গ্রাহকদের স্মার্টফোন ব্যবহারের অভিজ্ঞতাকে আরও উন্নত করার জন্য স্যামসাং বাংলাদেশ ২০১৭ সালের সেপ্টেম্বর মাসে চালু করেছে মাই গ্যালাক্সি অ্যাপ। অ্যাপটি শুধু স্যামসাং গ্যালাক্সি স্মার্টফোন ব্যবহারকারীদের জন্য তৈরি করা হয়েছে। এই অ্যাপ ব্যবহার করে গ্রাহকরা দেশের শীর্ষস্থানীয় ব্র্যান্ডের লাইফ স্টাইল পণ্য, বই, ভ্রমণ এবং গানের উপর আকষর্ণীয় ছাড় পাবেন। এখন পর্যন্ত মাই গ্যালাক্সি অ্যাপ দেশের শীর্ষ স্থানীয় ব্র্যান্ড গুলোর মধ্যে উবার, বাগডুম, এবং গো-জায়ানের সাথে পার্টনারশিপ করেছে।


এছাড়াও খুব শীঘ্রই দেশের একটি জনপ্রিয় এবং বিখ্যাত বিনোদন প্ল্যাটফর্ম মাই গ্যালাক্সি অ্যাপের সাথে পার্টনারশিপ করবে। উবারে চলাচল হবে এখন আরও সাশ্রয়ী কারণ মাই গ্যালাক্সি অ্যাপ এবার উবারের পার্টনার হয়েছে। মাই গ্যালাক্সি অ্যাপের সাহায্যে নতুন উবার ব্যবহারকারীরা তাদের প্রথম দুই রাইডে ১০০ টাকা ডিসকাউন্ট পাবেন। ডিসকাউন্ট পাওয়ার জন্য গ্রাহককে মাই গ্যালাক্সি অ্যাপের সাহায্যে কুপন তৈরি করতে হবে। এরপর উবার অ্যাপ ডাউনলোড করতে হবে। উবার অ্যাপ ডাউনলোড করার পর গ্রাহককে একটি অ্যাকাউন্ট খুলতে হবে এবং এরপরই একজন গ্রাহক তার ডিসকাউন্ট কুপন ব্যবহার করতে পারবেন।

দেশের প্রখ্যাত ই-কমার্স সাইট বাগডুম গ্রাহকদের এক্সক্লুসিভ ডিল দেয়ার জন্য মাই গ্যালাক্সি অ্যাপের সাথেও পার্টনার হয়েছে। ইলেক্ট্রনিক্স পণ্য ছাড়া বাগডুম তাদের অন্য সব পণ্যে ৮% ছাড় প্রদান করছে। এছাড়াও মাই গ্যালাক্সি অ্যাপ এবং গো-জায়ান একত্রিত হয়ে সব আন্তর্জাতিক ফ্লাইট বুকিংয়ে ৫% ডিসকাউন্ট সুবিধা প্রদান করছে। মাই গ্যালাক্সি অ্যাপে দিয়ে সার্ভিস ট্রাকারের সাহায্যে যে কেউ তার মোবাইলফোন মেরামতের অগ্রগতি এবং কোন পর্যায় আছে তা জানতে পারবেন। এই সার্ভিস কেয়ার অপশনটি মাই গ্যালাক্সি অ্যাপের কেয়ার সেকশনে পাওয়া যাবে। সার্ভিস অগ্রগতি ট্র্যাক করার জন্য একজন গ্রাহককে তার মোবাইল সম্পর্কিত কিছু মৌলিক তথ্য অ্যাপে ইনপুট করতে হবে।

বাংলাদেশে গ্যালাক্সি অ্যাপ চালু হওয়ার পর থেকেই এর বিষয়বস্তু, সুবিধা এবং কেয়ারের জন্য গ্রাহকদের কাছে জনপ্রিয়তা লাভ করেছে। ২০১৭ সালে চালু হওয়ার পর খুব কম সময়ের মধ্যে ১ লাখেরও বেশী ব্যবহারকারী পেয়েছে যা দিনে দিনে বেড়েই চলছে। ব্যবহারকারীদের মধ্যে এই জনপ্রিয়তার দেখে, মাই গ্যালাক্সি অ্যাপ আরও পার্টনার বাড়ানোর মাধ্যমে গ্রাহকদের জীবনকে আরও সহজ করে তোলার পরিকল্পনা করছে।

মুয়ীদুর রহমান, হেড অফ মোবাইল, স্যামসাং বাংলাদেশ বলেন, “মাই গ্যালাক্সি অ্যাপ বিভিন্ন সুবিধা এবং সহযোগিতা প্রদানের জন প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। এই অনন্য অ্যাপটি শুধু স্যামসাং স্মার্টফোন ব্যবহারকারীদের জন্য তৈরি করা হয়েছে যার মাধ্যমে একজন গ্রাহক বিভিন্ন ধরণের ডিসকাউন্ট এবং অফার উপভোগ করতে পারবেন।”

স্যামসাং অ্যান্ড্রয়েড স্মার্টফোন ব্যবহারকারীরা গুগল প্লে থেকে মাই গ্যালাক্সি ডাউনলোড করতে পারবেন। এছাড়াও এই অ্যাপটি স্যামসাং-এর নতুন সব স্মার্টফোনের সাথে আগে থেকেই দেয়া থাকবে। আকর্ষণীয় অফারগুলো উপভোগ করার জন্য গ্রাহকদেরকে মাই গ্যালাক্সি অ্যাপের সার্ভিস সেকশনে যেতে হবে এবং কুপন তৈরি করতে হবে। নির্ধারিত কুপন নাম্বারের সাহায্যে একজন গ্রাহক কেনাকাটাতে ডিসকাউন্ট উপভোগ করতে পারবেন।

 

জেমস বন্ড’ তারকা ড্যানিয়েল ক্রেগ ও অস্কারজয়ী অভিনেত্রী র‌্যাচেল ভাইস এক ছাদের নিচে আছেন আট বছর ধরে। তারও আগে পৃথকভাবে সন্তানের মুখ দেখেছেন তারা। এবার তাদের সংসারে আসছে নতুন অতিথি।


৪৮ বছর বয়সে এসে আবারও মা হচ্ছেন র‌্যাচেল ভাইস। তাই সন্তানসম্ভবা হওয়ার কথা জানিয়ে খবরের শিরোনাম হয়েছেন তিনি। এজন্য উচ্ছ্বসিত ড্যানিয়েল ক্রেগ। তবে অনাগত সন্তান ছেলে নাকি মেয়ে তা জানেন না তারা।

নিউ ইয়র্ক টাইমসকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে ‘দ্য মমি’ তারকা র‌্যাচেল ভাইস বলেছেন, ‘শিগগিরই আমাদের ঘরে নতুন একজন আসছে। ড্যানিয়েল ও আমি খুব খুশি। তাকে দেখতে আমরা মুখিয়ে আছি। জানি না সে ছেলে নাকি মেয়ে। বলতে পারেন এটা পুরোপুরি রহস্য।’

২০১১ সালের ২২ জুন যুক্তরাষ্ট্রের নিউ ইয়র্কে বিয়ের বন্ধনে জড়ান এই ব্রিটিশ দম্পতি। র‌্যাচেল ভাইসের আগের সংসারের ছেলে হেনরির বয়স ১১ বছর। পরিচালক ড্যারেন অ্যারোনোফস্কির সঙ্গে বাগদান হয়েছিল তার। কিন্তু পরে তারা আর ঘর বাঁধেননি।

অন্যদিকে ক্রেগের ২৫ বছর বয়সী এক মেয়ে আছে। তার মা অভিনেত্রী ফিওনা লাউডন। ১৯৯২ সালে ক্রেগ ও তিনি বিয়ে করেছিলেন। দুই বছর টিকেছিল ওই সংসার। বিয়েবিচ্ছেদের পর জার্মান অভিনেত্রী হাইকি মাকাচের সঙ্গে সাত বছর প্রেম করেছেন ক্রেগ। ২০০৪ সালে সেই পাট চুকিয়েছেন তিনি। এরপর প্রযোজক সাতসুকি মিচেলের সঙ্গে ২০০৫ থেকে ২০১০ সাল পর্যন্ত প্রেম আর বাগদানও হয়েছিল তার।

সম্প্রতি ‘দ্য মার্সি’ ছবিতে দেখা গেছে র‌্যাচেল ভাইসকে। তিনি এখন নিজের নতুন ছবি ‘ডিসোবেডিয়েন্স’-এর প্রচারণা চালাচ্ছেন। এতে সমকামি চরিত্রে দেখা যাবে তাকে। এটি প্রযোজনাও করেছেন তিনি। এর চিত্রনাট্য তৈরি হয়েছে ব্রিটিশ লেখিকা নাওমি অ্যাল্ডারম্যানের গ্রন্থ অবলম্বনে। আর ড্যানিয়েল ক্রেগ সামনে ‘জেমস বন্ড’ সিরিজের ২৫তম ছবির শুটিং শুরু করবেন।

 

কাজে দক্ষতা বাড়াতে কর্মীদের তাগিদ দিয়েছেন হাই-টেক কোম্পানি টেসলারের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ইলোন মাস্ক। কর্মদক্ষতা বাড়াতে ই-মেইলের মাধ্যমে তাদেরকে সাতটি টিপসও দিয়েছেন তিনি।


১৯ এপ্রিল, বৃহস্পতিবার সংবাদমাধ্যম বিজনেস ইনসাইডারের এক প্রতিবেদনে এই তথ্য জানানো হয়েছে।

সম্প্রতি টেসলার মডেল থ্রি ইলেকট্রনিক কারের কাজ আরও গতিশীল করার লক্ষ্যে সপ্তাহে সাত দিন এবং দিনে ২৪ ঘণ্টা প্রতিষ্ঠানটির কাজ চালু রাখার ঘোষণা দিয়েছেন ইলোন মাস্ক। যেহেতু কর্মীদের বেশি বেশি কাজ করতে হবে, তাই কাজে দক্ষতা বাড়াতে নিজে কিছু টিপস দিয়েছেন।

কাঠখোট্টা নিয়ম মানতে বা মিটিং করতে তেমন পছন্দ করেন না মাস্ক। বুদ্ধি খাটিয়ে দ্রুত হাতের কাজ শেষ করাই তার লক্ষ্য। শুধু যে অন্যদেরকে পরামর্শ দিচ্ছেন তা নয়, বরং অন্যদের থেকেও পরামর্শ আশা করেছেন তিনি।

ই-মেইলে ইলোন মাস্ক বলেন, টেসলার কাজ আরও ভালো করে তুলতে কারো কোনো পরামর্শ থাকলে তাকে যেন জানানো হয়।

যে ৭ পরামর্শ দিয়েছেন ইলোন মাস্ক—

১) বেশি মানুষ নিয়ে মিটিং করাটা শুধুই সময়ের অপচয়

বেশি মানুষ নিয়ে অনেক সময় ধরে মিটিং করাকে সময়ের অপচয় মনে করেন মাস্ক এবং এসব মিটিং বন্ধ করে দেওয়ার উপদেশ দিয়েছেন তিনি। সবাইকে নিয়ে যদি মিটিং করতেই হয় তাহলে তা কম সময়ে সেরে ফেলতে বলেছেন।

২) নিয়মিত মিটিং করার দরকার নেই

খুব জরুরি কোনো বিষয় না থাকলে নিয়মিত মিটিং করার দরকার নেই। জরুরি কাজটা শেষ হয়ে গেলে মিটিংয়ের সংখ্যা কমিয়ে ফেলতে বলা হয়েছে।

৩) মিটিং থেকে বের হয়ে যান

‘মিটিংয়ে যদি আপনার উপস্থিত থাকার দরকার না থাকে, তাহলে মিটিং থেকে চলে যান’, বলেন ইলোন মাস্ক। মিটিং থেকে বের হয়ে যাওয়াটা অপমানজনক নয়, বরং মিটিংয়ে বসে অন্যের সময় নষ্ট করাটাই খারাপ।

৪) বিভ্রান্তিকর ভাষা পরিহার করুন

কোনো বিষয়ে কথা বলতে গেলে এমন ভাষা ব্যবহার করা উচিত যা সবাই বুঝবেন। টেসলায় কাজ করতে গেলে বিশেষ ভাষা ব্যবহারের দরকার নেই বলে মনে করেন মাস্ক।

৫) যোগাযোগের ক্ষেত্রে চেইন অব কমান্ড মানার দরকার নেই

কোনো কাজে যোগাযোগের দরকার হলে দ্রুতই সেটা করা উচিত। এক্ষেত্রে চেইন অব কমান্ড মেনে চলার দরকার নেই। এমনকি কোনো ম্যানেজার যোগাযোগের ক্ষেত্রে চেইন অব কমান্ড আরোপের চেষ্টা করলে তাকে চাকরিচ্যুত করার কথা বলেছেন ইলোন মাস্ক।

৬) সরাসরি যোগাযোগ করুন

কোনো বিষয়ে কারো সঙ্গে কথা বলতে হলে সরাসরিই কথা বলা দরকার। এক্ষেত্রেও চেইন অব কমান্ডের দ্বারস্থ না হয়ে নিজ থেকে উদ্যোগ নিয়ে যোগাযোগ করতে বলেন ইলোন মাস্ক। চেইন অব কমান্ডের বিশাল শেকল পার হতে হতে কাজটা আর হয় না, দাবি করেন তিনি।

৭) নিয়ম মেনে চলতে গিয়ে সময় নষ্ট করার দরকার নেই

‘সবসময় উপস্থিত বুদ্ধি ব্যহার করে কাজ করুন। কোম্পানি রুল যদি কোনো পরিস্থিতিতে উদ্ভট মনে হয় তাহলে ওই নিয়মটা পাল্টে ফেলাই উচিত,’ বলেন মাস্ক।

 

কোনো অর্থ ব্যয় ছাড়াই শুধু স্মার্টফোন ব্যবহার করে হাজার হাজার ডলার আয় করছে যুক্তরাষ্ট্র ও ব্রিটেনের কিছু তরুণ। তাদের এই আয়ের উৎস ‘এইচকিউ ট্রিভিয়া’ নামে একটি জনপ্রিয় মোবাইল অ্যাপলিকেশন।


অ্যাপটি যুক্তরাষ্ট্রে জনপ্রিয়তার পর চলতি বছরের শুরুতে ব্রিটেনে আসে। বিনা পয়সার এই অ্যাপটি মূলত ১৫ মিনিটের লাইভ স্ট্রিম কুইজ শো প্রচার করে থাকে। আর এই কুইজে অংশ নিয়েই ব্যবহারকারীরা প্রতিদিন দুই ডলার থেকে শুরু করে হাজার হাজার ডলার পর্যন্ত আয়ের সুযোগ পান।

সম্প্রতি অ্যাপটি এখন পর্যন্ত সবচেয়ে বড় জ্যাকপট নিয়ে হাজির হয়। সেখানে ৮৩ জন বিজয়ীর মধ্যে ৩ লাখ ডলার ভাগ করে দেওয়া হয়েছে বলে দাবি করে তারা। মোবাইলের মাধ্যমে কুইজের মোট ১২টি প্রশ্নের সঠিক উত্তরের ভিত্তিতে দেওয়া হয় এই মোটা অংকের অর্থ পুরস্কার।

শুধু তাই না ওই জ্যাকপট শো’র অতিথি উপস্থাপক হিসেবে ছিলেন দ্য রক-খ্যাত জনপ্রিয় রেসলার ও অভিনেতা ডোয়েন জনসন।

ভিডিও শেয়ারিং অ্যাপ ভাইনের সহ প্রতিষ্ঠাতা কলিন ক্রোল ও রুশ ইউসুপোভ এই অ্যাপ্লিকেশনটি তৈরি করেন।

এ ব্যাপারে রুশ বলেন, ‘আমরা চাই সবাই যেন সেই গৎবাঁধা টেলিভিশন কুইজ থেকে বেরিয়ে এসে নতুন কিছুর প্রতি আকৃষ্ট হয়। এ কারণে আমরা প্রতিটি অনুষ্ঠান এমনভাবে সাজাই যেন ব্যবহারকারীরা আমাদের সঙ্গে বেশি করে সম্পৃক্ত হতে পারে এবং তারা যেন প্রতিদিন আমাদের ভিজিট করতে আগ্রহ পায়।’

তবে অনেকেই প্রশ্ন তোলেন যে অ্যাপটির নাম দু’দিন আগেও কেউ জানতো না, সেটি কিভাবে রাতারাতি এতো বিপুল পরিমাণ অর্থ বিলিয়ে যাচ্ছে? এমনকি আলোচিত তারকাদেরও মঞ্চে আনছে কোনো বাড়তি বিজ্ঞাপন প্রচার না করেই।

এ ব্যাপারে অ্যাপটির ব্রিটিশ সংস্করণের উপস্থাপক শ্যারন কারপেন্টার জানান, লাইভ স্ট্রিমিংয়ের ভিউয়ার হিট থেকেই তাদের এই আয় হয়।

শ্যারন কারপেন্টার বলেন, ‘সরাসরি সম্প্রচারিত বিষয়ের প্রতি ভিউয়ারদের আগ্রহ সবসময় বেশি থাকে। কারণ এখানে রাখ-ঢাকের কোনো সুযোগ নেই। যেকোনো সময় যেকোনো কিছু হতে পারে। সবাই জানতে চায় কুইজটার শেষ পর্যন্ত কি হয়। আর মোবাইলে ব্যবহার করায় মানুষ চলার পথেও আমাদের সঙ্গে যুক্ত হতে পারে। এভাবে এইচকিউ ট্রিভিয়া একদিন টেলিভিশন সম্প্রচারের জায়গা দখল করবে।’

ব্যাপক জনপ্রিয়তার কারণে এখন কুইজ শো’টির দর্শক সংখ্যা ছাড়িয়ে গেছে লাখ থেকে কোটিতে।

মোবাইল ফোনে মিথ্যা বললে ধরিয়ে দেবে অ্যাপ! 

মোবাইল ফোনে কথা বলার সময় প্রয়োজনে-অপ্রয়োজনে মিথ্যা বলেন অনেকেই। বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই তা ধরতে পারেন না অন্যপ্রান্তে থাকা মানুষটি। এ বিষয় ভেবে নতুন একটি অ্যাপ তৈরি করছেন ইউনিভার্সিটি অব কোপেনহেগেনের একজন বিজ্ঞানী। তিনি এক গবেষণায় দেখিয়েছেন, মোবাইল ফোন ব্যবহারকারী মিথ্যা বলছেন কিনা তা ফোনের সহায়তায় খুঁজে বের করা সম্ভব।


এজন্য একটি মেশিন লার্নিং অ্যালগরিদম তৈরি করেছেন ওই বিজ্ঞানী। এর নাম ‘ভেরিটেপস’। এই অ্যালগরিদম দুটি সংকেতের মাধ্যমে সত্য-মিথ্যার চিহ্ন দেবে। যখন অ্যাপে সবুজ চিহ্ন আসবে তখন বুঝতে হবে ব্যবহারকারী সত্য বলছেন। আবার লাল রঙের প্রশ্নবোধক চিহ্নের মাধ্যমে মিথ্যা বক্তব্য চিহ্নিত করা যাবে।

বর্তমানে পরীক্ষামূলক পর্যায়ে রয়েছে এই অ্যাপ। ইতিবাচক সাড়া পেলে এটাকে বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে দেওয়া হতে পারে। তবে এই অ্যাপ শুধু অ্যান্ড্রয়েড গ্রাহকরা ব্যবহারের সুযোগ পাবেন।

অ্যাপটির সঙ্গে জড়িত একজন বিজ্ঞানী জানিয়েছেন, পলিগ্রাফের ওপর ভিত্তি করে সত্য-মিথ্যা চিহ্নিত করা হবে। অবশ্য অ্যাপটির ক্ষমতা সীমাবদ্ধ। যে কারণে উচ্চপর্যায়ের কোনও কাজে এর ব্যবহার ফলপ্রসূ হবে না।


জন্মদিনে (গত ২৮ মার্চ) বেশ ঘটা করে নিজের ইউটিউব চ্যানেল ‌‘শাকিব খান অফিশিয়াল’ চালু করেছেন ঢালিউড কিং। এখন সেই চ্যানেলটির জন্য নিয়মিত ইউটিউব প্যাকেজও তৈরি হচ্ছে।


যার ভালো নমুনা পাওয়া গেল গত ১৯ এপ্রিল। শাকিবের মুক্তিপ্রতীক্ষিত ছবি ‘ভাইজান এলো রে’ নিয়ে ইউটিউবে বিশেষ ভিডিও বার্তা প্রকাশ করা হয়েছে। যেখানে তিনি তার ভক্ত-দর্শকদের নিমন্ত্রণ জানিয়েছেন ছবিটি দেখার জন্য।

লন্ডনে গানের শুটিংয়ের ফাঁকে ধারণ করা বিশেষ এই ভিডিওতে শাকিবের সঙ্গে অংশ নেন ওপার বাংলার পায়েল সরকার। পাশাপাশি এই ছবির ‘চলো হাঁটি পায়ে পায়ে’ গানের কিছু অংশ নেচে দেখিয়েছেন এই তারকারা।

ভিডিওতে শাকিব খান বলেন, ‘এই গানের মাধ্যমেই ছবিটির কাজ শেষ হলো। এটির শেষ কাজ হয়েছে লন্ডনে। আগামী ঈদুল ফিতরে ছবিটি মুক্তি পাবে।’

‘ভাইজান এলো রে’ ছবিটি পরিচালনা করেছেন জয়দীপ মুখার্জি। এতে আরও অভিনয় করছেন শ্রাবন্তী, রজতাভ দত্ত, বিশ্বনাথ, শান্তিলাল মুখার্জি ছাড়াও কলকাতা ও বাংলাদেশের অনেকেই। মার্চ মাসের প্রথম সপ্তাহে কলকাতায় একটি গানের মাধ্যমে ছবির কাজ শুরু হয়। ছবিটি প্রযোজনা করছে ভারতের এসকে মুভিজ।

জানা গেছে, বাংলাদেশে ছবিটি সাফটা চুক্তির আওতায় মুক্তি দেওয়া হবে।

এদিকে লন্ডনে এই ছবির কাজ শেষে গতকাল (২০ এপ্রিল) ঢাকায় ফিরেছেন শাকিব খান। দেশে তিনি ‘সুপার হিরো’ ও ‘ক্যাপ্টেন খান’ ছবির কাজ করবেন। ছবি দুটোতে তার বিপরীতে অভিনয় করছেন শবনম বুবলী।

এদিকে ২০ এপ্রিল পশ্চিমবঙ্গের ৯১টি প্রেক্ষাগৃহে মুক্তি পেয়েছে শাকিব-শুভশ্রীর ‘চালবাজ’।
ইউটিউবে শাকিবের নিমন্ত্রণ বার্তা:



 

বাংলাদেশের অন্যতম শীর্ষ লাইফস্টাইল ই-কমার্স প্ল্যাটফর্ম বাগডুম ডট কম এবং বিশ্বখ্যাত শেভিং পণ্য ও লাইটার প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠান বিক-এর বাংলাদেশের পরিবেশক এম এন্ড ইউ ডিস্ট্রিবিউশন লিমিটেডের সাথে একটি চুক্তি স্বাক্ষর হয়েছে। বিক প্যারিস স্টক এক্সচেঞ্জ এর তালিকাভুক্ত পারিবারিক মালিকানাধীন একটি প্রতিষ্ঠান। এই চুক্তির মাধ্যমে গ্রাহকরা বাগডুম-এ বিশাল মূল্যছাড়ে বিক-এর পণ্য কিনতে পারবেন।


সম্প্রতি রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী এভিনিউ, বারিধারা, গুলশান এ অবস্থিত এম অ্যান্ড ইউ-এর প্রধান কার্যালয়ে এই চুক্তি স্বাক্ষর করা হয়। বাগডুম ডট কম-এর সিইও মিরাজুল হক এবং এম অ্যান্ড ইউ এর ম্যানেজিং ডিরেক্টর কাজী সাদিক বিন মাহমুদ এর উপস্থিতিতে এই চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়। উভয় প্রতিষ্ঠানের উর্দ্ধতন কর্মকর্তারাও চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।

বাগডুম একটি ওয়ান-স্টপ লাইফস্টাইল প্ল্যাটফর্ম, যেখানে বেশকিছু স্থানীয় ও আন্তর্জাতিক ব্র্যান্ডের পণ্য পাওয়া যায়। একেবারে সাদাসিধে থেকে শুরু করে ক্যাজ্যুয়াল কিংবা বিলাসবহুল, ট্রেন্ডি, অনন্য কিংবা ঐতিহ্যবাহী কী নেই এখানে। বাগডুম মানুষের নিত্যদিনের প্রয়োজনীয়তা থেকে শুরু করে বিশেষ অনুষ্ঠান, জরুরি চাহিদা ও বিশেষ উপলক্ষ্য উদযাপনের জন্য প্রয়োজনীয় সবকিছুর উপর গুরুত্ব দেয়। বাগডুম তরুণ প্রজন্মকে বিশেষভাবে গুরুত্ব দেয়, যারা ‘বাগডুম প্রজন্ম’ নামে পরিচিত এবং বাগডুম কেবল ব্র্যান্ড সম্প্রসারণেই বিশ্বাস করে না, বরং তরুণ প্রজন্মের জীবনের নানা গল্প শেয়ার করে তাদের পাশে থাকার চেষ্টা করে।

বিক প্রোডাক্টস আমাদের দৈনন্দিন চাহিদা মেটাতে সহজলভ্য সেবা প্রদান করে। ফ্রান্স ভিত্তিক কর্পোরেশন বিক, বলপয়েন্ট কলম তৈরি করার জন্য সর্বাধিক পরিচিত। এটি ১৯৪৫ সালে ব্যারন মার্সেল বিক কর্তৃক প্রতিষ্ঠিত হয় এবং সহজলভ্য দৈনন্দিন পণ্য যেমন: লাইটার, রেজর, মেকানিকাল পেন্সিল ও কাগজের পণ্য তৈরি করে পরিচিতি লাভ করে। বাংলাদেশে বিক-এর একমাত্র পরিবেশক এম এন্ড ইউ ডিস্ট্রিবিউশন লিমিটেড। এই চুক্তির মাধ্যমে বিক-এর পুরুষ এবং মহিলাদের ফোম এবং জেল শেভার এর পাশাপাশি লাইটার-ও বাগডুম ডট কম-এ পাওয়া যাবে। এই চুক্তির ফলে গ্রাহকরা বাগডুম ডট কমে বিক পণ্যে ১০ থেকে ১৫ শতাংশ মূল্য ছাড় উপভোগ করবেন।

বাগডুম ডট কম-এর সিইও মিরাজুল হক বলেন, ‘আন্তর্জাতিক ব্র্যান্ড এম এন্ড ইউ ডিস্ট্রিবিউশন লিঃ এর সাথে চুক্তিবদ্ধ হতে পেরে আমরা অত্যন্ত আনন্দিত। যেটি বিক এর মত আন্তর্জাতিক ব্র্যান্ডকে পরিবেশন করেছে। আমরা বিশেষভাবে আনন্দিত কেননা তাদের পণ্যের মান, ট্রেন্ড ও পণ্যের দাম আমাদের মিলেনিয়াল ক্রেতাদের সাথে দারুণভাবে মিলে যায়; যা আমাদের একসাথে সমান তালে পথচলাকে দীর্ঘায়িত করবে’।

বাগডুম-এর সাথে চুক্তিবদ্ধ হওয়া সম্পর্কে এম অ্যান্ড ইউ এর ম্যানেজিং ডিরেক্টর কাজী সাদিক বিন মাহমুদ বলেন, ‘বিক প্রোডাক্টসমূহের জন্য বাগডুমের সাথে চুক্তিবদ্ধ হতে পেরে আমরা গর্বিত। দুইটি প্রতিষ্ঠানই নিজ নিজ ক্ষেত্রে নেতৃস্থানীয় পর্যায়ে রয়েছে। আমরা দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করি ব্যবসায় শীর্ষস্থান ধরে রাখার জন্য নিত্যনতুন প্রযুক্তি ব্যবহার করা অপরিহার্য। আমাদের লক্ষ্য ই-কমার্স খাতকে দেশ এবং ক্রেতার জন্য আরো শক্তিশালীভাবে গড়ে তোলা’।

ফেসবুকে একজনের স্ট্যাটাস আরেকজন কি পরিবর্তন করতে পারেন? 

সম্প্রতি দেশে ঘটে যাওয়া বিভিন্ন ইস্যুতে সরগরম সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমগুলো। সমসাময়িক বিভিন্ন ইস্যুতে ভরে উঠছে ফেসবুক ওয়াল। নিউজ ফিডে দেখা যাচ্ছে বিভিন্ন নিউজ, স্ট্যাটাস এবং ছবিসহ আরও অনেক কিছু। আবার এর মধ্যেই দেখা যাচ্ছে এমন কিছু স্ট্যাটাস বা স্ক্রিনশট, যা প্রচুর শেয়ার হচ্ছে, তর্ক-বিতর্ক হচ্ছে, এমনকি ভাইরালও হয়ে যাচ্ছে। অথচ এসবের বেশিরভাগই ভুয়া বলে অভিযোগ পাওয়া যাচ্ছে। এমনও দেখা গেছে, কারও মূল স্ট্যাটাসকে বিকৃত করে স্ক্রিনশট আকারে তুলে দেওয়া হচ্ছে। যা বিদ্বেষ ছড়াচ্ছে, সমাজে ঘৃণা উসকে দিচ্ছে। স্বভাবতই প্রশ্ন উঠেছে, ফেসবুকে একজনের স্ট্যাটাস আরেকজন কি পরিবর্তন করতে পারেন?


সংশ্লিষ্টরা বলছেন, স্ট্যাটাস পরিবর্তন করা সম্ভব। এমন অনেক টুল অনলাইনে, এমনকি ফেসবুকেই আছে। সেসব ব্যবহার করে বক্তব্য বদলে বা অর্থ পরিবর্তন করে স্ক্রিনশট আকারে ফেসবুকে প্রকাশ করা সম্ভব। অন্তত তিনটি উপায়ে এসব করা যায় বলে প্রযুক্তি বিশেষজ্ঞরা জানিয়েছেন।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, কারও স্ট্যাটাস কপি করে ওই সব টুল ব্যবহার করে প্রকৃত স্ট্যাটাসের কোনও লাইন পরিবর্তন করে তাতে স্পর্শকাতর কোনও অংশ জুড়ে দিয়ে ফেসবুকে ছেড়ে দেওয়া সম্ভব। আর এখন অনেক ক্ষেত্রে এসবই হচ্ছে। আর এভাবে বিদ্বেষপ্রসূত কোনও স্ট্যাটাস সংশ্লিষ্ট কোনও গোষ্ঠীর বিপক্ষে দিলে তা অনেক সময় ভাইরাল হয়ে যায়।

প্রযুক্তি নিরাপত্তা বিশ্লেষক বাংলাদেশ নেটওয়ার্ক অপারেটর্স গ্রুপের (বিডিনগ) ট্রাস্টি বোর্ডের চেয়ারম্যান সুমন আহমেদ সাবির বলেন, ‘সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমকে আমরা সবকিছুর উৎস বানিয়ে ফেলেছি এবং বিশ্বাস করছি। এটা ঠিক নয়। সবকিছু বিশ্বাস করা যাবে না। আগে যাচাই করতে হবে স্ট্যাটাসটি যিনি দিয়েছেন তিনি এটি দিতে পারেন কিনা বা তার ওয়ালে গিয়ে চেক করা যে সেখানে স্ট্যাটাসটি আছে কিনা।’ কারণ হিসেবে তিনি উল্লেখ করেন, কারও স্ট্যাটাস একটু মডিফাই (বা পরিবর্তন) করে অর্থ বদলে দিয়ে তা পোস্ট দেওয়া সম্ভব। এটা মানুষকে, সমাজকে এমনকি দেশকে বিপদে ফেলতে পারে। রাজনৈতিক সংঘাত ডেকে আনতে পারে। এজন্য তিনি সবাইকে সচেতন থাকার আহ্বান জানান।

সুমন আহমেদ সাবির বলেন, ‘ভুয়া স্ট্যাটাস মানুষের বিপদ ডেকে আনতে পারে, তাকে ঝুঁকিতে ফেলতে পারে। এ ধরনের ঘটনা ঘটলে এবং তা বুঝতে পেরে চিহ্নিত করে প্রটেস্ট (প্রতিবাদ) করলে তা কমে আসবে।’ সমাজে আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা এবং এ ধরনের অপরাধ করলে তা আইনের আওতায় নিয়ে বিচার করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দিলে এসব কমতে পারে বলে মনে করেন তিনি। সম্প্রতি কোটা সংস্কার আন্দোলনে এ ধরনের অনেক ঘটনা ঘটেছে বলেও তিনি মন্তব্য করেন।

ফেসবুক ডেভেলপার গ্রুপের সাবেক ব্যবস্থাপক আরিফ নিজামী বলেন, ‘সম্প্রতি কারও কারও স্ট্যাটাস পরিবর্তন করে নতুন লাইন জুড়ে দিয়ে তা স্ক্রিনশট আকারে আবারও স্ট্যাটাস দেওয়া হচ্ছে। এগুলো এত নিখুঁতভাবে করা হয়ে যে কোনোভাবেই বোঝার উপায় থাকে না যে এটা ভুয়া স্ট্যাটাস।’ তিনি বলেন, ‘এসব দেখেই প্রথমে বিশ্বাস করা উচিত নয়। এর চেয়ে বরং মূল স্ট্যাটাসটি দেখে আসা যেতে পারে। সার্চ অপশনে গিয়ে একটু চেষ্টা করলেই তা খুঁজে পাওয়া সম্ভব।’

তিনি জানান, রাতারাতি অনেক আইডি তৈরি হয়ে কোনও বিষয়ে প্রচারণা চালানো বা কুৎসা রটানো হতে পারে। বিষয়টি পরীক্ষার জন্য ওই আইডি কবে ক্রিয়েট হয়েছে এবং ইউজার নেম বা ইউআরএল পরীক্ষা করলেই তা বোঝা সম্ভব। তিনি বলেন, ‘অনেক সময় ইউজার নেম বদলেও এ ধরনের স্ট্যাটাস ছাড়া হতে পারে। সে ক্ষেত্রে ইউআরএল ভালো করে পরীক্ষা করে দেখলেই মূল তথ্য অনেকাংশে উদঘাটন করা সম্ভব।’ আরিফ নিজামী জানান, প্রযুক্তি ব্যবহারকারীরা যদি প্রযুক্তিতে সচেতন না হন, শিক্ষিত না হন তাহলে এ ধরনের ভুল নিউজ বা ভুয়া স্ট্যাটাসের জয়জয়কার থামবে না। তিনি বলেন, “‘তুমি ইন্টারনেটে যা দেখো তা-ই বিশ্বাস কোরো না, যাচাই করে বিশ্বাস করো’, তাহলে এ ধরনের গুজব বা ভুয়া স্ট্যাটাস ডালপালা মেলতে পারবে না।”

তিনি উল্লেখ করেন, যারা এভাবে বিপদে পড়েন (স্ট্যাটাস পরিবর্তন হয়ে যাওয়া) তারা বুঝে হোক বা না হোক নিজেকে রক্ষা করার নিমিত্তে ফেসবুক আইডি হ্যাক হওয়ার কথা বলেন। আসলে তিনি নিজেও জানেন না যে তার আইডি হ্যাক হয়নি। একটু চেক করলেই এটা বোঝা যায়।

দেশে তিন কোটির বেশি ফেসবুক ব্যবহারকারী থাকায় এসব অপকর্মের মাধ্যম হিসেবে ফেসবুকের নামই সবার আগে চলে আসছে। ফেক টুইট বা ফেসবুক স্ট্যাটাস জেনারেটর টুলস দিয়েও এসব করা হচ্ছে বলেও জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা।

অন্যদিকে একই কায়দায় মেসেঞ্জারের চ্যাট বক্সের ক্রিনশট নিয়ে ‘যা বলা হয়েছে’ তা সম্পাদনা করে নতুন লাইন যুক্ত করেও স্ট্যাটাস দেওয়া যাচ্ছে। এগুলো এতটাই নিখুঁত হচ্ছে যে যার মেসেজ বক্স থেকে স্ক্রিনশট নেওয়া হয়েছে, তিনি নিজেও ঠিক বুঝে উঠতে পারেন না এটা তার নয়।

পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগের একজন দায়িত্বশীল কর্মকর্তা পরিচয় গোপন রাখার শর্তে  জানান, এ ধরনের কোনও ঘটনায় কেউ সংক্ষুব্ধ হলে তার অভিযোগ আমলে নেওয়া যেতে পারে। পরে তার অভিযোগের ভিত্তিতে সংশ্লিষ্ট স্ট্যাটাস, স্ক্রিনশট পরীক্ষা করে দেখে নিশ্চিত হওয়া যেতে পারে কাজটি তিনি করেছেন কিনা।

ওই কর্মকর্তা তার বিভাগের আইটি ফরেনসিক ল্যাবের কথা উল্লেখ করে বলেন, ‘এখানে যেসব প্রযুক্তি রয়েছে তা দিয়ে অনলাইনে ঘটে যাওয়া যেকোনও ঘটনার প্রকৃত চিত্র উদঘাটন করা সম্ভব।’

আজকাল সবাই কমবেশি স্বাস্থ্যসচেতন। তবে হ্যাঁ, বিকেলবেলার নাশতায় মন যদি মুখরোচক কিছু দাবি করে বসে, তখন দেখা দেয় মুশকিল। কারণ মুখরোচক খাবার মানেই ভাজাপোড়া, অর্থাৎ অনেকটা কার্বোহাইড্রেট-ফ্যাট ও ক্যালোরি গ্রহণ করে ফেলা।


স্বাস্থ্যকর স্ন্যাক্সের বিষয়টি মাথায় রেখে আজ নিয়ে এলো সায়মা সুলতানার আরও একটি দারুণ রেসিপি ‘কাবুলি ছোলার চাট’। এতে তেল আছে মাত্র আধা চা চামচ, কার্বোহাইড্রেটও খুব সামান্য। প্রোটিন ও স্বাদে ভরপুর খাবারটির তৈরি করাটাও ভীষণ সহজ। ঠিক রেস্তোরাঁর মতো স্বাদ আনার কৌশল বিস্তারিত থাকছে রেসিপিতে।
 

উপকরণ

—কাবুলি ছোলা সেদ্ধ করে নেয়া ১ কাপ
—আলু সেদ্ধ করে টুকরা করে নেয়া ১/৪ কাপ (আলু খেতে না চাইলে পছন্দের অন্য সবজি দিতে পারেন)
—ধনিয়া পাতা মিহি কুচি ২ টেবিল চামচ
—পেঁয়াজ ছোট কিউব ৪ টেবিল চামচ
—কাঁচামরিচ পছন্দমতো
—আস্ত ধনিয়া দেড় চা চামচ
—আস্ত জিরা ১ চা চামচ
—আজওয়াইন আস্ত আধা চা চামচ (বাংলাতে এটাকে জৈন বলে, যদিও আজওয়াইন নামেই বাজারে পরিচিত। একরকম জিরার মতো দেখতে কিন্তু ছোট। যদি না পাওয়া যায় তাহলে বাদ দিয়েও করতে পারেন।)
—বিট লবণ আধা চা চামচ
—শুকনা মরিচ ফাঁকি আধা চা চামচ (কমবেশি করা যাবে )
—লবণ, বিট লবণ ও তেল স্বাদমতো
 

প্রণালি

—প্রথমে আস্ত ধনিয়া, আস্ত জিরা, আস্ত আজওয়াইন একটা প্যানে নিয়ে কম আঁচে হালকা লাল করে ভেজে নিন। খুব বেশিক্ষণ নয়, আধা মিনিটে হয়ে যাবে। বেশিক্ষণ ভাজলে তেতো হয়ে যাবে।

—আস্ত ভাজা মসলাগুলো এবার হামানদিস্তায় ছেঁচে নিন। একটু আধা ভাঙা করলেই হবে, মিহিদানার মতো গুঁড়া প্রয়োজন নেই।

—এখন একটা ননস্টিক প্যানে আধা চা চামচ তেল দিয়ে এতে কাবুলি ছোলা ও সেদ্ধ আলু টুকরা দিন। বাদামি করে ভাজুন। এবার এতে পেঁয়াজ কুচি, মরিচ কুচি, ধনিয়া পাতা কুচি, ছেঁচে রাখা শুকনো মসলা, বিট লবণ, স্বাদমতো লবণ, শুকনা মরিচ ফাঁকি দিয়ে দিন। ৩ থেকে ৫ মিনিট রান্না করে নামিয়ে নিন।
 

সসের জন্য

—টক দইয়ের সঙ্গে বিট লবণ, চিনি, জিরা গুঁড়া, মিহি কুচি ধনিয়া পাতা, মিহি কুচি পুদিনা আপনার স্বাদ অনুযায়ী দিন। একসঙ্গে ফেটিয়ে মিশ্রণ বানিয়ে নিন।

—বাটিতে চাট নিন এবং এর ওপর খানিকটা দইয়ের মিশ্রণ দিন। অল্প তেঁতুলের মাড় আর ভুজিয়া দিয়ে পরিবেশন করুন কাবুলি ছোলার চাট।

 মাই গ্যালাক্সি অ্যাপ ব্যবহারকারীদের জন্য বিশেষ অফার

গ্রাহকদের স্মার্টফোন ব্যবহারের অভিজ্ঞতাকে আরও উন্নত করার জন্য স্যামসাং বাংলাদেশ ২০১৭ সালের সেপ্টেম্বর মাসে চালু করেছে মাই গ্যালাক্সি অ্যাপ। অ্যাপটি শুধু স্যামসাং গ্যালাক্সি স্মার্টফোন ব্যবহারকারীদের জন্য তৈরি করা হয়েছে। এই অ্যাপ ব্যবহার করে গ্রাহকরা দেশের শীর্ষস্থানীয় ব্র্যান্ডের লাইফ স্টাইল পণ্য, বই, ভ্রমণ এবং গানের উপর আকষর্ণীয় ছাড় পাবেন। এখন পর্যন্ত মাই গ্যালাক্সি অ্যাপ দেশের শীর্ষ স্থানীয় ব্র্যান্ড গুলোর মধ্যে উবার, বাগডুম, এবং গো-জায়ানের সাথে পার্টনারশিপ করেছে।


এছাড়াও খুব শীঘ্রই দেশের একটি জনপ্রিয় এবং বিখ্যাত বিনোদন প্ল্যাটফর্ম মাই গ্যালাক্সি অ্যাপের সাথে পার্টনারশিপ করবে। উবারে চলাচল হবে এখন আরও সাশ্রয়ী কারণ মাই গ্যালাক্সি অ্যাপ এবার উবারের পার্টনার হয়েছে। মাই গ্যালাক্সি অ্যাপের সাহায্যে নতুন উবার ব্যবহারকারীরা তাদের প্রথম দুই রাইডে ১০০ টাকা ডিসকাউন্ট পাবেন। ডিসকাউন্ট পাওয়ার জন্য গ্রাহককে মাই গ্যালাক্সি অ্যাপের সাহায্যে কুপন তৈরি করতে হবে। এরপর উবার অ্যাপ ডাউনলোড করতে হবে। উবার অ্যাপ ডাউনলোড করার পর গ্রাহককে একটি অ্যাকাউন্ট খুলতে হবে এবং এরপরই একজন গ্রাহক তার ডিসকাউন্ট কুপন ব্যবহার করতে পারবেন।

দেশের প্রখ্যাত ই-কমার্স সাইট বাগডুম গ্রাহকদের এক্সক্লুসিভ ডিল দেয়ার জন্য মাই গ্যালাক্সি অ্যাপের সাথেও পার্টনার হয়েছে। ইলেক্ট্রনিক্স পণ্য ছাড়া বাগডুম তাদের অন্য সব পণ্যে ৮% ছাড় প্রদান করছে। এছাড়াও মাই গ্যালাক্সি অ্যাপ এবং গো-জায়ান একত্রিত হয়ে সব আন্তর্জাতিক ফ্লাইট বুকিংয়ে ৫% ডিসকাউন্ট সুবিধা প্রদান করছে। মাই গ্যালাক্সি অ্যাপে দিয়ে সার্ভিস ট্রাকারের সাহায্যে যে কেউ তার মোবাইলফোন মেরামতের অগ্রগতি এবং কোন পর্যায় আছে তা জানতে পারবেন। এই সার্ভিস কেয়ার অপশনটি মাই গ্যালাক্সি অ্যাপের কেয়ার সেকশনে পাওয়া যাবে। সার্ভিস অগ্রগতি ট্র্যাক করার জন্য একজন গ্রাহককে তার মোবাইল সম্পর্কিত কিছু মৌলিক তথ্য অ্যাপে ইনপুট করতে হবে।

বাংলাদেশে গ্যালাক্সি অ্যাপ চালু হওয়ার পর থেকেই এর বিষয়বস্তু, সুবিধা এবং কেয়ারের জন্য গ্রাহকদের কাছে জনপ্রিয়তা লাভ করেছে। ২০১৭ সালে চালু হওয়ার পর খুব কম সময়ের মধ্যে ১ লাখেরও বেশী ব্যবহারকারী পেয়েছে যা দিনে দিনে বেড়েই চলছে। ব্যবহারকারীদের মধ্যে এই জনপ্রিয়তার দেখে, মাই গ্যালাক্সি অ্যাপ আরও পার্টনার বাড়ানোর মাধ্যমে গ্রাহকদের জীবনকে আরও সহজ করে তোলার পরিকল্পনা করছে।

মুয়ীদুর রহমান, হেড অফ মোবাইল, স্যামসাং বাংলাদেশ বলেন, “মাই গ্যালাক্সি অ্যাপ বিভিন্ন সুবিধা এবং সহযোগিতা প্রদানের জন প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। এই অনন্য অ্যাপটি শুধু স্যামসাং স্মার্টফোন ব্যবহারকারীদের জন্য তৈরি করা হয়েছে যার মাধ্যমে একজন গ্রাহক বিভিন্ন ধরণের ডিসকাউন্ট এবং অফার উপভোগ করতে পারবেন।”

স্যামসাং অ্যান্ড্রয়েড স্মার্টফোন ব্যবহারকারীরা গুগল প্লে থেকে মাই গ্যালাক্সি ডাউনলোড করতে পারবেন। এছাড়াও এই অ্যাপটি স্যামসাং-এর নতুন সব স্মার্টফোনের সাথে আগে থেকেই দেয়া থাকবে। আকর্ষণীয় অফারগুলো উপভোগ করার জন্য গ্রাহকদেরকে মাই গ্যালাক্সি অ্যাপের সার্ভিস সেকশনে যেতে হবে এবং কুপন তৈরি করতে হবে। নির্ধারিত কুপন নাম্বারের সাহায্যে একজন গ্রাহক কেনাকাটাতে ডিসকাউন্ট উপভোগ করতে পারবেন।

 

আজ (১৮ এপ্রিল) অন্যতম আলোচিত নায়ক-প্রযোজক অনন্ত জলিলের জন্মদিন। বর্তমানে ধর্মীয় কাজে বেশ সক্রিয় থাকা এ তারকা আজকের দিন কাটানোর জন্য বেছে নিয়েছেন পবিত্র শহর মক্কাকে।


সপরিবারে সেখানে অবস্থান করছেন তিনি। সেখান থেকেই ফেসবুকের মাধ্যমে তিনি জানান, বাস চাপায় হাত হারানো মারা যাওয়া যুবক রাজীবের পরিবারের দায়িত্ব নিয়েছেন তিনি। তার অসহায় দুই ভাইয়ের লেখাপড়ার ভার নিজ কাঁধে তুলে নিতে চান বলে জানান এই তারকা।

মঙ্গলবার রাতে অনন্ত জলিল জানিয়েছেন, কিছু দিন আগে বাস দুর্ঘটনায় রাজীব নামে একজন মেধাবী শিক্ষার্থী তার হাত হারিয়েছিলেন। এবং আজ তিনি পৃথিবী হতে বিদায় নিয়েছেন। যা আমাকে বেশ মর্মাহত করেছে। বাবা-মা হারা এই সন্তান তার ছোট দুই ভাইকে পিতা-মাতার স্নেহ দিয়ে আগলে রেখেছিলেন।

কিন্তু রাজীবের অকাল বিদায়ে তার দুই ছোট ভাইয়ের ভবিষ্যৎ হুমকির মুখে পড়েছে। তাই আমার জন্মদিনে আমি চাচ্ছি যে পরিবার হারা এই দুই সন্তানের পড়ালেখার দায়িত্ব নিতে।

উল্লেখ্য, গত ৩ এপ্রিল দুপুরে রাজধানীর কাওরানবাজারে সার্ক ফোয়ারার সামনে দুই বাসের চাপায় তিতুমীর কলেজের ছাত্র রাজীব হোসেনের (২২) হাত শরীর থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। আহত অবস্থায় প্রথমে তাকে পান্থপথের শমরিতা হাসপাতালে নেওয়া হয়। পরে ৪ এপ্রিল বিকালে উন্নত চিকিৎসার জন্য রাজীবকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে নেওয়া হয়। গত ৬ এপ্রিল রাজীবের চিকিৎসায় গঠিত মেডিক্যাল বোর্ডের প্রধান ও ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের অর্থোপেডিক বিভাগের প্রধান অধ্যাপক ডা. শামসুজ্জামান শাহীন জানিয়েছিলেন, রাজীব এখনও আশঙ্কামুক্ত নয়। কারণ, তার হেড ইনজুরি আছে। মাথার সামনের অংশ আঘাতপ্রাপ্ত। মাথার হাড়ে ফাটল আছে। এরপর গত ১৭ এপ্রিল ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের আইসিইউ’তে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান রাজীব।

এদিক অন্তত জলিলের এমন জনহিতকর কাজ এটাই প্রথম নয়। এর আগে পরিচালক এফ আই মানিকের স্ত্রীর চিকিৎসার জন্য তার পাশে দাঁড়িয়েছিলেন অসম্ভবকে সম্ভব করা এ নায়ক। এছাড়া নিজে এতিমখানা পরিচালনাসহ জাতীয় দুর্যোগে দেশের মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছেন অনন্ত জলিল।

 

 নেদারল্যান্ডের রাজধানী আমস্টারডামে সংঘটিত ‘ফিউনারেল ফেয়ার’ মেলায় স্বেচ্ছামৃত্যুর সুযোগ করে দেবে এমন একটি যন্ত্র প্রকাশ করা হয়েছে। এই যন্ত্রটি তৈরি করেছেন অস্ট্রেলীয় উদ্ভাবক এবং চিকিৎসক ফিলিপ নিৎশকে।


১৫ এপ্রিল, রবিবার বিজ্ঞানবিষয়ক ওয়েবসাইট সিনেটের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, আমস্টারডামের এই মেলায় ‘সার্কো’ নামের এই যন্ত্রের প্রদর্শনী করেন ফিলিপ নিৎশকে। থ্রি-ডি প্রিন্টারে তৈরি এই যন্ত্রটি স্বেচ্ছামৃত্যুর ধরন পাল্টে দেবে বলে তিনি আশা করেন। এই যন্ত্রের সাহায্য কোনো কষ্ট ছাড়াই একজন মানুষ মৃত্যুবরণ করতে পারবেন।

‘সার্কো’ নামটি এসেছে ‘সার্কোফ্যাগাস’ শব্দটি থেকে। পাথরের তৈরি অলঙ্কৃত কফিনকে সার্কোফ্যাগাস বলা হয়। কফিনের মতো এই যন্ত্রটি একটি স্ট্যান্ডের ওপর দাঁড় করানো আছে। এর সঙ্গে সংযুক্ত আছে নাইট্রোজেনের একটি ক্যান। ফিলিপ নিৎশকে বার্তা সংস্থা এএফপিকে জানিয়েছেন, স্বেচ্ছামৃত্যু চাইলে এই কফিনের ভেতরে শুয়ে একটি বোতাম চাপতে হবে। এতে ওই কফিনের ভেতরটা নাইট্রোজেনে ভরে যাবে। প্রথমে একটু মাথা ঘোরার ভাব হবে। এরপর ওই ব্যক্তি অচেতন হয়ে যাবেন এবং কিছু সময় পর মারা যাবেন।

ফিলিপ নিৎশকে নিজেকে ‘স্বেচ্ছামৃত্যু এবং ‘যুক্তিযুক্ত আত্মহত্যার’ পক্ষে একজন কর্মী মনে করেন। ‘এক্সিট ইন্টারন্যাশনাল’ নামে একটি প্রতিষ্ঠান রয়েছে তার, যেখানে বলা হয় অসুস্থ এবং মৃত্যুপথযাত্রী একজন মানুষের অধিকার রয়েছে নিজের মৃত্যু বেছে নেওয়ার। তিনি মনে করেন, স্বেচ্ছামৃত্যু এবং আত্মহত্যা দুটোই মানুষের অধিকার। এ কারণেই সার্কো তৈরি করেছেন তিনি।

 

ভারতের পশ্চিমবঙ্গের কলকাতা ও আশেপাশের কয়েকটি জেলায় কালবৈশাখী ঝড়ে কমপক্ষে ১১ জনের মৃত্যু হয়েছে।


সংবাদ মাধ্যম বিবিসি বাংলার খবরে বলা হয়েছে, ঝড়ে গাছ ভেঙে পড়ায় ও ভবন ধসে পড়ার ঘটনায় এদের মধ্যে অনেকেই মারা যান। এ ছাড়া বজ্রপাতে একজনের মৃত্যু হয়েছে।

নিহতদের মধ্যে চারজন কলকাতায়,পাঁচজন হাওড়াতে এবং একজন হুগলী ও একজন বাঁকুড়া জেলায় মারা যান বলে রাজ্যের দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা নিয়ন্ত্রণ কক্ষ থেকে জানানো হয়েছে।

১৭ এপ্রিল, মঙ্গলবার দেশটিতে সন্ধ্যায় প্রতি ঘণ্টায় ৮০ থেকে ১০০ কিলোমিটার বেগে বাতাস বইতে থাকে। এ সময় শত শত গাছ ভেঙে সড়কে পড়ার পর যান চলাচল মারাত্মক বিঘ্ন হয়। 

যদিও বজ্রসহ বৃষ্টির ব্যাপারে আগেই পূর্বাভাস ছিল তবে বাতাসের গতি এত থাকবে তেমন কোনো ধারণাই ছিল না।

এদিকে কর্মকর্তারা বলছেন, বজ্রসহ ঝড়ের সঙ্গে এত বাতাসের গতি গত কয়েক দশকেও দেখা যায়নি।

ইন্টারনেটে ধীর গতি 

দেশের ইন্টারনেটে ধীর গতি ভর করেছে। মঙ্গলবার (১৭ এপ্রিল) সন্ধ্যার পর থেকে বিভিন্ন ফেসবুকসহ বিভিন্ন ওয়েবসাইটে প্রবেশ করতে সমস্যা হচ্ছে। বেশিরভাগ সময়ই ‘লোডিং’ দেখাচ্ছে। জানা গেছে, দুটি আইটিসির (ইন্টারন্যাশনাল টেরিস্ট্রিয়াল ক্যাবল) ফাইবার ডাউন হওয়াটাই এই সমস্যা সৃষ্টি করেছে।


জানা গেছে, ক্যাবল মেরামত শেষ হলেই ইন্টারনেটে পূর্ণ গতি ফিরবে। ইতোমধ্যে একটি আইটিসি লাইভ (সচল) হয়েছে। অন্য আইটিসিটি সচল হতে আরও তিন ঘণ্টা লাগতে পারে।

দেশের ইন্টারনেট সেবাদাতা প্রতিষ্ঠানগুলোর সংগঠন আইএসপিএবি’র সাধারণ সম্পাদক ইমদাদুল হক বলেন, ‘আমরা জানতে পেরেছি আইটিসি প্রতিষ্ঠান ফাইবার অ্যাট হোম ও সামিট কমিউনিকেশনের ক্যাবল কাটা পড়ায় বেনাপোল থেকে ঢাকার ট্রান্সমিশন লাইন ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এ কারণে ব্যান্ডউইথ পরিবহনে ব্যাঘাত ঘটায় ইন্টারনেটে ধীর গতি ভর করেছে।’

আইএসপিএবি’র সাধারণ সম্পাদকের ভাষ্য, ‘যাদের ব্যান্ডউইথের ব্যাকআপ আছে, তাদের কোনও সমস্যা হয়নি। আর যারা এই দুই আইটিসির ওপর শতভাগ নির্ভরশীল ও ব্যাকআপ নেই, তারাই মূলত সমস্যায় পড়েছেন।’

নিজের প্রতিষ্ঠান অপটিম্যাক্স সল্যুশনের কথা উল্লেখ করে ইমদাদুল হক বলেন, ‘সাবমেরিন ক্যাবলের ব্যান্ডউইথের পর্যাপ্ত ব্যাকআপ থাকায় আমাদের গ্রাহকদের কোনও সমস্যা হয়নি।’

শুরু হচ্ছে ‘সেলিব্রেটিং লাইফ’ প্রতিযোগিতা 

আবারও শুরু হচ্ছে ‘দ্য ডেইলি স্টার-স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ড সেলিব্রেটিং লাইফ’ প্রতিযোগিতা। আলোকচিত্র, গানের লিরিক ও স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র নিয়ে এবার ১১তমবারের মতো এ আয়োজন করা হচ্ছে।


এ উপলক্ষে ১৭ এপ্রিল সকাল ১১টায় রাজধানীর প্যান-প্যাসিফিক সোনারগাঁও হোটেল এক সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়েছে। সেখানেই এবারের আয়োজনের থিম ও সময়সূচি ঘোষণা করা হবে বলে জানায় আয়োজক ডেইলি স্টার ও স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ড ব্যাংক।

এদিকে আয়োজনের অংশ হিসেবে গতকাল ১৬ এপ্রিল সন্ধ্যায় ঢাকায় ডেইলি স্টার মিলনায়তনে বই প্রকাশনা অনুষ্ঠান করা হয়। বইয়ে গত ২০১৬-১৭ বছরে অংশ নেওয়া আলোকচিত্রীদের স্থিরচিত্র স্থান পেয়েছে। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ইমেরেটাস অধ্যাপক আনিসুজ্জামান। তিনি আয়োজকদের সাধুবাদ জানিয়ে বলেন, ‘এমন উদ্যোগকে সাধুবাদ না জানিয়ে পারা যায় না। আমরা বৈশ্বিক উন্নতির খবর পাই। কিন্তু সাংস্কৃতিক ক্ষেত্রেও এগিয়ে যাচ্ছি তা এই বই দেখে বোঝা যায়। এটি একটি দলিল।’

অনুষ্ঠানে অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন গীতিকবি মোহাম্মদ রফিকউজ্জামান, অভিনেত্রী সুচন্দা, ববিতা, জ্যোতিকা জ্যোতি, অভিনেতা ফারুক, শহিদুল আলম সাচ্চু, সংগীতশিল্পী রফিকুল আলম, আবিদা সুলতানাসহ অনেকে। বইয়ের মোড়ক উন্মোচনে বেশিরভাগ অতিথিরা অংশ নেন। এরপর বক্তব্যেও অংশ নেন সুচন্দা, ববিতা ও আয়োজক কর্তৃপক্ষ।

অনুষ্ঠানের আয়োজক ডেইলি স্টারের সম্পাদক ও প্রকাশক মাহ্‌ফুজ আনাম জানান, এবারও তিনটি ক্যাটাগরিতে প্রতিযোগিতা হবে। বিভাগগুলো হলো- আলোকচিত্র, গানের লিরিক ও স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র। পেশাদার ও অপেশাদার ব্যক্তিরা এতে অংশ নিতে পারবেন। প্রকাশনা উৎসব শেষে সংগীত পরিবেশন করে ব্যান্ড লালন।

 

মানসিক চাপ, রাতে ঘুম না হওয়াসহ বিভিন্ন কারণে চোখের আশেপাশের ত্বক কালচে হয়ে যেতে পারে। ডার্ক সার্কেল দূর করার জন্য নিয়মিত ঘুম জরুরি। পাশাপাশি যত্ন নিতে হবে ত্বকের। অ্যালোভেরা ও কয়েকটি মিশ্রণের তৈরি জেল প্রতিদিন এক মিনিট করে ঘষলে কয়েক সপ্তাহের মধ্যেই কমতে শুরু করবে ডার্ক সার্কেল।


যা যা লাগবে জেল তৈরি করতে


    বিশুদ্ধ অ্যালোভেরা জেল আধা চা চামচ
    জাফরান ৩/৪ টি
    খাঁটি ক্যাস্টর অয়েল কয়েক ফোঁটা
    খাঁটি আমন্ড তেল কয়েক ফোঁটা
    ভার্জিন নারকেল তেল কয়েক ফোঁটা

যেভাবে তৈরি ও ব্যবহার করবেন

সব উপাদান একটি কাচের পাত্রে ভালো করে মিশিয়ে নিন। জাফরান খুব ভালো থেকে থেঁতো করে নিতে হবে। এভাবে রেখে দিন আধা ঘণ্টা। জাফরান রং ছেড়ে মিশ্রণটি কমলা হয়ে গেলে বুঝবেন এটি ব্যবহারের জন্য তৈরি। এই মিশ্রণটি রোজ তৈরি করতে হবে। একবার তৈরি করে বারবার ব্যবহার করা যাবে না। মুখ ভালো করে ধুয়ে মুছে মিশ্রণ থেকে খানিকটা নিয়ে চোখের আশেপাশের অংশে ম্যাসাজ করুন। প্রত্যেক চোখে এক মিনিট ম্যাসাজ করতে হবে। ধুয়ে ফেলার প্রয়োজন নেই। রাতে লাগিয়ে পরদিন ধুয়ে ফেলুন।

ওয়ালটনের নতুন স্মার্টফোন প্রিমো এফ৮ 

দেশে তৈরি নতুন আরেকটি সাশ্রয়ী স্মার্টফোন উন্মোচন করেছে ওয়ালটন। ‘প্রিমো এফ৮’ নামের ডিভাইসটির মূল্য পাঁচ হাজার ৯৯ টাকা।


অ্যান্ড্রয়েড ৭.০ নুগাটচালিত ওয়ালটন প্রিমো এফ৮ স্মার্টফোনে ব্যবহৃত হয়েছে পাঁচ ইঞ্চির আইপিএস এফডব্লিউভিজিএ ডিসপ্লে। এক গিগাবাইট র‍্যামের এ স্মার্টফোনে উচ্চগতি নিশ্চিতে আছে ১ দশমিক ৩ গিগাহার্টজের কোয়াড-কোর প্রসেসর। গ্রাফিক্স হিসেবে ব্যবহৃত হয়েছে মালি-৪০০। ডিভাইসটিতে ৮ গিগাবাইট অভ্যন্তরীণ তথ্য সংরক্ষণের সুবিধা রয়েছে, যা মাইক্রো এসডি কার্ডের মাধ্যমে সর্বোচ্চ ৬৪ গিগাবাইট পর্যন্ত বাড়ানো যাবে। এ ছাড়া ৫ মেগাপিক্সেলের রিয়ার ও ফ্রন্ট ফেসিং ক্যামেরা আছে। এলইডি ফ্ল্যাশযুক্ত পেছনের ক্যামেরায় নরমাল মোড ছাড়াও প্রফেশনাল, ফেস বিউটি, প্যানোরমা, এইচডিআর, সিন ফ্রেম, স্পোর্টস মোড, নাইট মোডে ছবি তোলা যাবে।

ডিভাইসটিতে ২০০০ মিলিঅ্যাম্পিয়ার আওয়ারের লি-আয়ন ব্যাটারি আছে। থ্রিজি সমর্থিত ডিভাইসটিতে একসঙ্গে দুটি সিম ব্যবহার করা যাবে।

ডিভাইসটি নিয়ে ওয়ালটন সেলুলার ফোন গবেষণা ও উন্নয়ন বিভাগের সিনিয়র ডেপুটি ডিরেক্টর আরিফুল হক রায়হান জানান, ‘মেড ইন বাংলাদেশ’ ট্যাগযুক্ত এ স্মার্টফোন তৈরি হয়েছে গাজীপুরের চন্দ্রায় ওয়ালটন ডিজি-টেক ইন্ডাস্ট্রিজের নিজস্ব কারখানায়।

তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশে তৈরি এ স্মার্টফোনে ক্রেতারা পাবেন বিশেষ রিপ্লেসমেন্ট সুবিধা। ডিভাইসটি ক্রয়ের ৩০ দিনের মধ্যে যেকোনো ধরনের ত্রুটিতে পাল্টে ক্রেতাকে নতুন আরেকটি ফোন দেওয়া হবে। এ ছাড়া ১০১ দিনের মধ্যে প্রায়োরিটি বেসিসে ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে ক্রেতা বিক্রয়োত্তর সেবা পাবেন। ডিভাইসটির সঙ্গে এক বছরের ব্যাটারি এবং চার্জারে ছয় মাসের বিক্রয়োত্তর সেবা তো আছে।

ট্রান্সসেন্ড এর বৈশাখী অফার 

এই বৈশাখ মাসজুড়ে বিশ্বখ্যাত ব্যান্ড ট্রান্সসেন্ড এর যে কোন পণ্য কিনলেই গ্রাহকরা পাবেন সর্বোচ্চ ২৫% পর্যন্ত মূল্য ছাড়। ট্রানসেন্ড এর পেন ড্রাইভ, পোর্টেবল হার্ড ড্রাইভ, মেমোরী কার্ড সহ যে কোন পণ্য কিনলেই গ্রাহকরা পণ্যের মূল্যের উপর এই নিশ্চিত ছাড়টি পাবেন।


দেশের যে কোন প্রান্তের রিটেইল সপ থেকে অথবা অনলাইনে পণ্য ক্রয়ের ক্ষেত্রেও এই অফারটি গ্রহন করতে পারবেন। এই অফারটি আগামী ১৩ই মে অর্থাৎ পুরো বৈশাখ মাস জুড়ে গ্রহকেরা উপভোগ করতে পারবেন।

বিস্তারিত জানতে ভিজিট করুন www.ucc-bd.com. অথবা www.facebook.com/ucc.bd, কল করুনঃ ০১৮৩৩৩৩১৬২২, ০১৮৩৩৩৩১৬৪৭

বিশ্বের সবচেয়ে প্রশংসিত নারীর তালিকায় তারা 

আন্তর্জাতিক অঙ্গনে এখন ভারতীয় বিনোদন অঙ্গনের সবচেয়ে বড় তিন বিজ্ঞাপন ঐশ্বরিয়া রাই বচ্চন, প্রিয়াঙ্কা চোপড়া ও দীপিকা পাড়ুকোন। এই তিন অভিনেত্রী এবার জায়গা করে নিলেন বিশ্বের সবচেয়ে প্রশংসিত ২০ নারীর তালিকায়। ইউগভ পরিচালিত বার্ষিক এক জরিপ অনুযায়ী এটি সাজানো হয়েছে। এতে টানা দ্বিতীয় বছরের মতো শীর্ষে আছেন অ্যাঞ্জেলিনা জোলি।


বিশ্বজুড়ে বিনোদন, রাজনীতি ও সমাজকল্যাণে সক্রিয় শীর্ষ ২০ নারীকে রাখা হয়েছে তালিকায়। মূলত দুটি প্রশ্নের মাধ্যমে জরিপ পরিচালনা করেছে ইউগভ। প্রশ্নগুলো হলো—কারা প্রশংসার দাবিদার ও তারা সবচেয়ে প্রশংসিত কিনা। এরপর জনসংখ্যার আকার অনুযায়ী প্রতিটি দেশের ফলাফল তুলনা করে দেখা হয়েছে। জরিপে অংশ নেন ৩৫টি দেশের মোট ৩৭ হাজার মানুষ।

তালিকায় ১১ থেকে ১৩ নম্বর স্থানগুলো ভারতীয়দের দখলে। ১১ নম্বরে ঐশ্বরিয়া রাই বচ্চন, তারপরে প্রিয়াঙ্কা ও ১৩ নম্বরে আছেন দীপিকা। এবারই প্রথম তারা জায়গা পেলেন বিশ্বের সবচেয়ে প্রশংসিত নারীর তালিকায়।

গত বছর আন্তর্জাতিক অঙ্গনে ভারতের তিন অভিনেত্রীরই জনপ্রিয়তা বেড়েছে। কান চলচ্চিত্র উৎসবে অংশ নিয়ে আলোচিত হন ঐশ্বরিয়া। আর প্রিয়াঙ্কা (বেওয়াচ) ও দীপিকার (ট্রিপল এক্স: দ্য রিটার্ন অব জ্যান্ডার কেজ) অভিষেক হয়েছে হলিউডে।

তিন ভারতীয় অভিনেত্রীর পর জায়গা পেয়েছেন ‘ওয়ান্ডার ওম্যান’ তারকা গল গ্যাডট (১৪) ও ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মে (১৫)।

তালিকার দুই থেকে ১০ নম্বরে আছেন যথাক্রমে যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক ফার্স্টলেডি মিশেল ওবামা, মার্কিন টকশো উপস্থাপক অপরাহ উইনফ্রে, ব্রিটেনের রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথ, মার্কিন রাজনীতিক হিলারি ক্লিনটন, হলিউড অভিনেত্রী এমা ওয়াটসন, নোবেলজয়ী মালালা ইউসুফজাই, জার্মান চ্যান্সেলর অ্যাঙ্গেলা মের্কেল, মার্কিন গায়িকা টেলর সুইফট ও ম্যাডোনা।

ভাঁজ পড়া ত্বক টানটান হয়ে উঠবে মাত্র ৭ দিনে 

বয়সের সঙ্গে ত্বকের এই ভাঁজ পড়ে যাওয়ার কোনো সম্পর্ক নেই, খুব কম বয়সেও হতে পারে এটি। এই ভাঁজগুলো মূলত পড়ে গলায়, চোখের নিচে, ঠোঁটের আশেপাশে, হাতের কব্জিতে, স্তনে। কারও ত্বকের ইলাস্টিসিটি কমে গেলে এই ভাঁজগুলো সৃষ্টি হয়। নিম্ন মানের প্রসাধনী, রোদে সানস্ক্রিন ব্যবহার না করা, ত্বকের সঠিক যত্ন না করা, পুষ্টির অভাব, বয়স ইত্যাদি কারণে ত্বকের ইলাস্টিসিটি কমে যায়। হুট করে ওজন অনেকটা কমে গেলেও বা সঠিক ডায়েট না করলেও অনাকাঙ্ক্ষিত স্থানে ভাঁজ পড়তে পারে। এবং যদি সময় থাকতেই প্রতিকার করা না হয়, তাহলে এইসব ভাঁজগুলো ত্বকে স্থায়ী হয়ে যায়।


এমন সমস্যায় সবচাইতে কার্যকরী হচ্ছে ঘরোয়া সমাধান। কারণ এক্ষেত্রে চাই নিয়মিত যত্ন করা। ভাঁজ পড়া ত্বক আবার টানটান করে তোলার জন্য থাকছে খুব সহজ একটি রূপচর্চা পদ্ধতি। প্রতিদিন এই কাজটি চালিয়ে গেলে ৭ দিনেই বিস্ময়কর পরিবর্তন দেখতে পাবেন। নিয়মিত চালিয়ে গেলে ত্বকে আবারও ফিরে আসবে যৌবনের দীপ্তি।
 

যা লাগবে

ডিমের সাদা অংশ একটি
খুব ভালো মানের অলিভ অয়েল
টক দই
লেবুর রস হাফ চা চামচ
 

যা করবেন

-ডিমের সাদা অংশ ও লেবুর রস খুব ভালো করে ফেটিয়ে ফোম করে নিন। কেক তৈরি করার সময়ে যেমন ফোম তৈরি করা হয়, তেমন।

-ত্বক ভালো করে ধুয়ে পরিষ্কার করে নিন। তারপর এই সাদা অংশের ফোম ভালো করে ত্বকে মেখে নিন। একটু শুকিয়ে গেলে ওপরে আবারও মাখুন।

-২০/২৫ মিনিট পর ত্বক ধুয়ে নিন। এবার ত্বকে মেখে নিন তাজা ও ঘন টক দই।
-আবারও ২০/২৫ মিনিট রেখে ধুয়ে ফেলুন।

-ভালো করে তোয়ালে দিয়ে মুছে অলিভ অয়েল ম্যাসাজ করে লাগিয়ে নিন। অন্তত ৪/৫ মিনিট ম্যাসাজ করবেন। এতে রক্ত সঞ্চালন বাড়বে।

খুব ভালো হয় যদি রাতে শোবার আগে এই কাজটি করতে পারেন। নিয়মিত ধৈর্য নিয়ে করলে ত্বকের সৌন্দর্য বৃদ্ধিতে অন্য কিছুর প্রয়োজন হবে না। বাড়তি পাওনা হিশেবে থাকবে নরম ও কোমল ত্বক, দূর হবে কালো দাগ, ব্রণের সমস্যাও চলে যাবে।

শিশু সুরক্ষা আইন ভঙ্গ করেছে ইউটিউব 

যুক্তরাষ্ট্রে শিশুদের অনলাইন গোপনীয়তা রক্ষার যে প্রচলিত আইন রয়েছে তার কোন শর্ত ইউটিউব মানছে না বলে অভিযোগ করেছে দেশটির ভোক্তা অধিকার সংস্থাগুলো। এ নিয়ে সংস্থাগুলো দেশটির কেন্দ্রীয় বাণিজ্য পরিষদে মামলাও দায়ের করেছে। খবর বিবিসি বাংলা।


সংস্থাগুলোর অভিযোগ, বাবা মায়ের সম্মতি ছাড়াই শিশুদের অ্যাকাউন্ট খুলতে উৎসাহিত করছে ইউটিউব। অনেকে নার্সারি রাইম, কার্টুন, খেলনার বিজ্ঞাপনসহ আরও বিভিন্ন বিষয়ের ওপর আলাদা চ্যানেল খুলে বসেছে। ওই সব চ্যানেলে অসংলগ্ন ভিডিও লিংক চলে আসছে।

সংস্থাগুলো আরও অভিযোগ করে, শিশুদের কীভাবে ইউটিউবের প্রতি আকর্ষণ করা যায় সে সংক্রান্ত ভিডিও টিউটোরিয়ালেরও কোনো অভাব নেই। ফলে ১৩ বছরের কম বয়সী শিশুরা ঝুঁকে পড়ছে ইউটিউব ব্যবহারে। আর ইউটিউব এ সব শিশুদের তথ্য সংগ্রহ করছে।

আইনানুযায়ি, শিশুদের জন্য কোন ওয়েবসাইট চালাতে গেলে বিশেষ করে শিশুদের ব্যক্তিগত তথ্য সংগ্রহের আগে তাদের বাবা মায়ের অনুমোদন নিতে হয়। অথচ ইউটিউব কোন সম্মতি ছাড়াই শিশুদের অবস্থান, তাদের ব্রাউজিং অভ্যাস সবকিছু বিশ্লেষণ করছে।

অথচ গুগল এক বিবৃতিতে জানিয়েছিল, ইউটিউবে অ্যাকাউন্ট খুলতে হলে নূন্যতম ১৩ বছর বয়স হতে হবে।ইউটিউবের বিরুদ্ধে আইন লঙ্ঘনের অভিযোগের বিষয়ে গুগল কর্তৃপক্ষ জানায়, তারা প্রতিটি অভিযোগ মূল্যায়ন শেষে নিজেদের ভুল শুধরে আরও ভালো কিছু করার ওপর জোর দেবেন।

ম্যাকের মতো দেখতে নোটবুক এনেছে আই লাইফ
 

 উইন্ডোজ ও ম্যাকের সমন্বয়ে তৈরি আই লাইফ ব্র্যান্ডের ৩টি নতুন মডেলের ল্যাপটপ দেশের বাজারে অবমুক্ত করেছে কম্পিউটার আমদানিকারক প্রতিষ্ঠান সুরভী এন্টারপ্রাইজ লিমিটেড। ল্যাপটপগুলোর মধ্যে ১৫ দশমিক ৬ ইঞ্চি পর্দার জেড এয়ার প্লাসের দাম ২৬ হাজার ৫০০ টাকা। এছাড়া ১৪ দশমিক ১ ইঞ্চি এইচডি ডিসপ্লের জেড এয়ার এইচসিক্স-এর দাম ২৬ হাজার ৩০০ টাকা এবং ৫০৫ জিপিইউ সমন্বিত ১৩ দশমিক ৩ ইঞ্চি পর্দার জেড এয়ার থ্রি-এর দাম ২৯ হাজার ৫০০ টাকা।


এই তিনটি ল্যাপটপে রয়েছে জেনুইন উইন্ডোজ ১০ ও ইন্টেল প্রসেসর। ফলে ল্যাপটপগুলো কারিগরি প্রযুক্তির দিক দিয়ে যেমন উন্নত তেমনি ব্যবহারবান্ধব। এগুলোর মধ্যে ৫০০ জিবি হার্ডডিস্ক সমন্বিত জেড এয়ার প্লাস দেয় ৫-৬ ঘণ্টা ব্যাকআপ। অন্যদিকে ৬ জিবি ডিডিআর-থ্রি র‌্যাম সমন্বিত মাল্টিটাস্কিং সুবিধার জেড এয়ার এইচসিক্স দিয়ে টানা ৬-৭ ঘণ্টা কাজ করা যায়। আর ২ দশমিক ৪০ গিগাহার্টজ গতির কোয়াড কোর প্রসেসর নির্ভর ৩ জিবি ডিডিআর থ্রি র‌্যাম ও ৩২ জিবি এসএসডি স্টোরেজ সমন্বিত জেড এয়ার থ্রি এক চার্জে চলে ৮ ঘণ্টা পর্যন্ত


দুই দিনব্যাপী বিপিও সামিট-২০১৮ রবিবার (১৫ এপ্রিল) থেকে শুরু হচ্ছে। রাজধানীর একটি হোটেলে এই সামিটের উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রীর তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ।


সরকারের তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি (আইসিটি) বিভাগের তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি অধিদফতর এবং বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব কলসেন্টার অ্যান্ড আউটসোর্সিংয়ের (বাক্য) যৌথ উদ্যোগে ঢাকার প্যান প্যাসিফিক সোনারগাঁও হোটেলে অনুষ্ঠিত হবে এ আয়োজন। সামিট সফল করার জন্য সারাদেশে বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে অনুষ্ঠিত হয়েছে অ্যাক্টিভেশন কার্যক্রম।

আয়োজকদের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, দুই দিনের আয়োজনে দেশি-বিদেশি তথ্যপ্রযুক্তিবিদ, সরকারের নীতিনির্ধারক, গবেষক, শিক্ষার্থী এবং বিপিও (বিজনেজ প্রসেস আউটসোর্সিং) খাতের সঙ্গে জড়িতরা অংশ নেবেন। এবারের আয়োজনে দেশের আউটসোসিং খাতকে আরও কীভাবে ভালো করা যায় সে বিষয়ে বিশ্বকে জানানো হবে এবং সরকারের রূপকল্প-২০২১ বাস্তবায়নে বিপিও খাতের বিভিন্ন উদ্যোগ তুলে ধরা হবে। বিপিও খাতে দক্ষ ও পর্যাপ্ত জনবল তৈরিও এই সামিটের অন্যতম লক্ষ্য বলে জানান আয়োজকেরা।

আয়োজকদের পক্ষ থেকে আরও বলা হয়, এবারের আয়োজনে আউটসোর্সিং সেবা, পরবর্তী প্রজন্মের ধারণাগুলো প্রদর্শন করা হবে। সময়ের আলোচিত সেবা বিষয়গুলো নিয়ে আলোচনা অনুষ্ঠিত হবে। বিপিও খাতে ২০২১ সালের মধ্যে এক লাখ কর্মসংস্থান তৈরির লক্ষ্যে এ আয়োজন গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা পালন করবে বলে আশা করেন আয়োজকেরা। বাসস।

শাওমির প্রথম ফোন এখনো সচল 

প্রথম শাওমি ফোন এমআই ১ আনুষ্ঠানিকভাবে উন্মোচন করা হয়েছিলো সাত বছর আগে। এর পরের বছরই আসে শাওমি এমআই ১ ইউথ এডিশন। সম্প্রতি ফোনটি নিয়ে নিজের অভিজ্ঞতা বর্ণনা করেছেন বেশ কয়েকজন চাইনিজ ব্যবহারকারী।


চীনের মাইক্রো ব্লগিং সাইট উইবোতে ফোনটির এক ব্যবহারকারী বলেন, ৭৬৮ মেগাবাইট র‍্যামের ফোনটি এখনো কোনো সমস্যা ছাড়াই চলছে। খুব অপ্রত্যাশিতভাবেই পোস্টটিতে কমেন্ট করেন শাওমি কর্পোরেশনের প্রতিষ্ঠাতা লেই জুন। সেখানে তিনি জানান, শাওমি এমআই ১ ইউথ এডিশন ফোনটি বাজারে এসেছিলো ১৮ মে ২০১২ সালে।

ছয় বছরের পুরানো এই ফোন আছে ৪ ইঞ্চি টিএফটি ডিসপ্লে, যার রেজুলেশন ৪৮০*৮৫৪ পিক্সেল। প্রসেসর হিসেবে ছিলো স্ন্যাপড্রাগন এমএসএম৮২৬০। পেছনের ক্যামেরায় ছিলো ৮ মেগাপিক্সেল। ব্যাকআপের জন্য ছিলো ১৯৩০ এমএএইচ ব্যাটারি।

শাওমি কোম্পানিটি প্রতিষ্ঠা করা হয়েছিলো ঠিক ২০১০ সালের ৬ এপ্রিল। আট বছর পূর্তি উপলক্ষেই ফিরে এসেছে শাওমি এমআই ১ এর স্মৃতি।

‘মহাভারত’ থেকে সরে যেতে চাইছেন আমির! 

হিন্দু মহাকাব্য অবলম্বনে নির্মিতব্য ছবি ‘মহাভারত’-এ নাও দেখা যেতে পারে বলিউডের প্রভাবশালী খান আমিরকে। ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এনডিটিভি এমন ইঙ্গিতই দিলো।


ছবিতে আমির খানকে কৃষ্ণরূপে দেখা যাওয়ার কথা। তবে সম্প্রতি সঞ্জয়লীলা বানসালির ‘পদ্মবত’ নিয়ে অপ্রীতিকর অবস্থা এখনও এ তারকার মনে দাগ কেটে আছে।
তাই ‘পিরিয়ড পিস’, ‘পুরাণ’, ‘মিথ’, ‘ইতিহাস’ বা ‘মহাকাব্য’-এর মতো স্পর্শকাতর বিষয় নিয়ে আদৌ আমির কাজ করবেন কিনা তা নিয়ে জোরদার জল্পনা তৈরি হয়েছে।

এনডিটিভির সূত্র অনুযায়ী, আমির এখন পুরো বিষয় নিয়ে বিশ্লেষণ করছেন। ছবি নিয়ে কী ধরনের প্রতিক্রিয়া হতে পারে- তার খুঁটিনাটি দেখছেন মিস্টার পারফেক্টশনিস্ট। প্রয়োজনে ছবিটি থেকে নিজেকে সরিয়ে নেওয়ার পরিকল্পনাও আছে তার।

এদিকে, আমিরের চিন্তার অন্যতম কারণ হিসেবে এ সংবাদমাধ্যম উল্লেখ করেছে, মুসলিম হয়ে হিন্দু দেবতা কৃষ্ণের ভূমিকায় অভিনয় করা। ইতোমধ্যেই একদল লোক এ বিষয়ে মুখ খুলতে শুরু করেছেন।

সমস্যার শুরুটা হয়েছিল এখন থেকেই। ফ্রাসোয়াঁ গতিয়ের নামে ভারতে বসবাসকারী এক ফরাসি সাংবাদিক টুইট করেন, ‘মুসলিম হয়ে কীভাবে মহাভারতের মতো হিন্দুদের পবিত্র মহাকাব্যে অভিনয় করতে পারেন আমির? ইসলামের কোনও ধর্মগুরুর ভূমিকায় যদি হিন্দু অভিনেতাকে দেখা যায়, তবে কি মুসলিমরা মেনে নেবেন?’
এরপর থেকে এটি নিয়ে চলেছে সমালোচনা।
উল্লেখ্য, দক্ষিণী নির্মাতা শ্রীকুমার মেনন তৈরি করছেন ‘মহাভারত’। এখানে ভিমের চরিত্রে থাকছে দক্ষিণী মহাতারকা মোহনলাল। ছবিটি ২০২০ সালে মুক্তি পাওয়ার কথা আছে।

বৈশাখ ও গ্রীষ্মের পোশাক একসঙ্গে 

বৈশাখ মানেই বাঙালিয়ানার উৎসব! পোশাকে লাল-সাদা রঙ তো থাকছেই, সঙ্গে আছে স্মুদি সামার কালার শেড। ক্যাটস আইয়ের বৈশাখী আয়োজনে তরুণ-তরুণীদের জন্য এ সময়টায় লিলেন, জর্জেট বা সুতি ফেব্রিকে থাকছে কাট ও প্যাটার্ন ভিন্নতা। পাশ্চাত্য ঘরনার সাথে দেশীয় মোটিফ ও ডিজাইন সাতন্ত্রতা থাকছে বৈশাখের পোশাকগুলোয়। এমব্রয়ডারি বা স্ক্রিন প্রিণ্ট থাকছে ভ্যালু এডিশন হিসাবে।


পাশাপাশি বৈশাখী কেনাকাটায় বাড়তি স্বাধীনতা দিতে  ক্যাটস আই দিচ্ছে বিশেষ অফার। বৈশাখের পাঞ্জাবি বা শার্ট কিনলেই পাওয়া যাবে টি শার্ট সম্পূর্ণ বিনামূল্যে। ভার্চুয়াল স্টোর থেকে অনলাইনে অর্ডারেও নির্ধারিত পণ্যে মিলবে বিশেষ ছাড়ের সুযোগ।

ক্যাটস আই এর পরিচালক রিয়াদ সিদ্দিকী জানান, ইন্টারনেটের প্রসারতার কারণে ফ্যাশন সচেতন প্রজন্ম ঝুকছে অনলাইন শপিং এ। সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে নিজেদের চাহিদা মতো খুঁজে নিচ্ছে  প্রয়োজনীও ফ্যাশন পণ্যের তথ্য। তাই ক্যাটস আই অনলাইনে পণ্যের বিপননে নিয়েছে প্রযুক্তিগত নানা পদক্ষেপ। শুধু অনলাইনের জন্য থাকছে নানা পণ্যে ছাড় সুবিধাও। পাশাপাশি স্টোরগুলোতে বৈশাখী শপিং এ বিশেষ উপহারও মিলবে বিনামূল্যে। ক্যাটস আই স্টোরের পাশাপাশি অনলাইনে পণ্য কিনতে অর্ডার করুন ওয়েবসাইট কিংবা ফেসবুক পেইজের ঠিকানায়।

 ফেসবুক কর্মীদের জিজ্ঞাসাবাদ করেছেন মুলার : জাকারবার্গ

 ২০১৬ সালের মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে রাশিয়ার হস্তক্ষেপ ছিল বলে অভিযোগ আছে। আর এই অভিযোগ তদন্তের জন্য সাবেক এফবিআই-প্রধান রবার্ট মুলার ফেসবুকের কর্মীদেরও জিজ্ঞাসাবাদ করেছিলেন।


১০ এপ্রিল, মঙ্গলবার ফেসবুকের সহ প্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মার্ক জাকারবার্গ মার্কিন সিনেটের বাণিজ্য ও বিচারবিভাগীয় কমিটির সামনে এ কথা শিকার করেন।

জাকারবার্গ মার্কিন সিনেটরে জবাবদিহিতার সময় ডেমোক্রেটিক শন পেট্রিক লেথির প্রশ্নের জবাবে জানান, রাশিয়ার হস্তক্ষেপের অভিযোগ নিয়ে তদন্তে থাকা স্পেশাল কাউন্সেল রবার্ট মুলার ফেসবুকের কর্মীদেরও জিজ্ঞাসাবাদ করেছিলেন তবে তাদের মধ্যে তিনি নিজে ছিলেন না।

জিজ্ঞাসাবাদ নিয়ে এরপর তিনি আরও বলেন, ‘বিশেষ পরামর্শের সঙ্গে আমাদের কাজ গোপনীয় তাই আমি সতর্ক থাকতে চাই এবং আমি নিশ্চিত করতে চাই যে উন্মুক্ত অধিবেশন আমি গোপন কিছু প্রকাশ করছি না।’
চলতি বছরের ফেব্রুয়ারিতে রবার্ট মুলারের দফতর রাশিয়ার ১৩ নাগরিক ও তিনটি কোম্পানির বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে হস্তক্ষেপের অভিযোগ এনে তদন্ত শুরু করে।

ফেসবুক ব্যবহারকারীদের ব্যক্তিগত তথ্য রাজনৈতিক কাজে ব্যবহারের ঘটনায় যুক্তরাষ্ট্রের সিনেটরদের মুখোমুখি হয়ে পাঁচ ঘণ্টা জবাবদিহি করেন মার্ক জাকারবার্গ।

এ সময় জাকারবার্গ তথ্য বেহাতের ঘটনার দায় নিজের কাঁধে নেন এবং দুঃখ প্রকাশ করেন। জাকারবার্গ বলেন, ‘এটা স্পষ্ট যে, ফেসবুকের সুবিধাগুলো ক্ষতিকর কাজে ব্যবহার বন্ধে আমরা যথেষ্ট ব্যবস্থা নিইনি।’

যুক্তরাষ্ট্রের রাজনৈতিক ও সামরিক তথ্য বিশ্লেষণী সংস্থা ক্যামব্রিজ অ্যানালিটিকার বিরুদ্ধে কয়েক কোটি ফেসবুক ব্যবহারকারীর ব্যক্তিগত তথ্য অবৈধভাবে ব্যবহারের অভিযোগ ওঠে গতমাসে।

প্রাথমিকভাবে জানা গিয়েছিল, ৫০ মিলিয়ন তথা পাঁচ কোটি ফেসবুক ব্যবহারকারীর তথ্য সংগ্রহ করেছে ক্যামব্রিজ অ্যানালিটিকা। কিন্তু নতুন তথ্য বলছে এই ঘটনায় আরও বেশি পরিমাণ ফেসবুক ব্যবহারকারীর তথ্য সংগ্রহ করেছে সংস্থাটি।

পরে ফেসবুকের প্রতিষ্ঠাতা মার্ক জাকারবার্গ জানান, তাদের হিসাব-নিকাশ বলছে এই তথ্য চুরির ঘটনায় সর্বোচ্চ ৮ কোটি ৭০ লাখ মানুষের তথ্য চুরি হয়েছে। ফেসবুক ব্যবহারকারীদের বন্ধু তালিকার সর্বোচ্চ সীমা বিবেচনা করে এই ফলাফল পেয়েছেন তারা।

বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে কোনো কিছুতেই ভ্যাট নয়: প্রধানমন্ত্রী 

বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে ভ্যাট আরোপে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতের পরিকল্পনা নাকচ করে দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি জানিয়েছেন, বেসরকরি বিশ্ববিদ্যালয়ে কোনো কিছুর ওপর ভ্যাট থাকবে না। ছাত্র ফি থেকে শুরু করে ভবনও ভ্যাটের আওতামুক্ত থাকবে।


মঙ্গলবার শেরেবাংলা নগরের জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদ-এনইসি সম্মেলন কক্ষে পরিষদের নির্বাহী কমিটি একনেক বৈঠকে এই বিষয়টি নিয়ে আলোচনা হয়।

আগের দিন রাজধানীতে প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার সম্পাদক, ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান নির্বাহীদের সঙ্গে প্রাক বাজেট আলোচনায় আবার বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে ভ্যাট আরোপের পরিকল্পনার কথা জানান অর্থমন্ত্রী।

মন্ত্রী বলেন, ‘বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভ্যাট একটা সমস্যা। আবার ভ্যাটটা আমরা মেনটেইন করব। কিন্তু সেটা নেব বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের মালিকদের কাছ থেকে। তারা শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে কী নেবে, না নেবে জানি না।’

২০১৫-১৬ অর্থবছরে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়, মেডিকেল ও ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজের শিক্ষার্থীদের টিউশন ফির ওপর সাড়ে সাত শতাংশ হারে ভ্যাট আরোপ করেন অর্থমন্ত্রী। কিন্তু সে সময় এই সিদ্ধান্তের বিরোধিতা করে শিক্ষার্থীরা। আর ওই বছরের সেপ্টেম্বরে রাজধানীতে আন্দোলনের মুখে এই সিদ্ধান্ত প্রত্যাহার করে নেয় অর্থ মন্ত্রাণালয়।

এর তিন বছরের মধ্যে অর্থমন্ত্রী আবার পুরনো সিদ্ধান্ত নতুন করে আরোপের পরিকল্পনার কথা বলার পর বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা সামাজিক মাধ্যমে নানা প্রতিক্রিয়া জানাচ্ছেন।

আবার সরকারি চাকরিতে কোটা ব্যবস্থা সংস্কারের দাবিতে ছাত্র আন্দোলন চলাকালে অর্থমন্ত্রীর এমন উদ্যোগ বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদেরকেও নতুন করে বিক্ষব্ধ করে তুলতে পারে বলে ধারণা করছে সরকার। আর এই খাতে ভ্যাট আরোপ করলে খুব বেশি অর্থ আসবে না বলে এই পরিকল্পনা নাকচ করেন প্রধানমন্ত্রী।

একনেক বৈঠকে অবশ্য এই বিষয়টি নিয়ে আলোচনা হয়েছে অনির্ধারিত। সেখানে উপস্থিত ছিলেন অর্থমন্ত্রীও। একজন মন্ত্রী বিষয়টি তোলার পর প্রধানমন্ত্রী জানিয়ে দেন, এটা করা যাবে না।

সভা শেষে পরিকল্পনামন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল সাংবাদিকদের বলেন, ‘বেসরকারি শিখার্থীদের কোনো কিছুতেই ভ্যাট নেয়া হবে না। এমনকি বেসরকারি বিশ^বিদ্যালয়ের ভবনের সব কিছুই থাকবে ভ্যাটমুক্ত। প্রধানমন্ত্রী এই বিষয়টি একনেক সভায় পরিষ্কার জানিয়ে দিয়েছেন।’

পরিকল্পনা মন্ত্রী বলেন, ‘অর্থমন্ত্রী কোনো একটি অনুষ্ঠানে বেসরকারি বিশ^বিদ্যালয়ে ভ্যাট নিয়ে কথা বলেছিলেন। সেটা নিয়ে আলোচনা হচ্ছে। আশা করি এ বিষয়টি নিষ্পত্তি হবে।’

পোশাকে বৈশাখী রং 

সময়কে রাঙানোর ব্রত নিয়ে ফ্যাশন হাউস ‘রঙ বাংলাদেশ’ সেজেছে বৈশাখী সাজে। শীতল পাটি, সাঁওতালদের দেয়ালচিত্র, মঙ্গল শোভাযাত্রার বিভিন্ন নকশা রয়েছে বৈশাখী পোশাকগুলো জুড়ে।


শাড়ি, সিঙ্গেল কামিজ, লং কামিজ, লং স্কাট, টপস, টপস প্লাজো,গাউন, ছেলেদের পাঞ্জাবি, শার্ট, টি-শার্ট, ফতুয়া, ধুতি থাকছে আয়োজনে। এছাড়াও পাবেন ছোটদের পোশাক।

রং হিসেবে লাল,মেরুন,অফ হোয়াইট ওসাদা প্রাধান্য পেয়েছে। এছাড়াও মেজেন্ট,কমলা,গোল্ডেন হলুদ, নীল,গেরুয়াসহ আরও বেশ কিছু রং থাকছে পোশাকে।

রঙ বাংলাদেশ-এর বৈশাখ কালেকশন সব আউটলেটেই পাওয়া যাবে। ইচ্ছা করলে কেনা যাবে অনলাইনে। আর এবারের বৈশাখে  রঙ বাংলাদেশ এর ওয়েবসাইট ও ফেসবুক পেজে রয়েছে ১৪.২৫ % ডিসকাউন্ট । রয়েছে ক্যাশ অন ডেলিভারির ব্যবস্থা। আরও আছে গিফট চেক।

 আর মাত্র এক মাস বাঁচবেন ইরফান!

 ইরফান খানের মতো মেধাবী অভিনেতা বলিউড ছাড়াও হলিউড এমনকি বাংলাদেশের সিনেমাতেও রেখেছেন দক্ষতার ছাপ। গর ১৫ মার্চ তিনি নিজেই টুইট করে জানান, তিনি একটি বিরল রোগে আক্রান্ত। পরে ইরফান জানান, তার নিউরো এন্ড্রোক্রাইন টিউমার হয়েছে। অথচ গতকাল একটি টুইটে জানা গেলো, ইরফান নাকি আর মাত্র এক মাস বাঁচবেন!


'টাইমস নাও'-এ প্রকাশিত প্রতিবেদনে প্রকাশ, রবিবার ইরফানের শারীরিক অবস্থা নিয়ে একটা টুইট করেন উমর সান্ধু নামে এক সাংবাদিক। তার সেই টুইট থেকে জানা যায় যে ইরফানের শারীরিক অবস্থার অবনতি হয়েছে। এমনকি ইরফান ক্যান্সারের শেষ স্টেজে রয়েছেন বলেও দাবি করেছেন উমর। তিনি লিখেছেন, ‘আর মাত্র একমাস আয়ু আছে ইরফানের।’

যদিও উমর সান্ধু পরে এই টুইট মুছে দেন। তাই ইরফান শারীরিক অবস্থা সম্পর্কে সংশয় দানা বাধে দর্শক মনে। কিন্তু ইরফানের পরিবার সূত্রে এ বিষয়ে কিছুই জানানো হয়নি।

তবে চিকিৎসকদের মতে, স্নায়ুকোষের টিউমার অপসারণ সম্ভব। সুস্থ হয়ে দর্শকদের মাঝে ফিরতে পারবেন ইরফান। ইরফানের এই অসুস্থতার খবর পাওয়া মাত্রই ভক্ত এবং বলিউড সহকর্মীরা তার দ্রুত আরোগ্য কামনা করছেন। উন্নত চিকিৎসার জন্য যুক্তরাষ্ট্রে পাড়ি দিয়েছেন ইরফান। বেশ কিছুদিন যাবত ইরফানের শারীরিক অবস্থার কোনো খবর পাওয়া যাচ্ছিল না। হঠাৎ এই টুইটবার্তাটি দুশ্চিন্তায় ফেলে দেয় সবাইকে।

এদিকে গত শুক্রবার মুক্তি পেয়েছে ইরফান অভিনীত ‘ব্ল্যাকমেইল’ সিনেমাটি। বক্স অফিসে ভালোই ব্যবসা করছে তার সিনেমা। এছাড়া দীপিকা পাড়ুকোনের বিপরীতে বিশাল ভারদ্বাজের আগামী ছবিতে অভিনয়ের কথা রয়েছে ইরফান খানের। তবে তার অসুস্থতার জন্য শুটিং পিছিয়ে দেওয়া হয়েছে

নববর্ষে আসুসের বিশেষ অফার! 

তাইওয়ানিজ টেকনোলজি ব্র্যান্ড আসুস নববর্ষ উপলক্ষে নিয়ে এলো বিশেষ অফার “আসুস গান ফেস্টিভাল”। বিশেষ এই অফারের আওতায় আসুস এর গেমিং, জেনবুক ও ভিভোবুক প্রো সিরিজ এর ক্রেতাগণ উপহার পাচ্ছেন আসুস এর লিমিটেড এডিশন কালেকশান বক্স। বক্সে আসুস এর এক্সক্লুসিভ মার্চেন্ডাইজ সহ আরও থাকবে একটি করে ওয়ালেট, কি-রিং আর মগ সহ আরও অনেক উপহার।


আসুস এর গেমিং সিরিজ এর উল্লেখযোগ্য মডেল গুলোর মধ্যে থাকছে আসুস এফ এক্স ৫৫৩ ভিডি/ভিই। ১৫.৬ ইঞ্চির গেমিং নোটবুকটিতে দেয়া আছে এর ৭ম প্রজন্মের ইন্টেল কোর আই ৫ কিংবা কোর আই ৭ প্রসেসর। সাথে থাকছে ৪ গিগাবাইট এনভিডিয়া জিফোর্স ১০৫০/ ১০৫০টিআই গ্রাফিক্স কার্ড। ৮ থেকে ১৬ গিগাবাইট র‍্যাম আর ১ থেকে ২ টেরাবাইট হার্ডড্রাইভ আর এসএসডি আর জেনুইন উইন্ডোজ ১০ সহ গেমিং নোটবুকটির মূল্য ৮১,০০০ টাকা শুরু। এছাড়াও রিপাবলিক অফ গেমার সিরিজের সব গুলো মডেল এর সাথেও ক্রেতাগণ অফারটি উপভোগ করতে পারবেন।

আসুস এর আল্ট্রাবুক সিরিজ “জেনবুকের” অন্যতম আকর্ষণীয় মডেল ইউএক্স৪৩০ইউএ/ইউকিউ। ১৪ ইঞ্চির এই আল্ট্রাবুকের বিশেষত্ব এর ডিজাইন। গ্লাস-ফিনিশড্‌ ডিজাইন আর ওজনে হালকা এই নোটবুকটিতে ব্যাতিক্রম করেছে এর ব্যাকলিট কিবোর্ড, ফিঙ্গার প্রিন্ট সেন্সর আর ন্যানো এজ ব্যাজেল। ৭ম প্রজন্মের ইন্টেল কোর আই ৫ কিংবা কোর আই ৭ প্রসেসর, ৮ গিগাবাইট র‍্যাম, ৫১২ এসএসডি, ডেডিকেটেড গ্রাফিক্স অপশন আর জেনুইন উইন্ডোজ ১০ সহ নোটবুকটি পাওয়া যাবে ৮৫,৫০০ টাকা থেকে। এছাড়াও আসুস এর সব জেনবুক সিরিজে চলবে গান-ফেস্টিভাল অফারটি।

আসুস এর ভিভোবুক প্রো সিরিজ এন৫৮০ভিডি তৈরি করা হয়েছে প্রফেশনালদের জন্য। শক্তিশালী ৭ম প্রজন্মের ইন্টেল কোর আই ৫ বা কোর আই ৭ প্রসেসর ও ডেডিকেটেড গ্রাফিক্স কার্ড আর এসএসডি অপশন সহ নোটবুকটি পাওয়া যাবে ৭২,৮০০ টাকা থেকে।

আসুস এর বিশেষেই অফার চলবে দেশব্যাপি পুরো এপ্রিল মাস জুড়ে।

রিসার্চ কমিশন গঠনের ঘোষণা দিলেন জাকারবার্গ 

নির্বাচন এবং গণতন্ত্রের ওপর সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের প্রভাব নিরূপণের জন্য নতুন একটি কমিশন গঠনের কাজ চলছে। এই ইলেকশন রিসার্চ কমিশনটি স্বাধীনভাবে কাজ করবে। সোমবার (৯ এপ্রিল) এক ফেসবুক স্ট্যাটাসে এসব তথ্য জানান ফেসবুকের প্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান নির্বাহী মার্ক জাকারবার্গ।


মার্ক জাকারবার্গ


কমিশন গঠনের উদ্দেশ্য হলো— নির্বাচনকালীন বিভিন্ন সমস্যা চিহ্নিত করা এবং নির্বাচনের নিরপেক্ষতা বজায় রাখা।

ইলেকশন রিসার্চ কমিশন গঠনের জন্য প্রাতিষ্ঠানিক বিশেষজ্ঞদের নিয়ে ইতোমধ্যে কাজ শুরু করেছে ফেসবুক। পুরো যুক্তরাষ্ট্রজুড়ে এই কাজ করছেন তারা। জানা গেছে, প্রাতিষ্ঠানিক বিশেষজ্ঞদের নিয়ে একটি কমিটি গঠন করা হবে। রিসার্চের জন্য এই কমিটি বিভিন্ন বিষয় নির্ধারণ করবে। পরবর্তীতে এগুলো নিয়েই হবে বিস্তর গবেষণা।

এ সম্পর্কে ফেসবুক স্ট্যাটাসে মার্ক জাকারবার্গ জানান, এই গবেষকদেরকে আমাদের রিসোর্সে প্রবেশাধিকার দেওয়া হবে, যেন তারা নির্বাচনে ফেসবুকের ভূমিকা নিয়ে নিরপেক্ষ একটি সিদ্ধান্ত জানাতে পারেন। পরবর্তী নির্বাচনগুলোর আগে কী ধরনের পদক্ষেপ নেওয়া দরকার তাও এর মাধ্যমেই জানা যাবে।
গবেষকরা তাদের কাজ সবার সামনে উপস্থাপন করবেন বলে জানানো হয়েছে। এজন্য ফেসবুকের কাছ থেকে কোনও অনুমোদন নেওয়ার প্রয়োজন হবে না।

রেসিপি: দই-ইলিশ 

ঝটপট ভিন্ন স্বাদের কিছু রান্না করতে চাইলে সরিষা ও দই দিয়ে মজাদার দই-ইলিশ রান্না করে ফেলতে পারেন। জেনে নিন কীভাবে রান্না করবেন।


উপকরণ


ইলিশ মাছ- ৪০০ গ্রাম (৪ টুকরা)
পোস্তদানা- ১ টেবিল চামচ
সরিষা- ১ টেবিল চামচ
টক দই- ৫ টেবিল চামচ
লবণ- ১ চা চামচ
মরিচের গুঁড়া- আধা চা চামচ
হলুদ গুঁড়া- আধা চা চামচ
চিনি- ১ চা চামচ
সরিষার তেল- ৪ টেবিল চামচ
কাঁচামরিচ- ৬টি

প্রস্তুত প্রণালি

ইলিশের টুকরা ভালো করে ধুয়ে নিন। ১ টেবিল চামচ পোস্তদানা ৪ টেবিল চামচ পানিতে ভিজিয়ে রাখুন। আরেকটি বাটিতে ১ টেবিল চামচ সরিষা ৪ টেবিল চামচ পানিতে ভিজিয়ে রাখুন। এবার আধা চা চামচ লবণ ও দুটি কাঁচামরিচ দিয়ে ভিজিয়ে রাখা এই দুই উপকরণ ভালো করে ব্লেন্ড করে নিন। মিশ্রণটি একটি বাটিতে ঢেলে ফেটিয়ে রাখা দই, আধা চা চামচ লবণ, হলুদ গুঁড়া, মরিচ গুঁড়া, চিনি ও ১ টেবিল চামচ সরিষার তেল মেশান। মাছের টুকরাগুলো মিশ্রণে দিয়ে উল্টেপাল্টে নিন। ১৫ মিনিট রেখে দিন এভাবে।

চুলায় হাঁড়ি বসিয়ে মিশ্রণসহ মাছ দিয়ে দিন। চুলার জ্বাল বাড়িয়ে ফুটে ওঠা পর্যন্ত অপেক্ষা করুন। ফুটে উঠলে ৩ টেবিল চামচ সরিষার তেল দিয়ে চুলার জ্বাল কমিয়ে মিডিয়াম করুন। হালকা নেড়ে সাবধানে উল্টে দিন মাছের টুকরা। আধা কাপ গরম পানি দিয়ে ৬ থেকে ৭ মিনিটের জন্য ঢেকে দিন হাঁড়ি। ঢাকনা তুলে আবারও উল্টে দিন মাছ। ৪টি কাঁচামরিচ মাঝখান থেকে চিরে দিয়ে দিন। কয়েক মিনিট ঢেকে রাখুন পাত্র। নামিয়ে পরিবেশন করুন মজাদার দই-ইলিশ।

‘কাস্টিং কাউচ’-এর প্রতিবাদে তেলেগু অভিনেত্রীর নগ্ন প্রতিবাদ 

তেলেগু ছবিতে অন্য প্রদেশের অভিনেত্রীদের অবাধ বিচারণ, সমঝোতা ও নিজ প্রদেশের শিল্পীদের অবহেলার দাবি তুলে ভিন্ন করমের এক প্রতিবাদ করেছেন প্রদেশটির এক অভিনেত্রী।


শ্রী রেড্ডি নামের এ অভিনেত্রী দীর্ঘদিন ধরে তেলেগু ছবিতে কাজ করছেন। কিন্তু পরিবেশ শোচনীয় দেখে তিনি তেলেগু চলচ্চিত্র শিল্পী অ্যাসোসিয়েশনের সামনে নগ্ন হয়ে প্রতিবাদ করেন। ঘটনাটির সময় উল্লেখ না করে ভারতীয় সংবাদমাধ্যমে হিন্দুস্থান টাইমস জানায়, এর আগে বেশ কয়েকবার সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে প্রতিবাদ করার পর রেড্ডি জনসম্মুখে এ কাজটি করলেন।

এ সময় রেড্ডি সংবাদমাধ্যমকে বলেন, ‘চলচ্চিত্র নির্মাতারা বেশি খরচে বলিউড ও চেন্নাইয়ের নায়িকাদের নিয়ে আসছেন। তারা নির্মাতাদের পছন্দ মতো সবকিছু করতে পারেন। এই সমঝোতার কারণে স্থানীয় নায়িকারা প্রতিভা থাকা সত্ত্বেও কাজের সুযোগ পাচ্ছেন না। এছাড়াও খরচ কমাতে জুনিয়র আর্টিস্টদের চরিত্র ছাঁটাই করা হয়।’

তিনি নগ্ন হয়ে প্রতিবাদের কারণ হিসেবে বলেন, ‘বাইরের নায়িকা আনার ক্ষেত্রে নির্মাতাদের যুক্তি থাকে, তারা অনেক বেশি বোল্ড, কিন্তু স্থানীয়রা ততটা নন। তাই তাদের সামনে নগ্ন হয়েছি। তাদের কতটা নগ্নতা দরকার, সেটা দেখাতেই!’

এর আগে তিনি বিষয়টি নিয়ে হায়দরাবাদের মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করতে চেয়েছিলেন। এমনকি কিছুদিন আগে ফেসবুকে জানান, কাস্টিং কাউচ (অবৈধ সমঝোতা) না থামলে তিনি এমন কিছু করবেন, যাতে বিশ্ব মিডিয়া পর্যন্ত কেঁপে উঠবে।

শ্রী রেড্ডি তামিল ও তেলেগু ছবির অভিনেত্রী। উপস্থাপক ও ভিডিও জকি হিসেবেও তিনি বেশ সফল। তার বাবা হলেন সাবেক ভারতীয় ক্রিকেটার ভারত রেড্ডি। বর্তমানে শ্রী রেড্ডি তেলেগু ছবিতে কাজ করছেন।

মাসুমের এআই নির্ভর শপকিপার ‘গণি ময়রা’ 

আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স (এআই) বা কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা শব্দ দুটির সঙ্গে এখন অনেকেই পরিচিত। এইআই সম্পর্কে মানুষ আগে টুকটাক জানলেও রোবট সোফিয়ার মাধ্যমে অনেকেই নতুন করে জানে। দেশের অনেক মানুষের কাছেই ইন্টারনেট মানেই ফেসবুক, গুগল আর ইউটিউব। আবার কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা বলতে শুধু সোফিয়াকেই বোঝে অনেকে।


যদিও কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার ধারণাটা নতুন কিছু নয়। তবে প্রতিনিয়ত নানা কাজে এর ব্যবহার দেখা যাচ্ছে। এটি মানুষের কাছাকাছি যৌক্তিক সিদ্ধান্ত নিতে সক্ষম তাই দিন দিন এর ব্যবহার বেড়েই চলেছে। বাংলাদেশেও শুরু হয়েছে এটি নিয়ে বিভিন্ন কার্যক্রম। সম্প্রতি কলেজপড়ুয়া মাসুম আকন্দের প্লেক্সডট দেখিয়েছে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা নির্ভর তার ডিজিটাল শপকিপার ‘গণি ময়রা’।

মাসুম আকন্দ প্লেক্সডট ডিজিটালের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও)। সে নিজেকে পরিচয় দেয় কিশোর উদ্যোক্তা হিসেবে। ইউনিভার্সিটি টেকনোলজি মালয়েশিয়াতে পড়ার সুযোগ পেয়েও সেখানে না গিয়ে ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটিতে সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে ভর্তি হয়েছেন তরুণ এই উদ্যোক্তা।

কলেজের পাঠ চুকানোর আগেই মাসুম তৈরি করেছেন কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা নির্ভর ডিজিটাল শপকিপার গণি ময়রা। এটি মূলত একটি অ্যাপ। বলতে গেলে এটি নিজেই একটি দোকানদার। মাসুমের ভাষ্যমতে, এই অ্যাপটি বেশি ব্যবহার করা যাবে বিভিন্ন দোকানে। যখন এটি ইন্টারনেটের আওতায় থাকবে তখন কোনো গ্রাহক দোকানে এসে সালাম দিলে জাগ্রত হয়ে উঠবে এই অ্যাপটি। গ্রাহক যা চাইবে তা দোকানে মজুদ রয়েছে কি না, এর মূল্য কত এসব বিষয়ে গ্রাহককে স্বয়ংক্রিয়ভাবে জানিয়ে দেবে এই অ্যাপটি।

এ বিষয়ে মাসুম আকন্দ বলেন, ‘কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা নিয়ে আমি আগেও কাজ করেছি। এর আগের সাফল্য ছিল জোনাকি অ্যাপ। কিন্তু জোনাকির কাজের পরিধি খুব বড় ছিল না। তারপর শুরু করি গণি ময়রা তৈরির কাজ। এই প্রজেক্টের কাজ শুরুর সময় কলেজের গণ্ডিতে ছিলাম। সম্প্রতি আমি ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে ভর্তি হয়েছি।’

অ্যাপটির বিষয়ে মাসুম আরও বলেন, ‘আপনাকে শুধু নিশ্চিত করতে হবে ইন্টারনেট সংযোগ এবং চার্জ আছে কি না। ফোনে অ্যাপটি ইন্সটল করে দোকানে স্ট্যান্ডে আটকে রাখুন। কাস্টমার দোকানে এসে সালাম দিলেই জাগ্রত হয়ে যাবে গনি ময়রা। এরপর সে কাস্টমারের সাথে বাংলায় কথা বলবে। কাস্টমার কি পণ্য চাইছে তা আছে কি না, সাইজ, ফ্লেভার, পরিমাণ অন্য পণ্যের চাহিদা জানতে চাইবে। ক্রয় নিশ্চিত করলে সে পণ্যটির কিছু তথ্য এবং মেয়াদ সম্পর্কিত তথ্যের কথা বলবে।

রোবটিক আর্মস স্বয়ংক্রিয় কন্ট্রোল করতে পারে এই অ্যাপ। এতে সে নিজেই পণ্য বুঝিয়ে দিতে পারে কাস্টমারকে। কাস্টমারের সাথে কথোপকথনের মাধ্যমেই বিক্রিত পণ্যের মূল্য হিসাব করে ফেলে গণি ময়রা। এমনকি দোকান মালিক নির্দিষ্ট শব্দ উচ্চারণ করলে পণ্যের মজুদ, মেয়াদ, বিক্রয় তথ্য বলে দেয় গণি ময়রা। প্রতিটি কথোপকথনকে টেক্সটে (লিখিত রূপে) রূপান্তর করে নিজের ডাটাবেইজে জমা রাখে সে। উত্তর দেওয়ার সময় কখনো কখনো সেগুলো বিশ্লেষণ করে। গণি ময়রা অ্যাপে আপনি দেখতে পারবেন আপনি কি বলছেন তা সরাসরি বাংলায় রূপান্তর হয়ে যাচ্ছে। প্রয়োজনে শুধরে বলা যাবে সঠিক উচ্চারণ এবং গণি ময়রা কি বলছে তা শোনার পাশাপাশি আপনি স্ক্রিনে বাংলায় তা টেক্সট আকারে দেখতে পাবেন।’

বিজ্ঞাপনের ব্যবস্থাও রয়েছে গণি ময়রা অ্যাপে

মাসুম জানিয়েছেন তার এই অ্যাপে রয়েছে ভয়েস বিজ্ঞাপন ব্যবস্থা। এতে বড় বড় কোম্পানি টিভি, পত্রিকা, সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ছাড়াই সরাসরি গণি ময়রার কথোপকথনের মাধ্যমে কাস্টমারের কাছে তাৎক্ষণিক পণ্যের ভয়েস বিজ্ঞাপন পৌঁছাতে পারবেন। আর এই বিজ্ঞাপনের ওপর নির্দিষ্ট টাকার অংশ পাবেন দোকান মালিক।

গণি ময়রার বর্তমান অবস্থা-

মাসুমের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, গত জানুয়ারিতে এটি উন্মুক্ত করা হয়েছিল। উন্মুক্ত করার পর কিছু কারিগরি ত্রুটি সামনে আসে। হিসাব ভুল করত, একটা প্রোডাক্টের তথ্য দিতে গিয়ে অন্য প্রোডাক্টের তথ্য দিত, ইন্টারনেট ছাড়া কাজ করতো না।

এই ব্যাপারে মাসুম বলেন, ‘এরপর আমি এটাকে পুনরায় ডেভেলপ করতে শুরু করি। এখন ইন্টারনেট ছাড়াই সে ৭ মিনিট সাধারণ কথা বলতে পারে। তবে বাকি প্রবলেমগুলো ঘটেই চলেছে। তবে তার উন্নয়নের জন্য দক্ষ প্রকৌশলী দরকার। তাহলে এটির সিদ্ধান্ত নেওয়ার ক্ষমতা আরও নিখুঁত হবে বলে আমি মনে করি। এটি গড়ে ৭৬ শতাংশ সফল। সময় লাগবেই এটাকে আরও নিখুঁত করতে, হুট করেই তো আসলে সব কিছু হয় না। তবে এটি কার্যকর, কারণ এখন প্রতি ১০০টিতে সর্বোচ্চ ২৪টি ভুল আমি পেয়েছি। আবার কখনো ৩-৪টি। যেহেতু কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা সেহেতু প্রশিক্ষণ দেওয়া ছাড়া কোনো নিয়ন্ত্রণ নেই।’

দশহাজার টাকার পণ্য কিনলেই কোরআনের একটি অনুবাদ ফ্রি 

অলিফিন্স ট্রেড কর্পোরেশন থেকে রমাদান মাসে ১০,০০০ টাকা বা এর এর বেশী যে কোন মূল্যের পণ্য  কিনলেই দিচ্ছে আল কোরআনের একটি অনুবাদ গ্রন্থ ফ্রি।


পন্য সমুহের মধ্যে রয়েছে Access Control Device, PA System, Megaphone, Conference System, Walkie Talkie, CCTV Camera, Eye Wash, Safety Shower ইত্যাদি। অফারটি পেতে পণ্য কেনার সময় কুপনটি জমাদিন অথবা FREE QURAN লিখে SMS করুন  ০১৯৭৯-৩০০৯৪০ নম্বরে। এই অফার টি থাকবে আগামী রমাদান মাস ১৪৩৯ হিজরি পর্যন্ত।

 

জিমেইলের  দেওয়া বিনামূল্যে ১৫ গিগা স্টোরেজ স্পেস ব্যবহার শেষ হলে অতিরিক্ত স্টোরেজ পেতে গুগলকে টাকা দিতে হয়। কিন্তু কিছু কৌশল অবলম্বন করলে সীমিত স্টোরেজকে আরও  কার্যকরীভাবে পরিচালনা করা যাবে। ফলে নতুন স্টোরেজ না কিনেও পুরনো স্টোরেজ ব্যবহার করে অর্থ সাশ্রয় করা যাবে। কয়েটি ধাপে কাজটি করতে হবে। নিচে ধাপগুলো আলোচনা করা হলো 


ধাপ ১: আপনার জিমেইল অ্যাকাউন্টটি খুলুন।
ধাপ ২: নিচের দিকে স্ক্রল করুন। আপনি কতগুলো স্টোরেজ ব্যবহার করেছেন তা দেখতে পাবেন। নিচের দিকে থাকা ‘পরিচালনা করুন’ অপশনটি নির্বাচন করুন।

ধাপ ৩: এটি ক্লিক করার পরে, আপনাকে ড্রাইভ স্টোরেজ নামক একটি পেজে নিয়ে যাওয়া হবে। এখানে, আপনি কতগুলো স্টোরেজ ব্যবহার করেছেন এবং অতিরিক্ত স্টোরেজ কিনতে বিভিন্ন পরিকল্পনার একটি পাই চার্ট দেখতে পাবেন।

ধাপ ৪: পাই চার্টের নিচের  বিবরণ দেখুন অপশনটিতে ক্লিক করুন।

ধাপ ৫: এটি করার সময় আপনি গুগল ড্রাইভ, জিমেইল এবং গুগলফটোতে কী পরিমাণ স্টোরেজ ব্যবহার করেছেন তা আপনি দেখতে পাবেন।

ধাপ ৬: আরও জানুন অপশনটি নির্বাচন করুন।

ধাপ ৭: এটি আপনাকে গুগলড্রাইভ সহায়তা নামক একটি পেজে নিয়ে যাবে। এখানে আপনি আপনার স্টোরেজ পরিচালনা করতে পারেন কীভাবে তার একটি নির্দেশাবলী পাবেন।

ধাপ ৮: আপনার ট্র্যাশে অনেক আইটেম থাকলে, drive.google.com -এ যান এর পরে, বাম দিকে ট্র্যাশ ক্লিক করুন ট্র্যাশ খালি করুন-এ ক্লিক করুন যেন আপনি নিশ্চিত হতে পারেন আপনার ট্র্যাশ ফোল্ডারে কোনও ফাইল নেই যা আপনি উদ্ধার করতে চান।

ধাপ ৯: গুগল ড্রাইভ হেল্প -এর অধীনে বিকল্প-১ নামে একটি লিংক পাবেন সেখানে যার মাধ্যমেও আপনি জিমেইলের স্পেস খালি করতে পারবেন। ওই লিংকে ক্লিক করলে আপনি দেখতে পাবেন আপনার ফাইলগুলোর মধ্যে কোন ফাইলগুলো সর্বাধিক স্থান দখল করে আছে। এই তালিকাটি দেখে আপনি যে ফাইলগুলো আপনার ব্যবহারের জন্য না তা নির্ধারণ করতে পারবেন এবং ডিলিট করতে পারবেন।

যদি আপনার ছবিগুলো অনেক স্টোরেজ দখল করে থাকে, তাহলে গুগল ড্রাইভের সহায়তায় ফটো স্টোরেজ সম্পর্কে আরও জানুন- অপশনটিতে যান। আপনাকে একটি নতুন পেজে নিয়ে যাওয়া হবে।

ধাপ ১১: জিমেইলের ট্র্যাশ ও স্প্যাম ফোল্ডারগুলোও সাফ করুন এবং যেসব ইমেল গুরুত্বপূর্ণ নয় তা মুছে দিন।

এই বৈশাখে মাশরুম ভুনা 

এবারের বৈশাখটা একটু ভিন্ন রকমই হোক না! পুরনো ঐতিহ্য ধরে রাখলেন, সঙ্গে আরও রাখলেন বৈচিত্র্য। পান্তা-ইলিশের পাতটি সাজালেন মাশরুমে।


উচ্চ প্রোটিন সমৃদ্ধ এ খাবার যেমন ক্যানসার, হৃদরোগ, কিডনি রোগ, ডায়াবেটিকস, রক্তচাপে কার্যকরী, খাবারের অতিরিক্ত আঁশ শরীরের পানির ভারসাম্য বজায় রাখতে সহযোগিতা করে। ফলে বৈশাখের অতিরিক্ত গরম ও ধকলে এ খাবারও আপনাকে চাঙ্গা রাখতে পারবে। যা হতে পারে আপনার বৈশাখ উদযাপনের বাড়তি অনুসঙ্গ। জেনে নিন মাশরুম ভুনার রেসিপি।

উপকরণ- মাশরুম- হাফ কেজি, আদা পেস্ট- ১ চা চামচ, রসুন পেস্ট- এক চা চামচ, জিরা পেস্ট- আধ চামচ। পেঁয়াজ-রসুন কুঁচি আধ কাপ, হলুদ গুঁড়া- আধ চা চামচ, মরিচ গুঁড়া- সামান্য। কাঁচামরিচ- ৫/৬টি এক ফালি করে, দারচিনি-দুই টুকরো, এলাচ- তিনটি  তেল, লবণ পরিমাণ মতো।

প্রণালি:


১. প্যানে তেল গরম করে পেঁয়াজ- রসুন কুঁচি ও দারচিনি এলাচ দিতে হবে।

২. বাটা ও গুঁড়া মশলাগুলো ১/২ কাপ পানিতে মিশিয়ে তেলে দিতে হবে।

৩. কষানো মসলায় মাশরুম দিতে হবে।

৪. পানি শুকিয়ে এলে মাখা মাখা অবস্থায় কাটা মরিচ দিয়ে নামিয়ে নিতে হবে।

গরম ভাতের সঙ্গে পরিবেশন করুন। চাইলে রুটির সঙ্গেও খাওয়া যাবে।


এই এপ্রিলে ‘অক্টোবর’ নিয়ে আসছেন বলিউডের নতুন প্রজন্মের অভিনেতা বরুণ ধাওয়ান। এতে হোটেল ম্যানেজমেন্ট শিক্ষার্থীর ভূমিকায় দেখা যাবে তাকে। চরিত্রটির সঙ্গে মানিয়ে নিতে শুটিং সেটেই প্রশিক্ষণ নিয়েছেন তিনি।


পরিচালক সুজিত সরকার চিত্রনাট্য অনুযায়ী সব দৃশ্যের শুটিং করেছেন দিল্লির একটি পাঁচতারা হোটেলে। বরুণকে দিয়ে হোটেল ম্যানেজমেন্ট শিক্ষার্থীদের যাবতীয় কাজ করনোর ইচ্ছে ছিল তার। পেরেছেনও।

হোটেল কর্মচারীর ম্যানারিজম আয়ত্তে আনতে টয়লেট ও মেঝে পরিষ্কার থেকে শুরু করে থালা-বাসন ধোয়া, রান্না, ইস্ত্রি করা, খাবার পরিবেশন ইত্যাদি কাজ নিজের হাতে করতে হয়েছে বরুণকে।

স্বাভাবিকভাবে তখন ওই হোটেলে বিভিন্ন দেশের পর্যটকরা ছিলেন। বরুণকে তারা সত্যি সত্যি কর্মচারী ভেবে খাবারের অর্ডারও দিয়েছিলেন! এক অতিথি তো তাকে রুম পরিষ্কারের জন্যও ডাক দেন।

চরিত্রটির জন্য পুরোপুরি নিবেদিত ছিলেন বরুণ। তাই চমকপ্রদ ব্যাপার হলো, অতিথিদের বুঝতে না দিয়ে ঠিকই তিনি খাবার পৌঁছে দিয়েছেন, রুমও পরিষ্কার করেছেন।


এসব দৃশ্য ক্যামেরায় ধরে রাখতে ভুল করেননি পরিচালক সুজিত সরকার। বরুণের অবশ্য তা জানা ছিল না। পরে দৃশ্যগুলো দেখে হোটেল কর্মচারীর ভূমিকায় নিজের দক্ষতায় অবাক হন ৩০ বছর বয়সী এই তারকা।

মজার বিষয় হলো, ‘অক্টোবর’ ছবিতে হুট করেই নেওয়া হয় বরুণকে। সেটা গত বছরের নভেম্বরের কথা। একদিন সুজিত সরকারের অফিসে সাধারণ পোশাকে বেড়াতে গিয়েছিলেন তিনি। চুলগুলো ছিল এলোমেলো। তখনই ছবিটির ডেনিশ ওয়ালিয়া ওরফে ড্যান চরিত্রের জন্য তাকে নির্বাচন করে ফেলেন সুজিত।

ভালোবাসা, জীবন ও সম্পর্কই ‘অক্টোবর’ ছবির বিষয়বস্তু। এতে বরুণের বিপরীতে অভিনয় করেছেন নবাগতা বানিতা সান্ধু। এটি মুক্তি পাবে আগামী ১৩ এপ্রিল। ইতোমধ্যে বেরিয়েছে এ ছবির গান ‘তেহের জা’ ও ‘তাব ভি থা’।

*  ড্যান চরিত্রের জন্য বরুণ ধাওয়ানের প্রস্তুতির ভিডিও:



  facebooker-8-koti-70-lake-baboharkarir-tottho-fash

যুক্তরাষ্ট্রের রাজনৈতিক ও সামরিক তথ্য বিশ্লেষণী সংস্থা ক্যামব্রিজ অ্যানালিটিকার বিরুদ্ধে কয়েক কোটি ফেসবুক ব্যবহারকারীর ব্যক্তিগত তথ্য অবৈধভাবে ব্যবহারের অভিযোগ ওঠে গতমাসে। এরপর থেকেই ফেসবুক এবং এর প্রতিষ্ঠাতা মার্ক জাকারবার্গের জনপ্রিয়তায় ধস নেমেছে। প্রাথমিকভাবে জানা গিয়েছিল, ৫০ মিলিয়ন তথা পাঁচ কোটি ফেসবুক ব্যবহারকারীর তথ্য সংগ্রহ করেছে ক্যামব্রিজ অ্যানালিটিকা। কিন্তু নতুন তথ্য বলছে এই ঘটনায় আরও বেশি পরিমাণ ফেসবুক ব্যবহারকারীর তথ্য সংগ্রহ করেছে সংস্থাটি।


৪ এপ্রিল, বুধবার ফেসবুকের চিফ টেকনোলজি অফিসার (সিটিও) মাইক স্ক্রুফারের এক বিবৃতির বরাত দিয়ে এই তথ্য জানিয়েছে আন্তর্জাতিক সংবাদ মাধ্যম আলজাজিরা।

ওই দিনই সাংবাদিকদের সঙ্গে এক ফোনালাপে ফেসবুকের প্রতিষ্ঠাতা মার্ক জাকারবার্গ জানিয়েছেন, তাদের হিসাব-নিকাশ বলছে এই তথ্য চুরির ঘটনায় সর্বোচ্চ ৮ কোটি ৭০ লাখ মানুষের তথ্য চুরি হতে পারে। ফেসবুক ব্যবহারকারীদের বন্ধু তালিকার সর্বোচ্চ সীমা বিবেচনা করে এই ফলাফল পেয়েছেন তারা।

জাকারবার্গ বলেন, ‘আমাদের বিশ্লেষণে দেখা গেছে এই সংখ্যা ৮ কোটি ৭০ লাখের বেশি নয়। এর চাইতে কমও হতে পারে। তবে আমরা সম্ভাব্য সর্বোচ্চ সংখ্যাটা প্রকাশ করতে চেয়েছি।’

তবে এই সংখ্যার ব্যাপারে ফেসবুকের সঙ্গে একমত নয় ক্যামব্রিজ অ্যানালিটিকা। তাদের প্রকাশিত এক বিবৃতিতে দাবি করা হয়েছিল, ৩০ মিলিয়ন তথা তিন কোটির বেশি মানুষের তথ্য তারা সংগ্রহ করেনি।
ফেসবুকের কোন কোন ব্যবহারকারীর তথ্য ক্যামব্রিজ অ্যানালিটিকার হাতে পড়েছে, এটা সামনের সপ্তাহ থেকে জানাতে শুরু করবে ফেসবুক।

অন্যদিকে, এই ঘটনায় মার্কিন কংগ্রেসের সামনে ১১ এপ্রিল জবানবন্দি দেবেন মার্ক জাকারবার্গ। কংগ্রেসের সদস্য ফ্র্যাঙ্ক প্যালোন বুধবার জানিয়েছেন, সে সময়ে তথ্য গোপনীয়তার ইস্যুতে আলোচনা করতে এই শুনানি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে।

ফেসবুক তাদের ব্যবহারকারীর তথ্যের গোপনীয়তা নীতিতে পরিবর্তন আনছে, এটাও জানা গিয়েছে বুধবার। ফেসবুকের চিফ প্রাইভেসি অফিসার এরিন এবং এবং ডেপুটি জেনারেল কাউন্সিলর অ্যাশলি বেরিঙ্গারের এক বিবৃতিতে বলেন, ‘আমরা আপনাদের ফেসবুকের তথ্য সংগ্রহ, ব্যবহার বা শেয়ারের অনুমতি চাইছি না। অতীতের কোন প্রাইভেসি চয়েজও পরিবর্তন করা হবে না। আমরা কীভাবে তথ্য ব্যবহার করছি তার ব্যাখ্যা করব এবং আপনাকে গ্রুপ, বন্ধু, এবং পেজ সাজেস্ট করার জন্য কেন এই তথ্য জরুরি তা জানাবো।’

ফেসবুকের এই দুই কর্মকর্তার বিবৃতিতে এটাও দাবি করা হয় যে তারা কখনোই তথ্য বিক্রি করবে না।
নতুন এই পলিসির ব্যাপারে ব্যবহারকারীরা সাতদিনের মাঝে প্রতিক্রিয়া জানাতে পারবেন। এরপর নতুন পলিসি কার্যকর করা হবে।

তিন মাসব্যাপী মাসের্ল ডিজিটাল ক্যাম্পেইন শুরু

বিক্রয়োত্তর সেবা কার্যক্রম অন লাইনের আওতায় আনতে আবারো ডিজিটাল ক্যাম্পেইন শুরু করলো মার্সেল।  এর আওতায় মার্সেলের ফ্রিজ, টিভি এবং এসি কিনে রেজিস্ট্রেশন করলে ক্রেতারা পেতে পারেন আমেরিকা, রাশিয়া ভ্রমণের সুযোগ কিম্বা  মার্সেলের ফ্রিজ, টিভি ও এসি ফ্রি। পাবেন নিশ্চিত নগদ ছাড়।


ডিজিটাল ক্যাম্পেইনের আওতায় গ্রীষ্মকালের জন্য মার্সেল ফ্রিজ ও এসিতে এবং বিশ্বকাপ ফুটবল উপলক্ষ্যে মার্সেল টিভিতে এসব সুবিধা থাকছে আগামী তিন মাস অর্থাৎ ৩০ জুন, ২০১৮ পর্যন্ত।

রাজধানীতে মার্সেল কর্পোরেট অফিসের সম্মেলন কক্ষে এ বিষয়ে আয়োজিত অনুষ্ঠানে এসব কথা জানানো হয়। এ সময়ে উপস্থিত ছিলেন মার্সেল বিপণন বিভাগের প্রধান সমন্বয়ক ইভা রিজওয়ানা, পলিসি, এইচআরএম অ্যান্ড এ্যাডমিন বিভাগের প্রধান এসএম জাহিদ হাসান, পিআর অ্যান্ড মিডিয়া বিভাগের প্রধান মো. হুমায়ুন কবীর, মার্সেল বিপণন বিভাগের প্রধান ড. মো. সাখাওয়াৎ হোসেন, নির্বাহী পরিচালক মো. তানভীর রহমান, সিনিয়র অ্যাডিশনাল ডিরেক্টর মফিজুর রহমান প্রমূখ।

অনুষ্ঠানে জানানো হয়, ডিজিটাল ক্যাম্পেইন চলাকালে দেশব্যাপী মার্সেল শোরুম থেকে ক্রেতারা প্রতিদিন মার্সেল ফ্রিজ, টিভি অথবা এসি কিনে তা রেজিস্ট্রেশন করলেই পেতে পারেন ফ্রিজ, টিভি অথবা এসি সম্পূর্ণ ফ্রি । এছাড়াও পেতে পারেন আমেরিকা ও রাশিয়া ভ্রমনের সুযোগ। এসব সুবিধা না পেলেও, মিলবে নিশ্চিত ১ হাজার টাকা পর্যন্ত নগদ ছাড়।

বিক্রয়োত্তর সেবাকে অনলাইন কার্যক্রমে অন্তর্ভূক্ত করার প্রয়াসে দেশের সকল মার্সেল আউটলেট থেকে পণ্য কেনার সময়ই তা রেজিস্ট্রেশন করানো হচ্ছে। এর মাধ্যমে গ্রাহকের নাম, ফোন নাম্বার এবং ক্রয়কৃত পণ্যের মডেল নাম্বারসহ বিস্তারিত মার্সেলের নিজস্ব সার্ভারে সংরক্ষণ করা হচ্ছে। গ্রাহক অনলাইনে (http://support.marcelbd.com) ঘরে বসেই বিক্রয়োত্তর সেবা চাইতে পারবেন। পাশাপাশি অনলাইনে জানতে পারবেন পণ্যটি কোন পর্যায়ে আছে, কখন ডেলিভারি দেয়া হবে ইত্যাদি। এছাড়াও মার্সেলের প্রতিনিধিগণ সার্ভারে সংরক্ষিত গ্রাহকের নাম্বারে ফোন করে সেবা সম্পর্কেও ফিডব্যাক নিতে পারবেন।

উল্লেখ্য, বিক্রয়োত্তর সেবা আরো দ্রুত ও ডিজিটালাইজড করার লক্ষ্যে গত বছরের অক্টোবরে সারা দেশে ডিজিটাল ক্যাম্পেইন চালু করেছিল মার্সেল। সেসময় একজন ক্রেতা প্রতিবার মার্সেল পণ্য কিনে রেজিস্ট্রেশন করলেই পেয়েছেন সর্বোচ্চ এক লাখ টাকা পর্যন্ত ক্যাশ ভাউচার। দেশব্যাপী গ্রাহক পর্যায়ে ব্যাপক সাড়া ফেলে মার্সেলের এই ক্যাম্পেইন। প্রথমদিকে ক্যাম্পেইনের মেয়াদ গত বছরের ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত থাকলেও, গ্রাহকদের ব্যাপক আগ্রহের ভিত্তিতে তা চলে চলতি বছরের ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত।

মার্সেল বিপণন বিভাগের প্রধান ড. মো. সাখাওয়াৎ হোসেন বলেন, এর ফলে গ্রাহকরা পণ্য কেনার পর রেজিস্ট্রেশন কার্যক্রমে উৎসাহিত হবেন। বিক্রয়োত্তর সেবা ডিজিটালাইজড হবে এবং ক্রেতারা দ্রুত, উত্তম সেবা পাবেন।

গুগল সার্চের প্রধানকে নিয়োগ দিলো অ্যাপল 

গুগল সার্চের সাবেক প্রধান জন গিয়েন্দ্রিয়াকে নিয়োগ দিয়েছে অ্যাপল। অ্যাপলের মেশিন লার্নিং ও কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা বিভাগের নেতৃত্ব দেওয়ার জন্য তাকে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে বলে বিবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে।


মঙ্গলবার নিউ ইয়র্ক টাইমসের এক প্রতিবেদনে বলা হয়, গিয়েন্দ্রিয়া সরাসরি অ্যাপলের প্রধান নির্বাহী টিম কুকের সঙ্গে কাজ করবেন। অর্থাৎ কাজের অবস্থা সম্পর্কে কুককে সরাসরি জানাবেন তিনি।

গুগল সার্চের সাবেক প্রধানকে এমন সময় নিয়োগ দেওয়া হলো যখন নিজেদের ডিজিটাল অ্যাসিস্ট্যান্ট সিরিকে আরও উন্নত করার পরিকল্পনা করছে অ্যাপল। এ সম্পর্কে গত সপ্তাহে বিভিন্ন প্রতিবেদনে বলা হয়, সিরি প্ল্যাটফর্মে ১৫০ জনেরও বেশি প্রকৌশলী যুক্ত করতে চায় প্রতিষ্ঠানটি।

জন গিয়েন্দ্রিয়া ২০১০ সালে গুগলে যোগ দেন। এর আগে তিনি সার্চ স্টার্ট-আপ মেটাওয়েবের চিফ টেকনোলজি অফিসার হিসেবে কর্মরত ছিলেন। মেটাওয়েবকে গুগল কিনে নেওয়ার পর গুগল সার্চে যোগ দেন।

অ্যাপলের ডিজিটাল অ্যাসিস্ট্যান্ট সিরি প্রথম নিয়ে আসা হয় ২০১১ সালে। আইফোন ৪ -এর মাধ্যমে এটাকে ব্যবহারকারীদের কাছে নিয়ে আসা হয়। বেশ কয়েক বছর পার হলেও সিরি খুব বেশি উন্নতি করতে পারেনি। বিশেষ করে অ্যামাজন অ্যালেক্সা এবং গুগল অ্যাসিস্ট্যান্টের চেয়ে পিছিয়ে আছে অ্যাপলের এই ডিজিটাল অ্যাসিস্ট্যান্ট।

বিশ্লেষকরা মনে করছেন, সিরির উল্লেখযোগ্য উন্নতির জন্যই গিয়েন্দ্রিয়াকে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। এ সম্পর্কে সিসিএস ইনসাইটের ভাইস প্রেসিডেন্ট মার্টিন গার্নার বলেন, ব্যবহারকারীদের তথ্য সার্ভারে রাখার চেয়ে ডিভাইসেই বেশি রাখে অ্যাপল। কিন্তু গুগল, অ্যামাজন কিংবা ফেসবুক সার্ভারে বেশি তথ্য রাখে।

অ্যাপলের এই প্রক্রিয়া ব্যবহারকারীদের জন্য ভালো। কিন্তু সার্ভারে বেশি তথ্য না রাখায় কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা প্রশিক্ষণের ক্ষেত্রে সমস্যায় পড়তে হয় তাদের। এক্ষেত্রে প্রতিযোগীদের চেয়ে স্বাভাবিকভাবেই পিছিয়ে যেতে হয় অ্যাপলকে।

এ প্রসঙ্গে গার্নার বলেন, এই সংকটকে দূর করে অন্যদের সঙ্গে প্রতিযোগিতা করার জন্য গিয়েন্দ্রিয়া কি পরিকল্পনা করেন তা দেখার জন্য তাকিয়ে আছে পুরো বিশ্ব।

 বাড়িতে রান্না করা পাস্তা কেন রেস্তোরাঁর মতো হয় না?

আজকাল পাস্তা খাবারটি খুব জনপ্রিয় আমাদের দেশের রেস্টুরেন্ট গুলোতে। ছোট-বড় সকলেই পছন্দ করেন নানান স্বাদের পাস্তা, বাড়িতেও হরহামেশাই রান্না করা হয়। কিন্তু, বাড়িতে রাঁধলে কোথায় যেন একটা কমতি রয়ে যায়, তাই না? ঠিক যেন রেস্তোরাঁর স্বাদ আসে না, একটু এদিক-সেদিক হবেই।


আজ তাই  পাঠকদের জন্য আমরা নিয়ে এলাম রেস্তোরাঁর স্বাদের পাস্তা রান্না করার দারুণ কিছু টিপস। জেনে নিন, কেন আপনার বাড়িতে রান্না করা পাস্তা রেস্তোরাঁর মতো সুস্বাদু হচ্ছে না।

সেদ্ধ করতে গিয়েই গড়বড়
বেশিরভাগ ক্ষেত্রে শুরুতেই ভুল করে ফেলেন সবাই। অর্থাৎ, সেদ্ধ করতে গিয়ে। পাস্তা রান্নার একটা বড় অংশ হচ্ছে সেটা সেদ্ধ করা এবং এই কাজের জন্য সঠিক পাত্র বেছে নেয়া। আপনি যদি বেশি পাস্তা রাঁধার জন্য ছোট একটা পাত্র নিয়ে থাকেন, তাহলে আপনার পাস্তা কখনোই ঝরঝরে আর সুন্দরভাবে সেদ্ধ হবে না। পাস্তা সবসময়েই সেদ্ধ করতে হয় প্রয়োজনের চাইতে বেশ বড় খানিকটা পাত্রে। বড় পাত্র মানে বেশি পানি। পাস্তা সঠিকভাবে সেদ্ধ করতে বেশি পানিরও প্রয়োজন হয়।

তেল কিংবা লবণের ব্যবহার
এটা প্রায় সকলেই মনে করেন যে পাস্তা ঝরঝরে করতে সেদ্ধ করার সময়েই পানিতে তেল দিয়ে দিতে হয়, তাহলে পানি ছেঁকে ফেলার পরেও পাস্তা থাকবে ঝরঝরে। এটা একদম ভুল ধারণা। পানিতে তেল দিলে পাস্তা ঝরঝরে হবে না, তাই অকারণেই তেল দিতে যাবেন না। অন্যদিকে অনেকেই পানি ফুটে ওঠার আগে পাস্তা ঢেলে দেন, সেটাও একটা ভুল কাজ। এতে পাস্তা ‘সগি’ হয়ে যায় সেদ্ধ করার পরে। সঠিক উপায়টি হচ্ছে- পানি গরম হতে দিন। সঙ্গে লবণ যোগ করুন। একদম টগবগে ফুটন্ত পানিতে পাস্তা ঢেলে দিন, আঁচ বেশি রাখুন। পাস্তা সেদ্ধ হয়ে গেলে পানি ঝরিয়ে নিন এবং সঙ্গে সঙ্গেই সসে ঢেলে দিন। এতে পাস্তা অনেক বেশি সুস্বাদু হবে।


আরও যে টিপসগুলো দারুণ কার্যকর
-পাস্তার সস খুব মনযোগ দিয়ে তৈরি করুন। রেসিপিটি নিখুঁত ভাবে অনুসরণ করুন, সমস্ত তাজা উপাদান বেছে নিন। নিজের মনের মতো একটা কিছু চাইলেই যোগ করে দেবেন না। এতে রেস্তোরাঁর স্বাদ আনা সহজ হবে।
-খানিকটা পাস্তা সেদ্ধ পানি রেখে দিন, সস তৈরিতে সেই পানি ব্যবহার করুন।
-সঠিক পাস্তা বেছে নিন সঠিক রেসিপির জন্য। যেমন স্প্যাগেটি উইথ মিটবলের রেসিপি হলে সেখানে স্প্যাগেটিই ব্যবহার করুন, অন্য পাস্তা হয়।
-পাস্তা যদি ফ্রেশ তৈরি করে নিতে পারেন, অর্থাৎ ঘরে তৈরি করা পাস্তায় সুস্বাদ মেলে বহুগুণ।
-পাস্তার জন্য উত্তম মানের চিজ ব্যবহার করুন। সস্তা চিজ দিয়ে সুস্বাদু পাস্তা আশা করবেন না।
-হোয়াইট সস তৈরি জন্য ভালো মানের তাজা দুধ ব্যবহার করুন। তাজা গোল মরিচের গুঁড়ো পাস্তার স্বাদই বদলে দেয়।
-পাস্তা ঠিকমত সিজন করুন। অর্থাৎ লবণ পরিমাণ মতো দিন। লবণ কম বা বেশি হলে পাস্তা মজা হয় না।

তাহলে আর দেরি কেন প্রিয় পাঠক? রেস্তোরাঁর স্বাদের পাস্তা আজ হয়ে যাক আপনার বাড়িতেই!
Blogger দ্বারা পরিচালিত.