আত্মহত্যা রোধে ফেসবুকের নতুন পদক্ষেপ

আত্মহত্যা রোধে ফেসবুকের নতুন পদক্ষেপ 

চলতি বছরের মার্চে সোশ্যাল মিডিয়া জায়ান্ট ফেসবুক যুক্তরাষ্ট্রে একটি কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা সফটওয়্যার এর পরীক্ষা চালানো শুরু করে। এই সফটওয়্যার দিয়ে ফেসবুক পোস্ট ও পোস্টের কমেন্টগুলো স্ক্যান করে আসন্ন আত্মহত্যার ইঙ্গিত পেতে পারে। সে সময় ফেসবুক এই সফটওয়্যারের বিস্তারিত প্রকাশ না করলেও এখন যুক্তরাষ্ট্রের বাহিরে পরীক্ষামূলকভাবে চালু করা হচ্ছে এটি।


ফেসবুকের পণ্য ব্যবস্থাপনার ভাইস প্রেসিডেন্ট গাই রোজেন জানান, যুক্তরাষ্ট্রে এই সফটওয়্যার সফল পরীক্ষা চালিয়েছে, তাই এখন যুক্তরাষ্ট্রের বাহিরে এই কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা সফটওয়্যারের পরীক্ষা চালানো হচ্ছে। এই কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা সফটওয়্যার সম্ভাব্য আত্মহত্যার সনাক্ত করবে এবং এই ধরনের রিপোর্ট পরিচালনার জন্য ফেসবুক কর্মীদের একটি দল সতর্ক থাকবে যারা এমন আত্মহত্যার ইঙ্গিত নিয়ে তাৎক্ষণিক ব্যবস্থা নিবে। সিস্টেমটি ব্যবহারকারীর বন্ধুর ফোন নাম্বার সহায়তা হিসেবে ব্যবহার করতে পারে। এছাড়া ফেসবুকের কর্মীরা প্রায়ই স্থানীয় কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপে এই কাজ করবে।

ফেসবুক বলছে, তারা প্রতি ঘণ্টায় আঞ্চলিক ভাষায় স্থানীয় কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করতে পারে এমন বিশেষজ্ঞ কর্মী নিয়োগ দেওয়ার চেষ্টা করছে।

বিশ্বের কোথায় কোথায় এই কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা সফটওয়্যার প্রসারিত করা হবে তা নিয়ে কিছু না বললেও ইউরোপীয় ইউনিয়ন ছাড়া বিশ্বের সব জায়গায় ব্যবহার করা হতে পারে বলে জানিয়েছেন রোজেন।

ফেসবুক সম্প্রতিক সময়ে তাদের লাইভ ব্রডকাস্ট ফিচার নিয়ে নানা সমালোচনায় রয়েছে। যেমন- লাইভে এসে আত্মহত্যা কিংবা লাইভে খুনের দৃশ্য সম্প্রচার করা

চলতি বছরের মার্চে সোশ্যাল মিডিয়া জায়ান্ট ফেসবুক যুক্তরাষ্ট্রে একটি কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা সফটওয়্যার এর পরীক্ষা চালানো শুরু করে। এই সফটওয়্যার দিয়ে ফেসবুক পোস্ট ও পোস্টের কমেন্টগুলো স্ক্যান করে আসন্ন আত্মহত্যার ইঙ্গিত পেতে পারে। সে সময় ফেসবুক এই সফটওয়্যারের বিস্তারিত প্রকাশ না করলেও এখন যুক্তরাষ্ট্রের বাহিরে পরীক্ষামূলকভাবে চালু করা হচ্ছে এটি।