারেরও বেশি বেজেছে এটি। এই সংখ্যার সামনে নেই আর কোনও গান।