ফেসবুকের ‘ওয়াচ’ হবে ইউটিউবের প্রতিদ্বন্দ্বী


বেশ কয়েক বছর ধরেই ইউটিউবের প্রতিদ্বন্দ্বী হয়ে উঠতে পারে এমন ভিডিও প্ল্যাটফর্ম তৈরি করতে কাজ করছে বিশ্বের সবচেয়ে জনপ্রিয় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক। এই প্রচেষ্টার অংশ হিসেবে ফেসবুক গত কয়েক মাস ধরে তাদের লাইভ ভিডিও অপশনটি ব্যবহারকারীদের কাছে ধাপে ধাপে জনপ্রিয় করতে কাজ করছে। পাশাপাশি ভিডিও সম্পাদনার বেশি কিছু সুবিধাও রয়েছে সেখানে।

শুধু তাই নয়, জাকারবার্গ এবং তার দল সম্প্রতি ফেসবুক অ্যাপে একটি নতুন ট্যাব চালু করার ঘোষণা দিয়েছে, যা একটি পূর্ণাঙ্গ ভিডিও প্লাটফর্ম তৈরির লক্ষণ হিসেবেই বিবেচনা করা হচ্ছে। ‘ওয়াচ’ নামের নতুন এই ট্যাবটির মাধ্যমে এখন থেকে ফেসবুক তাদের প্ল্যাটফর্মটিতে নতুন টিভি অনুষ্ঠানগুলো রিলিজ দিতে পারবে, যা গুগলের ইউটিউব, অ্যামাজন প্রাইম এবং নেটফ্লিক্সের মতো ভিডিও প্লাটফর্মগুলোর প্রতিদ্বন্দ্বী হবে বলে ধারণা করা হচ্ছে। এছাড়া ফেসবুকের এ পদক্ষেপকে টেলিভিশনের জন্য একটি বড় আঘাত হিসেবেও দেখছেন অনেকে।

ফেসবুক-এর পণ্য বিভাগের পরিচালক ড্যানিয়েল ড্যাঙ্কার এক অফিসিয়াল ব্লগ পোস্টে জানিয়েছেন, আপাতত ফেসবুকের এই নতুন ‘ওয়াচ’ ট্যাব শুধুমাত্র মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে ফেসবুক অ্যাপে উন্মুক্ত করা হয়েছে। তবে খুব শিগগির অন্যান্য দেশের ফেসবুক অ্যাপ ব্যবহারকারীদের জন্যও এই ফিচার উন্মুক্ত করা হবে।

‘ওয়াচ’ এর শোগুলো এপিসড আকারে তৈরি করা হচ্ছে যা লাইভ এবং রেকর্ড- দুইভাবে প্রচারিত হবে। এই ভিডিওগুলোতে একটি থিম বা কাহিনি অনুসরণ করা হবে। ভিডিওগুলো প্লে লিস্ট আকারে সাজানো থাকবে যাতে দর্শকদের সর্বশেষ পর্বগুলো মিস না হয়। এছাড়া ফেসবুকে থাকা বিভিন্ন ভিডিও দেখার জন্য শ্রেণিবিভাগ করে সাজানো হয়েছে ‘ওয়াচ’। যেমন ফেসবুকের আলোচিত ভিডিওগুলো দেখার জন্য ‘মোস্ট টকড অ্যাবাউট’ নামে একটি বিভাগ থাকবে। এ ছাড়া ব্যবহারকারীর বন্ধুরা কি দেখছেন, তা জানানোর জন্য থাকবে ‘হোয়াট ফ্রেন্ডস আর ওয়াচিং’ বিভাগ। এ ছাড়া কোন ভিডিওটি দেখে ফেসবুক ব্যবহারকারীরা সবচেয়ে বেশি হাস্যকর প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন, তা জানার জন্য ‘হোয়াটস মেকিং পিপল লাফ’ বিভাগ থাকবে। প্রতিটি ভিডিওর নিচে ব্যবহারকারীদের মন্তব্যগুলো প্রদর্শন করা হবে। এছাড়াও প্রতিটি শো-এর আলাদা ফেসবুক পেজও থাকবে যাতে করে শোগুলো সম্পর্কে দর্শকরা আরো বিস্তারিত তথ্য জানতে পারে।

ইউটিউবের মতো ফেসবুকের ‘ওয়াচ’ এর কন্টেন্ট নির্মাতা এবং প্রকাশকরা তাদের কাজের জন্য অর্থ উপার্জন করতে সক্ষম হবেন। নির্মাতারা তাদের শো-এর ভিতরে বিজ্ঞাপন প্রদর্শন করতে পারবে।