ফেসবুক কর্মীদের জিজ্ঞাসাবাদ করেছেন মুলার : জাকারবার্গ

 ফেসবুক কর্মীদের জিজ্ঞাসাবাদ করেছেন মুলার : জাকারবার্গ

 ২০১৬ সালের মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে রাশিয়ার হস্তক্ষেপ ছিল বলে অভিযোগ আছে। আর এই অভিযোগ তদন্তের জন্য সাবেক এফবিআই-প্রধান রবার্ট মুলার ফেসবুকের কর্মীদেরও জিজ্ঞাসাবাদ করেছিলেন।


১০ এপ্রিল, মঙ্গলবার ফেসবুকের সহ প্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মার্ক জাকারবার্গ মার্কিন সিনেটের বাণিজ্য ও বিচারবিভাগীয় কমিটির সামনে এ কথা শিকার করেন।

জাকারবার্গ মার্কিন সিনেটরে জবাবদিহিতার সময় ডেমোক্রেটিক শন পেট্রিক লেথির প্রশ্নের জবাবে জানান, রাশিয়ার হস্তক্ষেপের অভিযোগ নিয়ে তদন্তে থাকা স্পেশাল কাউন্সেল রবার্ট মুলার ফেসবুকের কর্মীদেরও জিজ্ঞাসাবাদ করেছিলেন তবে তাদের মধ্যে তিনি নিজে ছিলেন না।

জিজ্ঞাসাবাদ নিয়ে এরপর তিনি আরও বলেন, ‘বিশেষ পরামর্শের সঙ্গে আমাদের কাজ গোপনীয় তাই আমি সতর্ক থাকতে চাই এবং আমি নিশ্চিত করতে চাই যে উন্মুক্ত অধিবেশন আমি গোপন কিছু প্রকাশ করছি না।’
চলতি বছরের ফেব্রুয়ারিতে রবার্ট মুলারের দফতর রাশিয়ার ১৩ নাগরিক ও তিনটি কোম্পানির বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে হস্তক্ষেপের অভিযোগ এনে তদন্ত শুরু করে।

ফেসবুক ব্যবহারকারীদের ব্যক্তিগত তথ্য রাজনৈতিক কাজে ব্যবহারের ঘটনায় যুক্তরাষ্ট্রের সিনেটরদের মুখোমুখি হয়ে পাঁচ ঘণ্টা জবাবদিহি করেন মার্ক জাকারবার্গ।

এ সময় জাকারবার্গ তথ্য বেহাতের ঘটনার দায় নিজের কাঁধে নেন এবং দুঃখ প্রকাশ করেন। জাকারবার্গ বলেন, ‘এটা স্পষ্ট যে, ফেসবুকের সুবিধাগুলো ক্ষতিকর কাজে ব্যবহার বন্ধে আমরা যথেষ্ট ব্যবস্থা নিইনি।’

যুক্তরাষ্ট্রের রাজনৈতিক ও সামরিক তথ্য বিশ্লেষণী সংস্থা ক্যামব্রিজ অ্যানালিটিকার বিরুদ্ধে কয়েক কোটি ফেসবুক ব্যবহারকারীর ব্যক্তিগত তথ্য অবৈধভাবে ব্যবহারের অভিযোগ ওঠে গতমাসে।

প্রাথমিকভাবে জানা গিয়েছিল, ৫০ মিলিয়ন তথা পাঁচ কোটি ফেসবুক ব্যবহারকারীর তথ্য সংগ্রহ করেছে ক্যামব্রিজ অ্যানালিটিকা। কিন্তু নতুন তথ্য বলছে এই ঘটনায় আরও বেশি পরিমাণ ফেসবুক ব্যবহারকারীর তথ্য সংগ্রহ করেছে সংস্থাটি।

পরে ফেসবুকের প্রতিষ্ঠাতা মার্ক জাকারবার্গ জানান, তাদের হিসাব-নিকাশ বলছে এই তথ্য চুরির ঘটনায় সর্বোচ্চ ৮ কোটি ৭০ লাখ মানুষের তথ্য চুরি হয়েছে। ফেসবুক ব্যবহারকারীদের বন্ধু তালিকার সর্বোচ্চ সীমা বিবেচনা করে এই ফলাফল পেয়েছেন তারা।

২০১৬ সালের মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে রাশিয়ার হস্তক্ষেপ ছিল বলে অভিযোগ আছে। আর এই অভিযোগ তদন্তের জন্য সাবেক এফবিআই-প্রধান রবার্ট মুলার ফেসবুকের কর্মীদেরও জিজ্ঞাসাবাদ করেছিলেন।