এই তরুণের তৈরি জুতা ধর্ষককে দিবে ইলেকট্রিক শক!

Electric-shock-will-give-the-shoes-made-by-this-young-lady 

 

সিদ্ধার্থ মান্ডালা নামের ১৭ বছর বয়সের এক তরুন শারীরিক নির্যাতন কিংবা ধর্ষণ থেকে রক্ষা পেতে এক অভিনব জুতা আবিষ্কার করেছেন। যে জুতা পরে নির্যাতনকারিকে আঘাত করলে সে জ্ঞান হারিয়ে ফেলবে।

সিদ্ধার্থ এই জুতার নাম দিয়েছে ‘ইলেকট্রো শু’। ধর্ষণ করতে এলেই এই জুতা সহ পা ছুঁড়ে দিলে মুহূর্তেই ইলেকট্রিক শকে জ্ঞান হারাবে দুষ্কৃতী। ফিজিক্সের এক সাধারণ থিয়োরির উপর ভিত্তি করেই এই জুতা বানিয়েছেন সিদ্ধার্থ। এ জুতা পায়ে যত বেশি হাঁটবেন তত চার্জ বাড়বে ব্যাটারিতে। শুধু চার্জ থাকলেই হবে।

এতে ০.১ অ্যাম্পায়ারের ইলেকট্রিকে ঝলসে যাবে অপরাধী। এছাড়া সঙ্গে সঙ্গে অ্যালার্ট চলে যাবে পুলিশ এবং পরিবারের সদেস্যদের কাছে। ফিজিক্স ক্লাসে শিখেছিলেন ‘পিজোইলেকট্রিক এফেক্ট’। সেই থিয়োরি থেকেই এই আবিষ্কার। 

এই জুতা আবিষ্কারে টানা দুই বছর ধরে লড়াই করছে সিদ্ধার্থ। সোশ্যাল মিডিয়ায়, লিংকড ইনে বিভিন্ন লোকজনের সঙ্গে যোগাযোগ করে এই বিষয়ে জ্ঞান নিয়েছে। সঙ্গে তার বন্ধু অভিষেকও ছিল। বারবার ভুল হয়েছে। তবুও হাল ছাড়েনি সে। মোট ১৭ বার পরীক্ষা ব্যর্থ হয়েছিল। শুধু মাথায় ছিল ১০০০ বার ব্যর্থ হওয়ার পর বাল্ব আবিষ্কার করেছিলেন থমাস এডিসন। এছাড়া সে নিজে দু’বার ইলেকট্রিক শকও খেয়েছে।

সম্প্রতি এই জুতা কথা প্রচার করছেন তেলেঙ্গানার মন্ত্রীরাও। এইভাবে তার আবিষ্কার মানুষের কাছে পৌঁছচ্ছে দেখে সে গর্বিত। একটি এনজিও চালায় সিদ্ধার্থ ১৭ বছরের সিদ্ধার্থ। সেখানকার সদস্যরা কখনও স্কুলের ছেলেমেয়েদের সাহায্য করে। সেই সঙ্গে চলে ধর্ষণের বিরুদ্ধে সতর্কতামূলক প্রচার। 

সিদ্ধার্থ মান্ডালা নামের ১৭ বছর বয়সের এক তরুন শারীরিক নির্যাতন কিংবা ধর্ষণ থেকে রক্ষা পেতে এক অভিনব জুতা আবিষ্কার করেছেন। যে জুতা পরে নির্যাতনকারিকে আঘাত করলে সে জ্ঞান হারিয়ে ফেলবে।