আন্ডারআর্মের কালো দাগ দূর হবে মাত্র ৭ দিনে

 

আন্ডারআর্ম বা বগলের নিচে কালো দাগ দূর করার সমস্যা নারী-পুরুষ সকলেরই কমবেশি হয়। কারণ, গ্রীষ্মপ্রধান দেশগুলোতে শরীরে ঘাম হয় প্রচুর। এই ঘর্মাক্ত দেহে এক পোশাকে অনেককেই থাকতে হয় দীর্ঘসময়। ফলে ঘাম ও কাপড়ের ঘর্ষণ মিলে তৈরি করে আন্ডারআর্মে বাজে কালো দাগ। এছাড়াও বেশি ওজনের কারণেও ত্বকের সাথে ত্বকের ঘর্ষণে বগলে হতে পারে কালো দাগ। অনেক ডিওডোরেন্ট ব্যবহারেও একই ক্ষতি হয়।


ত্বকের ওপরে সৃষ্ট যে কোন কালো দাগই জেদী এবং সহজে পরিষ্কার করা যায় না। আন্ডারআর্ম খুব স্পর্শকাতর স্থান, এখানে ফেয়ারনেস ক্রিম বা অন্য কোন প্রসাধনীও ব্যবহার করা যায় না। আজ থাকছে আন্ডারআর্মের এই জেদী কালো দাগ দূর করার দারুণ সহজ একটি টিপস। ব্লিচ করতে হবে না, কোন প্রসাধনীও ব্যবহার করতে হবে না। খুব সহজ একটি কাজ রোজ করলে মাত্র ৭ দিনেই চলে যাবে বগলের কালো দাগ।

যা লাগবে

আলুর রস ১ টেবিল চামচ
শসার রস ১ চা চামচ
খাঁটি গোলাপ জল ১ চা টেবিল চামচ
ভিটামিন ১ ক্যাপসুল ১ টি
লেবুর রস ১ চা চামচ

সবগুলো জুসই ব্যবহারের ঠিক আগে তৈরি করে নেবেন। আলুর রস ও লেবু প্রাকৃতিক ব্লিচিং এজেন্ট। শসা ও গোলাপ জল উপকারী ত্বককে আরাম দিতে ও কালো ছোপ কম করতে। ভিটামিন ই যে কোন কালো দাগেই চমৎকার কাজ করে।

যেভাবে ব্যবহার করবেন

-সব উপাদান একসাথে মিশিয়ে নিন।
-বগলের ঘাম ভালোভাবে ধুয়ে পরিষ্কার করে মুছে নিন।
-তুলোর সাথে এই মিশ্রণ বগলে লাগিয়ে নিন। শুকিয়ে গেলে আবারও লাগান। এভাবে অন্তত ৩/৪ বার লাগান।
-এভাবে রাখুন ১৫/ ২০ মিনিট। তারপর গোসল সেরে নিন। গোসলের সময়ে বডি স্ক্রাবার দিয়ে বগলে মরা কোষ জমে থাকলে পরিষ্কার করে নিতে পারেন।
-এই মিশ্রণ হাঁটু এবং কনুইয়ের কালো দাগ দূর করতেও দারুণ কার্যকর।

এছাড়াও মনে রাখুন

-আন্ডারআর্ম নিয়মিত পরিষ্কার রাখবেন।
-সপ্তাহে একদিন গোলাপ পাতা বেটে পেস্ট তৈরি করে ব্যবহার করতে পারেন আন্ডারআর্মে।
-ক্ষতিকর ডিওডোরেন্ট ব্যবহার বন্ধ রাখুন, প্রাকৃতিক উপায় বেছে নিন।
-গরমের দিকে ঘামে ভেজা পোশাক দীর্ঘসময় পরে থাকবেন না।

আন্ডারআর্ম বা বগলের নিচে কালো দাগ দূর করার সমস্যা নারী-পুরুষ সকলেরই কমবেশি হয়। কারণ, গ্রীষ্মপ্রধান দেশগুলোতে শরীরে ঘাম হয় প্রচুর। এই ঘর্মাক্ত দেহে এক পোশাকে অনেককেই থাকতে হয় দীর্ঘসময়। ফলে ঘাম ও কাপড়ের ঘর্ষণ মিলে তৈরি করে আন্ডারআর্মে বাজে কালো দাগ। এছাড়াও বেশি ওজনের কারণেও ত্বকের সাথে ত্বকের ঘর্ষণে বগলে হতে পারে কালো দাগ। অনেক ডিওডোরেন্ট ব্যবহারেও একই ক্ষতি হয়।