এমআরআই করতে গিয়ে রোগীর আত্মীয়ের করুণ মৃত্যু

এমআরআই করতে গিয়ে রোগীর আত্মীয়ের করুণ মৃত্যু 

এমআরআই করতে গিয়ে রাজেশ মারু (৩২) নামে ভারতীয় এক ব্যক্তির মৃত্যু হয়েছে। ধাতব অক্সিজেন সিলিন্ডার নিয়ে এমআরআই কক্ষে প্রবেশ করার পর দুর্ঘটনার শিকার হয়ে তার মৃত্যু হয়। এ ঘটনায় দায়িত্বে অবহেলার কারণে ডাক্তারসহ দুজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।


২৭ জানুয়ারি, শনিবার মুম্বাইয়ের বাই ইয়ামুনাবাই লক্ষ্মণ নায়ের চ্যারিটেবল হসপিটালে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

জানা যায়, ঘটনার দিন রাজেশ মারু তার অসুস্থ আত্মীয়ের সাথে মুম্বাইয়ের বাই ইয়ামুনাবাই লক্ষ্মণ নায়ের চ্যারিটেবল হসপিটালে আসেন। এ সময়  ওয়ার্ড বয় ভিথাল চাভান তাকে ধাতব অক্সিজেন সিলিন্ডার নিয়ে এমআরআই কক্ষে যেতে বলেন। কিন্তু মারুকে যখন চাভান ধাতব অক্সিজেন সিলিন্ডার নিয়ে যেতে বলেন, তখন রোগীর অন্যান্য আত্মীয় প্রতিবাদ করে বলেন ধাতব বস্তু নিয়ে যাওয়া যাবে না। তখন চাভান ব্যাপারটাকে মোটেই গুরুত্ব না দিয়ে বলেন, ‘সবই চলে, আমাদের প্রতিদিনের কাজ এটা।‘

কিন্তু চাভানের এ কথার পরই এমআরআই মেশিনের চৌম্বক ক্ষেত্রের টানে হাতের সিলিন্ডারসহ মেশিনের সাথে আটকা পড়েন রাজেশ মারু। তার হাত মেশিন এবং সিলিন্ডারের মাঝে আটকে যায়। একপর্যায়ে সংঘর্ষের ফলে সিলিন্ডার থেকে অক্সিজেন লিক করতে থাকে। মারুর আত্মীয় এবং ওয়ার্ড বয়রা তাকে মেশিন থেকে বের করে আনার পর দেখা যায় তার শরীর ফুলে গেছে এবং প্রচুর রক্তক্ষরণ হচ্ছে।

হিন্দুস্তান টাইমস জানায়, সিলিন্ডারের আঘাতে রাজেশের হাতের আঙুলগুলো বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। এছাড়াও সিলিন্ডার থেকে লিক করা প্রচুর পরিমাণে শীতল অক্সিজেন নিশ্বাসের সাথে গ্রহণ করার ফলে তিনি অবচেতন হয়ে পড়েন। দ্রুত তাকে আইসিইউতে নেওয়া হলেও কিছুক্ষণের মাঝেই তার মৃত্যু হয়।

এ বিষয়ে রাজেশ মারুর আত্মীয় হারিশ সোলাঙ্কি অভিযোগ করে বলেন, 'সে (রাজেশ) কক্ষে প্রবেশ করার সাথে সাথেই বোঝা যায় আসলে মেশিনটি চলছে।’ কিন্তু ওয়ার্ড বয় চাভান অভিযোগ অস্বীকার করে জানান, এমআরআই মেশিন বন্ধ করা ছিল। অন্যদিকে ঘটনাস্থলে থাকা ডাক্তার এবং টেকনিশিয়ানরাও এর কোনো প্রতিবাদ করেননি।

কর্তব্যে চরম অবহেলার কারণে ডাক্তার, ওয়ার্ড বয় এবং ওয়ার্ড অ্যাটেনডেন্টদের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। এ ঘটনায় ডাক্তার সিদ্ধান্ত শাহ এবং ওয়ার্ড বয় ভিথাল চাভানকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

উল্লেখ্য, এমআরআই কক্ষে ধাতব বস্তু নিয়ে যাওয়া নিষিদ্ধ। কারণ এমআরআই মেশিন চৌম্বক ক্ষেত্র ব্যবহার করে চালিত হয়। মেশিন চালু থাকা অবস্থায় এই কক্ষে ধাতব গহনা, ধাতব জিপার বা বোতামযুক্ত পোশাক, এমনকি ধাতব চিকিৎসা সরঞ্জামও নিয়ে যাওয়া যায় না।

এমআরআই করতে গিয়ে রাজেশ মারু (৩২) নামে ভারতীয় এক ব্যক্তির মৃত্যু হয়েছে। ধাতব অক্সিজেন সিলিন্ডার নিয়ে এমআরআই কক্ষে প্রবেশ করার পর দুর্ঘটনার শিকার হয়ে তার মৃত্যু হয়। এ ঘটনায় দায়িত্বে অবহেলার কারণে ডাক্তারসহ দুজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।