কাশির সিরাপ খেয়েই নিষেধাজ্ঞায় ইউসুফ পাঠান!

কাশির সিরাপ খেয়েই নিষেধাজ্ঞায় ইউসুফ পাঠান! 

ডোপিংয়ের অভিযোগে পাঁচ মাসের জন্য নিষিদ্ধ হয়েছেন ভারতীয় ক্রিকেটার ইউসুফ পাঠান। মঙ্গলবার বোর্ড অফ কন্ট্রোল ফর ক্রিকেট ইন ইন্ডিয়ার (বিসিসিআই) পক্ষ থেকে এই ঘোষণা দেওয়া হয়েছে। তার শরীরে টার্বুটানিল নামক এক ধরণের উপাদান পাওয়া গেছে যা সাধারণত কাশির সিরাপে ব্যবহার করা হয়।


বিসিসিআইয়ের একজন কর্মকর্তা এ ব্যাপারে সংবাদ মাধ্যমকে বলেন, ‘গত বছর ঘরোয়া টি-টোয়েন্টি লিগের আগে ১৬ মার্চ নয়া দিল্লিতে বিসিসিআইয়ের ডোপ পরীক্ষায় ইউসুফের মূত্রের নমুনা নেওয়া হয়। আর সেই পরীক্ষাতেই পাঠানের শরীরে টার্বুটালিন ধরা পড়েছে। যদিও এই উপাদান কাশির ওষুধে ব্যবহার করা হয়। তবুও টার্বুটালিন জাতীয় পদার্থ যেকোন প্রতিযোগিতার ভেতরে ও বাহিরের জন্য ক্ষতিকর। তাই তাকে আমরা পাঁচ মাসের জন্য ক্রিকেটের বাহিরে রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছি।’

বিসিসিআইয়ের ওই কর্মকর্তা আরও বলেন, ‘২০১৭ সালের ২৭ অক্টোবর বিসিসিআইয়ের নিয়ম অনুযায়ী ডোপিংয়ের নিয়ম বিরুদ্ধ কাজ করেছেন ইউসুফ পঠান। সব অভিযোগ মেনে নিয়েছেন পঠান। তিনি জানিয়েছেন ভুল করে তিনি নিজের অজান্তেই নিষিদ্ধ ড্রাগ নিয়েছিলেন।’

তবে তার নিষিদ্ধের ঘটনা এতদিন প্রকাশ্যে আসেনি। ২০১৭ সালের ২৭ অক্টোবর বিসিসিআইয়ের পক্ষ থেকে নিষেধাজ্ঞার চিঠি পান পাঠান। গত বছরের ১৫ আগস্ট থেকেই তার নির্বাসনের সময় শুরু হয়ে গেছে যা চলতি বছরের জানুয়ারিতেই শেষ হয়ে যাবে।

বিসিসিআইয়ের কাছে দেওয়া আত্মপক্ষ সমর্থনে সন্তুষ্টি প্রকাশ করেছেন ভারতীয় জাতীয় দলের সাবেক এই অলরাউন্ডার। একটি বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে পাঠান বলেন, ‘গলায় সংক্রমণের জন্য আমাকে যেটা খেতে দেওয়া হয়েছিল তাতেই সমস্যা হয়েছে। বিসিসিআইকে ধন্যবাদ জানাই নিজের স্বপক্ষে কথা বলতে দেওয়ার জন্য। ১৪ জানুয়ারির পর আমি ক্রিকেটে ফিরতে পারব এতেই খুশি। আবারও মাঠে নামার জন্য মুখিয়ে রয়েছি।’

ডোপিংয়ের অভিযোগে পাঁচ মাসের জন্য নিষিদ্ধ হয়েছেন ভারতীয় ক্রিকেটার ইউসুফ পাঠান। মঙ্গলবার বোর্ড অফ কন্ট্রোল ফর ক্রিকেট ইন ইন্ডিয়ার (বিসিসিআই) পক্ষ থেকে এই ঘোষণা দেওয়া হয়েছে। তার শরীরে টার্বুটানিল নামক এক ধরণের উপাদান পাওয়া গেছে যা সাধারণত কাশির সিরাপে ব্যবহার করা হয়।