‘রক্তাক্ত’ অপু, ‘তালাবদ্ধ’ আব্রাম ও শাকিবের ‘উদ্বেগ’

‘রক্তাক্ত’ অপু, ‘তালাবদ্ধ’ আব্রাম ও শাকিবের ‘উদ্বেগ’ 

শাকিব-অপু তারকা দম্পতির একমাত্র সন্তান আব্রাম খান জয় এখন তালাবদ্ধ! ১৭ নভেম্বর সকালে ছেলেকে নিকেতনের ফ্ল্যাটে গৃহপরিচারিকার কাছে রেখে চিকিৎসার জন্য কলকাতা গেছেন মা অপু বিশ্বাস। একই দিন রাত ৯টার দিকে এই পরিস্থিতির মোড়ক উন্মোচন করেন বাবা শাকিব খান! পুত্র আব্রামকে দেখতে গিয়ে তালাবদ্ধ ফ্ল্যাটের দরজা থেকে ফিরে আসতে হয়েছে তাকে। 



এসময় তার সঙ্গে ছিলেন সংবাদকর্মীরাও। তালাবদ্ধ ফ্ল্যাটের দরজা থেকে ফেরার আগে ভেতরে থাকা গৃহপরিচারিকাকে বলে আসেন, তার ছেলের জন্য কোনও কিছুর প্রয়োজন হলে সঙ্গে সঙ্গে যেন তাকে ফোন করা হয়। অন্যদিকে সাংবাদিকদের ক্ষুব্ধ কণ্ঠে বলেন, ‘তালাবদ্ধ অবস্থায় আমার ছেলের যদি কোনও দুর্ঘটনা ঘটে যায় তাহলে এর দায় কে নেবে? আর সম্ভব নয়, আমি শিগগিরই একটা বড় সিদ্ধান্ত নেব।’

১৬ নভেম্বর, বৃহস্পতিবার ব্যাংকক থেকে  ঢাকায় ফিরেছেন  শাকিব খান। শুক্রবার দুপুরে শুনতে পান পুত্র আব্রামকে একা ঘরে তালাবদ্ধ করে অপু বিশ্বাস কলকাতা যাওয়ার ঘটনা। বিষয়টি স্বচক্ষে দেখার জন্য শুক্রবার রাত ৯টায় অপুর নিকেতনের বাসায় ছুটে যান শাকিব। অপুর ফ্ল্যাটে গিয়ে শাকিব কলিং-বেল টিপলে ভেতর থেকে এক নারী কণ্ঠ জানান, দরজা বাইরে থেকে তালা দেয়া। খোলার জন্য তাদের কাছে চাবি নেই। এ ঘটনায় শাকিব বেশ আতঙ্কিত বোধ করেন। এ সময় তিনি দরজার এপাশ থেকে জিজ্ঞেস করেন, অপু কোথায় গেছে? ভেতর থেকে উত্তর আসে, বিদেশে গিয়েছেন। কখন ফিরবেন সেটা তারা বলতে পারেননি। পরিচয়  জানতে চাইলে ভেতর থেকে তার নাম শেলী বলে জানানো হয়।

তখন শাকিব খান বলেন, ‘শেলী কোনও কিছু দরকার হলে অবশ্যই আমাকে ফোন দেবে। বাবুর খেয়াল রেখো।’

এরপর শাকিব খান নিকেতন সোসাইটির নেতৃবৃন্দকেও বিষয়টি অবহিত করেন। কারণ আব্রামকে গৃহপরিচারিকার কাছে তালাবদ্ধ করে অপুর কলকাতা যাওয়াটাকে স্বাভাবিকভাবে নেননি তিনি।



শাকিব খান বলেন, ‘এটা  কীভাবে  সম্ভব? মাত্র এক বছরের একটি  বাচ্চা ছেলেকে কাজের মেয়ের জিম্মায় বাইরে থেকে তালা লাগিয়ে কোনেও মা কীভাবে দেশের বাইরে চলে যেতে পারে? এটা সন্তানের প্রতি মায়ের কেমন দায়িত্ব পালন? আমার এখনেও বিশ্বাস হচ্ছে না। এটা আমি মানতে পারছি না। আমার ছেলের যদি কোনও দুর্ঘটনা ঘটে যায় তাহলে এর দায় কে নেবে?’

এ ঘটনা নিয়ে আপনি কোনও ব্যবস্থা নেবেন কি না, এমন প্রশ্নের জবাবে শাকিব বলেন, ‘ছেলের প্রতি যার দায়িত্ববোধ এটুকুই, তার প্রতি ব্যবস্থা আর কী নেব! তবে আমি এ বিষয়ে শিগগিরই একটা বড় সিদ্ধান্ত নেব।’

সিদ্ধান্তটা কী হতে পারে সেটার স্পষ্ট করে না বললেও ডিভোর্সের দিকেই ইঙ্গিত দিয়েছেন তিনি।

এদিকে শুক্রবার সকাল থেকেই খবর এসেছে বৃহস্পতিবার (১৬ নভেম্বর) রাতে বাথরুমে পা পিছলে পড়ে যান অপু বিশ্বাস। এতে সিজারের সেলাই ফেটে রক্তক্ষরণ হতে থাকে। প্রাথমিকভাবে ঢাকার একটি হাসপাতালে চিকিৎসাও নেন। এরপর উন্নত চিকিৎসার জন্য শুক্রবার (১৭ নভেম্বর) সকালে কলকাতায় উড়ে যান অপু। তিনি এখন সেখানকার এ্যাপোলো হসপিটালে ভর্তি আছেন বলে জানা যায়। অপু বিশ্বাসের এমন পরিস্থিতিতে আব্রামকে রেখে উন্নত চিকিৎসার জন্য ছুটে যাওয়াটাই তো স্বাভাবিক- এমন অভিমত তুলে ধরতেই শাকিব খান বলেন, ‘এতে কী এমন ঘটলো যে এক বছরের বাচ্চা ছেলেকে বাইরে থেকে তালা দিয়ে বিদেশে যেতে হবে? দেশে কী এটার চিকিৎসা ছিল না? শুনেছি, অপু এখন নিয়মিত জিমে যান, ব্যায়াম করেন। তা হলে তখন শরীরের কোনেও সমস্যা না হলে বাথরুমে পড়েই পুরনো সেলাই ছিঁড়ে যায়! এটা কি বিশ্বাসযোগ্য? যদি তাই হয়ে থাকে তাহলে সে আমার ছেলেকে আমার বাবা-মায়ের কাছে রেখে যেতে পারতো, নতুবা সঙ্গে নিয়ে যেত। সে এর কোনোটাই না করে আমার ছেলেকে কাজের মেয়ের জিম্মায় রেখে বিদেশ চলে গেল! অবশ্যই এর পেছনে কোনও উদ্দেশ্য রয়েছে।’

এদিকে ‘রক্তাক্ত’ অপু বিশ্বাসের পাশে না দাঁড়িয়ে ‘তালাবদ্ধ’ আব্রামের প্রতি শাকিব খানের এমন ‘উদ্বেগ’ নিয়েও প্রশ্ন তুলছেন অনেকে। বলছেন, এমন পরিস্থিতির দায় শাকিব খান কোনও ভাবেই এড়াতে পারেন না।

শাকিব-অপু তারকা দম্পতির একমাত্র সন্তান আব্রাম খান জয় এখন তালাবদ্ধ! ১৭ নভেম্বর সকালে ছেলেকে নিকেতনের ফ্ল্যাটে গৃহপরিচারিকার কাছে রেখে চিকিৎসার জন্য কলকাতা গেছেন মা অপু বিশ্বাস। একই দিন রাত ৯টার দিকে এই পরিস্থিতির মোড়ক উন্মোচন করেন বাবা শাকিব খান! পুত্র আব্রামকে দেখতে গিয়ে তালাবদ্ধ ফ্ল্যাটের দরজা থেকে ফিরে আসতে হয়েছে তাকে।