কোডিং এর জন্য বয়স জরুরি নয়

Age-is-not-important-for-coding 



বয়স বেড়ে গেলে অনেক কিছু হারাতে হয় স্বামী, চাকরি, চুল, এমনকি দৃষ্টিশক্তি। এবং এসময় হারানোর অংশটাই বেশি হয়ে যায়। কিন্তু যদি নতুন কিছু শেখা হয় এবং তা যদি হয় প্রোগ্রামিং বা পিয়ানোর মতো বিষয় তবে তা হারাবেনা বরং যুক্ত হবে আপনার সাথে। এই কথাগুলো বলছিলেন ৮২ বছর বয়সী বর্তমানে বিশ্বের সবচেয়ে বয়স্ক আইফোন অ্যাপ নির্মাতা হিসেবে পরিচিত জাপানের মাসাকো ওয়াকামিয়া।


ওয়াকামিয়া স্মার্টফোনের বিভিন্ন সেবা বয়স্কদের কাছে সহজলভ্য করতে কাজ করছেন। বর্তমানে প্রযুক্তিতে অনেক কাজ করা হলেও প্রবীণদের জন্য প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠানগুলোর আগ্রহ কম দেখেন তিনি। আর এজন্য হতাশ হয়ে নিজ থেকেই কোড শেখেন এবং নিজের দক্ষতা দেখাতে শুরু করেন।

এএফপি তে দেওয়া সাক্ষাৎকারে ওয়াকামিয়া বলেন, "একবার আপনি আপনার পেশাগত জীবন অর্জন করার পরে স্কুলে ফিরে যাওয়া উচিত। ইন্টারনেটের যুগে, যদি আপনি শেখা বন্ধ করে দেন তাহলে আপনার দৈনন্দিন জীবনে এর প্রভাব পড়বে।"

১৯৯০ সালে ওয়াকামিয়া ব্যাংকের ক্লার্কের পদ থেকে অবসর নেওয়ার পর কম্পিউটারে আগ্রহ দেখান। প্রথম সিস্টেম বিবিএস মেসেজিং সেটআপ দিতে কয়েক মাস সময় লেগেছিল তার। তবে এরপর তিনি ধীরে ধীরে মাইক্রোসফট পিসি, ম্যাক ও আইফোনে দক্ষ হয়ে ওঠেন। তিনি সফটওয়্যার ডেভলপারদের বয়স্কদের দরকারি সফটওয়্যার তৈরির আহ্বান জানিয়েও সাড়া না পেয়ে নিজেই আগ্রহী হয়ে ওঠেন।

৬০ বছরের বেশি বয়সীদের উপযোগী গেম ‘হিনাদান’ অ্যাপ নির্মাণ করেন তিনি।

বয়স বেড়ে গেলে অনেক কিছু হারাতে হয় স্বামী, চাকরি, চুল, এমনকি দৃষ্টিশক্তি। এবং এসময় হারানোর অংশটাই বেশি হয়ে যায়। কিন্তু যদি নতুন কিছু শেখা হয় এবং তা যদি হয় প্রোগ্রামিং বা পিয়ানোর মতো বিষয় তবে তা হারাবেনা বরং যুক্ত হবে আপনার সাথে। এই কথাগুলো বলছিলেন ৮২ বছর বয়সী বর্তমানে বিশ্বের সবচেয়ে বয়স্ক আইফোন অ্যাপ নির্মাতা হিসেবে পরিচিত জাপানের মাসাকো ওয়াকামিয়া।