রিসার্চ কমিশন গঠনের ঘোষণা দিলেন জাকারবার্গ

রিসার্চ কমিশন গঠনের ঘোষণা দিলেন জাকারবার্গ 

নির্বাচন এবং গণতন্ত্রের ওপর সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের প্রভাব নিরূপণের জন্য নতুন একটি কমিশন গঠনের কাজ চলছে। এই ইলেকশন রিসার্চ কমিশনটি স্বাধীনভাবে কাজ করবে। সোমবার (৯ এপ্রিল) এক ফেসবুক স্ট্যাটাসে এসব তথ্য জানান ফেসবুকের প্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান নির্বাহী মার্ক জাকারবার্গ।


মার্ক জাকারবার্গ


কমিশন গঠনের উদ্দেশ্য হলো— নির্বাচনকালীন বিভিন্ন সমস্যা চিহ্নিত করা এবং নির্বাচনের নিরপেক্ষতা বজায় রাখা।

ইলেকশন রিসার্চ কমিশন গঠনের জন্য প্রাতিষ্ঠানিক বিশেষজ্ঞদের নিয়ে ইতোমধ্যে কাজ শুরু করেছে ফেসবুক। পুরো যুক্তরাষ্ট্রজুড়ে এই কাজ করছেন তারা। জানা গেছে, প্রাতিষ্ঠানিক বিশেষজ্ঞদের নিয়ে একটি কমিটি গঠন করা হবে। রিসার্চের জন্য এই কমিটি বিভিন্ন বিষয় নির্ধারণ করবে। পরবর্তীতে এগুলো নিয়েই হবে বিস্তর গবেষণা।

এ সম্পর্কে ফেসবুক স্ট্যাটাসে মার্ক জাকারবার্গ জানান, এই গবেষকদেরকে আমাদের রিসোর্সে প্রবেশাধিকার দেওয়া হবে, যেন তারা নির্বাচনে ফেসবুকের ভূমিকা নিয়ে নিরপেক্ষ একটি সিদ্ধান্ত জানাতে পারেন। পরবর্তী নির্বাচনগুলোর আগে কী ধরনের পদক্ষেপ নেওয়া দরকার তাও এর মাধ্যমেই জানা যাবে।
গবেষকরা তাদের কাজ সবার সামনে উপস্থাপন করবেন বলে জানানো হয়েছে। এজন্য ফেসবুকের কাছ থেকে কোনও অনুমোদন নেওয়ার প্রয়োজন হবে না।

নির্বাচন এবং গণতন্ত্রের ওপর সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের প্রভাব নিরূপণের জন্য নতুন একটি কমিশন গঠনের কাজ চলছে। এই ইলেকশন রিসার্চ কমিশনটি স্বাধীনভাবে কাজ করবে। সোমবার (৯ এপ্রিল) এক ফেসবুক স্ট্যাটাসে এসব তথ্য জানান ফেসবুকের প্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান নির্বাহী মার্ক জাকারবার্গ।