ড্রায়ারের গরম বাতাসেও গলবে না এই আইসক্রিম!

Dryer-hot-air-will-not-melt-this-ice-cream 

 বিজ্ঞানের বহু বহু আবিষ্কার এসেছে কোন না কোন ঘটনা অথবা দুর্ঘটনা থেকে। কিন্তু নতুন ধরণের কোন খাওয়ার আবিস্কারের ক্ষেত্রে যদি এমনটা হয় তবে কেমন হবে?


জাপানের কানাজাওয়া’র বায়োথেরাপি ডেভেলপমেন্ট রিসার্চের বিজ্ঞানীরা এমন এক আইসক্রিম উদ্ভাবন করেছেন, যে আইসক্রিম কখনোই গলবে না! জাপানিজ নিউজ সাইট ‘আসাহি শিম্বুন’ থেকে জানা যায় যে, জাপানের কানাজাওয়া, ওসাকা এবং টোকিও শহরে এমন অদ্ভূত আইস্ক্রিমটি বাজারজাত করা হয়েছে। যে স্থানে এই আইসক্রিম আবিষ্কার করা হয়েছে সেই স্থানের নামেই এই আইসক্রিমের নাম রাখা হয়েছে ‘কানাজাওয়া আইস’।

কোম্পানির প্রেসিডেন্ট টাকেশী টয়োডা জানান, ‘এই আইসক্রিমগুলো বাইরের গরম বাতাসেও প্রায় একই রকম থাকবে। এমনকি ড্রায়ারের গরম বাতাসেও খুব একটা তার পরিবর্তন হবে না’।

এই আইসক্রিম তৈরিতে ব্যবহার করা হয়েছে বিশেষ ধরণের এক পদার্থ। যাকে বলা হচ্ছে পলিফেনল লিকুইড। এই লিকুইড আইসক্রিমে ব্যবহৃত পানি এবং তেল কে একসাথে রাখতে সাহায্য করে। যার ফলে এই দুইটি উপাদান আলাদা হতে পারে না। এবং এই কারণেই বাইরের গরম বাতাসেও বিশেষ ভাবে তৈরি এই আইসক্রিম গলবে না বলে জানায় এই আইসক্রিম এর আবিষ্কারক টমিহিসা ওটা।

মজার ব্যপার হলো, এই আইস্ক্রিমটাও আবিস্কৃত হয়ে যাহ একদম হুট করেই। বিজ্ঞানীরা স্ট্রবেরি দিয়ে মিষ্টি জাতীয় কিছু খাবার বানানর চেষ্টা করছিলেন অন্য আরেক ধরণের পলিফেনিল লিকুইড দিয়ে। এমন সময় সেই কোম্পানি নতুন একজন রান্নার বাবুর্চিকে নিয়োগ দেন যিনি খেয়াল করে দেখেন, সেই লিকুইড এক্সট্র্যাক্ট তদিয়ে বানানো ক্রিম খুব সুন্দর মতো ফ্রিজ ছাড়াই ফ্রোজেন অবস্থাতে থাকতে পারছে।

আপাতত শুধুমাত্র জাপানেই পাওয়া যাচ্ছে এই আইসক্রিম। তাও শুধুমাত্র কয়েকটি শহরে। একটি আইসক্রিম কোনের দাম পড়বে জাপানী ইয়েনে ৫০০ ইয়েন অর্থাৎ বাংলাদেশী টাকায় ৪০৫ টাকা।

বিজ্ঞানের বহু বহু আবিষ্কার এসেছে কোন না কোন ঘটনা অথবা দুর্ঘটনা থেকে। কিন্তু নতুন ধরণের কোন খাওয়ার আবিস্কারের ক্ষেত্রে যদি এমনটা হয় তবে কেমন হবে?