ড্রোন দিয়ে স্মার্টফোন চোরাচালান

ড্রোন দিয়ে স্মার্টফোন চোরাচালান 

বর্তমান সময়ে উচ্চ প্রযুক্তির ড্রোন ব্যবহার করে নানা কাজ সহজ করা হয়। তবে এবার ড্রোনের আরেক ব্যবহার জানা গেল। চীনে স্মার্টফোন চোরাচালানে ব্যবহার করা হচ্ছে ড্রোন।


চীনের রাষ্ট্রীয় সংবাদ সংস্থার বরাত দিয়ে সিএনএনের খবরে বলা হয়, চীনে ৮ কোটি ডলার মূল্যের স্মার্টফোন ড্রোন দিয়ে পাচার করা হয়েছে। এসব ফোনের মধ্যে ছিল অ্যাপলের আইফোন ও অন্যান্য ব্র্যান্ডের স্মার্টফোন।

চীনের কাস্টমস কর্মকর্তাদের বরাত দিয়ে খবরে আরও বলা হয়, সন্দেহভাজন ব্যক্তিরা সীমান্ত দিয়ে হংকং থেকে প্রতিবেশী শহর শেনজেনে প্রতি রাতে ১৫ হাজার ডিভাইস অবৈধভাবে পাচার করতো।

পাচারকারীরা ব্যাগের ভেতর স্মার্টফোন ঢুকিয়ে একটি ক্যাবলের সঙ্গে সংযুক্ত করে হংকং থেকে শেনজেনে নিয়ে আসতো।

কাস্টমস কর্মকর্তারা জানিয়েছে, চোরাচালানীতে এই প্রথম এমন ড্রোনের ব্যবহার দেখা গেছে।

গত বছর চীনে ড্রোন ব্যবহারে নতুন নীতিমালা প্রণয়ন করা হয়েছে। নীতিমালা অনুযায়ী একটি নির্দিষ্ট ওজনের ড্রোনের মালিকদের প্রকৃত নাম অনুসারে নিবন্ধিত করতে হবে।

চীনের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলীয় একটি বিমানবন্দরের উপর দিয়ে অবৈধভাবে একটি ড্রোন উড়ে গেলে বিমানের ট্র্যাফিকের জন্য বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করে। এরপরই দেশটিতে ড্রোনের নতুন আইন করা হয়।

বর্তমান সময়ে উচ্চ প্রযুক্তির ড্রোন ব্যবহার করে নানা কাজ সহজ করা হয়। তবে এবার ড্রোনের আরেক ব্যবহার জানা গেল। চীনে স্মার্টফোন চোরাচালানে ব্যবহার করা হচ্ছে ড্রোন।