একযোগে ৬৪ জেলায় শিশু চলচ্চিত্র উৎসব

একযোগে ৬৪ জেলায় শিশু চলচ্চিত্র উৎসব 

বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির আয়োজনে দেশব্যাপী একযোগে ৬৪টি জেলায় অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে এবারের ‘বাংলাদেশ শিশু চলচ্চিত্র উৎসব’।


৪ দিনের এই উৎসব ২৮ ডিসেম্বর শুরু হয়ে চলবে ৩১ তারিখ পর্যন্ত। শিল্পকলা একাডেমি মনে করে, শিশুদের সৃজনশীল করে গড়ে তুলতে চলচ্চিত্রের ভূমিকা অপরিসীম। চলচ্চিত্রের সেই গুরুত্ব অনুধাবন করেই এই উৎসব অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে।

আজ (২৮ ডিসেম্বর) বিকাল ৫টায় একাডেমির জাতীয় চিত্রশালা মিলনায়তনে উৎসবের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন সংস্কৃতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর। বিশেষ অতিথি হিসেবে থাকবেন শিল্পী মুস্তাফা মানোয়ার, চলচ্চিত্র সংগঠক মুনিরা মোরশেদ মুন্নি, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক সাবরিনা সুলতানা চৌধুরী ও সভাপতিত্ব করবেন বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির মহাপরিচালক লিয়াকত আলী লাকী।

উৎসবের সূচি
এছাড়াও স্বাগত বক্তব্য রাখবেন বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির নাট্যকলা ও চলচ্চিত্র বিভাগের পরিচালক মোঃ বদরুল আনম ভূঁইয়া।

‘বাংলাদেশ শিশু চলচ্চিত্র উৎসব ২০১৭’ উপলক্ষে গঠিত সাত সদস্যবিশিষ্ট একটি সিলেকশন কমিটির সদস্যবৃন্দ উৎসবে শিশুতোষ ও শিশু নির্মাতাদের চলচ্চিত্র উভয়ক্ষেত্রে প্রদর্শনীর জন্য ৪০টি চলচ্চিত্র মনোনীত করেছেন। এছাড়াও শিশুতোষ চলচ্চিত্র ও শিশু নির্মাতাদের চলচ্চিত্র উভয়ক্ষেত্রে পৃথকভাবে শ্রেষ্ঠ চলচ্চিত্র, শ্রেষ্ঠ নির্মাতা এবং বিশেষ জুরি পুরস্কার প্রদান করা হবে। আর পুরো উৎসবটি একই সূচি নিয়ে অনুষ্ঠিত হবে একযোগে দেশের ৬৪ জেলায় অবস্থিত শিল্পকলা একাডেমিতে।

উৎসবে চলচ্চিত্র প্রদর্শনীর পাশাপাশি থাকবে ২৯ ও ৩০ ডিসেম্বর সকাল ১০টা থেকে ‘চলচ্চিত্র অনুধাবন’ শীর্ষক কর্মশালা। এছাড়াও ২৯ ডিসেম্বর বিকাল ৪টায় জাতীয় নাট্যশালার সেমিনার কক্ষে সেমিনার অনুষ্ঠিত হবে। সেমিনারে প্রবন্ধ উপস্থাপন করবেন অধ্যাপক ড. আমিনুল ইসলাম, নাটক ও নাট্যতত্ত্ব বিভাগ, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়।

২৭ ডিসেম্বর একাডেমির জাতীয় নাট্যশালার সেমিনার কক্ষে এক সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে এসব তথ্য জানানো হয়। এই সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন একাডেমির মহাপরিচালক লিয়াকত আলী লাকী, চলচ্চিত্র নির্মাতা ও গবেষক ড. সাজেদুল আউয়াল এবং একাডেমির নাট্যকলা ও চলচ্চিত্র বিভাগের পরিচালক মোঃ বদরুল আনম ভূঁইয়া।

বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির আয়োজনে দেশব্যাপী একযোগে ৬৪টি জেলায় অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে এবারের ‘বাংলাদেশ শিশু চলচ্চিত্র উৎসব’।