বিয়ের আসরে মৃত সন্তানের হৃদস্পন্দন শুনতে পেয়ে আবেগে আপ্লুত এই মা ! (ছবিতে)

 The-mother-of-the-dead-childs-heartbeat-heard-the-emotion-in-the-wedding-In-film
 স্টেথোস্কোপ এর সাহায্যে নিজের ছেলের হৃদযন্ত্রের শব্দ শুনে আবেগের  আপ্লুত বেকি।

 পুরো পৃথিবী জুড়ে কত ধরণের ঘটনা প্রতিদিন ঘটে চলেছে। তার কতগুলোই বা আমরা জানতে পারছি! পেপার খুললে, টিভিতে খবরের চ্যানেল খুললে কিংবা নিউজ পোর্টাল জুড়ে শুধুই অশান্তি আর অস্থিরতা। স্বস্থির খবর পাওয়ার মতো দুই একটা ঘটনা যে একেবারেই ঘটে না সেটা কিন্তু নয়।


তেমন এক দারুণ ও অভাবনীয় ঘটনা ঘটেছিল এই বছরের শুরুর দিকে। ঘটনাটি একজন মা, তার মৃত সন্তান ট্রিস্টান এবং ট্রিস্টানের হৃদযন্ত্রের! নিশ্চয় অবাক হচ্ছেন এমন কথা পড়ে! অবাক করার মতো চমৎকার ঘটনাটি জেনে নিন তবে।



বিয়ের দিন অনুষ্ঠানের আসরে বর কেলি টার্নার তার কনে বেকিকে দারুণ একটি সারপ্রাইজ দেওয়ার পরিকল্পনা করেন। অ্যালাস্কাতে বিয়ের আসরে বেকি সম্মানিত গ্রুমসম্যান জ্যাকব কিলবি’র সাথে পরিচিত হন প্রথমবারের মতো। জ্যাকবকে দেখে এবং তার সাথে পরিচিত হয়ে কনে বেকি অনেক বেশী আবেগপ্রবণ হয়ে পড়েন। কারণ, জ্যাকব এর জীবন বাঁচানোর জন্য ‘হার্ট ট্রান্সপ্ল্যান্ট সার্জারি’ করা হয়েছিল এবং ডোনার ছিল বেকি’র মৃত সন্তান ট্রিস্টান গ্রিন । ট্রিস্টান মারা গিয়েছিলেন ২০১৫ সালে মাত্র ১৯ বছর বয়সে আর এখন তাঁর হৃৎপিণ্ডটিই জীবন বাঁচিয়ে রেখেছে জ্যাকবের! যার ফলে জ্যাকবকে দেখে স্বাভাবিকভাবেই অনেক বেশী আবেগপ্রবণ হয়ে পড়েছিলেন সন্তান হারা মা বেকি।



বিয়ের আসরে এমন সকল দারুণ আবেগপ্রবণ মুহূর্তকে ধারণ করেন ফটোগ্রাফার অ্যাম্বার ল্যানফায়ার। অ্যাম্বার তার নিজের ফেসবুক আইডিতে লিখেছিলেন, "আমি এই সারপ্রাইজের ব্যাপারটি সম্পর্কে আগে থেকেই জানতাম। কিন্তু কোনকিছুই আপনাকে সেই মুহূর্তগুলোর সৌন্দর্যের জন্য তৈরি করে রাখতে পারবে না।"



বেকি এবং কেলি’র বিয়েতে ট্রিস্টান যেন আত্মিকভাবে উপস্থিত থাকতে পারে সেজন্য জ্যাকবকে অ্যালাস্কাতে নিয়ে আসার সকল ব্যবস্থা করে রেখেছিলেন স্বয়ং কেলি। এমন অভাবনীয় সারপ্রাইজ পেয়ে স্বাভাবিকভাবেই অনেক বেশী আনন্দিত এবং আবেগপ্রবণ হয়ে পড়েছিলেন বেকি। তিনি জানান, "যখন কেলি জানালো যে জ্যাকব বিয়ের আসরে উপস্থিত হয়েছে, আমি আশ্চর্যে হা হয়ে গিয়েছিলাম, আমার চোয়াল একদম ঝুলে পড়েছিল। আমি ঘটনাটি একেবারেই বিশ্বাস করতে পারছিলাম না। আমি বাচ্চা মেয়েদের মতো আনন্দে লাফাচ্ছিলাম। তাকে (জ্যাকব) বরণ করে নেওয়ার জন্য কোনভাবেই আমার তোর সইছিল না।"

এরপর জ্যাকব এসে বেকি’র সাথে দেখা করেন। বেকি একইসাথে খুশিতে এবং কষ্টে কান্নায় ভেঙ্গে পড়েছিলেন সেই সময়। জ্যাকব এর সাথে দেখা হওয়ার এক পর্যায়ে বেকি স্টেথোস্কোপ জ্যাকবের বুকে লাগিয়ে নিজের সন্তান ট্রিস্টানের হৃদযন্ত্রের শব্দ শোনেন।


নিজের ফেসবুক পেইজে বেকি লিখেছিলেন, তার বিয়ের আসরে জ্যাকব এর উপস্থিতি ছিল সবচাইতে আনন্দদায়ক একটি ঘটনা। তিনি আরো লিখেছিলেন, "এটা ছিল সবচাইতে দারুণ একটি উপহার। ধন্যবাদ আমার ট্রিস্টান এর হৃদযন্ত্রের খেয়াল রাখার জন্য, ধন্যবাদ আমার বিয়ের দিন উপস্থিত থাকার জন্য।"

পুরো পৃথিবী জুড়ে কত ধরণের ঘটনা প্রতিদিন ঘটে চলেছে। তার কতগুলোই বা আমরা জানতে পারছি! পেপার খুললে, টিভিতে খবরের চ্যানেল খুললে কিংবা নিউজ পোর্টাল জুড়ে শুধুই অশান্তি আর অস্থিরতা। স্বস্থির খবর পাওয়ার মতো দুই একটা ঘটনা যে একেবারেই ঘটে না সেটা কিন্তু নয়।