গবেষণা বলছে, শাওয়ার স্পঞ্জ শরীরের জন্যে হুমকিস্বরুপ!

Research-says-Shower-sponge-is-a-threat-to-the-body 

স্ক্রাবার, লুফাহ বা শাওয়ার স্পঞ্জ বেশ নরম ও তুলতুলে একটি উপকরণ যেটি গোসলের সময় ব্যবহার করতে পছন্দ করেন অনেকেই। শাওয়ার জেল কিংবা ক্রিম স্পঞ্জে লাগিয়ে একটু পানি মিশিয়ে নিলেই সুন্দর ফেনা হয় এবং সেটি শরীর পরিষ্কার করে সুন্দর মতন। আপনি কী এমন কেউ যিনি স্ক্রাবার কিংবা স্পঞ্জ ছাড়া গোসল সারতে পারেন না? তবে আপনার জন্যে একটি দুঃসংবাদ আছে। জার্নাল অব ক্লিনিক্যাল মাইক্রোবায়োলজির সাম্প্রতিক সময়ের গবেষণায় প্রমাণিত হয়েছে যে, আপনার প্রিয় স্পঞ্জ ফাঙ্গাস এবং ব্যাকটেরিয়ার জন্যে দারুণ একটি বসতি! চিন্তা করতে পারছেন কতোটা মারাত্মক এটি?


এখন নিশ্চয়ই মনে প্রশ্ন জাগছে কিভাবে স্পঞ্জ ফাঙ্গাস এবং ব্যাকটেরিয়া বসতি গড়তে পারে? ব্যাপার হলো এমন যে, গোসলের সময় সাবানের ফেনার সংস্পর্শে এসে আমাদের শরীরের মৃত কোষসমূহ ঝরতে শুরু করে। সেগুলো তখন খুব বিশ্রীভাবে মাজুনিতে আটকে যায়। তাছাড়া গোসলখানায় সারাদিনই ভেজা অবস্থায় থাকে এগুলো। এতে করে শুধুমাত্র জীবাণু জন্মই নেনা বরং প্রতিবার গোসলের পর সেগুলো দ্বিগুণ আকার ধারণ করে।

ডার্মাটোলজিস্ট ডঃ স্টিফেন উইলিয়ামস বলেন, আমি গোসলের সময় শাওয়ার পাফ ব্যবহারের ঘোর বিরোধী, কারণ এতে করে ব্যাকটেরিয়া ও ফাঙ্গাস বিপুলভাবে জন্ম নেয় এবং বংশবৃদ্ধি করে। আমি ভালো কোন বডি ক্লেনজার এবং হাত ব্যবহার করারই পরামর্শ দিই সকলকে।

স্যাঁতসেঁতে ভাব এবং আর্দ্র আবহাওয়ার কারণে জীবানুর পরিমাণ দিনের পর দিন বৃদ্ধি পায়। এমতাবস্থায়, বিশ্রী দুর্গন্ধও দেখা দেয়। সুতরাং বুঝতেই পারছেন নিত্য প্রয়োজনীয় হাইজিনের সামগ্রীগুলো যেমন তোয়ালে, পোশাক এবং শাওয়ার পাফ সর্বদা শুষ্ক ও পরিষ্কার রাখতে হবে। এ জিনিসগুলো থেকে ব্যাকটেরিয়া ও ফাঙ্গাস দূরে রাখার জন্য আপনি মাঝেমধ্যে সেগুলো রোদেও দিতে পারেন।

বিরনুর আরাল, গুড হাউজকিপিং ইন্সটিটিউটের হেলথ, বিউটি ও এনভায়রনমেন্টাল সাইন্স ল্যাবের ডিরেক্টর বলেন, পাফ বডি ওয়াশের ফেনা গ্রহণ করে শরীরকে পরিষ্কার করতে সাহায্য করে। সুতরাং, এটি ময়লা ও তৈলাক্ত হবে এটিই স্বাভাবিক। তাই একটু গন্ধযুক্ত হওয়া যখন শুরু করবে তখনই সেটি বদলে ফেলুন। শুষ্ক রাখুন এবং স্যাঁতসেঁতে হলেই বদলে ফেলুন।

যদি এমন হয় যে আপনি স্ক্রাবার কিংবা স্পঞ্জ দিয়ে গোসল সারতেই একদম অভ্যস্ত হয়ে গিয়েছেন, তাহলে নিচের পদ্ধতিগুলো অনুসরণ করতে পারেন-

- গোসলের পর স্পঞ্জ এমন জায়গায় রাখুন যেখানে আলো-বাতাস প্রবেশ করতে পারে, সব সময় এটিকে শুষ্ক ও সুন্দর রাখুন।

- রঙ কিংবা গন্ধ পরিবর্তিত হলেই বদলে ফেলুন এটি।

- ভেজা অবস্থায় স্পঞ্জ বিশ সেকেন্ডের জন্যে মাইক্রোওয়েভে তাপ দিতে পারেন। সিন্থেটিক স্পঞ্জের ক্ষেত্রে এটি করা যেতে পারে অবশ্যই প্লাস্টিক স্ক্রাবারের ক্ষেত্রে নয়!

- স্পঞ্জকে ব্যাকটেরিয়া মুক্ত রাখতে আপনি চাইলে ব্লিচও করতে পারেন।

যে পদ্ধতিই অনুসরণ করেন না কেন কিংবা যে ধরনের শাওয়ার স্পঞ্জ ব্যবহার করেন না কেন সেটির দিকে বিশেষ নজর রাখতে ভুলবেন না এখন থেকে। স্বাস্থ্য সবার আগে, অতঃপর আরাম ও স্বাচ্ছন্দ্য!

স্ক্রাবার, লুফাহ বা শাওয়ার স্পঞ্জ বেশ নরম ও তুলতুলে একটি উপকরণ যেটি গোসলের সময় ব্যবহার করতে পছন্দ করেন অনেকেই। শাওয়ার জেল কিংবা ক্রিম স্পঞ্জে লাগিয়ে একটু পানি মিশিয়ে নিলেই সুন্দর ফেনা হয় এবং সেটি শরীর পরিষ্কার করে সুন্দর মতন। আপনি কী এমন কেউ যিনি স্ক্রাবার কিংবা স্পঞ্জ ছাড়া গোসল সারতে পারেন না? তবে আপনার জন্যে একটি দুঃসংবাদ আছে। জার্নাল অব ক্লিনিক্যাল মাইক্রোবায়োলজির সাম্প্রতিক সময়ের গবেষণায় প্রমাণিত হয়েছে যে, আপনার প্রিয় স্পঞ্জ ফাঙ্গাস এবং ব্যাকটেরিয়ার জন্যে দারুণ একটি বসতি! চিন্তা করতে পারছেন কতোটা মারাত্মক এটি