২০১৫ সালের ডিসেম্বরে শিশু পর্নোগ্রাফি রাখার অভিযোগে গ্রেফতার হন মার্কিন টিভি অভিনেতা মার্ক সেলিং। তিনি টিভি সিরিয়াল গ্লি-তে অভিনয় করে মার্কিন মুলুকে বেশ জনপ্রিয় হয়েছিলেন। ফক্স সিরিজে প্রচারিত নোয়া পুকারম্যানের চরিত্রে অভিনয় করেছিলেন। গতকাল নিজ ঘরের মধ্যে পাওয়া গেছে এই টিভি তারকার মৃতদেহ। তার সন্দেহজনক মৃত্যু আলোড়ন সৃষ্টি করেছে হলিউড পাড়ায়।


বিবিসি’র সংবাদসূত্রে জানা যায়, লস অ্যাঞ্জেলসে নিজের ঘরেই পাওয়া গেছে মার্ক সেলিংয়ের দেহ। পুলিশের মতে, আত্মহত্যা করেছেন ৩৫ বছর বয়সী এই মার্কিন তারকা। কেন এই আত্মহত্যা, তা নিয়ে তদন্ত চলছে। তবে কেউ ধারণা করছেন, মার্ক সেলিংকে খুন করা হয়েছে। অথচ এই প্রসঙ্গে পুলিশ কোন মন্তব্য করেনি।

এদিকে নিহত মার্কের আইনজীবী জানিয়েছেন, বেশ হাসিখুশি স্বভাবের ছিলেন মার্ক। তিনি আত্মহত্যা করতে পারেন না। ফলে মৃত্যুর কারণ নিয়ে রহস্য তৈরি হয়েছে।

উল্লেখ্য, এই টিভি সিরিয়াল অভিনেতা পর্নোগ্রাফির জন্য বিতর্কিত ছিলেন। ২০১৫ সালে তার বিরুদ্ধে শিশুদের নিয়ে বিকৃত যৌনাচারের ছবি প্রকাশ হয়েছিল। গ্রেফতারও হয়েছিলেন তিনি। পরে তদন্তে নেমে পুলিশে এই তারকার ল্যাপটপ থেকে শিশুদের সঙ্গে যৌনক্রিয়ারত অসংখ্য ছবি বাজেয়াপ্ত করে। বর্তমানে তার মৃত্যু নিয়ে রহস্য সৃষ্টি হয়েছে মার্কিন ইন্ডাস্ট্রিতে।

১৫২ বছর পর বিরল এক রাত  

৩১ জানুয়ারি, বুধবার এমন একটি রাত যা মানব জীবনে একবারের বেশি দুবার দেখা সম্ভব নয়। যদি আজকের রাতটি দেখার ভাগ্য আপনার হয়ে থাকে, তাহলে জানবেন যে প্রকৃতির এক দুর্লভ ঘটনার সাক্ষী হয়ে রইলেন। বিজ্ঞানিদের ভাষায় আজ হবে ‘সুপার ব্লাড ব্লু মুন এক্লিপস’।


আজ পূর্ণগ্রাস চন্দ্রগ্রহণ। কেবল চন্দ্রগ্রহণই নয়, আজ একই সাথে দেখা যাবে সুপারমুন ও ব্লু মুন। অর্থাৎ, আজকের রাতে একই সাথে চাঁদের ভিন্ন ভিন্ন তিন অবস্থার সাক্ষী হতে চলেছি আমরা। শেষবার এই ঘটনা দেখা গিয়েছিল প্রায় ১৫২ বছর আগে, ১৮৬৬ সালের ৩১ মার্চ। এ ছাড়াও ১৯৮২ সালে একবার দেখা গিয়েছিল, কিন্তু তা আংশিক।

আজ বাংলাদেশ সময় বিকেল ৪ টা ৫১ মিনিট থেকে শুরু হবে চন্দ্রগ্রহণ, চলবে রাত ১০ টা ৮ মিনিট পর্যন্ত। জোর্তিবিদরা বলছেন, গ্রহণ শেষে পৃথিবীর ছায়া সরে যাওয়ার পর চাঁদের উজ্জ্বলতা হবে দেখার মতন। নিজের স্বাভাবিক উজ্জ্বলতার চাইতে অন্তত ১৪-৩০% বেশি উজ্জ্বল দেখা যাবে আজকের চাঁদ। চন্দ্রগ্রহণের সময় যখন পৃথিবীর ছায়া চাঁদকে গ্রাস করবে, তখন চাঁদে দেখা যাবে রক্তিম আভা, ফলে আজকের পূর্ণিমাকে 'ব্লাড মুন' নামেও অভিহিত করা হচ্ছে।

একই মাসে যখন দুটি পূর্ণিমা দেখা যায়, সেটাকে বলে হয় ব্লু মুন। অন্যদিকে চাঁদ যখন পৃথিবীর সবচাইতে কাছে চলে আছে, তখন তাকে অভিহিত করা হয় সুপার মুন নামে। আর নিজের কক্ষপথে ঘুরতে ঘুরতে পৃথিবী যখন চলে আসে চাঁদ ও সূর্যের মাঝে এবং একই সরলরেখায় অবস্থান করে, তখন চাঁদ ঢাকা পড়ে যায় পৃথিবীর ছায়ায়- এই অবস্থাকে বলা হয় চন্দ্রগ্রহণ। চাঁদের এই গ্রহণ আংশিক বা পূর্ণগ্রাস হতে পারে। এই তিনটি বিশেষ মহাজাগতিক ঘটনাই একত্রে ঘটতে চলেছে আজকের রাতে।

নাসার দেওয়া তথ্য অনুযায়ী মধ্যপ্রাচ্য, এশিয়া, পূর্ব রাশিয়া, অস্ট্রেলিয়া ও নিউজিল্যান্ড থেকে এই দৃশ্য দেখা যাবে ৩১ জানুয়ারি চন্দ্র উদয়ের সময়। আমেরিকা ও পার্শ্ববর্তী অঞ্চলে দেখা যাবে ভোরে চাঁদ ডুবে যাওয়ার পূর্ব মুহূর্তে।

জাপানে সংবাদ পড়বে রোবট! 

জীবন্ত মানুষের মতোই মুখাবয়বের একটি রোবট হতে যাচ্ছে জাপানের সংবাদ পাঠক, তথ্যটি গণমাধ্যমে জানান রোবটটির নির্মাতা হিরোশি ইশিগুরো।


২০১৭ সালের ডিসেম্বরে ওসাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইন্টেলিজেন্ট রোবটিকস ল্যাবরেটরির ডিরেক্টর ইশিগুরো ওয়াল স্ট্রিট জার্নালকে জানান, ২০১৮ সালেই এরিকা নামের এই রোবট জাপানের টেলিভিশনের পর্দায় আসবে।

একজন ২৩ বছর বয়সী জাপানী নারীর অবয়ব দেওয়া হয়েছে এই রোবটটিকে। বর্তমানে সবচাইতে উন্নত স্পিচ সিনথেসিস সিস্টেম অন্তর্ভুক্ত আছে এই রোবটে। মানুষের মতো দেখতে এই রোবট এপ্রিল মাস থেকে তার কাজ শুরু করবে বলে জানায় ডেইলি মেইল। এরিকা নামের এই রোবট এতই নিখুঁত করে তৈরি যে, তাকে দেখলে মনে হয় মানুষের মতোই একটি সত্ত্বা আছে তার।

ড. ইশিগুরো আরও জানান, তিনি নিজের তৈরি এই রোবট টেলিভিশনে নিয়ে আসার চেষ্টা করছেন ২০১৪ সাল থেকে। শুধু সংবাদ পাঠক হিসেবে নয়, চালকবিহীন গাড়িতে আরোহীর সাথে কথা বলার জন্যও এরিকার কণ্ঠস্বর ব্যবহার করা হতে পারে। রোবটটি হাত নাড়াতে পারবে না, আশেপাশে কোন শব্দ হলে বা কেউ কথা বললে তা বুঝতে পারবে, এবং তাকে উদ্দেশ্য করে প্রশ্ন করলে তাও বুঝতে পারবে। ১৪টি ইনফ্রা-রেড সেন্সর এবং ফেস রিকগনিশন প্রযুক্তি ব্যবহার করে এরিকা একটি ঘরে কে কোথায় আছে তাও শনাক্ত করতে পারে।

সংবাদ পাঠক হিসেবে এরিকা ঠিক কীভাবে কাজ করবে সে ব্যাপারে খুব কম তথ্য প্রকাশ করা হয়েছে। তবে ড. ইশিগুরো জানান, মানুষের লেখা খবর একত্রিত করে তা পড়বে এই রোবট।

অন্যদিকে এরিকার ‘আর্কিটেক্ট’ ও ওসাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষক ড. ডিলান গ্লাস জানান, এরিকাকে ছোট ছোট চুটকি বলাও শেখানো হয়েছে। তিনি বলেন, ‘আমরা এমন একটি রোবট চাই যা নিজে থেকে চিন্তা করবে, কাজ করবে এবং সবই করবে অন্য কারো সাহায্য ছাড়া।’

ওসাকা বিশ্ববিদ্যালয় এবং কিয়োটো বিশ্ববিদ্যালয়ের যৌথ উদ্যোগে এবং জাপানের জেএসটি এরাতো সায়েন্স প্রজেক্টের অর্থায়নেই তৈরি হয়েছে এরিকা।

গুগল আনলো ক্লিপস ক্যামেরা 

কোনও প্রচারণা ছাড়াই ক্লিপস ক্যামেরা বাজারে ছেড়েছে গুগল। ছোট আকৃতির এই ক্যামেরাটি কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা সম্পন্ন। মজার কিছু সামনে পেলে নিজে থেকেই ছবি তুলে নিতে পারে এটি।


গত অক্টোবরে ক্লিপস ক্যামেরা প্রথমবারের মতো সবার সামনে নিয়ে আসে গুগল। তবে সেটা ছিল অনেকটা প্রদর্শনীর মতো। এবার গ্রাহকদের জন্য আনুষ্ঠানিকভাবে ক্লিপস ক্যামেরা সরবরাহ শুরু করেছে নির্মাতা প্রতিষ্ঠানটি। ২৭ জানুয়ারি এর বিক্রি শুরু হয়েছে বলে জানিয়েছে বিভিন্ন আন্তর্জাতিক গণমাধ্যম।

নিজেই ছবি তোলার পাশাপাশি ক্লিপস ক্যামেরা স্বয়ংক্রিয়ভাবে পরিস্থিতি অনুযায়ী ছবির রেজ্যুলেশন ঠিক করে নিতে পারে। তাছাড়া এই ক্যামেরায় রয়েছে মোমেন্ট আইকিউ যা একটি অনবোর্ড ও অফলাইন লার্নিং মডেল। সেই সঙ্গে এতে রয়েছে একটি ভিজুয়াল প্রসেসিং ইউনিট যা স্বয়ংক্রিয়ভাবে সঠিক মুখভঙ্গি, আলো, ফ্রেমিং শনাক্তের মাধ্যমে অর্থপূর্ণ ছবি ধারণে সক্ষম।

গুগলের এই বিশেষ ধরনের ক্যামেরাটি বিক্রি হচ্ছে ২৪৯ মার্কিন ডলারে। তবে এটা তাৎক্ষণিকভাবে কেউ কিনতে পারছেন না। যারা আগে থেকেই অনুরোধ জানিয়ে রেখেছে, শুধু তাদেরকেই সরবরাহ করা হচ্ছে ক্লিপস ক্যামেরাটি।

ভাপে তৈরি করুন চিকেন বান 

বেকিং ছাড়া ভাপে চিকেন বান তৈরি করে করে দেখেছেন কখনো? তৈরি করে দেখতে পারেন এই ভিন্ন স্বাদের চিকেন বানটি। স্বাস্থ ও পুষ্টিগুণ তো রয়েছেই সাথে পাবেন ভিন্ন স্বাদ। সকালের নাস্তা কিংবা আপনার সোনামণির স্কুলের টিফিনের জন্য নিশ্চিন্তে দিতে পারেন ভাপে তৈরি চিকেন বান। আসুন তাহলে দেখে নেই রেসিপিটি।


উপকরণ:

ডো এর জন্য-
ময়দা, লবণ, চিনি, ইস্ট, ডিম, মিল্ক পাউডার, পানি, তেল।

ফিলিং তৈরির উপকরণ:
মুরগির মাংস- ৫০০ গ্রাম,
তেল- ২ টেবিল চামচ,
রসুন- ১ টেবিল চামচ,
মরিচ গুঁড়ো- ১ টেবিল চামচ,
কালো গোলমরিচ- ১ চা চামচ,
উস্টার সস- ১ টেবিল চামচ,
চিনি- ১ চা চামচ,
জিরা ভাজা গুঁড়ো- ১ চা চামচ,
লেবুর রস- ২/৩ চা চামচ,
লবণ- স্বাদ মতো।



ডো এর উপকরণগুলো পরিমাণ মতো সব উপকরণ নিয়ে একসাথে মিশিয়ে নরম ও মোলায়েম ডো বানিয়ে একটা বাটিতে ঢাকনা দিয়ে চুলার পাশে ২০ মিনিট রেখে দিন। এর বেশি সময় রাখতে পারলে আরো ভালো।

এখন ফীলিং তৈরিতে প্রথমে তেলে রসুন ভেজে এতে মাংসের কিমা দিয়ে তারপর বাকিসব মশলা দিয়ে ভালো করে কষিয়ে নিন। অল্প পানি দিয়ে রান্না করুন। একদম ভাজা ভাজা হবে। এরপর পুরটা নামিয়ে ঠাণ্ডা করতে হবে।

এবার ডো নিয়ে রুটির গোলার মতো গোল গোল করে নিতে হবে।

এরপর গোলাটি হাত দিয়ে হাল্কা চেপে চ্যাপটা করে নিয়ে এরমধ্যে মাংসের ফিলিং দিয়ে হাতে গোল করতে হবে। মসৃণ বান হবে।

এবার যে পারতে ভাব দিবেন সেটি তৈরি করুন। পাত্রে পরিমাণ মতো পানি দিয়ে গরম করে নিনি। পানি গরম হয়ে গেলে চুলার আঁচ কমিয়ে দিন। তারপর তৈরি বানগুলো পরস্পর থেকে দূরে দূরে রাখবেন। ১৫/২০ মিনিট অপেক্ষা করতে হবে যেন বানটি ফুলে উঠে। তারপর চেক করে দেখুন সেদ্ধ হয়েছে কিনা। সেদ্ধ হয়ে গেলে নামিয়ে গরম গরম পরিবেশন করুন।

আপনি ভাপে করতে না চাইলে ওভেনে বেক করে নিতে পারেন। সেক্ষেত্রে

বেকিং প্যানে তেল মাখিয়ে বানগুলো রাখুন। পরস্পর থেকে দূরে দূরে রাখবেন। ১৫ মিনিট অপেক্ষা করতে হবে যেন বানটি ফুলে উঠে।

বানের ওপরে ডিমের কুসুম পানি দিয়ে ফেটিয়ে ব্রাশ করুন। ছড়িয়ে দিতে পারেন সাদা দিন। ১৬০° তাপমাত্রায় ১৫/২০ মিনিট বেক করতে হবে।

নামানোর পর কিছুক্ষণ তোয়ালে দিয়ে ঢেকে রাখুন। ১০ মিনিট রাখার পর পরিবেশন করুন। এতে বান নরম হবে।

এমআরআই করতে গিয়ে রোগীর আত্মীয়ের করুণ মৃত্যু 

এমআরআই করতে গিয়ে রাজেশ মারু (৩২) নামে ভারতীয় এক ব্যক্তির মৃত্যু হয়েছে। ধাতব অক্সিজেন সিলিন্ডার নিয়ে এমআরআই কক্ষে প্রবেশ করার পর দুর্ঘটনার শিকার হয়ে তার মৃত্যু হয়। এ ঘটনায় দায়িত্বে অবহেলার কারণে ডাক্তারসহ দুজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।


২৭ জানুয়ারি, শনিবার মুম্বাইয়ের বাই ইয়ামুনাবাই লক্ষ্মণ নায়ের চ্যারিটেবল হসপিটালে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

জানা যায়, ঘটনার দিন রাজেশ মারু তার অসুস্থ আত্মীয়ের সাথে মুম্বাইয়ের বাই ইয়ামুনাবাই লক্ষ্মণ নায়ের চ্যারিটেবল হসপিটালে আসেন। এ সময়  ওয়ার্ড বয় ভিথাল চাভান তাকে ধাতব অক্সিজেন সিলিন্ডার নিয়ে এমআরআই কক্ষে যেতে বলেন। কিন্তু মারুকে যখন চাভান ধাতব অক্সিজেন সিলিন্ডার নিয়ে যেতে বলেন, তখন রোগীর অন্যান্য আত্মীয় প্রতিবাদ করে বলেন ধাতব বস্তু নিয়ে যাওয়া যাবে না। তখন চাভান ব্যাপারটাকে মোটেই গুরুত্ব না দিয়ে বলেন, ‘সবই চলে, আমাদের প্রতিদিনের কাজ এটা।‘

কিন্তু চাভানের এ কথার পরই এমআরআই মেশিনের চৌম্বক ক্ষেত্রের টানে হাতের সিলিন্ডারসহ মেশিনের সাথে আটকা পড়েন রাজেশ মারু। তার হাত মেশিন এবং সিলিন্ডারের মাঝে আটকে যায়। একপর্যায়ে সংঘর্ষের ফলে সিলিন্ডার থেকে অক্সিজেন লিক করতে থাকে। মারুর আত্মীয় এবং ওয়ার্ড বয়রা তাকে মেশিন থেকে বের করে আনার পর দেখা যায় তার শরীর ফুলে গেছে এবং প্রচুর রক্তক্ষরণ হচ্ছে।

হিন্দুস্তান টাইমস জানায়, সিলিন্ডারের আঘাতে রাজেশের হাতের আঙুলগুলো বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। এছাড়াও সিলিন্ডার থেকে লিক করা প্রচুর পরিমাণে শীতল অক্সিজেন নিশ্বাসের সাথে গ্রহণ করার ফলে তিনি অবচেতন হয়ে পড়েন। দ্রুত তাকে আইসিইউতে নেওয়া হলেও কিছুক্ষণের মাঝেই তার মৃত্যু হয়।

এ বিষয়ে রাজেশ মারুর আত্মীয় হারিশ সোলাঙ্কি অভিযোগ করে বলেন, 'সে (রাজেশ) কক্ষে প্রবেশ করার সাথে সাথেই বোঝা যায় আসলে মেশিনটি চলছে।’ কিন্তু ওয়ার্ড বয় চাভান অভিযোগ অস্বীকার করে জানান, এমআরআই মেশিন বন্ধ করা ছিল। অন্যদিকে ঘটনাস্থলে থাকা ডাক্তার এবং টেকনিশিয়ানরাও এর কোনো প্রতিবাদ করেননি।

কর্তব্যে চরম অবহেলার কারণে ডাক্তার, ওয়ার্ড বয় এবং ওয়ার্ড অ্যাটেনডেন্টদের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। এ ঘটনায় ডাক্তার সিদ্ধান্ত শাহ এবং ওয়ার্ড বয় ভিথাল চাভানকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

উল্লেখ্য, এমআরআই কক্ষে ধাতব বস্তু নিয়ে যাওয়া নিষিদ্ধ। কারণ এমআরআই মেশিন চৌম্বক ক্ষেত্র ব্যবহার করে চালিত হয়। মেশিন চালু থাকা অবস্থায় এই কক্ষে ধাতব গহনা, ধাতব জিপার বা বোতামযুক্ত পোশাক, এমনকি ধাতব চিকিৎসা সরঞ্জামও নিয়ে যাওয়া যায় না।

 

 সাইফ আলি খান ও কারিনা কাপুরের সংসারের একমাত্র পুত্র তৈমুর এক বছর বয়সেই তারকা খেতাব পেয়ে গিয়েছে। আচার আচরণেও ছোট্ট তৈমুরের নবাবি চালচলন। প্রতিদিনই তাকে নিয়ে গণমাধ্যমে সংবাদ ছাপা হয়। সেই তৈমুর এখন নিয়মিত শরীরচর্চাও করবে বলে জানা গেছে। হ্যাঁ, মা কারিনার মতো জিমে ভর্তি করিয়ে দেওয়া হয়েছে তৈমুরকে।


সম্প্রতি ‘মাই জিম’-এর বাইরে দেখা গিয়েছে তৈমুরকে। এটি একটি ‘চাইল্ড ফিটনেস সেন্টার’ অর্থাৎ শিশু স্বাস্থ্য কেন্দ্র। ছ’মাস থেকে ১০ বছর বয়সী বাচ্চাদের সেখানে শরীর এবং স্বাস্থ্যের প্রতি সচেতন থাকার প্রক্রিয়াগুলি শেখানো হয়। তবে ইতোমধ্যেই ছেলে তৈমুরকে বিদেশে পড়াশোনা করতে পাঠানোরও ব্যবস্থা করছেন এই তারকা দম্পতি। একইসঙ্গে চলছে ‘জিম’-এর ট্রেনিং।

এখনই তৈমুরের জিমের কেন প্রয়োজন হলো, তা অবশ্য জানাননি সাইফ-কারিনা। উল্লেখ্য, কিছুদিন আগে এই স্বাস্থ্যকেন্দ্রেই অনুষ্ঠিত হয়েছিল তুষার কাপুরের ছেলে লক্ষ্য কাপুরের জন্মদিন। পার্টিতে মা কারিনার সঙ্গে দেখা গিয়েছিল খুদে নবাবকে।

 

 বিশ্বজুড়ে সেনা কর্মকর্তারা সামরিক ঘাঁটির ভিতরে বা কাছাকাছি তাদের শরীর চর্চার রুট বা লোকেশন অনলাইনে ছড়িয়ে পড়েছে। বিবিসির খবরে বলা হয়, অনলাইন ফিটনেস ট্র্যাকার স্ট্রাভা বৈশ্বিক একটি হিটম্যাপ অনলাইনে পাবলিশ করেছে।


হিটম্যাপে যেসব স্থানে স্ট্রাভার কার্যক্রম বেশি হয়েছে সেটিকে উজ্জ্বল করে দেখানো হয়েছে। ফলে এতে কোনটি মার্কিন সেনা ঘাঁটি আর কোনটি জনবহুল এলাকা তা সহজেই বোঝা যায়। কেবল যুক্তরাষ্ট্রের ভেতরে নয়, এমনকি সিরিয়া, আফগানিস্তানসহ মধ্যপ্রাচ্যের কোথায় কোন মার্কিন সেনা ঘাঁটি রয়েছে তাও বোঝা যাচ্ছে।

এদিকে মার্কিন সেনা সদর দফতরের একজন মুখপাত্র জানিয়েছেন, তারা হিটম্যাপটিকে পরীক্ষা করে দেখছেন।

হিটম্যাপটি বানানো হয়েছে স্ট্রাভার ফিটনেস ব্যান্ড ব্যবহারকারীদের জিপিএস ডাটার ওপর নির্ভর করে। পশ্চিমা বিশ্বের সাধারণ মানুষ থেকে শুরু করে মিলিটারিদের কাছে এই ফিটনেস ব্যান্ডটি খুবই জনপ্রিয়।

স্ট্রাভা অ্যাপের নির্মাতা প্রতিষ্ঠান এক সংক্ষিপ্ত বিবৃতিতে জানিয়েছে, অ্যাপে ব্যবহৃত ডাটাগুলো প্রকাশ করা হয়নি।

মোবাইল ফোন গ্রাহক সাড়ে ১৪ কোটি, ইন্টারনেট ৮ কোটি 

২০১৭ সালের শেষে দেশে মোবাইল ফোন গ্রাহক সংখ্যা দাঁড়িয়েছে সাড়ে ১৪ কোটিতে। আর ইন্টারনেট ব্যবহারকারী আট কোটি।

 


নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন (বিটিআরসি) সোমবার (২৯ জানুয়ারি) সবশেষ গত ডিসেম্বর মাসের পরিসংখ্যান দিয়ে এ তথ্য জানিয়েছে।

পরিসংখ্যান অনুযায়ী, চারটি মোবাইল ফোন অপারেটরের মোট গ্রাহক সংখ্যা ১৪ কোটি ৫১ লাখ ১৪ হাজারে পৌঁছেছে। আর ইন্টারনেট গ্রাহক সংখ্যা ৮ কোটি ৪ লাখ ৮৩ হাজার।

এর মধ্যে গ্রামীণফোনের গ্রাহক সংখ্যা ৬ কোটি ৫৩ লাখ ২৭ হাজার, রবি’র ৪ কোটি ২৯ লাখ ৮ হাজার, বাংলালিংকের ৩ কোটি ২৩ লাখ ৮৪ হাজার ও টেলিটকের গ্রাহক সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৪৪ লাখ ৯৪ হাজার।

অপারেটরদের দেওয়া ৯০ দিন সক্রিয় থাকা গ্রাহকদের তথ্য নিয়ে পরিসংখ্যানটি তৈরি করেছে বিটিআরসি।

মোবাইল ইন্টারনেট গ্রাহক ৭ কোটি ৫০ লাখ ৫০ হাজারে এসেছে। আর ওয়াইম্যাক্স ৮৯ হাজার এবং আইপিএস ও পিএসটিএন মিলে গ্রাহক ৫৩ লাখ ৪৪ হাজার।

সাবু দিয়ে ফিলিপিনো ডেসার্ট ‘বুকো পানদান’ 

সাবু দানা দিয়ে আমাদের দেশে নানা ধরণের পিঠা পায়েস তৈরি করা হয়। আর আপনার যদি সাবু দানার যেকোনো খাবার পছন্দের হয়ে থাকে তাহলে আপনি খেয়ে দেখতে পারেন সাবু দিয়ে ফিলিপিনো ডেসার্ট ‘বুকো পানদান’ একদম ভিন্ন রকম ও ভিন্ন স্বাদের এই খাবারটি খুব সহজেই তৈরি করে খেয়ে দেখতে পারেন। আশা করি আপনার বাড়ির ছোট বড় সকলের পছন্দ হবে।

সাবু দানা ২কাপ


কনডেন্সড মিল্ক ১টা

ডানো ক্রিম ১টা

হাফ কেজি তরল দুধ (ঘন করে ১ কাপ করে নিতে হবে)

ডাব নারিকেল এর শাঁস (নারিকেল এর শাঁস খুব নরম বা খুব শক্ত হবে না ও চারকোনা করে কাটা)

জেলাটিন জমিয়ে ৪ কোনা করে কাটা।

আঙুর, আম, বা পছন্দের কোনো ফল-(চারকোনা করে কাটা দিতে পারেন-ইচ্ছা)

পছন্দ মতো ফুড কালার 

উপকরণ:


সাবু দানা ২কাপ

কনডেন্সড মিল্ক ১টা

ডানো ক্রিম ১টা

হাফ কেজি তরল দুধ (ঘন করে ১ কাপ করে নিতে হবে)

ডাব নারিকেল এর শাঁস (নারিকেল এর শাঁস খুব নরম বা খুব শক্ত হবে না ও চারকোনা করে কাটা)

জেলাটিন জমিয়ে ৪ কোনা করে কাটা।

আঙুর, আম, বা পছন্দের কোনো ফল-(চারকোনা করে কাটা দিতে পারেন-ইচ্ছা)

পছন্দ মতো ফুড কালার

প্রনালি:


সাবু দানা পানিতে সিদ্ধ করে নিন। খেয়াল রাখবেন যাতে গলে না যায়। এই সময় ফুড কালার মিশিয়ে নিন।

পানি ঝরিয়ে ১টা বাটিতে নিয়ে কনডেন্স মিল্ক, ক্রিম, ঘন দুধ, ফল, নারিকেলে শাঁস ও জেলাটিন সব একসাথে মিক্স করে নিন।

এবার গ্লাস বা বাটিতে করে সুন্দর করে সাজিয়ে ২ ঘণ্টা ফ্রিজ এ রেখে ঠাণ্ডা করে পরিবেশন করুন মজাদার ফিলিপিনো খাবার বুকো পানদান।


বিদ্যা সিনহা মিমের কাছে শাকিব খানের অন্যরকম আবদার ও রসায়ন দেখা গেল ইউটিউবে। আর তা নাচে গানে ইউটিউবে।


২৮ জানুয়ারি রাতে প্রকাশ হয়েছে এ তারকা জুটির নতুন ছবি ‘আমি নেতা হবো’র গান। নাম ‌‘চুম্মা’। ছবিটির ভারতীয় পরিবেশক এসকে মুভিজ তাদের ইউটিউব চ্যানেলে গানটি অবমুক্ত করেছে।
এতে গানের আবদারের পাশাপাশি মোহনীয় ভঙ্গিতে নেচেছেন দুজনেই।
গানটি গেয়েছেন শ্রীপ্রীতম ও জেমি ইয়াসমিন। এতে র‌্যাপ অংশ করেছেন বনি। সুদীপ কুমার দীপের লেখা এ গানটির সংগীতও করেছেন শ্রীপ্রীতম।

‘আমি নেতা হবো’ ছবির দ্বিতীয় গান এটি। এর আগে এই দুই তারকা একটি আইটেম গানে অংশ নিয়েছিলেন।  ‘লাল লিপস্টিক’ নামের সেই গানটি ১১ জানুয়ারি ইউটিউবে আসে।

ক্লিক করে দেখা যাবে ‘চুম্মা’ গানটি:



উত্তম আকাশ পরিচালিত ‘আমি নেতা হবো’ ছবির কেন্দ্রীয় চরিত্রেও আছেন শাকিব-মিম। এটি প্রযোজনা করেছে শাপলা মিডিয়া।

উল্লেখ্য, শাকিব খান ও বিদ্যা সিনহা মিমের এটি দ্বিতীয় ছবি। ২০০৯ সালে মুক্তি পেয়েছিল তাদের ‘আমার প্রাণের প্রিয়া’। এর মধ্যে তাদের আর একসঙ্গে কাজ করতে দেখা যায়নি।

 সবচেয়ে বেশি নকল হয় স্যামসাং ব্র্যান্ডের ফোন

বিশ্বব্যাপী নকল স্মার্টফোনে সয়লাব। আসল ব্র্যান্ডের পাশাপাশি আছে একই ব্র্যান্ডের রেপ্লিকা বা নকল ডিভাইস। গ্যাজেটস নাউ এর খবরে বলা হয়, ২০১৭ সালে বৈশ্বিক স্মার্টফোন বাজারে মোট বিক্রিত ডিভাইসের ২ দশমিক ৬৪ শতাংশ ছিল নকল বা রেপ্লিকা।


বেঞ্চমার্কিং প্লাটফর্ম অ্যানতুতু (Antutu Benchmark) সম্প্রতি সবচেয়ে বেশি নকল হওয়া স্মার্টফোন নিয়ে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। প্রতিবেদনে দেখা গেছে, এসব নকল ব্র্যান্ডের মধ্যে সবচেয়ে বেশি নকল করা হয়েছে দক্ষিণ কোরিয়ার প্রতিষ্ঠান স্যামসাং ব্র্যান্ডের।

অ্যানতুতুর প্রতিবেদন অনুযায়ী, বৈশ্বিক নকল স্মার্টফোনের বাজারে ৩৬ দশমিক ২৩ শতাংশ হ্যান্ডসেটই স্যামসাংয়ের জনপ্রিয় স্মার্টফোনগুলোর নকল বা রেপ্লিকা। এ তালিকায় দ্বিতীয় অবস্থানে আছে মার্কিন প্রযুক্তি কোম্পানি অ্যাপলের আইফোন।

নকল স্মার্টফোন বাজারে জনপ্রিয় হ্যান্ডসেট মডেল হল যথাক্রমে গ্যালাক্সি এস৭ এজ ইউরোপিয়ান সংস্করণ, গ্যালাক্সি এস৭ এজ চীনা সংস্করণ, গ্যালাক্সি এস৭ ইউরোপিয়ান সংস্করণ এবং ডব্লিউ ২০১৬ ফ্লিপ ফোন।

সবচেয়ে বেশি নকল করা হয় এমন শীর্ষ ১০টি মডেলের মধ্যে আছে ওয়ানপ্লাস থ্রিটি, শাওমি এমআই৫ এবং গ্যালাক্সি এস৮ প্লাস।

অপো এবং গ্রামীণফোন যৌথভাবে নিয়ে এলো দারুণ অফার! 


বাংলাদেশে অন্যতম দ্রুত বিকাশমান ক্যামেরা ফোন ব্র্র্যান্ড এবং সেলফি এক্সপার্ট ও লিডার অপো, বাংলাদেশের জনপ্রিয় মোবাইল অপারেটর গ্রামীণফোনের সাথে যুক্ত হয়ে গ্রাহকদের জন্য নিয়ে এসেছে অপ্রতিদ্বন্দ্বী স্মার্টফোন এবং ডাটা প্যাকেজ অফার। এই ক্যাম্পেইনে, গ্রাহকরা অপো এ৩৭, এ৭১, এ৫৭, এফ৩, এফ৩ প্লাস, এফ৫, এফ৫ ইয়ুথ এবং এফ৫ ৬জিবি ভার্সন থেকে যেকোনো একটি স্মার্টফোন কিনে আকর্ষণীয় অফার উপভোগ করতে পারবেন।


 অপো এ৩৭, এ৭১, এ৫৭, এফ৩, এফ৩ প্লাস স্মার্টফোন কিনে গ্রাহকরা পাবেন ৪ গিগাবাইট ইন্টারনেট ডাটা বোনাস। গ্রামীণফোনের গ্রাহকরা এফ৫, এফ৫ ইয়ুথ এবং এফ৫ ৬জিবি ভার্সন কিনে পাবেন ৫ গিগাবাইট ডাটাসহ ১ গিগাবাইট ফেসবুক ব্যবহারের সুযোগ। এছাড়াও, গ্রাহকরা ২৮ দিন মেয়াদে ৩ গিগাবাইট ইন্টারনেট ডাটা কিনতে পারবেন মাত্র ২৫৫ টাকায় (৪০% ডিসকাউন্ট)।

 অপো এ৩৭, এ৭১, এ৫৭, এফ৩, এফ৩ প্লাস স্মার্টফোনের মূল্য যথাক্রমে ১১,৯৯০ টাকা, ১৬,৯৯০ টাকা, ১৮,৯৯০ টাকা, ২২,৯৯০ টাকা এবং ৪০,৯০০ টাকা। সম্প্রতি উন্মোচিত অপো এফ৫ বাজারে ব্যাপক জনপ্রিয়তা অর্জন করেছে। অপো এফ৫, এফ৫ ইয়ুথ এবং এফ৫ ৬জিবি ভার্সনের মুল্য যথাক্রমে ২৪,৯৯০ টাকা, ২১,৯৯০ টাকা এবং ৩২,৯৯০ টাকা।

অপো বাংলাদেশের ম্যানেজিং ডিরেক্টর ড্যামন ইয়াং বলেন, ‘সম্মানিত গ্রাহকদের দ্রুত গতির ইন্টারনেটের সাথে আমাদের সেরা স্মার্টফোন ব্যবহারের অভিজ্ঞতা দিতেই আমরা এই ক্যাম্পেইন নিয়ে এসেছি। আমরা আশা করি, এই সহযোগিতা ভবিষ্যতে ব্যাপক সাফল্য নিয়ে আসবে।”

জাপানে বড় অংকের ডিজিটাল মুদ্রা চুরি 

জাপানি প্রতিষ্ঠান কয়েনচেক থেকে ৫৩৪ মিলিয়ন ডলার চুরির অভিযোগ উঠেছে হ্যাকারদের বিরুদ্ধে। বলা হচ্ছে এটা বিশ্বে ডিজিটাল মুদ্রা চুরির সবচেয়ে বড় ঘটনা। কয়েনচেক জাপানের শীর্ষ ডিজিটাল মুদ্রা বিনিময়কারী প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে অন্যতম।


কয়েনচেক থেকে চুরির বিষয় সম্পর্কে এখনও আনুষ্ঠানিকভাবে নিশ্চিত হওয়া যায়নি। তবে এই অভিযোগ সত্যি প্রমাণ হলে এটাই হবে বিশ্বের সবচেয়ে বড় ডিজিটাল মুদ্রা চুরির ঘটনা। এর আগে ২০১৪ সালে আরেক জাপানি প্রতিষ্ঠান মেটগক্স থেকে ৪০০ মিলিয়ন ডলার চুরি হয়েছিল।

চুরি সম্পর্কে কয়েনচেকের একজন প্রতিনিধি জাপানি সংবাদমাধ্যমকে বলেন, শুক্রবারে আমরা যে অর্থ হারিয়েছি তা পরিশোধ করা অসম্ভব হয়ে পড়বে।

কয়েনচেক থেকে চুরি হওয়া অর্থ হট ওয়ালেটে রাখা হয়েছিল বলে জানানো হয়েছে। হট ওয়ালেট হলো অফলাইনে থাকা সম্পদ অনলাইনে নিয়ে আসা। মূলত কোল্ড ওয়ালেট তথা অফলাইনে কয়েনচেকের সম্পদ নিরাপদে সংরক্ষিত ছিল। কিন্তু সেই নিরাপত্তা ভেঙে হ্যাকররা ওই সম্পদকে অনলাইনে নিয়ে আসে।

কয়েনচেক বলছে, তাদের সম্পদ কোন ডিজিটাল ঠিকানায় পাঠানো হয়েছে তা জানা আছে তাদের। এ সম্পর্কে প্রতিষ্ঠানটির চিফ অপারেটিং অফিসার ইউসুকে ওতসুকা বলেন, আমরা হিসাব করে দেখেছি চুরি হওয়া অর্থের পরিমাণ ৫৮ বিলিয়ন ইয়েন।



তিনি আরও বলেন, আমরা জানি এই অর্থ কোথায় পাঠানো হয়েছে। আমরা তাদের ওপর নজর রাখছি এবং তাদের গতিবিধি পর্যবেক্ষণ করছি। অর্থ ফিরে পাওয়া যেতে পারে।

কয়েনচেক ইতিমধ্যে এই ঘটনাটি পুলিশ এবং জাপানের ফিনান্সিয়াল সার্ভিস এজেন্সিকে জানিয়েছে।

রেসিপি: বিয়েবাড়ির শাহি জর্দা 

বিয়েবাড়ির খাবার খেতে পছন্দ করেন না এমন মানুষ খুঁজে পাওয়া দুষ্কর। হবে নাই বা কেন? বিয়েবাড়ির খাবারের মানেই জিভে জল আনা স্বাদ! ঘরেই মজাদার শাহি জর্দা রান্না করে ফেলতে পারেন বিয়েবাড়ির স্টাইলে। জেনে নিন কীভাবে রান্না করবেন।


উপকরণ


১ কাপ বাসমতী চাল
আধা চা চামচ জর্দার রং
২টি কমলার খোসা
আধা কাপ ঘি
১ টুকরা দারুচিনি
৬টি লবঙ্গ
৩টি এলাচ
কয়েকটি পেস্তা বাদাম ও কাঠবাদাম
১২টি কিশমিশ
স্বাদ মতো চিনি
আধা কাপ মোরব্বা
১ চা চামচ কেওড়া জল
১০-১৫টি ছোট মিষ্টি

প্রস্তুত প্রণালি

চাল ভালো করে ধুয়ে ভিজিয়ে রাখুন আধা ঘণ্টা। বাসমতী চালের বদলে পোলাওয়ের চালও ব্যবহার করতে পারেন চাইলে। চুলায় একটি প্যান ৬ কাপ পানি দিন। জর্দার রং গুলে নিন পানিতে। জর্দার রং না থাকলে ফুড কালার ব্যবহার করতে পারেন। পানিতে ভিজিয়ে রাখা চাল ঝাঁঝরির সাহায্যে ছেঁকে নিন। পানি ফুটে উঠলে কমলার খোসা ছোট ছোট টুকরা করে দিয়ে দিন। এবার চাল দিয়ে নেড়ে নিন। মাঝারি আঁচে প্যান রেখে দিন চুলায়। চাল প্রায় আশি শতাংশ সেদ্ধ হওয়া পর্যন্ত অপেক্ষা করুন। চুলা থেকে নামিয়ে চালের পানি ঝরিয়ে নিন। কমলার খোসার টুকরাগুলো খুঁজে ফেলে দিন।   

মাঝারি আঁচে চুলায় আরেকটি প্যান বসিয়ে ঘি দিয়ে দিন। দারুচিনি ভেঙে দিন। এলাচ ও লবঙ্গ দিন। বাদাম ভেঙে দিন ও কিশমিশ দিন। এবার চিনি ও পৌনে এক কাপ পানি দিয়ে নেড়েচেড়ে নিন। চিনি গলে যাওয়া পর্যন্ত অপেক্ষা করুন। ফুটে উঠলে সেদ্ধ করে রাখা চাল দিয়ে হালকা করে নেড়ে নিন। আবারও ফুটে উঠলে মোরব্বার টুকরা দিয়ে দিন। নাড়াচাড়া করে ঢেকে দিন। চুলার আঁচ কমিয়ে দমে রাখুন। ১৫ থেকে ২০ মিনিট পর ঢাকনা তুলে একবার নেড়ে দিন। আরও ১০ মিনিট রেখে রাখুন চুলায়। পানি পুরোপুরি শুকিয়ে গেলে চুলা থেকে নামিয়ে কেওড়া জল ছিটিয়ে নেড়ে নিন। ঠাণ্ডা হলে ছোট ছোট মিষ্টি দিয়ে সাজিয়ে পরিবেশন করুন মজাদার শাহি জর্দা।

 

চিকিৎসা পেশা সারা পৃথিবীতে অত্যন্ত সম্মানজনক ও মর্যাদা সম্পন্ন। অধিক উপার্জন সক্ষম পেশাও। তাই সারা পৃথিবীতেই উচ্চ মাধ্যমিক পাশ ছাত্রদের পড়ার এক নম্বর বিষয় হচ্ছে মেডিকেল। বাংলাদেশের লোকসংখ্যা ১৬ কোটি। চাহিদা অনুযায়ী প্রয়োজনীয় ডাক্তারের সংখ্যার বিশাল ঘাটটি রয়েছে। ঘাটতি পূরনের জন্য প্রচুর ডাক্তারের প্রয়োজন।


কিন্তুু আসন সংখ্যা কম থাকা এবং ভর্তিচ্ছুক ছাত্রদের সংখ্যা বেশী হওয়ায় অধিক সংখ্যক ছাত্রই ইচ্ছা থাকা সত্ত্বেও ডাক্তারী পড়তে পারে না। যেমন- এবছরে ৩১টি সরকারী ও ৬৯টি বেসরকারী মেডিক্যাল কলেজে মোট ৩৩১৮+৬২২৫=৯৫৪৩টি আসনের জন্য ভর্তি পরীক্ষা দিয়েছে ৮২,৭৮৮ জন। পাশ করেছে ৪১,১৩২ জন। কিন্তুু পাশ করলেও ৪১,১৩২-৯৫৪৩=৩১,৫৮৯ জন ছাত্র-ছাত্রী মেডিক্যাল পড়ার জন্য ভর্তি হতে পারবে না। তবে এরা অনায়াসে ভর্তি হতে পারে চীনে। স্কলারশীপ নিয়ে চীনা ভাষায় চীনে মেডিক্যাল পড়তে পারে।
ইংরেজী মাধ্যমেও ডাক্তারী পড়তে পারে টিউশন ফি দিয়ে ।

চীনের অন্তত: ০৪টি নামি মেডিক্যাল ভার্সিটিতে (কলেজ নয়) ভর্তি করা যাবে [Nanjing, Xuzhow, Chanzhow Ges Yangzhow Medical University]। ইংরেজী মাধ্যমে পড়লে বার্ষিক টিউশন ফি RMB ৩০,০০০ বা বাংলাদেশী টাকায় প্রায় চার লাখ। তবে চীনা ভাষায় পড়লে ১০% ছাত্র ফুল ফ্রি স্কলারশিপ পাবে। ২০% ছাত্র অর্ধেক টিউশন ফি দিয়ে (RMB ১৫০০) পড়তে পারবে এবং ৭০% ছাত্র পড়তে পারে ২৫% স্কলারশিপে বা জগই ২২৫০০ টিউশন ফিতে (বা:দে: টাকায় ২,৯০,০০০)। ১ম বছরে ভাল রেজাল্ট করতে পারলে অন্য স্কলারশিপ পাওয়ার সুযোগ রয়েছে।

মেডিক্যাল ৬ বছরের (১ বছর ইন্টার্নিসহ)। চীনা ভাষায় পড়লে এর সঙ্গে যোগ করতে হবে আরো এক বছর, চীনা ভাষা শেখার জন্য। টিউশন ফি দিতে হবে RMB ১৪,০০০ বা বাংলাদেশী টাকায় ১,৮০,০০০।

বিদেশে বিশেষ করে যুক্তরাজ্য, যুক্তরাষ্ট্র, কানাডা, অষ্ট্রেলিয়ায়ার মত দেশেও মেডিক্যালে পড়ার আসন অত্যন্ত সীমিত, ব্যয়বহুল এবং আমাদের দেশ থেকে সরাসরি ভর্তিও হওয়া যায় না। আমরা ইউরোপ আমেরিকায় ভর্তি করতে এবং ভিসা করাতে পারব। বিস্তারিত জানার জন্য আমাদের ফ্রি সেমিনারে এসে জেনে বুঝে সিদ্ধান্ত নিতে পারেন (মোবাইল: ০১২৫৫২৪১৭৫৩১)।

যাদের বিদেশে পড়ার ইচ্ছা এবং আর্থিক সামর্থ রয়েছে তারা ইউরোপ এবং আমেরিকা পড়া যায় এমন অনেক মানসম্পন্ন মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়তে যেতে পারেন।

এই নিবন্ধে এমন কিছু সুযোগ নিয়ে আলোচনা করা হচ্ছে।

পূর্ব ইউরোপের জর্জিয়ায় MBBS/MD পড়া যাবে ইংরেজী মাধ্যমে, টিউশন ফি বার্ষিক ৪৫০০ ডলার। চতুর্থ বৎসর থেকে জার্মানীতে কাজ করা যাবে মাসিক ৪০০ ইউরো নিয়ে। এছাড়াও ইংরেজী মাধ্যমে প্রায় একই বা আরো কম টিউশন ফি-তে মেডিক্যাল পড়া যাবে ইউক্রেন ও বেলারুসে। ইউরোপের মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ডিগ্রী নিয়ে ইউরোপে প্রাকটিশ বা চাকুরী করা যায়। বার্ষিক ৮০০০ থেকে ১২০০০ ইউরো টিউশন ফি দেওয়ার সক্ষমতা থাকলে মেডিক্যাল পড়া যাবে Poland, Czech Republic, Lithuania, Hungary তে। এখুনি ভর্তি প্রক্রিয়া শুরু করতে হবে। ভর্তি হতে পারলে ভিসা পাওয়া নিশ্চিত।

চোখ কপালে ওঠার মতো একটা সংবাদ প্রকাশ করেছে AAMC-Association of American Medical College; ২০২৫ সাল নাগাদ যুক্তরােষ্ট্র ডাক্তারের ঘাটতি দাঁড়াবে ৪৬,০০০ হাজার থেকে ৯০,০০০ হাজার। যারা মেডিকেলে পড়তে চাও তারা এ সংবাদটি মাথায় রাখতে পারো।

আমেরিকার (US Track Carabbian Countries) অনেক ভালো নামী এবং অনুমোদিত মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রগ্রামে ভর্তি হলে শেষ অর্ধেক সময় Gesপড়া যাবে। USMLE-এর জন্য প্রয়োজনীয় Clinical Rotation ও করা যাবে। ফলে পাশ করে USAও Canada-তে চাকুরী, প্রাকটিস বা উচ্চ শিক্ষা নেওয়া যাবে। দেশে বসেই ভর্তি ও ভিসা পাওয়া সম্ভব।

মেডিক্যাল, ডেন্টাল ফার্মেসী ইত্যাদি বিষয়ে ভর্তি ও ভিসা সম্পর্কে সঠিক তথ্য ও প্রক্রিয়া জানা এবং ফ্রি সেমিনারে অংশ গ্রহনের জন্য ০১৫৫২৪১৭৫৩১ নাম্বারে যোগাযোগ করা যেতে পারে। অথবা জীবন-বৃত্তান্ত (Bio-data) এবং মার্কশিটের Scan copy ইমেইলে (scholarshipchina2018@gmail.com) পাঠালে সব তথ্য জানিয়ে দেওয়া হবে ।

হঠাৎ বন্ধ ফেসবুক, টুইটারে ব্যবহারকারীদের ক্ষোভ প্রকাশ 

হঠাৎ করেই বন্ধ হয়ে যায় জনপ্রিয় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকের পরিষেবা। মোবাইল ও ডেস্কটপ দুই জায়গাতেই এই সমস্যার মুখে পড়েন ব্যবহারকারীরা।


প্রাথমিক তথ্য অনুসারে, ভারত, থাইল্যান্ড, ফিলিপাইন, সিংগাপুরে এই সমস্যা হয়েছে। এছাড়া অন্য কোন দেশ থেকে এমন কোন অভিযোগ পাওয়া যায়নি। মঙ্গলবার সন্ধ্যা ৮.৩০ মিনিট থেকে খোলা যাচ্ছিল না ফেসবুকে কোনও পেজ।

মঙ্গলবার সন্ধেয় হঠাৎ ফেসবুকের হোম পেজ রিফ্রেশ করতে গিয়ে দেখা যায়, পেজটা ব্ল্যাংক হয়ে গিয়েছে। লেখা আছে Something went wrong. বারবার রিফ্রেশ করলেও কোনও কাজ হচ্ছে না। কি কারণে এই পরিস্থিতি সেব্যাপারে ফেসবুকের তরফ থেকে কিছু জানানো হয়নি।

কি হয়েছে বুঝতে না পেরে অনেকেই ট্যুইটারে স্ক্রিন শট নিয়ে পোস্ট করতে শুরু করে। অনেকেই জিজ্ঞাসা করেন, তাঁরা একাই এই অভিজ্ঞতার মুখোমুখি হচ্ছেন কিনা।

রেসিপি: চালকুমড়ার মোরব্বা 


জর্দা কিংবা কেক সুস্বাদু করার জন্য চালকুমড়ার মোরব্বা ব্যবহার করা হয়। মজাদার এই মোরব্বা খাওয়া যায় এমনিতেও। জেনে নিন কীভাবে ঘরেই বানাবেন চালকুমড়ার মোরব্বা।


উপকরণ


পাকা চালকুমড়া- ১টি (দেড় কেজি ওজনের)
চুন- ২ চা চামচ
চিনি- ৩ কাপ
এলাচ- ২টি 
কেওড়া জল- ১ চা চামচ

প্রস্তুত প্রণালি

চালকুমড়া চাকার মতো বড় টুকরা করে কেটে নিন। এবার প্রতিটি টুকরা থেকে কেটে ৩ থেকে ৪ পিস করে বের করুন। চালকুমড়ার নরম অংশ ও খোসা কেটে বাদ দিয়ে কেবল মাঝের অংশটুকু রাখুন। এবার কাঁটাচামচ দিয়ে ছিদ্র করুন চালকুমড়ার টুকরোগুলো। উপর-নিচ ভালো করে ছিদ্র করতে হবে যেন ভেতরে চিনির সিরা যেতে পারে। ছুরি দিয়ে যেদিকে খোসা ছিল সেদিকটা আলতো করে আঁচড়ে নিন বারকয়েক।

এবার একটা বাটিতে পানি নিয়ে চুন গুলিয়ে নিন। চুনমিশ্রিত পানিতে চালকুমড়ার টুকরা ডুবিয়ে রাখুন। এটি কুমড়ার টুকরোগুলোকে সাদা ও শক্ত রাখতে সাহায্য করবে। কমপক্ষে ৬ ঘণ্টা ভিজিয়ে রাখতে হবে।

চুনের পানিতে ছেঁকে চালকুমড়ার টুকরোগুলোকে পানি বদলে কয়েকবার ধুয়ে নিন।
প্যানে পানি গরম করুন। ফুটে ওঠার আগ মুহূর্তে চালকুমড়ার টুকরা দিয়ে দিন। ৬ থেকে ৭ মিনিট উচ্চ তাপে প্যান রাখুন চুলায়। চুলা থেকে নামিয়ে সঙ্গে সঙ্গে ছেঁকে নিন।

চুলায় প্যান দিয়ে চিনি, কেওরা জল, এলাচ ও ৩ থেকে ৪ টেবিল চামচ পানি দিন। চুলার আঁচ কম রেখে ঘন ঘন নেড়ে চিনি গলিয়ে নিন। চিনির উপরে বুদবুদ উঠলে সেদ্ধ করে রাখা চালকুমড়া দিয়ে নাড়ুন। কুমড়া থেকে পানি বের হয়ে সিরা পাতলা হয়ে গেলে আরও কিছুক্ষণ জ্বাল দিন। ২০ মিনিট পর সিরা শুকিয়ে গেলে চুলা থেকে নামিয়ে ছড়ানো প্লেটে এমনভাবে রাখুন যেন একটির সঙ্গে আরেকটি লেগে না যায়। ১০ ঘণ্টা এভাবে রেখে দিন। কেটে বা আস্ত টুকরা সংরক্ষণ করুন মুখবন্ধ বয়ামে। 

না ফেরার দেশে জনপ্রিয় অভিনেত্রী সুপ্রিয়া দেবী 

ভারতীয় বাংলা চলচ্চিত্রের জনপ্রিয় অভিনেত্রী সুপ্রিয়া দেবী আর নেই। ২৬ জানুয়ারি শুক্রবার ভোরে হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হয় এই গুণী শিল্পীর। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৮৫ বছর। দীর্ঘদিন ধরেই বার্ধক্যজনিত রোগে ভুগছিলেন তিনি।


সুপ্রিয়া চৌধুরী নামেও পরিচিত সুপ্রিয়া দেবী। তার আসল নাম কৃষ্ণা এবং ডাকনাম বেনু। ১৯৩৫ সালের ৮ জানুয়ারি মিয়ানমারে জন্মগ্রহণ করেন সুপ্রিয়া দেবী। তার বাবা বিখ্যাত আইনজীবী গোপাল চন্দ্র বন্ধোপাধ্যায়।

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় পরিবারের সঙ্গে ভারতে এসে স্থায়ীভাবে বসবাস শুরু করেন সুপ্রিয়া দেবী। মাত্র সাত বছর বয়সে তার বাবা’র পরিচালিত দুটি নাটকের মাধ্যমে অভিনয়ে অভিষেক ঘটে সুপ্রিয়া দেবীর।

সুপ্রিয়া দেবী বাংলা চলচ্চিত্রে ৫০ বছরেরও বেশি সময় ধরে অভিনয় করেছেন। তার অভিনীত বিখ্যাত চরিত্র ‘দেবদাস’ (১৯৭৯) সিনেমার চন্দ্রমুখী। চলচ্চিত্রের মধ্যে রয়েছে- ‘মেঘে ঢাকা তারা’, ‘কলঙ্কিনী কঙ্কাবতী’, ‘কোমল গান্ধার’, ‘দুই পুরুষ’, ‘দ্য নেমসেক’, ‘একটী নদীর নাম’, ‘শেষ ঠিকানা’, ‘হানিমুন’, ‘ইমান কল্যাণ’, ‘মন নিয়ে’, ‘সন্ধ্যা রাগ’, ‘আপ কি পরিছাঁইয়া’, ‘দূর গগন কি ছাঁও মে’, ‘লাল পাত্থর’ ইত্যাদি।

১৯৫৪ সালে সুপ্রিয়া দেবী বিশ্বনাথ চৌধুরীকে বিয়ে করেন এবং পরবর্তীতে তাদের একমাত্র কন্যা সোমা জন্মগ্রহণ করে। বিখ্যাত বাংলা ছোট গল্প লেখক বলাই চাঁদ মুখোপাধ্যায়, যার ছদ্মনাম বনফুল, সুপ্রিয়ার বড় বোনের সাথে তার বিয়ে হয়।

সুপ্রিয়া দেবী ২০১১ সালে পশ্চিম বঙ্গের সর্বোচ্চ বেসামরিক উপাধী ‘বঙ্গভূষণ’ অর্জন করেন। ২০১৪ সালে বাংলা চলচ্চিত্রে অবদানের জন্য ভারতের চতুর্থ সর্বোচ্চ বেসামরিক উপাধী ‘পদ্মশ্রী’ তে ভূষিত হন তিনি।

মোবাইলের ব্যাটারিতে কামড় দিতেই বিস্ফোরণ 

সম্প্রতি ইন্টারনেটে ভাইরাল হওয়া একটি ভিডিওতে দেখা গেছে, এক ক্রেতা নতুন একটি ফোনের ব্যাটারি কিনতে গিয়ে তাতে কামড় বসালে সঙ্গে সঙ্গে ব্যাটারিটি বিস্ফোরিত হয়।

ঘটনাটি ঘটেছে চীনের একটি ইলেক্ট্রনিকসের দোকানে। তাইওয়ান নিউজের সূত্র মতে,একজন গ্রাহক গত শুক্রবার তার ফোনের ব্যাটারিটি বদলানোর জন্য ওই দোকানে যান। ব্যাটারিটি ভালো না মন্দ তা যাচাই করতে তিনি ব্যাটারিতে কামড় দেন। আর তখনই ওই ঘটনা ঘটে।

তাইওয়ান নিউজ এর রিপোর্টটিতে আরও উল্লেখ করা হয়, সেটি কি ধরনের ব্যাটারি ছিল সে সম্পর্কে কারও কোনও ধারণা নেই। তবে অনেক গণমাধ্যম বলছে, এটা ছিল আইফোনের ব্যাটারি। কিন্তু গণমাধ্যমগুলো মডেলের নাম বলতে পারেনি।

তাইওয়ান নিউজের ওই রিপোর্ট অনুযায়ী, এই বিস্ফোরণে কোনও হতাহতের ঘটনা ঘটেনি। যদিও ভিডিওটিতে দেখা যায় কাছাকাছি দাঁড়িয়ে থাকা এক নারী ওই ঘটনায় ভয়ে হতবাক হয়ে যান।

মোবাইলফোনের ব্যাটারিগুলো লিথিয়াম আয়নের। এজন্য এগুলো সম্পর্কে ভবিষ্যদ্বাণী করা খুব মুশকিল।
উদাহারণ হিসেবে গত বছরের স্যামসাং গ্যালাক্সি নোট ৭-এর বিস্ফোরণের কথা বলা যায়।

নিজেদের উদ্ভাবনী প্রযুক্তির কথা জানালো এসার 

নিজেদের নতুন নতুন উদ্ভাবন ও ভবিষ্যত প্রযুক্তির নানা কর্মপরিকল্পনার কথা জানাতে এক অনুষ্ঠানের আয়োজন করে তাইওয়ানভিত্তিক প্রযুক্তি কোম্পানি এসার। সোমবার রাতে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তার্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে আয়োজিত এ অনুষ্ঠানে ভবিষ্যত কম্পিউটার প্রযুক্তির গতি-প্রকৃতি সম্পর্কেও ধারণা দেওয়া হয়।


অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন এসার ইন্ডিয়া প্রাইভেট লিমিটেডের জ্যেষ্ঠ পণ্য ব্যবস্থাপক আনন্দ আগারওয়াল ও স্মার্ট টেকনোলজিসের ব্যবস্থাপনা পরিচালক জহিরুল ইসলাম, এসার বাংলাদেশের কমার্শিয়াল বিজনেস ম্যানেজার কাজী কামাল উদ্দিন। কামাল উদ্দিন বলেন, সরকারের নীতি-নির্ধারণীসহ বাণিজ্যিক পর্যায়ে এসারের নতুন নতুন উদ্ভাবন ও ভষিষৎ প্রযুক্তির পরিকল্পনার কথা জানাতেই মুলত আজকের এই আয়োজন।

আয়োজনে এসার ট্রাভেলমেট ল্যাপটপ, গেমিংয়ে প্রিডেটর সিরিজের ল্যাপটপ, এসার মনিটর, এসার অলটোস সার্ভার, ভার্চুয়াল পিসি জিরো ক্লায়েন্ট, ডেক্সটপ প্রভৃতি প্রজেক্টরের মাধ্যমে দেখানো হয়।

অনুষ্ঠানে বক্তারা বলেন, বাংলাদেশে ১০ বছরের বেশি সময় ধরে কাজ করে যাচ্ছে এসার। এখানে ব্যবসা বাড়াতে নতুন উদ্যোগও নেওয়া হচ্ছে। তথ্যপ্রযুক্তিতে বাংলাদেশকে এশিয়া প্যাসিফিক অঞ্চলের অন্যতম বাজার হিসেবে প্রাধান্য দেওয়া হচ্ছে। এখানে আরও বিনিয়োগের পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়েছে।

গেমিং, ভার্চুয়াল রিয়েলিটি, আইওটি এবং ক্লাউড কম্পিউটিংয়ের সমন্বয়ে ল্যাপটপসহ সংশ্লিষ্ট ডিভাইসগুলো বাংলাদেশের বাজারে সেরা অবস্থানে থাকবে বলে অনুষ্ঠানে আশাবাদ ব্যক্ত করেন এসার কর্তৃপক্ষ।

নতুন কলরেট নিয়ে এলো গ্রামীণফোন 

গ্রাহকদের জন্য নতুন কলরেট নিয়ে এলো শীর্ষস্থানীয় মোবাইল সেবাদাতা প্রতিষ্ঠান গ্রামীণফোন। এ আকর্ষণীয় অফারে গ্রামীণফোনের সকল গ্রাহক (মাইপ্ল্যান ও বিজনেস সলিউশনস পোস্টপেইড ছাড়া) উপভোগ করতে পারবেন প্রতি সেকেন্ডে আধা পয়সা (০.৫) কলরেট।


এ বিষয়ে গ্রামীণফোনের ডেপুটি সিইও ইয়াসির আজমান বলেন, আমরা গ্রাহকদের বহুবিধ চাহিদার কথা চিন্তা করে বিভিন্ন ধরনের অফার নিয়ে আসি। এক্ষেত্রে, আমাদের নিরলস প্রচেষ্টা থাকে সেরা সব অফার নিয়ে আসার। আর তারই ধারাবাহিকতায় আমরা এই নতুন কল রেট বাজারে নিয়ে নিয়ে এসেছি যা আমাদের সেবাকে আরো আকর্ষনীয় করবে। আমার বিশ্বাস, গ্রাহকরা দারুণভাবে এ অফারগুলো উপভোগ করবে।

এ অফারের আওতায় ২১ টাকা রিচার্জে গ্রাহকরা গ্রামীণফোন থেকে গ্রামীণফোনে প্রতি সেকেন্ড কল করতে পারবেন ০.৫ পয়সায় এবং গ্রামীণফোন থেকে অন্য অপারেটরে কথা বলতে পারবেন ১ পয়সায়। চব্বিশ ঘণ্টার এ অফারের মেয়াদ থাকবে ২ দিন। গ্রাহক যদি ৪৯ টাকা রিচার্জ করেন তারা ওপরের মতো একই অফার উপভোগ করতে পারবেন যার মেয়াদ থাকবে ৫ দিন পর্যন্ত। এ অফার গ্রামীণফোন থেকে শুধুমাত্র দেশের অন্য অপারেটরে কল করার ক্ষেত্রে প্রযোজ্য (জিপি-অন্য অপারেটর, জিপি-পিএসটিএন এবং জিপি-আইপিটিএসপি)।

মে মাস থেকে চালু হবে টেলিটকের ফোরজি সেবা : মোস্তাফা জব্বার 

চলতি বছরের মে মাস থেকে টেলিটক চতুর্থ প্রজন্মের (ফোর-জি) সেবা চালু করবে বলে জানিয়েছেন ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তিমন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার।


২৪ জানুয়ারি বুধবার সংসদে সরকারি দলের সদস্য দিদারুল আলমের এক লিখিত প্রশ্নের জবাবে এ তথ্য জানান তিনি। খবর বাসস।

তথ্যপ্রযুক্তিমন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার বলেন, ‘টেলিটক নিজস্ব অর্থায়নে প্রায় ২০০ কোটি টাকা ব্যয়ে সব বিভাগীয় শহরে ফোর-জি সেবা চালু করার পরিকল্পনা হাতে নিয়েছে।’

তিনি বলেন, ‘গ্রাহকসংখ্যা বৃদ্ধিতে টেলিটকের নেটওয়ার্ক পরিধি বৃদ্ধির লক্ষ্যে ইতোমধ্যে দুটি প্রকল্প চলমান রয়েছে। এ দুটি প্রকল্প শেষ হলে উপজেলা পর্যায়ে নিরবচ্ছিন্ন তৃতীয় প্রজন্মের (থ্রিজি) নেটওয়ার্ক কভারেজ দেওয়া সম্ভব হবে।’

গত বছরের ডিসেম্বর পর্যন্ত দেশে থ্রিজি গ্রাহকসংখ্যা প্রায় ছয় কোটি চার লাখ ১৯ হাজার বলে জানিয়েছেন তথ্য প্রযুক্তিমন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার।

ফেসবুকের নতুন চমক 

ঘণ্টা, মিনিট, সেকেন্ডের মতো সময়ের নতুন আরেকটি একক খুঁজে নিয়েছে ফেসবুক। নতুন এককটির নাম দেওয়া হয়েছে ফ্লিক। বিবিসির এক প্রতিবেদনে বলা হয়, এটা ন্যানো সেকেন্ডের চেয়ে কিছুটা বড়।


১ সেকেন্ডের ৭০ কোটি ৫৬ লাখ ভাগের ১ ভাগকে ফ্লিক বলা হচ্ছে। অন্যদিকে ন্যানো সেকেন্ড হলো ১ সেকেন্ডের ১০০ কোটি ভাগের ১ ভাগ। কোড শেয়ারিং সাইট গিটহাব বলছে, সময়ের এ এককটি মূলত প্রোগ্রামারদের সুবিধার জন্য তৈরি করা হয়েছে।

ফ্লিক বিষয়ে ফেসবুক ওপেন সোর্সের এক টুইটার পোস্টে বলা হয়, আমরা সময়ের নতুন একক ফ্লিক উদ্বোধন করেছি। এটা ন্যানো সেকেন্ডের চেয়ে সামান্য বড়।

এদিকে সময়ের নতুন একক উদ্ভাবনের বিষয়ে অক্সফোর্ড ইউনিভার্সিটির গবেষকরা বলছেন, এটা সাধারণ মানুষের ওপর কোনও প্রভাব ফেলবে না। তবে ভার্চুয়াল রিয়েলিটির অভিজ্ঞতাকে আরও উন্নত পর্যায়ে নিয়ে যেতে পারে এই একক।

অন্য গবেষকরা বলছেন, চলচ্চিত্র, টেলিভিশন ও অন্যান্য গণমাধ্যমের ভিজ্যুয়াল ইফেক্ট তৈরিতে ফ্লিক কার্যকরী ভূমিকা পালন করবে। সব মিলিয়ে প্রোগ্রামিংয়ের সঙ্গে জড়িতদের জন্য এটা খুব উপকারে আসবে বলে মত দিয়েছেন তারা।

থাই স্টাইল মাশরুম স্যুপ 

স্যুপ কমবেশি সবারই পছন্দ। রেস্টুরেন্টের স্বাদে বাড়িতেই তৈরি করতে পারেন বিভিন্ন রকমের স্যুপ। আজকে আপনাদের জন্য থাই স্টাইল মাশরুম স্যুপ তৈরির পদ্ধতি তুলে ধরা হল।


এই স্যুপের জন্য প্রয়োজন রেড কারি পেস্ট। এজন্য প্রথমে রেড কারি পেস্ট বানাতে হবে:

উপকরণ


পেয়াঁজ কুচি ৪টি

বড় রসুন এর কোয়া ২টি

লেমন গ্রাস বা চায়না গ্রাস ৫টি স্টিক

পাকা লাল মরিচ ( শুকনা মরিচ না) ৮টি

ধনিয়া পাতা মিহি কুচি ১মুঠো

গুঁড়ো মরিচ ২ চা চামচ

আদা কুচি করা ১টি

লেবুর জেস্ট (লেবুর খোসা কুচি) ১টি

লেবুর পাতা ৩ -৪টি

 শুকনা চিংড়ি মাছের গুঁড়ো ২ টেবিল চামচ

হলুদ গুঁড়া ১ চা চামচ

তেল ২ টেবিল চামচ

উপকরণগুলো একসাথে ব্লেন্ডারে অল্প পানি দিয়ে ভালোভাবে ব্লেন্ড করে নিন। পেস্ট রেডি।

স্যুপ তৈরির পদ্ধতি

চিকেন/ভেজিটেবল স্টক ১ কাপ

চিকেন বা চিংড়ি সেদ্ধ করা ১/২ কাপ

বাটন মাশরুম(কুচি করা) ১ কাপ

টমেটো টুকরা আধা কাপ

নারকেল দুধ ১ কাপ

ধনিয়া পাতা কুচি

রসুন কুচি ১ চা চামচ

লেমন গ্রাস/থাই পাতা কয়েক টুকরা

রেড কারি পেস্ট ২ টেবিল চামচ

লেবুর রস ৩ টেবিল চামচ

লবণ স্বাদমতো
প্রস্তুত প্রণালি : সব উপকরণ একসঙ্গে হাঁড়িতে দিয়ে চুলায় অল্প আঁচে রান্না করুন ১৫ মিনিট। খাবার সময় খানিকটা ধনিয়া পাতা ছিটিয়ে দিন।

 ৯০তম অস্কারের চূড়ান্ত মনোনয়ন তালিকা

বিশ্ব চলচ্চিত্রের সবচেয়ে মর্যাদাপূর্ণ পুরস্কার অস্কারের ৯০তম আসরে সর্বাধিক ১৩টি বিভাগে মনোনয়ন পেলো গুইলারমো দেল তোরো পরিচালিত ‘দ্য শেপ অব ওয়াটার’। দ্বিতীয় সর্বাধিক ৮টি মনোনীত হয়েছে ক্রিস্টোফার নোলানের ‘ডানকার্ক’। সাতটি মনোনয়ন এসেছে ‘থ্রি বিলবোর্ডস আউটসাইড এবিং, মিসৌরি’র ঘরে।


মঙ্গলবার (২৩ জানুয়ারি) সন্ধ্যায় অ্যাকাডেমি অ্যাওয়ার্ডসের মনোনয়ন তালিকা প্রকাশিত হলো। ক্যালিফোর্নিয়ার বেভারলি হিলসের স্যামুয়েল গোল্ডউইন থিয়েটারে এ তালিকা ঘোষণা করেন ব্রিটিশ অভিনেতা অ্যান্ডি সার্কিস ও মার্কিন অভিনেত্রী টিফানি হ্যাডিশ। তাদের পরিচয় করিয়ে দেন অ্যাকাডেমি সভাপতি জন বেইলি।

প্রতি বছরের মতো এবারও সেরা ছবি, সেরা পরিচালক, সেরা অভিনয়শিল্পী, সেরা প্রামাণ্যচিত্রসহ ২৪টি বিভাগে পুরস্কার প্রদান করবে অ্যাকাডেমি অব মোশন পিকচার আর্টস অ্যান্ড সায়েন্সেস। এবারের অস্কারে সেরা ছবির বিভাগে মনোনয়ন পেয়েছে মোট ৯টি ছবি।

যুক্তরাষ্ট্রের লস অ্যাঞ্জেলসে হলিউড অ্যান্ড হাইল্যান্ড সেন্টারের ডলবি থিয়েটারে আগামী ৪ মার্চ অনুষ্ঠিত হবে ৯০তম অ্যাকাডেমি অ্যাওয়ার্ডস অনুষ্ঠান। এখানেই জমকালো আয়োজনে বিজয়ীদের নাম ঘোষণা ও পুরস্কার প্রদান করা হবে। এটি উপস্থাপনা করবেন জিমি কিমেল। এই আয়োজন এবিসি নেটওয়ার্কের মাধ্যমে সরাসরি সম্প্রচার করা হবে বিশ্বের ২২৫টিরও বেশি দেশে।


৯০তম অস্কারের পুরো মনোনয়ন তালিকা

ছবি : কল মি বাই ইউর নেম, ডার্কেস্ট আওয়ার, ডানকার্ক, গেট আউট, লেডি বার্ড, ফ্যান্টম থ্রেড, দ্য পোস্ট, দ্য শেপ অব ওয়াটার; থ্রি বিলবোর্ডস আউটসাইড এবিং, মিসৌরি

অভিনেত্রী : মেরিল স্ট্রিপ (দ্য পোস্ট), সারশা রোনান (লেডি বার্ড), মার্গট রবি (আই, টনিয়া), ফ্রান্সেস ম্যাকডোর্মেন্ড (থ্রি বিলবোর্ডস আউটসাইড এবিং, মিসৌরি), স্যালি হকিন্স (দ্য শেপ অব ওয়াটার)

অভিনেতা : টিমোথি শালামে (কল মি বাই ইউর নেম), ড্যানিয়েল ডে-লুইস (ফ্যান্টম থ্রেড), ড্যানিয়েল কালুইয়া (গেট আউট), গ্যারি ওল্ডম্যান (ডার্কেস্ট আওয়ার), ডেনজেল ওয়াশিংটন (রোমান জে ইসরায়েল, এস্ক)।

পার্শ্ব-অভিনেত্রী : মেরি জে. ব্লিজ (মাডবাউন্ড), অ্যালিসন জেনি (আই, টনিয়া), লেসলি ম্যানভিল (ফ্যান্টম থ্রেড), লরি মেটকাফ (লেডি বার্ড), অক্টাভিয়া স্পেন্সার (দ্য শেপ অব ওয়াটার)

পার্শ্ব-অভিনেতা : উইলেম ড্যাফো (দ্য ফ্লোরিডা প্রজেক্ট), উডি হ্যারেলসন (থ্রি বিলবোর্ডস আউটসাইড এবিং, মিসৌরি), রিচার্ড জেনকিন্স (দ্য শেপ অব ওয়াটার), ক্রিস্টোফার প্লামার (অল দ্য মানি ইন দ্য ওয়ার্ল্ড), স্যাম রকওয়েল (থ্রি বিলবোর্ডস আউটসাইড এবিং, মিসৌরি)

চলচ্চিত্র নির্মাতা: ক্রিস্টোফার নোলান (ডানকার্ক), জর্ডান পেলে (গেট আউট), গ্রেটা গারউইগ (লেডি বার্ড), পল থমাস অ্যান্ডারসন (ফ্যান্টম থ্রেড), গুইলারমো দেল তোরো (দ্য শেপ অব ওয়াটার)

চিত্রনাট্য (মৌলিক) : দ্য বিগ সিক, গেট আউট, লেডি বার্ড, দ্য শেপ অব ওয়াটার, থ্রি বিলবোর্ডস আউটসাইড এবিং, মিসৌরি

চিত্রনাট্য (অ্যাডাপ্টেড) : কল মি বাই ইউর নেম, দ্য ডিজাস্টার আর্টিস্ট, লগ্যান, মলি’স গেম, মাডবাউন্ড

বিদেশি ভাষার চলচ্চিত্র : অ্যা ফ্যান্টাস্টিক ওম্যান (চিলি), দ্য ইনসাল্ট (লেবানন), লাভলেস (রাশিয়া), অন বডি অ্যান্ড সৌল (হাঙ্গেরি), দ্য স্কয়ার (সুইডেন)।

অ্যানিমেটেড ছবি : দ্য বস বেবি, দ্য ব্রেডউইনার, কোকো, ফার্ডিন্যান্ড, লাভিং ভিনসেন্ট

স্বল্পদৈর্ঘ্য অ্যানিমেটেড ছবি: ডিয়ার বাস্কেটবল, গার্ডেন পার্টি, লু, নেগেটিভ স্পেস, রিভলটিং রাইমস

প্রামাণ্যচিত্র: অ্যাবাকাস, ফেসেস প্লেসেস, ইকারাস, লাস্ট মেন ইন আলেপ্পো, স্ট্রং আইল্যান্ড

স্বল্পদৈর্ঘ্য প্রামাণ্যচিত্র: এডিথ প্লাস এডি, হ্যাভেন ইজ অ্যা ট্রাফিক জ্যাম অন দ্য ৪০৫, হিরোইন, নাইফ স্কিলস, ট্রাফিক স্টপ

চিত্রগ্রহণ: ব্লেড রানার ২০৪৯, ডার্কেস্ট আওয়ার, ডানকার্ক, মাডবাউন্ড, দ্য শেপ অব ওয়াটার

রূপ ও চুলসজ্জা: ডার্কেস্ট আওয়ার, ভিক্টোরিয়া অ্যান্ড আবদুল, ওয়ান্ডার

মৌলিক সুর: ডানকার্ক, ফ্যান্টম থ্রেড, দ্য শেপ অব ওয়াটার, স্টার ওয়ারস: দ্য লাস্ট জেডাই, থ্রি বিলবোর্ডস আউটসাইড এবিং, মিসৌরি

মৌলিক গান : মাইটি রিভার (ম্যারি জে. ব্লিজ, ছবি: মাডবাউন্ড), দ্য মিস্টারি অব লাভ (সাফজ্যান স্টিভেন্স, ছবি: কল মি বাই ইউর নেম), রিমেম্বার মি (ক্রিস্টেন অ্যান্ডারসন লোপেজ ও রবার্ট লোপেজ, ছবি: কোকো), স্ট্যান্ড আপ ফর সামথিং (কমন, ডায়েন ওয়ারেন ও আন্ড্রা ডে, ছবি: মার্শাল), দিস ইজ মি (বেঞ্জি পাসেক ও জাস্টিন পল, ছবি: দ্য গ্রেটেস্ট শোম্যান)

সম্পাদনা : বেবি ড্রাইভার, ডানকার্ক; আই, টনিয়া; দ্য শেপ অব ওয়াটার, থ্রি বিলবোর্ডস আউটসাইড এবিং, মিসৌরি

শিল্প নির্দেশনা: বিউটি অ্যান্ড দ্য বিস্ট, ব্লেড রানার ২০৪৯, ডার্কেস্ট আওয়ার, ডানকার্ক, দ্য শেপ অব ওয়াটার

স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র: ডিক্যাল্ব এলিমেন্টারি, দ্য ইলেভেন ও’ক্লক, মাই নিফিউ ইমেট, দ্য সাইলেন্ট চাইল্ড, ওয়াটু ওট/অল অব আস

শব্দ সম্পাদনা: বেবি ড্রাইভার, ব্লেড রানার ২০৪৯, ডানকার্ক, দ্য শেপ অব ওয়াটার, স্টার ওয়ারস: দ্য লাস্ট জেডাই

শব্দমিশ্রণ: বেবি ড্রাইভার, ব্লেড রানার ২০৪৯, ডানকার্ক, দ্য শেপ অব ওয়াটার, স্টার ওয়ারস: দ্য লাস্ট জেডাই

ভিজ্যুয়াল ইফেক্টস : ব্লেড রানার ২০৪৯, গার্ডিয়ান অব দ্য গ্যালাক্সি ভলিউডম টু, কং: স্কাল আইল্যান্ড, স্টার ওয়ারস: দ্য লাস্ট জেডাই, ওয়ার ফর প্লানেট অব দ্য এপস

পোশাক পরিকল্পনা: বিউটি অ্যান্ড দ্য বিস্ট, ডার্কেস্ট আওয়ার, ফ্যান্টম থ্রেড, দ্য শেপ অব ওয়াটার, ভিক্টোরিয়া অ্যান্ড আবদুল

 বয়স বেড়েছে, কমেনি রূপের জৌলুস

খাদ্য গ্রহণে লাগামহীনতা, কাজের চাপ কিংবা বিষণ্নতায় ভুগে ‘কুড়িতেই বুড়ি’ হয়ে যায় অনেকে। কারো কারো ক্ষেত্রে ৩০ বা ৪০ বছরের পর থেকেই চেহারায় বার্ধক্যের স্পষ্ট ছাপ দেখা যায়। তবে নিয়মতান্ত্রিক জীবনযাপন ও যত্ন নিলে যে পরিণত বয়সেও নিজেকে রাখা যায় ঝরঝরে ও প্রাণবন্ত, তা-ই প্রমাণ করলেন ট্রিসিয়া কাসডেন। যুক্তরাজ্যের বাসিন্দা ৭০ বছর বয়সী এই নারী বার্ধক্যে এসেও চিরযৌবনা হওয়ার যে প্রয়াস চালিয়েছেন, তা সৌন্দর্যচর্চায় মনোযোগী অনেকের কাছেই দৃষ্টান্ত।


এ বয়সেও সৌন্দর্যচর্চায় মনোযোগী হওয়ার নেপথ্যের ঘটনা স্মরণ করে কাসডেন জানান, ৬৫ বছর বয়সে তিনি ১০০ ডলার (আট হাজার ৪০০ টাকা প্রায়) খরচ করছিলেন দাম মেকআপ কেনায়। কিন্তু সেসব পণ্য ব্যবহার করে দেখলেন, ত্বকে একেবারেই মানাচ্ছে না। এমনকি তাকে কম বয়সীও লাগছে না। বিরক্ত হলেন। অনুধাবন করলেন নিজেই এর চেয়ে ভালো কিছু করতে পারবেন তিনি। সেই আত্মবিশ্বাস থেকেই ২০১৩ সালে প্রতিষ্ঠা করেন  নিজ ওয়েবসাইট ‘লুক ফ্যাবুলাস ফরএভার’।

ওই ওয়েবসাইটে ট্রিসিয়ার তৈরি করা ভিডিও টিউটোরিয়ালগুলো ইতিমধ্যেই দেখেছেন ৪৪ লাখ মানুষ। আর তার তৈরি মেকআপ পণ্য বিক্রি করে অর্থ উপার্জিত হয়েছে ২০ লাখ ডলারের বেশি।

সৌন্দর্য নিয়ে উদ্যোগের বিষয়ে ট্রিসিয়া বলেন, 'আমি নারীদের মেনোপজকেই দোষারোপ করি। এই সময়ে নারীদের কিছু একটা হয়। কারণ ৫০ বছরের পর বেশির ভাগ নারী নিজেদের কম আকর্ষণীয় ও কম কর্মক্ষম মনে করেন। ...বয়স বৃদ্ধির প্রক্রিয়াকে স্বাগত জানানো উচিত সবার, নিজের মাঝে তারুণ্য ধরে রেখে সেইভাবেই জীবনযাপন করা উচিত।'

ট্রিসিয়ার মতে, সব প্রতিষ্ঠান মেকআপ পণ্য বিক্রয় করে থাকে দুই ধরনের নারীর জন্য। প্রথমত, যারা পুরুষের চোখে নিজেকে আকর্ষণীয় দেখাতে চান। দ্বিতীয়ত, একটি বিশেষ বয়সের নারী যারা ‘অ্যান্টি-এজিং’ পণ্যের খোঁজ করে থাকেন। কিন্তু ট্রিসিয়া চান ‘তৃতীয় ক্যাটাগরি’র মেকআপ পণ্য সবার কাছে উপস্থাপন করতে। এসব মেকআপ সামগ্রী ব্যবহারের উদ্দেশ্য উপরের কোনটিই হবে না। বরঞ্চ বয়সের সঙ্গে মানানসই সৌন্দর্য ধরে রাখা ও ফুটিয়ে তোলাই হবে এই পণ্য ব্যবহারের উদ্দেশ্য। 

ট্রিসিয়ার মতে, একটা নির্দিষ্ট বয়সের পর প্রতিটি নারীর কিছু ব্যাপার মেনে চলা উচিত। আবার কিছু ব্যাপার এড়িয়ে চলা দরকার। এতে করে নিজের  তারুণ্য ও বয়সজনিত সৌন্দর্য-উভয়ই ধরে রাখা সম্ভব হবে।

বিভিন্ন বয়সী নারীদের স্বাভাবিক সৌন্দর্য রক্ষায় ট্রিসিয়ার পরামর্শ 


লাল রঙের লিপস্টিক ব্যবহার করা

ট্রিসিয়ার মতে, লাল লিপস্টিক ব্যবহারে সৌন্দর্য ভালোভাবে ফুটে ওঠে। হালকা রুপালি চুলের সঙ্গে ঠোঁটের লাল রং খুব ভালো মানায় বলে মনে করেন তিনি। এতে করে একজন নারীকে আরো বেশি ব্যক্তিত্বসম্পন্ন ও সুন্দর লাগে। তিনি বলেন, ‘সবাই বলে বয়স বেড়ে গেলে লাল লিপস্টিক ব্যবহার করা যাবে না। এটা খুবই ভুল কথা।’

বয়সকে মেনে নেওয়া

বয়স বৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গে চামড়া কুঁচকে যাওয়া, চামড়া ঝুলে যাওয়া, চোখের নীচে ফুলে যাওয়ার মতো ব্যাপারগুলো একেবারেই সাধারণ। এতে  বিচলিত হওয়া যাবে না। জীবনের দীর্ঘ পথ পরিভ্রমণের ফলস্বরূপ চেহারায় তার ছাপ আসবেই। এই ব্যাপারটিকে স্বাভাবিকভাবে গ্রহণ করার মানসিকতা তৈরি করতে হবে।

মনোমুগ্ধকর পোশাক পরিধান করা

বয়স বেড়ে গেছে বলে যাচ্ছেতাই ধরনের পোশাক পরতে হবে-এমন কোন কথা নেই। নিজের পছন্দমতো রুচিসম্মত পোশাক নির্বাচন করতে হবে। যে পোশাক পরে স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করা যাবে এবং যে পোশাক মানিয়ে যাবে, তেমন পোশাকের ওপর গুরুত্ব দিতে হবে। পোশাক পরার সঙ্গে মনে রাখতে হবে নিজের মাঝে যেন আত্মবিশ্বাসও ফুটিয়ে তোলা যায়।

চুলের রং প্রাকৃতিক রাখা

চুল পেকে যাচ্ছে? কোনো চিন্তা নেই। চুল পেকে সুন্দর রুপালি বর্ণ ধারণ করে ফেললেও কৃত্রিম চুলের রং ব্যবহার করার প্রয়োজন নেই। কারণ বয়স বাড়ার ফলে চুলের রং হারানোর সঙ্গেই মুখের উজ্জ্বলতাও হারাতে থাকে। এতে করে মুখের ত্বক অনেকটা নিষ্প্রভ হয়ে ওঠে। এমন চেহারার সঙ্গে চুলের রং বিকট উজ্জ্বল হলে দেখতে খুব অদ্ভুত ও তুলনামূলক বেশি বয়স্ক মনে হয়। তাই চুলের স্বভাবিক ও প্রাকৃতিক রং ধরা রাখার ব্যাপারে ছাড় দেওয়া চলবে না।

যত ভ্রমণ, তত আনন্দ

পুরো জীবনে অনেক দুঃশ্চিন্তা, পরিকল্পনা করার পর শেষ বয়সের দিকে আসার পরে এই ব্যাপারগুলো মাথা থেকে ঝেড়ে ফেলে দিতে হবে। এই সময়ে যতটা আনন্দে থাকা সম্ভব হবে, ততই ভালোভাবে বেঁচে থাকা যাবে। নতুন বন্ধু বানানোর জন্য চেষ্টা করা, নতুন কোনো শখের কাজ খুঁজে বের করা, নতুন কোনো দক্ষতা অর্জন করা এবং সবশেষে নতুন স্থানে ভ্রমণ করার চেষ্টা করতে হবে।


নির্দিষ্ট বয়সের পর যে কাজগুলো প্রতিটি নারীর এড়িয়ে চলা উচিত

চলতি ফ্যাশন সম্পর্কে অজ্ঞতা

ফ্যাশনের ধারণা প্রতিনিয়ত পরিবর্তনশীল। বয়স বেড়ে গেছে বলেই বর্তমান সময়ের ফ্যাশন সম্পর্কে কোনো ধারণা রাখার প্রয়োজন নেই- এমনটা ভাবার কোন কারণ নেই। বরঞ্চ ফ্যাশনের পাশাপাশি লাইফস্টাইল ও নিজের ব্যক্তিত্বের ব্যাপারেও সমান জোর দেওয়া প্রয়োজন।

রাগী মানুষ হওয়া থেকে বিরত থাকা

বয়স বাড়ার সঙ্গে সঙ্গেই কিছু নারী অকারণেই রাগী হয়ে ওঠেন। তুচ্ছ ব্যাপারেও খিটিমিটি করে থাকেন। এই বদভ্যাসটি বদলানোর চেষ্টা করতে হবে। সব সময় চারপাশের সব কিছু নিয়ে অভিযোগ করার পরিবর্তে নিজেকে মানিয়ে নিতে হবে।

অলসতা ঝেড়ে ফেলা

একটা নির্দিষ্ট বয়সের পর জীবনে ক্রমশ অলসতা বাড়ে। কিন্তু চেষ্টা করতে হবে এই অলসতাকে ঝেড়ে ফেলে যথাসম্ভব কর্মক্ষম হওয়ার। যন্ত্রের ব্যবহার ছাড়া (ফ্রি হ্যান্ড) শরীর চর্চার কৌশলগুলো রপ্ত করার চেষ্টা করতে হবে।

কোনো অনুশোচনা না রাখা

একবার ভাবুন যে আপনি মৃত্যুশয্যায় শুয়ে আছেন। এমন অবস্থায় আপনার মনে নিশ্চয় কোনো অনুশোচনা কাজ করবে না। যা কাজ করবে, সেটা হলো, আরও একটা দিন বেশি বাঁচার ইচ্ছা। তাই অতীত জীবনের কোনো অনুশোচনাকে মনে রেখে না দিয়ে প্রতিটি দিন আনন্দ নিয়ে বাঁচার চেষ্টা করতে হবে।

তোমাদের স্বপ্ন পূরণের হাতিয়ার হব: মোস্তাফা জব্বার 

সৃজনশীল ও বিজ্ঞান বিষয়ক প্রকল্প বাস্তবায়নের স্বপ্ন যারা দেখেন, তাদের স্বপ্ন পূরণে হাতিয়ার হিসেবে কাজ করবেন বলে জানিয়েছেন ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্য-প্রযুক্তি মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার।


২৩ জানুয়ারি মঙ্গলবার ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটিতে আয়োজিত ‘বিজ্ঞান উদ্ভাবন মেলা ২০১৭-১৮’-এর সমাপনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

মোস্তাফা জব্বার বলেন, ‘তোমাদের চিন্তা-ভাবনাগুলোকে যারা বাস্তবায়িত করতে চাও, তাদের জন্য বাড়তি সুবিধা আছে। প্রধানমন্ত্রী তাদের জন্য টাকা বরাদ্দ করে রেখে দিয়েছেন। আমার কেবলমাত্র খুঁজে বের করা দরকার কে কে সৃজনশীল আছ, কে কে প্রকল্প বাস্তবায়ন বা স্বপ্ন পূরণ করতে চাও; আমি তোমাদের স্বপ্ন পূরণের হাতিয়ার হব।’

‘আমরা যাদেরকে কেবলমাত্র কেরানী বানানোর জন্য শিক্ষা দিতাম, তাদেরকে নলেজ ওয়ার্কার বানাতে হবে। জ্ঞানভিত্তিক সমাজ অথবা নলেজ ওয়ার্কার বৃদ্ধির মূলে রয়েছে সৃজনশীলতা। আর সবসময়ই প্রতিটি ক্ষেত্রে সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দেওয়া হয় উদ্ভাবন ও সৃজনশীলতাকে’, যোগ করেন তিনি।

একসময় দেশ প্রযুক্তিতে পিছিয়ে ছিল উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, ‘আমাদের দেশ ছিল কৃষিপ্রধান দেশ। প্রযুক্তিতে একদম পিছিয়ে ছিলাম আমরা। প্রযুক্তি ৩২৪ বছর পর বাংলাদেশ সীমান্তে এসে পৌঁছেছে। একবার হ্যানরি কিসিঞ্জার বাংলাদেশকে তলাহীন ঝুড়ির সঙ্গে তুলনা করেছিলেন। কিন্তু এখন বাংলাদেশ তলাহীন ঝুড়ির দেশ নয়।’

 অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ ফ্রিডম ফাউন্ডেশনের ট্রাস্টি ড. রেজাউল রহমান, অধ্যাপক জেবা ইসলাম, ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির ট্রাস্টি বোর্ডের চেয়ারম্যান মো. সবুর খান।

অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ ফ্রিডম ফাউন্ডেশনের সিইও সাজ্জাদুল ইসলাম।

অটোরিকশার রাইড শেয়ারিং অ্যাপ ‘হ্যালো’ 

রাজধানীতে পরীক্ষামূলকভাবে চালু করা হয়েছে সিএনজি চালিত অটোরিকশার রাইড শেয়ারিং অ্যাপ ‘হ্যালো’।


মঙ্গলবার (১৬ জানুয়ারি) দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবের কনফারেন্স লাউঞ্জে এক সংবাদ সম্মেলনে ‘হ্যালো’ অ্যাপসটি চালুর ঘোষণা দেয় অ্যাপ পরিচালনা প্রতিষ্ঠান টপ আই আই।

ঢাকা মহানগর সিএনজি অটোরিকশা ব্যবসায়িক মালিক সমিতি ঐক্য পরিষদ এবং ঢাকা জেলা সিএনজি অটোরিকশা শ্রমিক ঐক্য পরিষদের সহযোগিতায় ‘হ্যালো’ অ্যাপ উন্মুক্ত করেছে প্রতিষ্ঠানটি।

প্রতিষ্ঠানটির কমিউনিকেশনস ডিরেক্টর রোকেয়া প্রাচী জানান, এখন থেকে অ্যান্ড্রয়েড এবং আইওএস মোবাইল ফোন ব্যবহারকারীরা গুগল প্লে-স্টোর এবং অ্যাপল স্টোর থেকে ‘হ্যালো’ অ্যাপটি ডাউনলোড করতে পারবেন। এছাড়া যাত্রী ও চালক এই অ্যাপ ব্যবহার করে রেজিস্ট্রেশন করতে পারবেন।

নিরাপদ সেবা দিতে আগামী ২৮ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত এই সার্ভিসটি পরীক্ষামূলকভাবে চলবে। এর মধ্যে দিয়ে অভিজ্ঞতাগুলো কাজে লাগিয়ে আগামী ১ মার্চ থেকে ‘হ্যালো’ রাইড শেয়ারিং সার্ভিস আনুষ্ঠানিকভাবে যাত্রা শুরু করবে বলেও জানান তিনি।

রোকেয়া প্রাচী বলেন, ইতোমধ্যে ৫০০ সিএনজি চালককে শুদ্ধাচার বিষয়ে প্রশিক্ষণ দিয়েছেন। সিএনজি অটোরিকশা রাইড শেয়ারিং সার্ভিস নীতিমালার আওতাভুক্ত নয় তাই তাদের সার্ভিস চলবে সিএনজি-পেট্রোলচালিত ফোর স্ট্রোক থ্রি হুইলার সার্ভিস নীতিমালা অনুসারে। সিএনজি মিটারের ভাড়া অনুযায়ী অ্যাপে ভাড়া নির্ধারণ করা হয়েছে।

সংবাদ সম্মলেন ঢাকা মহানগর সিএনজি অটোরিকশা ব্যবসায়িক মালিক সমিতি ঐক্য পরিষদ, ঢাকা জেলা সিএনজি অটোরিকশা শ্রমিক ঐক্য পরিষদের নেতাসহ টপ আই আই'র ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

রেসিপি: বেকড রেড সস পাস্তা 

মজাদার রেড সস পাস্তা বানিয়ে ফেলতে পারেন বেক করে। খুব কম সময়েই তৈরি করতে পারবেন সুস্বাদু এই পাস্তা। জেনে নিন কীভাবে।


উপকরণ


২ কাপ সেদ্ধ পাস্তা
৪টি কাঁচামরিচ
১ চা চামচ লেবুর রস
স্বাদ মতো চিনি
স্বাদ মতো লবণ
পরিমাণ মতো পানি 
২ টেবিল চামচ রেড চিলি সস
২ টেবিল চামচ মাখন
৪ টেবিল চামচ টমেটো সস
১ চা চামচ গোলমরিচ গুঁড়া
৪ টেবিল চামচ সুজি
পরিমাণ মতো তেল
আধা কাপ পেঁয়াজ
২টি টমেটো
আধা কাপ মোজারেলা চিজ
৪ কাপ টমেটোর শাঁস

প্রস্তুত প্রণালি

একটি ছোট বাটিতে লবণ, গোলমরিচ গুঁড়া, রেড চিলি সস ও টমেটোর শাঁস একসঙ্গে মেশান। প্যানে তেল গরম করুন। পেঁয়াজ কুচি দিয়ে অল্প আঁচে নাড়তে থাকুন। বাদামি হয়ে গেলে সুজি দিয়ে কয়েক মিনিট নাড়ুন। এবার সসের মিশ্রণ দিয়ে নাড়তে থাকুন। পানি দিয়ে মিশ্রণটি সামান্য পাতলা করুন। ফুটে উঠলে সেদ্ধ করে রাখা পাস্তা দিয়ে কম আঁচে কিছুক্ষণ রান্না করুন। চিনি, লেবুর রস, মোজারেলা চিজ ও টমেটো সস দিন। পাস্তার মিশ্রণ বেকিং ডিশে দিয়ে বেক করুন ১৫ মিনিট। কাঁচামরিচ কুচি অথবা পনিরের টুকরো ছিটিয়ে গরম গরম পরিবেশন করুন পাস্তা।

মিষ্টিমুখে আফগানি ‘মালিদা’ 

মিষ্টি জাতীয় খাবার যারা পছলদ করেন তারা কতো কিছু দিয়ে না মিষ্টি খাবার তৈরি করে থাকেন। আর নতুন নতুন ডিস পেলেই তারা ঝাঁপিয়ে পরেন। দেশ বিদেশের কতো রকমের মিষ্টিই তো খেয়েছেন তো আপনার লিস্ট থেকে আফগানিস্তানের ট্র্যাডিশনাল মিষ্টি ‘মালিদা’ কেনো বাদ যাবে। ঘরে তৈরি রুটি দিয়েই তৈরি করা হয় এই রুটি। তাহলে বুঝতেই পারছেন কতো সহজে আর কম খরচেই তৈরি করে ফেলতে পারবেন এই রুটি। আসুন তাহলে জেনে নেই আফগানিস্তানের ট্র্যাডিশনাল মিষ্টি ‘মালিদা’ মালিদা তৈরির রেসেপি।


উপকরণ:


মাঝারি আকারের আটার রুটি ৮ টি,
গুঁড় (কুচি করে কাটা) ১/৪ কাপ,
এলাচ গুঁড়ো ১/২ চা চামচ,
বাদাম ১/২ কাপ,
খেজুর কুচি করে কাটা ১/৪ কাপ,
ঘি ২ টেবিল চামচ।

প্রণালি:


প্রথমে রুটিগুলো ভালো করে হাতে ছিঁড়ে ছোটো ছোটো পিস করে নিন।

এরপর একটি গ্রাইন্ডার বা ফুড প্রসেসরে দিয়ে রুটি আরও ছোটো করে গুঁড়ো ধরণের করে নিন। এতে প্রায় ৩ কাপ পরিমাণ রুটি হবে।

এরপর বাদাম গ্রাইন্ডারে দিয়ে ভেঙে নিন। চাইলে হামান দিস্তায় পিসে গুঁড়ো করে নিতে পারেন। খুব বড় হবে না আবার মিহি করেও ভেঙে নিতে হবে না।

একটি বড় বাটিতে বাদামগুঁড়ো, খেজুর কুচি, এলাচ গুঁড়ো এবং গুঁড় খুব ভালো করে নেড়ে মিশিয়ে নিন এবং আলাদা করে রাখুন।

এবার একটি প্যানে অল্প আঁচে ঘি গলিয়ে নিন এবং অল্প গরম হলেই প্রসেস করে রাখা রুটি দিয়ে ভালো করে ভাজতে থাকুন। রুটিগুলো প্রায় ৫-৭ মিনিট ভাজুন। এতে করে রুটির গুঁড়ো একটু মুচমুচে হবে।

ভাজা হয়ে গেলে এবার বড় বাটিতে রাখা বাদাম গুঁড়ের মিশ্রণে রুটির মিশ্রণ দিয়ে দিন এবং হাত দিয়ে ভালো করে মেখে নিন। যখন মিশ্রণ একটু ভেজা ভেজা হয়ে যাবে গুঁড়ের কারণে এবং আঠালো নরম ডো এর মতো তৈরি হবে তখন ছোটো ছোটো ভাগে ভাগ করে লাড্ডুর মতো বল তৈরি করুন।

একটির পর একটি বল তৈরি করে রেখে দিন। কিছুক্ষণ পড়েই নরম ভাব কেটে দিয়ে একটু শক্ত লাড্ডুর মতো তৈরি হয়ে যাবে। উপরে কাজু বাদাম দিয়ে সাজিয়ে পরিবেশন করুন।

আমিরের সাবেক ও বর্তমান স্ত্রী মুখোমুখি! 

কোনও লোকের সাবেক ও বর্তমান স্ত্রী সাধারণত একজন অন্যজনের ছায়াও মাড়ান না। বলিউড সুপারস্টার আমির খানের সাবেক স্ত্রী রিনা দত্ত ও বর্তমান স্ত্রী কিরণ রাওকে নিয়েও হয়তো অনেকের এমন ধারণা। কিন্তু সব ভুল প্রমাণ করলেন তারা।


ঝগড়া নয়। মনোমালিন্যও নয়। বরং হাস্যোজ্জ্বল সময় কাটালেন রিনা ও কিরণ। আমিরের ‘সত্যমেভ জয়তে’ অনুষ্ঠানের অংশ হিসেবে ভারতের পানি ফাউন্ডেশনের একটি অনুষ্ঠানে জমিয়ে আড্ডা দিয়েছেন তারা।

অনুষ্ঠানে যে দেখা হবে তা আগে থেকেই জানতেন রিনা ও কিরণ। দেখা হতেই তারা একে অপরকে শুভেচ্ছা জানান। কুশল বিনিময় করেন। আলোকচিত্রীদের সামনেও দাঁড়িয়েছেন মুখে হাসি রেখে। ফাঁকে ফাঁকে চলছিল তাদের খোশগল্প।
এ সময় আমিরের সাবেক ও বর্তমান স্ত্রীর মধ্যে পারস্পরিক সৌহার্দ্য দেখে খুশি হন উপস্থিত সবাই। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, তাদের একে অপরের প্রতি বিন্দুমাত্র অসম্মান চোখে পড়েনি কারও। রিনা ও কিরণকে নিয়ে একই বাসনে একসঙ্গে খেয়েছেন আমির! তখন তিন জনকেই দারুণ লেগেছে।

‘লগান’ ছবির শুটিংয়ে কিরণ রাওয়ের সঙ্গে আমিরের সখ্য গড়ে ওঠে। এ কারণে রিনা দত্ত ও তার বিয়েবিচ্ছেদ হয়। এরপর কিরণের সঙ্গে ঘর বাঁধেন তিনি।

 

আমির ও রিনার সংসারে আছে এক ছেলে ও এক মেয়ে। তারা হলো ইরা ও জুনায়েদ। কিরণকে বিয়ের পর এক ছেলের বাবা হন আমির। তার নাম আজাদ রাও।

আমির এখন ‘থাগস অব হিন্দুস্তান’ ছবির কাজ নিয়ে ব্যস্ত। এতে তার বিপরীতে থাকছেন ক্যাটরিনা কাইফ ও ফাতিমা সানা শেখ। এছাড়াও আছেন অমিতাভ বচ্চন।

 

হলিউডের ক্লাসিক্যাল এই নায়িকাকে চেনেন অনেকেই। ২০১১ সালে মৃত্যুবরণ করা এই আইকন তার চোখ ধাঁধানো রূপ এবং অনন্য অভিনয় প্রতিভার বলে স্থান করে নেন অগণিত ভক্তের হৃদয়ে।


লন্ডনে জন্ম নেওয়া এলিজাবেথ টেইলরের ক্যারিয়ারের শুরু হয় ১৯৪০ দশকের দিকে। তরুণ বয়সেই তিনি জনপ্রিয় হয়ে ওঠেন। তবে কিছু সিনেমায় এমন সব চরিত্রে তাকে কাজ করতে হয় যার কারণে অভিনয়ের ওপরে তার বিতৃষ্ণা চলে আসে। ১৯৫০ সালের দিকে তিনি অভিনয় জগতকে বিদায় জানাতে চেয়েছিলেন।

তবে ১৯৫০ দশকের মাঝামাঝি দিকে তিনি নিজের পছন্দের কিছু চরিত্রে কাজ করার সুযোগ পান। কখনোই অভিনয়ের ক্ষেত্রে প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা পাননি তিনি। তার প্রতিভা ছিল পুরোপুরিই নিজস্ব। চরিত্রের সাথে মিশে গিয়ে অভিনয়ে তা তুলে ধরতেন তিনি।

তার এই অভিনয়ের প্রতিভা এবং রূপ- দুটোই তাকে বিখ্যাত করে তোলায় কাজ করে। অনেকেই বলেন, অন্যদের চাইতে তিনি আলাদা ছিলেন তার অসাধারণ চোখ জোড়ার কারণে। কিন্তু তার চোখ অন্যদের চাইতে আলাদা হবার কারণ ছিল দুর্লভ একটি জেনেটিক মিউটেশন। এর কারণে তার চোখে এক জোড়ার পরিবর্তে দুই জোড়া পাপড়ি ছিল বলে মনে হয়। এতে মনে হয় ঘন পাপড়িতে ঢেকে আছে চোখজোড়া। এটা আসলে একটি জেনেটিক মিউটেশন যার নাম হলো ‘ডাইস্টিকিয়া’। এতে অস্বাভাবিক একটি অবস্থান থেকে চোখের পাপড়ি গজায়। 


এই পাপড়ির কারণে তাকে দেখে মনে হত তিনি চোখে মাশকারা দিয়ে আছেন। নয় বছর বয়সে ‘ল্যাসি কাম হোম’ সিনেমায় অভিনয় করার সময় সবাই ভেবেছিলেন তার চোখে মেকআপ করা। সেট থেকে তাকে সরিয়ে ভেজা কাপড় দিয়ে তার মুখ মুছে দেওয়া হয়। এর পর আবিষ্কার করা হয় আসলে মাশকারা ছাড়াই তার চোখের পাপড়ি এমন অস্বাভাবিক সুন্দর।

শুধু এই একটি নয়, আপনি শুনলে অবাক হবেন এই অভিনেত্রীর ছিল আরো অনেকগুলো শারীরিক সমস্যা। জন্ম থেকেই স্কোলিওসিসের সমস্যা ছিল তার। ‘ন্যাশনাল ভেলভেট’ সিনেমাটি শুট করার সময়ে এর কারণে তার ঘাড় ভেঙে যায়। এ সময়েই আবার তিনি প্রবল নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত হন। পিঠের সমস্যার কারণ একাধিক অস্ত্রোপচারের মধ্যে দিয়ে যান তিনি। ফলে একটা সময়ে তিনি অ্যালকোহল এবং ওষুধের ওপর নির্ভরশীল হয়ে পড়েন। একটা সময়ে প্রচুর ধূমপান করলেও নিউমোনিয়ার পর তা ছেড়ে দিতে বাধ্য হন তিনি।

অনেক তারকাই নিজের অসুস্থতা বা আসক্তির ব্যাপারে মুখ খুলতে চান না, বরং সবার থেকে আড়াল করে রাখতে চান এসব ব্যাপার। কিন্তু  টেইলর এসব ব্যাপার সবার সামনেই খুলে বলেন এবং ক্লিনিকাল থেরাপি নিতেও পিছ-পা হন না। ১৯৮৪ সালে আসক্তির চিকিৎসা শুরু করেন তিনি এবং বছর চারেক পর রিহ্যাবিলিটেশন শুরু করেন।

বিভিন্ন অসুস্থতার পাশাপাশি নিজের ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখা নিয়েও তিনি বেশ কঠিন সময় পার করেন। পরবর্তীতে তিনি  ‘এলিজাবেথ টেকস অফ’ নামের একটি বইতে তার অভিজ্ঞতার কথা জানান। এইচআইভি এইডসের ব্যাপারে সচেতনতা তৈরির ক্ষেত্রেও তিনি ছিলেন সোচ্চার। ১৯৯১ সালে তিনি এলিজাবেথ টেইলর এইডস ফাউণ্ডেশন প্রতিষ্ঠা করেন।

২০০০ সালের পর তাকে জনসম্মুখে কমই আসতে দেখা যায়। কনজেসটিভ হার্ট ফেইলিওরের কারণে ২০১১ সালে মৃত্যুবরণ করেন তিনি। যার জীবন ছিল এতটাই বর্ণীল, মৃত্যুর পরেও তিনি কিছুটা চমক রেখে যাবেন, এটাই স্বাভাবিক। তার ব্যাপারে একটি দুর্নাম ছিল, তিনি কখনোই সময়ানুবর্তী ছিলেন না, সব কাজেই দেরি করে দেখা দিতেন তিনি। মৃত্যুর আগে তিনি এই একই ধারা বজায় রাখার ইচ্ছে প্রকাশ করেছিলেন। আর তাই নিজের অন্ত্যস্টিক্রিয়াও শুরু হয় ১৫ মিনিট দেরি করে, অর্থাৎ নিজের ফিউনারেলেও দেরি করে এসেছিলেন এলিজাবেথ টেইলর।

ডিজনি ছাড়ছেন ফেসবুক, টুইটারের দুই কর্মকর্তা 

সোশ্যাল মিডিয়া জায়ান্ট ফেসবুক এর প্রধান পরিচালন কর্মকর্তা শেরিল স্যান্ডবার্গ ও টুইটার এর প্রধান নির্বাহী জ্যাক ডরসি ওয়াল্ট ডিজনি'র পরিচালনা পর্ষদের নির্বাচনে আর অংশ নেবেন না।


ডিজনির পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠানগুলো আর এই মিডিয়া জায়ান্ট ডিজনির মধ্যে একাধিক ক্ষেত্রে প্রতিদ্বন্দ্বিতার কারণে এমনটা হচ্ছে।

১২ জানুয়ারি শুক্রবার রয়টার্সের খবরে একথা জানানো হয়।

প্রচলিত কেবল সেবা থেকে বেরিয়ে এসে ডিজনি তাদের টিভি অনুষ্ঠানের অনলাইন সম্প্রচারের দিকে ঝুঁকছে। এই প্রেক্ষাপট থেকে এক পর্যায়ে প্রতিষ্ঠানটি টুইটার কে কিনতে আগ্রহ দেখিয়েছিল। অন্যদিকে এই একই সময়ে টুইটার আর ফেসবুক তাদের প্লাটফর্মে ভিডিও কনটেন্টে আরও বেশি দর্শক আকর্ষণের চেষ্টা চালাচ্ছে।

ডিজনি এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, আমাদের ব্যবসা আর স্যান্ডবার্গ ও ডরসির ব্যবসায়ে প্রতিনিয়ত পরিবর্তনশীল অবস্থার কারণে পরিচালনা পর্ষদের বিভিন্ন বিষয়ে দ্বন্দ্ব এড়ানো তাদের জন্য ক্রমেই কঠিন হয়ে পড়ছে। আর এ কারণে তারা পুনঃনির্বাচনে দাঁড়াবেন না।

চলতি বছর মার্চে ডিজনির বার্ষিক সভায় এই প্রস্তাব কার্যকর হবে। সভায় শেয়ারধারীদেরকে ১০ জন পরিচালনা পর্ষদ সদস্য নির্বাচিত করার আহ্বান জানানো হবে। এদের মধ্যে রয়েছেন জেনারেল মটরস এর প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ম্যারি বারা, নাইকি'র প্রধান নির্বাহী মার্ক পার্কার ও ওরাকল প্রধান নির্বাহী সাফরা কাটজ।

ফেসবুক বা টুইটার কেউই এবিষয়ে এখন পর্যন্ত কোনো মন্তব্য করেনি।

 

চতুর্থ প্রজন্মের (ফোর-জি) ইন্টারনেট সেবার জন্য পাঁচটি মোবাইল ফোন অপারেটর আবেদন করেছে বলে জানিয়েছে বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন (বিটিআরসি)।



রোববার (১৪ জানুয়ারি) বিকেলে রমনায় বিটিআরসি ভবনে সংবাদ সম্মেলনে সংস্থার চেয়ারম্যান ড. শাহজাহান মাহমুদ একথা জানান।

তিনি বলেন, আমরা অত্যন্ত আনন্দের সঙ্গে জানাচ্ছি, আজকে বাংলাদেশ টেলিকমিউনিকেশন জগতে একটি নতুন দিনের সূচনা হলো। শেষ পর্যন্ত ফোর-জি বা এলটি সেবা শুরু করতে যাচ্ছি। লাইসেন্সের জন্য শেষ সময় (রোববার) বেলা ১২টা পর্যন্ত পাঁচটি অপারেটরের কাছ থেকে আবেদন পাওয়া গেছে।

ফোর-জি সেবা দেওয়ার জন্য টেলিটক বাংলাদেশ লিমিটেড, প্যাসিফিক বাংলাদেশ টেলিকম (সিটিসেল) লি., বাংলালিংক, গ্রামীণফোন ও রবি আজিয়াটা লিমিটেড আবেদন জমা দিয়েছে। আর তরঙ্গ নিলামের জন্য বাংলালিংক, গ্রামীণফোন, রবি ও সিটিসেল আবেদন করেছে।

সিটিসেলের নিলামে অংশগ্রহণের বিষয়ে বিটিআরসি জানায়, বকেয়া বেশিরভাগ দিয়েছে। তরঙ্গ গ্রহণের পর তাদেরকে ফোর-জি লাইসেন্স নিতে হবে।

নিলামের জন্য বেস্ট প্রাইস হিসেবে ২১০০ মেগাহার্টজে প্রতি মেগাহার্টজের জন্য ধরা হয়েছে ২৭ মিলিয়ন মার্কিন ডলার এবং ১৮০০ ও ৯০০ মেগাহার্টজের জন্য ধরা হয়েছে ৩০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার। এখান থেকে নিলাম শুরু হবে। 

পৃথক কমিটি আবেদন মূল্যায়ন করে আগামী ২৩ জানুয়ারি কমিশনের কাছে প্রতিবেদন দাখিল করবে জানিয়ে চেয়ারম্যান বলেন, সেই সুপারিশ পরবর্তীতে ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগে পাঠানো হবে।

তবে বিদেশি কোনো প্রতিষ্ঠান চাইলে এখনও আবেদন করতে পারবে জানিয়ে বিটিআরসি চেয়ারম্যান বলেন, দু’টি প্রতিষ্ঠান এসেছিলো, কিন্তু তার আর উত্তর পাওয়া যায়নি। আগামী মার্চের মধ্যে ফোর-জি সেবা চালু করা সম্ভব হবে বলেও আশা প্রকাশ করেন চেয়ারম্যান।

তিন ধরনের তরঙ্গের জন্য নিলাম করা হবে জানিয়ে বিটিআরসি চেয়ারম্যান বলেন, ২১০০ মেগাহার্টজ, ১৮০০ মেগাহার্টজ এবং ৯০০ মেগাহার্টজের জন্য নিলাম হবে।

বর্তমানে টুজি সেবা ৯০০ মেগাহার্টজ ও ১৮০০ মেগাহার্টজে দেওয়া হয় জানিয়ে তিনি বলেন, থ্রিজি সেবা ২১০০ মেগাহার্টজে দেওয়া হয়। ২১০০ মেগাহার্টজে যে থ্রিজি সেবা দেওয়া হয় সেখানে প্রযুক্তি নিরপেক্ষতা দেওয়া আছে। অর্থাৎ এই তরঙ্গে ফোরজি, টুজি সেবাও দিতে

 জেগো দিল বিশাল, হেগো বাড়ি বরিশাল’- বরিশালের বিখ্যাত এই উক্তি সাঁটানো দেয়ালে। শুধু বরিশাল নয়; চিটাগাং, সিলেট, ঢাকা, নোয়াখালী, বগুড়াসহ দেশের বিভিন্ন অঞ্চলের জনপ্রিয় সব বাণীতে সাজানো সবকটি দেয়াল। বাণীগুলো পড়তে পড়তেই সব অঞ্চলের বিখ্যাত ও মজাদার খাবার চেখে দেখতে পারবেন এখানে। বলছি আঞ্চলিক খানার কথা।


ধানমন্ডির শংকর বাসস্ট্যান্ডের ভেতর দিয়ে এগিয়ে হাতের বামে গেলেই দেখা মিলবে আলী হোসেন স্কুলের। সেটা পেরিয়ে আরেকটু সামনে আঞ্চলিক খানা রেস্টুরেন্টটি। চুইঝাল খেতে খুলনা না গিয়ে ধানমন্ডির শংকরে চলে যেতে পারেন! সিলেটের স্পেশাল সাতকড়ায় গরু ভুনার দেখাও মিলবে এখানে। রয়েছে কুমিল্লার রসমালাই ও কুষ্টিয়ার বিখ্যাত কুলফি মালাই। অঞ্চলভেদে বিখ্যাত সব খাবার দিয়ে সাজানো আঞ্চলিক খানার ফুড মেন্যু।


আঞ্চলিক খানার স্বত্বাধিকারী রোমিও স্কান্দার জানালেন, ঘুরতে ও খেতে ভালোবাসেন তিনি। ফলে বাংলাদেশের বিভিন্ন অঞ্চলে যেমন যাওয়া হয়েছে, তেমনি প্রতিটি অঞ্চলের বিখ্যাত সব খাবারের স্বাদও নেওয়া হয়েছে। জানান, একবার শুধু খুলনা গিয়েছিলেন চুই বিফ খাওয়ার জন্য! পরবর্তীতে বাংলাদেশের বিভিন্ন অঞ্চলের বিখ্যাত সব খাবার একই ছাদের নিচে নিয়ে আসার ইচ্ছে থেকেই শুরু করেন আঞ্চলিক খানার কার্যক্রম। ব্যতিক্রমী কনসেপ্ট, খাবারের চমৎকার স্বাদ ও হাতের নাগালে থাকা দামের কারণে ভোজনরসিকদের পছন্দের তালিকায় জায়গা করে নেয় আঞ্চলিক খানা। রোমিও জানান, চলতি মাসেই আঞ্চলিক খানা পথচলার এক বছর পূর্ণ করলো।

পছন্দের খাবার অর্ডার করলেই মাটির সরায় চলে আসবে খাবার। আঞ্চলিক খানায় রয়েছে ঢাকার স্পেশাল মটকি বিরিয়ানি, নোয়াখালীর স্পেশাল শসা নারকেলে চিংড়ি ও ছোট মাছের মরিচ খোলা, চট্টগ্রামের মেজবান মাংস ও কালাভুনা, খুলনার স্পেশাল চুই বিফ ও চিকেন, সিলেটের বিখ্যাত সাতকড়ায় মাংস এবং আদিবাসী স্পেশাল ব্যাম্বু বিরিয়ানি।

আরও পাবেন থানকুনি পাতা ভর্তা, লোনা ইলিশ ভর্তা, চেপা শুটকি ভর্তা, কলার মোচা ভাজা, কচুর শাক দিয়ে ইলিশের মাথা ভুনাসহ আরও অনেক আইটেম। খাবারের শেষে ডেসার্ট হিসেবে খেতে পারেন কুমিল্লার বিখ্যাত রসমালাই অথবা কুষ্টিয়ার কুলফি মালাই। রয়েছে সুস্বাদু ডাবের লাচ্ছি।

বিখ্যাত উক্তি দিয়ে রেস্টুরেন্ট সাজানোর আইডিয়া সম্পর্কে জানতে চাইলে রোমিও জানালেন, দেশের প্রতিটি অঞ্চলেই রয়েছে ভিন্ন ভিন্ন প্রচলিত বচন। নিজ এলাকার বিখ্যাত খাবারের পাশাপাশি এসব বাণীর সঙ্গেও জড়িয়ে আছে স্থানীয়দের আবেগ ও ভালোবাসা। যেমন ‘জেগো দিল বিশাল, হেগো বাড়ি বরিশাল’ এই একটি কথা দিয়েই যেন বরিশালের অধিবাসীরা প্রকাশ করতে পারে নিজেদের পরিচয়। এই আবেগের জায়গা থেকেই অঞ্চলভেদে বিখ্যাত সব খাবারের স্বাদ তুলে আনার পাশাপাশি স্থানীয় উক্তিগুলো যোগাড় করে রেস্টুরেন্ট সাজিয়েছে আঞ্চলিক খানা। এখানে খেতে এসে সবাই চেষ্টা করেন নিজের এলাকার প্রচলিত বাণীটি খুঁজে বের করতে। অনেকে তো নিজ অঞ্চলের বাণী লেখা টেবিল ছাড়া খেতেই বসেন না!

রোমিও জানান, খাবার সম্পর্কিত বিখ্যাত উক্তিগুলো যোগাড় করতে পোহাতে রয়েছে অনেক ঝক্কি। তবুও মানুষ যখন খাবারের প্রশংসা করার পাশাপাশি আগ্রহ নিয়ে নিজ এলাকার বাণীগুলো পড়েন ও এগুলোর সঙ্গে ছবি তোলেন- তখন মনে হয় সার্থক হয়েছে কষ্ট।  

 

ঢাকা শহরের প্রেক্ষাপটে মধ্যবিত্ত এক নারীর আত্ম-অনুসন্ধানের কাহিনি নিয়ে নির্মিত হয়েছে ‘আন্ডার কন্সট্রাকশন’। ছবিটি শুধুমাত্র ঢাকার কয়েকটি প্রেক্ষাগৃহে মুক্তি পায় গত বছর ২২ জানুয়ারি। তখন বেশ প্রশংসা পায় সমালোচক মহলে।


ছবির পরিচালক রুবাইয়েত হোসেন সেসময় জানান, শুধু ঢাকা নয় পর্যায়ক্রমে ‘আন্ডার কন্সট্রাকশন’ দেখবে সারাদেশের মানুষ। সেই ধারাবাহিকতায় মুক্তির এক বছর পর ছবিটি এবার বিশেষ ব্যবস্থাপনায় যাচ্ছে সিলেটের দর্শকদের কাছে।

ছবিটির প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান খনা টকিজ জানায়, আগামী ১৬ থেকে ১৭ জানুয়ারি শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় সেন্ট্রাল অডিটোরিয়ামের সামনে অনুষ্ঠিত হবে এই ছবির প্রদর্শন।

২ দিনই বিকাল সাড়ে তিনটা এবং সন্ধ্যা ৬টায় দুটি করে চারটি প্রদর্শনীর আয়োজন করা হয়েছে সেখানে। টিকিট পাওয়া যাচ্ছে সিলেট অর্জুনতলা চোখ ফিল্ম সোসাইটির টেন্ট এবং শো’র আগে সেন্ট্রাল অডিটোরিয়ামের সামনে।   

মুক্তির পর থেকে ছবিটি সিয়্যাটলেও, লোকার্নো, ওমেন মেইকস ওয়েবস, কেরালা, বোগতা, সাও পাওলো, মনট্রিয়ালসহ বিভিন্ন আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবে বিভিন্ন ক্যাটাগরিতে পুরস্কৃত হয়।

এতে প্রধান দুই চরিত্রে অভিনয় করেন বলিউডের শাহানা গোস্বামী ও রাহুল বোস। অন্য অভিনয়শিল্পীরা হলেন মিতা চৌধুরী, শাহাদাত, তৌফিকুল ইসলাম ইমন, টোকাই নাট্যদলের শিমু প্রমুখ।

‘আন্ডার কন্সট্রাকশন’-এ গান রয়েছে ৩টি। এর মধ্যে অর্ণবের সংগীতায়োজনে ‘তোমায় গান শোনাব’ ও ‘পৌষ তোদের’ রবীন্দ্রসংগীত দুটি গেয়েছেন সাহানা বাজপেয়ী। পুরো ছবির আবহসংগীত করছেন অর্ণব।

 

 অভিনয় জগতে অড্রে হেপবার্নের নাম জানেন না, এমন কাউকেই খুঁজে পাওয়া যাবে না। ১৯৯৩ সালে মাত্র ৬৩ বছর বয়সে ক্যান্সারের কাছে হার মানেন তিনি। কিন্তু এই সময়ের মাঝেই তিনি এত বিচিত্র এক জীবন যাপন করে গেছেন, যা মনে হতে পারে রূপকথার মত।


আইকনিক অড্রে হেপবার্ন ছিলেন বিশ্বখ্যাত ডিজাইনার জিভনশে (Givenchy) এর মূল অনুপ্রেরণা। ইউনিসেফের জন্য কাজ করতে অভিনয় জগত থেকে সরে দাঁড়ান তিনি। তার ব্যাপারে এমন ছোট ছোট তথ্য অনেকেই জানেন বটে। কিন্তু তার জীবনে এমন অনেক ঘটনা ঘটে, যা জানেন না অনেকেই।

১) তার পিতামাতা ছিলেন নাৎসি সমর্থক

অড্রে হেপবার্নের অনেক ভক্ত জানেন, তিনি দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময়ে নাৎসিদের বিরুদ্ধে গোপনে কাজ করেছেন। কিন্তু তার পিতামাতা কিন্তু প্রথমে নাৎসি সমর্থক ছিলেন। অড্রে হেপবার্নকে নিয়ে তার মা হল্যান্ডে চলে আসেন কারণ সে সময়ে হল্যান্ড ছিল নিরপেক্ষ। তিনি ভেবেছিলেন যুদ্ধের উত্তাপ এতদুরে পৌঁছাবে না। কিন্তু সেখানেও ঘাঁটি গেড়ে বসে জার্মানরা।

কম বয়স থেকেই নাৎসিদের বিপক্ষে কাজ করেন হেপবার্ন। শিশু-কিশোরদেরকে রাস্তায় দেখলে তেমন কিছু বলত না নাৎসিরা। এ কারণে লুকিয়ে লুকিয়ে মোজার ভেতরে করে গোপন তথ্য চলাচলের কাজ করতেন তিনি।

                                                    তরুণী হেপবার্ন। 
 
শুধু তাই নয়, হেপবার্ন এ সময়ে ব্যালে নাচ করতেন এবং তা থেকে পাওয়া অর্থ দান করতেন নাৎসিদের বিপক্ষে থাকা রেজিস্টেন্সের কল্যাণে। তার দর্শকরা নাৎসিদের ভয়ে হাততালি পর্যন্ত দিতে পারতো না। সম্পূর্ণ নিস্তব্ধ অবস্থায় নাচতেন হেপবার্ন।

এ সময়ে প্রচন্ড খাদ্যের অভাব ছিল। অপুষ্টিতে ভুগে ভুগে একটা সময়ে তিনি জানতে পারেন, তিনি আর ব্যালে নাচ করতে পারবেন না শারীরিক অসুস্থতার কারণে। তার যে ছিপছিপে শরীরের জন্য তিনি বিখ্যাত, তা ছিল এই অপুষ্টির ফল।

হেপবার্নের গোপন পরকীয়া

‘সাবরিনা’ সিনেমাটির মাধ্যমে অনেক ভক্তের হৃদয়ে ঠাঁই করে নেন হেপবার্ন। কিন্তু সহ-অভিনেতা উইলিয়াম হোল্ডেনের  সাথে তার সম্পর্কের ব্যাপারটা বেশ গোপন। হোল্ডেন নারীঘটিত ব্যাপারে বেশ কুখ্যাত ছিলেন। তার স্ত্রী আর্ডিস জানতেন যে তিনি অন্য নারীদের সাথে জড়িত, কিন্তু সাধারণত এসব সম্পর্কের ব্যাপারে তিনি তেমন চিন্তিত ছিলেন না। 

                                        হামফ্রে বোগার্ট এবং উইলিয়াম হোল্ডেনের সাথে হেপবার্ন।
 
তবে শিক্ষিত, রূপবতী হেপবার্নকে দেখেই আর্ডিস বুঝে ফেলেন, তার এবং তার স্বামীর সম্পর্কে ফাটল ধরল বলে। উইলিয়াম হোল্ডেন নিজের স্ত্রীকে ফেলে অড্রে হেপবার্নকে বিয়ে করতেও রাজি ছিলেন। এই পথে বাধ সাধে একটিমাত্র ব্যাপার। হেপবার্নের সন্তানের খুবই শখ ছিল। কিন্তু উইলিয়াম হোল্ডেন জানান, তিনি একটি ভ্যাসেকটমি করিয়েছিলেন কিছু বছর আগে, ফলে তিনি কোন সন্তানের পিতা হতে অক্ষম। এ ব্যাপারে জানার সাথে সাথেই হেপবার্ন তার সাথে সম্পর্ক ভেঙে ফেলেন। পরবর্তীতে মেল ফেরারকে বিয়ে করেন তিনি।

মেরিলিন মনরো এবং অড্রে হেপবার্ন দুজনেরই প্রেমিক ছিলেন এক ব্যক্তি

মেরিলিন মনরো এবং অড্রে হেপবার্ন দুজনেই বিখ্যাত ছিলেন, কিন্তু দুজনের ইমেজ ছিল একেবারেই আলাদা। যেখানে মনরো ছিলেন সেক্স সিম্বল, সেখানে হেপবার্ন ছিলেন অভিজাত এবং লাবণ্যময়ী। তবে দুজনের মাঝেই একটা ব্যাপারে মিল ছিল। জন এফ কেনেডির সাথে প্রেম করেছিলেন দুজনেই। কেনেডি যখন অবিবাহিত ছিলেন তখন তার প্রেমিকা ছিলেন অড্রে হেপবার্ন। কিন্তু তাদের এই প্রেম মোটেই মেরিলিন মনরোর সাথে কেনেডির প্রেমের মত বিতর্কিত ছিল না। 

                                    স্বামী মেল ফেরার এবং সন্তান শনের সাথে হেপবার্ন।
 
অড্রে হেপবার্নের EGOT সম্মাননা

EGOT বলতে এমন সব ব্যক্তিকে বোঝানো হয় যারা এমি,গ্র্যামি, অস্কার এবং টোনি- এই চারটি সম্মাননাই পেয়েছেন। পৃথিবীতে মাত্র ১৪ জন মানুষ এই কাজটি করতে পেরেছেন এবং তার মাঝে একজন হলেন অড্রে হেপবার্ন।

অড্রে হেপবার্নের নামে ফুল

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময়ে খাবারে অভাবে অনেক সময়েই পানি পান করে এবং টিউলিপের মূল খেয়ে পেট ভরাতে হত হেপবার্নকে। পরবর্তীতে একটি টিউলিপের নাম রাখা হয় তার নামে। ১৯৯০ সালে টিউলিপের নতুন একটি হাইব্রিড প্রজাতির নাম রাখা হয় অড্রে হেপবার্ন। মূলত তার ক্যারিয়ার এবং ইউনিসেফের জন্য তার কাজের সম্মাননা হিসেবে তা করা হয়েছিল।

ফেসবুক নিউজফিডে বড় ধরনের পরিবর্তনের ঘোষণা  

 ফেসবুকের ব্যবহারকারিদের কথা বিবেচনায় এনে প্রতিষ্ঠানের সহ প্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান নির্বাহী মার্ক জাকারবার্গ নতুন ঘোষণা দিয়েছেন। নতুন ঘোষণা অনুযায়ী, ফেসবুক নিউজ ফিডে এখন থেকে প্রকাশকদের কনটেন্টের এর চেয়ে বন্ধু ও পরিবারের সামাজিক যোগাযোগ সম্পর্কিত কনটেন্টে বেশি প্রাধান্য দেওয়া হবে।


১১ জানুয়ারি বৃহস্পতিবার মার্ক জাকারবার্গ তার ফেসবুক পোস্টে এই ঘোষণা দেন।

২০০৪ সালে প্রতিষ্ঠিত হওয়া ফেসবুক ছিল পরিবার ও বন্ধুদের জন্য। ব্যবহারকারিরা তাদের বন্ধুদের বা পরিবারের নানা আনন্দ বেদনা ভাগ করে নেওয়া হতো বর্তমান সোশ্যাল মিডিয়া জায়ান্ট ফেসবুকে।

কিন্তু সময়ের পরিবর্তনের সাথে সাথে ফেসবুকের সংজ্ঞা বদলে গেছে। এখন ফেসবুকে বিজ্ঞাপন, ব্র্যান্ড, ব্যবসায়িক পোস্টে নিউজ ফিড ভরে গেছে। জাকারবার্গ জানিয়েছেন, তিনি তার কমিউনিটির গ্রাহকদের প্রতিক্রিয়ায় জেনেছেন ব্যবসা, ব্র্যান্ড এবং মিডিয়ার পোস্টগুলি বন্ধু ও পরিবারের জন্য ব্যক্তিগত মুহূর্তগুলি নষ্ট করছে। পাবলিক কনটেন্টের কারণে এখন ফেসবুকের বেশির ভাগ গ্রাহক বিরক্ত।

পোস্টে জাকারবার্গ বলেন, 'আমি আশা করি ফেসবুকে আপনি যে সময় ব্যয় করবেন তা আরও মূল্যবান হবে। আর আমরা যদি সঠিক কাজটি করে থাকি, আমি বিশ্বাস করি এটি দীর্ঘ মেয়াদে আমাদের সমাজ আর আমাদের ব্যবসায়ের জন্য ভালো হবে।'

তবে জাকারবার্গ জানিয়েছেন যদিও এই পরিবর্তন আসতে সময় লাগবে তবে ব্যবহারকারীরা এখন থেকেই তাদের নিউজ ফিডে প্রকাশনা আর ব্যবসায় প্রতিষ্ঠানগুলোর পোস্ট কম দেখবে আর বন্ধু ও পরিবারের কনটেন্ট বেশি আসা দেখতে শুরু করবেন।

সম্প্রতি ফেসবুকের বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ রয়েছে ভুয়া খবর ছড়ানো এবং মানসিক স্বাস্থ্যের জন্য ফেসবুক হুমকিস্বরুপ এমন প্রতিবেদনে বিশ্বজুড়েই সমালোচনা হয়েছে। আর এসব কারণে ব্যবসায়িক বড় ক্ষতিতে পড়লেও দীর্ঘ মেয়াদে ভালো কিছুর জন্য এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছে জাকারবার্গ।

বিজনেস ইনসাইডারের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ফেসবুক তার প্ল্যাটফর্মের বিজ্ঞাপন থেকে প্রচুর আয় করে থাকে। এ কারণে নিউজ ফিডের যে কোনো পরিবর্তনটি ফিডের বিজ্ঞাপন বিক্রি করতে বড় প্রভাব ফেলতে পারে। এ ছাড়াও এই সিদ্ধান্ত বিনিয়োগকারিদের কিংবা শেয়াধারিদের বিশাল ক্ষতির মুখে ফেলে দিতে পারে। ফেসবুকের এই ঘোষণা দেওয়ার পর ১২ জানুয়ারি শুক্রবার প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ৪.২ শতাংশ নিচে নেমে আসে।

নিউজ ফিড পরিবর্তন ঘোষণা দেওয়ার পর ফেসবুক তাদের মিডিয়া অংশীদারদের একটি ইমেল পাঠিয়েছে যেখানে এই পরিবর্তনের বিস্তারিত ব্যাখ্যা দেওয়া হয়েছে। ফেসবুক প্রকাশকদের জানিয়েছে, এই পরিবর্তনে তাদের 'অরগানিক রিচ' কমে গেলেও অর্থবহ কনটেন্টের ক্ষেত্রে এই পরিবর্তন খুব একটা প্রভাব ফেলবে না। এ ছাড়াও পোস্টের রিচ বাড়াতে ক্লিকবেইট পোস্টে আর অর্থ খরচ করা যাবেনা বলেও জানিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি।

বাজার বিশ্লেষকরা বলেছেন, ফেসবুকের এমন ঘোষণায় গ্রাহকদের সাথে ফেসবুকের এনগ্যাজমেন্ট বাড়বে। বিজ্ঞাপনদাতাদের চেয়ে গ্রাহককে বেশি প্রাধান্য দেওয়া হবে যা ভবিষ্যতে ফেসবুকের জন্য সুফল বয়ে আনবে।

প্রসঙ্গত চলতি বছরের শুরুতে জাকারবার্গ তার নতুন বছরের লক্ষ্য ও চ্যালেঞ্জের কথা জানিয়েছিল। তিনি বলেছিলেন, এ বছর তিনি ফেসবুক ঠিক করবেন। তার মতে ফেসবুকে বেশ কিছু সমস্যা রয়েছে যেগুলো ঠিক করাই এখন প্রধান কাজ হবে তার।
Blogger দ্বারা পরিচালিত.